অতঃপর প্রেম পর্ব ৬

0
194

#অতঃপর_প্রেম🍃
#পর্ব_০৬
#লেখিকা_আয়ানা_আরা (ছদ্মনাম)

সাদা কাফনে মুড়ানো লাশকে জড়িয়ে ধরে লাশটির দিকে তাকিয়ে আছি আমি। এই লাশটা আর কারো না আম্মুর!!যে কিনা আজ সকাল অব্দি বেঁচে ছিলো!ডক্টর বলেছেন আম্মু ঘুমের মধ্যে স্ট্রোক করেছেন। আমার চোখ ফুলে গেছে। আমি আর মায়ের লাশ দেখতে না পেরে অজ্ঞান হয়ে পরে যেতে নেই তার আগেই রোদ স্যার আমাকে ধরে নেন। কোনো দিক বিবেচনা না করে তিনি আমাকে পাঁজকোল তুলে রুমে নিয়ে যেয়ে শুয়ে দেন। নিশা রোদ স্যারের পিছে পিছে রুমে ঢুকে। রোদ স্যারের উদ্দেশ্যে বলে,’ওর কি হয়েছে?’

‘ও মা হারানোর ধাক্কাটা সামলাতে পারিনি তাই অজ্ঞান হয়ে গেছে।’

‘ওর উপর এটার ইফেক্ট খুব খারাপ ভাবে পড়েছে।’

‘হুম’

এই বলে তিনি আমার মুখের দিকে তাকান। কয়েক ঘন্টার তফাৎে মুখ ফেকাসে হয়ে গিয়েছে।

ফ্ল্যাশব্যাক-
আমাদের বাসার কাছেই আমার মেডিক্যাল থাকার কারণে আম্মুকে আমি ওইখানে কিছু প্রতিবেশির সাহায্যে নিয়ে যাই। আমি চেঁচাতে চেঁচাতে ডক্টর কে ডাক দেই। তখন ভাগ্যবশত রোদ স্যার কাজের জন্য হস্পিটালে এসেছিলেন আমাকে এইভাবে চিল্লাতে দেখে আমার কাছে এসে বলে,’কি হয়েছে মেহেক চিল্লাচ্ছো কেনো?’

আমি কাঁদতে কাঁদতে তাকে বলি,’রোদ স্যার আমার আম্মুকে বাঁচান প্লিজ।’

আমার কান্না দেখে রোদ স্যার আতকে উঠেন। তিনি ব্যস্ত হয়ে বলেন,’কি হয়েছে তোমার আম্মুর?’

রোদ স্যার কয়েকটা নার্সকে ডেকে বলেন আম্মুকে আইসিইউ তে নিয়ে যেতে। আম্মুকে আইসিইউতে নিয়ে যাওয়ার পর আমি হস্পিটালের ল্যান্ড লাইন দিয়ে আব্বু আর ভাইয়াকে হস্পিটালে আসতে বলি। তারা আসার পর রোদ স্যার গোমড় মুখ নিয়ে বেরিয়ে বলেন,’শি ইজ নো মোর।’

উনার কথা শুনে আমার সারা পৃথিবী থমকে গিয়েছে। থমাকাবেই না কেনো আমার পৃথিবীই তো চলে গেছে আমাকে ছেড়ে সেই দূর আকাশে না ফেরার দেশে। আমি আর কাউকে ‘আম্মু’ ‘ও আম্মু’ বলে ডাকতে পারবো না। ডাকলেও সাড়া দেওয়ার জন্য মানুষটাই তো নেই। আমি উঠে দাঁড়িয়ে রোদ স্যারের কলার চেপে ধরে বলি,’মিথ্যা বলছেন কেনো স্যার আপনি? আপনি ডাক্তার হয়ে মিথ্যা বলছেন?’

কথা গুলো বলতে বলতে আমি কেঁদে দেই। মেহেদী ভাই আর আব্বু চেয়ারের সাথে হেলান দিয়ে বসে আছে তারাও নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারছে না। অবশেষে সাদা কাফনের কাপড়ে মুড়ানো আম্মুকে আনা হলো। এইটাই আম্মুর সাথে লাস্ট দেখা আর কখনো দেখা হবে না আমার তার সাথে।

বর্তমান-
লাফ দিয়ে বিছানা থেকে উঠে বসি আমি। ফজরের আজানের ধ্বনি কানে আসছে। আমি চারদিকে চোখ বুলিয়ে বুঝতে পারি এটা একটা বাজে স্বপ্ন। আমি পাশে থাকা জগ নিয়ে ঢক ঢক করে সব পানি খেয়ে শেষ করে ফেলি। তারপর ওযু করে এসে নামাজ আদায় করে নেই।

চারদিকে আবছা আলো। আমি কিচেনে যেয়ে এক কাপ কফি নিয়ে ব্যালকনিতে এসে পরিবেশ উপভোগ করছি। ঘড়ির কাটায় সাতটা বাজতেই আমি ব্রেকফাস্ট বানিয়ে নিলাম সবার জন্য। হঠাৎই মা উঠে এসে বলে,’কিরে মেহু কিচেনে কি করছিস?’

আমি আম্মুর দিকে তাকিয়ে মুচকি হেসে বলে,’ব্রেকফাস্ট বানাতে।’

আমার কথা শুনে আম্মু অনেক অবাক হয় সেটা তাকে দেখেই বুঝা যাচ্ছে। আম্মু আমার কাছে এসে গালে আলতো করে হাত রেখে বলে,’আমি কি স্বপ্ন দেখছি?তুই নাস্তা বানাচ্ছিস?’

আমি হেসে বলি,’এটা বাস্তব।’

আম্মু আর কিছু না বলে খাবার গুলো নিয়ে টেবিলে পরিবেশন করে দেয়। আব্বু আর ভাইয়াও এসে ব্রেকফাস্ট করে চলে যায়। আমিও মেডিক্যাল যাওয়ার জন্য রেডি হয়ে নিচে যাই। দেখি আম্মু টিভিতে সিরিয়াল দেখছে। আমি আম্মুর কাছে যেয়ে বলি,’আম্মু আমি যাই তাহলে’

আম্মু টিভি দেখতে দেখতে বলে,’হুম যা।’

আমিও মেডিক্যালের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়লাম। মেডিক্যালে পৌছে হাঁটতে হাঁটতে কারো সাথে ধাক্কা খেয়ে পরে যাই। আমি রাগে উঠে দাঁড়িয়ে সামনের ব্যক্তিকে বলি,’এই চোখে দেখেন না কানা নাকি?’

সামনের ব্যক্তিটা ভ্রুকুচকে বলে,’সরি খেয়াল করিনি।’

‘খেয়াল করেননি নাকি ইচ্ছা করে ধাক্কা দিয়েছেন।’

‘এক্সকিউজ মি আপনি আমাকে ভুল ভাবছেন।’

‘কি ভুল ভাবছি হ্যা?’

এই বলে রাগে চলে আসলাম। আমি ক্লাসে ঢুকে দেখলাম ক্লাস শুরু হয়ে গেছে। রোদ স্যার আমাকে বলে,’তা মিস ওপস সরি মিসেস মেহেক মেডিক্যাল কি আপনার বাসা।’

‘না এটা বাসা কেনো হবে?’

‘তাহলে যখন খুশি আসেন কেনো?’

‘আসলে…

আমার পুরা কথা শেষ না করতে দিয়েই রোদ স্যার আমাকে এক ধমক দিয়ে সিটে বসতে বলেন। আমি মুখ ফুলিয়ে সিটে বসলাম। এইভাবে অপমান না করলেও পারতো। খবিশ ব্যাটা হুহ!!নিশা আমাকে ফিসফিস করে বলে,’আচ্ছা তোমাকে রোদ মিসেস কেনো বলেছে?’

নিশার কথা শুনে আমি চমকে উঠি। আমি আমতা আমতে করে বলি,’ক-কি জা-নি’

আমার কথা শুনে নিশা ভ্রুকুচকে বলে,’আমতা আমতা করছো কেনো?’

আমি কথা ঘুরিয়ে বলি,’ক্লাস করো।’

নিশাও আর কিছু না বলে ক্লাস করে। কয়েকটা ক্লাস শেষে আমি বাসায় চলে আসি। কোত্থেকে আমার কাজিন দৌড়ে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরে বলে,’এই মেহুউউ।’

‘রোথি তুই?’

‘হ্যা আমি কেমন দিলাম সার্প্রাইজ।’

‘সত্যিই আমি অনেক অবাক হয়েছি। তা ফুপিমা আর তোর ওই ইঁচড়েপোকা ভাই এসেছে?’

‘না ভাইয়া আসেনি কিন্তু আম্মু এসেছে। মামির রুমে আছে।’

‘আচ্ছা ঠিকাছে আমি ফ্রেশ আসছি তারপর একসাথে যাই নিচে।’

‘হুম জলদি যা।’

আমি ফ্রেশ হয়ে এসে আম্মুর রুমে যাই।আমি ফুপিকে দেখে দৌড়ে তাকে জড়িয়ে ধরে বলি,’কেমন আছো ফুপিমা।’

ফুপিমাও আমাকে জড়িয়ে ধরে বলে,’অনেক ভালো আছি। তুই কেমন আছিস?’

‘আমিও অনেক ভালো আছি।’

ফুপিমা আমাকে ছেড়ে বলল,’শুনলাম মেডিক্যালে চান্স পেয়েছিস?’

‘হ্যা।’

‘আমাকে একটু খবরও দিলি না।’ (মুখ ফুলিয়ে।)

আমি হেসে ফুপিমাকে বললাম,’খুশিতে মনে ছিলো না।’

‘আচ্ছা ঠিকাছে। আমি তোর জন্য রসমালাই নিয়ে এসেছি।’

আমি খুশিতে লাফ দিয়ে বলি,’সত্যিই ফুপিমা?’

ফুপিমা হেসে বলেন,’হুম।’

‘তুমি বেস্ট ফুপিমা।’

ফুপিমা একটা ভেংচি কেটে বলে,’হইছে এতো মিথ্যা বলতে হবে না আপনার এখন যান খান গিয়ে।’

আমি দাঁত কেলিয়ে চলে গেলাম রসমালাই খেতে। রসমালাই আমি অনেক ফেবারেট….

#চলবে

( কালকে গল্প দিতে পারি নাই তার জন্য অনেক দুঃখিত। ভুলক্রুটি ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। হ্যাপি রিডিং)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here