কি আশায় বাঁধি খেলাঘর ৯+১০

0
64

কি আশায় বাঁধি খেলাঘর (০৯)

রশ্মির মেজাজ সপ্তমে চড়ে আছে।চন্দ্র যখন জিজ্ঞেস করলো,”কেনো এভাবে ভেঙে দিলে আমার আব্বা আম্মার সংসার খালামনি?”

তারপর থেকেই রশ্মি যা তা বলে যাচ্ছে চন্দ্রকে।চন্দ্র চুপ করে রইলো।
রশ্মি চন্দ্রর নিরবতা সহ্য করতে পারলো না।চিৎকার করে বললো,”তোর বাপে ছিলো একটা কুলাঙ্গার,তার মেয়ে হয়ে তুই ভালো হবি তার আশা করাও বৃথা।গোবরে তো কখনো পদ্মফুল ফোটে না।”

নিজের আব্বাকে নিয়ে এরকম বাজে কথা চন্দ্র সহ্য করতে পারলো না। খুন চেপে গেলো মাথায়।প্রচন্ড রেগে গেলো,চন্দ্রর দুই গাল কান লাল হয়ে উঠলো। এতোক্ষণ ধরে রশ্মি অনেক কিছু বলেছে কিন্তু চন্দ্র পাত্তা দেয় নি।এবার চন্দ্রর আব্বাকে নিয়ে বলায় চন্দ্রর মনে হলো কেউ ওর কলিজা এফোঁড়ওফোঁড় করে দিয়েছে।
বসা থেকে উঠে দাঁড়িয়ে চন্দ্র ব্যাগ থেকে কাঁচি বের করে রশ্মিকে ধাক্কা মেরে কাত করে ফেলে দিলো সোফায়।
রশ্মির গলা চেপে ধরে বললো,”আর একবার যদি আমার বাবাকে নিয়ে একটা বাজে কথা বলিস তাহলে তোর জিহবা আমি কেটে নিবো।সোজাসাপটা কথা বলবি।”

চন্দ্রর এই আক্রমণ রশ্মির কাছে সম্পূর্ণ অপ্রত্যাশিত ছিলো রশ্মির কাছে।রশ্মি ভীষণ ভয় পেলো।ভয়ে রশ্মির শরীর কাঁপতে লাগলো। চন্দ্রর এই রণমুর্তি রশ্মির ভাবনার বাহিরে ছিলো।
রশ্মির হঠাৎ করে মনে হলো বাঘের ঘরে বাঘ-ই হয়,বেড়াল হয় না।

রশ্মির শরীরের কাঁপুনি কমতেই চন্দ্র ব্যাগ থেকে
নীল রুমালটা বের করলো।
রুমাল দেখার সাথে সাথে রশ্মির কপালে ঘামের রেখা দেখা দিলো।গলা শুকিয়ে এলো রশ্মির।
চন্দ্র দিকে অবিশ্বাস্য চোখে তাকিয়ে রশ্মি কাঁপা-কাঁপা গলায় জিজ্ঞেস করলো,”এই রুমাল তুই কোথায় পেলি?”

চন্দ্র বললো,”প্রশ্ন সেটা নয় আমি কোথায় পেয়েছি,প্রশ্ন এটা যে এই রুমাল কেনো দিলে তুমি আমার আব্বাকে?”

রশ্মি বললো,”গিফট হিসেবে দিয়েছি,দোষ হয়েছে না-কি তাতে?”

চন্দ্র হেসে বললো,”না দোষ না, প্রেমের সম্পর্ক গড়ার উদ্দেশ্যে গিফট দিলে অবশ্যই সেটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ”

রশ্মি বললো,”আমি শুধু দুলাভাই হিসেবে দেখেছি তোর বাবাকে,দোষ আমার না তোর বাবার ছিলো।তোর বাবার চরিত্রে সমস্যা ছিলো।”

চন্দ্র কঠিন গলায় বললো,”আমার আব্বার চরিত্র খারাপ এটা কি সবাই আম্মার বিয়ের সময় থেকেই জানতো? ”

রশ্মি যেনো বুকে বল ফিরে পেলো।চড়া গলায় বললো,”অবশ্যই জানতাম আমরা সবাই।এজন্যই তো কেউ তোর বাবা মা’র সম্পর্ক মেনে নেয় নি,তোকেও কেউ ভালো চোখে দেখছে না তাই।ছি ছি ছি!
বিয়ের আগেই তোর মা পেট বাঁধিয়ে ফেললো,আবার সেই মেয়ে হয়ে তুই বড় গলায় কথা বলছিস?”

চন্দ্র এবার ফিক করে হেসে ফেললো। হেসে বললো,”খালামনি,আমার আব্বা যখন এতোই খারাপ লোক ছিলো,আমার মা ও খারাপ ছিলো তবে কেনো তুমি আমার আব্বাকে এরকম ভালোবাসা মাখানো একটা রুমাল দিলে?
কেনো এতো ঘনঘন আমাদের বাসায় যেতে খালামনি?তোমার তো তখন সংসার ছিলো,তুমি বিবাহিতা ছিলে।”

রশ্মি নিজের কথার জালে নিজে আটকে গেলো।
তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলো চন্দ্রর দিকে।রশ্মির বারবার মনে হতে লাগলো এই মেয়ে বাপকা বেটি।

চন্দ্র একদৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলো রশ্মির দিকে।রশ্মির মনে হতে লাগলো চন্দ্র যেনো ওর মনের সব কিছু পড়ে নিচ্ছে।
চন্দ্রকে রশ্মির ভয় হলো কিছুটা,সেই সাথে নিজের অপরাধের কথাও মনে হলো।
রশ্মির হঠাৎ মনে হলো চন্দ্র সব জানে,সব বুঝে গেছে চন্দ্র।

চন্দ্র বললো,”আমার আব্বা যা করেছে তা খুবই খারাপ আমি জানি খালামনি,কিন্তু আম্মা তার পরিবারের কথায় যদি আব্বাকে ছেড়ে যাবার মতো সিদ্ধান্ত না নিতো তবে আব্বা এরকম অন্যায় কাজ করতো না কিছুতেই।
আর তার ফলস্বরূপ আব্বা কি পেয়েছে বলো?
আম্মা চেয়েছিলেন এবরশন করিয়ে ফেলতে কিন্তু আব্বা দেন নি।তাৎক্ষণিক বিয়ে করে নিয়েছে।
আব্বা আম্মাকে বিয়ে করার সাথেসাথেই তোমার মাথা খারাপ হয়ে গেলো।
তুমি চেয়েছিলে আব্বাকে বিয়ে করতে।নানা মামাদের কাছে আম্মা আব্বার সব খবর তুমিই পাচার করতে।আমার আম্মা যদিও এই ব্যাপারটা বুঝতে পারেন নি কিন্তু আমি খুব সহজেই বুঝে গেছি আম্মার ডায়েরি পড়ে।
আমার বিশ্বাস আমার আব্বাও বুঝতে পেরেছিলেন এই বিষয়টা,তাই তিনি তোমাকে এড়িয়ে চলতেন।
আব্বার এই এড়িয়ে যাওয়ায় তুমি সহ্য করতে পারো নি।
আব্বা আম্মার বিয়ের পর ও তুমি আমাদের বাসায় যেতে শুধুমাত্র আম্মাকে ফুঁসলাতে এবং আব্বাকে বশ করতে।

আমি কি ভুল বলেছি খালামনি?”

রশ্মির মাথা ঘুরতে লাগলো। চন্দ্র এতো সহজে সব বুঝে রশ্মির ভাবনাতে ছিলো না এটা।চন্দ্র উঠে গিয়ে এক গ্লাস পানি এনে দিলো রশ্মিকে।
রশ্মির মনে হলো পুরো দুনিয়া ঘুরছে।তাড়াতাড়ি পানি খেয়ে নিলো রশ্মি।মনে পড়ে গেলো অতীতের কতো কথা।এক সময় কতো কায়দা করেছে রশ্মি বোনের জামাইয়ের থেকে সুযোগ নিতে।
কিন্তু তার রাগী চোখের সামনে টিকতে পারে নি।আজ আবারও রশ্মির মনে হচ্ছে সেই চোখ দুটোই তার দিকে তাকিয়ে আছে একরাশ ঘৃণা নিয়ে।

একটু থেমে দম নিলো চন্দ্র।তারপর আবার বললো,”তুমিই তো আম্মাকে বুঝিয়েছিলে খালামনি আমাকে যেনো আব্বার কাছে যেতে না দেয়,আমার জন্য আম্মার যেহেতু আব্বাকে সবার অমতে এসে বিয়ে করতে হয়েছে তাহলে আব্বাকে কষ্ট দিতে হলে আমাকে আব্বার থেকে দূরে সরিয়ে দিতে হবে।
আমার বোকা আম্মা স্বামীর চাইতে বোনকে বেশি বিশ্বাস করতো।
আর তাই তোমার কথা ধরেই আব্বার অন্যায়টা আম্মা ক্ষমা করতে পারেন নি।
আব্বাকে প্রতিনিয়ত শাস্তি দিয়েছে।সেই সাথে আমাকে ও শাস্তি দিয়েছে আম্মা।আমি পেটে না এলে তো আর আম্মার এতো বড় সর্বনাশ হতো না।
তুমি এক ঢিলে দুই পাখি শিকার করতে চেয়েছো।

আম্মার মনে যখন আব্বার সম্পর্কে প্রচন্ড ঘৃণা জন্ম নিলো তখন তুমি আবার আব্বার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে।
আব্বাকে বুঝালে এভাবে জীবন চলে না।আম্মাকে ছেড়ে দেওয়া উচিত আব্বার।

আব্বা শেষ পর্যন্ত আম্মার দেয়া এতো কষ্ট সহ্য করতে পারে নি।আব্বা যখন বুঝলো আমাদের পারিবারিক সব অশান্তির কারণ তুমি,তখন আব্বা তোমাকে ধমক দিলো আম্মাকে সব বুঝিয়ে বলবে।
তুমি তখন দেখলে তোমার সব চাল ব্যর্থ হলো।

তারপর তুমি সবচেয়ে ঘৃণ্য কাজটা করলে।আম্মাকে বললে আব্বা তোমাকে রেপ করেছে।
আর আমার আম্মা জিদের বশে খুন করলো আব্বাকে সেই রাতে।”

রশ্মির কথা বলার শক্তিটুকু রইলো না।বলার মতো কিছু নেই ও।চন্দ্র যা বলেছে সব সত্য।
ঢকঢক করে গ্লাসের বাকি পানিটুকু খেয়ে নিলো রশ্মি।
চন্দ্র উঠে দাঁড়াতে দাঁড়াতে বললো,”আমি আবার আসবো খালামনি,এরপর যখন আসবো তখন তোমার যমদূত হয়ে আসবো।আমার মায়ের সোনার সংসার তুমি নষ্ট করেছো।তোমাকে আমি বেঁচে থাকতে দিবো না।আমি যা বলেছি সব কিছুই সত্যি,তোমার ছেলেমেয়েদের সামনে তোমার এই মুখোশ আমি উন্মোচন করবো।”

চন্দ্র চলে গেলো। বাসায় গিয়ে সবে চেঞ্জ করে বসেছে তখনই রেশমা কল দিলো চন্দ্রকে।কল দিয়ে বললো,রশ্মি গলায় ফাঁস দিয়ে মারা গেছে।

চন্দ্রর মনে হলো শরীরে যে প্রতিশোধের আগুন জ্বলেছিলো তা এতক্ষণে নিভেছে।তবে চন্দ্র বেশি খুশি হতো যদি নিজ হাতে রশ্মিকে খুন করতে পারতো।

চলবে…..কি আশায় বাঁধি খেলাঘর (১০)

চন্দ্র রশ্মিকে দেখতে গেলো না।যে মানুষটার জন্য একটা সোনার সংসার ভেঙে গেছে সেই মানুষকে শেষ দেখা দেখার কোনো প্রয়োজন অনুভব করে নি চন্দ্র।
বাসায় এসে শুধু কেঁদেছে।
চন্দ্র খাতা নিয়ে আম্মার কাছে একটা চিঠি লিখলো,”আম্মা গো,আম্মা কেনো এরকম করলে গো আম্মা?
কেনো আমার জীবন থেকে আব্বা নামের বটগাছের ছায়া সরিয়ে দিলে?
কেনো আমার মাথার উপর থেকে মায়ের আঁচলের ছায়া সরিয়ে দিলে?
কেনো আমাকে এতিম করে দিলে আম্মা।
আমি যে কোনোদিন আমার আব্বাকে আব্বা বলে ডাকতে পারি নি।
আমি কখনো আব্বার হাত ধরে স্কুলে যেতে পারি নি।
আমার আব্বা যে জীবনে আমার মুখ থেকে আব্বা ডাক শুনে প্রাণ জুড়াতে পারে নি।
আমার আব্বার বুকের ভিতর যে একটা অভিমানের পাহাড় জমে ছিলো তুমি কেনো বুঝলে না গো আম্মা?
আম্মা গো,অন্য মানুষের কথা বিশ্বাস করে কেনো আমার আব্বাকে এতো বড় শাস্তি দিলে তুমি?
আমার আব্বা না হয় একটা অপরাধ করেই ফেলেছে।
তারজন্য নিশ্চয় আব্বা তোমার কাছে ক্ষমা চেয়েছে,তোমাকে তো আব্বা ঠকায় নি আম্মা।তুমি ঠকাতে চেয়েছিলে বলেই তো করেছে।
তবুও তো ক্ষমা চেয়েছে তোমার কাছে।তুমি তাকে অন্য শাস্তি দিতে কেনো এরকম একটা শাস্তি দিলে আম্মা?
আমার একটা জীবন যাবে আব্বা আম্মাকে ছাড়া।
আমার মাথায় যে কেউ কখনো স্নেহের হাত বুলিয়ে দেয় নি আম্মা।

আমার বুকের ভিতর যে একটা হাহাকার রয়ে গেছে।প্রাণ ভরে আব্বা বলে ডাকার হাহাকার।
আমি যে কখনো আমার আব্বাকে একবার আব্বা বলতে পারি নি।
আম্মা এতো বড় হয়েছি সবার অনাদর আর অবহেলায়। যে ছেলেটা টোকাইয়ের কাজ করে,যে মেয়েটা ফুল বিক্রি করে,তারাও আমার থেকে বেশি সুখে আছে আম্মা।
ঘুম ভাঙলেই তারা দেখতে পায় তাদের আব্বা আম্মাকে।সবাই ঘুম ভাঙতেই চিন্তা করে আজকে কী কী কাজ করবে আর আমি ঘুম ভাঙলেই চিন্তা করি আব্বা আম্মাকে ছাড়া আরেকটা দিনের শুরু হলো।
এই জীবন তো আমি চাই নি আম্মা।

আমার আব্বা এতো শখ করে আমার নাম চন্দ্র রেখেছিলো,কখনো একবার প্রাণ ভরে ডাকতে পারে নি আমায় এই নামে।

আমাকে কেনো বাঁচিয়ে রেখে গেলে তুমি?
সেদিন আমাকে ও মেরে ফেলো নি কেনো আম্মা?
তাহলে তো আর এভাবে কষ্ট পেতে হতো না।
আমার যে প্রাণ যায় যায় আব্বা আম্মার অভাবে।
আমি কিভাবে এই জ্বালা দূর করবো আম্মা?
তুমি বলে দাও আমায় আমি কি করবো এখন?

ইতি,
তোমার চন্দ্র

চিঠি লিখা শেষ করে চন্দ্র একটা কাগজের প্লেন বানালো চিঠিটা দিয়ে।
তারপর বারান্দায় গিয়ে চোখ বন্ধ করে বললো,”চিঠি তুই উড়ে যা তোর প্রিয় ঠিকানায়। ”
তারপর উড়িয়ে দিলো।

নিষাদ সবেমাত্র বাসায় ফিরেছে।আজকে নিষাদের মুড খুবই ভালো।
সকালে চন্দ্র টেক্সটের রিপ্লে দিয়েছে দু’বার। তাতেই নিষাদের মনে হচ্ছে চন্দ্রকে পেয়ে গেছে।
নিষাদ ঠিক করলো আজকে রাতে কথা বলবে চন্দ্রর সাথে।

গেইট পার হয়ে সবে পা রেখেছে ভিতরে তখনই একটা কাগজ এসে নিষাদের মাথায় এসে লাগলো।
নিষাদ হাতে নিয়ে দেখলো একটা কাগজের প্লেন।

নিষাদের খুবই ইন্টারেস্টিং লাগলো প্লেনটা দেখে।দেখলো কাগজে কি সব যেনো লিখা ও আছে।নিষাদ একটা শিস দিয়ে বললো,”ওহে,আমাকে উড়ো চিঠি পাঠিয়ে পটাতে এসো না।আমি তো অনেক আগেই দিওয়ানা হয়েছি আমার চন্দ্রর প্রেমে।”

চন্দ্র উপর থেকে কিছুই শুনলো না।

নিষাদ বাসায় ঢুকে মা’কে বললো,”দেখো মা,একটা লাভ লেটার পেয়েছি।”

হাসনাত সাহেব এক হাতে চায়ের কাপ নিয়ে বসে আছেন মনোয়ারা বেগমের রাগ ভাঙাতে।
হাসনাত সাহেবের অপরাধ মালীর সামনে মনোয়ারা বেগম কে মনু বলে ডেকেছেন।
এতে মনোয়ারা বেগমের প্রেস্টিজে লেগেছে।এমনিতেই তিনি কারো সামনে এই নামে ডাকা পছন্দ করেন না,এই নিয়ে প্রায় সময় দুজনের মধ্যে ঝগড়া হয়।
কিন্তু হাসনাত সাহেব মাঝেমাঝে অতি উত্তেজিত হয়ে ভুলে যান এটা।

নিষাদের কথা শুনে হাসনাত সাহেব বললেন,”তোর প্রেমের কথা পরে শুনবো বাপ,আগে আমার বউয়ের রাগ ভাঙাতে সাহায্য কর।”

নিষাদ সোফায় বসে আড়মোড়া ভাঙতে ভাঙতে বললো,”তোমার প্রব্লেম তুমি সলভ করো বাবা।আমি পারবো না।আমার বউকে তো খুঁজে পেতে তুমি কোনো সাহায্য করো নি।তাহলে আমি কেনো এখন তোমায় সাহায্য করবো বলো?”

হাসনাত সাহেব বললেন,”হাতি খাদে পড়লে চামচিকা ও লাথি মারে। ব্যাপার না।আমার ও সুযোগ আসবে।”

তারপর মনোয়ারা বেগমের হাত ধরে বললেন,”তুমি যদি কথা না বলো মনু,তবে মেপে মেপে ৫ চামচ লবন দিয়ে এই চা খেয়ে আমি নিজেকে তিলে তিলে কষ্ট দিবো।”

নিষাদ মুখে হাত চাপা দিয়ে নিজের হাসি কন্ট্রোল করলো।

হাসনাত সাহেব দেখলেন কাজ হচ্ছে না। মনোয়ারা বেগমের নাক আরো ফুলে গেছে।
মানে তিনি আরো রেগেছেন।

হাসনাত সাহেব কিছুক্ষণ ভেবে বললেন,”তুমি যদি কথা না বলো তবে এই শীতের রাতে আমি ৩ টা কম্বল গায়ে দিয়ে নিজেকে কষ্ট দিবো।”

বিরক্তিতে মনোয়ারা বেগম ভ্রু কুঁচকে ফেললেন।
নিষাদ হা হা করে হেসে উঠলো।

হাসনাত সাহেব কিছুক্ষণ মাথা চুলকে বললেন,”জোকস শুনবে মনু?
শোনো,এক মাতাল রাতে বাড়ি ফিরে ঘরের তালা খোলার চেষ্টা করছিল। কিন্তু কিছুতেই চাবি তালার ভেতর ঢোকাতে পারছিল না। পাশের বাসার ভদ্রলোক এগিয়ে এসে বললেন, ‘চাবিটা আমাকে দিন, আমি খুলে দিচ্ছি।’
মাতাল বলল, ‘না না, আমিই পারব। আপনি বাড়িটা শুধু একটু শক্ত করে ধরুন।”

জোকস বলে হাসনাত সাহেব নিজেই হাসতে লাগলেন।
মনোয়ারা বেগম কোনো কথা বললেন না।হাসনাত সাহেব ছেলের দিকে তাকালেন। তিনি ভেবেছেন নিষাদ অন্তত হাসবে কিন্তু দেখলো নিষাদ খুব মনোযোগ দিয়ে একটা কাগজ পড়ছে।

হাসনাত সাহেব ছেলের পাশে বসে বললেন,”কি রে,আমি পড়তে পারবো তো তোর লাভ লেটার?”

নিষাদ কোনো কথা বললো না।কেমন যন্ত্রচালিতর মতো কাগজটা বাড়িয়ে দিলো হাসনাত সাহেবের দিকে।
ছেলের এভাবে বিমর্ষ হবার কারণ হাসনাত সাহেব বুঝতে পারলেন না।

তড়িঘড়ি করে তিনিও পড়তে লাগলেন।
চিঠি পড়া শেষ করে তিনি নিজেও থমকে গেলেন।

মনোয়ারা বেগম বাপ ছেলের এই নিরবতা দেখে উঠে এলেন।স্বামীর হাত থেকে কাগজটা নিয়ে পড়লেন।
পড়তে পড়তে তার ভিতরে মাতৃত্বের সত্ত্বা জেগে উঠলো। দুই চোখ ভিজে গেলো তার।

কেঁদে দিলেন তিনি উঠে গিয়ে ছেলেকে জড়িয়ে ধরে।
বারবার তার মনে হলো,আজ যদি তিনি বা হাসনাত সাহেব বেঁচে না থাকতেন তবে তার ছেলের ও তো এরকম কষ্ট হতো।

হাসনাত সাহেব জিজ্ঞেস করলেন,”মেয়েটা কে মনু?”

মনোয়ারা বেগম রাগ করলেন না আর।চোখ মুছে বললেন,”তোমাকে বলেছি না সেদিন একটা মেয়ের কথা,সেই মেয়েটা।”

হাসনাত সাহেব বললেন,”মেয়েটাকে ডেকে নিয়ে আসো।আজ রাতে আমাদের সাথে খাবে না হয়।কে জানে,শেষ কবে মেয়েটা বাবা মায়ের সাথে খাবার খেয়েছে এক টেবিলে বসে।”

চন্দ্র কিছুই বুঝতে পারছে না কেনো তাকে ডাকা হয়েছে। প্রভা আর সে ফ্ল্যাটের দরজায় তালা দিয়ে নিচে এলো।
কলিং বেল বাজতেই নিষাদ উঠে গেলো দরজা খোলার জন্য।
দরজা খুলতেই দেখতে পেলো সামনে চন্দ্র দাঁড়িয়ে আছে।
নিষাদের মনে হলো তার দৃষ্টিবিভ্রম এটা।তাই দুই হাতে দুই চোখ ভালো করে কচলে নিলো।তারপর আবার তাকালো।
আবারও দেখলো চন্দ্র দাঁড়িয়ে আছে।
নিষাদের হার্টবিট বেড়ে গেলো।কি করবে বা কি বলবে সব এলোমেলো হয়ে গেলো এতো কাছে চন্দ্রকে দেখে।
হতভম্ব হয়ে নিষাদ চন্দ্রকে বললো,”আপনি কি আমার প্রেশারটা মেপে দেখবেন একটু?
আমার মনে হচ্ছে আমার প্রেশার লো হয়ে গেছে।
আচ্ছা আপনি কি আমার প্রেশারের ঔষধ হবেন?”

চন্দ্রর মনে হলো তার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা এই এলোমেলো চুলের ছেলেটার মাথায় কিছুটা সমস্যা আছে।
চন্দ্র শুনেছে শীত এলে পাগলদের পাগলামি বেড়ে যায়।
মনে মনে চন্দ্র ভীষণ আফসোস করে বললো,”এতো কিউট ও পাগল হয়?”

চলবে…..?

লিখা:জাহান আরা
লিখা:জাহান আরা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here