এক_আকাশ_ভালোবাসি পার্ট_৪৭

এক_আকাশ_ভালোবাসি
পার্ট_৪৭
#নিশাত_জাহান_নিশি

মুহিত আর মৃন্ময় অফিস থেকে ফিরতেই রূপ আর মারু রেডি হয়ে শপিং এ রওনা দিলো। প্রায় তিন ঘন্টা পর ওরা শপিং থেকে বাড়ি ফিরল। সব গোজ গাজ করে ওরা রাত আটটার মধ্যেই রেল স্টেশান পৌঁছে গেলো।

রূপ আর মারু লাল চুড়িদার পড়েছে। মুহিত আর মৃন্ময় লাল আর কালো রঙ্গের চেক শার্ট পড়েছে। চোখে কালো চশমা। দারুন লাগছে দুইজনকে দেখতে। ফর্সা গাঁয়ে শার্ট টা যেমন ফুটে আছে তেমনি কালো চশমাটা। মেয়েরা কিছুক্ষন পর পর মুহিত আর মৃন্ময়ের দিকে তাকাচ্ছে। তবে মৃন্ময়ের থেকে বেশি মুহিতের দিকে নজর ওদের। রূপ অনেকক্ষন ধরেই এসব খেয়াল করছে। আর রাগে ফুসছে। মুহিত ও হেসে হেসে মেয়েদের দিকে তাকাচ্ছে। রূপের যেনো রাগে গাঁ পিওি জ্বলে যাচ্ছে। রূপ মুহিতের এক্টা হাত বগলের তলে পুড়ে দাঁত কিড়মিড় করে আশেপাশের মেয়ে গুলোর দিকে তাকাচ্ছে।

মৃন্ময় মারুর প্রতি খুব কেয়ারিং। মারুর হাতে হাত রেখে সে আস্তে ধীরে মারুকে নিয়ে হাঁটছে। এদিক সেদিক তাকানোর সময় খুঁজে পাচ্ছে না। মারু বেশ খুশি মৃন্ময়ের প্রতি। ঐদিকে রূপ পারছে না মুহিতকে কাঁচা চিবিয়ে খেতে। মেয়েদের দিকে কেমন ড্যাব ড্যাব করে তাকিয়ে আছে সে। ক্ষনে ক্ষনে দাঁত বের করে হাসছে সে ও। রূপ কিছুক্ষন পর পর মুহতিকে খোঁচা মারছে। মুহিত রূপের দিকে তাকিয়ে জোর পূর্বক হাসি টেনে আবারো মেয়েদের দিকে তাকাচ্ছে। মুহিতের এহেন কান্ড দেখে রূপের চোখে জল চলে এলো। মুহিতের হাতটা ছেড়ে সে নিচের দিকে তাকিয়ে চোখের জল ছেড়ে দিলো।

মুহিত আড়চোখে তাকিয়ে রূপের কান্না দেখছে আর মিটিমিটি হাসছে। রূপকে রাগাতে ওর দারুন লাগছে। এর মাঝেই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ট্রেন চলে এলো। এক এক করে সবাই আস্তে ধীরে ট্রেনে উঠে পড়ল। আগে থেকে দুটো পাশাপাশি সিটের টিকেট কেটে রেখেছে মুহিত। দু জোড়া দম্পতি জোড়ায় জোড়ায় ওদের সিটে বসে পড়ল। রূপ আর মারু বসেছে জানালার পাশে। জানালার পাশে বসে জার্নি করার মজাই আলাদা। চোখ বুলিয়ে বাইরের পটভূমি সব দেখা যায়। প্রকৃতিকে খুব কাছ থেকে উপভোগ করা যায়।

এর মাঝেই ট্রেন ছেড়ে দিলো। ট্রেনের জানালা দিয়ে মৃদ্যু মন্দ বাতাস বইছে। রূপ এক ধ্যানে জানালার বাইরে তাকিয়ে আছে। অবাধ্য খোলা চুলেরা এক প্রকার নাচতে শুরু করেছে। মুহিত রূপের গাঁ ঘেঁষে বসেছে। আর মুগ্ধ নয়নে রূপকে দেখছে। রূপ কিছুক্ষন পর পর মুহিতের থেকে সরে বসছে। গাঁ ঘেঁষে বসতে ওর বিরক্ত লাগছে। এই মুহূর্তে রূপ মুহিতের উপর ভীষন ভাবে রেগে আছে।

মারু ট্রেনের সিটে মাথা এলিয়ে চোখ জোড়া বন্ধ করে আছে। মৃন্ময় মারুকে বাহু ডোরে আবদ্ধ করে রেখেছে। সে নিজে ও ট্রেনের সিটে মাথা এলিয়ে রেখেছে। রাত হওয়ার দরুন ট্রেনে মানুষের সংখ্যা খুবই কম। সবাই যার যার সিটে মাথা এলিয়ে ঘুমুচ্ছে নয়তো ঘুমানোর চেষ্টা করছে। রূপের চোখে ঘুম নেই। সে সিটে মাথা এলিয়ে এক দৃষ্টিতে জানালার বাইরে তাকিয়ে আছে। মুহিত রূপের দিকে ঝুঁকে রূপকে দেখতে ব্যস্ত।

কিছুক্ষন পর মুহিত মৃদ্যু হেসে রূপের বাম হাতটা আঁকড়ে ধরল। রূপ খুব মোচড়ামুচড়ি করে মুহিতের হাত থেকে ওর হাতটা ছাড়িয়ে নিলো। মুহিতের দিকে তাকাতে এমনকি মুহিতের হাত ধরতে ও সে বিলকুল নারাজ। মুহিত বুঝতে পেরেছে রূপ দারুন রেগে গেছে। তাই সে কিছুক্ষন নীরব থেকে আবারো রূপের হাতটা আঁকড়ে ধরল। রূপ এবার রাগী রাগী ফেইস নিয়ে মুহিতের দিকে তাকাতেই মুহিত বাঁকা হেসে রূপের ঠোঁট জোড়া আঁকড়ে ধরল। রূপ বড় বড় চোখ করে সম্পূর্ণ বেকুব হয়ে মুহিতের দিকে তাকিয়ে আছে। মুহিত আস্তে আস্তে করে রূপকে ওর সাথে মিশিয়ে নিচ্ছে। রূপের রাগটা আচমকাই শান্ত হয়ে গেলো। রূপ ও চোখ জোড়া বুজে মুহিতের শার্টের কলার আঁকড়ে ধরল। মুহিত চোখ বন্ধ করে রূপের ঠোঁটের স্বাদ নিতে ব্যস্ত।

প্রায় অনেকক্ষন পর মুহিত রূপকে ছাড়ল। দুজনই জোরে জোরে নিশ্বাস ফেলছে। রূপের ভেজা ঠোঁট জোড়া মুছে দিয়ে মুহিত রূপকে বুকের মাঝে চেঁপে ধরে সিটে মাথা এলিয়ে দিলো। রূপ গুটিশুটি মেরে মুহিতের বুকে মিশে আছে। দুজনই চোখ জোড়া বন্ধ করে দুজনকে নিয়ে ভাবনায় ডুবে আছে। মৃন্ময় আর মারু অলরেডি গভীর ঘুমে তলিয়ে গেছে।

,
,
,

গাড়ি এসে পৌঁছে গেলো সাজেক। লোকজনের হাঁক ডাকে রূপ, মারু, মৃন্ময়, মুহিত সবাই ঘুম থেকে উঠে পড়ল। এক এক করে সবাই ল্যাকেজ নিয়ে ট্রেন থেকে নেমে পড়ল। রূপ আর মারু ঘুমে চোখ খুলতে পারছে না। ঢুলুঢুলু ভঙ্গিতে ওরা হাঁটছে। ঘড়িতে রাত প্রায় অনেকটা বেজে গেছে। রাস্তাঘাট শুনশান। মুহিত রূপের হাত ধরে সামনের দিকে হাঁটছে। মৃন্ময় মারুর কাঁধে হাত রেখে মারুকে নিয়ে হাঁটছে। অনেক খুঁজাখুঁজি করে দুটো রিকশা নিয়ে ওরা ভালো এক্টা লজে উঠল। পাশাপাশি দুটো রুম বুক করেছে মুহিত আর মৃন্ময়। দুটো রুমেই এডজাস্ট ওয়াশরুম।

রুমে ঢুকেই মারু বিছানায় গাঁ এলিয়ে দিলো। ঘুমে ওর চোখ ছিঁড়ে যাচ্ছে। মৃন্ময় ল্যাকেজটা বেডের নিচে রেখে মারুর পাশে বসে মারুর চুলে বিলি কেটে দিচ্ছে আর বলছে,,,,,,,

—–“মারু…..তোমার শরীর কি খুব খারাপ লাগছে?”

মারু মিনমিন করে বলল,,,,,,,,

—–“না। কিন্তু ক্ষিদে পেয়েছে। খেয়ে এক্টু ঘুমাবো।”

মৃন্ময় বসা থেকে উঠে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে ঘড়ির ফিতে খুলছে আর বলছে,,,,,,,,

——“এক্টু ওয়েট করো মারু। আমি চেইন্জ্ঞ করে নেই। এরপর মুহিতের সাথে কথা বলে খাবার অর্ডার করছি।”

মারু বড় এক্টা হাই তুলে বলল,,,,,,,

—–“ওকেহ্।”

,,

,,

রূপ রুমে ঢুকেই মুহিতের শার্টের কলার চেঁপে ধরেছে। পাঁচ মিনিট হয়ে যাওয়ার পরে ও সে শার্টের কলার ছাড়ছে না। মুহিত বাঁকা হেসে বুকের উপর দু হাত গুজে রূপের দিকে তাকিয়ে আছে। রূপ দাঁত গিজগিজ করে মুহিতের চুল টেনে বলল,,,,,,,

—–“এই…. তোর খুব শখ পরকীয়া করার তাই না?”

মুহিত হাসি চেঁপে বলল,,,,,,,

—–“পরকীয়া করতে যাবো কেনো? তোমার পরে যাকে ভালো লাগবে, তাকে সঙ্গে সঙ্গে বিয়ে করে নিবো। এরপর বৈধভাবে তাকে দেখব।”

রূপ কাঁদো কাঁদো কন্ঠে বলল,,,,,

—–“তবে তুই ঐ সময় আমার ঠোঁটে চুমো খেলি কেনো? এবার থেকে একদম আমার ধারে কাছে ঘেঁষবি না। আমি এখনই ঢাকা ফিরে যাবো। তোর সাথে আর এক মুহূর্ত ও থাকব না।”

কথাগুলো বলেই রূপ মুহিতের শার্টের কলার ছেড়ে চোখের জল মুছে দরজার দিকে পা রাখতে নিলেই মুহিত পিছু ফিরে রূপকে আধ কোলে তুলে নিলো। রূপ চোখের জল ছাড়ছে আর মুহিতের থেকে নিজেকে ছাড়ানোর জন্য ছোটাছুটি করছে। মুহিত রূপকে কোলে নিয়ে হাঁটতে হাঁটতে বেডের কাছাকাছি চলে এলো। রূপকে বেডে শুইয়ে দিয়ে মুহিত রূপের দিকে ঝুঁকে রুপের চোখের জল গুলো মুছে দিয়ে মিনমিন করে বলল,,,,,,,,

—–“তোমার বাইরে আর কোনো নারী আমার জীবনে আসবে না। তুমিই প্রথম, তুমিই শেষ। না তুমি কোথাও আমাকে ছেড়ে যাবে। না আমি কোথাও তোমাকে ছেড়ে যাবো। আমাদের সম্পর্কটা আজীবনের। যেখানে দুজন দুজনকে ছেড়ে যাওয়াটা বড্ড বেমানান।”

রূপ কাঁদতে কাঁদতে মুহিতের গলা চেঁপে ধরে বলল,,,,,,,

—–“তবে ঐ সময় মেয়ে গুলোর দিকে তাকিয়েছিলি কেনো?”

—–“আরে বাপ। তোমাকে রাগানোর জন্য।”

—–“রাগানোর জন্য না ছাই। মেয়ে গুলোকে তোমার ভালো লেগেছিলো তাই তুমি তাকিয়েছ। ওরা তো আমার থেকে ও সুন্দুরী তাই। আমি তো কালো। তাই তোমার নজর এদিক সেদিক যায়।”

মুহূর্তেই মুহিত চোয়াল শক্ত করে রূপের গলায় জোরে এক্টা বসিয়ে দিলো। বাইটের দাগটা লাল হয়ে ফুলে গেছে। রূপ ঠোঁট উল্টে ভ্যাঁ ভ্যাঁ করে কান্না জুড়ে দিলো। মুহিত দাঁত কিড়মিড় করে রূপের দিকে তাকিয়ে বলল,,,,,,,,,

—–“ফালতু কথার শাস্তি। আর যদি কখনো মুখ থেকে এমন কথা বের করো তো কামড়ের গভীরতা আরো দ্বিগুন হবে। নেক্সট টাইম থেকে ভেবে চিন্তে কথা বলবে।”

কথা গুলো বলেই মুহিত রূপের উপর থেকে উঠে সামনের চুল গুলো টেনে রাগ কন্ট্রোল করার চেষ্টা করছে। রূপ উল্টো পাশে ফিরে কামড়ের জায়গাটায় হাত দিয়ে চোখের জল ছাড়ছে। এর মাঝেই মৃন্ময় দরজা ধাক্কাতে লাগল। মুহিত নিজেকে শান্ত করে দরজাটা খুলে দিলো। মৃন্ময় দরজায় দাঁড়িয়েই মুহিতকে উদ্দেশ্য করে বলছে,,,,,,

—–“ডিনারে কি খাবি? খাবার অর্ডার করব। মারুর ক্ষিদে পেয়েছে।”

—-“দে না। এক্টা দিলেই হলো। তোরা যা খাবি তাই দে।”

—–“রূপ কোথায়? রূপকে জিগ্যেস কর কি খাবে।”

—–“রূপ শুয়ে আছে। তোদের যেটা ভাল্লাগে ঐটাই অর্ডার কর।”

—–“ওকে তবে কাচ্চি অর্ডার করি।”

—–“হুম কর।”

—–“ওকে। ওয়েটার এলে দরজা খুলে দিস। আমি অর্ডার করে দিচ্ছি।”

মৃন্ময় রুমে ঢুকে ল্যান্ডলাইন থেকে কল করে ওয়েটারকে খাবারের অর্ডার করে দিলো। মুহিত রুমের দরজা লাগিয়ে রূপের পাশে বসল। রূপ উল্টোদিকে ফিরে কাঁদতে কাঁদতে ঘুমিয়ে পড়েছে। মুহিত রূপের পাশে শুয়ে রূপকে পিছন থেকে আষ্টেপিষ্টে জড়িয়ে ধরল। রূপের ঘাঁড় থেকে চুল গুলো সরিয়ে মুহিত গলার দিকটায় তাকিয়ে দেখল প্রায় অনেকগুলো দাঁতের দাগ পড়ে গেছে বাইটটায়। জায়গাটা লাল থেকে কালো হয়ে গেছে। অনেকটা জায়গা নিয়ে ফুলে উঠেছে। জায়গাটায় এক্টা ডিপ চুমো খেয়ে মুহিত রূপকে বুকের মাঝে চেঁপে ধরল। রূপ এক্টু নড়েচড়ে মুহিতকে টাইট করে জড়িয়ে ধরে আবারো গভীর ঘুমে তলিয়ে গেলো।

প্রায় পনেরো থেকে বিশ মিনিট পর ওয়েটার দরজায় কড়া নাঁড়ল। মুহিত রূপকে ছেড়ে রুমের দরজা খুলে খাবার নিয়ে রুমে ঢুকল। রূপকে টেনে হেছড়ে ঘুম থেকে উঠিয়ে মুহিত ফ্রেশ করিয়ে এরপর রূপকে এক্টু এক্টু করে খাবারটা খাইয়ে দিয়ে রূপকে আবার বেডে শুইয়ে দিলো। চোখে পানি পড়াতে রূপের ঘুমটা যেনো উবে গেলো। কিছুতেই ঘুম আসছে না চোখে। মুহিতের সাথে খুব রাগ করে আছে সে। তাই মুহিতের দিকে ও চোখ তুলে তাকাচ্ছে না। মুহিত ফ্রেশ হয়ে এক্টু আধটু খেয়ে রুমের লাইট অফ করে রূপের পাশে শুয়ে পড়ল।

রূপ নিজেকে যথেষ্ট জড়সড় করে রেখেছে। মুহিতের থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করছে। রূপ যতো ডান পাশে চাঁপছে মুহিত ততো রূপের কাছাকাছি যাচ্ছে। এক পর্যায়ে রূপ সরতে সরতে বেড থেকে পড়ে যেতে নিলেই মুহিত রূপকে হেচকা টান দিয়ে বুকের সাথে মিশিয়ে নিলো। রূপ কয়েকটা শুকনো ঢোক গিলে মুহিতের দিকে তাকালো। মুহিত বাঁকা হেসে রূপের চুল গুলো নাঁড়ছে আর বলছে,,,,,,,,,

——“কি ম্যাম। শেষ পর্যন্ত আমার বুকেই আসতে হলো তো? এতো নাটক করার কি দরকার ছিলো?”

—–“আমি মোটেও নাটক করছি না। আপনি আমাকে ইচ্ছে করে নিজের বুকে জড়িয়েছেন। এক ধরনের হ্যাংলা আপনি। ইচ্ছে করে আমার গাঁয়ে ঘেঁষতে আসেন। শুনুন মিঃ আপনি আমাকে না ধরলে ও আমি নিজেকে সেইফ করতে পারতাম।”

—–“আজ কাল কারো ভালো করতে নেই বুঝলে? এখন যদি আমি তোমাকে না ধরতাম বা আমার বুকে ঠাঁই না দিতাম তবে তো ফ্লোরে পড়ে মাজা টা ভাঙ্গত। তখন আমার কি হতো?”

—–“আর কি হতো? নতুন এক্টা সুন্দুরী বৌ পেতেন।”

—–“এক্টু আগের শাস্তিটায় মন ভরে নি তাই না? আরো লাগবে? দাঁড়াও দিচ্ছি আবার।”

—–“এই না না। আমি কোনো শাস্তি চাই না। আমি ঘুমুতো চাই।”

—–“হানিমুনে ঘুমুতো আসি নি। বাচ্চার প্ল্যানিং করতে এসেছি।”

রূপ দাঁত বের করে হেসে বলল,,,,,,,

—–“সত্যি?”

মুহিত ঘোর লাগা দৃষ্টিতে রূপের দিকে তাকিয়ে বলল,,,,,,,

—–“তিন সত্যি।”

—–“তবে আজ থেকে পিল খাওয়া অফ। তাই তো?”

—–“হুম অফ। আমার এক্টা মেয়ে বাবু লাগবে। ঠিক তোমার মতো ফুটফুটে।”

রূপ লজ্জা মাখা হাসি দিয়ে মুহিতকে সম্মতি জানালো। রূপের সম্মতি পেয়ে মুহিত রূপকে নিজের করতে উঠে পড়ে লাগল।

,,

,,

মারুকে খাইয়ে দাইয়ে মৃন্ময় মারুর পাশে শুয়ে পড়ল। মারু মৃন্ময়ের দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে থেকে আচমকা মুখ ফুলিয়ে বলল,,,,,,

—–“তুমি আমাকে কতো দিন আদর করো না বলো তো? হানিমুনে এসে ও কি তুমি এমন আনরোমান্টিক হয়ে থাকবে?”

মৃন্ময় হু হা করে হেসে বলল,,,,,,,,

—–“তুমি সময় দাও কই? অফিস থেকে ফিরে এসে দেখি তুমি নাক টেনে ঘুমাও। অসুস্থ শরীর বলে ডেকে ডিস্টার্ব করি না। তবে আজ ছাড়ছি না। আগামী তিনদিন ও ছাড়ব না।”

মারু এক গাল হেসে মৃন্ময়ের দিকে তাকিয়ে আছে। মৃন্ময় মারুর কাছাকাছি এসে মারুকে জড়িয়ে ধরে মারুর ঠোঁট জোড়া আঁকড়ে ধরল। দুজনেই আস্তে ধীরে ভালোবাসায় হারিয়ে দিলো।

,,
,,

কেটে দিলো প্রায় তিন দিন। এই তিন দিনে সবাই সারা দিন, রাত ঘুড়েছে, খুব কাছ থেকে মেঘপুন্জ্ঞি দেখেছে। মেঘের রাজ্যকে তিন দিনে বেশ আপন করে নিয়েছে ওরা। সাজেকের মনোরম প্রকৃতি ওদের মনকে সতেজ আর সাবলীল করে দিয়েছে। অতীতের সকল কালো দাগ মুছে দিয়েছে। নানা ধরনের ছবি তুলেছে ওরা মেঘ পুন্জ্ঞির সাথে। মারু আর রূপের ছবি বেশি। এই তিন দিনে হাজার হাজার ছবি তুলা হয়ে গেছে ওদের। মুহিত আর মৃন্ময় ক্লান্ত হয়ে গেছে ছবি তুলতে তুলতে। তবে রূপ আর মারু এক্টু ও ক্লান্ত হয় নি। ওরা লজ থেকে খুব ভোরে বের হতো আর লজে ফিরত রাত ১০টা বা ১১ টা। সারাক্ষন ঘুরাঘুড়ি আর কেনাকাটা নিয়ে ব্যস্ত থাকত। কাছ থেকে মেঘপুন্জ্ঞিকে দেখা তো প্রায় অভ্যেস হয়ে দাঁড়িয়েছে ওদের।

মায়া আহমেদ প্রতিদিন টাইম করে তিন বেলা কল করে সবার সাথে কথা বলত। রূপ আর মারুর জন্য হায় হুতাশ করত। সানায়া আর সাকিব ও জেল থেকে ফিরেছে। মোটামুটি মানুষ হয়ে গেছে ওরা। সবার সাথে ভালোভাবে মিলে মিশে থাকছে। রূপ সাজেক যাওয়ার পর থেকে আদনান এবং মিসেস আয়রা ঐ বাড়িতে পা রাখে নি। রূপ ফিরলেই তবে ঐ বাড়ি যাবে। এর মাঝে একদিন মিসেস মারজানা চৌধুরী ও কল করেছে রূপকে। আদ্রিতা এখন পুরোপুরি সুস্থ। নেশা কেটে গেছে। রূপের সাথে প্রায় অনেকক্ষন কথা বলেছে আদ্রিতা। রূপ ও বেশ খুশি খুশি মনে কথা বলেছে।

তিন দিন পর আজ সবার বাড়ি ফেরার দিন। রূপ আর মারুর মেঘের শহরটাকে ছেড়ে যাওয়ার ইচ্ছে হচ্ছে না। এখানেই আজীবন থেকে যেতে ইচ্ছে করছে। তবে যতোই ইচ্ছে থাকুক ফিরতে তো হবেই। সন্ধ্যা থেকে ওরা গোজ গাজ করছে বাড়ি যাওয়ার জন্য। রূপ আর মারু ভীষন মন মরা। মুহিত আর মৃন্ময় ওদের দুজনকে শান্তনা দিয়ে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করছে।

সন্ধ্যার মধ্যেই ওরা গোজগাজ করে রেল স্টেশান চলে এলো। স্টেশানে গাড়ি থামার সাথে সাথেই ওরা গাড়িতে উঠে পড়ল। প্রায় অনেকক্ষন জার্নির পর ওরা ঢাকা পৌঁছে গেলো। ঢাকা রেল স্টেশান থেকে ওরা রিকশা নিয়ে বাড়িতে পৌঁছে গেলো।

বাড়ির ড্রইং রুমে পা রাখার সাথে সাথেই মায়া আহমেদ দৌঁড়ে এসে একসাথে চারজনকে ঝাপটে ধরল। চোখে উনার সুখের কান্না। চোখের জল
ছেড়ে উনি কাঁদছে আর বলছে,,,,,,,

——“খুব মিস করেছি তোদের। বাড়িটা কেমন খাঁ খাঁ লাগছিলো। এবার পূর্ণ হলো বাড়িটা। সাথে আমার মনটা ও।”

মুহিত আর মৃন্ময় মায়া আহমেদের কপালে চুমো খেয়ে বলল,,,,,,,

—–“কান্না থামাও আম্মু। এতো দূর থেকে ছুটে এসে তোমার কান্না মুখ দেখতে ভালো লাগছে না।”

মায়া আহমেদ চোখের জল মুছে হাসি মুখে মুহিত আর মৃন্ময়ের দিকে তাকালো। রূপ আর মারু মায়া আহমেদকে ঝাপটে ধরে আহ্লাদি স্বরে বলল,,,,,

—–“আমরা ও তোমাকে খুব মিস করেছি আম্মু। তোমার হাতের খাবারকে মিস করেছি। তোমার সাথে প্রতিদিন বিকেলে হাঁটতে যাওয়াটা মিস করেছি। তোমার হাসি মুখটা ও মিস করেছি।”

মায়া আহমেদ মারু আর রূপের মাথায় হাত বুলিয়ে মলিন হেসে বলল,,,,,

—–“আমাকে ছেড়ে থাকতে অভ্যেস করে নে তোরা। নয়তো পরে আরো অনেক কষ্ট পাবি।”

কথাটা বলেই মায়া আহমেদ দ্রুত পায়ে হেঁটে সিঁড়ি বেয়ে উনার রুমে চলে গেলো। উনার চোখে, মুখে গভীর কান্নার ছাপ স্পষ্ট। মারু আর রূপ কথার আগা মাথা কিছু না বুঝে বেকুব হয়ে মায়া আহমেদের যাওয়ার পথে তাকিয়ে আছে। সাকিব আর সানায়া মাথা নিচু করে মুহিত আর রূপের থেকে ক্ষমা চেয়ে নিলো। মুহিত আর রূপ ও হাসি মুখে ওদের দুজনকে ক্ষমা করে দিলো। সোহেলী আহমেদ হাসি হাসি মুখে রূপ আর মুহিতের দিকে তাকিয়ে আছে। দোলা এসে মুহিতের হাত থেকে ল্যাকেজ ছিনিয়ে নিয়ে সমস্ত শপিং ঘেটে ঘেটে দেখছে। মারু আর রূপ ও দোলার পাশে বসে সবার জন্য আনা গিফট গুলো এক এক করে সবার হাতে দিচ্ছে। বাড়ির সবার জন্যই কিছু না কিছু এসেছে ওরা।

রূপ পছন্দ করে মায়া আহমেদের জন্য এক্টা শাড়ি নিয়েছে। শাড়িটা ব্ল্যাক আর রেড রঙ এর মিশ্রনে। দেখতে দারুন। শাড়িটা নিয়ে রূপ মায়া আহমেদের রুমে রেখে এলো। মায়া আহমেদ জায়নামাযে দাঁড়িয়ে নামাজ পড়ছে। তাই রূপ নিশব্দে রুম থেকে বের হয়ে গেলো।

ঘড়িতে রাত বারোটা। সবাই ডিনার করতে বসল। মায়া আহমেদ আজ ও বড় এক্টা প্লেইটে খাবার নিয়ে সানায়া, সাকিব, দোলা, রূপ, মারু, মুহিত আর মৃন্ময়কে খাইয়ে দিলো। এই কয়দিনে সানোয়ার আহমেদের সাথে মায়া আহমেদের সম্পর্ক টা খুব স্বাভাবিক হয়ে গেছে। উনি এখন মায়া আহমেদকে খুব ইম্পরটেন্স দেয়। প্রতি দিন রাতে মায়া আহমেদকে বুকে জড়িয়ে ঘুমায়।

ডিনার শেষে সবাই যে যার রুমে চলে গেলো। মায়া আহমেদ রুমে ঢুকেই আলমারির উপরে রাখা রূপের দেওয়া শাড়িটা হাতে নিয়ে ব্যালকনিতে চলে গেলো। শাড়িটা প্যাকেট থেকে খুলে উনি দুহাত দিয়ে শাড়িটাকে আঁকড়ে ধরে হু হু করে কেঁদে দিলো। উনার কান্নার আওয়াজ টেবিলে বসে ল্যাপটপে কাজ করা সানোয়ার আহমেদের কান অব্দি পৌঁছে গেলো। সানোয়ার আহমেদ হম্বিতম্বি হয়ে ব্যালকনিতে ছুটে এলো। মায়া আহমেদকে দুহাতে জড়িয়ে ধরে উনি শান্ত কন্ঠে বলল,,,,

—–“কি হয়েছে মায়া? কাঁদছ কেনো? শরীর খারাপ লাগছে?”

মায়া আহমেদ তাড়াহুড়ো করে চোখের জল মুছে বলল,,,,,,

—–“কিছু হয় নি। ভালো আছি আমি। ভাই, ভাবীকে মনে পড়ছিলো তো। তাই কাঁদছিলাম।”

সানোয়ার আহমেদ এক্টা দীর্ঘ শ্বাস ছেড়ে বলল,,,,,,

—–‘যা হয়ে গেছে তা ভুলে যাও মায়া। এসব মনে করে নিজেকে দুখি করো না।”

সানোয়ার আহমেদ কিছুক্ষন নীরব থেকে বলল,,,,,,

—–“ভালোবাসি মায়া।”

মায়া আহমেদ সানোয়ার আহমেদের থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে চোখের জল ছেড়ে রুমের দিকে পা বাড়াচ্ছে আর বলছে,,,,,,,

—–“কথাটা বলতে খুব দেরি করে ফেললে সানোয়ার। সময় সংকটে ভুগছি আমি।”

শাড়িটা আলমারিতে গুছিয়ে রেখে মায়া আহমেদ বেডে গা এলিয়ে দিলো। চোখ জোড়া বন্ধ করে উনি ঘুমিয়ে পড়ল। সানোয়ার আহমেদ বিষন্ন মন নিয়ে আবার ল্যাপটপের কাজে মনযোগ দিলো। ইদানিং মায়া আহমেদের হেয়ালী কথা বার্তা উনি ঠিক বুঝতে পারে না।

বাড়ির সবাই এতক্ষনে গভীর ঘুমে ডুব দিলো। মৃন্ময় ও মারুকে বুকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ল। তবে মুহিত রূপকে ঘুমাতে দিচ্ছে না। শুধু জ্বালাচ্ছে। গত তিনদিন ধরে রূপ মুহিতের রোমান্টিক অত্যাচারের জ্বালায় ঘুমাতে পারে না। চোখ টেনে সে মেলতে ও পারে না। এরপরে ও মুহিত রূপকে ছাড়ছে না। হয়তো প্রতিদিন এভাবেই চলতে থাকবে। যতো দিন না মুহিত বাচ্চার মুখ দেখবে।

#চলবে,,,,,,,,

"এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে। আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার। আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন "

Golper Sohor
গল্পের শহরhttps://golpershohor.com
গল্পের শহরে আপনাকে স্বাগতম......... গল্পপোকা ডট কম কতৃক সৃষ্ট গল্পের অনলাইন প্লাটফরম

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles

error: ©গল্পেরশহর ডট কম