আছি তোমার পাশে পর্ব ৯

0
116

#আছি_তোমার_পাশে
পর্ব ৯
লেখায়- #Anjum_Tuli
[কপি করা সম্পূর্ণ নিষেধ]
.
.

রায়ানের অসহায় কন্ঠে বলা কথাগুলোতে আমি কেমম রিয়েক্ট করবো তা বুঝে উঠতে পারছিলাম না। নিজেকেও অসহায় মনে হচ্ছে। শান্তনা কিভাবে দিতে তাও যেনো ভুলে গেলাম। রায়ান আমার দিকে তাকালো। আমার দু হাত তার হাতের মুঠোয় রেখে বলল, ‘আমায় কেউ বুঝে না রোদু, কেউ না। আজ তোমাকে সবকিছু বলে কেমন শান্তি লাগছে। তোমার সাথে বড্ড অন্যায় করা হয়েছে রোদু। ছেলে হয়ে মায়ের ইমোশনের কাছে হেরে যেতে হয়েছে আমাকে। মাফ করো আমায় রোদু। আমি সত্যি বড্ড অসহায়।’

আমি কিছু বললাম না। কেবল হাতটা শক্ত করে আকড়ে রাখলাম। এতেই যেনো রায়ান ভরসা পেলো।

সে বলতে লাগলো,
‘সে সময়টাতে বিপদ চারিদিক থেকে আমাকে ঘিরে ধরেছিলো। আমি ঠিক কার সাথে লড়বো তাই ভেবে কূল পাচ্ছিলাম না। একদিকে আমার বাবা-মা ভাই অন্যদিকে রোদুসি। রোদুসিকে দেখলেই আমি ভীষণ রকম প্রতিবাদী হয়ে উঠতাম। মন চাইতো সেই মুহুর্তেই অই জানোয়ারকে খুজে বের করে শেষ করে দেই।যে রোদুসির সত্ত্বা টাকে নষ্ট করে দিয়েছে।
যে রোদুসির হাসি ছাড়া ঠোটে বুলি ফুটতো না। সে রোদুসি হাসতে ভুলে গিয়েছিলো। সেই রোদুসি হারিয়ে গিয়েছিলো। যে রোদুসি আমার জন্য পাগল ছিলো। কত শত পাগলামু করে আমাকে ভালোবাসতে বাধ্য করেছিলো সেই রোদুসি আমাকে দূর দূর করে সে সময়টায় তাড়িয়ে দিত। বুঝতে পারছো রোদু! বুঝতে পারছো?’

রোদুসিকে হাসপাতালে নিয়ে সব ধরনের টেস্ট করানোর পর জানতে পারলাম রোদুসি প্রেগন্যান্ট। হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেললাম। রোদুসির বাবা সাথে সাথেই ডিসাইড করে ফেললেন এবোর্সনের। বিশ্বাস করো রোদু আমি ঠিক কি চাচ্ছিলাম আমি জানি না। কথাটা শুনার পর ঠিক কতটা সময় নিজের মাঝে ছিলাম না তা আমার সত্যিই অজানা। আমার হুশ আসলো যখন রোদুসির চিৎকার চেচামেচির আওয়াজ কর্ণদয়ে পদার্পণ করলো। ছুটে গেলাম রোদুসির কাছে। সে চিৎকার করে বলছে কেউ পারবে না তার কাছ থেকে তার সন্তান নিয়ে যেতে। সে দিবে না তার বাচ্চা নষ্ট করতে। এইটুক একটা মেয়ে। নিতান্তই বাচ্চা একটা মেয়ে কিনা নিজের বাচ্চার কথা বলছিলো। তুমি ভাবতে পারো রোদু?এর দুদিন আগেও সে কত রকমের পাগলামু করেছে আমার সাথে। কত ধরনের বায়না ধরেছে। প্রাণবন্ত কিশোরীর ন্যায় খিলখিলিয়ে হেসেছে। তার এই অবস্থা আমি কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলাম না। দরজার পাশে দাঁড়িয়ে কেবল চোখের পানি ফেলছিলাম। রোদুসির কান্না সেদিন হাসপাতালের প্রত্যেকটা সদস্যের হৃদয় নাড়িয়েছে। মুষ্টিবদ্ধ হাতে যখন রুমের ভেতর কান পেতে ছিলাম। কান্নারত মিষ্টি অসহায় এক মোলায়েম কন্ঠ এসে কানে ঠেকেছে। কত সুন্দর প্রাপ্ত বয়স্কদের মত সে বলছিলো,

‘মা মাগো দেখো ওরা আমার বাচ্চাটাকে মেরে ফেলতে চাইছে। আমার এইটুকু বাচ্চাটাতো আমার পেটে মা। এখনো আসে নি। যার সাথে আমার রক্ত মিশে আছে মা। যে দুনিয়াতে এসে আমাকে মা বলে ডাকবে। আমি যখন তোমাকে প্রথম মা বলে ডেকেছিলাম তুমি তখন খুশি হও নি মা? তাহলে সে যখন আমাকে মা বলবে আমি কতটা খুশি হব ভাবতে পেরেছো? তুমি ওদের বলে দাও মা আমি আমার বাচ্চা দিব না ঠিকাছে?

ও মা কথা বলছো না কেনো? ও বুঝেছি। তুমি মনে হয় বুঝতে পারছো না। কিংবা আমাকে নিয়ে দুশ্চিন্তা করছো তাই তো? আমি আর তোমার কোনো কথা ফেলবো না মা। আমি তোমার আর বাবার সব কথা শুনবো। আমি প্রতিদিন নিয়ম করে খাবো। আমি খেলে তো আমার বাচ্চাও খাবে তাই না মা আমি খাবো। বেশি বেশি খাবো। এই এত্ত এত্ত!. আর শুনো মা তুমার সব কথা শুনবো।
রা.. রায়া.. রায়ানের কাছেও যাবো না। ওর জন্য আর পাগলামু করবো না। ঐ যে সুমাইয়া আছে না? আমাকে হিংসা করতো? ওর সাথে তুমি রায়ানের বিয়ে দিয়ে দাও। ওরা সংসার করুক? হ্যাঁ? এই মা তুমি কাদছো কেনো? কথা বলো না’

রোদুসির বলা শেষের কথা গুলো শুনে আর থাকতে পারি নি। ভেতরে ঢুকে দেখি আন্টি ওর মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছেন। আমি এক টানে ওকে আমার দিকে এনে বললাম, ‘এই কি বললে তুমি?’

সে আমার চোখে চোখ রাখে নি রোদু। সে ভিতু ছিলো। কিন্তু আমাকে বুঝতে দিতে চায় নি। মুখে রাগের লালীমা এনে আমাকে কড়া কন্ঠে বলেছিলো,
‘যা চলে যা। কতবার বলেছি আমার কাছে আসবি না।’

আমি তার হাত ধরে শক্ত কন্ঠে বলেছিলাম। আসবো একশো বার আসবো। আমার হাত ছিটকে সরিয়ে ফেলে সে। ধস্তা ধস্তি হয় আমাদের। আন্টি এসে রোদুসিকে সরিয়ে নিলে সে টেবিলের ওপর থেকে ছুড়ি নিয়ে আমার উপর ছুড়ে মারে। তার টার্গেট আমি ছিলাম না। আর তাইতো আমার কপালে রক্ত দেখে দুহাতে মুখ ঢেকে হুহু করে কেদে দেয়। তার কান্নায় আমার ঠোটের কোণে হাসি এসেছিলো। যতই অস্বীকার করুক আমি তো জানি সে আমায় ছাড়া অসম্পূর্ণ। দুহাতে আগলে নেই তাকে। ছাড়ানোর চেষ্টা করলেও ব্যার্থ হয়ে আমার বুকেই পরে থাকে। আংকেল আন্টিকে নিয়ে বেরিয়ে যান।

রোদুসি আহ্লাদে কান্না মাখা কন্ঠে বলে উঠে, ‘চলে যেতে বলেছি’

আমি হেসে বললাম, ‘আর আমি নিয়ে যেতে এসেছি’

সে আমার কথার উত্তর দিলো, ‘আমি আর একা নই’

আমি আলতো মাথায় হাত বুলিয়ে বললাম, ‘ভালোবাসায় ভাগ বসানোর মানুষ আসছে সহ্য হবে তো?’

সে আমার গলা জড়িয়ে হুহু করে কেদে দিলো। তার কষ্ট আমি উপলব্ধি করতে পারলেও সে মুহুর্তে তাকে ভেংে যেতে দেওয়া যাবে না কেবল একটা কথায় মাথায় বাজছিলো। যতটুকু পারি বুঝ দিলাম। আমি তার পাশে আছি। কেউ কিচ্ছু বলতে পারবে না। আমার বউ কেবল সেই হবে। মেয়েটা আমার কথা বিশ্বাস করলেও আমি আমার কথা রাখতে পারি নি রোদু’

রায়ান শব্দ করে কেদে দিলো। মুহুর্তের মধ্যে আমাকে জড়িয়ে ধরে তার চোখের কার্নিশ বেয়ে পরা জলে আমার পিঠ ভিজিয়ে দিলো। আমার কাধে মুখ গুজে সে অশ্রু বিসর্জন দিতে লাগলো। প্রিয়জনের চোখের পানিটাই সহ্য করতে পারছি না আর সে কিভাবে রোদুসিকে ঐ অবস্থায় সহ্য করেছে ভাবতেই গায়ে কাটা দিয়ে উঠলো।

রায়ান আমার সাথে মিশে আছে। আমাদের মধ্যে এক ইঞ্চি পরিমাণও দূরত্ব বিদ্যমান নেই। তবুও মনের মধ্যে কোনো রকম অনুভূতির সৃষ্টি হচ্ছে না। কেবল একটাই ইচ্ছা জাগছে ইশ কোনো ভাবে রায়ানের কষ্ট গুলো যদি দূর করে দিতে পারতাম। কোনো এক অদৃশ্য ম্যাজিকের সহায়তায় যদি সম্পূর্ণ অতীতকে মুছে দিতে পারতাম। এসবের কোনটাই সম্ভব নয় আফসোস। তবে রায়ানের পাশে থেকে তার সাপোর্ট হয়ে ভালোবেসে বেচে থাকা সম্ভব। হ্যাঁ সম্ভব। থাকবো আমি তোমার পাশে। তোমার অস্তিতে নিজেকে বিলীন করবো ভালোবেসে। আছি তো, আমি আছি তোমার পাশে। মনে মনে কথাগুলো আওরালাম। অটোমেটিক আমার হাত রায়ানের পিঠ ছুলো। রায়ান আমাকে আরো শক্ত বাধনে বেধে ফেললো।

আস্তে করে সোফার বালিশটা এনে পিঠে দিলাম। রায়ান আমার উপর হ্যালান দিয়েই চোখ বুজে আছে। আলতো করে বললাম, ‘রুমে গিয়ে শুই?’

‘উহু’ -রায়ানের ভাঙ্গা গলা। বাধা দিলাম না। থাক কিছু সময় এভাবে। আলতো হাতে মাথায় হাত বুলিয়ে দিলাম। রায়ান উঠে বসলো। আমার উড়না নিয়ে মুখ মুছে বললো, ‘দেখো তো আমার চোখ মুখ কি ফুলে গিয়েছে?’

আমি মাথা দিয়ে বুঝালাম হ্যা। সে মলিন হেসে বলল, ‘রোদুসি দেখলে হাসতো। খুব হাসতো। আমাকে নাকি এভাবে খুব পচা লাগে দেখতে।’

আমি মুখ ফসকে বলে ফেললাম, ‘কই নাতো এভাবে অনেক আদুরে আদুরে লাগছে।’

রায়ান চকিতে আমার দিকে তাকালো। কিছু বললো না। কেবল মুচকি হাসলো। আমি কথা ঘুড়িয়ে বললাম, ‘তারপর তারপর কি হয়েছিলো? রোদুসির বাচ্চাটাই কি তুতুল?’

রায়ান এক দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললো, ‘হ্যা’

তারপর বললো, ‘রোদুসিকে সেদিন মেডিসিন খায়িয়ে ঘুম পারিয়ে সায়ান ভাইয়ের কাছে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বেরুলাম। রোদুসি শারীরিক মানসিক দুদিক থেকেই দুর্বল থাকায় ডাক্তার কয়দিন হাসপাতালে রাখার সাজেস্ট করলে আমরা আর বাধা দেই নি। রোদুসির বাবার দুহাত ধরে কেবল অসহায় আবদার রেখেছিলাম রোদুসির ইচ্ছার বিরুদ্ধে যেনো কোনো রকমের পদক্ষেপ নেয়া না হয়। সেদিন সেই মুহুর্ত থেকে রোদুসির সমস্ত দায়িত্ব আমার।

সায়ান ভাইয়ের কাছে গেলে উনি আমার কপালের ক্ষত দেখে ঘাবড়ে যান। আমি তাচ্ছিল্য হাসি। উনি আমার কপালের ব্যান্ডেজ দেখে আমার ব্যথার আন্দাজ করতে পেরেছিলেন। অথছ দেখো আমার হৃদয়ে যে রক্তক্ষরণের বণ্যা বয়ে যাচ্ছিলো তা একটা বারও বুঝার চেষ্টা করেন নি। আমি উনার কাছ থেকে সত্য জানার আসায় একটু কঠোর ভাবেই প্রশ্ন করি,

‘কেনো এই পাপের সাথে জড়ালে ভাই? কেনো এমন জঘন্য একটা কাজে নিজের নাম লাগালে?হুয়াই?’

আমি ভেবেছিলাম ভাই সব কিছুই অস্বীকার যাবে। কিন্তু আমাকে অবাক করে দিয়ে ভাই সব স্বীকার করে নেয়। আমার পায়ের তলা থেকে সেদিন মাটি সরে গিয়েছিলো। ইচ্ছে করছিলো দুহাতে ভাইকে মেরে ফেলি। কেনো সে এমন জঘন্য একটা কাজ করলো? তার মস্তিষ্ক এতটা বিকৃত কিভাবে হলো? বিকৃত মস্তিষ্কের মানুষ ব্যাতিত এমন জঘন্য কাজে লিপ্ত হতে কেউ পারে বলো? বলো না রোদু? পারে?’

রায়ানের কান্না গুলো আমি আর নিতে পারছিলাম না। তাই ঠোটে হাত দিয়ে থামিয়ে দিলাম। কপালে কপাল ঠেকিয়ে দুজন কেবল চোখের পানি ঝড়াচ্ছিলাম…

চলবে….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here