তোমার_আমি❤পর্ব_২

তোমার_আমি❤পর্ব_২
#লেখা_Rahul_Majumder

নিশুর মাথায় এক হাত অবদি গোমটা। গোমটার আড়ালে নিশু দেখতে পারল একটি লম্বা চওড়া ছেলে দরজার সামনে দাড়িয়ে আছে।নিশুর বুঝতে আর বাকি রইল না যে এটি রাহুল।বিধিবদ্ধ নিয়ম অনুসারে নিশু উঠে গিয়ে সালাম দিয়ে আবার নিজের জায়গায় গিয়ে বসল।

রাহুল একটু পর বিছানায় বসে নিশুর গোমটা সরিয়ে তার সুন্দর চেহারার দিকে আপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। নিশুও তার নির্বাক চাউনি মুগ্ধ হয়ে দেখছে। রাহুলের চোখের ভাষা নিশু ইতোমধ্যে বুঝতে পেরেছে এটি কিসের ইঙ্গিত।

মানুষটির হয়ত আমাকে পছন্দ করেছে।পরক্ষণে আকাশ এর কথা ভেবে কিছুটা পিছিয়ে বসল নিশু ।তার পিছুটান দেখে রাহুল বলল,

-আপনি এইভাবে ভয় পাবেন না প্লিজ। আর আপনার হাতটা এই দিকে দিন ।

নিশু নিজের ভ্রু কুঁচকে ভাবছে কি করবে ? আকাশের কথা কি জানাবে রাহুলকে ? না সবার মতো রাহুল এর কাছে থেকে কথাটি এড়িয়ে যাবে। এইভাবে কি লোকটিকে ঠকানো ঠিক হবে ? রাহুলের ভয়েসে নিশু কেঁপে উঠল।

-কি হলো হাতটা দিন ? আচ্ছা আপনি কি এতো ভাবছেন ?
-নিশ্চুপ
-আমি আপনার মনে যতদিন না পর্যন্ত জায়গা করতে পারব ততোদিন আপনি নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন । আমি আপনার থেকে দূরে থাকব। এবার হাতটা দিন।

রাহুলের কথা শুনে নিশু একটু চিন্তামুক্ত হলো।হাতটা রাহুলের দিকে।রাহুল নিশুর হাতে একটা বক্স ধরিয়ে দিল। নিশু জানেও না এর মধ্যে কি জিনিস আছে। বক্স হাতে দেওয়ার পরপর রাহুল নিশুকে উদ্দেশ্য করে বলল,

-এই আপনার পেটে ওইটা কিসের দাগ?
-নিশ্চুপ ।
-এইভাবে প্লিজ চুপ করে বসে থাকবেন না।আমাকে বলুন ওটা কিসের দাগ ? ( কৌতুহুলির সুরে )

নিশুর কপালে বিন্দু বিন্দু ঘাম জমতে শুরু করেছে । টেনশনে নিশুর হার্টবির্ট বার বার বাড়ছে আর কমছে । তারপরে রাহুল এই রকম রুক্ষ ব্যবহার নিশু ভয়ে পুরো চুপছে গেছে। কাঁপা কাঁপা কন্ঠে উত্তর দিল ,

-আপনি মনে মনে যা সন্দেহ করেছেন ঠিক সেটাই আমার জীবনে ঘটেছে কোন এক সময়ে।
প্লিজ আমাকে কমা করিয়ে দিয়েন।

-এই কথাটি আমাকে বিয়ের আগে বললেন না কেন ? আর আপনার ফ্যামিলি আমার ফ্যামিলির কাছে কথাটি লুকিয়ে রাখল কেন?

-দেখুন আমি কথাটি আপনাকে বলতে চেয়েছিলাম। কিন্তু কথা বলার সেই রকম কোন সুযোগ পাইনি। আমার ফ্যামিলি এই বিষয়ে কিছু জানে না ।

-আপনি কি আমার সাথে ফাইজলামি মারেন। আপনার ফ্যামিলি কেন এত বড় কথাটি গোপন করল তার উত্তর আপনার বাবাকে দিতেই হবে ।

– প্লিজ আপনি না জেনে আমার পরিবার সম্পর্কে বাজে কথা বলিয়েন না। আমার কথাটি শুনুন আগে তারপর আপনি বিচার করিয়েন এতে আমার ফ্যামিলির কোন দোষ ছিল নাকি?
“এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি সাপ্তাহে জিতে নিন বই সামগ্রী উপহার।
আমাদের গল্প পোকা ডট কম ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এখানে ক্লিক করুন



এরপর নিশু ভয় জড়ানো কন্ঠে রাহুলকে সব কথা খুলে বলল। রাহুল নিশুর কথাগুলো তাচ্ছিলের ভাব নিয়ে চুপচাপ শুনছিলো। কথা বলা শেষ হলে নিশু একবার রাহুলের দিকে তাকালো। সে বুঝতে পারল লোকটি আমাকে সহ্য করতে পারছে না ।

-আপনার কাহিনি বলা যদি শেষ হয়ে থাকে তাহলে আমার কিছু কথা আছে এখন।
-জ্বী বলুন ।
-আপনি এই কাজটি একদম ঠিক করেন নি। আর আমি আপনিকে কোনদিন নিজের বউ হিসেবে মানতে পারব না ।

-এই ভাবে বলছেন কেন আপনি ? এই কাজটার জন্য কি শুধু মেয়েরাই দায়ী? ছেলেদের দোষ নেই । একটা ছেলেকে অন্ধ বিশ্বাসের পরিনাম আজ আমার জীবনকে অন্ধকারে টেলে দিছে।

-দেখুন আপনি কাকে অন্ধ বিশ্বাস করেছেন কি না করেছেন সেটা আপনার ব্যাপার । আপনি ও আপনার পরিবারকে কোনদিন আমি ক্ষমা করতে পারব না ।

-আচ্ছা আপনাকে আর কি প্রমান দিলে?আপনি বিশ্বাস করবেন যে আমার ফ্যামিলি এই বিষয়ে কিছু জানে না ।

-কোন প্রমানই দেওয়া লাগবে না । নষ্টা মেয়েরা এইসব করে ফ্যামিলি জানানোর প্রয়োজন মনে করে না ।

-বাহ্!আপনার মনও যে আকাশের মতো নোংরা তার প্রমান আপনি নিজেই দিয়ে দিলেন ।
-এই দেখুন আপনি আমাকে আপনার আকাশের সাথে তুলনা করবেন না ।

-আচ্ছা তুলনা নাই বাদ দিলাম। আপনি আল্লাহ্ কে বিশ্বাস করেন।
-অবশ্যই করি । সেই জন্য এখন আপনার মুখোশের আড়ালে সত্য কথাটি আমার সামনে বেড়িয়ে আসল ।

-যদি আল্লাহ্ কে মানেন তাহলে হয়ত আপনিও কোন মেয়ের জীবন এই ভাবে নষ্ট করেছেন ।তার শাস্তি আল্লাহ্ আমার মাধ্যমে আপনাকে দিচ্ছেন ।

-কি বলতে চাচ্ছেন আপনি ? আমি আকাশের মতো ক্যারেক্টারলেস ।
-জ্বী না । আমি শুধু আপনাকে স্বরণ করিয়ে দিচ্ছি একটি বানী।

“যে যেমন কর্ম করবে তার ভাগ্যে তেমন কিছু তাকে ভোগ করতে হবে”

-এই দেখুন আপনার এই নীতিকথা বন্ধ করুন।আমার জীবনে কেউ কোনদিন আসে নি ।
-সত্যি কি তাই । ধর্মীয় গ্রন্থ ছুয়ে এই কথাটি বলতে পারবেন?বলতে পারবেন কি কোন মেয়ে এই পর্যন্ত আপনার জীবনে আসে নি ? বলতে পারবেন কি কোন মেয়েকে আপনার ভালো লাগে নি ?
-নিশ্চুপ ।

-কি হলো চুপ করে আছেন কেন ? বলুন আমাকে আসলে তো বলার মতো কোন শব্দ আপনার নেই। আপনি মানুন বা নাই মানুন আমি যদি আপনার কাছে চরিত্রহীন নারী হই ,আপনিও আমার কাছে চরিত্রহীন পুরুষ।

-আপনি নিজের ভাষা সংযত করুন নাহলে আমি গায়ে হাত তুলতে বাধ্য হবো। আমার জীবনে কেউই কোনদিন আসে নি। আর আমাকে চরিত্রহীন বলার আগে নিজেকে দেখুন। এত যে নীতিকথা বলছেন, কাউকে ঠকালে কি শাস্তি হয় এটি হয়ত আপনি জানেন?

-হুম জানি।
– যদি জানেন তাহলে বুঝতে পারছেন এর শাস্তি। কালকে আপনার বাবা-মা বা ফ্যামিলির কাউকে বলে আপনাকে নিয়ে যেতে বলবেন।আপনার সাথে আর যাই হোক সংসার করতে আমি পারব না ।

-আমার বাবা-মা ডাকার কোন প্রয়োজন নেই। আপনার যদি এই চিন্তাধারা হয় তাহলে আমি আপনাকে আর কষ্ট দিব না । নিজেই ডিভোর্স দিয়ে আপনার জীবন থেকে চলে যাব। পারলে আমাকে মাফ করে দিয়েন ।

-আমি আপনাকে কখনোই মাফ করব না ।

এই বলে রাহুল রুম থেকে বেড়িয়ে গেল।নিশু রাহুলের মুখপানে এখনো চেয়ে আছে। নিজের চোখ দুটো দিয়ে অজস্র পানি গড়িয়ে পড়ছে নিশুর । আকাশের থেকে বড় ধাক্কা আজ রাহুল তাকে দিল । এইদিকে রাহুল রাগে ফুঁসতে ফুঁসতে বারান্দায় এসে দাড়াল।

শীতের কুয়াচ্ছন্ন রাতের ঠান্ডা বাতাস রাহুলের শরীরে গিয়ে বাঁধছে । বার বার স্বরণ করিয়ে দিচ্ছে নিশুর শোষক্ত কথাটি ” চরিত্রহীন পুরুষ ”
রাহুল নিজের কাছেই প্রশ্ন করতে থাকল সত্যি কি আমি চরিত্রহীন?
এই প্রশ্নটি মাথায় নিয়ে রাহুল ভাবতে লাগল ৪ বছর আগের কথা ,


চলবে

[ বিঃদ্র- যদি কোন ত্রুটি হয় তাহলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন]

গল্পের শহর
গল্পের শহরhttps://golpershohor.com
গল্পের শহরে আপনাকে স্বাগতম......... গল্পপোকা ডট কম কতৃক সৃষ্ট গল্পের অনলাইন প্লাটফরম

Most Popular

ভাবি যখন বউ পর্ব ১৫ ও শেষ

গল্পঃ ভাবি যখন বউ পর্ব ১৫ ও শেষ (জুয়েল) (১৪তম পর্বের পর থেকে) আমি গিয়ে অবন্তীর পাশে বসলাম। অবন্তী আমার কানের কাছে ওর মুখ এনে বললো.... অবন্তীঃ...

ভাবি যখন বউ পর্ব ১৪|রোমান্টিক ভালোবাসার নতুন গল্প

গল্পঃ ভাবি যখন বউ পর্ব ১৪ (জুয়েল) (১৩তম পর্বের পর থেকে) বিকালবেলা অবন্তীকে কল দিলাম, কিছুক্ষণ পর অবন্তী কল ধরলো.... আমিঃ ওই কল ধরতে এতো দেরি করো...

ভাবি যখন বউ পর্ব ১৩|ভালোবাসার রোমান্টিক নতুন গল্প

গল্পঃ ভাবি যখন বউ পর্ব ১৩ (জুয়েল) (১২তম পর্বের পর থেকে) লিমা আমার ডেস্ক থেকে চলে গেলো। আমি অবন্তীকে কল দিলাম। কল দিয়ে কথাটা বললাম, অবন্তী শুনেই...

ভাবি যখন বউ পর্ব ১২

গল্পঃ ভাবি যখন বউ পর্ব ১২ (জুয়েল) (১১তম পর্বের পর থেকে) ৩০ মিনিট পর অবন্তীদের বাসায় গেলাম, কলিং বেল চাপ দিলাম। কিছুক্ষণ পর দরজা খুলে দেয়। তাকিয়ে...

Recent Comments

Mohima akter on Ek The Vampire 18
error: ©গল্পেরশহর ডট কম