অন্যরকম ভালোবাসা ২ -পর্ব ২৭

0
60

#অন্যরকম_ভালোবাসা 💓 [২]
#ইফা_আমহৃদ
পর্ব:: ২৭

নিঝুম রাত। এক ফালি চাঁদ উঠেছে আকাশ জুড়ে। তার আলোহীন রশ্মি জানালা বেঁধ করে ভেতরে না পৌঁছালেও নিদ্রা নেই ইশরার নয়ন জুড়ে। জানালার কাঁচের ফোকট দিয়ে রাতের আকাশটা বেশ লাগছে তার কাছে। আয়ান নিদ্রাচ্ছন্ন। বিগত রাতগুলোতে প্রচুর জ্বালিয়েছে তাকে। রাতের তার যন্ত্রণা দিনে অফিসের চিন্তা, ছেলেটার এতো ধৈর্য জানত না। ইশরা এই জ্যোস্না হীন নিজুম রাতে আয়ানের নিদ্রা ব্যাঘাত ঘটাতে চাইছে না। তার ছোট প্রিন্সেস আয়রা পেটের ভেতর থেকে নড়াচড়া করছে। ব্যাথায় কাতর সে। বেবী পেটের ক্ষুধায় কাতরাচ্ছে নাকি কোনো অসুবিধা হচ্ছে বুঝতে সক্ষম হচ্ছে না। আয়ানকে ডাকতে চেয়েও ব্যর্থ সে। দম বন্ধ হয়ে আসছে তার। হাঁটুতে মাথা মুড়িয়ে ফুঁপিয়ে উঠলো সে।

নিসুপ্তি উগ্রে কান্নার শব্দ শ্রবণপথে পৌঁছাতেই উঠে বসলো আয়ান। ইশরার এমন অবস্থায় দেখে ভেতরটা কেঁপে উঠলো তার। ইশরার পিঠে হাত রেখে বলল..
— “কি? কি হয়েছে ইশুপাখি। কাঁদছো কেন? এই তো আমি।”
দৃষ্টি তুলে আয়ানের মুখে বন্দী করল। অন্ধকার রুমের ফাঁকে আলোর ব্যবস্থা না থাকলেও তার কাতর কন্ঠস্বর ইশরাকে ছন্নছাড়া করে তুলেছে। ছলছল নয়নে আয়ানের দিকে তাকিয়ে বলল..
— “আয়ান, আয়রা পেটে বসে তার মাকে কিক করছে! পৃথিবীতে আসার আগেই এমন করছে; আসলে না জানি কি শুরু করে দেয়।”

ইশরা দূর্বল হাসলো। ইশরাকে বাহুডোরে নিয়ে নিল। একহাতে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলো, অন্যহাত পেটের উপরে রেখে বলল..– “তোমার পেটে তো এইটুকু জায়গা। সেখানে প্রিন্সেস ধীরে ধীরে বড় হচ্ছে। নড়াচড়া করতে গিয়ে তোমার পেটে আঘাত লাগছে। সে ইচ্ছে করে আঘাত করে নি।”

দ্বি মুহূর্তে অতিবাহিত হওয়ার আগেই আয়ানের হাতটা ছিটকিয়ে সরিয়ে দিল। পেটে হাত দিয়ে বলল..

— “তাই তো বলি বেবী তার মাকে কেন কিক করছে। সে-তো তার মাকে কখনো আঘাত করতেই পারে না। তাহলে কি তোমার ক্ষুধা লেগেছে। আয়ান..

আয়ান ইশরার চিৎকারে কেঁপে উঠলো। করুন সুরে বলল..– “কি?”

— “যাও, আমার জন্য আইসক্রিম নিয়ে আসো। প্রিন্সেস এখন আইসক্রিম খাবে।”

— “ইশু তুমি পাগল হয়ে গেছো? এইসময় বাইরের খাবার খেতে নেই! বেবী অসুস্থ হয়ে পড়বে।”

নাকে কান্না জুড়ে দিলো ইশরা। ঠোঁট উল্টে বলল..
— “তুমি আমার বেবীর সাথে হিংসা করছো আয়ান!
আয়ান অসহায় চাওনি দিলো। দুহাত জোর করে বলল, আমি এখুনি আইসক্রিম নিয়ে আসছি। থাম বাবা।”

— “আয়ান! আমি তোমার বাপ হই? ভ্যাঁ ভ্যাঁ ভ্যাঁ!”

আয়ান উত্তর দক্ষিন আকাশ পাতাল না ভেবে দিলো এক দৌড়।
_____________
সময় বারোটা পঞ্চাশ মিনিট। সূর্য মাথার উপরে। সময়টা বসন্তকাল। চারদিকে ফুলে প্রাণ বুলানোর‌ সুভাস বইছে। সেই মন মাতানো সুভাস জানালা বেধ করে ইশরার নাকে এসে পৌঁছেছে। ইশরা ফুলগুলো দেখতে উঁকি ঝুঁকি মারছে জানালার বাইরে অদূরে। মিসেস্ চৌধুরী রিপোর্ট দেখছেন। আয়ান টেবিলের উপর দুহাত ভাঁজ করে ইশরার কান্ড দেখছে। এই নিয়ে বত্রিশ বার ইশরাকে বসতে বলেছে। আয়ানের বলার সাথে সাথে চেয়ারে বসে আবার মিনিট পেরুবার আগেই উঠে জানালার পাশে যায়।

মিসেস্ চৌধুরী রিপোর্ট রেখে ইশরাকে ডাক দিলেন। বাধ্য মেয়ের মতো ইশরা চেয়ারে বসলো। মিসেস্ চৌধুরী ইশরাকে খাবার সাধলেন, খেল না ইশরা। মাথা চুলকে বলল..

— “আমার এই ফল খেতে একদম ভালো লাগে না। আমার তো চিপস্, কেক, পেস্ট্রি, আইসক্রিম খেতে অনেক ভালো লাগে। সেগুলো আছে?”

— “না সেগুলো নেই। সেগুলো খেলে আপনার প্রিন্সেস আয়রা অসুস্থ হয়ে পড়বে যে। আয়রাকে ভালো রাখতে হলে এইসব খেতে হবে। ওগুলো খাওয়া বন্ধ করে দিন।
ভেতরে ভেতরে অতিশয় ক্ষোভে ফুঁসছে ইশরা। একবার বাড়িতে যাক, তার অবস্থা যদি খারাপ করে না পারি, তাহলে আমার নাম ইশরা নয়। ইশরার ভাবনার মাঝে আবার মুখ খুললেন মিসেস্ চৌধুরী।
আপনি কোন ভেলিভারি করতে চান?”

— “নরমাল ডেলিভারি। আমি সম্পূর্ণ মাতৃত্বে স্বাদ উপভোগ করতে চাই ডাক্তার।”

— “তাহলে খাওয়াটা একটু করিয়ে দিন। নরমাল ডেলিভারির সময় বেবী ও মা; দু’জনেই কষ্ট হবে।”
.
গাড়ি বসে রাগে ফুস ফুস করছে ইশরা। এই আয়ানকে আজ এইটা শাস্তি দিয়েই হবে। ইশরা কি খেতে চায়, খেতে চায় বেবী। তাহলে তার দোষ কোথায়? আয়ানকে জব্দ করার জন্য অন্য উপায় ভেবে রেখেছে ইশরা। আয়ান প্রবেশদ্বার খুলে ভেতরে প্রবেশ করলো। আয়ান উপস্থিতি অনুভব করে জানালার পাশে সেঁটে গেল ইশরা। ইশরার পেট অনেকটা উঁচু হওয়ার কারণে সিট বেল্ট বাঁধে নি। তাই হসপিটালে আসার উদ্দেশ্যে যখন বেরিয়েছিলো, তখন আয়ান এক হাতে জড়িয়ে ধরেছিল। অন্যহাতে ড্রাইভ করেছে। এখন এতোটা দূরে মনে হচ্ছে, মাঝখানে ভারত পাকিস্তানেও এতো বড় বর্ডান নেই। নিজের সিট বেল্ট বাঁধল না। গলা খাঁকারি দিয়ে বলল..
— “এই এদিকে এগিয়ে বসো।”
ইশরা বসলো না। আয়ান ঠোঁটে দূর্বল হাসির রেখে দেখা গেল। মেয়েটা তার উপরে অভিমান করেছে। গাড়িতে অবস্থান করা ছোট ড্রায়ার থেকে একটা পলিথিনে মোড়ানো প্যাকেট বের করে ইশরার দিকে এগিয়ে দিলো। স্বাভাবিক কন্ঠে বলল..– “ইশু, শুভ ঋতু শরৎকাল।”
দ্বি মুহূর্ত অতিবাহিত হওয়ার আগেই ফিরে চাইলো ইশরা। ছোট একটা প্যাকেটের মাঝে কয়েকটা কাশফুলের পাপড়ি বন্দী। একে অপরের থেকে বিচ্ছিন্ন। আনন্দে আত্মহারা হয়ে গেল সে। খুশিতে মুখ চেপে ধরলো। কি করা উচিত তার, সেই ধ্যান হারিয়ে গেল। অস্ফুট স্বরে বলল..– “শরৎ এর কাশফুল!”

— “হম। শরৎ এর কাশফুল। বলেছিলে না, বর্ষার কদম গুচ্ছ শরৎ আর শরৎ এর কাশফুল হেমন্তে।
শীতেই দিতে চেয়েছিলাম, কিন্তু দেওয়া হয়নি। তাই বসন্তে দিলাম। ভালো লেগেছে?”

অসম্ভব বলে লাফ দিয়ে আয়ানের কাছে আসার চেষ্টা করলে দমিয়ে দিয়ে সে। পেটের দিকে ইশারা করলো। অতঃপর বাহুবন্ধনে আবদ্ধ করে ড্রাইভে মন স্থাপন করলো।

__________
বেডের উপরে কসমেটিক্সের জিনিসপত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। ইশরা নিজের মনমতো একটা তুলছে পুর্বের জায়গায় না রেখে অন্য জায়গায় রাখছে। আবার অন্য একটা তুলছে। তার মুখোমুখি আয়ান বসে ঠোঁট চেপে ইশরার কান্ড দেখছে। অর্থাৎ সব সাজগোজের জিনিস খুলো আয়ানের মুখে মাখছে। গত তিন ঘন্টা ধরে এভাবে বসে থাকতে থাকতে অসন্তুষ্ট আয়ান। নাকোচ করলেই ইশরা নাকে চোখে কান্না শুরু করে দিবে, অতঃপর তার মা এসে ..
ইশরাকে ভাবল্যাস হীন বসে থাকতে দেখে বাহুতে নাড়া দিলো আয়ান। মিষ্টি কন্ঠে বলল..

— “ইশু, এই ইশুপাখি তোমার সাজানো হয়েছে?
ঝাঁঝালো কন্ঠে বলল — “কয়বার বলা লাগে, হয়নি।
এই প্রথমবারই আয়ান জানতে চেয়েছে হয়েছে? আর প্রথমবারেই ঝাঁঝালো উত্তর।”

সাজ শেষ করে আয়ানের গাল চেপে দু’পাশে ঘুড়িয়ে অবলোকন করলো। দুহাতে হাফ ছাড়ার ভাব নিয়ে বলল..
— “কম্পিলিট!
আয়রা দেখো তো, তোমার বাবাকে কেমন লাগছে?”

সাথে সাথে ভেতর থেকে আঘাত করলো ছোট বেবী। ইশরা পেটে চেপে বলল..

— “দেখো প্রিন্সেস এর পছন্দ হয়েছে। তাই কিক করেছে।”

আয়ান সময় নিল না। নিজের সাজগোজ ময় মুখটা ইশরার পেটের উপর রাখলো। নিজে অনুভব করলো সেই চিরপরিচিত অনুভূতি। ইশরা কান ধরে টেনে আয়ানকে তুললো। আঙুল তুলে বলল..– “তুমি আমার পেটে মাথা রেখেছো কেন? বেবীর শরীরে এইসব লেগেছে না।”

— “না ইশুপাখি, আয়ু তার বাবাকে দেখতে চেয়েছে তাই দেখালাম। দেখবে বড় হয়ে আয়রা সাজ পাগল হবে। তার বাবাকে সারাদিন এগুলো দিয়ে সাজাবে🥴।

” সত্যি বলছো তুমি, তাহলে আমার পেটটাকে সাজিয়ে দাও” বলেই আয়ানের হাতে ব্রাশ তুলে দিলো। আয়ান ব্যাধি নয়নে তাকিয়ে রইল। যেন পলক ফেলতে ভুলে গেছে সে।

— “ইশু পেট ধুতে গেলে বেবীর ঠান্ডা লেগে যাবে।”

পুনরায় নাকে কান্না জুড়ে দিলো সে। আয়ানের অবস্থা ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি। ফোঁপাতে ফোঁপাতে বলল..

— “তুমি তো কখনো প্রেগন্যান্ট হয়নি, তাই জানো না কতোটা কষ্ট হয়। বেবী খেতে চায়, তুমি খেতে দাও না। সাজতে চায়, সাজতে দাও না..

ছেলেরা প্রেগন্যান্ট, আদোও কি সেটা সম্ভব কখনো। আয়ান শুধু ফাস্টফুড খেতে বারণ করেছে। আয়ানের ধ্যান ভাঙল ইশরার টানা-টানিতে। হাত ধরে টানতে টানতে বলল..
— “আজকেই অপারেশন করে আয়রাকে তোমার পেটে নিবো। তারপর দেখবো, তুমি কি করো। চলো..

ইশরা পার্সব্যাগ নিয়ে আয়ানের হাত ধরে টানতে টানতে নিচে নেমে গেল। আয়ান অসহায় হয়ে ইশরার দিকে একবার আর হাতে দিয়ে একবার তাকালো। আচ্ছা যদি অপারেশন করে আয়ানের পেটে বেবী নিয়ে আসে, তখন আয়ানকে বাবা ডাকবে নাকি মা। 😐

(চলবে.. ইনশাআল্লাহ)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here