চন্দ্ররঙা_প্রেম_২ পর্বঃ১৮

0
140

চন্দ্ররঙা_প্রেম_২
পর্বঃ১৮
#আর্শিয়া_সেহের

বরযাত্রী কে এভাবে ঘিরে ধরায় বিয়ে বাড়ির সকলেই অবাক হয়ে গেলো। অবাক হলো রাশেদের আত্মীয়-স্বজনরাও। রাশেদ বিপদ বুঝতে পেরে খুব দক্ষতার সাথে ফোন বের করলো রায়হানকে সাবধান করে দেওয়ার জন্য। তনিম ঝড়ের বেগে ছুটে এসে ছো মেরে ফোন নিয়ে নিলো। রাফিনের দিকে তাকিয়ে বললো,
-“ভাইয়া ওকে অ্যারেস্ট করো। আমি ওদিকটায় একটু ঘুরে আসি।”
বলেই রাশেদের ফোনটা নিজের পকেটে পুরে শিষ বাজাতে বাজাতে হাঁটা ধরলো।

রাফিন এসে রাশেদকে হাতকড়া পরিয়ে সবাইকে তাদের অপরাধ সম্পর্কে বলা শুরু করলো। পুনমের মা, মামা-মামী সবাই ইতিমধ্যে বাইরে বেরিয়ে এসেছে। রাশেদের কুকীর্তি শুনে পুনমের মামা বললো,
-“বরের ভাই খারাপ বলে বর খারাপ হবে এমন কোনো কথা তো‌ নেই। রায়হানের এসবের সাথে সংযোগ আছে তার প্রমান কি?”

রাফিন ঠোঁট এলিয়ে হেঁসে বললো,
-“আপনি হলেন ঘরের শত্রু বিভীষণ টাইপের মানুষ। এক মূহুর্তের জন্য যদি ধরেও নেই যে রায়হান ছেলেটা ভালো তারপরও তো এখন কোনো কনেপক্ষই এ বিয়েতে রাজি হবে না। আগের হাল যেদিকে যায়, পেছনের টাও সেদিকেই যায়।
যাই হোক, আপনার সোনার ডিম পাড়া হাঁস মানে রায়হানও এই কুকর্মে যুক্ত আছে যা এক্ষুনি জানতে পারবেন। আর সমস্ত মেহমানদের উদ্দেশ্যে বলবো , আপনারা থাকুন আরো কিছুক্ষণ। বর-কনেকে দোয়া করে,খেয়ে তারপর যাবেন।”

পুনমের মামা ভ্রু কুঁচকে তাকালো।‌ উপস্থিত সকলেই একে অন্যের মুখ চাওয়াচাওয়ি করছে। এখানে কি হচ্ছে আর কি হবে কেউ ঠিকঠাক বুঝতে পারছে না। যেখানে বরও অপরাধী সেখানে আবার বর কনেকে দোয়া করবে কিভাবে তারা? তবে রাফিনের কথামতো কেউই বিয়ে বাড়ি ছেড়ে গেলো না।
সকলেই রাশেদের দিকে ঘৃনার দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। যদি এখানে পুলিশ না থাকতো তাহলে হয়তো গনপিটুনি দিয়েই মেরে ফেলতো সবাই।

রাশেদ হুংকার দিয়ে বললো,
-“আমাকে অ্যারেস্ট করেছেন কোন সাহসে? কি প্রমান আছে আমার বিরুদ্ধে আপনাদের কাছে? অ্যারেস্ট ওয়ারেন্ট দেখান।”

রাশেদের কথায় কেউ পাত্তা দিলো না।
কিছু সময়ের ব্যবধানে ডিআইজি স্যারের গাড়ি এসে থামলো পুনমদের বাড়ির সামনে। উর্বিন্তাও এসেছে বাবার সাথে। উর্বিন্তাকে দেখেই শান্ত বিন্দুকে নামিয়ে দিয়ে চুলে হাত দিয়ে স্টাইল করা শুরু করে দিয়েছে।
উর্বিন্তা সেদিকে তাকিয়ে মুচকি হাসলো।

রাফিন উর্বিন্তাকে দেখিয়ে রাশেদকে বললো,
-“এই মেয়েটাই তোমার বিরুদ্ধে প্রমান। প্রত্যক্ষদর্শী । তাছাড়া আরো প্রমান আছে।”
রাফিন উর্বিন্তার দিকে তাকালো এটুকু বলে। উর্বিন্তা হালকা হেঁসে নিজের ফোনটা বের করে রেকর্ডিং অন করে দিলো। সেদিন লোকেশন অন করার সাথে সাথে রেকর্ডিংও অন করে রেখেছিলো উর্বিন্তা। যার ফলশ্রুতিতে সেদিন রাশেদ, হেলাল উদ্দিন এবং আরো কয়েকজনের কন্ঠ স্পষ্ট ভাবে শোনা যাচ্ছে ভয়েস রেকর্ডারে। দুর্ভাগ্যবশত সেদিন রায়হান উপস্থিত ছিলো না তাই তার বিরুদ্ধে প্রমানের অভাব রয়ে গেছে।

ভয়েসে খুব ভালো ভাবে রাশেদের একটা কথা শোনা যাচ্ছে। সেটা হলো,
-“আমারে তো ওই ডিআইজি চিনে না। আমি রাশেদ হাসান। আমার সাথে টক্কর দিতে আসে। এবার নিজের মেয়ের চিন্তায় সবকিছু আওলায় যাবে বেচারার।”
রাশেদ চোখ বুজে ফেললো। এবার আর কোনোভাবেই নিজের পক্ষে বলার মতো কিছু খুঁজে পাচ্ছে না। সে এই মুহূর্তে উর্বিন্তার দিকে তাকিয়ে ভাবছে,’ আজকালকার পিচ্চিরাও কতটা অ্যাডভ্যান্স তা এই মেয়েকে না দেখলে জানা হতো না।’

প্রায় মিনিট দশেকের মাথায় তনিম রায়হানের কলার ধরে টানতে টানতে নিয়ে এলো। রায়হান দূর থেকেই বুঝতে পারলো তাদের খেল খতম। বড় ভাইয়ের হাতে হাতকড়া পরানো। তনিমের পেছনেই আসছে বিথী এবং শান। সবার শেষে বেশ ভাবসাব নিয়ে রুশান আসতেছে।
ভাইয়া আর রুশানকে দেখেই শান্ত ভ্রু কুঁচকে ফেললো।তার ভাইয়া আর রুশান ভাই কখন এলো? ও তো দেখতেই পেলো না। অদ্ভুত তো।
আর এসেছে তো এসেছে, এতো ড্যাশিং হয়ে আসার দরকার কি এই ছেলের? এখন তো সবাই ওকে ছেড়ে রুশানের দিকে তাকাবে।

রায়হানের হাতে অন্য একজন অফিসার হাতকড়া পরাতে গেলেই রাশেদ গর্জে উঠে বললো,
-“ওকে কেন অ্যারেস্ট করছেন? ওর বিরুদ্ধে কি প্রমান আছে?”
রুশান হো হো করে হেঁসে উঠলো। এগিয়ে এসে রাশেদের কাঁধে হাত রেখে বললো,
-“সব সময় এতো প্রমান প্রমান করেন কেন ভাই? আমরা হুদাই ধরে নিয়ে যাবো আপনার ভাইরে। কোনো সমস্যা?”

রুশানের হেঁয়ালি করে বলা কথায় গা জ্বলে উঠলো রাশেদের। রুশান রাশেদের কাঁধে ভর করে দাঁড়িয়ে রায়হানের দিকে তাকিয়ে বললো,
-“ভাইয়ের মতো তোমারও কি প্রমান দরকার? নাকি নিজেই সব কিছু স্বীকার করবা?”
রায়হান একদম নিশ্চুপ হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। ওর বিরুদ্ধে প্রমান পাক বা ওকে ফাঁসি দিক সেটা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই রায়হানের। তার সমস্যা পুনমকে নিয়ে। পুনমকে তার চাই। যেভাবেই হোক চাই।

রুশান বিথীর সামনে দাঁড়িয়ে বললো,
-“আপু প্রমানটা দেন।”
বিথী মুচকি হেঁসে চোখ থেকে চশমা খুলে রুশানের হাতে দিলো। রাশেদ ক্ষীপ্ত চোখে বিথীর দিকে তাকিয়ে আছে। এক্ষুনি যেন চিবিয়ে খাবে বিথীকে সে। দাঁত কিড়মিড় করে বললো,
-“চশমা? চশমা কিসের প্রমান?”
রুশান দাঁত বের করে হেঁসে বললো,
-“এটা যে সে চশমা না ব্রো, এটা স্পাই ক্যাম ওয়ালা চশমা।”

রুশান সব প্রমান ডিআইজি কে বুঝিয়ে দিলো। রাশেদ আর রায়হানকে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে গেলো। রায়হান একবার পেছনে তাকিয়ে তার চাচাতো ভাইকে কিছু ইশারা করলো। তারপর সোজা হেঁটে বেরিয়ে গেলো পুলিশের পিছু পিছু। এই ব্যাপারটা শান্ত ভালোভাবে খেয়াল করলো।
বরপক্ষের সবাই এক এক করে মাথা নিচু করে বেরিয়ে গেলো। পুনমের মামারও মাথা হেঁট হয়ে গেছে। এমন জঘন্য মন মানসিকতা এই ছেলের তা উনি জানতেন না। এখন নিজেকে বড্ড অপরাধী মনে হচ্ছে তার। টাকাওয়ালা ছেলের কাছে পুনম সুখে থাকবে ভেবেছিলেন তিনি। কিন্তু মেয়েটাকে নিজেই জাহান্নামের রাস্তায় ঠেলে দিচ্ছেন এটা ঘুনাক্ষরেও টের পাননি তিনি।

বরপক্ষ থেকে আসা শখানেক লোক বেরিয়ে যেতেই বিয়ে বাড়িটা বেশ ফাঁকা হয়ে গেলো।

রুমঝুম আর শাফিয়া বেগম পুনমকে ধরে বাইরে নিয়ে এলেন। পুনম আর শাফিয়া বেগম এতোক্ষণে রুমঝুমের কাছে সবটাই শুনেছে। শাফিয়া বেগম রুশান আর পুনমের সম্পর্কের কথাটাও জানলেন। পুনম তার জন্য এতো বড় ত্যাগ স্বীকার করছিলো ভেবেই মেয়েকে জড়িয়ে ধরে অনেকক্ষণ কাঁদলেন তিনি। রুমঝুম পুনম আর রুশানের বিয়ের জন্য প্রস্তাব রাখলো তখনই। শাফিয়া বেগম এবং আত্মীয়-স্বজন কেউই পুনম আর রুশানের বিয়ে নিয়ে মতবিরোধ করলেন না। ভালোবাসার পূর্ণতা পাক এটা তারাও চায়।
পুনম তো খুশিতে আত্মহারা হয়ে সেই তখন থেকেই কেঁদে চলেছে । পুনমের চোখে চোখ পড়তেই রুশান চোখ টিপে দিলো। পুনম কাঁদতে কাঁদতেই ফিক করে হেসে ফেললো।

রুমঝুম সবার দিকে তাকিয়ে বললো,
-“আমার বাবার প্রচুর অর্থবিত্ত থাকা সত্ত্বেও আমার আর আমার ভাইয়ের বিয়ে সাদামাটা ভাবে হয়েছিলো পরিস্থিতির চাপে। কিন্তু আমার ছোট ভাইয়ের বিয়ে এভাবে দিতে চাই না আমি। পুনম-রুশানের বিয়ে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়েই হবে। আপনারা সবাই সেখানে আমন্ত্রিত । আজ এই মূহুর্তেই ওদের দু’জনের এনগেজমেন্ট হবে। আগামী শুক্রবার বিয়ে। ওদের জন্য সবাই দোয়া করবেন।”

শান পুনমের মামার কাছে গিয়ে দাঁড়ালো। মৃদু হেঁসে বললো,
-“তা মামা, আপনার কিছু বলার আছে এখানে? আমার শালাকে নিয়ে কিছু বলতে চাইলে বলতে পারেন।”

পুনমের মামা মাথা নিচু করে ফেললেন। পাশ থেকে পুনমের মামী বললেন,
-“লোকটা এমনিতেই বেশ লজ্জা পেয়েছে বাবা‌। উনাকে আর লজ্জা দিয়ো না। তবে রুশান ছেলেটাকে ব্যাক্তিগত ভাবে আমার ভীষন পছন্দের। পিহুকের বিয়ের সময় থেকেই আমার ভালো‌ লাগে। আমার একটা মেয়ে থাকলে আমি রুশানকেই পছন্দ করতাম তার জন্য।”

পুনম অভিমানী কন্ঠে বললো,
-“আমি বুঝি তোমার মেয়ে নই, মামীমা।”
পুনমের মামী শব্দ করে হেঁসে বললেন,
-“হা হা পাগলী। তুই ই তো আমার মেয়ে।”

জিহাদ এক সাইডে নিরব দর্শকের মতো‌ দাঁড়িয়ে আছে। পুনমকে এই একবছর তাদের বাড়িতে ,তার আশেপাশে বারবার দেখতে দেখতে কখন যে পুনমের মায়ায় জড়িয়ে পরেছিলো তা সে টেরও পায়নি। তার গার্লফ্রেন্ড থাকা সত্ত্বেও কিভাবে যে এই মেয়েটার মায়ায় আটকে পড়েছে তা জিহাদ জানে না। যখন পুনমের বিয়ে ঠিক হয়েছে তখনই সে এই বিষয়টা অনুভব করতে পেরেছে। তবে বাবার ভয়ে এসব নিয়ে ভাবে নি জিহাদ। মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছে তার গার্লফ্রেন্ডকে ঠকাবে না সে‌। পুনমের বিয়ের পরই বিয়ে করে নিবে।
জিহাদ রুশানের দিকে একবার তাকালো। একদিন তার সাথে থেকেই জিহাদ বুঝেছে ছেলেটা অন্যরকম।‌ সবার থেকে আলাদা। ভীষণ ভালো আর বুদ্ধিমান একটা ছেলে। ধীর পায়ে হেঁটে পুনমের পাশে গিয়ে দাঁড়ালো জিহাদ।‌ ঠোঁটে হাঁসি টেনে বললো,
-“তুই অনেক ভাগ্যবতী পুনম। এজন্যই রুশানের মতো কাউকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাচ্ছিস।”
পুনম কিছু বললো না। বিনিময়ে শুধু একটু হাসলো।

ডিআইজি স্যার এগিয়ে এসে বললেন,
-“শুভ কাজে দেরি করতে নেই। আংটি বদল হয়ে যাক তাহলে?”
রুশান মাথা‌ নিচু করে হাসলো। পাশ থেকে তনিম বললো,
-“কি স্যার? লজ্জা লাগছে? সেদিন আমাকে দেখে তো খুব মজা নিলেন। আজ আমিও একটু নেই?”
রুশান চোখ পাকিয়ে তাকালো তনিমের দিকে। তনিম ঢোঁক গিলে এদিক ওদিক তাকিয়ে বললো,
-“আজকে আমি ভ..ভয় পাচ্ছিনা আপনাকে। একটুও না।”

রুশান হেঁসে উঠলো তনিমের কথায়। তারপর নিচু কন্ঠে বললো,
-“তোমার বউ তো এলো না। তাকে ছাড়াই তার বোনের এনগেজমেন্ট হয়ে যাবে ব্যাপারটা কেমন না?”
-“সে তো তার বোনের বিরহে দিনযাপন করছে স্যার। আপনাদের এনগেজমেন্টের ছবি তুলে তাকে পাঠাবো। দেখবো কেমন ঝটকা লাগে তার।”
রুশান আর তনিম দু’জনই হেঁসে উঠলো। তাদের হাসির মধ্যেই রুমঝুম এগিয়ে এসে রুশানের হাতে সকালের কেনা আংটিটা দিলো। ফিসফিস করে বললো,
-“যা এটা পুনমকে পরিয়ে দে।”
রুশান অবাক হয়ে বললো,
-“এটা তাহলে এই কারনে কিনেছিলে,আপু?”
রুমঝুম হেঁসে রুশানের মাথায় গাট্টা মেরে বললো,
-“তা কি আমার জন্য কিনেছি, ছাগল? যা এবার আংটি পড়া ওকে। অর্ধেক বউ বানিয়ে নে।”
রুশান মুচকি হেঁসে পুনমের কাছে গেলো।পুনমের চোখের দিকে তাকিয়ে বাম হাতটা ধরলো। সবার হাসিঠাট্টার মাঝেই রুশান আর পুনমের এনগেজমেন্ট সম্পন্ন হয়ে গেলো।

রুশানের এনগেজমেন্ট হওয়ার পরপরই ডিআইজি স্যার চলে গেলেন। উর্বিন্তা থেকে গেলো। তাকে রুশান বা তনিম পৌঁছে দিয়ে আসবে পরে।
এনগেজমেন্টের ঝামেলা শেষ হতেই সবাই খাওয়া-দাওয়া করতে বসে গেলো। একটু আগেই এবাড়িতে এত বড় একটা কান্ড ঘটে গেছে তা বোঝাই যাচ্ছে না। সবাই কত হাসিখুশি হয়ে ঘোরাফেরা করছে।

শান্ত নিঃশব্দে উর্বিন্তার পেছনে এসে দাঁড়ালো। ফিসফিসিয়ে বললো,
-“আমাদের কবে এনগেজমেন্ট হবে গো?সবার বিয়ে দেখে দেখে আমার এখন হিংসে হয়।”
উর্বিন্তা ভ্রু কুঁচকে শান্তর দিকে তাকালো। দাঁতে দাঁত চেপে বললো,
-” এখনো নাক টিপলে দুধ পড়ে আর উনি আসছে বিয়ে করতে। যা ভাগ। আগে বড় হ।”
বলেই মুখ ভেঙচি দিয়ে সামনে হেঁটে চলে গেলো উর্বিন্তা।

উর্বিন্তা চলে যেতেই শান্ত দুই আঙ্গুল দিয়ে নিজের নাক টিপে ধরলো। গরমে ঘেমে নাকের ডগায় জমা ঘামটা চলে এলো আঙুলের মাথায়। সেটা দেখে শান্ত উর্বিন্তার পেছনে ছুট লাগালো। উঁচু গলায় বললো,
-“আমার বিয়ের বয়স হয়েছে, উর্বি। দেখো আমার নাক টিপলে দুধ পড়ে না, ঘাম পড়ে।”

চলবে……

(ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। গল্প সম্পর্কে কিছু বলার‌ থাকলে বলতে পারেন।)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here