অন্যরকম ভালোবাসা ২ -পর্ব ১৯

0
63

#অন্যরকম_ভালোবাসা 💓[২]
#ইফা_আমহৃদ
পর্ব::১৯

— “মিসেস ইশরা, আমাদের পক্ষে আপনার বাবাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। আমরা আমাদের সাধ্যমতো চেষ্টা করেছিলাম কিন্তু..! উই আর স্যরি।”

ডাক্তার কথা শুনে বাজ পড়ল ইশরা মাথায়। শূন্য শূন্য লাগছে তার। কাঁপা কাঁপা ঠোঁট জোড়া নাড়িয়ে বলল..
— “আর ঐ কেবিনের পেসেন্ট আয়ান! সে কেমন আছে?”

— “আর অবস্থাও ভালো নয়।”

মায়ের দিকে দৃষ্টি ফেরানো ইশরা। তমোনা ইতিমধ্যে ভেঙ্গে পড়ছে অনেকটা। ক্লান্ত পায়ে এগিয়ে গেল সেদিকে। মায়ের পাশে বসতেই উঠে পড়লেন তিনি। দমফাটা কন্ঠে বললেন..

— “ইশু শেষ করে দিলি তো, তোর বাবাকে। নিঃস্ব করে দিয়েছিস আমাকে। আমার কিছু করার থাকলে করে নে..! মেরে ফেল আমাকে। একটু শান্তিতে থাকতে চাই।”

কথাগুলো বলে সর্বশক্তি প্রয়োগ করে ছুটলেন তমোনা। ইশরা ছুটল তার পিছু পিছু। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না। ইশরা তার মায়ের কাছে পৌঁছানোর আগেই একটা চলন্ত ট্রাক চাপা দিয়ে দিলো তমোনাকে। সাথে সাথে চোখ জোড়া খিঁচে বন্ধ করে নিল ইশরা। দ্বি মুহূর্তে অতিবাহিত হওয়ার পর বেষ্টিত নয়নজোড়া খুলে তাকালো সে। এমন কিছুর জন্য মোটেও প্রস্তুত ছিলো না। মায়ের নিথর দেহটা রক্তে রক্তিম হয়ে আছে। বাক রুদ্ধ হয়ে গেল সে।

পরক্ষণেই চিৎকার করে উঠে বসলো সে। এমন ভয়ংকর স্বপ্ন এর আগে কখনো দেখে নি। কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম জমে আছে। ঘন ঘন শ্বাস নিচ্ছে সে। পাল্স রেট দ্রুত গড়িতে বেড়ে চলেছে। বাম হাতের তর্জনী নিয়ে দ্রুত মুছে নিল সেই ঘামগুলো। ফুঁপিয়ে উঠলো সে। স্বপ্নে দেখা ভয়ংকর দৃশ্য গুলো ভাবতে নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে আসছে তার। ইশরাকে এমন বিচলিত হতে দেখে পাশে অবস্থান করে লোকটি বাহু বন্ধনে আবদ্ধ করে নিলো ইশরাকে। এতেও শান্ত হতে দেখা গেল না ইশরাকে। লোকটিকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরল ইশরা। যতোটা শক্ত করে জড়িয়ে ধরা সম্ভব ততোটা। ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠলো সে। হাতের নখগুলো গাঢ়তম হয়ে উঠলো লোকটা পিঠে। কিন্তু সেই হাত জোড়া সরালো না সে। উল্টো নিজের দুহাত রাখলো ইশরার পিঠে। শান্তনা দিয়ে বলল..

— “কি হয়েছে, কাঁদছো কেন তুমি?”

নিজেকে সামলানোর বদলে আরো গুটিয়ে গেল সে। শব্দ করে কেঁদে উঠলো এবার। টেনে টেনে বলল..

— “আমি বাঁচতে পারছি না, শ্বাস বন্ধ হয়ে আসছে আমার। আমার বা-বা, আয়ান..
প্লীজ ওদের ফিরিয়ে এনে দাও। স্বাভাবিক করে দাও। প্লীজ..

এবার শোনা গেল অতিপরিচিত কষ্ঠস্বর। ইশরার পিঠে বিচরণ করে শান্তণাদায়ক কন্ঠে বলছে..

— “ইশু, এই ইশুপাখি। কি হয়েছে তোমার? কে ফিরিয়ে এনে দেবে আয়ানকে? চোখ মেলে দেখো, তোমার আয়ান তোমার কাছে আছে। তোমার বাহুডোরে। কেউ নিয়ে যায়নি তাকে। শুধু একবার আমার দিকে চোখ মেলে তাকাও।”

চিরচেনা কন্ঠস্বর যেন বুকের গহীনে কম্পন তৈরি করে দিল ইশরার। ভয়টা নিমেষেই দূর হয়ে গেল। এতোক্ষণ সে এই ডাকটার অপেক্ষাই করেছিল। ধীরে ধীরে বেষ্টিত নয়নজোড়া খুলে অবলোকন করলো সে। নজরে এলো আয়ানের চিবুক। সরে গেল খানিকটা। ভেজা চোখের মাঝে হাসি ফুটে উঠল তার। অসংখ্য ঠোঁটের ছোঁয়ায় পরিপূর্ণ করে দিল তাকে। আয়ানের জামা টেনে ঝাঁপিয়ে পড়লো বক্ষমাঝারে। ভেতরে থেকে ক্রমাগত বলে চলেছে.. — “আয়ান! আমার আয়ান।”
ঠোঁট হেলিয়ে হাঁসলো আয়ান। তার পাগলীটা তাকে ছাড়া অপূর্ণ। বলল..

— “সেটা তো বুঝতে পারলাম ইশুপাখি! কিন্তু তুমি এখানে কি করছো?”

পরক্ষণেই ঠোঁটের মিষ্টি হাসিটা মিলিয়ে গেল অজানায়। হাতজোড়া খসে পড়লো আয়ানের কাঁধ থেকে। বাবার কথা ভুলে গেল কিভাবে। অধর দুটি স্বল্প নাড়িয়ে উচ্চারণ করলো.. — “বা-বা! বাবা কোথায়?”

— “ইশু কি হয়েছে আঙ্কেলের?”

আয়ানকে ছেড়ে দৌড়ে বাবার কেবিনের দিকে ছুটল ইশরা। অবশেষে পৌঁছালো সেখানে। করিডোর একদম ফাঁকা। কাঁপা কাঁপা হাতজোড়া ঠেকালো বাবার কেবিনের দরজায়। তখনকার দৃশ্যগুলো ভেসে উঠলো চোখের কিনারায়। গুটিয়ে নিল হাতজোড়া। ভয়ে ভয়ে পুনরায় হাত রাখলো দরজায়। তপ্ত নিঃশ্বাস ত্যাগ করে খুলে ফেললো। সবাই ভেতরে। ভারী ভারী পা জোড়া টেনে ভেতরে প্রবেশ করলো ইশরা। তার বাবা বেডের মাঝ বরাবর ঘুমিয়ে আছে। মুখে অক্সিজেন মাস্ক রয়েছে। ডাক্তার পাশেই তার চেক আপ করছে। আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করলো সে। মুখের কোণে ফুটে উঠলো তৃপ্তিকর হাঁসি। ধীরে ধীরে বাবার বেডের উপর, মাথার কাছে বসে পড়লো। হাত বুলিয়ে দিতে লাগল মাথায়।

ডাক্তারে কথায় ধ্যান ভাঙলো তার। এপ্রোন টা খুলে ডান হাত থেকে বাম হাতে নিয়ে বললেন..– “আপনি নিশ্চয়ই তার মেয়ে?”

মাথা নাড়িয়ে সায় দিলো ইশরা। সাথে সাথে তিনি বললেন,..– “একটু আমার সাথে আসুন।”
বলেই ব্যস্ত ভঙ্গিতে হেঁটে চলে গেলেন তিনি। ইশরা কেবিনে সবার দিকে তাকিয়ে ডাক্তারে পিছু নিলেন।
.
চেম্বারে বসে আছে ইশরা। তিনি মন দিয়ে রিপোর্ট দেখছেন। কিছুক্ষণ রিপোর্টগুলো ভালোভাবে দেখে বলতে শুরু করলেন..

— “আপনার বাবার ব্রেন স্টোক হয়েছে। সারারণতো.. ধমনীতে রক্ত সরবরাহ ব্যাহত হলে হার্ট অ্যাটাক হয়। আর মস্তিষ্কে রক্তের জোগান কমলে হয় ব্রেন স্ট্রোক। কোনো ধমনী আচমকা ছিঁড়ে গেলে মস্তিষ্কে রক্তপাত হয়। এই ‘সেরিব্রাল হেমারেজ’ই ব্রেন স্ট্রোকের অন্যতম কারণ।
কখনো দেখা যায় কোনো কারণে ধমনী সরু হয়ে মস্তিষ্কের কোনো অংশে রক্ত জমাট বেঁধে যায়। এর ফলেও ব্রেন স্ট্রোক হতে পারে, ডাক্তারি পরিভাষায় এর নাম ‘সেরিব্রাল থ্রম্বোসিস’।
প্রায় সকল রোগেরই কিছু বৈশিষ্ট্য আগে থেকেই প্রকাশ পায়। ওনারও পেয়েছিল। আপনারা হয়তো খেয়াল করেন নি। তবে তার ক্ষেত্রে দ্রুত ব্যাপারটা লক্ষ করা যায়। আমার ধারণা তিনি বিগত কিছুদিন ধরে মস্তিষ্কে প্রসার দিচ্ছেন। কোনো বিষয় নিয়ে বেশি চিন্তা করছেন।”

একশ্বাসে কথাগুলো বলে থামলেন তিনি। মাথা নিচু করে নিল ইশরা। তার বাবা তার চিন্তায় নিজের এমন অবস্থা করছেন। আর কখনো এমন কোনো কাজ করবে না, যাতে তার বাবা আরো অসুস্থ হয়ে পড়ে। আবার বলতে শুরু করলেন..

— “গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, একবার স্ট্রোকের পর যারা বেঁচে যাচ্ছে তাদের মৃত্যুর ঝুঁকি দ্বিগুণ।এছাড়া এক বছরের মধ্যে আরো একবার স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হতে পারেন তারা।শরীরের কোন অংশ নাড়াতে না পারা, সাধারণত তাকে পক্ষাঘাত বলা হয়।
– শরীরে যে কোনও অংশে দুর্বলতা
– অসাড়তা
– কথা বলতে বা বোঝার অক্ষমতা
– মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগ করার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলা
– খাবার গিলতে অসুবিধা
– দৃষ্টিশক্তি হ্রাস পাওয়া
– স্মৃতিশক্তি হ্রাস, বিভ্রান্তি ও দুর্বল বিচারবুদ্ধি
– ব্যক্তিত্বের পরিবর্তন, মানসিক সমস্যা।
মিঃ রৌদ্র জুবায়ের নিজের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছেন বলে আমার ধারণা। বাকিটা জ্ঞান ফিরলে বলা যাবে।”

ইশরা এতোক্ষণ টু শব্দটি উচ্চারণ করলো না। ধীর পায়ে বেরিয়ে গেল চেম্বার থেকে।

______________
সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে পড়েছে অনেকটা। তমোনা মাত্র ফিরেছে হসপিটালে। মাঝখানে জোর করে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছিল তমোনাকে‌। টিফিন ক্যারিয়ার-টা পাশে রেখে ইশরার কাছে বসলেন তিনি। মাথায় হাত বুলিয়ে দিয়ে বললেন..

— “ইশু তোর আর তোর বাবার জন্য খাবার নিয়ে এসেছি! খাবার খেয়ে বাড়িতে চলে যা! একটু ফ্রেশ হয়ে ঘুমিয়ে নিস। কাল থেকে ঘুমাস নি। অসুস্থ হয়ে পড়বি।”

বাধ সাধল ইশরা। ইশরা খাবার বের করতে করতে বলল..
— “মা আমি একবার বাড়িতে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে এলে তুমি বাড়িতে চলে যেও। একটু যত্ন নাও।”

নিজের খাবার বেড়ে হাঁটা দিলো আয়ানের রুমের দিকে। পেছন থেকে ডেকে উঠলেন তমোনা..

— “ইশু খাবার নিয়ে কোথায় যাচ্ছিস?”

— “এই তো এখানেই আছি।”

তমোনাসহ বাড়ির কাউকে আয়ানের ব্যাপার-টা জানতে দেয়নি ইশরা। সেও চায় না, কেউ আয়ানের দূর্বলতা সম্পর্কে জানুক।
.
.
একা একা বসে আছে আয়ান। দৃষ্টি তার জানালার বাইরে অদূরে গাছের ডালে বন্দী। একজোড়া পাখি সেখানে বসে। তাদের সাথে ছোট ছোট কয়েকটা ছানাও রয়েছে। হয়তো দিন কয়েক হয়েছে তাদের বয়স। তাদের দেখে মৃদু হাসলো আয়ান। একদিন তারও এমন একটা সংসার হবে। অনেকগুলো বেবী থাকবে। সারাদিন অতিষ্ঠ করে তুলবে তাকে। সে সবকিছু সহ্য করে নিবে। কারণ, সে সেই মুহূর্তটাকে উপলব্ধি করতে চায়। তখনই রুমে প্রবেশ করলো ইশরা। হাতে খাবারের থালা। প্লেট সাইডে রেখে ধীরে ধীরে আয়ানকে উঠে বসানো চেষ্টা করলো। সক্ষম হলো না সে। ঘাড় ঘুরিয়ে বলল..

— “ব্যাথা করছে, কষ্ট হচ্ছে?”

দৃষ্টি সরিয়ে নিল আয়ান। সবে কালকে অপারেশন হলো একটু সমস্যা তো হবেই। তবে ইশরা কথায় লজ্জা পেল সে। তারচেয়ে বেশি লজ্জায় কুঁকড়ে উঠলো ইশরা। দুহাতে মুখ ঢেকে স্মিত হাঁসলো। আয়ান বুঝতে সক্ষম হলো। দুহাত সরিয়ে নিল ইশরার মুখ থেকে! ভ্রু নাচিয়ে বলল..

(চলবে.. ইনশাআল্লাহ)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here