একটুখানি সুখ পর্ব ২১

0
68

#একটুখানি_সুখ
#আনিশা_সাবিহা
পর্ব ২১

শ্বাস-প্রশ্বাস আরো প্রগাঢ় হচ্ছে মোহ ও স্বচ্ছের। স্বচ্ছের চোখে তীব্রকর একটা ক্ষোভ আর মোহের চোখে হতভম্বতা। নিজেকে সামলাতে না পেরে স্বচ্ছের ঘাড়ে আচমকা হাত রেখেছে মোহ। নিঃশ্বাস ওঠানামা করছে তার। আর একটু হলেই যেন সে অস্বস্তিতে মারা যাবে। এমতাবস্থায় তার কপাল বেয়ে গাল দিয়ে থুতনিতে এসে ঘামের ফোঁটা পৌঁছালো। আরো ঘামছে সে। এমন স্পর্শ প্রথমবার পেয়েছে সে কোনো পুরুষের থেকে। এই স্পর্শ নাড়িয়ে দিয়েছে মোহের হৃদয়। লোম শিউরে উঠেছে তার। তার ওপর স্বচ্ছের বলা কথাতে হৃৎস্পন্দনের গতি অস্বাভাবিকভাবে বাড়ছে। এসব বলার মানে কি ছিল? স্বচ্ছের মনে কোনো অনুভূতি আছে? কোনো তীব্র ভালোবাসার অনুভূতি? কোনো উন্মাদনার বীজ?

কিছু বলতে চেয়েও পারছে না মোহ। সে স্বচ্ছ নামক এই উগ্র স্বভাবের মানুষটির ধূসর বর্ণের চোখের মনির অতল গহ্বরে হারিয়ে যাচ্ছে। যেখান থেকে ফিরে আসার উপায় পাচ্ছে না সে। স্বচ্ছ হঠাৎ করেই ঠোঁটজোড়া সরু করে ফুঁ দিল মোহের চোখেমুখে। চোখটা খিঁচে বন্ধ করে ফেলে মোহ। স্বচ্ছ ফুঁ দেওয়া বন্ধ করলে পিটপিট করে চোখ মেলে তাকায় সে। অনুভব করে স্বচ্ছ তাকে বাঁধন মুক্ত করে দিয়েছে। হাত মুঠো করে দাঁড়িয়ে থাকে সে। স্বচ্ছ বাঁকা হাসি ফুটিয়ে তুলে বলে,
“এতটুকু ডোজেই এই অবস্থা? বিয়ের পরে আমাকে সামলাতে পারবে তো? আমার এতোগুলো গার্লফ্রেন্ডও আমাকে সামলাতে পারে না। তুমি পারবে তো? ভেবে দেখো আরেকবার!”

“চুপ করুন তো আপনি। আপনার মতো বেশরম মানুষ আমি জীবনে কোনোদিন দেখিনি।”
খানিকটা চেঁচিয়ে বলল মোহ। তারপরেই মিইয়ে গেল। এমন কথাবার্তা আর এমন মানুষের সামনে টিকে থাকা মুশকিল। কোনো কথা তো এদের গায়ে লাগেই না বরং দুনিয়ার যত প্রকার বেশরম কথাবার্তা আছে সবকয়টা বলতে দক্ষ এরা। এবার স্বচ্ছ উচ্চস্বরে হেঁসে ওঠে। মোহকে ব্যঙ্গ করে বলে,
“যাও যাও। বাড়ি যাও। ভালো করে খাওয়াদাওয়া করো। আমার সামান্য কথাতে তুমি যে মাত্রায় শুঁকিয়ে কাঠ হয়ে গেছো! মনে হয় ১০ কেজি ওজন এতেই কমে গেছে তোমার। বিয়ের দিন আসতে আসতে যদি আমার এমন কথা লাগাতার শুনতে থাকো তাহলে বিয়ের দিন তোমায় দেখা যাবে কিনা সন্দেহ। বাড়িতে যেয়ে আগেই খেতে বসবা। গো ফাস্ট!”

“মোটেই আমার ওজন কমেনি। আপনি কেন ওই কথাগুলো বললেন? প্রথমবার মি. আহিয়ান স্বচ্ছের মুখ থেকে এমন কথা শুনে একটু অবাক হয়েছিলাম এই যা।”

“খুশিতে পাগল হয়ে যাওনি তাও ভালো। একটু প্র্যাক্টিস করে নিচ্ছিলাম। আজকে সকালে একটা নিউজ দেখলাম ফেসবুকে। নিউজটা ছিল ‘স্বামী রোমান্টিক কথাবার্তা না বলায় তাকে ঠান্ডা জিনিস খাইয়ে খাইয়ে কন্ঠস্বর একেবারে গায়েব করে দিল স্ত্রী।’ আমিও সেসবেরই ভয় পাচ্ছি। বলা তো যায় না, আজকালকার মেয়ে তো এসব দেখেই শিখে তারপর শ্বশুড়বাড়ি আসে। আমার সুন্দর কন্ঠস্বর না হারানোর ছোট্ট প্রচেষ্টা।”

স্বচ্ছের এমন কথা শুনে তার কথার সঙ্গে পেরে না উঠে প্রায় কেঁদে দেওয়ার উপক্রম মোহের। একটা ছেলে মানুষ কি করে এতো উল্টাপাল্টা লজিক পায় ভাবনাতে আসেই না মোহের। একটা মেয়ে মানুষও বোধহয় একটা বিষয়কে টেনে টেনে এতো লম্বা করতে পারে না। দাঁতে দাঁত দাঁড়িয়ে থাকে সে। স্বচ্ছ ভ্রু কুঁচকে বলে,
“বাই দ্যা ওয়ে, হঠাৎ আমার বাড়িতে তাও এখন? তোমাদের বাড়িতে তো মা-বাবা গিয়েছে। তোমার তো সেখানো থাকা উচিত। তার বদলে এখানে?”

মোহ এবার কথা খুঁজে পায় না। মাথায় জোর দিয়ে চেষ্টা চালাতে থাকে বিভিন্ন বাহানা খুঁজতে। কিন্তু পায় না। সোজাসুজি বলতেও পারবে না যে সে স্বচ্ছের হাতে লিখা চেক করতে এসেছে। সে স্বচ্ছের হাতের লিখার ধরণ দেখতে চায়। একবার যদি ধরন মিল পায় তাহলেই আর কোনো সন্দেহ থাকবেনা তার মনে। কারণ সেই আগন্তুক লোকটার হাতের লিখা অদ্ভুত রকমের। ছোট ছোট পেঁচিয়ে লিখে সে। যেন টাইপ করে পেঁচানো লিখা একেবারে সোজা। বেশ ইনিয়েবিনিয়ে মোহ তাড়াহুড়ো করে বলে ওঠে,
“নানিমা! নানিমাকে দেখতে এসেছি।”

“তাহলে দাদিমার ঘরেই যেতে। ওপরে এলে কেন? সামথিং ইজ ফিশি!”
চোখ ছোট পরে মোহের দিকে হালকা ঝুঁকে পড়ে বলে স্বচ্ছ। তৎক্ষণাৎ ঘড়ির দিকে চোখ যেতে বলে,
“ইটস ঠু লেট। তোমার আর তোমার টিনএজার বোনের চক্করে পড়ে আমি ভুলেই গেছি আমার কাজ আছে। রেডি হতে হবে।”

“এখন আবার কোন গার্লফ্রেন্ডের সঙ্গে ডেট করার মতলব আছে আপনার?”

স্বচ্ছ বাহিরে যাবার জন্য পা বাড়াচ্ছিল। মোহের কথা শুনেই পিছু ফিরে তাকালো সে। ভ্রু উঁচিয়ে অদ্ভুত মুখভঙ্গি করে বলল,
“জেলাস? হাউ সুইট! বিয়ে হতে না হতে এমন জেলাসি দেখছি। বিয়ের পরে মনে হয় না কারোর সঙ্গে মিট করতে পারব বলে। ব্রেকআপ করে দিতে হবে বোধহয়।”

“জেলাস আর আপনাকে নিয়ে? বয়েই গেল আমার।”

“বলা তো যায় না! দেখা গেল একদিন না একদিন এই ঠিকই বয়ে যাবে। ঠিকই হিংসাত্মক অনুভূতি তোমায় শুষে নেবে? কিছুই বলা যায় না। সবই ভাগ্য!”
অদ্ভুত হাসি দিল স্বচ্ছ। মোহকে কিছু বলার সুযোগই আর দিল না সে। বারান্দা থেকে চলে গেল সেই মূহুর্তেই। মোহের কানে বারংবার বাজতে থাকল সেই কথা। সত্যিই কি কখনো বয়ে যাবে তার?

নাফিসা বেগমের সঙ্গে গল্পগুজব করে একটা বাহানায় ঘর থেকে বেরিয়ে এল মোহ। চোখেমুখে একটু ভীতি সৃষ্টি হয়েছে। আশেপাশে দেখে পা টিপে টিপে হেঁটে গিয়ে স্বচ্ছের ঘরের সামনে পৌঁছাল সে। ঘরের দরজা হালকা ভাবে ভেজানো। কাঠ আর কাঁচের মিশ্রণের দরজা হালকা খুলতেই খট করে শব্দ হতেই জিহ্বায় কামড় দিয়ে বসল সে। মাথাটা ঢুকিয়ে আশেপাশে চোখ বুলিয়ে নিল চোরের মতো। স্বচ্ছ ঘরে নেই। মোহকে আর পায় কে? তড়তড় করে ঢুকে পড়ল ঘরে। বরাবরের মতো এতো এতো অগোছালো রুম থেকে নাক শিটকে ফেলে মোহ। মাথায় হাত দিয়ে আফসোসের সুরে বলে,
“আহা আমার সোনায় বাঁধানো কপাল! এই লোকের সাথে কি করে এডজাস্ট হবে আমার?”

বলেই মুখ চেপে ধরে মোহ। ওয়াশরুম থেকে পানি পড়ার আওয়াজ আসছে। কিছুটা কাশির আওয়াজ পেয়ে মোহের বুঝতে বাকি রইল না স্বচ্ছ ওয়াশরুমে। এই হচ্ছে তার সুযোগ। ঘরের আশেপাশে আরো ভালো করে চোখ বুলিয়ে মোহ খুঁজতে থাকে স্বচ্ছের স্টাডি টেবিল বা অন্যকিছু। না পেয়ে বেশ বিরক্ত হয় সে। মনে হয় লোকটার স্টাডি রুম আলাদা। সোফায় নজর যেতেই বেশ কয়েকটা কাগজ অগোছালো ভাবে পড়ে থাকতে দেখল সে। সাথে ল্যাপটপও আছে। ধীর পায়ে এগিয়ে সোফার কাছে গিয়ে হাতে তুলে নিল কাগজগুলো। ইংলিশে সব অফিসের কথাবার্তা লিখা। ফ্যাকাশে মুখে সেটা রেখে দিল সে। শেষ কাগজে চোখ গেল তার। বাংলায় বেশকিছু হিসেব-নিকেশ করা পাতাতে। তাড়াহুড়ো করে সেটা হাতে তুলে নিয়ে বেশ ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করল লিখাগুলো। মনের ক্ষীণ আশা কোথাও একটা নিভে গেল। ফোঁস করে বড় একটা নিঃশ্বাস ছেড়ে কাগজটা রেখে দিল সে।

সেই আগন্তুক লোকটা আর স্বচ্ছের হাতের লিখার মাঝে আকাশপাতাল পার্থক্য। স্বচ্ছের লিখা ছোট ছোট হলেও পেঁচিয়ে লিখে না সে। একেবারে স্ট্রেট স্পষ্ট লিখা তার। আর স্বচ্ছের হাতের লিখা খুব ছোটও না। হালকা বড়। একই মানুষ তো আর দুরকম লিখতে পারে না। আর আগন্তুক লোকটা এমনভাবে পেঁচিয়ে লিখেছে যেন সে সেই লিখাতেই অভ্যস্ত। এবার সন্দেহের তালিকা থেকে বাদ দিয়েও স্বচ্ছকে বাদ দিতে ইচ্ছে করছে না মোহের। এতোসব ভাবনাতে মস্তিষ্ক ফাঁকা ফাঁকা লাগছে তার। মাথায় হাত দিয়ে দাঁড়াতেই ওয়াশরুমের দরজা খোলার শব্দে ফট করে পিছন ঘুরে তাকায় মোহ। স্বচ্ছকে আবার বাথরোব পড়া অবস্থায় দেখে মাথা ঘুরে ওঠে তার। মনে পড়ে আবারও সেদিনের ঘটনা। শুকনো ঢক গিলতেই মোহকে দেখে স্বচ্ছও এবার চোখ বড় বড় করে বলে,

“তুমি আবার? তোমার মতলব কি সত্যি করে বলো? বার বার এসব সময়ই এসে বড় কেন তুমি মোহ? হুয়াই? আজকাল শাওয়ার নিতে বা ড্রেস চেঞ্জ ভয় লাগে। হুড়মুড়িয়ে তুমি ঢুকে পড়লে কি হবে আমার? সব লুটপাট হয়ে যাবে।”
মোহ আর দাঁড়ায় না এসব কথা শুনে। জোর করে একটা হাসি দিয়ে চোখের পলকে ভোঁ দৌড়ে গায়েব হয়ে যায় সে। তা দেখে হেঁসে দেয় স্বচ্ছ। মেয়েটা মাঝে মাঝে কি করে বসে নিজেই জানে না।

ঘাড় বাঁকিয়ে সোফার দিকে তাকায় সে। ল্যাপটপের ওপর কাগজপত্র অন্যভাবে পড়ে আছে। মৃদু হেঁসে এগিয়ে গিয়ে কাগজগুলো হাতে তুলে নিয়ে বলে,
“চোরকে ধরতে এসেছিলে? পেলে না? পাবেও না। এই আহিয়ান স্বচ্ছ যতদিন না চাইবে। তুমি আমার কাছে নিষিদ্ধ এক মানুষ। তোমার প্রতি আমার অনুভূতিও নিষিদ্ধ। কথায় বলে, নিষিদ্ধ জিনিসগুলোর প্রতি মানুষের বেশি আগ্রহ থাকে। তুমি আমার কাছে নিষিদ্ধ হলেও নিজেকে তোমাতে আবদ্ধ করতে চাই আমি। তাতে আমার প্রাণ চলে গেলে যাক।”

বাড়িতে ফিরল মোহ। মুখে নেই হাসি। আজকে পুলিশের কাছে যেতে পারেনি সে। গিয়ে হয়ত নিজেই ভাষা খুঁজে পেতো না বলার। সে কারণেই যায়নি। আরেকটা কারণ মিসেস. নিরা। উনি বার বার ফোন করে মোহকে বাড়ি আসতে বলছিলেন। যার কারণে দ্রুত বাড়ি ফিরে আসে মোহ। মাথা নুইয়ে ড্রয়িংরুমে পা রাখতেই চেনা কন্ঠে ধ্যান ফিরে মোহের। মাথা উঁচিয়ে তাকায় সে।
“আরে মোহ এসে পড়েছে। এখানে এসো।”

হাসিমুখে বলেন মিসেস. রেবা। ইশারায় ডাকেন মোহকে। ভ্রু কুঁচকে বেশ সন্দিহান হয়ে তাকায় মোহ। এনার আবার কি হলো? আজ এভাবে ডাকছেন কেন? তবুও কোনোরকমে মিসেস. রেবার কাছে আসে মোহ। নেহাল সাহেব এবং মিসেস. রেবাকে সালাম দিতেই মিসেস. রেবা মোহের মুখে মিষ্টি পুরে দেয় আর হেঁসে উঠে বলে,
“খাও হবু বউমা। কি বলব! এতো খুশি হচ্ছে! কাছের মানুষের সাথে নতুন সম্পর্ক করতে পেরে ভালো লাগছে।”

কিছুটা বিষম খায় মোহ। কাশতে কাশতে মিসেস. রেবার দিকে তাকায় সে। যতদূর তার মনে পড়ে এই মহিলার সঙ্গে যতবার তার কথা হয়েছে ততবারই ঠেস দিয়ে কথা বলা ছাড়া কথা বললেন নি। আগের মামি আর এখনকার মামিকে মিলাতে কষ্ট হচ্ছে তার। তার কাশি দেখে সর্বপ্রথমই মিসেস. রেবাই পানি এগিয়ে দেয়। পানি খেয়ে চোখ বড় বড় করে পাকিয়ে দেখতে থাকে মিসেস. রেবা অর্থাৎ তার মামিকে। এখন মোহ উনাকে মামি বলবে নাকি অন্যকিছু সে বিষয়েও ভেবে পাচ্ছে না মোহ।

“বলছিলাম যে রেবা? রিং কি তুমি পড়াবে নাকি…”

“আমি পড়াব কেন? এখন সব তো আধুনিক হয়ে গিয়েছে। আমার ছেলেই না হয় পড়াবে।”
নেহাল সাহেবের প্রশ্নের জবাবে বলেন মিসেস. রেবা। একটু থেমে আবারও বলেন,
“শোনো নিরা, বলছিলাম যে বিয়ে আমি এতো জাঁকজমকভাবে দিতে চাইছি না। যদিও সাধ ছিল আমার কিন্তু সমস্যাটা আমার ছেলের। ওর এসব বিয়ে টিয়েতে জাঁকজমক হইচই ভালো লাগে না। কিন্তু হ্যাঁ রিসেপশন করব পুরো শহর জানিয়ে হইচই করে। এটাতে ছেলের কোনো কথা শুনবো না চিন্তা করো না।”

বিষয়টা তেমন কানে নিল না মোহ। বিয়ে নিয়ে বর্তমানে মাথাব্যথা নেই তার। সে বিয়ে করছে নামিমা আর তার মিমির জন্যই। এখন বিয়েটা যেমন করেই হোক তাতে কিছুই যায় আসে না তার। সে জোর করে হাসি ফুটিয়ে তুলে বলল,
“আমি আসি আপনারা কথা বলুন। ফ্রেশ হইনি। সবে বাহিরে থেকে এলাম।”

“আচ্ছা যা।”
মিসেস. নিরার সম্মতি পেয়ে সেখান থেকে চলে আসে মোহ। আসার সময় তার কানে আসে মিসেস. নিরার কথাগুলো।
“তাহলে আজকে থেকে ৫ দিন পরেই হচ্ছে মোহ আর স্বচ্ছের বিয়ে।”
মোহের কানে ঝনঝন করে বেজে ওঠে কথাগুলো। ‘মোহ আর স্বচ্ছের বিয়ে’ এতটুকু ভাবতেই অনুভূতিরা পাল্টে যাচ্ছে। এরপর কিনা সারাজীবন সেই স্বচ্ছ নামক অস্বচ্ছ মানুষটাকে জড়িয়ে তাকে কাটিয়ে দিতে হবে। ভাবা যায়?

চলবে….

[বি.দ্র. ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। গল্পটি সম্পূর্ণ কাল্পনিক। বাস্তবে এর কোনো ভিত্তি নেই।]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here