তোমাতেই রহিব বিলীন পর্ব ৮

0
76

#তোমাতেই_রহিব_বিলীন
#পর্ব_৮
#নিশাত_জাহান_নিশি

“বেহায়া হতে হয়। নয়তো এতো শতো দুঃখের বোঝা বইবে কে? আমার শান্তি চাই, ব্যাস এটুকুই। আমি রিয়েলাইজ করতে পেরেছি, তার মাঝেই আমার দুনিয়ার সমস্ত সুখ, শান্তি নিহিত।”

হতভম্ব দৃষ্টিতে আমি আহনাফের দিকে চেয়ে আছি। ঘটনার আকস্মিকতায় আমার বোধ শক্তি লোপ পেয়েছে। শরীরের তাল খুঁজে পাচ্ছি না মোটে ও। বাক শক্তি রোধ হয়েছে কিনা জানি না, তবে গলা জড়িয়ে আসছে। আসলে আমি বিশ্বাসই করতে পারছি না, লোকটা আমাকে মিন করে তার মনে লুকায়িত করুন আকুতি গুলো নির্দ্বিধায় প্রকাশ করে গেলো। যে আমাকে দু চোখে ও দেখতে পারে না, যার চোখে আমি তার চক্ষুশূল। সেই ব্যক্তিটাই নাকি আমাকে তার দুনিয়ার সমস্ত সুখ, শান্তির সাথে তুলনা করল? তা ও আবার প্রকাশ্যে, আমার সামনে! কুন্ঠাবোধ হলো না মোটেও?

আহনাফ এখনো প্রেম জড়ানো দৃষ্টিতে আমার দিকে চেয়ে আছেন। দৃষ্টি উনার পলকহীন। শরীরের লোমরাশিকে কাঁপিয়ে দেওয়ার জন্য উনার এই উত্তাল দৃষ্টি যথেষ্ট। বেশিক্ষণ তাকিয়ে থাকতে পারছিলাম না আমি উনার ঐ নেশাক্ত দু চোখে। শরীর কাঁটা দিয়ে উঠছিলো সূঁচালোভাবে। ফটাফট উনার থেকে দৃষ্টি সরিয়ে আমি মাথা নত করে নিতেই নেহাল ভাই খড়তড় কন্ঠে আহনাফকে উদ্দেশ্য করে বললেন,,

“আর ইউ সিউর আহনাফ? প্রভাকেই তুই বিয়ে করবি?”

আহনাফ ম্লান কন্ঠে বললেন,,

“এনগেজমেন্ট হয়ে গেছে অলরেডি। বিয়ে করব না মানে? আলবাত বিয়ে করব! বিয়ে তো আমার তাকে করতেই হবে।”

নেহাল ভাই কপাল কুঁচকে চরম আশ্চর্যিত কন্ঠে বললেন,,

“হোয়াট? এনগেজমেন্ট হয়ে গেছে মানে?”

আহনাফ উচ্চ শব্দে হেসে বললেন,,

“সারপ্রাইজ ইয়ার। এতো হাইপার হচ্ছিস কেনো? প্লিজ কুল!”

“মানে কি এসবের? কেউ আমাকে কিছু জানানোর প্রয়োজন ও মনে করলি না? মানে পরিবারের কেউ ও না?”

“আমিই সবাইকে বারণ করেছিলাম, তোকে কিছু না জানাতে। একচুয়েলি আমি তোকে সারপ্রাইজ দিতে চেয়েছিলাম। এখন তো মনে হচ্ছে আমি পেরেছি। তোকে সারপ্রাইজড করতে! চেহারাটা দেখার মতো হয়েছে, জানিস?”

নেহাল ভাই রাগান্বিত কন্ঠে বললেন,,

“আমি একটু ও সারপ্রাইজড হই নি আহনাফ। বরং হার্ট হয়েছি।”

হাসি থামিয়ে আহনাফ এবার বেশ সিরিয়াস কন্ঠে বললেন,,

“দেখ নেহাল, ফাস্টে যা হয়েছে ভুলে যা। আমি ও ভুলে গেছি। যে আমাকে হার্ট করেছে, আমার সাথে সাথে তোকে ও হার্ট করেছে, সে নিশ্চয়ই এর ফল পাবে। একরত্তি ছাড় ও পাবে না সে। তবে এতো কিছুর মাঝে ও- “তার প্রতি গড়ে উঠা ভালোবাসা আমি অস্বীকার করতে পারছিলাম না।” আমি তাকে ফাস্টে যেমন ভালোবেসেছিলাম, যেমনটা চেয়েছিলাম। এখন ও ঠিক তেমনটাই চাই আর ঠিক ততোটাই ভালোবাসতে চাই। হয়তো মাঝখানে একটু রাগ, জেদ, ঘৃণা জন্ম নিয়েছিলো তার প্রতি। তবে আমার আকাশসম ভালোবাসার কাছে- এসব কোনো ম্যাটারই করে না। তুই ও প্লিজ মন থেকে সব মেনে নে নেহাল। ইউ নো হোয়াট? আই লাভস হার লট।”

আহনাফের বলা কথা গুলো শ্রবণ করা মাএই আমি ভড়কে উঠলাম। উনি আমাকে ভালোবাসতেন মানে? শুধু তাই নয়, উনি তো বলছেন, এখনো উনি আমায় ভালোবাসেন! হচ্ছে কি এসব? মাথাটা মনে হলো ১৬০° এঙ্গেলে ঘুড়ছে। সমস্ত কথা মাথার উপর দিয়ে যাচ্ছে। বুঝাই যাচ্ছে, আমার অগোচড়ে অনেক কিছু ঘটে গেছে। যা হয়তো আমি কখনো আঁচ করতে পারি নি। না এখনো কিছু আঁচ করতে পারছি। দুজনের মধ্যে নিশ্চয়ই কিছু একটা চলছে। যা হয়তো দুজনই আমার থেকে গোপন করেছে নয়তো গোপন করার চেষ্টা করছে!

নেহাল ভাই নিরুত্তর, নিশব্দ ভঙ্গিতে ঠাঁয় দাঁড়িয়ে আছেন। আহনাফের বলা কথা গুলো উনি ঠিকভাবে নিতে পারছেন না, যা উনার বিরূপ মুখভঙ্গি দেখেই ক্লিয়ার বুঝা যাচ্ছে। কিছু সময় মৌণ থেকে নেহাল ভাই একবার ক্ষীণ দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকালেন। অতঃপর চোখে, মুখে প্রখর রাগী ভাব ফুটিয়ে উনি দ্রুত পায়ে হেঁটে রুম থেকে প্রস্থান নিলেন। নেহাল ভাইয়ার যাওয়ার পথে উদ্বিগ্ন দৃষ্টিতে চোয়ে থেকে আহনাফ এক পায়ে ভর করে দাঁড়িয়ে কপাল ঘঁষে প্রখর বিরক্তি প্রকাশ করে মিহি কন্ঠে বললেন,,

“ড্যাম ইট। হি ইজ ভেরি এংড়ি!”

পর পর কয়েকটা শুকনো ঢোক গিলে আমি আহনাফের চোখকে ফাঁকি দিয়ে মন্থর গতিতে হেঁটে যেই না রুম থেকে প্রস্থান নিতে যাবো অমনি আহনাফ পেছন থেকে আমার হাতটা টেনে ধরে রূঢ় কন্ঠে বললেন,,

“হেই ইউ? তুমি কোথায় যাচ্ছ?”

আতঙ্কে চোখ জোড়া প্রকান্ড করে আমি পিছু ফিরে আহনাফের দিকে চেয়ে বললাম,,

“নিনিনিচে।”

আহনাফ দাঁতে দাঁত চেপে বললেন,,

“রুমটা কে গোছাবে?”

না চাইতে ও আমি কম্পিত কন্ঠে বলে উঠলাম,,

“আআআমি।”

হেচকা টান দিয়ে আহনাফ আমাকে উনার দেহের সাথে মিশিয়ে বাঁকা হেসে বললেন,,

“সো? কি করবে এখন?”

আমি ছটফটে কন্ঠে বললাম,,

“রুরুরুম গোছাবো।”

উনার বলিষ্ঠ বাহুতে আমাকে আবদ্ধ করে উনি রুমের দরজাটা ভেতর থেকে লক করে পুনরায় উনার বুকের সাথে আমাকে মিশিয়ে কড়া চোখে আমার দিকে চেয়ে বললেন,,

“আধ ঘন্টার মধ্যে রুমটা গোছাবে ওকে?”

আহনাফের থেকে ছাড়া পাওয়ার জন্য আমি ধস্তাধস্তি করে দাঁতে দাঁত চেঁপে বললাম,,

“ছাড়ুন। না ছাড়লে আমি রুম গোছাবো কি করে? আজব!”

এক গালে হেসে উনি আমার কানের কাছে ঝুঁকে এসে ফিসফিসিয়ে বললেন,,

“ইচ্ছে করে রুমটা অগোছালো করেছ না? আমার উপর রাগ থেকে, জেদ থেকে, অভিমান থেকে? খুব ঘৃণা করো আমাকে তাই না?”

“হুম করি। আমি আপনাকে ঘৃণাই করি। পারলে বিয়েটাই ভেঙ্গে দিতাম৷ আপনার মতো অসভ্য, বদরাগী, উন্মাদ একটা ছেলেকে বিয়ে করার কোনো ইচ্ছেই নেই আমার। যে প্রকাশ্যে পাবলিক প্লেইসে আমাকে ইনসাল্ট করে, উইদাউট এ্যানি রিজন আমায় কান ধরতে বাধ্য করে, সবসময় খিটখিট করে, মেজাজ দেখায়। ভালো ভাষায় দুটো কথা ও বলতে পারে না। সে আর যাই হোক আমার জীবন সঙ্গী হতে পারে না। শুধু আমি কেনো? পৃথিবীর কোনো মেয়েই আপনার মতো নিচু মনের মানুষকে জীবন সঙ্গী হিসেবে চায় না। সত্যি বলতে গেলে আপনি ভালো কোনো জীবনসঙ্গীর কাতারেই পড়েন না। সেই জায়গা থেকে আপনাকে বিয়ে করলে আমাকে সারাজীবন পস্তাতেই হবে। যন্ত্রনাই ভোগ করতে হবে। সংসার করাটা আর হবে না!”

আহনাফ নিশ্চুপ, নিস্তব্ধ ভঙ্গিতে আমার দুচোখে চেয়ে আছেন। আঁখিতে উনার জমকালো মেঘ জমেছে। যার ছিঁটেফোঁটা আমি আঁচ করতে পারছি। আমাকে অবাক করে দিয়ে উনি খুব শক্ত করে আমাকে ঝাপটে ধরে কেমন যেনো গলা জড়ানো কন্ঠে বললেন,,

“সত্যিই আমাকে বিয়ে করা যায় না? আমি এতোটাই খারাপ?”

“ভুল কিছু বলি নি। আপনি সত্যিই খারাপ! আপনার প্রতি আমার কোনো ভালো লাগা, ভালোবাসা কাজ করে না। শুধু ভয়, ভীতি কাজ করে। প্রতিটা মুহূর্তে আমি ভয়ে থাকি। কখন আপনি আমার উপর রাগ দেখাবেন, কখন ইনসাল্ট করবেন, কখন সিনক্রিয়েট করবেন। কখন আমাকে আপনার রুড বিহেভে কাঁদতে হবে।”

“৬ মাস রিলেশানে থেকে ও আমাকে চিনতে পারো নি প্রভা? বুঝতে এতোটাই ভুল করলে? তোমার চোখে আমি এতোটাই নিচ? যাকে ভালো লাগা বা ভালোবাসা যায় না? যার সমস্ত রাগ, জেদ, রুড বিহেভ গুলো মানিয়ে নেওয়া যায় না?”

“আপনি আবারো একই কথা রিপিট করছেন? আচ্ছা আপনার মাথায় কি সত্যিই কোনো গন্ডগোল আছে? সাইকো আপনি? একবার বললে বুঝতে পারেন না? আপনার সাথে আমার কখনো কোনো সম্পর্ক ছিলো না?”

এক ঝটকায় উনি আমাকে ছেড়ে বিপুল রাগান্বিত ভাব নিয়ে পকেট থেকে উনার ফোনটা বের করে ফোনে কিছু একটা করে আচমকা উনি আমার মুখের সামনে উনার ফোনের গ্যালারি ধরে বললেন,,

“লুক হেয়ার। সবক’টা কনভারসেশানের সস এখানে সেইভ করা আছে। তুমি এই মৃ না লি নী একাউন্ট থেকে প্রতি সপ্তাহে একবার হলে ও আমায় টেক্সট করতে,ভয়েস পাঠাতে এমনকি মেসেন্জ্ঞার কল ও করতে!”

অবিশ্বাস্য দৃষ্টিতে আমি ফোনের ম্যাসেজ গুলোর দিকে চেয়ে আছি। মৃ না লি নী আইডিটা থেকে পর পর সবক’টা ম্যাসেজ করা। হায়, হ্যালো, কেমন আছো, কি করছ, খেয়েছ, লাভ ইমোজি, কিসির ইমোজি, ভয়েস, কল। এসব অবান্তর কনভারসেশানে ভর্তি পুরো গ্যালারী। আহনাফের প্রোফাইলে আহনাফের ছবি শো করছে। এমনকি মৃ না লি নী একাউন্টে আমি যে প্রোফাইলটা সেট করেছিলাম সেই প্রোফাইলটা ও এখানে শো করছে। অথচ বিগত ৪ মাস যাবত আমার ঐ একাউন্টে লগ ইন করা হয় না৷ তবে আমার অগোচড়ে কে এই ম্যাসেজ গুলো করেছে?

ক্ষনিকের মধ্যে ফোনটা আমার মুখের সামনে থেকে সরিয়ে আহনাফ তটস্থ কন্ঠে বললেন,,

“টেল মি? এই ম্যাসেজ গুলি কে করেছিলো? কে আমাকে লাভ এন্ড কিস ইমোজি দিয়েছিলো? কে আমাকে ভালোবাসার কথা বলেছিলো? ভয়েজ পাঠিয়েছিলো, কল করেছিলো? তুমি ছাড়া এই কাজ গুলো কে করবে? যেখানে আইডিটা তোমার নিজের!”

“বিলিভ মি আহনাফ। গত ৪ মাস যাবত আমি ঐ আইডিতে লগ ইন করি না। প্রয়োজনই পড়ে না আসলে। রিয়েল আইডি থেকেই মাঝে মাঝে ফ্রেন্ডদের সাথে ডেয়ার খেলার জন্য এই ছেলে ঐ ছেলেদের সাথে চ্যাট করা হয়। কখনো আবার ফোন কল ও করা হয় রং নাম্বারে। আমি সত্যিই জানি না আহনাফ, আপনার সাথে কে কথা বলেছে, কে আপনার সাথে রিলেশানে জড়িয়েছে।”

আহনাফ কিছু বলার পূর্বেই দরজায় পুনরায় কড়াঘাত পড়ল। উচ্চ শব্দে নেহাল ভাইয়ের কন্ঠস্বর ভেসে এলো। আহনাফ তাড়াহুড়ো করে আমার সম্মুখ থেকে সরে রুমের দরজাটা খুলে দিলেন। নেহাল ভাই গম্ভীর মুখে হাতে থাকা ফোনটা আহনাফের দিকে এগিয়ে দিয়ে বললেন,,

“তনিমা লাইনে। তোর সাথে কথা বলতে চাইছে!”

আহনাফ ভ্রু উঁচিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ কন্ঠে বললেন,,

“আমার সাথে? কিন্তু কেনো?”

নেহাল ভাই কেমন যেনো দুষ্টু হাসি দিয়ে বললেন,,

“তোকে মিস করছে!”

“আর ইউ ক্রেজি নেহাল?”

“ভালোবাসে তোকে। এমন ভাব করছিস মনে হচ্ছে তুই কিছুই জানিস না!”

“ইয়ার্কি করছিস তুই? তনিমা আমাকে পছন্দ করে৷ আমি না!”

আহনাফ পিছু ফিরে একবার অস্থির দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকালেন। অতঃপর খানিক ইতস্ততবোধ করে নেহাল ভাইয়ের হাত থেকে ফোনটা হাতে নিয়ে উনি পুনরায় আমার দিকে তাকিয়ে সংকোচিত কন্ঠে বললেন,,

“আমি আসছি।”

আহনাফ ফোনটা কানে দিয়ে প্রস্থান নিলেন। মনটা কেনো জানি না খুব খারাপ হয়ে গেলো আমার। তনিমা মেয়েটা কে? মেয়েটার সাথে কি কথা বলাটা খুব জরুরী উনার? এতোটাই জরুরী যে, এই মুহূর্তেই মেয়েটার সাথে কথা বলতে হবে? কিছুক্ষণ পরে বললে হতো না? মেয়েটার সম্পর্কে জানার আগ্রহটা যেনো আমার দ্বিগুন বেড়ে গেলো। সত্যিই কি মেয়েটা আহনাফকে ভালোবাসেন? আর আহনাফ? আহনাফ ও কি মেয়েটাকে…

আমার কল্পনায় ছেদ ঘটিয়ে নেহাল প্যান্টের পকেটে দু হাত গুজে ডান দিকে একটু কাত হয়ে আমার সম্মুখে দাঁড়ালেন। ঠোঁটের কোণে উনার দুষ্টু হাসি লেগে আছে। আমি সংকোচবোধ করে উনার দিকে তাকাতেই উনি ক্ষীন হেসে বললেন,,

“তনিমা। আহনাফকে ভীষন পছন্দ করে। দীর্ঘ ২ বছর ধরে মেয়েটা আহনাফের পেছনে ঘুড়ছে। তবে আহনাফ তোমাকে ভালোবাসে! যদি ও আহনাফের মনে তনিমার জন্য একটু আধটু ফিলিংস জন্ম নিয়েছিলো!”

“কিন্তু উনি তো বললেন, মেয়েটা উনাকে পছন্দ করেন৷ উনি নাহ্।”

“হয়তো, তুমি সামনে ছিলে তাই বলে নি!”

“আচ্ছা ওসব বাদ দিন। আগে একটু ক্লিয়ারলি বলবেন? আপনাদের মধ্যে কি চলছে? আহনাফ কি সত্যিই আমাকে ভালোবাসেন? উনার সাথে সত্যিই আমার যোগাযোগ হতো?”

নেহাল ভাই রহস্যময়ী হাসি দিয়ে বললেন,,

“সেই মেয়েটা তুমি কিনা জানি না! তবে একটা মেয়ের সাথে আহনাফের যোগাযোগ হতো। হতে পারে সেই মেয়েটা তুমিই। যাই হোক, ঐ দিকে ধ্যান দিয়ে আপাতত কোনো লাভ নেই৷ তুমি বরং তনিমার বিষয়টাতে ধ্যান দাও। তোমার সাথে বিয়ে ঠিক হওয়া সত্ত্বে ও আহনাফ না আবার ঐ তনিমার…

ইতোমধ্যেই আহনাফ রুমে প্রবেশ করলেন। রাগী ভাব নিয়ে উনি ফোনটা নেহাল ভাইয়ের দিকে এগিয়ে দিয়ে তটস্থ কন্ঠে বললেন,,

“নেক্সট টাইম তনিমার কোনো ফোন কল এলে ফর দ্যা গড সেইক আমার হাতে ফোনটা ধরিয়ে দিস না। তুই তোর মতো কথা বলে নিস। আমাকে এর মাঝে জড়াস না।”

নেহাল ভাই হাত বাড়িয়ে ফোনটা হাতে নিয়ে দাঁতে দাঁত চেঁপে বললেন,,

“কিন্তু তনিমা তো তোকে এখনো ভালোবাসে আহনাফ। তোর ও হয়তো ওর প্রতি এখনো ফিলিংস আছে!”

“জাস্ট শাট আপ নেহাল। আমি অলরেডি এনগেজড। প্রভাকে ভালোবাসি আমি। কেউ না জানুক, অন্তত তুই সেটা খুব ভালোভাবে জানিস৷”

“তুই সিউর? প্রভাই ঐ মেয়েটা? যাকে তুই ভালবেসেছিলি? যার সাথে তুই কথা বলেছিলি? অন্য কেউ ও তো হতে পারে, যে তোর সাথে প্রভা হিসেবে কথা বলেছে, তোর সাথে ফ্রড করেছে!”

“তুই এতোটা সিউর কিভাবে? ঐ মেয়েটা অন্য কেউ? প্রভা না? তুই ও তো ভুল হতে পারিস!”

নেহাল ভাইয়ের অভয় পেয়ে আমি দুজনের কথার মাঝখানে প্রসঙ্গ টেনে আহনাফকে উদ্দেশ্যে করে বললাম,,

“আমি সিউর আহনাফ। ঐ মেয়েটা আমি না। সত্যিই আপনার কোথাও ভুল হচ্ছে। কেউ হয়তো আপনাকে ফাঁসিয়েছে। অন্য কাউকে আপনি আমি ভেবে গুলিয়ে ফেলছেন।”

আহনাফ অগ্নিঝড়া দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকালেন৷ আমি উনার দিকে এগিয়ে এসে পুনরায় শান্ত কন্ঠে বললাম,,

“দেখুন আহনাফ। আমি যদি সত্যিই আপনার সাথে যোগাযোগ করতাম, আপনার সাথে রিলেশানে থাকতাম, ভালোবাসতাম আপনাকে। তাহলে কেনো আমি এসব অস্বীকার করব বলুন? যে জায়গায় আপনার সাথেই আমার বিয়ে ঠিক হয়েছে। সে জায়গায় অস্বীকার করার তো কোনো কজই তো খুঁজে পাচ্ছি না আমি। আবারো বলছি আপনার কোথাও ভুল হচ্ছে আহনাফ! বিষয়টা আপনি ঠান্ডা মাথায় ভেবে দেখুন।”

“তোমার কন্ঠস্বর কিভাবে ভুল হতে পারে প্রভা? হুবহু মিলে যাচ্ছে ঐ ভয়েসের সাথে। তোমাকে ভেবেই আমি ঐ মেয়েটার সাথে কথা বলেছিলাম।”

আমি আহনাফের দিকে ডান হাতটা বাড়িয়ে বললাম,,

“আপনার ফোনটা দিন। আমি ঐ আইডিতে লগ ইন করে দেখছি। আদৌ ঐ আইডি থেকে আমি আপনার সাথে কথা বলেছিলাম কিনা!”

আহনাফ উনার ফোনটা আমার দিকে এগিয়ে দিতেই আমি ফোনটা হাতে নিয়ে আমার ঐ ফেইক একাউন্টে লগ ইন করার অনেক চেষ্টা করে ও বার বার ব্যর্থ হচ্ছিলাম। ইনকারেক্ট পাসওয়ার্ড দেখাচ্ছিলো। আহনাফ আমার হাত থেকে ফোনটা কেড়ে নিয়ে অনেক চেষ্টা করে ও আইডিটাতে লগ ইন করতে পারছিলেন না। আমাদের ব্যতিব্যস্ত রূপ দেখে নেহাল ভাই গলা খাঁকিয়ে বললেন,,

“ব্যাপারটা আমি বুঝতে পেরেছি। প্রভার আইডিটা নিশ্চয়ই হ্যাক হয়েছিলো। অথবা প্রভার পরিচিত কেউ আইডি পাসওয়ার্ডটা জানত৷ সেই হয়তো আইডি পাসওয়ার্ডটা কোনোভাবে পাল্টে আহনাফের সাথে কথা বলেছিলো, প্রেমের অভিনয় করেছিলো, প্রভার কন্ঠে কথা বলেছিলো প্রভার ছবি, প্রভার ডিটেলস সব ইউজ করেছিলো। যখন মেয়েটা দেখল আহনাফ খুব সিরিয়াস হয়ে পড়েছে। ঠিক তখনই ব্রেকাপ করেছে। নিজের আসল রূপটা দেখিয়েছি। ব্যাস হয়ে গেলো রহস্যের মিমাংসা। দুজনের মাঝের ভুল বুঝাবুঝিটা ও দূর হয়ে গেলো।”

নেহাল ভাই দম নিয়ে পুনরায় আহনাফকে উদ্দেশ্য করে বেশ সিরিয়াস কন্ঠে বললেন,,

“এতোদিন ব্যাপারটা নিয়ে আমি অতোটা ভাবি নি আহনাফ। তবে আজ ভাবতে হলো! আই থিংক আহনাফ, প্রভার কোনো দোষ নেই এই সবকিছুতে। কেউ তোকে ট্রেপে ফেলেছে। জেনে বুঝে তোকে ঠকিয়েছে। তোর উচিত, বিয়েটা এই মুহূর্তে ভেঙ্গে দেওয়া। কারণ, তুই প্রভাকে নয়। প্রভার মুখোশধারী মেয়েটাকে ভালোবেসেছিলি! এসবের মাঝে প্রভা কেনো রিপেন্ড করবে বল?”

ইতোমধ্যেই নিচ থেকে সবার হাকঁডাকের আওয়াজ কানে এলো। দম নেওয়ার পূর্বেই রুমের দরজা ঠেলে আপু, শশী এবং শ্যামা আপু হৈ-হুল্লোড় করে আহনাফ এবং আমাকে টেনে একসাথে দাঁড় করিয়ে প্রফুল্লিত কন্ঠে আমাদের দুজনকে ঝাঁকিয়ে চেঁচিয়ে বললেন,,

“ইয়েস। তোমাদের বিয়ের ডেইট ফিক্সড হয়ে গেছে৷ আগামী মাসেই তোমাদের বিয়ে। আর মাএ ১৫ দিন পর।”

আহনাফ হতবিহ্বল চোখে আমার দিকে তাকালেন। চোখ দুটো অসম্ভব রকম লাল হয়ে চোখের কোটরে জল জমেছে উনার। যেকোনো মুহূর্তে শ্রাবণ ধারা বইবে। সেই ধারায় বুঝি আমাকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে বহুদূর!

#চলবে….?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here