পূর্ণতা পর্ব ৩৩+৩৪+৩৫

0
85

##পূর্ণতা❤️
#Writer_তানজিলা_তাবাচ্ছুম❤️

৩৩.

খোলা আকাশের নীচে দাঁড়িয়ে আছে তারা স্নিগ্ধ বাতাস তার গায়ে ছোঁয়া দিচ্ছে। ছাদে পায়চারি করছে। সেদিন রাতে আলোক তাকে আবার মোহরানার টাকা দেয়। তারা অনেকটা হতবাক ছিলো। হঠাৎ তারা ‌ফোনটা বেজে উঠলো। এতদিন ফোনটাকে এরোপ্লেন মুড করে রেখেছিল। কারন কল দেওয়া মত খোঁজ খবর নেওয়ার মত কেউ নেই। কিন্তু কাল হঠাৎ কি ভেবে অন করেছে। তারা ফোনের দিকে তাকিয়ে দেখলো একটা রং নম্বর থেকে মেসেজ এসেছে ‘asish na tar_’ আর লেখা নেই। তারা নম্বর টাতে কল করলো কিন্তু নম্বর অফ দেখাচ্ছে। তারা বুঝতে পারলো না। তারার চিন্তিত হয়ে রেলিং ধরে দাঁড়িয়ে দূর থেকে হেঁটে আসা আলোককে দেখলো। আর আলককে দেখেই তারার চিন্তিত মুখে হাসি ফুটলো। আলোক দৃষ্টিপাত তারার দিকে আসতেই তারা মিষ্টি হাসলো। তারপর ছাদ থেকে নিচে নামলো। আলোক এসে তারাকে বলল,

‘ তোমার বাসা থেকে কল করেছিল।’

তারা জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো,

‘ কেন_কেনো আর কখন?’

আলোক দরজা খুলে ঘরে ঢুকতে ঢুকতে বললো,

‘ কিছুক্ষন আগে। অনেকদিন হয়েছে তাই তোমার বাবা তোমাকে ডাকছে কিছুদিন থাকার জন্য।’

তারা শুনে একটু আঁতকে উঠলো। কারণ তার বাবা তাকে মিস করবে এমনটা অসম্ভব। আর তারা আলোকের দিকে ভয়ার্ত দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো,

‘ আমি_আমি যাবো না।’

আলোক শুনে হকচকিয়ে গেলো। তারপর ভ্রু উচুঁ করে বললো,

‘ বাবা মা যেহেতু ডাকছেন যাওয়া উচিত। আর তুমি আসতে আসতে মা-বাবা রাও এসে যাবেন।’

তারা আলোকের উপর কিছু বলতে পারলো না।আলোক ফোনটাকে হাতে নিয়ে তারাকে বললো,

‘ কাল সকালে যাবো। রেডি থেকো।’

____________________

তারা সারাদিন চিন্তা এবং ভয়ে মগ্ন। কোনো ভাবে তার বাবা তার আর আলোকের কিছুদিন আগের সম্পর্কের কথা জেনে তাকে ডাকছে নাকি অন্য কারণে? যদি এই কারণে হয় তাহলে তারা বুঝতে পারছে সামনে কি হইবে। কিন্তু মেসেজটা কে দিলো?আর কিসের বা ছিল। তারার মনে এখনো কিছু প্রশ্ন আছে। যার উত্তর সে পায়নি। ওই ঘরে রক্ত কিভাবে এলো। ওই বাবা মেয়েকে কে মারলো। আর ওই রাতে আলোকের গায়ে রক্ত আর হাতে ছুরি ছিল কেনো? ভেবে পাচ্ছে না তারা । আলোক কে জিজ্ঞেস করতেও সাহস পাচ্ছে না সে।

_________________

রাতের ডিনারের জন্য আলোক তারা কে ডাকতে এসে দেখে সে ঘুমিয়ে পরেছে। এশার নামাজের পরেই তারা ঘুমিয়ে পড়েছে। আলোক ভাবলো কি করবে? পরিশেষে গিয়ে তারাকে ডাকলো,

‘ তারা_তারা?’

তারা উঠলো না। তারার মুখে বিষন্নতার ছাপ ফুটে উঠেছে। আলোক তারার হাত ধরে ডাকতেই দেখলো তারা শরীর প্রচণ্ড গরম। সাথে সাথে আলোক তারার মাথায় হাত দেখলো আর বুঝতে পারলো তারার জ্বর এসেছে।‌ তারা কে খাওয়ার জন্য অনেক ডাকলো আলোক কিন্তু তারা উঠলো না। না খেয়ে মেডিসিন ও খেতে পারবে না তাই অল্প হলেও খেতে হবে। কিন্তু তারা উঠলো না। আলোক ও আর রাতে খেল না। তারা না খেয়ে সারারাত থাকবে তাহলে সে খাবে কিভাবে? আলোক পানি পট্টি নিয়ে তারার পাশে শুলো। তারার মাথায় পট্টি দিল কিন্তু সে কোনো রেসপন্স ই করছে না। যেন গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন হয়েছে।

রাতে চারিপাশে নিরবতা ঘিরে ধরেছে। ঝিঁঝিঁ পোকার শব্দ শোনা যাচ্ছে। আলোকের কানে কেমন অস্পষ্ট শব্দ আসছে। যেনো কেউ কাদঁছে। কিন্তু এত রাতে কে? আলোক অনেক্ষণ যাবৎ শোনার পর পিটপিট করে তাকালো। তাকাতেই চকিয়ে গেল তারা চোখ বন্ধ করে কাঁদছে। আলোক জেগে থাকতে থাকতে কখন যে ঘুমিয়ে পড়েছে নিজে বুঝতেই পারে নি। আলোক তারার কাছে গিয়ে তার মাথায় হাত দিল। দেখলো আগের থেকে জ্বর বেড়েছে। তারা চোখ বন্ধ করে মৃদু আওয়াজে কাদঁছে। আলোক তারাকে নরম কন্ঠে বললো,

‘ তারা! তারা! তোমার কি খুব খারাপ লাগছে?’

তারা অস্থির হয়ে নড়াচড়া করতে শুরু করলো। আলোক এই মুহূর্তে কি করবে বুঝতে পারছে না। তারার মাথায় আস্তে আস্তে হাত বুলিয়ে কানের কাছে বলে,

‘ তারা? তার__

তারা সমন থেকে ঘুরে আচমকাই আলোক কে জরিয়ে ধরে। হটাৎ এমন কিছু হওয়ায় আলোক একটু হিমশিম খেলো। তারা ডুকরে কাঁদতে শুরু করে। আলোক আবারো নম্র কন্ঠে ডাকতে শুরু করে,

‘ তারা তুমি কাদঁ__

তারা কাঁদো কাঁদো স্বরে বলে,

‘ আমি যাবো না আলোক। যাবো না।’

বলে কেঁদে উঠলো তারা। আলোক ঠিক বুঝতে পারলো না। তারাকে পাল্টা প্রশ্ন করলো,

‘ কোথায় যাবা না?‌আর কাঁদছো কেন?’

তারা এবার ‌মুখ তুলে তাকায়। আলোক ও তাকালো। আলোক দেখলো তারা কেমন বাচ্চাদের নিচের ঠোঁট উল্টো করে কাঁদছে। আলোকের তারাকে দেখে‌ কেমন হাসি পেল। সে হালকা হাসলো। তারপর তারা কে জিজ্ঞেস করলো,

‘ কাঁদছো কেন?

তারা আরো শক্ত করে জরিয়ে বলল,

‘ আমি_ আমি যাবো না। প্লিজ আপনি আমাকে নিয়ে যাবেন না। আমি কিছুতেই যাবো না।’

আলোক একটু অবাক হলো। তারা কি আদৌ এতটা ভালোবাসে‌ আলোককে যে সে নিজের বাপের বাড়ি যেতে চায়না! আলোক মোলায়েম কন্ঠ বলল,

‘ কেনো যাবা না? নিজের বাবা-মার সাথে দেখা করার ইচ্ছে নেই? তাদের মিস করো না? ওনারা তো তোমাকে এতটাই মিস করছে যে শেষমেশ আমাকেই বলল।’

আলোকের কথায় তারা কেমন তাচ্ছিল্য ভাবে হেসে বলল,

‘জানেন আলোক আমি ক্লাস ৬‌ এ পড়_পড়াকালীন এক ছেলে আমাকে প্রপোজ করছিল। কিন্তু আমি এইসব পছন্দ করতাম না কারন এগুলো হারাম! তাই এড়িয়ে যাই। ছেলেটা এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার বাবাকে বলেছিল ওর সাথে আমার ছোট থেকে প্রেম আরো কিসব জানি বলেছিল।’

আলোক কে আরেকটু চেপে ধরলো।

‘ তার জন্য ওইদিন বাবা লাঠি দিয়ে আমাকে অনেক জোড়ে জোরে মেরেছিল। উনি আমার! আমার কোনো কথা শুনে নি। ওই ছেলেটা যা বলেছিল তাই বিশ্বাস করেছে। জানেন পি_পিঠ_কোমরে এখনো এর দাগ রয়ে গেছে।’

কথা গুলো শুনতেই যেনো আলোকের ভিতরে আঘাত লাগছিল। সে দেখেছিল তারার কোমরের দিকে দাগ। ওইদিন যখন তারা তাকে প্রপোজ করছিল তারা শাড়ি পড়েছিল। কিন্তু শাড়িটা ঠিক মত না পড়তে পড়ার কারণে কোমরের কিছু অংশ দেখা যাচ্ছিল তার। তখন আলোক লক্ষ্য করেছিল।তারা আলোকের বুকে মুখ গুঁজে কাদঁছে। আলোকের শার্টটা কিছুটা ভিজে ভিজে ভাব। তারা অনেকক্ষণ যাবত চুপ করে আছে। আলোক ভাবলো তারা কি ঘুমিয়ে গেল। আলোক একটু নড়তেই তারা আবার বলে উঠলো,

‘ আমি না রান্না করতে তেমন পারি না।সে_সেদিন মা আমাকে রান্না করতে দিয়েছিল। বাসায় মেহমান আসবে বলে। আম_আমি মাকে বলে রেখেছিলাম আমি রান্না পারি না কিন্তু তবুও মা আমাকে রান্না করতে দেয় কারণ ওইদিন ওনার শরীর ছিল অসুস্থ।’

বলে থামলো তারা। চোখ বন্ধ তবুও চোখ বয়ে তার নোনা পানি গড়িয়ে যাচ্ছে। কিছুক্ষন শ্বাস নিয়ে বলে উঠলো,

‘ মেহমানদের যখন খাবার খাওয়ানোর পর তারা বলেছেন কোনটাতে লবণ বেশি, কোনটাতে মসলা বেশি, কোনটাতে স্বাদ নেই আরো অনেক সব। সে_সেদিন এইসবের জন্য ম_মা_আম_আমাকে__

বলে জোরে জোড়ে কাঁদতে লাগে তারা। আলোক তাকে কিছু বলে নি। কাদুক নিয়ে ইচ্ছে মতন। কারণ কাঁদলে মন হালকা হয়! কষ্ট গুলো কম মনে হয়। তারা থেমে আদুরে কন্ঠে বললো,

‘ উনি আমাকে গরম স্টিল দিয়ে হাতে অনেক গুলো ছ্যাক দেয়। এ_এই য্_যে_

বলে হাতটা এগিয়ে দিল তারা। হাতা টা কিছুটা উপরে উঠাতেই আলোকের পুরো শরীর শিউরে উঠলো। তারার হাতের লম্বা লম্বা দাগ গুলো দেখে। তারা আর কিছু বলল না। আলোক তারার মাথায় হাত বুলিয়ে দিলো। আলোক তারাকে কিছু জিজ্ঞেস করবে বলে ‌ডাকবে দেখে তারা ঘুমিয়ে গেছে। কিন্তু তারা ঘুমের মধ্যেও কাঁদছে। আলোক তারাকে ভালো করে শুইয়ে দিয়ে উঠে ব্যালকনিতে গেল। আলোকের এইসব শোনার পর আর ঘুম আসছে না। আলোকের এই মুহূর্তে নিজেকে খুব ভাগ্যবান মনে হচ্ছে। কেননা সে সৎ মা পেয়েও যেন আপন মা পেয়েছে। এইসব বোঝা যায় কেউ জন্ম দিলেই মা হয়ে যায় না হলে ফুটপাতে এত সংখ্যক নবজাতক পাওয়া যেত না। আলোক ‌একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে।

__________________

সকালে ফজরের নামাজ পড়ে তারা ব্যালকনিতে গেল। শরীরে জ্বর টা কিছুটা কমেছে। কিন্তু আলোক কোথায়? আজ আলোক এখনো আসলো না। তারা চেয়ে আছে বাহিরের দিকে। তারা চেয়ার এনে বসে রেলিং এ মাথাটা একপাশ হয়ে হেলান দেয়। আর সেখানে আস্তে আস্তে সে ঘুমিয়ে পড়ে।

আলোকের ডাকে তারার ঘুম ভাঙ্গে। তারা পিটপিট করে তাকায়। আলোকের হাসি মাখা মুখ টা ভেসে উঠে।

‘ তারা উঠো!’

তারা কিছুক্ষণ ঝিমাতে ঝিমাতে উঠে পড়লো।

‘ তারা উঠে রেডি হও ফাস্ট।’

আলোকের কথা শুনে সে ছলছলে নয়নে তার দিকে তাকালো।

#চলবে….

#Tanjuপূর্ণতা ❤️
#Writer_তানজিলা_তাবাচ্ছুম❤️

৩৪ & ৩৫

গাড়িতে বসে পুরো রাস্তা তারা চুপ করে ছিল। মুখ দিয়ে একটা আওয়াজ ও করেনি। তারার মনে প্রচণ্ড ভয় কাজ করছে। দেখতে দেখতে কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে তারা আলোক এসে পড়লো। তারা গাড়ি থেকে নামতে চাইছে না। আলোক তাকে বের করে আনলো। বাড়ির গেটের সামনে তারা দাঁড়িয়ে আছে। ভিতরে ঢুকার সাহস পাচ্ছে না। তারার শরীর থরথর করে কাঁপছে। জানে না সামনে তার ভাগ্যে কি হবে। আলোক দরজায় নক করতেই তারার মা নীলিমা হাসি মুখে দরজা খুললেন। আলোক সালাম দিল তারপর হাতে থাকা প্যাকেট গুলো এগিয়ে দিলেন। যতই হোক শশুর বাড়িতে তো আর খালি হাতে আসা যায় না। নীলিমা হাসি মুখে সালামের উত্তর দিয়ে বললেন,

‘ এইসবের কি দরকার ছিল বাবা!’

আলোক প্রতুত্তরে সামান্য হাসলো।

‘বাবা ভিতরে আসো।’

তারা তার মাকে দেখে থরথর করে কাঁপছে। তারা ওখানেই ‘থ’ মেরে দাঁড়িয়ে আছে। তারাকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে আলোক বলল,

‘ আসো।’

নীলিমা পিছন ঘুরে আদুরে গলায় বলল,

‘ মামনি আসো।’

বলে তারার কাছে গেল। তারপর বলল,

‘ বাসায় কেউ নেই। নিকাব টা খুল মা।’

বলে তারার নিকাবটা খুলল। তারপর তারার দু’গাল ধরে বলল,

‘ ইশ কতো দিন আমার মেয়েটাকে দেখি না। কেমন আসিস মা।’

তারা একটু চমকে উঠে। সামনে থাকা মহিলাটাকে কেমন অচেনা লাগছে। আদৌ কি তার সেই মা? তারা কোনো উত্তর দেয় না। তারপর তারা আলোক ভিতরে ঢুকে। আলোক তারার বাবাকে সালাম দিলেন। তারার বাবা বলে উঠলেন,

‘ আরে আমার মামনি মা-টা এসে গেছে।’

বলে তারাকে জরিয়ে ধরলো। তারা বিস্মিত হয়ে যায়। সে কিংকর্তব্যবিমূঢ়! তারপর তাদের বসতে বলে নানান রকমের নাস্তা পানি এনে দেন। তারা এতক্ষনে বুঝতে পেরেছে হঠাৎ তার মা-বাবার এমন আচরন কেনো! কারন আলোক তার সাথে আছে। আর বড়লোক জামাই এর সামনে ওনারা খুব ভালো সাজছেন। অনেকক্ষণ যাবত আলোকের সাথে কথা বলছেন তারার বাবা মা। তারা চুপ করে গুটি মেরে বসে আছে। আলোক গেলেই হয়তো এনারা নিজেদের আসল রূপ দেখাবেন। দেখতে দেখতে দুপুর হয়ে গেল। আজ বাড়িতে অনেক কিছু রান্না হয়েছে। নতুন জামাইয়ের আপায়ন করছে। আলোক কে কোমল কন্ঠে খাওয়ার জন্য ডাকলো নীলিমা। আলোক তারা কে খুঁজছে। তারা বাহিরে গেছে। শৈশবের স্থান। এতদিন পর এসেছে তাই বাহিরে গেছে।

হাঁপাতে হাঁপাতে বাড়িতে আসলো তারা। এসে খাওয়ার টেবিলে গেল পানি খেতে। নিজের তৃপ্তি পরিমান পানি খেয়ে চেয়ার টেনে বসলো। কিছুক্ষণ পর আবার পানি গ্লাসটা হাতে নিল।

‘ আগেই খেতে বসেছিস?’

পাশ থেকে কারো ঝংকার কন্ঠের আওয়াজ শুনে গ্লাসটা রেখে দাঁড়িয়ে যায় তারা। তাকিয়ে দেখে তার মা। নিলিমা সামনে এগোলো।

‘ আগেই খেয়ে বসেছিস খাইনী?’

‘ বিয়ে হয়েছে তোর। স্বামীকে ছেড়েই খেতে বসেছিস নির্লজ্জ মেয়ে কোথাকার।’

কথাগুলো শুনে তারার চোখ ছলছলে করতে লাগলো। আসলে তার মায়ের চিন্তা ভাবনা এমন। ছোট থেকেই দেখে আসছে তার মা তার বাবা খাওয়ার পড়ে খায়। দেখতে দেখতে আলোক চলে আসে। তারা নিজের চোখের কর্নিশের অশ্রুটুকু মুছে নেয়। আলোকের দিকে অসহায় দৃষ্টিপাত দেয়। আলোক কে তো রাতে সব বলেছিল তবুও আলোক কেনো নিয়ে এলো?মর্মবিদ্ধ হরিণী ব্যাধের দিকে যেভাবে তাকায়, নীরবে বলতে থাকে ‘সব জেনেও আমাকে কেনো নিয়ে আসলে আলোক?’। সামনে তাকাতেই তারার আঁখিপল্লব হতে গড়িয়ে পড়লো অশ্রুজল। আলোক কে নীলিমা খাবার বেড়ে দিচ্ছে সাথে নীলিমা কথাও বলছে তাই আলোকের দৃষ্টিপাত তারার থেকে সরে যায়। তারা আর থাকল না সেখান থেকে কয়েক পা এগিয়ে আসতেই আলোক কোমল কণ্ঠের আওয়াজ ভেসে আসলো,

‘ তারা? কোথায় যাচ্ছো?’

তারা শান্ত দৃষ্টিতে তাকিলো। আলোক হাতে লোকমা নিয়ে খেতে যাবে এমন সময় তারাকে ডেকে উঠে। তারা হাসিমুখে বলে,

‘ ঘ্_ঘরে_ঘরে যাচ্ছি।’

‘ খেয়েছো?’

তারা মাথা তার মায়ের দিকে তাকায় তারপর কথা নাড়িয়ে ‘না’ বলে। পরক্ষণে আলোক জোড় কণ্ঠে বলে,

‘ আসো বসো। না খেয়ে যাচ্ছো কোথায়?’

তারা আটকা কন্ঠে বলে,

‘ আম্_আমি পর্_পরে খাবো। তু_তুমি খাও।’

তারার মা তার দিকে রাগান্বিত দৃষ্টিতে তাকালো। কারণ তারা আলোলকে ‘তুমি’ বলে সম্বোধন করেছে। আলোক কড়া কণ্ঠে বললো,

‘ পড়ে একাই কেনো খাবা? আমার সাথে খাও। আসো।’

তারা তার মায়ের দিকে তাকালো।

‘ আসো।’

তারা হাতে হাত রেখে ভাবতে লাগছে কি করবে।

‘ তারা?’

‘হু..’

‘ আসো।’

তারা আর কিছু না বলে ধীর পায়ে এগোলো। তারপর চেয়ার টেনে বসলো। প্লেট নিয়ে খেয়ে যাবে এমন সময় আলোক বললো,

‘ তুমি আমার এখান থেকে খাও। আমি এখনো খাইনি। তাছাড়া এতগুলো খেতে পারবো না।’

বলে তারার সামনে খাবারের লোকমা তুলে দিলো। স্ত্রী কে আগে খাইয়ে নিজে খাওয়া সুন্নাত। আলোক ধরে আছে কিন্তু তারা খায়নি। তারা আলোকের দিকে তাকাতেই আলোক ইশারায় খেতে বললো তারপর তারা হা করে খেল। তারা মা ভিতরে চলে যেতেই তারা বললো,

‘ তুমিও খাও। নাকি আমার এটো বলে খাবে না?’

তারার কথায় আলোক হেসে নিজেও খেল। এভাবেই আস্তে আস্তে ওরা দুজন খাইয়া শেষ করলো।

___________________

এশার নামাজ পড়ে আলোক চলে যাবে। তারা নিজের ঘরে পায়চারি দিচ্ছে। ভয়ে, টেনশনে কিছুতেই স্থির থাকতে পারছে না। এতক্ষণ আলোক আছে বলে সব ঠিক কিন্তু চলে গেলে কি হবে? তারার এইসব ভেবে মাথা ব্যাথা করছে। কিছুক্ষন পর তারা নিজের বাবার কর্কশ কণ্ঠের আওয়াজ পেল। তাকে জোড়ে জোরে ডাকছে। তারার বের হওয়ার সাহস নেই। তাহলে কি আলোক তাকে রেখে গেলো? বলার সত্ত্বেও আলোক এমন করলো? কিন্তু কেনো? তারার ভেবে কান্না পাচ্ছে। তারা আস্তে আস্তে দরজা খুলে বের করতেই তার বাবা তাকে টেনে সামনে আনলো। তারপর রাগান্বিত কন্ঠে বলল,

‘ তুই নাকি আলোকের সাথে থাকতে চাস না।’

তারা জোরে জোড়ে শ্বাস ফেলে। এখন তারা বাবাকে কিভাবে সবকিছু বলবে? তবুও তারা বলার প্রয়াস চালায়।

‘ বা_বাবা_আম_

‘ হ্যাঁ বা না এ উত্তর দে। বলেছিস কিনা!’

এখন তারা কি বলবে! সে তো চেয়েছিল কিন্তু কোন অবস্থা , পরিস্থিতিতে চেয়েছে সেটা কিভাবে বলবে? আর তার বাবা তো শুনবেন ও না।

‘ বাব্_

তারার বাবা ঝাঁঝালো কন্ঠে বলল,

‘ আমি বলেছি হ্যাঁ বা না এ উত্তর দিতে।

বলে এক হাত দিয়ে তারার বাহু শক্ত করে ধরলেন। ব্যাথায় তারা কুকড়ে উঠলো আর বলে দিল,

‘ হ_ হ্যাঁ আমি বলেছি।’

তারার বাবা তার বাহু ছেড়ে চেঁচিয়ে বললো,

‘ তোর খুব সাহস বেড়েছে তাইনা? আজ দেখছি।’

বলে থাপ্পর মারার জন্য হাত উঠলেন। তারা ভয়ে চোখ বন্ধ করে ফেলে। কিন্তু বেশ কিছুক্ষণ গেলে থাপ্পর তার গালে পড়লো না। তারা পিটপিট করে তাকালো। আলোক কে দেখতেই মনে এক প্রশান্তি লাগলো। তারার ইচ্ছে করছে আলোক জড়িয়ে ধরে বলতে তাকে এখান থেকে নিয়ে যেতে।

‘ ক্ষমা করবেন আপনার এভাবে হাত ধরার জন্য।’

তারার বাবা নিজের হাত নামিয়ে আচমকা হাসতে শুরু করলো। তারপর ধাতস্থ করে বললেন হাসি মুখে বলার চেষ্টা করলেন,

‘ তুম_তুমি_ তুমি যাওনি?’

আলোক মৃদু হেসে বললো,

‘ না নামাজে গেছিলাম।’

তারার বাবা আটকা কন্ঠে বললেন,

‘ তুমি তো আজই যাবে বলেছিলে?’

‘ হ্যাঁ। এখন যাবো।'[ তারার দিকে তাকিয়ে]

তারা ছলছলে নয়নে তাকিয়ে আছে।

‘ তারাকে নিয়ে।’

কোথায় শুনে তারা বড়বড় চোখ করে তাকাল। স্বস্তির শ্বাস ফেলল। আলোক তারাকে ডাকলো। তারা তার কাছে গেলো। আলোক যাওয়ার আগে বললো,

‘ আপনি আমার বয়সের বড়ো হবেন। আমার বাবার বয়সে। জানি না আপনাকে বলা ঠিক হবে কিনা তবুও বলছি।’

‘ নিজের মেয়েকে ভালোবাসুন। এভাবে তার উপর অন্যায়, অত্যাচার, জুলুম করা বন্ধ করুন। এগুলো আপনার জাহান্নামের যাওয়ার কারণ হবে।’

তারা মনে তাচ্ছিল্য হচ্ছে। আলোক কাকে কি বলছে। যে লোক নামাজ ই ঠিক মত পড়ে না তার এইসবের আবার ভয় থাকবে!

‘ আর হ্যাঁ তারা আপনার মেয়ে হলেও এখন ও স্ত্রী! আমার অধিকারে। আপনার থেকে ওর উপর আমার বেশি অধিকার। তাই ওর গায়ে হাত তোলার আগে ভাববেন। জানি ছোট থেকে আপনারা ওকে বড়ো করে তুলেছেন। কিন্তু মাথায় রাখবেন আপনার মেয়ের বিয়ে হয়েছে। আর সে অন্যের বাড়ির মেয়ে। তাই অকারণে মারার আগে ভাববেন। আমার কোনো আচরণে কিংবা কথায় কষ্ট লাগলে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। ভালো থাকবেন ইন শা আল্লাহ্। চলি। আসসালমুআলাইকুম।’

শেষোক্ত কথায় আলোক তারার হাত ধরে হাঁটা শুরু করে। তারা পিছনে তাকিয়ে তার মা বাবার দিকে ছলছলে দৃষ্টিতে তাকায়। বেশির ভাগ মেয়েই তার বাপের বাড়ি আসার জন্য ব্যাকুল হয়ে থাকে! অনেক দিন থাকতে চায়। কিন্তু সে! তার ভাগ্যটা কেমন ব্যাতিক্রম!

তারপর গাড়িতে উঠতেই আলোক স্টার্ট দেয়। কিছুটা এগতেই তারা বলে উঠে,

‘ আমার বোরকা,নিকা__

আলোক স্বাভাবিক দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলে,

‘ আমরা তো গাড়িতে যাচ্ছি। আর এখন রাত কোথাও নামবও না। আশেপাশে আমি ব্যতীত দেখার মতন কেউ নেই তাই সমস্যা নেই।’

‘ কিন্তু ওটা রেখে আসলে আমি পরে পড়বো কি?’

‘ সমস্যা নেই। নতুন কিনে দিবো।’

তারা আর কোনো শব্দ করলো না। এই মুহূর্তে তার মন খারাপ। নিরবতা কেটে তারা আলোক কে বললো,

‘ আচ্ছা? আমি যে তোমার সাথে থাকতে চাইতাম না এগুলো কি আপনি ওনাদের বলেছিলেন?

আলোক হতভম্ব হয়ে তারার দিকে তাকিয়ে মাথা নাড়াতে নাড়াতে ‘না’ বললো।’

তারার প্রতত্তরে কিছু বলল না। তারা ভাবছে তাহলে তার বাবা মাকে কে জানালো? আশা কি হতে পারে? কিন্তু আশা তো তারালোকের ব্যাপারে এইসব জানে না। তাহলে তো সম্ভবনা নেই! তাহলে ওনারা জানলো কিভাবে। তারা এইসব ভাবতে ভাবতে মাথাটাকে হেলান দিলো জানালার ধারে।কিছুটা পথ গিয়ে আলোক শুধু এক’দুবার তারাকে ডাকলো। কিন্তু তারার সাড়া দিলো না হয়তো ঘুমিয়ে গেছে।

_________________

সময় অতিবাহিত হওয়ার সাথে সাথে তারালোকের সম্পর্ক টা কেমন তিক্ত হয়ে গেছে। তারা কয়েকদিন যাবত অসুস্থ তবে আলোকের উপর ক্ষুণ্ন হয়ে আছে। তারা সবসময় চেষ্টা করে নিজেকে আলোকের কাছাকাছি রাখার কিন্তু আলোক তাকে তুমুল ব্যস্ত রাখে সারাদিন শুয়ে আর রেস্ট করার জন্য। তারার ইদানিং কেনো জানি মনে হয় আলোক শুধু দায়িত্বের খাতিরে তারার সাথে থাকছে। কারণ আলোক অত্যন্ত ভালো, সৎ, ঈমানদার মানুষ। তাই হয়তো নিজের মনের বিপক্ষে গিয়ে তারার সাথে থাকছে। আলোক হয়তো নিজের সব দিক দিয়ে বেস্ট ট্রাই করছে কিন্তু তবুও হয়তো মনের দিক দিয়ে পারছে না। আর তারা আলোকের অতীতে শুনেছিল, আলোক চাঁদকে এতটাই ভালোবাসতো যে বাচ্চার খাতিরে সে দ্বিতীয় বিয়ে করে নি। আর বলেও ছিল সে কখনোই চাঁদের মত কাউকে ভালোবাসতে পারবে না। হয়তো আলোক তারাকেও ভালোবাসতে পারে নি। তারার এমনটা ধারণা! তারা অসুস্থ এই বাহানায় হয়তো আলোক নিজের থেকে তাকে দূরে রাখছে এমনটা তারার মনে হয়।
তবে এর জন্য তারা নিজের উপর ভিষণ ক্ষুব্ধ! কারণ তারার মনে হয় সে জোরপূর্বক আলোকের উপর চেপে বসেছে। তারা এখন কেমন হয়ে গেছে। আগের মত চঞ্চলতা, হাসিখুশি নেই। সেই আগের মতন সেই দুঃখিনী হয়ে গেছে। কথাই বলেনা আর! কেমন চুপচাপ আর মনমরা হয়ে গিয়েছে।

আলোক ব্যালকনিতে দাড়িয়ে আছে চুপচাপ। তার মা-বাবা আসার কথা ছিল অনেক আগেই। কিন্তু হঠাৎ করে আশার আপন কেউ অ্যাকসিডেন্ট করায় আসতে করে নি।

‘ আলোক?’

আলোক চটজলদি পিছন তাকায়। তারা কেমন মনমরা হয়ে তাকিয়ে আছে। আলোক শান্ত গলায় বলে,

‘ তারা? তুমি?’

তারা এগিয়ে এসে রেলিং ধরলো। আলোক তারার দিকে তাকিয়ে ঠোঁট কামড়ে বলল,

‘ তারা? তোমার কিছু লাগবে? এভাবে উঠে আসলে কেনো? কিছু প্রয়োজন হলে আমাকে বলো।’

তারা চট করে বলে ফেলে,

‘ আপনাকে লাগবে।’

আলোক তারার কথা শুনে একটু চমকে। তবে আলোক এরি মধ্যে লক্ষ্য করেছে তারা যখন খুব কষ্ট কিংবা তার মন খারাপ থাকে তখন তাকে ‘আপনি’ করে সম্বোধন করে। কিন্তু তারার কারণে মন খারাপ আলোক ঠিক বুঝে উঠতে পারল না সাথে তারার কথার মানে তাও।

‘ আমাকে লাগবে? আমি তো আছিই।’

তারা কেমন তুচ্ছ হাসলো। তারপর সামনে খোলা আকাশের দিকে তাকিয়ে অসহায় কন্ঠে বললো,

‘ নিজের মনের উপর জোড় দিয়ে কেন আমার সাথে থাকছেন?’

আলোক বুঝে উঠতে পারলো না।

‘ মানে? নিজের মনের উপর জোর! কিসব বলছো তারা?’

তারা স্থির হয়ে আলোকের দিকে দৃষ্টিপাত দিল। তারপর শান্ত কন্ঠে বলে উঠলো,

‘ আপনি অত্যন্ত ভালো মানুষ। আপনার মত মানুষ হয়তো খুব কম আছে আলোক। এতকিছু করার পরেও ধৈর্য্য সহকারে আমাকে রেখেছেন। তাছাড়াও একজন মানুষ, একজন ছেলে, একজন হাসব্যান্ড হিসেবে আপনি আদর্শ! আমার পরিপেক্ষিতে আপনি আদর্শ একজন মানুষ। আমি জানি না আমি যেগুলো আজ বলছি আর বলবো সেগুলো সঠিক কিনা তবুও না বলে থাকতে পারছি না।’

তারা রেলিং ছেড়ে আলোকের সাথে সামনাসামনি হয়ে দাঁড়ালো। তারার চোখের কার্নিশে নোনা পানি জমেছে। দেখেই বোঝা যাচ্ছে অনেক কষ্ট নিয়ে কথা বলছে।

‘ আপনি হয়তো আমাকে ভালোবাসেন না। শুধু দায়িত্বের খাতিরে আমাকে রেখেছেন! আমার দেখাশুনা, খেয়াল রাখছেন। কিন্তু এর মধ্যে আমি ভালোবাসার গন্ধ পাইনা আলোক। আমার মনে হয় আমি আপনাকে জোরপূর্বক আমার সাথে বেধে রাখছি। আপনার অনিচ্ছায় আপনার সাথে থাকছি। আর বিচারা আপনি নিরুপায় হয়ে থাকছেন। কারণ আপনি হয়তো ভাবছেন আপনি ছাড়া আমার তো কেউ নেই! আমার নিজের বাবা মা তো অন্যরকম! তাই হয়তো আপনি কোনো স্টেপ নিতে পারছেন না। কিন্তু প্লিজ! আপনি নির্দ্বিধায় বলুন। আমার চিন্তা করবেন না যে, আপনি আমি আলাদা গেলে আমি কোথায় যাবো! আমার কি হবে!’

বলে তারা একটু হাসলো। কিন্তু আঁখিপল্লবে তার অশ্রু। তারপর তারা রসিকতা নিয়ে বললো,

‘ যে মোহরানা দিয়েছেন সেটা দিয়ে চলতে পারব ইন শা আল্লাহ্।’

তারপর দীর্ঘ শ্বাস ফেলে বললো,

‘ আপনি আমার সাথে থাকতে না চাইলে আমি জোড়জবরদস্তি করে আপনার সাথে থাকবো না। আমি আপনার কাছে এক্ষনি উত্তর চাচ্ছি না। আপনি আজ পুরো রাত ভাবুক কিন্তু নিজের মনের উপর জোর দিয়ে কিছু বলবেন না প্লিজ।’

তারপর তারা চোখ বন্ধ করে দিতে তপ্ত নিশ্বাস ফেলে অনেক কষ্ট সহকারে বলার চেষ্টা করলো,

‘ আপনি যদি ভালো না বাসেন তবে কালকে সকালেই আমরা lawer এর কাছে যাবো। আপনি প্লিজ নিজের মনের উপর জোড় দিয়ে কিছু বলবেন না।’

বলে তারা চলে এসে বিছানায় শুয়ে পড়লো। আলোক বলার মত কিছু পাচ্ছে মা। তার বাকশক্তি লোপ পেয়েছে।

আলোক কি বলবে ভেবে তার ভয় লাগছে। যদি সত্যি তার কথা মতই আলোক তাকে সত্যি ভালো না বাসে। কিন্তু তারা তো আলোক কে ভালোবাসে। অনেক ভালোবাসে। মুখে তো খুব সহজেই বলে দিলো কিন্তু আদৌ কি সে পারবে আলোকবিহীন থাকতে? আলোক তো তার নামের মতই তারার জীবনে যেনো আলো নিয়ে আসছিল। কিন্তু প্রথমত তারা বুঝতে না পারলেও পরে বুঝেছে।

________________

ঘড়ির কাটা বারোটা ছুঁই ছুঁই! আলোকের দৃষ্টিপাত তারার কোমল মুখশ্রীতে। দীর্ঘক্ষণ দৃষ্টিপাতের পর আলোক তপ্তশ্বাস ফেলে! আসলেই কি সে তারাকে ভালবাসে না? তারার উপর কি সত্যি সে দায়িত্ব পালন করছে? আলোক তার হাত বুকের বা’পাশে রাখল। তারপর চোখ বন্ধ করলো আসলেই কি তাই? বোঝার জন্য! তারপর চোখ খুললো। কই তার তো এমন মনে হচ্ছে না তাহলে তারার কেনো এমন মনে হলো? আলোক তারার দিকে আবার তাকালো । এতক্ষণ ওপাশ ঘুরে ছিল তারা এখন এদিকে তাকিয়েছে ঘুমে। আলোক স্নিগ্ধদৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে কান্নার ছাপা ছাপা মুখে লেগে গেছে। কেমন বিষন্নতার ছাপ ফুটে উঠেছে। আলোকের কাছে তারাকে কেমন বাচ্চা বাচ্চা লাগে। কারণ তারার স্বভাব,আচার আচরণ, কথাবার্তা আলোকের কাছে ইমম্যাচিউরেট মনে হয়। পরিশেষে আলোক দীর্ঘ শ্বাস ফেলে সামনে তাকিয়ে রেলিং ধরে তারপর খোলা আকাশের দিকে তাকায়। শুক্লাদ্বাদশীর রাত। আকাশে চাঁদ উঠেছে সাথে অসংখ্য তারা। মনে হচ্ছে যেন এই গভীর রাতে চাঁদ, তারা পুরো শহর কে পাহারা দিচ্ছে। আলোক স্নিগ্ধ দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলল,

‘ চাঁদ তারার মাঝে আটকা পড়েছি।’

রাত্রির এ মেঘাছন্ন ডাকা তারার আলো
অন্ধকার চারিপাশে,
রাতের লাজুকতায় সে রয়েছে
অবিন্যস্ত ক্যানভাসে!
_______তানজিলা

কিন্তু ‘সে’ টা ঠিক কে তা আলোক বুঝে উঠতে পারছে না। কি করবে তাও জানে না। পরিশেষে আলোক ভাবলো তার কর্মেই তারার মনে এইসব ভাবনা আশ্রয় পেয়েছে। অনেক্ষন ভাবার পর আলোক ঘরে ঢুকে তারার সামনে ফ্লোরে হাঁটু ভেঙ্গে বসে তার মাথায় হাত বুলালো। তারপর কপালে একটা আলতো করে কিস করে ওয়াশরুমে গেল।

চোখ বন্ধ করে হাসি মুখে পাশের বালিশটাকে জরিয়ে ধরলো তারা। এই মুহূর্তে তার খুব খুশি লাগছে। আলোক তার কপালে কিস করলো তার মানে আলোক তাকে ভালোবাসে। জি মুহূর্তে তারার ইচ্ছে করছে বিছানার উপর দাঁড়িয়ে নাচছে কিন্তু আফসোস তা করতে পারবে না।তারা এখনো চোখ খুলে নি। চোখ হতে অশ্রু গড়িয়ে পড়তে পড়তে সে চোখ খুলল আর মুখে বিড়বিড় করে বলল, ‘ আই লাভ ইউ আলোক। আই লাভ ইউ সো মাচ।’ তারপর তারা খুশিতে আহ্লাদী হয়ে ঘুমিয়ে পড়লো।

________________

সকালে আলোকের ডাকে ঘুম ভাঙ্গে তারার। কিন্তু উঠে যে আলোক এমন কিছু বলবে তা তারার ভাবতে পারে নি। আজ ফজরেও উঠতে পারে নি তারা সাথে নামাজ ও পড়তে পারে নি। কিন্তু আলোকের বলা কথায় যেনো তার ভিতরে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়। তাহলে কালকে রাতে তারার ধারণা ভুল! মানে আলোক সত্যি তাকে__! ভেবেই তারার খুব কান্না পাচ্ছে। ঘুম থেকে উঠে তারা আলোকের দেখা পায়নি। কিছুক্ষন পর আলোক কোথা থেকে এসেই তারাকে গম্ভীর কণ্ঠে বলেছে রেডি হতে। তারা কাল রাতে আলোক কে বলেছিল যদি আলোক তাকে ভালো না বাসে তবে ওরা সকালেই lawer এর কাছে যাবে। তাহলে সত্যি কি আলোক ভালোবাসেনি? এরপর কতদূর পৌঁছাবে তারালোকের সম্পর্ক?

#চলবে….

[* অনেকে জানেন সিক ছিলাম তাই দেরি অনেক হয়েছে। এখন কিছুটা সুস্থ আলহামদুলিল্লাহ। যতটুকু পেরেছি লেখে দিয়েছি। তবে অনেক বড় করেই দিয়েছি। আর মাত্র দু’তিনটে পর্বের পরে গল্প শেষ হবে…! ভুল ত্রুটি ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। রি-চেক হয়নি.।

*কি মনে হয়? কি হবে তারালোকের?]🧛

#Tanju

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here