বিবর্ণ জলধর পর্ব -১৭+১৮

0
51

#বিবর্ণ_জলধর
#লেখা: ইফরাত মিলি
#পর্ব: ১৭
_____________

আজকাল মিহিক নিজেকে দেখে নিজে অবাক হয়। বিয়ের পর তার এত অধঃপতন, এত পরিবর্তন হয়েছে! ধৈর্য বিষয়টা কখনো তার ক্যারেক্টারের সাথে ছিল না। কিন্তু আজকাল সে বড্ড ধৈর্যশীল। চোখের সামনে শ্রাবণের অসহ্যকর কীর্তিকলাপ সহ্য করছে ধৈর্যের সহিত। রুমকির সাথে শ্রাবণের সম্পর্কটা তার কাছে কাঁটার মতো। এটা হৃদয়ে কাঁটার মতো এসে বিঁধে। কিন্তু এ নিয়ে সে শ্রাবণকে জোর দিয়ে কিছু বলতে পারে না। কেন পারে না ভাবলে মনে পড়ে, সে আগে থেকেই জানতো শ্রাবণ রুমকিকে ভালোবাসে! শ্রাবণ আগেই তার কাছে বলেছিল এ ব্যাপারে। সে সবটা জেনেশুনে বিয়েটা করেছে। এখন চাইলেও এটা নিয়ে সে অতটা জোরদার ভাবে কিছু বলতে পারবে না। কিন্তু তাই বলে কি এতটা সহ্য করে থাকা যায়? কী জানি! থাকছে তো সে। আজকাল আরও একটা খারাপ ব্যাপার উপলব্ধি করে মিহিক নিজের মাঝে। খারাপ ব্যাপারটা হলো, আজকাল তার ইচ্ছা হয় শ্রাবণের কেয়ার করতে। শ্রাবণের কিছু কাজ নিজ হাতে করে দিতে। এমনটা কেন হয়? কাল আবার কী একটা বিচ্ছিরি কাজ করলো! শ্রাবণের হাত টেনে ধরলো সে। আর আজ? আজ কী করছে? শ্রাবণের অগোছালো বিছানা ঠিক করে দিচ্ছে নিজ হাতে। এও কি সম্ভব তার দ্বারা? না, সত্যিই পাগল হয়ে যাচ্ছে সে। তার অধঃপতন তাকে কোন তলানিতে নিয়ে ডুবায় কে জানে! চাইছে কাজটা অফ করতে, কিন্তু হাত যেন থামছে না। কোন মন্ত্রমুগ্ধে যেন শ্রাবণের অগোছালো বিছানাটা ঠিক করে দিচ্ছে সে।

ওয়াশরুম থেকে বের হয়ে এমন এক দৃশ্য দেখবে এ ভাবনাযোগ্য ছিল না শ্রাবণের কাছে। মিহিক তার বিছানা পরিপাটি করছে! এতদিন সে নিজেই জগিং থেকে ফিরে ফ্রেশ হয়ে বিছানা গোছগাছ করে রাখতো। কিন্তু আজ মিহিক…সত্যি অবাক করা বিষয়! শ্রাবণ বিস্ময়ান্বিত হয়ে দেখছে মিহিককে। বিষয়টা অবাকপূর্ণ হলেও ভালো লাগছে তার। মনে হচ্ছে সত্যিই তার ঘরে একটা বউ আছে। এতদিনও মিহিককে বউ বউই মনে হতো, কিন্তু আজ মনে হচ্ছে যেন এক পরিপূর্ণ বউ তার ঘরে। কী সুন্দর বউ তার বিছানা পরিপাটি করে দিচ্ছে। দৃশ্যটা বেশ নয়নাভিরাম ঠেকলো। শ্রাবণ নিজের অজান্তেই একটুখানি হাসে। মনে ভালো লাগার আভা ছড়িয়ে থাকলেও, মুখে কড়া করে বলতে চাইলো,
“আমি বিছানায় ঘুমাই বলে আপনার আমার বিছানায় ঘুমাতে অসুবিধা, তাহলে এখন এটা কীভাবে করছেন? এই বিছানায় এখনও আমার রেশ লেগে আছে। সকাল বেলা আমি এই বিছানা থেকেই জাগ্রত হয়েছি। এখন আমার বিছানা পরিপাটি করে রাখতে আপনার অসুবিধা হচ্ছে না?”

শ্রাবণের কণ্ঠে চমকে উঠেছিল মিহিক, ধক করে উঠেছিল তার বুক। কিন্তু শ্রাবণের কথাগুলো তার চমক কাটিয়ে সৃষ্টি করলো ক্রোধের। সাথে ঘৃণাও ছড়িয়ে দিলো।
তার কথা মিহিককে এতটা রাগিয়ে দেবে আশা করেনি শ্রাবণ। মেয়েটার রাগ বেশি। এবারও অতিরিক্ত রাগের প্রতিফলন ঘটালো মেয়েটা। একটা ছোট পাতলা কম্বল ভাঁজ করে রাখছিল সে, অর্ধ ভাঁজ করা কম্বলটা তীব্র আক্রোশে ফ্লোরে ছুঁড়ে মারলো। বালিশ দুটো ঠিক করে রেখেছিল, তাও বিছানার মাঝখানে এনে ছুঁড়ে মেরে, রাগান্বিত হেঁটে গেল জানালার দিকে। জানালার সামনে দাঁড়িয়ে রাগে ফুঁসতে লাগলো সে। রাগের পাশাপাশি ব্যথিতও সে। হঠাৎই চোখে জল এলো। যত্ন করে একটা কাজ করে দিচ্ছিল সে শ্রাবণকে, আর শ্রাবণ তার এই প্রতিদান দিলো? এমন কথা কী করে বলতে পারলো? এতটা নির্দয় মানুষটা?

শ্রাবণ ফ্লোরে পড়ে থাকা কম্বলটার দিকে তাকিয়ে আছে। আজকে মিহিকের রাগও কেন যেন খারাপ লাগলো না তার। বরং রাগটা আজ বেশি ভালো লাগলো। রাগটাও বউ বউ ধরণের হয়েছে। বউরা তো এমন করেই রাগ দেখাবে স্বামীর সাথে, তাই না? শ্রাবণ নিজেকে খুব শান্ত লক্ষ্য করলো। ভেজা চুলগুলো আরেকবার তোয়ালে দিয়ে মুছে তোয়ালেটা চেয়ারে রেখে, ফ্লোরে পড়ে থাকা কম্বলের দিকে এগিয়ে এলো। কম্বলটা উঠিয়ে ভাঁজ করে বিছানায় রেখে দিলো। বালিশ দুটোও ঠিক করে রাখলো। মিহিকের দিকে তাকিয়ে দেখলো, মিহিক এখনও জানালার দিকে মুখ করে দাঁড়িয়ে আছে। শ্রাবণ এগিয়ে গেল সেদিকে। মিহিকের পিছনে গিয়ে দাঁড়িয়ে মৃদু কণ্ঠে বললো,
“এত রাগ করবেন না মিহিক। বউ মানুষ রাগ করবেন ভালো কথা, কিন্তু আপনার রাগ মাত্রাতিরিক্ত। বিয়ের পর এমন একটা দিন ছিল না যেদিন আপনার রাগী মুখটা দেখিনি আমি।”

পিছনে শ্রাবণের কথা শুনে মিহিক আঁতকে উঠে তাকালো সেদিকে। শ্রাবণ তার পিছনে এসে দাঁড়িয়েছে লক্ষ্য করেনি সে।

মিহিকের চোখে চোখ পড়তে অপ্রস্তুত হয়ে গেল শ্রাবণ। বিব্রত অবস্থায় পড়লো। মিহিকের চোখে অশ্রু লক্ষ্য করে সে। খাপছাড়া কণ্ঠে বললো,
“আ…আপনার চোখে পানি কেন?”

মিহিক সঙ্গে সঙ্গে কঠিন স্বরে উত্তর দিলো,
“আমি রেগে গেলে কাঁদি।”

বলে আর এক মুহূর্ত দাঁড়ালো না। হনহন করে গিয়ে ওয়াশরুমে ঢুকে গেল।
শ্রাবণ এতক্ষণ যে রাগটা উপলব্ধি করেনি নিজের মাঝে, এবার সেটা করলো। মেয়েটার রাগ আসলেই আকাশ ছোঁয়া। না হলে রেগে গেলেও মানুষ কাঁদে এমন কিছু তো কখনও শোনেনি! এ মেয়ের এত রাগ যে, রেগে গেলে কাঁদে?

________________

“আজকেই শেষ, বুঝলে? চিন্তা করেছি বাংলাদেশ থাকাকালীন আর কোনো মেয়েকে স্বল্প সাময়িক গার্লফ্রেন্ড লিস্টে এড করবো না।”

কারিব অন্যরকম প্রশান্তি অনুভব করে আষাঢ়ের কথায়। উজ্জ্বল মুখে বললো,
“খুব ভালো একটা উদ্যেগ নিয়েছেন আষাঢ় ভাই।”

আয়নায় আষাঢ়ের হাসি মুখের প্রতিচ্ছবি দেখতে পায় কারিব। আষাঢ় শার্টের বোতামগুলো আটকে নিয়ে পিছন ফিরে কারিবের দিকে তাকিয়ে বললো,
“যশোরই লাস্ট।”

কারিবও এক টুকরো হাসি উপহার দিলো।

সিঁড়ি থেকে নামতে নামতে লিভিং রুমে চোখ পড়তে চোখ আটকে যায় আষাঢ়ের। দেখতে পায় এক সুন্দরী মেয়ে তাদের লিভিং রুম আলোকিত করে রেখেছে নিজ সৌন্দর্যে। মেয়েটার হাসি মুখ খুব করে চোখে লাগলো আষাঢ়ের। সে অস্ফুট স্বরে বলে উঠলো,
“ওয়াও!”

তারপর কারিবের উদ্দেশ্যে গলা নিচু করে বললো,
“কারিব, তুমি কি দেখতে পাচ্ছ? আমাদের লিভিং রুম কী পরিমাণ আলোতে ঝলমল করছে?”

“জি আষাঢ় ভাই। সকালের সোনালি আলো জানালা দিয়ে প্রবেশ করে একেবারে আলোকিত করে রেখেছে লিভিং রুম।”

আষাঢ়ের দৃষ্টি সরলো না সুন্দরীর উপর থেকে। সেদিকে অপলক তাকিয়ে থেকে কারিবের উদ্দেশ্যে বিরক্ত নিয়ে বললো,
“বোকা ছেলে! আমি কি সেই আলোর কথা বলেছি? তাকিয়ে দেখো সোফার দিকে। ঠিক যেন সূর্য লুটিয়ে পড়েছে আমার ঘরে। কী পরিমাণ আলো!”

কারিব বুঝতে পারে আষাঢ়ের কথা। অবশ্য আগেই বুঝেছিল। বললো,
“মেয়েটাকে কি খুব পছন্দ হয়েছে?”

“হুহ, ভীষণ।”

আষাঢ়ের কথা শুনে কারিব এটুকু নিশ্চিত হলো, আষাঢ়ের মাঝ থেকে এখনও মেয়ে বিষয়ক ব্যাপারটা বিতাড়িত হতে বহু দেরি। তবে আজকে আষাঢ়ের এই মেয়েটাকে দেখে এমন মন্তব্যে সে খুব খুশি হলো। মিটি হাসি অধরে ঝুলিয়ে আষাঢ়ের পাশাপাশি নেমে এলো লিভিং রুমে। আষাঢ় সুন্দরী, এবং সুন্দরীর পাশাপাশি আরও দুজন মাঝ বয়সী আগন্তুককে সালাম জানালো।

“আসসালামু আলাইকুম।”

সবার মনোযোগ নিজের দিকে ঘোরাতে সক্ষম হলো আষাঢ়। সুন্দরী তাকালো একটু দেরিতে। সুন্দরী না তাকানো অবধি আষাঢ় হাসলো না। তাকানোর পর অমায়িক এক হাসি উপহার পেল সবাই। মাঝ বয়সী দুই আগন্তুক সালামের জবাব দিলেন, কিন্তু সুন্দরী চুপ রইল। কেমন বোকার মতো তাকিয়ে থাকলো নাদুস-নুদুস চেহারা নিয়ে।
লায়লা খানম ব্যস্ত হয়ে পড়লেন ছেলেকে পরিচয় করিয়ে দিতে।

“আমার ছোট ছেলে হিমেল। ওর কথা তো আপনাদের অনেক বলেছি। আমেরিকা থাকে নিজের ফুফুদের কাছে।”

আগন্তুক ভদ্র লোক, ভদ্র মহিলা একটু হেসে মাথা দোলালো। আষাঢ় শুনেছিল বাড়িতে কোন অতিথি আসবে, এরাই যে সেই অথিতি সেটা বুঝতে বাকি নেই। সে মিহিকের পাশে বসে বললো,
“আমার নাম হিমেল ইসলাম, কিন্তু আপনারা আমাকে আষাঢ় বলেও ডাকতে পারেন। এটা আমার ডাক নাম।”
বলতে বলতে চোখ একবার ছুটে যায় সুন্দরীর উপর। সুন্দরী এখন আর তার দিকে তাকিয়ে নেই।
মিহিক লক্ষ্য করছিল আষাঢ়কে। আষাঢ়ের ভাবমূর্তি তার ভালো লাগলো না।

কেউ কিছু না বললে, আষাঢ় আবার বললো,
“আমি দুঃখিত যে, আমি এখন আপনাদের সাথে বসে কথা বলতে পারছি না। আমার খুব জরুরি একটা কাজ আছে যশোরে। সেখান থেকে ফিরে না হয় আবার কথা হবে আপনাদের সাথে। আমি উঠছি।”

আষাঢ় কারিবকে ইশারা করলো। কারিব বাধ্য মতোন এগোতে লাগলো দরজার দিকে। আষাঢ় আড় চোখে সুন্দরীর উপর দৃষ্টি রেখে চলতে লাগলো। ঠোঁটে তার কেমন বাঁকা হাসি।

_________________

“মেয়েটা আমার মাথা থেকে নামতে চাইছে না কারিব। কে এই মেয়ে? বলা বাহুল্য যে, এই মেয়ে আমার দেখা সকল মেয়েদের থেকে বেশি সুন্দর। আমাদের আত্মীয় লিস্টে এত সুন্দর মেয়ে আছে এটা তো কোনোদিন জানতাম না। তুমি আমাকে আগে বলোনি কেন?”

“আমিও যে খুব আগে থেকে জানতাম তেমন না আষা…”

“ওহ, শি ইজ সো বিউটিফুল! মেয়েটার চোখ দুটো এখনও আমার মনে স্পষ্ট ফুঁটে আছে। আচ্ছা, নাম কী মেয়েটার? জানো তুমি?”

“জি, জানি। সিনথিয়া।”

আষাঢ় মনে মনে একবার আওড়ালো,
‘সিনথিয়া!’
তারপর হেসে ফেললো।

কারের উইন্ডো দিয়ে বাইরে দৃষ্টি মেলে তাকিয়ে বললো,
“নোয়ানার জ্বর কেমন এখন?”

প্রশ্নটা করা কালীনও সিনথিয়া নামের মেয়েটা আষাঢ়ের মাথা থেকে সরলো না।

“নোয়ানার জ্বর অনেকটা কমে গেছে। খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে যাবে ইনশাআল্লাহ।”

“নোয়ানা খুব কঠিন একটা মেয়ে। ওর কঠিনতার পর্দা ডিঙিয়ে ওর নরম মন অবধি পৌঁছাতে পারছি না আমি। কিন্তু পৌঁছাতে আমার হবে। ওর সম্পর্কে কিছু ডকুমেন্ট চেয়েছিলাম তোমার কাছে, সেগুলো কি কালেক্ট করেছো?”

“কারো সম্পর্কে ডকুমেন্ট কালেক্ট করা এত সহজ? আমি কি আর পুলিশের লোক? কালেক্ট করতে পারিনি এখনও, তবে করে ফেলবো। সে নিয়ে আপনি চিন্তা করবেন না।”

“আমি চিন্তিত নই, আমি উত্তেজিত।”
থামলো আষাঢ়। আবার বললো,
“সিনথিয়া মেয়েটা খুব করে আমার মনে লেগে গেছে। সুন্দরী নিজে আগ বাড়িয়ে বাড়িতে চলে এসেছে, কী সৌভাগ্য! আমার ভাগ্য যেন বরাবর একটু বেশিই ভালো। তবে আমার মনে হচ্ছে মেয়েটা একটু বোকা ধরণের। এই ব্যাপারটা খারাপ লেগেছে। সুন্দরী মেয়েদের কেন বোকা হতে হয় বলো তো? তবে এতে আমারই সুবিধা হবে, কী বলো?”

“নিশ্চয়ই।”

“আমার দেখা সবচেয়ে সুন্দরী মেয়ে সে। তার সম্মান আমি উপরেই রাখবো।”

কারিব হাসছে। আষাঢ়ের কথাবার্তা শুনতে আজ খুব ভালো লাগছে তার। অবশেষে তার আষাঢ় ভাইয়ের মেয়েদের প্রতি থেকে ঝোঁক কমবে তাহলে।

__________________

“তোমার ব্যাপার-স্যাপার আমি কিছু বুঝতে পারছি না শ্রাবণ।”

“কীসের ব্যাপার-স্যাপারের কথা বলছো আম্মু?”

“মিহিকের মুখের দিকে তাকালেই আমি কেন অসুখী ভাব দেখতে পাই? তুমি কেমন আচরণ করো ওর সাথে?” লায়লা খানমের গলা রূঢ়।

শ্রাবণ বিব্রত বোধ করলো। কিন্তু তাড়াতাড়ি উত্তর দিতে ভুললো না,
“আমি কেমন আচরণ করি তার সাথে? সব সময় খুব সুন্দর আচরণই তো করি। আমাদের মাঝে সম্পর্ক তো খুব সুন্দর। কখনো আমরা ঝগড়া করেছি, এমন কিছু শুনেছো? সে কি বলেছে আমি তার সাথে ঝগড়া করি?”

“যদি ঝগড়া না করো, খারাপ আচরণ না করো তাহলে ওকে অমন দেখায় কেন? কেন ওর মুখে অসুখী ছায়া দেখতে পাই?”

শ্রাবণ যেন আজ বলার সুযোগ পেল। সুযোগ পেতেই বলে উঠলো,
“তো অসুখী দেখাবে না? জোর করে বিয়ে দিলে কি আর হাসিখুশি থাকা যায়? মিহিক কি আমাকে বিয়ে করতে চাইছিল? আমি কি মিহিককে বিয়ে করতে চাইছিলাম? আমরা কেউ-ই নিজ ইচ্ছাতে এই বিয়ে করতে চাইনি। তোমাদের জোরাজুরিতে বিয়েটা করতে বাধ্য হয়েছি। যে মেয়েকে জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়েছে সে মেয়ে হাসিখুশি থাকবে কী করে? অসুখী তো দেখাবেই তাকে।”

মাকে আর কিছু বলার সুযোগ দিলো না শ্রাবণ। দ্রুত পায়ে সিঁড়ির দিকে এগিয়ে গেল। তার রাগ মিহিকের উপর হচ্ছে। মেয়েটা এভাবে বোকামি করছে?
রুমে এসে দেখতে পেল মিহিক আয়নার সামনে। চুল আচড়াচ্ছে। শ্রাবণ দেখে বুঝলো, কোথাও যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে মিহিক।
সে রাগ দেখিয়েই বলে উঠলো,
“আমার সাথে থাকতে আপনার অনিচ্ছা, আমাকে পছন্দ করেন না, তাই বলে এটা বাইরে মুখ গোমড়া করে রেখে প্রকাশ করতে হবে? আপনাকে তো আমি বলেছিলাম, আমাদের মাঝে সম্পর্কটা কেমন সেটা এত তাড়াতাড়ি বাইরে প্রকাশ করবো না। তারপরও আপনি এটা কেন করলেন? আমার সাথে যত ইচ্ছা রাগ দেখান, মুখে জীবনেও হাসি না ফুঁটিয়ে মুখ গোমড়া করে রাখুন, তাই বলে বাড়ির সকলের সামনে এমন কেন থাকবেন? জোর করে হলেও কি একটু হাসতে পারেন না সকলের সামনে? জানেন আম্মু আমাকে আজ জিজ্ঞেস করেছে, আমি কেমন আচরণ করি আপনার সাথে। আপনার মুখে অসুখী ছায়া দেখতে পায় সে। আচ্ছা, আমি কেমন আচরণ করি আপনার সাথে? আমি কি আপনার সাথে ঝগড়া করি? উল্টো আপনি আমার সাথে ঝগড়া করেন। আমরা দুজনই দুজনের সাথে স্বাভাবিক নই। এটা শুধু আমার সমস্যা নয়, আপনারও সমস্যা। তাহলে বাইরে আপনি কেন অমন থাকেন? যেখানে আমি সবাইকে এটা বোঝাতে চাইছি যে, আমাদের মাঝে সম্পর্কটা স্বাভাবিক। সেখানে আপনি মুখ গোমড়া করে রেখে এটাকে অস্বাভাবিক করে দেখাচ্ছেন। এতে বাড়ির মানুষ কতটা কষ্ট পাচ্ছে বুঝতে পারছেন আপনি? আপ…”

মিহিক তীব্র রাগে হাতের চিরুনি ফ্লোরে ছুঁড়ে মারে, আর এই দৃশ্য দেখেই থেমে গেল শ্রাবণ। মিহিক রাগে জ্বলন্ত। টুল ছেড়ে সে দ্রুত পায়ে এগিয়ে এলো শ্রাবণের দিকে। এসেই চাপা গর্জনে বললো,
“আপনি যদি সম্পর্কে আমার স্বামী না হতেন না, আমি আপনাকে…”
কথা শেষ না করেই থেমে গেল মিহিক।

শ্রাবণ দমে গেল না। বললো,
“কী? আপনি আমাকে কী? গায়ে হাত তোলার কথা বলতে চাইছিলেন, তাই তো? তো তুলুন। তুলছেন না কেন? সাথে তুই-তোকারিটাও শুরু করুন।”

মিহিকের এই মুহূর্তে শ্রাবণের প্রতি যে তিক্ত অনুভূতিটা হলো সেটা প্রকাশ করার মতো না। ঘৃণা ভর্তি চোখ জোড়া শ্রাবণের উপর থেকে সরিয়ে নিলো সে অতি কষ্টে। একটু পর আবার তাকিয়ে বললো,
“আমাদের মাঝে সম্পর্কটা কেমন সেটা বাড়ির লোক জানলে তারা ক…” মিহিক বলা দিয়েও আবার ভুল হয়েছে এমন করে বললো,
“উঁহু না। বাড়ির লোক কষ্ট পাবে, কি পাবে না এটা নিয়ে তো আপনি ভাবছেন না। এটা তারা জেনে গেলে আপনাকে তেজ্যপুত্র করে দেওয়া হবে এটা নিয়েই আপনার ভয়। এটা নিয়েই ভাবছেন আপনি। কিন্তু এটা নিয়ে একবার ভাবছেন না, আমাদের সম্পর্কের গতিটা ঠিক কী হবে? আমাদের মাঝে সম্পর্কটা স্বাভাবিক নয় এটা এখন আপনি জানাতে চাইছেন না, কিন্তু একদিন তো জানাবেন। কখন জানাবেন সেটা? তখন জানালে তখন কি আপনাকে তেজ্যপুত্র করে দেওয়া হবে না?”

মিহিকের কণ্ঠ বেশ অভিমান পূর্ণ। শ্রাবণ কিছু বলতে পারলো না মিহিকের উপর। শুধু হৃদয়ে একটা অপরাধ বোধ ছেয়ে গেল। মিহিকের কণ্ঠ আগের থেকে অনেক নরম হয়ে গেল,
“আমি সকলের সামনে হাসি-খুশিই থাকি, কিন্তু আমি হাসিখুশি থাকলেও যদি আমাকে সুখী না দেখায় আমি কী করবো? আমি আপনার মতো অত ভালো অভিনয় পারি না হয়তো। আমাকে এর আগে কখনো অভিনয় করতে হয়নি তাই আমি পারদর্শী নই। আর অভিনয়টা আমার নিজ প্রয়োজনে করতেও হচ্ছে না। প্রয়োজন আপনার। আপনি নিজ প্রয়োজনে অসাধারণ অভিনয় করছেন। আমার অভিনয় নড়বড়ে। নড়বড়ে অভিনয় হলে আপনার মা যে ধরে ফেলবে সেটাই তো স্বাভাবিক। আর আপনি আমাকে জোর করে মুখে হাসি ফুঁটিয়ে রাখার কথা বললেন, তেমনি আমিও বলছি আপনি জোর করে সুন্দর হওয়ার চেষ্টা করুন। আশা করছি সুন্দর হতে সক্ষম হবেন।”

মিহিক সরে গেল শ্রাবণের সামনে থেকে। নিজেকে স্বাভাবিক করে নিলো খানিক সময় নিয়ে। তারপর দরজার দিকে গেল।

“কোথায় যাচ্ছেন? সন্ধ্যা হয়ে এসেছে তো।”

মিহিক না থেমে উত্তর দিলো,
“বাড়ি যাচ্ছি। ফিরবো না আজ। মনের সুখে যত খুশি কথা বলে রাখবেন রুমকির সাথে।”

মিহিকের শেষের কথায় কেমন ব্যথা অনুভব হলো শ্রাবণের।

__________________

রাত্রি অগভীর। মৃদু হাওয়ায় জানালার পর্দা কেঁপে উঠছে। শ্রাবণ একা রুমে। মিহিক সত্যি ফেরেনি। মিহিক আজ বাবার বাড়িতে থাকার সিদ্ধান্ত নিলো কেন? বিকেলে ওসব কথা বললো দেখে রাগ করে থাকছে? হয়তো। শ্রাবণের কাজে মন নেই। তবুও বাধ্যতামূলক কাজ করে যাচ্ছে ল্যাপটপে। রুমকি কল দিয়েছিল। খুব বেশি কথা বলেনি, কাজের চাপ দেখিয়ে ফোন রেখে দিয়েছে। রুমকির সাথে এত কম কথা বলা ঠিক হচ্ছে না বলে মনে হয় শ্রাবণের, কিন্তু কথা বলার খুব একটা আগ্রহ পায় না। মিহিকের একটা কথা তাকে ভাবাচ্ছে। এই সম্পর্কের গতি কী হবে? প্রশ্নটা নিয়ে ভাবলেও মাথা ব্যথা হয়ে যায়। একটুখানি ভাবনা কাজ করে না এটা নিয়ে। কিন্তু সম্পর্ক এভাবে যে চলতে পারে না এটা তো সত্য। কী হবে এর গতি? সত্যিই ডিভোর্স?

দরজায় টোকা পড়ে। শোনা যায় আষাঢ়ের কণ্ঠ,
“আমি কি প্রবেশ করতে পারি?”

শ্রাবণ বললো,
“আয়।”

আষাঢ় দরজা খুলে ঢুকলো। রুমে শ্রাবণকে একা দেখে বললো,
“তুমি একা কেন? ভাবি কোথায়? ভাবির কাছে দরকার ছিল আমার।”

“তোর ভাবি এখানে নেই।”

“রুমে যে নেই সেটা তো দেখতেই পাচ্ছি। কোথায় গিয়েছে?”

“তোর ভাবি এ রুমেও নেই, আর এ বাড়িতেও নেই, চলে গেছে।”

“বাবার বাড়ি চলে গেছে? এই রাতে?”

“রাতে না, সন্ধ্যায়।”

“যাই হোক, এসেছিলাম তার অসুস্থ বোনের খবর নিতে। তার অসুস্থ বোন তো ফোন দিলে ফোন রিসিভ করে। কিন্তু তার কাছে খবর নিতে এসে দেখলাম, সেই উল্টো খবরের কাছে চলে গেছে।”

আষাঢ় শুকনো মুখ নিয়ে যাওয়ার জন্য ঘুরলে শ্রাবণ বললো,
“দাঁড়া।”

আষাঢ় বিরক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে বললো,
“ব্রো তোমার সাথে এখন কথা বলার মুড নেই আমার।”

“তা থাকবে কেন? হবু বউ এসেছে, হবু বউ নিয়েই তো পড়ে থাকবে তুমি।”

আষাঢ় কিঞ্চিৎ অবাক হয়ে ভ্রু কুঁচকে পিছন ফিরে তাকিয়ে বললো,
“হবু বউ?”

শ্রাবণ আষাঢ়ের প্রশ্ন কানে তুললো না। বললো,
“খুব তো বলেছিলি, তোর হবু বউ লিভিং রুমে এসে বসে রয়েছে জানলে এক ছুটে গিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরতি। তা ধরেছিস? এমন কোনো ঘটনা শুনতে পেলাম না কেন?”

আষাঢ় যা বুঝে নেওয়ার বুঝে নিলো। তারপরও জিজ্ঞেস করলো,
“হবু বউ…কীসব বলছো ব্রো?”

শ্রাবণ অবাক হলো।
“তুই জানিস না? কারিবও কিছু বলেনি তোকে?”

আষাঢ় কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে গেল। মাথা ঘুরছে যেন তার। এক মুহূর্ত দাঁড়ালো না আর। দ্রুত বেগে বেরিয়ে এলো শ্রাবণের রুম থেকে। করিডোর দিয়ে নিজের রুমের দিকে যেতে যেতে কল করলো কারিবকে। ইমেডিয়েটলি নিজের রুমে ডাকলো।

আষাঢ়ের মাথা এলোমেলো। দিশেহারা সে। হবু বউ মানে কী?
কারিব কিছুক্ষণের মধ্যে এসে উপস্থিত হলো। আষাঢ় বেডে মাথা নুইয়ে বসেছিল। কারিবকে দেখেই মাথা তুলে বললো,
“ওই সুন্দরী মেয়েটা কে? আমাদের বাড়িতে এসেছে কেন?”

কারিব একগাল হেসে বললো,
“জেনে গেছেন, তাই না? আপনার হবু বউ সে।”

আষাঢ় দাঁড়িয়ে গেল।

“তুমি আগে থেকেই জানতে কারিব? তুমি বিশ্বাসঘাতকতা করলে আমার সাথে? কেন জানা সত্ত্বেও বলোনি মেয়েটা আমার হবু বউ?”

“আপনি এত হাইপার হচ্ছেন কেন? আমি তো ভেবেছিলাম আপনি খুশি হবেন।”

“এই কাজটা কে করেছে?”

“আপনার আব্বু। আপনার আব্বুই সিনথিয়ার সাথে আপনার বিয়ে নিয়ে ভেবেছেন।”

কবির সাহেব নিজের ছোট ছেলেকে নিয়ে সন্দ্বিগ্ন ছিলেন। ছেলের মেয়েদের প্রতি কিঞ্চিৎ ঝোঁক আছে এ ব্যাপারটা মাথায় রেখে উনি সব কিছু করেছেন। সিনথিয়া’রা সপরিবারে ইন্ডিয়া থাকে। সিনথিয়ার বাবার সাথে কবির সাহেবের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। আষাঢ়ের সাথে সিনথিয়ার বিয়ে নিয়ে এক বছর আগেই টুকটাক কথা হয়েছে তাদের মাঝে। কিন্তু এখন একটু বিশেষ জোর দেওয়া হলো। এবার যখন আষাঢ় বাংলাদেশ আসবে, তখন তাদেরও বলা হলো, তারা ইন্ডিয়া থেকে কিছুদিনের জন্য বাংলাদেশ আসুক। ছেলে-মেয়ে একে অপরকে দেখুক। ছেলে-মেয়ে দুজন দুজনকে পছন্দ করলেই বিয়ে কনফার্ম। এ সবটাই আষাঢ়ের অজান্তে ছিল। এমনকি বাড়ির কেউ-ও এই ব্যাপারটা জানতো না। কবির সাহেব একা একা করেছেন সব। সিনথিয়া’রা আসবে এর কিছুদিন আগে ব্যাপারটা জানিয়েছিলেন লায়লা খানমকে। এরপর সবাই-ই একটু একটু করে অবগত হলো। শুধু আষাঢ় জানতো না। কারিবও জানায়নি, চেয়েছিল একটা সারপ্রাইজ হবে। কিন্তু এখন যা দেখছে…

“আপনি কি খুশি হননি আষাঢ় ভাই? আমি তো ভেবেছিলাম আপনি খুশি হবেন। সকাল বেলা সিনথিয়াকে দেখে আপনি তো বেশ খুশিই ছিলেন। নিজের মুখেই তো বলেছিলেন এই মেয়ে আপনার দেখা সবচেয়ে সুন্দরী মেয়ে। আমেরিকাতেও এমন সুন্দরী মেয়ে দেখেননি আপনি।”

আষাঢ় শান্ত হয়েছে। শান্ত স্বরে জবাব দিলো,
“এটা ভালো হলো না কারিব।”

“ভালো হলো না কেন? তার মতো এত সুন্দরী একটা মেয়ে আপনার বউ হবে। এমনকি এমন একটা সুন্দরী মেয়েকে বিয়ে করার কথা আপনার মা-বাবাকে আপনার নিজের বলতে হয়নি, তারাই ঠিক করেছে। জীবনে দেখা সবচেয়ে সুন্দরী মেয়েকে বিয়ে করবেন, ভালোই তো হলো।”

আষাঢ় হাসলো। সব সময়ের পরিচিত হাসি। জানালার দিকে এগিয়ে গেল। চোখ রাখলো পাশের বাড়ির ব্যালকনিতে। রুম থেকে ভেসে আসা ঝাপসা আলোয় ব্যালকনিটা দেখা যাচ্ছে। ব্যালকনিটা মানবীহীন। আষাঢ় সেদিকে তাকিয়ে থেকে বললো,
“না ভালো হলো না এটা। একদমই ভালো হলো না।”

কারিবের শঙ্কা শঙ্কা ভাব হচ্ছে। মনে হচ্ছে তার সন্দেহ ঠিক। সে আষাঢ়ের দিকে এগিয়ে গেল। আষাঢ়ের দৃষ্টি অনুসরণ করে তাকালো পাশের বাড়ির ব্যালকনিতে। আষাঢ় কারিবের দিকে না তাকিয়েও বুঝতে পারলো কারিবের ভাবমূর্তি। বুঝতে পেরে বললো,
“কী কারিব, ভালো হলো?”

কারিব বিস্ময়ের ঘোর নিয়ে তাকালো আষাঢ়ের দিকে। আষাঢ় এখনও এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে পাশের বাড়ির ব্যালকনিতে। কারিব থমথমে কণ্ঠে জবাব দিলো,
“না আষাঢ় ভাই, ভালো তো হলো না।”

আষাঢ় মৃদু হাসলো। কারিব তার হাসিটুকুও গভীর বিস্ময়ে দেখলো। শেষমেশ তার ধারণা সত্যি হয়ে গেল? কিন্তু কী করে? বলে উঠলো,
“আপনি কি সত্যিই নোয়ানার ব্যাপারে সিরিয়াস?”

আষাঢ় আরও দীর্ঘ হেসে বললো,
“তোমাকে সব কিছু খুলে বলার সময় এসেছে কারিব। নোয়ানার ব্যাপারে আমি সিরিয়াস নই, আমি বেপরোয়া। সে আমার বিশেষ। অনেক রাতের ঘুম কাড়া ব্যক্তি সে আমার। বহু বছর পর পেয়েছি তাকে, আর ছাড়ছি না। এমন কঠিন শেকলে আটকাবো যে কিছুতেই ছাড়া পাবে না। তার বিষাদ, বিষণ্ন চোখ জোড়া যে আমার ভীষণ প্রিয়। ওই চোখ সারাজীবনের জন্য দেখতে না পেলে তৃষ্ণা মিটবে না। আমার হৃদয় কেড়ে নিয়েছে সে, তার হৃদয়ও ছিনিয়ে আনতে চাই আমি। কিছুটা হয়তো এনেওছি। এখন সম্পূর্নটা চাই আমার।”
আষাঢ় থামলো। ক্ষণিকের বিরতি নিয়ে বললো, “ছাড়ছি না তোমায়, সত্যিই ছাড়ছি না টিউলিপ ফুল! তুমি আমার ব্যক্তিগত টিউলিপ। আমার প্রথম ভালো লাগা ছিলে। এমনকি ভালোবাসাও। তুমি আমার একমাত্র ভালোবাসা। তোমাকে কী করে ছাড়ি?”
কথাটা বলে অদ্ভুত হাসে আষাঢ়।

(চলবে)#বিবর্ণ_জলধর
#লেখা: ইফরাত মিলি
#পর্ব: ১৮
_____________

রাস্তার পাশে বেঞ্চিতে বসে আছে আষাঢ়। দেখতে দেখতে শরৎ বিদায় নিয়ে হেমন্ত এসে গেছে। হেমন্তেরও আছে নজর কাড়া রূপ। গাছ থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে পাতা ঝরে পড়ে এ সময়। রাস্তার উপর পড়ে আছে অজস্র ঝরা পাতা। বেঞ্চির যে একটুখানি জায়গা পড়ে রয়েছে সেখানেও তিনটা-চারটা পাতা নিজেদের দখল বসিয়েছে। রাস্তায় খুব বেশি একটা মানুষের চলাচল লক্ষ্যনীয় নয়। আষাঢ় বসে আছে তার টিউলিপ ফুলের অপেক্ষায়। টিউলিপ ফুলের সাথে তার আজ পনেরো দিনের ব্যবধানে দেখা হয়েছে। সেই যে হাতে ব্যান্ডেজ দেখেছিল এরপর আর টিউলিপ ফুলের দেখা পায়নি। আজ সকাল বেলা টিউলিপ যখন প্রয়োজনীয় জিনিস কিনে শপ থেকে ফিরছিল, তখন দেখা হয়েছিল। আষাঢ় দেখা হওয়া মাত্রই ব্যস্ত হয়ে পড়েছিল এতদিন কেন দেখতে পায়নি তাকে এ নিয়ে। অজস্র প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিল ছোট টিউলিপের কাছে। কিন্তু টিউলিপ একটা প্রশ্নেরও উত্তর দেয়নি, শুধু বলেছিল,
‘আমাদের প্রথম মিটের স্থানে আমরা আজকে দেখা করতে পারি…বিকেলে উপস্থিত থাকবেন, যদি দেখা করতে চান আমার সাথে।’

কথাটা বলে সব সময়ের ব্যস্ততা, ভয় নিয়ে দ্রুত পায়ে হেঁটে চলে গিয়েছিল সে। আষাঢ় তার কথা মতো এসে অপেক্ষা করছে এখন। অনেকটা সময় হয়ে গেছে। কিন্তু টিউলিপের দেখা নেই। মেয়েটা বিকেলে বললো ঠিকই, কিন্তু নির্ধারিত কোনো টাইম বললো না। এভাবে এতক্ষণ ধরে অপেক্ষা করা যায়? তবে আষাঢ় জানে টিউলিপ আসবে। না আসলে কখনো এই কথা বলতো না।
রাস্তার সুদূরে একটা ছোট মেয়ের আগমন দেখা গেল। গুটি গুটি পা ফেলে এগিয়ে আসছে। হাসি ফুঁটলো আষাঢ়ের মুখে। মেয়েটা কিছুটা কাছে এলে আষাঢ় তার পোশাকের দিকে খেয়াল করলো। নাতিশীতোষ্ণ আবহাওয়া আজকে। শীত পোশাকের প্রয়োজন আছে বটে, কিন্তু মেয়েটা অতিরিক্ত পুরু পোশাক পরে এসেছে। যেন এখন হেমন্ত চলছে না, এটা শীতকাল। মেয়েটার কাণ্ড-কলাপে হাসলো আষাঢ়। নিকটে এসে গেছে মেয়েটা। সামনে দাঁড়িয়ে আষাঢ়ের পাশে অবশিষ্ট বেঞ্চির একটুখানি ফাঁকা জায়গাটায় চোখ রাখলো সে। আষাঢ় মধ্যখানে বসে পুরো বেঞ্চি নিজে দখল করে রেখেছে। আষাঢ় মেয়েটার দৃষ্টি লক্ষ্য করে বললো,
“ও, তুমি বসবে?”
কথাটা বলতে বলতে আষাঢ় বেঞ্চির একপাশে সরে গেল। হাত দিয়ে বেঞ্চির অন্যপাশে পড়ে থাকা ঝরা পাতাগুলো ঝেড়ে ফেলে দিলো। মেয়েটা বসবে, কি বসবে না নিয়ে এক মুহূর্ত ভাবলো। বসলো সে আষাঢ়ের পাশে।
এই প্রথম দুজনের পাশাপাশি বসা হলো। এর আগে মেয়েটার সাথে পথে-ঘাটে, শপ কিংবা অন্য কোথাও দেখা হলেই মেয়েটা একপ্রকার পালানোর মতো করে চলে যেত। এড়িয়ে চলতো যেন। মেয়েটার আসল নামও জেনেছে খুব কষ্টে। মেয়েটা বলবে না বলে মুখে খিল এঁটে ছিল। কিন্তু আষাঢ় কি ছাড় দেয়! ঠিকই জেনে ছাড়লো। মেয়েটার সাথে তার পরিচয় তিন মাসের। এক এলাকা বলে মেয়েটার সাথে তার দেখা সাক্ষাৎ হতো। কিন্তু প্রতিদিন না। অনেক দিনের ব্যবধানের পর। আর দেখা হলেই মেয়েটার মুখে লেগে থাকা বিষাদ আর বিষণ্নতা দেখতে পেত সে। ওই বিষাদ আর বিষণ্নতার জন্যই মেয়েটার মুখ তার খুব প্রিয় হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে মেয়েটার চোখ। এখনও আষাঢ় মেয়েটার চোখ জোড়াতে চেয়েছিল। আজকে যেন চোখ জোড়াতে বেশি কষ্ট, বেশি বিষণ্নতা। আষাঢ় চোখ নিয়ে আর নিজের ভাবনা বাড়ালো না। বললো,
“স্ট্রেইঞ্জ! এতদিন তো আমার থেকে পালিয়ে বেড়াতে, আজকে এসে একেবারে আমার পাশে বসলে যে? সাহস হয়ে গেল না কি? ভেবে তো ছিলাম দেখা করার কথাটা শুধু আমাকে এমনি এমনি বলেছো, কিন্তু তোমাকে সত্যি এখানে দেখতে পেয়ে আমি আশ্চর্যান্বিত!”

মেয়েটা ক্ষণিকের জন্য আষাঢ়ের দিকে তাকালো, আবার চোখ সরিয়ে নিলো। মুখটা একেবারে কালোপূর্ণ তার।

আষাঢ় নোয়ানার বাম হাতে তাকালো। জ্যাকেটের নিচে ঢাকা পড়েছে বাম হাত। বললো,
“তোমার হাতের ক্ষত সেরেছে?”

মেয়েটা নিজের বাম হাতের দিকে তাকিয়ে আবার চোখ সরিয়ে নিলো। মুখে একটা কথা ফুঁটলো না।
আষাঢ় বিরক্ত নয়, তবুও একটু বিরক্তি নিয়ে বলার চেষ্টা করলো,
“আবারও বোবা সেজেছো তুমি? কথা বলবে না?”

মেয়েটার ভাবান্তর হলো না। ঠাঁয় নিশ্চুপ, নির্বিকার বসে রইল। আষাঢ়ও নিশ্চুপ হয়ে গেল। আজ মেয়েটার মৌনতা ভিন্ন। ওই মৌনতার উপর কথা বলা বেমানান ঠেকলো। মেয়েটার দিকে তাকিয়ে থাকলো শুধু। আর মেয়েটা আনমনা অন্যদিকে। নীরবই কেটে গেল কিছু সময়। মেয়েটা হঠাৎ উঠে দাঁড়ালো। শীতল স্বরে বললো,
“তোমার সাথে আর আমার দেখা হবে না।”
বলেই মেয়েটা হাঁটা দিলো।

আষাঢ় দাঁড়িয়ে গেল। চলন্ত মেয়েটার উদ্দেশ্যে বললো,
“দেখা হবে না মানে? কী বলছো?”

মেয়েটা দ্বিরুক্তি করলো না। হেঁটে চললো।

আষাঢ় চেঁচিয়ে ডাকলো,
“টিউলিপ!”

থামলো না মেয়েটা।

“স্টপ নোনা। আমাকে সবটা খুলে বলো। তোমার সাথে কেন দেখা হবে না আমার? এভাবে অর্ধকথা বলে চলে যাবে না। দাঁড়াও।”

মেয়েটা থামলো। দু চোখে অশ্রু। পিছন ফিরে আষাঢ় যেন শুনতে পায় সেজন্য উচ্চৈঃস্বরে বললো,
“নিউ ইয়র্ক ছেড়ে চলে যাচ্ছি আমি। খুব দূরে চলে যাব। তোমার সাথে তাই আর দেখা হবে না।”

এটুকুই ছিল মেয়েটার শেষ কথা। সে ঘুরে আবার হাঁটতে লাগলো। পিছনে ফেলে গেল কিছু তিক্ত অনুভূতি। নিজের ভিতরও কষ্ট হচ্ছে। যদিও কষ্ট তার ভিতর সব সময়ই বিদ্যমান। কিন্তু আজকের কষ্টটা একটু ভিন্ন গড়নের।
আষাঢ় স্তব্ধ হয়ে তাকিয়ে রইল মেয়েটার যাওয়ার পথে। মেয়েটা ঝাপসা হলো। এক সময় অদৃশ্য হয়ে গেল। পথ পড়ে রইল শূন্য!

_________________________________________________

জানালা দিয়ে প্রবেশকৃত রোদ্র আলোয় পিটপিট করে চোখ মেললো সিনথি। ঝাপসা চোখে প্রথমেই নজরে পড়লো পার্শ্বদেয়াল ঘেঁষে দাঁড়িয়ে আছে এক শ্যামবর্ণের যুবক। ঝাপসা চোখ মুহূর্তেই সচকিত হলো, চকিতে শোয়া থেকে উঠে বসলো সে। ভয়ের এক তান্ডব ছড়িয়ে পড়েছিল তার ভিতর। কিন্তু মানুষটা পরিচিত হওয়ায় ভয়টা কমলো। আষাঢ় হাসি মুখে উইশ ছুঁড়লো ঘুম কাতুর চেহারার সিনথির উপর,
“গুড মর্নিং সিনথিয়া!”

সিনথি অপ্রস্তুত ভাবে উইশটা গ্রহণ করলো,
“গুড মর্নিং।”

“তুমি এমনিতে দেখতেই অপরূপ সুন্দরী, এমন ঘুম ঘুম অবস্থায় দেখতে আরও সুন্দর লাগছে। অগোছালো চুলগুলো পরিপাটি করে নিয়ো তাড়াতাড়ি, যেকোনো ছেলে তোমার এই রূপ দেখলে পাগল হয়ে যাবে তো।”

সিনথি আষাঢ়ের কথায় লজ্জা পেয়ে সলজ্জ হাসলো।

আষাঢ় ভেবেছিল মেয়েটা তার এমন কথায় রাগবে। রাগের ছায়া দেখতে পাবে মুখে। কিন্তু মেয়েটার লজ্জা পাওয়ার বিষয়টা আরও ভালো লাগলো তার। বলে ফেললো,
“লজ্জা পেলেও তোমাকে দারুণ সুন্দর লাগে।”

সিনথি আরও লজ্জায় পড়লো। চোখ তুলে তাকাতে পর্যন্ত পারলো না।
আষাঢ় মনে মনে হাসলো। সিনথির সলজ্জ মুখটা ভালো করে দেখে বললো,
“তৈরি হয়ে থেকো আমার হবু বউ। তোমাকে বাইরে ব্রেকফাস্ট করাতে নিয়ে যাব আমি। আর বেশি সাজার দরকার নেই। তোমার বিনা সাজপূর্ণ রূপ দেখেই আমি মুগ্ধ, বেশি সাজলে মাথা ঠিক নাও থাকতে পারে।”

আষাঢ় আর এখানে থেকে মেয়েটার লজ্জা বাড়াতে চাইলো না, ঠোঁটে মুচকি হাসি ধরে রেখে বেরিয়ে গেল।
কারিব দাঁড়িয়ে ছিল দরজার বাইরে। আষাঢ় বের হতেই সে বললো,
“আপনার ব্যাপার আমি কিছুই বুঝতে পারছি না। কালকেই তো বললেন, এটা ঠিক হয়নি। তাহলে আজকে আবার এরকম করছেন কেন?”

আষাঢ় সিঁড়ির দিকে যেতে যেতে নিশ্চিন্ত সুরে উত্তর দিলো,
“আমার যে হিস্ট্রি, তাতে কোনো মেয়ে আমাকে সহজে বিয়ে করবে না কারিব। তোমার কী মনে হয়? এই মেয়ে যদি আমার গার্লফ্রেন্ড হিস্ট্রি জানে বিয়ে করবে আমায়? উহু, কিছুতেই না। আমার ব্যাপারে সবটা জেনেশুনে একমাত্র নোয়ানাই নিঃসন্দেহে ভালোবাসতে পারে আমায়। কারণ, সে জানে, শুধু তার প্রতিই আমার ভালোবাসাটা প্রকৃত। তাই অন্য সবার ক্ষেত্রে এটা ডিফিকাল্ট। এ মেয়ে আমার হিস্ট্রি জানলে আমাকে বিয়ে করার বদলে, আজই ইন্ডিয়া ব্যাক করবে।”

আষাঢ়ের ঠোঁটে বাঁকা হাসি দেখতে পেল কারিব। যা বোঝার বুঝে নিলো সে। বললো,
“মেয়েটা যদি মামার কাছে বলে বড়ো কোনো ঝামেলা লাগিয়ে দেয়? আপনি তো চেনেন আপনার আব্বুকে। শ্রাবণ ভাই তো তেজ্যপুত্র হওয়া থেকে রেহাই পেয়েছে বিয়েটা করে। কিন্তু আপনি কী করবেন? আপনার ক্ষেত্রে বিয়ের মতো কোনো অপশন না’ও রাখতে পারে।”

“মোবারক কারিব! আমাকে তেজ্যপুত্র করে দিলে আমার ভাগের সম্পত্তিটা নিশ্চয়ই আব্বু তোমার নামেই করে দেবে। তোমার যদি দয়া-টয়া হয় তাহলে আবার সম্পত্তিটা আমার নামে উইল করে দিয়ো।”
কথাটা শেষ করে ফিক করে হেসে ফেললো আষাঢ়।

“সিরিয়াস মুহূর্তে আপনি মজা করছেন? আমার আসলেই টেনশন হচ্ছে।”

“ডোন্ট ও্যরি, মেয়েটা কিছুটা বোকা ধরণের। বড়ো কোনো ঝামেলা হবে না আশা করছি। একটু-আধটু ঝামেলা না হলে ব্যাপারটা সলভ হবে কী করে?…তোমার টিউলিপ ভাবির খবর কী? জ্বর কি এখনও আছে তার?”

কাল রাতে কারিব সবটাই জেনেছে নোয়ানা আর আষাঢ়ের ব্যাপারে। আষাঢ় আর নোয়ানার আগে কোথায়, কীভাবে, কখন, কীরকম দেখা হয়েছে সব। এমনটা হতে পারে আশা করেনি কারিব। আষাঢ় নোয়ানার সাথে আমেরিকা থাকতেই পরিচিত। নোয়ানা আমেরিকা ছিল! কিন্তু কীভাবে কী সম্ভব বুঝতে পারছে না। কালকে রাতে আষাঢ়ের কাছ থেকে ওসব জানার পর আজ ভোরে মসজিদে নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় কবির সাহেবকে জিজ্ঞেস করেছিল,
‘ইদ্রিস খান কি আমেরিকা গিয়েছিল কখনো?’ আষাঢ়ই জিজ্ঞেস করতে বলেছিল এটা। নিজেরও আগ্রহ ছিল। কবির সাহেব বলেছেন, না, ইদ্রিস খান আমেরিকা যায়নি কখনো। আর হঠাৎ করে এমন প্রশ্ন করার মানেও জানতে চাইছিলেন। কারিব প্রশ্নটা এড়িয়ে গেছে কোনো রকম। এমনিই জানতে চেয়েছে এমন একটা ভাব প্রকাশ করেছে। আষাঢ়ের পাশাপাশি এখন সেও খুব চিন্তিত নোয়ানার ব্যাপারটা নিয়ে। তার মনে হচ্ছে আষাঢ়ের ধারণাই সত্যি। নোয়ানার বায়োডাটা হাতে পেলেই সবটা খোলাসা হবে। এর আগেও খোলাসা করা যায়, কিন্তু আষাঢ় বলেছে এ নিয়ে কোনো মানুষের মনে প্রশ্ন ঢুকাবে না। সবটা আমি-ই দেখবো। বাস, সেও আষাঢ়ের মতো ধৈর্য ধরে সবটা জানার কৌতূহলে আছে।

“টিউলিপ ভাবি এখন প্রায় সুস্থ। কাল থেকে ভার্সিটি যাওয়া শুরু করবেন বোধহয়।”

আষাঢ় কালকে কারিবকে নোয়ানাকে ‘টিউলিপ ভাবি’ বলে সম্মোধন করতে বলেছে। সেজন্য কারিব নোয়ানাকে টিউলিপ ভাবি বলেই সম্মোধন করছে।

“বাড়িতে আমার হবু বউ এসেছে এই খবরটা নিশ্চয়ই এখনও নোয়ানার কাছে অজ্ঞাত নেই। ভাবি কাল সন্ধ্যা থেকে ও বাড়িতে, কথায় কথায় জানিয়ে দিয়েছে নিশ্চয়ই। আর খবরটা পাওয়ার পর নিশ্চয়ই নোয়ানার হৃদয়ে দহন শুরু হয়েছে এখন। হোক। একটু-আধটু দগ্ধ হোক তার হৃদয়। পুরোটা পুড়ে যাওয়ার আগে পানি ঢেলে আগুন নিভিয়ে দেবো। তারপর মেরামত করে আবার তার হৃদয়ের ক্ষত সারবো।”

_________________

“আমার জীবন পুরো ধ্বংস হয়ে গেল নোয়ানা, পুরো ধ্বংস! বিয়েটা করা কী পরিমাণ ভুল হয়েছে হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছি আমি। ইদানিং নিজের মাঝে বউ বউ একটা ফিল পাই। শ্রাবণের সাথে রুমকিকে একদম সহ্য হয় না আমার। রুমকির সাথে তাকে কথা বলতে দেখলে রাগে গা জ্বলে যায়, সাথে হৃদয়টাও পুড়ে।”
আফসোস, রাগ, কষ্ট তিনটা সুরই ফুঁটে উঠলো মিহিকের কথায়। রুমে এখন শুধু সে আর নোয়ানা। এমন সুযোগে নোয়ানার কাছে মনের দুঃখ প্রকাশ করছে সে।

নোয়ানা বললো,
“রুমকির সাথে তাকে সহ্য করতে পারো না এটা কেন বলছো না তাকে? রুমকির সাথে কেন কথা বলতে দিচ্ছ তাকে? কোনো স্ত্রীই এটা সহ্য করতে পারে না, তুমি কেন সহ্য করবে? তাকে নিষেধ করো। কষ্টটা নিজে নিজে লালন না করে তার কাছে বলে দাও। বলে দিলে তো কিছুটা…”

“কী বলবো আমি? রুমকিকে যে সে ভালোবাসে সেটা তো আমি বিয়ের আগে থেকেই জানতাম। রুমকিকে ভালোবাসে বলে রুমকির বিয়ে পর্যন্ত ভেঙে দিয়েছে সে, আমার সাথে দেখা করেও বলেছিল রুমকিকে ভালোবাসে। রুমকির প্রতি তার ভালোবাসা অনেক আগের। এখন আমি কী করে বলবো তাকে যে, আপনি রুমকির সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করুন? এটা বলার মুখ যে আমার নেই!”

“তাহলে কী করতে চাইছো তুমি? এরকম চুপ করে থাকলে তো সে শুধরাবে না। তাকে কিছু বলো, নয়তো তার মা-বাবার কাছে বলে দাও তার ঘটনা। লায়লা আন্টি না কি তোমাকে বলেছিল, যদি এই বিয়ে নিয়ে তোমাকে আফসোস করতে হয়, তাহলে এর শাস্তি সে নিজে মাথা পেতে নেবে? তো তাদের কাছে বলে দাও। চুপ করে থাকলে তো কোনো গতিই হবে না। জীবন তো আর এভাবে চলতে পারে না।”

“তাদের কাছে বলে দিলে বড়ো একটা ঝামেলা হবে। আমি চাইছি আরেকটু ধৈর্য ধরে দেখবো। এর মাঝেও যদি শ্রাবণের কোনো পরিবর্তন না হয়, তাহলে সত্যি সত্যি বলে দেবো শ্বশুর-শাশুড়ির কাছে। এটা আসলেই সহ্য করতে পারছি না আমি।”

রুমের দরজায় তিন্নির পুলকিত মুখ দেখা গেল।
“আপু, দুলাভাই এসেছে।”

“কে এসেছে?”

“দুলাভাই।”

নোয়ানা বলে উঠলো,
“ওই দেখো, বউকে ছাড়া সারা রাত একা ছিল বলে বর আজ শ্বশুর বাড়িতে এসে উপস্থিত হয়েছে। সম্পর্কটা খাট আর ফ্লোরে থাকলে হবে কী, মনের টান আছে কিন্তু।”

মিহিক চোখ গরম করলো। নোয়ানা হাসলো।

লিভিং রুমে এসে সত্যি সত্যি শ্রাবণকে বসা দেখতে পেল মিহিক। হাফিজা কথা বলছিলেন, মিহিককে দেখে কথার সমাপ্তি ঘটালেন। উঠে এসে বললেন,
“কথা বল, আমি কিছু নাস্তা নিয়ে আসছি।”

হাফিজা চলে গেলেন। মিহিক কাঠ গলায় জানতে চাইলো,
“আপনি এখানে এসেছেন কেন?”

শ্রাবণ এসেছে মূলত মিহিকের জন্যই। কাল সারা রাত মিহিক বাবার বাড়িতে ছিল, সকালেও বাড়ি ফেরার নাম নেয়নি। আজকেও ফিরবে না বলে তার ধারণা। সে বিষয়েই খোঁজ নিতে এসেছে। কিন্তু বাইরে তো এটা প্রকাশ করতে পারবে না। বললো,
“নোয়ানাকে দেখতে এসেছি। ওর জ্বর কেমন? সুস্থ হয়েছে?”

নোয়ানা তখনও লিভিং রুমে এসে পৌঁছয়নি, এসে সালাম জানালো শ্রাবণকে। শ্রাবণ সালামের উত্তর দিয়ে বললো,
“জ্বর কেমন এখন?”

“আলহামদুলিল্লাহ! জ্বর নেই এখন।”

শ্রাবণ হেসে নিজের অভিব্যক্তি জানালো। নোয়ানা মিহিকের কঠিন মুখখানি দেখলো একবার। কাল যে শ্রাবণের সাথে ঝগড়া করে এখানে থেকেছে মিহিক, সেটা আর কেউ না জানলেও সে জানে। বললো,
“আপনি সত্যিই আমাকে দেখতে এসেছেন? না কি নিজের বউকে দেখতে এসেছেন?”

নোয়ানার প্রশ্নে ঘাবড়ে যায় শ্রাবণ। কিন্তু ঠোঁটে হাসির রেখা টেনে ঢেকে দেয় সেটা। তার ধারণা বাকি সবার মতো নোয়ানাও জানে তাদের সম্পর্কটা স্বাভাবিক। মিহিক যে নোয়ানাকে সব বলে দিয়েছে সেটা তার অজানা। বললো,
“বউ তো সব সময় আমার কাছেই থাকবে। তাকে দেখার জন্য তো আর আলাদা করে এখানে আসতে হবে না। তোমাকে দেখতেই এসেছি।”

হাসলো নোয়ানা। শ্রাবণ যে তাকে দেখতে আসেনি এটা ভালো করেই বুঝতে পারছে সে। ভালো লাগলো ব্যাপারটা।
মিহিকও একটু একটু বোঝার দ্বারপ্রান্তে আছে। তিন্নি সোফার উপর বসে বললো,
“শুনলাম, আপনাদের বাড়িতে না কি মেহমান এসেছে? আপনার ভাইয়ের হবু বউ? আপনার ভাইয়েরও না কি তাড়াতাড়ি বিয়ে হয়ে যাবে?”

তিন্নির প্রশ্ন শুনে নোয়ানার মুখ থেকে হাস্যভাব সরে গেল। আঁধার নামলো যেন আননে। বুকের ভিতর এক চাপা কষ্ট অনুভব হয়। চিনচিনে এক ব্যথা। আষাঢ়ের হবু বউ এসেছে সেটা কাল মিহিক আসার পরপরই জেনেছে। মিহিকের আবার অতিথিতে এলার্জি আছে। বাড়িতে মেহমান আসলে কেমন একটা অস্বস্তি হয় তার। নিজের মতো করে সময় কাটাতে পারে না। তাই কাল এসেই নিজের অস্বস্তির ঝুড়ি খুলে বসেছিল। তখন কথায় কথায় আষাঢ়ের হবু বউয়ের কথাও জানতে পারলো।

শ্রাবণ মিহিকের দিকে তাকিয়ে তিন্নিকে বললো,
“তোমার বোন বলেছে?”

তিন্নি মাথা নাড়লো।

“হ্যাঁ, আষাঢ়েরও খুব শীঘ্রই বিয়ে হবে। দুজনের দুজনকে পছন্দ হলে বিয়েটা কনফার্ম।”

শ্রাবণ কিছু সময় থাকলো। হাফিজা নাস্তা দিলেন। শ্রাবণের খাওয়ার ইচ্ছা ছিল না। কিন্তু দেওয়ার পর না খেয়েও তো পারা যায় না। এটা আবার তার শ্বশুর বাড়ি। খেলো অল্প পরিমাণ। যাওয়ার সময় দরজা দিয়ে নামাকালীন হঠাৎ আবার ঘুরে মিহিককে প্রশ্ন করলো,
“আপনি কি আজও বাড়ি ফিরবেন না?”
এটাই জানার ছিল শ্রাবণের।

মিহিক প্রশ্নটা শুনে খুশি হলো। মনে হলো শ্রাবণ তাকে একটু হলেও ভাবা শুরু করেছে। নোয়ানা আর তিন্নির দিকে একবার তাকিয়ে শ্রাবণের কাছে গেল সে। বেশ কঠিনভাবে বললো,
“আমি না গেলে আপনি খুশি হবেন?”

শ্রাবণ যত্নশীল ভাবেই প্রশ্নটা করেছিল, কিন্তু মিহিকের এমন কথায় খারাপ লাগলো তার। সেও কঠিনভাবে বললো,
“আজ বিকেলেই বাড়ি ফিরবেন। এরকম করে বাবার বাড়িতে এসে থাকলে, আরও বেশি সন্দেহ করবে সবাই।”
শেষের কথাটা আস্তে বললো।

মিহিক বুঝতে পারলো শ্রাবণ শেষের কথাটা অহেতুক ইউজ করেছে। বুঝতে পেরেও বললো,
“আপনার কথাটা শুনে ভালো লেগেছিল, কিন্তু শেষের কথাটা শুনে ভালো লাগা রইল না। সন্দেহ করবে বলে আপনি আমাকে বাড়ি ফিরতে বলছেন, নয়তো আমি বাড়ি ফিরলাম, কি ফিরলাম না এ নিয়ে আপনার মাথা ব্যথা নেই, তাই তো?”

“আপনি সব সময় বেশি বোঝেন।”

“আর আপনি সব সময় বেশি বলেন। শেষের কথাটা না বললেই তো হতো।”

শ্রাবণ আর বলার ভাষা পেল না। চুপসে গেল একেবারে। মুখ বন্ধ রেখেই চলে যায় সে। নোয়ানা কাছে এসে নিচু স্বরে বললো,
“মনে তো হচ্ছে বউয়ের দিকে একটু একটু করে মনোযোগ ঘুরছে।”

“ওনাকে তুই চিনিস না, উনি হলেন শয়তানের ছোট ভাই।”

“কিন্তু উনি তো বড়ো ভাই।”

নোয়ানার কথায় হেসে ফেললো মিহিক। সাথে নোয়ানাও হাসলো।

________________

আষাঢ় বেরিয়েছে সিনথিকে নিয়ে। ঘড়ি এখন দশটা বারো ছুঁই ছুঁই। তাড়াতাড়ি বের হবে ভেবেও লেট করেই বের হলো তারা। লেট অবশ্য সিনথি করেছে। গাড়িতে শুধু সে আর সিনথি। কারিবকে ছাড়া এই প্রথম বাইরে বের হলো আষাঢ়। এবার বাংলাদেশ এসে গাড়িও ড্রাইভ করছে প্রথম। গাড়িতে ওঠার পর থেকে মেয়েটা মোবাইল নিয়ে পড়ে আছে। আষাঢ় নিজের দিকে মনোযোগ আনার চেষ্টায় বললো,
“আমাদের দুজনের ব্যাপারে যেহেতু একটা বিয়ে বিয়ে ভাব জড়িয়ে গেছে, সেহেতু আমি মনে করি কিছু বিষয় আমাদের ক্লিয়ার হয়ে নেওয়া দরকার।”

মেয়েটার মনোযোগ খুব একটা আকর্ষণ করা গেল না। সে মোবাইলে ব্যস্ত থেকেই নির্বিকার ভাবে বললো,
“যা বলতে চাও বলো, বা যা জানতে চাও।”

“বয়স কত তোমার?”

“বয়সটা কি বেশি ইম্পরট্যান্ট?”

মেয়েটার কথা বলার ধরণ আষাঢ়ের ভালো লাগছে না। কেমন কাঠ কাঠ গলায় উত্তর দিচ্ছে। ভেবেছিল মেয়েটা বোকা ধরণের, কিন্তু এখন ধারণায় ভুল হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। বললো,
“যাকে বিয়ে করবো তার বয়স জানা একটা ইম্পরট্যান্ট বিষয়ই বলা চলে।”

“তেইশ।”

“তার মানে দুই বছরের জুনিয়র আমার। পারফেক্ট একেবারে।”

“তিন বছরের ব্যবধান হলে পারফেক্ট হতো বলে আমার ধারণা। তুমি আরও বড়ো হলে ভালো হতো।”

“পঁচিশ বছরের যুবক বিয়ে করতে অসুবিধা তোমার? তুমি পঁয়ত্রিশ বছরের যুবতী হলেও কিন্তু আমার আপত্তি ছিল না। যাই হোক, কী করো তুমি?”

“পড়ালেখার পাশাপাশি একটা বিউটি পার্লার চালাই।”

“ও, ভালো ব্যাপার।”

“আমার কাছে ভালো লাগে না। টাকা ইনকাম হয় বলে করি। বিয়ের পর কোনো কাজ করবো না আমি, শুধু বাড়িতে বসে থাকবো।”

“কিন্তু আমি তো চাইতাম আমার ওয়াইফ চাকরিজীবী হোক।”

“ওসব আমার দ্বারা সম্ভব নয়, সুতরাং ভুলে যাও।”
মেয়েটার স্পষ্ট জবাব একেবারে। আষাঢ়ের মোটেই ভালো লাগছে না যা।
বললো,
“বয়ফ্রেন্ড আছে তোমার?”

“না। আর ছিলও না কোনোদিন। ইন্ডিয়ান কোনো ছেলেদের পছন্দ হয় না বলে কখনও কারো গার্লফ্রেন্ড খেতাব পাইনি।”
মেয়েটার এ উত্তরও একেবারে সফট।

আষাঢ় গলায় কেমন ভাব ধরে বললো,
“বয়ফ্রেন্ড নেই তোমার?”
প্রশ্নটা এমন ভাবে করলো যেন বয়ফ্রেন্ড না থাকার মতো আশ্চর্যকর বিষয় আর নেই।

“না, নেই। এমন করে বলছো কেন? তোমার কত গার্লফ্রেন্ড আছে? দুইশ-তিনশ?”

আষাঢ় হাসলো। মেয়েটার সকল ফুটন্ত বুলি এখনই নিভে যাবে। বড়ো করে এক নিঃশ্বাস ত্যাগ করলো সে। তারপর বলতে শুরু করলো,
“দশ বছর বয়স থেকে আমি আমেরিকাতে বড়ো। বাংলাদেশের কালচারে বেড়ে উঠিনি বললেই চলে। আমার রক্তে রক্তে আমেরিকার কালচার মিশে আছে। শুধু একটা কালচার আমার সাথে জড়িত নয়, এ বাদে সবকিছু আমার অভ্যস্ত। উনিশ বছর বয়সে সবচেয়ে খারাপ একটা ভাইরাসে ধরেছিল আমায়। যেটা এখনও পিছু ছাড়েনি। সেই খারাপ ভাইরাসটি কী, জানো? সেটা হলো মেয়ে। উনিশ বছর বয়স থেকেই আমি মেয়েতে পাগল হয়ে উঠেছি। পাগল মানে সেরকম পাগল নয়। কথা-বার্তা, ঘোরা-ফেরা, দেখা-সাক্ষাৎ দ্যাটস অল। এর বেশি কিছু নয়। বেশি কিছু না হলেও, এটা খুব খারাপ একটা বিষয় কিন্তু। বিচ্ছিরি খুব। আজ পর্যন্ত আমার কতগুলো গার্লফ্রেন্ড ছিল তা গুনে শেষ করা যাবে না। আমার কাছে গার্লফ্রেন্ড বিষয়টিতে আবার দুটো ভাগ রয়েছে। একটা হলো- স্বল্প সাময়িক গার্লফ্রেন্ড, আরেকটি হলো- স্থায়ী গার্লফ্রেন্ড। এই স্বল্প সাময়িক গার্লফ্রেন্ডে যে কত মেয়ের আসা যাওয়া হয়েছে তার হিসেব নেই। তবে স্থায়ী গার্লফ্রেন্ডের ক্ষেত্রটি ছোট। এটাতে মাত্র পাঁচজন সদস্য। এরা প্রত্যেকে আমার ভীষণ প্রিয়। বয়ফ্রেন্ড হিসেবে আমি খুব একটা ভালো নই, তবুও এরা কেউ আমাকে ছেড়ে যায়নি। চাই যেন কেউ না যায়। কারণ, ছেড়ে এলে আমি আসবো, তাদের ছেড়ে যাওয়া আমার মোটেই পছন্দ হবে না। আমেরিকাতে আমি সব সময় গার্লফ্রেন্ড নিয়েই থাকি। কেউ এই স্বল্প সাময়িক গার্লফ্রেন্ড হলে, এই আবার শেষ। নিত্য নতুন স্বল্প সাময়িক গার্লফ্রেন্ড বানানো আমার অভ্যাস। বাংলাদেশে এই অভ্যাসটা খুব একটা কাজ করে না, কিন্তু আমেরিকাতে অভ্যাসটা পাগলের মতো। বুঝতে পারছো আমি কী বলছি?”
আষাঢ় বাড়িয়ে বাড়িয়েও বললো কিছু।
পাশ ফিরে সিনথির দিকে তাকালো।

সিনথি ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে আছে। আষাঢ় মনে মনে বিজয়ী হাসে। চোখ সরিয়ে এনে বললো,
“বুঝতে পারছি আমার কথা তোমার কাছে বিশ্বাসযোগ্য ঠেকছে না, কিন্তু এটা চিরন্তন সত্য। আমি চাইনি আমার ব্যাপারে কোনো কিছু লুকায়িত থাকুক। নিজের সম্পর্কে এত বড়ো একটা কাহিনী লুকিয়ে আমি বিয়ে করবো, এমন কাপুরুষ আমি নই। যাতে কোনো ভুল বোঝাবুঝি না হয় এজন্য ডিরেক্ট সবকিছু জানিয়ে দিলাম তোমায়। এখন যদি তোমার মনে হয় আমার মতো একটা ছেলেকে তুমি বিয়ে করবে না, তাহলে কোনো সমস্যা নেই। বিয়ে করবে কি করবে না এটা তোমার একান্ত নিজ ব্যাপার। তুমি এটা তোমার ফ্যামিলিকে জানাও। এমনকি আমার আম্মু-আব্বুর কাছে আমার হিস্ট্রি তুলে ধরেও তুমি বিয়েতে অস্বীকৃতি জানাতে পারো। তুম…”

“অস্বীকৃতি কেন জানাবো?” আষাঢ়ের কথার মাঝে শোনা যায় সিনথির শীতল কণ্ঠ।
আষাঢ় সিনথির দিকে তাকালো। সিনথির ঠোঁটে মুচকি হাসি। চেহারা স্বাভাবিক। আষাঢ়ের কপালে ভাঁজ পড়ে।

“এতক্ষণ যা বললে নিজের সম্পর্কে, তা সব কিছুই তো স্বাভাবিক।”

আষাঢ়ের মনে হলো সে শক্তি হারাচ্ছে। গাড়ি ড্রাইভ করার শক্তি আর তার নেই। পার্কিং সাইডে গাড়ি নিয়ে গাড়ি পার্ক করলো সে। সিনথির দিকে তাকালো অগাধ বিস্ময়ে।

সিনথি বললো,
“হুম এসব তো স্বাভাবিক ব্যাপার। আজকাল ছেলেদের এত এত গার্লফ্রেন্ড থাকতেই পারে, কোনো ব্যাপার না। এই এতটুকু সামান্য ব্যাপারের জন্য আমি বিয়েতে অস্বীকৃতি জানাবো এর তো প্রশ্নই আসে না। আর সবচেয়ে বড়ো কথা হলো, তোমাকে প্রথম দেখাতেই ভালো লেগেছিল আমার। যে ভালো লাগাটা সব ছেলেদের প্রতি আসে না। তোমার মাঝে কী লুকায়িত আমি ঠিক বুঝতে পারছি না। আমি তোমাকে যত দেখছি ততই মুগ্ধ হচ্ছি। নিজের সম্পর্কে বলা তোমার এমন অকপটে কথাগুলো শুনে তো মনে হচ্ছে আমি তোমার প্রেমে পড়ে গেছি। এত সুন্দর কেন তুমি বলো তো?”

আষাঢ় বাকরুদ্ধ। এ মেয়ে বলছে কী এসব! আষাঢ় কোনো রকম বলতে সক্ষম হলো,
“আমি যা বলেছি তাতে তুমি অবাক হওনি? খারাপ লাগেনি তোমার? আমার প্রতি ঘৃণা হয়নি?”

“অবশ্যই না। যাকে বিয়ে করবো তার প্রতি ঘৃণা কেন হবে? তুমি আমার হৃদয়টা কেড়ে নিয়েছো আষাঢ়। তোমার এসব ক্ষুদ্র খুঁতগুলো আমি গণনায়ও ধরবো না। তোমাকে আমার মনে লেগে গেছে। বিয়ে না করে থাকা যাবে না তোমায়। আর তোমার এই গার্লফ্রেন্ড বিষয়টাতে আমার খারাপ লাগার বদলে, বেশ ইন্টারেস্টিং লেগেছে। অবশেষে ভিন্ন ধরণের মনের মতো একটা মানুষ পেলাম। চিন্তা করো না, তোমার আর আমার বিয়েটা হয়ে যাবে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here