ছদ্মবেশে লুকানো ভালোবাসা পর্ব ২০+২১

0
171

#ছদ্মবেশে_লুকানো_ভালোবাসা
#মৌমি_দত্ত
#পর্ব_২০

স্পন্দন হৈহল্লা করে সবে ঢুকেছে আফিমের বাসায়। আজকের নীরব দর্শক হওয়ার ভূমিকা পালন করছে জোসেফ ও লাবিবা। আফিমের বেলায় যেমন তারা চুপ ছিলো। তেমনি স্পন্দনের বেলায়ও চুপ। স্পন্দন ঢুকেই এগিয়ে গেলো সিড়ির দিকে। কেননা ওখান থেকেই নামছে আফিম। আফিম সবে শেষ সিড়িতে নেমেছিলো। তখনই স্পন্দন গিয়ে আফিমের শার্টের কলার খামচে ধরলো একহাতে। আফরা সবে সিড়ি বেয়ে নামছিলো। আফিমের দুই ধাপ উপরের সিড়িতে দাঁড়িয়ে পড়লো সে স্পন্দনের হাতের দিকে তাকিয়ে। স্পন্দন রাগ নিয়ে আফিমের পিছনে কে দাঁড়িয়ে আছে দেখতেই দেখতে পেলো আফরাকে,, তাও সম্পূর্ণ ঘরের কাপড়ে। একটা নীল টিশার্ট,, সাদা প্লাজো,, চুলগুলো দুইদিকে বেনুনি করে ঝুলানো। দেখতে পুরোই বাচ্চা লাগছে আফরাকে। আফরাকে দেখেই দিগবিদিক জ্ঞান ভুলে স্পন্দনের মুখে হাসি ফুঁটে উঠলো।
– লাভ ইউ মাই কুইন!!
আফরা একরাশ ভয় নিয়ে তাকিয়েছিলো। তার মধ্যে স্পন্দনের এমন কথা শুনে অবাক হলো। পরক্ষনেই লজ্জায় মাথা নুঁইয়ে ফেললো সে লাজুক হেসে। আর আফিম একবার ঘাড় ঘুড়িয়ে আফরাকে দেখছে আর আবারও সামনে স্পন্দনকে দেখছে। এটা একশন সিন চলছে নাকি রোমান্টিক সিন তা নিয়ে বেশ সন্দেহে আছে আফিম। তবুও স্পন্দনের মুখের সামনে তুড়ি বাজিয়ে গম্ভীর স্বরে বললো,,
– হেই ব্রো!! ও আমার বোন।
স্পন্দনের হুশ ফিরলো সে কি করছিলো এতোক্ষন কি করার পরিবর্তে। মূহুর্তেই রাগ নিয়ে আফিমের কলার খামচে বললো,,
– আর ইনায়াত আমার বোন!! ওর থেকে দূরে থাকবে আফিম। আমি নাহয়ন,,
স্পন্দনের পুরো কথা শেষ করতে না দিয়ে আফিম কলার থেকে ঝাঁকা দিয়ে হাত ছাড়িয়ে নিলো। এরপর শক্ত মুখে বললো,,
– ঠিক আছে। আমার বোনের থেকে দূরে থাকবে তুমি। আর আমি তোমার বোনের থেকে দূরে থাকবো।
কথাটা শুনেই যেন আকাশ থেকে পড়লো স্পন্দন। আফরাও পিছনে চমকে তাকালো আফিমের দিকে। পরক্ষনেই স্পন্দন দুইহাত নিজের পকেটে গুঁজে বললো,,
– আমি ভালোবাসি আফরাকে।
আফিম এতোক্ষনে স্পন্দনকে বাগে পেয়ে বিজয়ীর হাসি হাসলো। সেও বুকের কাছে হাত ভাঁজ করে বললো,,
– আমিও ভালোবাসি ইনায়াতকে।
কামাল এতোক্ষন সবটাই দেখছিলো আফিম ও স্পন্দনের ঝগড়া। আবার পিছনে লাবিবা ও জোসেফের রিয়েকশনও খেয়াল করছিলো তারা। স্পন্দনের ভালোবাসি শুনে লাবিবা আর জোসেফের দাঁড়িয়ে পড়া দেখে বুঝলো বিষয়টা তারা ভালো ভাবে নেয়নি। স্যারের অতি ভক্ত কামাল দ্রুত পিছন থেকে এসে স্পন্দনের কানে কানে বললো,,
– স্যার!! কি করছেন?? আপনার শ্বশুর শাশুড়ি এখানে। তারা কিভাবে দাঁড়িয়ে আছেন অবাক হয়ে আপনার কথা শুনে দেখুন একবার।
স্পন্দনের এতোক্ষনে হুশ হলো সোফায় কাওকে বসা দেখেছিলো। স্পন্দন ধীর গতিতে ঘাড় ঘুরিয়ে দেখলো জোসেফ আর লাবিবার দিকে। জোসেফ আর লাবিবার ভ্রু কুঁচকে তাকিয়ে থাকা দেখে চোখ বন্ধ করে নিজেকেই নিজে শক্ত দুটো গালি শুনালো স্পন্দন। তারপর ধীর পায়ে এগিয়ে গেলো জোসেফ ও লাবিবার দিকে।
– আপনাদের সাথে কথা ছিলো আংকেল,, আন্টি।
জোসেফ ও লাবিবা বসলো সোফায়। ইশারায় বসতে বললো স্পন্দনকে। আফিমও এসে পাত্রীর বড় ভাই হিসেবে ঠাঁট বাঁট নিয়ে বসলো। আফরাকে হাতের ইশারায় কাছে ডাকলো আফিম। আফরা মাথা নাড়িয়ে আসবে না জানালো। আফিম চোখ ছোট ছোট করে তাকাতেই সুড়সুড় করে এসে আফিমের পাশে মাথা নিচু করে চুপটি করে বসে পড়লো আফরা।

– আংকেল আন্টি!! আমি আপনার ছোট মেয়েকে ভালোবাসি। আমি ওকে বিয়ে করতে চাই।
শয়তানি হেসে স্পন্দন আফিমের দিকে আড়চোখে তাকিয়ে বললো। আফিমও উত্তরে বাঁকা হাসলো। যা দেখে ভ্রু কুঁচকে এলো সন্দেহে স্পন্দনের।
– তোমার সম্পর্কে জানা নেই এমন তো কিছুই নেই আশা করছি। পাত্র হিসেবে সবাই চাইবে তোমাকে। আমাদের আপত্তি নেই কোন। তোমার পরিবারকে নিয়ে বিয়ের পাকা কথা বলতে এসো সময় করে। বিয়ে তো এখনই হচ্ছে না। আফরা পড়াশোনা শেষ করুক,, তারপর নাহয়!!
জোসেফের কথা শুনেই করল্লা খাওয়ার অভিজ্ঞতা হয়ে গেলো স্পন্দনের। জোসেফ খুব সহজেই মেনে নিয়েছে বলে সবে বিজয়ী হাসি হাসতে শুরু করেছিলো। তখনই বিয়ে এখন হবে না শুনে স্পন্দনের অবস্থা প্লাস্টিক। স্পন্দন হালকা কেশে বললো,,
– না মানে পরিবার বলতে আমার একমাত্র ছোট বোন ইনায়াত ছাড়া রক্তের সম্পর্কে আর কেও না। আর আছে এই কামাল। এই দুজন ছাড়া তো আমার কেও নেই আংকেল। আর আফরার পড়াশোনা নিয়ে আমি সমস্যা করবো না। আমি নিজেও একজন ডাক্তার,, বাবার রেখে যাওয়া বিজনেস সামাল দিচ্ছি। সেই হিসেবে পড়ালেখার মূল্য তো বুঝিই। তাই বিয়ে এখন করতে সমস্যা তো নেই। তাই না??
মিনমিনিয়ে উত্তর দিলো স্পন্দন। দৃষ্টি তার আফরার দিকে নিবদ্ধ। স্পন্দনের কথা শুনে লজ্জায় ক্রমশ লাল হচ্ছে আফরা। জোসেফ আর লাবিবা কিংবা আফরা খেয়াল না করলেও আফিম খেয়াল করেছে স্পন্দনের কথা। ইনায়াতের সাথে রক্তের সম্পর্ক কথাটা শুনেই দাঁড়িয়ে পড়লো আফিম।
– ইনায়াত আপনার রক্তের সম্পর্কের কিভাবে বোন হয় বলবেন প্লিজ মিস্টার স্পন্দন?? ইনায়াত তো ইরশাদ মির্জার একমাত্র সন্তান,, তাই না??
আফিমের প্রশ্ন শুনেই টনক নড়লো স্পন্দনের। একবার কামালের দিকে তাকাতেই কামাল শুকনো ঢোক গিলে মোবাইল উলটো করে ধরে কলে কথা বলার নাটক করে ঘরের কোণায় চলে গেলো। স্পন্দন অসহায় মুখ করে একবার আফরার দিকে তাকাতেই দেখলো লজ্জা ভুলে সন্দেহপূর্ন চোখ নিয়ে তাকিয়ে আছে আফরা। লাবিবা আর জোসেফও অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে। স্পন্দন চোখ বন্ধ করে বললো,,
– আমি ইনায়াতের ভাই। আমাদের রক্তের সম্পর্ক আছে।
কথাটা শুনে কুঞ্চিত ভ্রু আরো খানিকটা কুঁচকে এলো আফিমের। ধীর গতিতে নিজের জায়গায় বসে বললো,,
– আমরা শুনছি মিস্টার স্পন্দন।
স্পন্দন একবার আফরার দিকে তাকালো। তারপর বলতে শুরু করলো।
– আমার বাবা মিস্টার হাবিব আজাদ ছিলেন একজন ব্যবসায়ী। ভালো মানুষ হিসেবে সবার কাছে সারাটা জীবন শ্রদ্ধা ও সম্মান পেয়ে এসেছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ সময়ে ভাগ্যে তা জুটলো না। আমার মা মহুয়া আজাদও একজন বড়লোকেরই মেয়ে ছিলেন। তা ছাড়াও বাবা আমার মাকে অনেক ভালোবাসতেন। তাই নিজের অনেকটা সম্পত্তিই আমার মায়ের নামে করে দিয়েছিলেন। তবে কাজে ব্যস্ত থাকা বাবা হয়তো জানতেনও না যে মা হওয়ার যোগ্যতা ছিলো না ঐ মহিলার। সংসারে মন ছিলো না মায়ের। ডিস্কো,, পার্টি,, নাইট ক্লাব নিয়ে পড়ে থাকতেন। সেভাবেই পরিচয় ইরশাদ মির্জার সাথে। মায়ের মতো মানুষের সাথে ছলনা করে ভালোবাসার মিথ্যে পট্টি পড়িয়ে দিলো আমার মায়ের চোখে। এতোটাই ভালোবাসার নাটক করেছে সে যে আমার মা,, আমাকে দশ বছর বয়সী থাকতে ফেলে ইরশাদ মির্জার হাত ধরে চলে যান।
এটুকু বলেই থামলো স্পন্দন। এতোবছরে এই কথাগুলো কামাল ছাড়া আর কাওকে জানায়নি সে। কথাগুলো উঠলেই পুরনো ঘা,, ক্ষত তাজা হয়ে যায় স্পন্দনের। আফিমের সম্পূর্ন মনোযোগ স্পন্দনের কথায়। আফরার চোখে জল। তাকেও তো তার ভাইয়েরা নিতে অস্বীকার করেছিলো। কিন্তু আল্লাহ সহায় ছিলো বলে আফিমের এতো ভালো পরিবার আপন করে নিয়েছিলো তাকে।
– আমার মা তখন কন্সিভ করেছিলেন। ভালোবাসা,, নতুন সংসার সাজানোর স্বপ্ন,, সব কিছু মিলিয়ে মা বাচ্চাটাকে নষ্ট করতে চাইলো না। ইরশাদ মির্জার নজর ছিলো মায়ের সম্পত্তিতে। তাই ভালো মানুষীর নাটক করে ইরশাদ মির্জাও বাচ্চাটাকে নিয়ে কিছু বললো না। এদিকে যখন ওরা সংসার সাজাচ্ছিলো। অন্যদিকে আমার বাবা এতো বড় আঘাত,, অপমান সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করলেন।
আফিম ততোক্ষনে ইশারায় দীপকে পানি নিয়ে আসতে বলেছে। দীপ পানি আর খাবার সাজিয়ে নিয়ে আসলো আর রাখলো স্পন্দনের সামনে টেবিলে।
– কামাল!! নাম ধরেই ডাকছি ছোট বলে। কিছু মনে করো না। এসো,, বসো।
লাবিবা ডাকলো কামালকে। স্পন্দনের দিকে তাকাতে স্পন্দনও ইশারায় ডাকলো। কামাল এসে একটা চেয়ারে বসলো। আফিম এক গ্লাস জল নিয়ে স্পন্দনের পাশে বসে এগিয়ে দিলো গ্লাস।
– এই নিন!! জল পান করুন,, ভালো লাগবে।
স্পন্দন মাথা তুলে একবার তাকালো আফিমের দিকে। সেকেন্ড পর গ্লাসটা নিয়ে কয়েক ঢোক জল পান করলো।
– মায়ের সাথে বিয়ের পরেও বাইরে হাজারটা মেয়ের সাথে সম্পর্ক ছিলো ইরশাদের। মা কোনভাবে জানতে পেরেছিলেন। তাই মা আমার সাথে যোগাযোগ করবার চেষ্টা করতেন। কিন্তু আমি মায়ের উপর রাগ ছিলো বলে যোগাযোগ করিনি। ইনায়াত জন্ম নিলো তখন। বোনকে দূর থেকে দেখেছি। বোনের শখ ছোট থেকেই ছিলো। তাই মায়ের প্রতি রাগ,, অভিমান বোনকে ছুঁতে পারেনি। ইনায়াতের তখন দেড় বছর বয়স একদিন ভালো মানুষীর মুখোশ পড়ে ঘরে ফিরলো ইরশাদ। মায়ের আর উনার তুমুল ঝগড়া হলো। ঝগড়ার একপর্যায়ে মাকে ছাদ থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিলেন উনি। পরমূহুর্তেই নিজের হাতে খুন হয়ে গেছে বুঝতে পেরে ছক কষে নিলেন নিজেকে বাঁচানোর। আমার দেড় বছর বয়সী বাচ্চা বোনটার মাথায় পাথর দিয়ে আঘাত করে কোলে তুলে নিলেন। এরপর এম্ব্যুলেন্স থেকে শুরু করে সব নিয়ম পালন করলেন। পুরো সমাজ তার মিথ্যে চোখের জল দেখে তার দিকে আঙ্গুল তুললো না। কেননা সে বলেছে,, মেয়েকে ছাদে নিয়ে হাঁটার সময় পা পিছলে মেয়েকে সহ নিয়ে পড়ে গেছেন মহুয়া। আমার ছোট্ট বোন ইনায়াতকেও মেরেই ফেলতো। যদি না ঝগড়ার একপর্যায়ে মায়ের মুখে জানতে পারতো যে সব সম্পত্তি ইনায়াতের নামে করে দেওয়া হয়েছে যা ১৮ বছর হয়ে গেলে ইনায়াত পাবে। তাই তো ইরশাদ মির্জা এতোগুলো বছর বাঁচিয়ে রেখেছে আমার বোনটাকে।
স্পন্দন হাত মুঠো করে ফেললো রাগে। আফিমের মুখে ভয়ের ছাপ ভালোবাসার মানুষটিকে হারানোর।
– স্পন্দন!! তোমার কাছে কি প্রমাণ আছে এর কোন??
স্পন্দন আফিমের প্রশ্নে ভ্রু কুঁচকে তাকালো।
– এটা রাগার বা বিরক্ত হওয়ার সময় না স্পন্দন। প্রমাণ থাকলে আমাদের ইনায়াতকে যতো দ্রুত সম্ভব জানাতে হবে সবটা। ওর কোন আইডিয়া নেই এসব নিয়ে। তাই ওর রিস্কও কম না।
স্পন্দনের মুখেও ভয়ের ছাপ। তবে আফিমকে যে সে মেনে নিয়েছে তা মনে হয় না!!
.
.
ইনায়াতকেও গার্ডরা বেহুশ অবস্থায় ফেলে রেখে গেছে একটা রুমের খাটে। ঐ একই রুমের খাটেই পড়ে আছে রুহি। জনের লোভাতুর দৃষ্টি সুন্দরী দুই মেয়ের দিকে। ইরশাদ এসে জনের হাতে হাত রাখলো।
– একটু সবুর করো জন। দুটোই তোমার খাদ্য!!
জন বিচ্ছিরি এক হাসি দিলো। নিজের বিজয়ের গর্ব ধরে রাখতে ইরশাদ কল করলো তাহজিবকে। পুরো শহরে মানুষ লাগিয়েছে তাহজিব। রুহিকে পাওয়া যাচ্ছে না জানার পর থেকে সে বাসায় ঢুকেনি আর। এখন রাতের প্রায় সাড়ে দশটা। এখনো সে বাইরে বাইরে ঘুরছে উন্মাদের মতো। এমন সময় ইরশাদের কল পেয়ে গাড়ি থামালো। পাশেই বসে থাকা আসিফও তাকালো তাহজিবের দিকে। তাহজিব দ্রুত কল রিসিভ করলো।
– হ্যালো!!
– হ্যালো মিস্টার তাহজিব!! আপনার জন্য আরেকটা সুখবর!! আপনার দ্বিতীয় মেহবুবা রুহি তো আমার কাছে ছিলোই। এখন প্রথন মেহবুবা ইনায়াতও আমার হাতের মুঠোয় বন্দি। রুহি নাহয় আমাকে নিয়ে সবটা আপনার কাছে জেনেছে। কিন্তু ইনায়াতের সাথে যোগাযোগ ছিলো না রানার বা আমার। তাই কিছুই জানেনা। এখন শুধু অপেক্ষা ওর হুশ ফিরবার। হুশ ফিরলেই ভালো বাবা সেজে সাইন করিয়ে নেবো আমি পেপারস এ। এরপর ইনায়াত আর রুহি হবে আমার তরফ থেকে আমার বন্ধুর জন্য গিফট!!
এই বলেই কল কেটে অট্টআসি হাসতে লাগলো ইরশাদ আর পাশে থাকা জন। অপরদিকে হাত পা ঠান্ডা হয়ে এসেছে তাহজিবের। ফোনটা নিয়ে ভয়ে ছুড়ে মারলো। এখনো কানে বাজছে ইরশাদের কথা। সে কি তাহলে ব্যর্থ ইনায়াত ও রুহিকে বাঁচাতে??
আসিফ এতোক্ষন ফোনে কথা বলছিলো কারোর সাথে গাড়ির থেকে নেমে । কল কেটেই এসে দেখলো পিচঢালা রাস্তায় বসে আছে তাহজিব আর ফোনটা ভেঙ্গে পড়ে আছে।
– কি হয়েছে স্যার??
তাহজিব শান্ত দৃষ্টিতেই রাস্তার দিকে তাকিয়ে ইরশাদের বলা সবটা বললো। অজানা আশংকায় বুক কেঁপে উঠলো আসিফের।
– স্যার!! আই থিংক আমাদের এস.এ’র সাহায্য নেওয়া উচিত।
তাহজিব ভ্রু কুঁচকে তাকালো আসিফের দিকে।
– এস.এ?? সে কেন আমাদের সাহায্য করবে??
– স্যার!! সাহায্য আগে চেয়ে তো দেখি। কেননা রানার মৃত্যুটা নিয়ে সব ধরনের তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছিলাম আমি। সিসিটিভি ফুটেজ থেকে কিছু না পেলেও সন্দেহ হচ্ছিলো কিছু তো হয়েছে। নাহয় ইরশাদ নিজের ভক্ত রানাকে মারার কথা না,, আর নিদ্রাহীন রাত কাটানো আপনিও গভীর ঘুমে অচেতন থাকার কথা না। তাই আমি সবদিকে লোক লাগিয়ে রেখেছিলাম। একটু আগেই একজন খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা ক্লু দিলো। এস.এ সেদিন আমার বাসার রুটেই এসেছিলো গাড়ি নিয়ে। আবার ঐ রুটেই ব্যাক করেছে। আর,,
তাহজিবের ভ্রু কুঁচকে এলো। মাথার চুল খামচে ধরে বললো,,
– কিন্তু এস.এ অনেক মেয়েবাজ। কোনভাবে যদি রুহি বা ইনায়াতের উপর চোখ পড়ে!!!
তাহজিবের কথা শুনেই আসিফ বললো,,
– স্যার!! এটাই তো কথা। এস.এ’র ঘরে আমি গত বেশ কয়েক সপ্তাহ নজর রাখিয়েছি। এস.এ এসেছিলো খবরটা হাওয়ায় ভেসে আমার কানে আগে এসছিলো। আজকে জাস্ট শিউর হলাম। কানে আসতেই নজর রাখালাম আমি। তখনই জানতে পারলাম,, আসলে সে মেয়েবাজ না। সবটাই মেয়েদের দূরে রাখবার জন্য গুজব ছড়ানো।
তাহজিব যেন আশার আলো দেখলো। উঠে দাঁড়িয়ে বললো,,
– এস.এ’র সাহায্য নিতে হবে আমাদের।
আসিফ আর তাহজিব উঠে বসলো গাড়িতে।

সামনে এবার কি হবে?? জানতে হলে সাথে থাকুন,, পাশে থাকুন। আর হ্যাঁ কমেন্ট করতে ভুলবেন না যেন।
#ছদ্মবেশে_লুকানো_ভালোবাসা
#মৌমি_দত্ত
#পর্ব_২১

স্পন্দন উঠে দাঁড়ালো। কামালও বসকে দেখে উঠে দাঁড়ালো।
– জানিনা আমার সবটা জানার পর আপনারা আমাকে নিজের মেয়ের জন্য যোগ্য মনে করবেন কিনা। তবে আফরাকে আমি ভালোবাসি। আর ওকে পেতেও চাই। তবে আমার যেহেতু পরিবার নেই সেহেতু ওকে ওর পরিবার সহ পেতে চাই। এমনিই না।
স্পন্দনের কথা শুনে মৃদু হাসলো লাবিবা আর জোসেফ। তারা উঠে দাঁড়ালো।
– আমাদের বিয়ে নিয়ে অমত নেই কোনো।
লাবিবার মিষ্টি হেসে বললো। জোসেফও হেসে তাল মিলিয়ে বললো,,
– ইনায়াতকে নিজের সত্য জানিয়ে সবটা ঠিক করে নাও। এরপর ভালো সময় দেখে ধুমধাম করে আমার মেয়ের বিয়ে দেবো।
স্পন্দন মাথা ঝাঁকিয়ে হাসলো। আর আফরা লজ্জায় মাথা নিচু করে আছে। ভেবেছিলো কেলেংকারি হবে। এখন তো বিয়েই পাঁকা হয়ে গেলো। দীপ মিষ্টি সার্ভ করলো। সবাই মিষ্টি মুখ করলো। এরপরে স্পন্দন বের হয়ে এলো বাসা থেকে। কামালও ফলো করলো তার বসকে। লাবিবা আর জোসেফ কথা বলছিলো। আফরা নিজের রুমে চলে গেছে। তাই সুযোগ বুঝে আফিমও বের হয়ে আসলো স্পন্দনের পিছু পিছু। স্পন্দন গাড়ির কাছে এসে দরজায় হাত লাগিয়েছে মাত্র খুলবার জন্য। তখনই ডাক দিলো আফিম,,
– মিস্টার স্পন্দন !!
পিছু ফিরে ভ্রু কুঁচকে তাকালো স্পন্দন আফিমের দিকে। আফিম এসে জড়িয়ে ধরলো স্পন্দনকে।
– এখন তো আপনি আমার বোন জামাই হবেন
আর তাছাড়াও আমরা অন্য আরো একটা সম্পর্কেও আবদ্ধ হতে চলেছি। দুজনেই দুজনের বোনজামাই,,,
আফিমের কথা পুরো বলতে না দিয়ে তুড়ি বাজালো স্পন্দন আফিমের মুখের সামনে।
– এক্সকিউজ মি!! স্বপ্ন দেখা ভালো। কিন্তু সীমার বাইরে না।
আফিমের ভ্রু কুঁচকে এলো।
– মানে??
আফিমের প্রশ্নে বাঁকা হাসলো স্পন্দন। আফিমের শার্টের কলার খুলে নিজেই ঠিক করতে করতে বলতে লাগলো।
– আফিম!! তোমার বোনের সাথে আমার বিয়ে পাকাপাকি হয়েছে। কিন্তু আমি আমার বোনের সাথে তোমাকে কখনোই মেনে নিবো না। মাই সিস্টার ডিজার্ভস সামথিং বেস্ট!!
আফিম স্পন্দনের কথা শুনে হো হো করে হেসে উঠলো। স্পন্দন ভ্রু কুঁচকে তাকালো। আফিম স্পন্দনের কাঁধে একটা হাত রেখে বললো,,
– ডিয়ার বোন জামাই!! তেরা বেহেন মেরা হে,,, অর মেরা বেহেন তেরা। ওকে?? আফরা তোমার তখনই হবে। যখন ইনায়াত আমার হবে। আমাদের বিয়ে একই দিনে হবে,, একই জায়গায়,, একই কাজীর কাছে হবে।
স্পন্দন আফিমের কলার খামচে ধরলো। তখনই আফিম বাঁকা হেসে উপরের দিকে তাকালো যেখানে আফরার ব্যালকনিতে আফরাকে দেখা যাচ্ছিলো। স্পন্দনও উপরে তাকাতেই আফরাকে দেখে অবাক হলো। দ্রুত আফিমের কলার ছেড়ে দিলো। গিয়ে গাড়ির দরজা খুলে উঠে বসলো গাড়িতে। স্পন্দন গাড়ির দরজা লাগাতে যাবে,, তখনই আফিম আটকে দিলো। ঝুঁকে স্পন্দনের চোখে চোখ রেখে বললো,,
– তোমার পাস্ট লাইফ ছিলো আর আমারও। তোমারটা শুনে যেমন ভুল ধারণা শেষ হয়েছে,, আমারটাও জেনে নিও। আমি কালকে দেখা কর‍তে চাই তোমার সাথে। ব্ল্যাক ডে ক্যাফেটেরিয়া,,, ১০ টায়।
আফিম এটুকু বলেই ট্রাউজারের পকেটে হাত গুঁজে সড়ে এলো গাড়ি থেকে। কামাল এতোক্ষন সবটাই শুনেছে।
– স্যার?? গাড়ি স্টার্ট করবো??
স্পন্দনকে আনমনা হয়ে বসে থাকতে দেখে জিজ্ঞেস করলো কামাল। স্পন্দন হুশে ফিরলো। ” হুম ” বলে সম্মতি জানিয়ে আবারও ভাবনায় ডুবে গেলো। সারা রাস্তা আনমনা ছিলো স্পন্দন। শুধু একবার ছোট্ট করে কামালকে বলেছে,, ” কামাল!! আফিমের ফুল লাইফ হিস্টোরি আমার চাই “। কামালও মাথা নাড়িয়ে সায় দিয়েছে।
.
.
তাহজিব বাসায় ফিরেছে একপ্রকার আসিফের সাথে ঝগড়ায় হেরে৷ তাহজিবের উন্মাদ অবস্থা দেখে সহ্য হচ্ছিলো না আসিফের। তাই ধরে বেঁধে বাসায় এনেছে। তাহজিব নিজের রুমে খাটে বসে আছে। রুমটা এখনো গোছানো। আজকে সকালেই তো রুহি গুছিয়েছিলো। তাহজিব চোখ বন্ধ করে ফেললো। রুহিকে ছাড়া এই ঘরে শ্বাস বন্ধ লাগছে তার। আসিফ ট্রেতে করে খাবার নিয়ে আসলো। তাহজিবকে এভাবে দেখে ছোট্ট একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে রুমে প্রবেশ করলো।
– স্যার!! খেয়ে নিন প্লিজ।
আসিফের কথায় চোখ খুললো তাহজিব। তাহজিবকে এই একদিনেই খুব ক্লান্ত আর অসহায় লাগছে।
– জানো আসিফ!! মানুষ হাতের কাছে সৌভাগ্য পেয়েও চিনেনা। বোকামি করে অনেক।
– আর যখন হারিয়ে যায় তখন হা হুতাশ করে স্যার।
আসিফের কথা শুনে মৃদু হাসলো তাহজিব।
– আমি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি আসিফ।
আসিফ ভ্রু কুঁচকে তাকালো তাহজিবের দিকে। তাহজিব হাসিমুখে বললো,,
– রুহির সাথে বিদেশে আমি যাবো। আফটার অল,, বৌয়ের সেবা করে স্বামীর ধর্ম।
আসিফ চমকে তাকালো তাহজিবের দিকে। নেহায়েত হাতের ট্রে সে রেখে দিয়েছে। নাহয় এই চমক সহ্য করতে না পেরে তা মাটিতেই গড়াগড়ি খেতো। তাহজিব মুচকি হেসে বললো,,
– রুহি আমাকে পাগলের মতো ভালোবাসে। আমার ইনায়াতের পিছনে ছুটা একদম বেমানান। ইনায়াত আমাকে ভালোবাসতে পারবে কিনা তা আমি জানিনা। তাহলে কিসের ভরসায় আমি রুহির ভালোবাসা হারাবো??
তাহজিবের কথা শুনে খুব খুশী হলো আসিফ। তাহজিব বললো,,
– আমার এই ঘর,, আমার ডেইলি লাইফ,, আমার সবকিছু রুহিতে আটকে গেছে। ইনায়াতের দায়িত্ব আমি যখন নিয়েছি তাকে ইরশাদের থেকে বাঁচানোর,, আমি বাঁচাবোই। তবে এরপর আমি রুহিকে নিয়ে এখান থেকে দূরে চলে যাবো। একটা হাসিখুশী জীবন চাই আমি রুহিকে নিয়ে।
আসিফ খুশীমনে বের হয়ে এলো তাহজিবের রুম থেকে। আল্লাহ যা করে তার মধ্যে ভালো লুকানোই থাকে। রুহির হারিয়ে যাওয়াতে তাহজিব বুঝলো রুহির মূল্য৷ এখন আল্লাহ যেন রুহিকে ও ইনায়াতকে সেফ রাখে সেই দোয়া করছে আসিফ মনে মনে।
.
.
জনাথন নিজের সব ফোর্স এক জায়গায় করছে। কেননা এস.একে নিয়ে তার ভালোই ধারনা আছে। ছেলেটা সব ভন্ডুল করে দেয় বারবার। এবার দেখা হলে এস.একে মাত দিতে চায় জনাথন। তবে ভবিষ্যত কেই বা জানে?? আফসোস যেই জানুক না কেন!! জনাথন জানেনা। তাই তো এতো বৃথা চেষ্টা সে করছে। ইরশাদ বন্ধুর সব আয়োজন দেখে খুব খুশী। একটু বাদেই হুশ ফিরবে রুহির। তারও অনেকটা সময় বাদে হুশ ফিরবে ইনায়াতের। আর ইনায়াতের হুশ ফিরবার জন্যই অপেক্ষা করছে ইরশাদ অধীর আগ্রহে।
.
.
আফরার বাসা থেকে আসার পর চিন্তিত হয়ে আছে স্পন্দন। ইনায়াতকে সে বেশ অনেকটা বার কল করেছে। কিন্তু ইনায়াত একটা কলও রিসিভ করেনি। ইনায়াত আগে কখনো স্পন্দনের কল রিসিভ না করে থাকেনি। তাই চিন্তায় আছে স্পন্দন। কামাল যদিও স্পন্দনকে বলেছে যে ইনায়াত ঘুমিয়ে পড়েছে। তবে কেন যেন স্পন্দনের মন মানছে না। নেহায়েত রাত হয়েছে। নাহয় সে নিজেই গিয়ে টপকাতো ইনায়াতের কাছে।
তবে আফিম স্পন্দনের থেকে দুই ধাপ এগিয়ে। স্পন্দনকে বিদায় দিয়েই কল দিয়েছিলো ইনায়াতকে। প্রায় ২১২ টা কল করবার পরেও যখন ইনায়াত ধরেনি তখন নিজেকে আটকে রাখতে পারলো না আফিম। আফিম ভেবেই নিলো ইনায়াত রেগে আছে তার উপর ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ করাতে। তাই আফিম প্রেমিক সেজে ইনায়াতের বাসায় পৌছে গেলো রাতের ১২ টায়। সিড়ি বেয়ে ছাদে উঠে কাঁচের বাসাটায় গেলো। দরজা খোলা দেখে বুক কেঁপে উঠলো আফিমের। এতো রাতে দরজা খোলা কেন?? দরজা ঠেলে ঘরের ভেতর ঢুকলো আফিম। সবটাই কেমন যেন অস্বাভাবিক। আফিম জোড়ে জোড়ে ইনায়াতের নাম ধরে ডাকলো। কিন্তু কোন সাড়া পেলো না। সবগুলো রুম,, ওয়াসরুম চেক করেও যখন ইনায়াতকে পেলো না। তখন বুক কেঁপে উঠলো আফিমের। ধুপ করে বসে পড়লো সোফায়। নিজের পাশেই চোখে পড়লো সোফায় পড়ে থাকা ইনায়াতের ফোন। আফিম তা তুলে নিলো হাতে। আফিম আর স্পন্দনের কল স্পষ্ট দেখাচ্ছে মোবাইলে। মোবাইল হাতে থাকা অবস্থাতেই কল এলো স্পন্দনের। আফিম দ্রুততার সঙ্গে রিসিভ করলো। এতোক্ষনে তার বুঝতে নাকি নেই যে ইনায়াত কোন বিপদে পড়েছে।
– হ্যালো??
অপরপাশ থেকে স্পন্দনের অস্থির গলার আওয়াজ পেলো আফিম। কিন্তু আফিমের মাথা কাজ করছে না এখন। কেমন যেন ফাঁকা ফাঁকা লাগছে খুব। কোনপ্রকার ভণিতা ছাড়াই কাঁপা গলায় বলে ফেললো,,
– স্পন্দন!! ইনায়াত ঘরের কোথাও নেই। দরজা খোলা,,, পুরো ঘর খালি। আমি শিউর ওর কোন বিপদ হয়েছে। প্লিজ জলদি এসো।
আফিমের আওয়াজ শুনে প্রথমে অবাক হলেও পরের কথাগুলো মস্তিষ্কে আঘাত করতে সময় নিলো স্পন্দনের। কিছু সেকেন্ড মোবাইল কানে ধরেই বসে রইলো খাটে। পরমূহুর্তে ফোনের অপরপাশ থেকে সবটা বুঝতে পেরে আফিম চিৎকার করে উঠলো,,
– স্পন্দন?? শুনতে পাচ্ছো?? নিজেকে সামলাও আর জলদি আসো ইনায়াতের বাসায়।
স্পন্দন দ্রুত খাট থেকে নেমে আসলো। ইনায়াতের কথাটা শুনে সব ফাঁকা লাগছে স্পন্দনের। জোড় গলায় যে কামালকে ডাকবে তাও পারছে না। নিজের মাথা খালি করতে নিজের হাত কামড়ে ধরলো স্পন্দন শক্ত করে। হাতে দাঁত গাঢ়ো ভাবে বসে যেতেই হুশ হলো স্পন্দনের। কাঁপা স্বরে ডেকে উঠলো স্পন্দন চিৎকার করে ,,,
– কামাল?? কামাল গাড়ি বের করো। কামাল??

সামনে যা হবে দেখা যাবে। আর কিছুই কমু না!! রাগ কচ্চি আমি 😒
হুহহ😏😏😏

চলবে,,,
চলবে,,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here