চন্দ্ররঙা_প্রেম_২ পর্বঃ১৭

0
145

চন্দ্ররঙা_প্রেম_২
পর্বঃ১৭
#আর্শিয়া_সেহের

সকাল থেকেই রুশানের বুকের মধ্যে ঢিপঢিপ করছে।‌ প্রেয়সীকে হারিয়ে ফেলার ভয়ে অন্তরাত্মা কেঁপে উঠছে বারবার। হাত-পা ও কেমন যেন অসাড় হয়ে আসছে।
এরই মধ্যে শান্ত হাজির হলো একগাদা জামাকাপড় নিয়ে। কোনটা রেখে কোনটা পড়বে বুঝতে পারছে না সে। সবগুলো কাপড় এনে বিছানায় ছড়িয়ে রাখলো।‌ রুশানকে ডেকে বললো,
-“রুশান ভাই দেখো তো এখানে কোনটা পড়লে আমাকে ভালো মানাবে।”

রুশান নিজের ভাবনা ফেলে বাইরে এলো। ভ্রু কুঁচকে শান্তর দিকে তাকিয়ে বললো,
-“তোর যেটা ভালো লাগে তুই সেটাই পড়।‌ তোকে সব কাপড়ে ভালো লাগে।”
শান্ত কোমরে হাত রেখে বললো,
-“ওহ রুশান ভাইয়া,তুমি প্লিজ বাঙালি মায়েদের মতো কথা বইলো না। কোনটা পড়বো বলো না প্লিজ।”
রুশান সব কাপড়ে একবার চোখ বুলিয়ে বললো,
-“ওখানে তো উর্বিন্তা আসবে না, তুই কাকে দেখাতে যাবি এতো ফিটফাট হয়ে?”

শান্ত মুখ বাঁকিয়ে বললো,
-“আমি কোনো মেয়েকে দেখাতে যাবো না বুঝছো? বিয়ে বাড়িতে এদিক ওদিক সবদিক দিয়ে ফটোশুট চলে সারাক্ষণ। কোথায় কার ক্যামেরায় বন্দী হয়ে যাবো টেরই পাবো না। সেই ছবি হয়তো তারা স্যোশাল মিডিয়াতে আপলোড করবে। কোনোভাবে সেই ছবি উর্বিন্তা দেখবে হয় তো। এজন্যই এতো পরিপাটি হয়ে যাবো বুঝেছো?”

রুশান একহাতে কপাল চাপড়ালো। এই ছেলের সবখানেই উর্বিন্তা থাকে। ওকে চাঁদে পাঠালে সেখানেও কোনোভাবে উর্বিন্তাকে জড়িয়ে ফেলবে। এই ছেলের মাথায় উদ্ভট চিন্তা ঘোরে সারাক্ষণ।
রুশান সব জামাকাপড়ের মধ্যে থেকে বেছে একটা অ্যাশ কালারের পাঞ্জাবি বের করে আনলো। দু’হাতে পাঞ্জাবিটা ধরে বললো,
-“তোর পুনম আপুর অ্যাশ কালার ভীষণ পছন্দ।”

শান্ত কিছুক্ষণ রুশানের দিকে তাকিয়ে থেকে সমস্ত জামাকাপড় দলা পাকিয়ে কোলে তুলে নিলো।‌ রুশানের হাত থেকে পাঞ্জাবিটা নিয়ে বললো,
-“এই ঘরে বসেই পুনম পুনম করো। আমি বিয়ে সাদি খেয়ে এসে গল্প শুনাবো তোমাকে।হুহ।”
শান্ত হনহন করে বেরিয়ে গেলো। রুশান মুচকি হাসলো শান্তর‌ যাওয়ার দিকে তাকিয়ে। ছেলেটা আসলেই পাগল।

সকাল প্রায় দশটা বেজে গেছে । রুশান ফ্রেশ হয়ে বেডে বসে তনিমের সাথে টুকটাক কথা বলছিলো। বিয়ে বাড়ির অলমোস্ট সব কাজ শেষ করে ফেলেছে তনিম। প্লানমাফিক বাড়ির পেছন দিকটা পুরোপুরি আঁটকে ফেলেছে। এখন রায়হান যাই করতে চায় সবটা বাড়ির সামনে থেকে করতে হবে। তনিম ফিসফিস করে বললো,
-“আমাদের পুরো প্ল্যানটা বিথী আপুর ড্রামার উপর নির্ভর করছে।‌ সে যত নিখুঁত ড্রামা করবে ততই প্ল্যান সাকসেসফুল হবার সম্ভাবনা বাড়বে।”

রুশান অনেকটা দম আটকানো কন্ঠে বললো,
-“আই উইশ সবটা ঠিকঠাক হোক। আমার সব..”
রুশানের কথা শেষ হওয়ার আগেই ফোনে ম্যাসেজ আসার মতো টুংটাং শব্দ হলো।‌ রুশান স্ক্রিনে দেখলো রুমঝুম হোয়াটসঅ্যাপ এ একটা ছবি পাঠিয়েছে। তনিমকে ফোন রাখতে বলে রুশান রুমঝুমের ইনবক্স সীন করলো। রুমঝুম বেশ সুন্দর একটা ডায়মন্ডের রিং এর ছবি পাঠিয়েছে। রুশান ছবিটা দেখার পরপরই রুমঝুম একটা টেক্সট পাঠালো,
-“আংটিটা পছন্দ হয়েছে তোর?”

রুশানের ভ্রু কুঁচকে গেলো। রুমঝুমকে টেক্সট করে লিখলো,
-“এটা তো মেয়েদের আংটি। আমি পছন্দ করে কি করবো।”
রুমঝুম সাথে সাথে হোয়াটসঅ্যাপ এ কল‌ করলো। রুশান রিসিভ করতেই বোনের বজ্রকণ্ঠ শুনতে পেলো,
-“তোকে জিজ্ঞেস করেছি পছন্দ হয়েছে কি না? তুই ওটা কেমন রিপ্লাই দিলি? সোজা উত্তর দিতে পারিস না?”

রুশান রুমঝুমের কথায় খানিকটা ভড়কে গেলো।‌ আমতাআমতা করে বললো,
-“আংটি টা খুব সুন্দর হয়েছে আপু। আমি তো চোখই ফেরাতে পারছি না।”
রুমঝুম ভাব নিয়ে বললো,
-“দেখতে হবে না পছন্দ টা কার? সেই নয়টা থেকে ঘুরতে ঘুরতে অবশেষে এটা পছন্দ হলো।”
রুশান হাসবে নাকি কাঁদবে বুঝতে পারছে না। একটা আংটির জন্য এক ঘন্টা সময় ,বাপ রে।
ক্ষীণ কন্ঠে বললো,
-“হ্যাঁ আপু, সময় নিয়ে কিনলে ভালো জিনিস পাওয়া যায়।”
-“হুম ঠিক ধরেছিস।‌ তোর দুলাভাই বোঝে না এই ব্যাপারটা।
যাই হোক শোন ,আমি,শান্ত আর বিথী আপু এখান থেকেই বিয়ে বাড়ি চলে যাচ্ছি‌। তোর দুলাভাই পরে আসবে বলছে। তুই সাবধানে আসিস। আর চিন্তা করবি না একদম। রাখছি এখন।”

রুমঝুম ফোন রাখার পর রুশান নিচে নেমে এলো। সাঁঝ আর ইমতিয়াজ মাহমুদ ড্রয়িং রুমে বসে টিভি দেখছে।‌ বিন্দুকে বিথী নিয়ে গেলেও সাঁঝকে নিয়ে যায় নি। কখন পরিস্থিতি কেমন হয়ে যাবে কেউ জানে না। এখানে বাচ্চাদের না নিয়ে যাওয়াই ভালো।

..

পুনমকে সাজিয়ে গুছিয়ে বসিয়ে রেখেছে ঘরে। একদম পুতুলের মতো লাগছে তাকে। পুনমের দৃষ্টি জানালার বাইরে। এই মূহুর্তে তার অনেক নিষিদ্ধ ইচ্ছা জাগছে মনে। পুনম খুব কষ্টে দমিয়ে রাখছে নিজেকে।
রুমঝুম বিথীকে নিয়ে পুনমের রুমে ঢুকলো। কারো আসার শব্দ পেয়ে পুনম মাথা ঘুরিয়ে দরজার দিকে তাকালো। রুমঝুমকে দেখে বিষ্ময়ে চোখ বড় বড় হয়ে গেলো পুনমের । সে কোনোভাবেই রুমঝুমকে আশা করেনি এখানে। কাঠ পুতুলের মতো বসে থাকা পুনম নড়েচড়ে উঠলো রুমঝুমকে দেখে।

রুমঝুম হেঁসে পুনমের পাশে গিয়ে বসলো। বিথীও বিন্দুকে কোলে নিয়ে খাটের এক কোণে গিয়ে বসলো। শান্ত দাঁত বের করে হাসতে হাসতে ভেতরে এলো। পুনম অবাকের পর অবাক হচ্ছে। এদের এতো খুশি হওয়ার কারন খুঁজে পাচ্ছে না সে।
শান্ত পুনমের সামনে দাঁড়িয়ে বললো,
-“ওয়াহ আপু,কি জোস লাগছে তোমাকে। আমার রুশান ভাই তো ফিদা হয়ে যেতো দেখলে।”
শান্তর কথা কানে পৌঁছাতেই পুনমের বুকের ভেতরটা জ্বালা করে উঠলো। কেঁপে উঠলো পুরো শরীর। চোখ দিয়ে অঝোর ধারায় বৃষ্টি নামলো।
রুমঝুম চোখ পাকিয়ে তাকালো শান্তর দিকে। শান্তও বুঝতে পারলো সে ভুল‌ যায়গায় ভুল কথা বলে ফেলেছে। সেকেন্ডের মাঝেই প্রায় ঝড়ের গতিতে বেরিয়ে গেলো সে।

রুমঝুম পুনমের মাথায় হাত বুলিয়ে দিলো। মুচকি হেঁসে বললো,
-“তুমি একদম মেঘার মতো পুনম। নিঃস্বার্থ ভাবে ভালোবাসো সবাইকে। সবাইকে ভালো রাখার জন্য নিজেকে উৎসর্গ করো। তোমার সাথে খারাপ কিচ্ছু হবে না দেখো। অনেক সুখী হবা তুমি।”
পুনম অশ্রুসিক্ত চোখে তাচ্ছিল্যের হাসি হাসলো। আর কিছুক্ষণ বাকি। তারপর তার ভালো থাকার কারন থেকে পুরোপুরি ছিন্ন হয়ে যাবে সে।

রুমঝুম পুনমকে ছেড়ে উঠে দাঁড়ালো। প্রায় সাড়ে বারোটা বেজে গেছে ইতোমধ্যে। ছেলেপক্ষ একটার মধ্যে চলে আসবে এমনটাই শুনেছে রুমঝুম। পুনমকে ছেড়ে বেরিয়ে এলো বাইরে। বিথীও রুমঝুমকে অনুসরণ করে বেরিয়ে এলো। দরজা অবধি এসে আবার পেছনে তাকালো। ফুলের মতো মেয়েটার প্রতি মায়া লাগছে তার। বিথী ভেবে নিয়েছে,যে করে হোক বাঁচাবে পুনমকে।

শান্ত বিন্দুর হাত ধরে পুরো বিয়ে বাড়িতে ঘুরে বেরাচ্ছে। কিছুক্ষণ আগেই বরযাত্রী এসেছে। বিথী আড়াল থেকে প্রত্যেকটা মানুষকে দেখেছে। চোখমুখে কাঠিন্য ধরে রেখে রুশানকে কল করে বললো,
-“শিকার দু’জনই এখানে আছে। বিন্দুকে নিয়ে ওদের সামনে ঘোরাফেরা করছে শান্ত। তুমি তাড়াতাড়ি চলে এসো।”

প্ল্যানমাফিক বিন্দুর হাত ধরে বরযাত্রীদের সামনে নিয়ে গেলো শান্ত। আঙুলের ইশারায় রায়হানকে দেখিয়ে বিন্দুর কানে কানে বললো,
-“ওই দেখো তোমার চাচ্চু।”
বিন্দু মাথা ঘুরিয়ে তাকালো। রায়হানকে দেখেই চোখেমুখে ভয় ভর করলো বিন্দুর। এতো টুকু বাচ্চা মেয়েও ওদের রুপ সম্পর্কে জানে। শান্ত বিন্দুর কানে কানে আবার বললো,
-“তুমি চাচ্চুর কোলে উঠে কান্না করবা আর বলবা আম্মুর কাছে যাবো। ঠিক আছে?”
বিন্দু কাঁদো কাঁদো গলায় বললো,
-“তাত্তু বালো না। আমাকে মাববে।”
(চাচ্চু ভালো না। আমাকে মারবে।)

শান্ত আশেপাশে চোখ বুলিয়ে বললো,
-“এই দেখো কত্ত মানুষ এখানে। চাচ্চু মারতে সাহসই পাবে না। আর আমি আছি তো এখানে। তোমাকে অনেক গুলো চকোলেট দিবো, চাচ্চুর কাছে যাও।”
চকোলেটের কথা শুনে বিন্দু হেঁসে উঠলো। সে আগে কখনোই চকোলেট খায়নি। শান্তদের বাড়িতে আসার পর সাঁঝের সাথে থেকে থেকে চকোলেট প্রিয় হয়ে উঠেছে তার। বিন্দু দৌড়ে চলে গেলো রায়হানের কাছে। সাথে সাথেই আড়ালে চলে গেলো শান্ত। তনিম সহ বাকি ছদ্মবেশী পুলিশেরা নজর রাখা শুরু করলো রায়হানের উপর।

-“তাত্তু,তাত্তু আম্মুল কাতে দাবো। নিয়ে তলো আমাকে।”
(চাচ্চু, চাচ্চু আম্মুর কাছে যাবো। নিয়ে চলো আমাকে।)
পরিচিত কন্ঠ শুনে রাশেদ-রায়হান দু’জনই চমকে তাকালো নিচের দিকে। বিন্দু রায়হানের পা ধরে দাঁড়িয়ে আছে। রাশেদের চোখ বেরিয়ে আসার উপক্রম। এই মেয়ে এখানে তার মানে বিথীও এখানে। রাশেদ মুখ লুকাতে ব্যস্ত হয়ে পড়লো। কেউ চিনতে পারলেই সর্বনাশ।

বিন্দু পেছন দিকে তাকিয়ে শান্তকে দেখতে পেলো না। তার আম্মুকেও দেখতে পাচ্ছে না । সাথে সাথেই কেঁদে উঠলো বিন্দু। রায়হান এদিক সেদিক তাকিয়ে দেখছে, বিথীকে দেখা যায় কি না। কয়েকজন তাদের দিকেই তাকিয়ে আছে। আত্মীয়-স্বজনের মধ্যে কেউই জানেনা বিন্দু রাশেদের মেয়ে আর বিথী জীবিত আছে। রাশেদের চাচি এগিয়ে এসে রায়হানকে বললো,
-“বাচ্চাটা কে? তোকে চাচ্চু ডাকছে কেন?”

রায়হান ইতিমধ্যে ঘেমে উঠেছে। চাচির দিকে তাকিয়ে মেকি হাঁসি দিয়ে বললো,
-“এটা তো বাচ্চা মেয়ে চাচি। হয়তো মা’কে খুঁজে পাচ্ছে না তাই কাঁদছে। দাঁড়াও আমি দেখছি।”
রায়হান বিন্দুকে কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে পড়লো। রাশেদের মুখের কাছে এগিয়ে গিয়ে বললো,
-“ভাবি এখানেই কোথাও আছে। যাও খুঁজো তাকে। আমাদেরকে দেখার আগেই মুখ বন্ধ করে দাও। কুইক ।”

রাশেদ রায়হানের কাঁধে হাত রেখে কিছু বলতে যাবে তখনই দেখলো সামনে বিথী হন্তদন্ত হয়ে কিছু খুঁজছে। সেকেন্ড ত্রিশের মাথায় বিথীর সাথে রাশেদের চোখাচোখি হয়ে গেলো।‌ বিথী চোখ বড় বড় করে ফেললো। এমন ভাব করলো যেন রাশেদকে এইমাত্রই দেখেছে আর দেখা মাত্রই তার পিলে চমকে উঠেছে। বিথী ভয়ার্ত চোখে তাকিয়ে উল্টো দিকে ছুট লাগালো। রায়হান রাশেদের দিকে তাকিয়ে বললো,
-“তাড়াতাড়ি যাও আর ওকে ধরো। কোনো গড়বড় যেন না হয়। আমি আমার কাঙ্ক্ষিত নারীকে পেতে এসেছি এখানে। কোনো ঝামেলা যেন না হয়। পুনমকে না পেলে আমি কিন্তু সব শেষ করে দিবো ভাইয়া।”

রাশেদ রায়হানের কোল‌ থেকে ছো মেরে বিন্দুকে নিয়ে নিলো। দাঁত কিড়মিড় করে বললো,
-“যা তুই গিয়ে ধর ওকে। এদিকটা আমি দেখতেছি। লুকিয়ে যা। আমি সামলে নিবো।”

রায়হান আশেপাশে পরখ করে দ্রুত পায়ে হেঁটে গেলো বিথীকে ধরার উদ্দেশ্যে। উত্তেজনায় সে আশেপাশে তাকে ধরার জন্য ওঁৎ পেতে থাকা লোকগুলোকে খেয়াল করতে পারলো না।
রায়হানকে ছুটতে দেখেই হাঁসি ফুটলো তনিমের মুখে। উল্টোদিকে ফিরে খুশিতে লাফিয়ে উঠে বললো,
-“ইয়েসসস… শিকার ফাঁদে পা দিয়েছে। এবার তোমারে বাঁচাবে কে,চান্দু?”

রায়হান লোকজনের আড়ালে চলে যেতেই পুলিশের লোকেরা ঘিরে ফেললো রাশেদকে। শান্ত কোত্থেকে যেন তৎক্ষণাৎ বেরিয়ে এলো। রাশেদের কোল থেকে‌ বিন্দুকে নিয়ে নিলো। বিন্দুর হাতে কয়েকটা চকোলেট দিয়ে বললো,
-“ওয়েল ডান পিচ্চি। নে খা , চকোলেট খা। যত পারিস খা। লাগলে দোকান খাইয়ে দিবো তোরে।”

চলবে…….

(রি-চেক দেইনি। ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here