ভালোবাসি_বলেই_তো ♥️ লেখিকা – #আদ্রিয়া_রাওনাফ পর্ব – ১২

0
26

 

আবরন পূর্ণতার হাত ধরে ওকে নিয়ে ভিতরে প্রবেশ করছিল , তাই ফাহিম আর তাসিন ও আবরন পূর্ণতার পেছন পেছন প্রবেশ করতে লাগল ।

পূর্ণতাকে নিয়ে আবরন সোজা দোতলায় গেল । দোতলায় বিশাল বড় স্পেস । আবরন পূর্ণতার দিকে তাকিয়ে ওকে চোখ দিয়ে ইশারা করে একদম ভিতরে কর্নারে থাকা টেবিলটা দেখালো । পূর্ণতা আবরনের ইশারা অনুযায়ী সেদিকে তাকাতেই লক্ষ‍্য করল সেখানে একজন কাপল বসা । তবে তারা আননোউন না পূর্ণতার কাছে । পূর্ণতা ভ্রু কুচকে আবরনের দিকে তাকাতেই আবরন ঠোঁটে বাকা হাসি দিয়ে বলল ,

– সারপ্রাইজ !!

– কিভাবে কি আপনারা আমাকে একটু বলবেন ?? মানে আয়মান ভাইয়া আর প্রেনা একসাথে !! আই মিন এর মানে কি দাঁড়াচ্ছে ??

আবরন পূর্ণতার দিকে তাকিয়ে দুষ্টু দুষ্টু ফেস করে বলল ,

– কেন বুঝো না ?? ফাহিম ওকে একটু বুঝিয়ে দে তো !

ফাহিম দাঁত কেলিয়ে বলল ,

– দে আর ইন লাভ !! 😁

পূর্ণতা রেগে মেগে সেদিকে এগিয়ে গিয়ে প্রেনা আয়মানের ঠিক পেছনের সিটে বসল ।
সিটের উচ্চতা বেশি হ‌ওয়াতে প্রেনা আয়মান খেয়াল করল না ওকে ।

পূর্ণতার হাব ভাব খারাপ বুঝে আবরন এগিয়ে গেল ঐদিকে । আবরনকে এগোতে দেখে ফাহিম আর তাসিন ও গেল পিছু পিছু ।

সবাই এক টেবিলে বসতেই পূর্ণতা বলল ,

– আপনারা কি করে জানলেন ওরা এখানে আছে ??

আবরন পূর্ণতা কে বলতে শুরু করলো আস্তে আস্তে করে ।

ফ্ল‍্যাশব্যাক ———-

ঘুম থেকে জেগেই নাস্তার টেবিলে বসে ফাহিম আবরনকে বলল ,

– দোস্ত , আয়মান যে রিলেশনে আছে সেটা কি তুই জানতি ??

আবরন ভ্রু কুচকে বলল ,

– না তো !! কার সাথে ??

– ঐযে পূর্ণতার বেষ্ট ফ্রেন্ড ….. কি যেন নাম !!

তাসিন বলল ,

– প্রেনা নাম !

আবরন অবাক হয়ে বলল ,

– জল এত দূর গড়িয়ে গেল আর আমি টের ই পেলাম না !!

তাসিন বলল ,

– প্রেনা তখন সিক্রেট গ্যালারিতে ঢুকতে চেয়েছিল , ওর নাকি পূর্ণতার সাথে কি কথা ছিল । আমরা ঢুকতে দিই নি , তারপর দেখলাম রাগ দেখিয়ে চলে যাচ্ছিল আর তখন আয়মান ও ওর পেছনে ছুটে যাচ্ছিল ।

আবরন বলল ,

– তাহলে রহস্য উদঘাটন হলো !! পূর্ণতা তো প্রেনার সাথে অভিমান করে আছে । ঐদিন রাতে পূর্ণতা প্রেনাদের বাসায় ছিল , মাঝরাতে নাকি প্রেনাকে কথা বলতে দেখেছে কারো সাথে ! এরপর থেকেই রেগে আছে ।

ফাহিম বলল ,

– তাহলে এখন কি করবি !!

আবরন মুচকি হেসে বলল ,

– শোন তোরা দুইজন মিলে ওদের দুইজনের উপর আজকে সারাদিন খেয়াল রাখ , কোথায় যায় , কি করে সব ডিটেইলস্ আমাকে দিতে থাকবি ।

– ওকে । ( ফাহিম আর তাসিন রাজি হয়ে )

বর্তমান ———-

আবরন বলছে ,

– ফাহিম আর তাসিন আমার কথা মতো ওদের দুইজনকে ফলো করতে করতে এই রেস্টুরেন্টের সামনে এসে পৌঁছায় । তারপর আমাকে জানায় , আর আমি সারপ্রাইজ দিতে তোমাকে নিয়ে আসি ।

পূর্ণতা দীর্ঘ শ্বাস ফেলে কিছু না বলে ওয়েটারকে ইশারা দিতেই ওয়েটার এসে হাজির হলো ।

– ইয়েস ম্যাম ! কি অর্ডার করতে চাচ্ছেন ?

পূর্ণতা মুচকি হেসে বলল ,

– আমার একটা প্ল‍্যান আছে !!

আবরন , তাসিন , ফাহিম ওর প্ল‍্যান শুনে দাঁত কেলিয়ে রাজি হলো ।

পূর্ণতা ওয়েটারকে বলল ,

– আপনি লিখুন !

চারটা নাগা বার্গার , দুইটা হট ডগ , ফ্যামিলি সাইজ বারবিকিউ চিকেন , ফ্রেঞ্চ ফ্রাই , চারটা কোল্ড ড্রিংকস ।

কিছুক্ষণ ওয়েট করতেই একটা একটা করে সব আসতে লাগল ।

আবরন বলল ,

– এক ঘন্টা আগে নাস্তা করেছি সবাই ,এত গুলো খেতে পারবো !!

পূর্ণতা বলল ,

– সেসব চিন্তা করবেন না , খেতে থাকুন , বাকি সব আয়মান ভাইয়া আর প্রেনা খাবে ।

ফাহিম হেসে আস্তে করে বলল ,

– তোমার মাথায় বুদ্ধি আছে !

পূর্ণতা হাসল ।

ওরা খেয়ে দেয়ে ওয়েটারকে বলল ,

– ভাইয়া , বাকি খাবার গুলো আমাদের পেছনের সিটে বসা আপু আর ভাইয়াকে দেন । আমরা একসাথেই । আর বিল টা ও ওরাই দিবে ।

ওয়েটার ওদের কথা মতো কাজ করলো ।

প্রেনা আর আয়মান কথা বলছিল যে কি করে বাকিদের এই বিষয়টা জানাবে যে ওরা রিলেশনে আছে আর হঠাৎ তখন ওয়েটার ওদের টেবিলে এক গাদা খাবারের প্লেট দিতে শুরু করল ।

আয়মান আর প্রেনা অবাক হয়ে তাকালো ।

আয়মান বলল ,

– এক্সকিউজ মি !! এগুলো তো আমরা অর্ডার করি নি ।

– আপনার সাথের গ্ৰুপ অর্ডার করেছিল ।

প্রেনা ভ্রু কুচকে বলল ,

– মানে ?

– ইয়েস ম্যাম । এই নিন বিলের রিসিট ।

বিল দেখে আয়মান অবাক হয়ে বলল ,

– ভাই , আপনার মিসটেইক হচ্ছে !

তখন আবরন উঠে দাঁড়িয়ে বলল ,

– আরে মিসটেইক হবে কেন ? ঠিক‌ই তো আছে । আমরা তো তোর‌ই সাথে ! বিল টা দিয়ে দে ।

আয়মান আর প্রেনা ৪৪০ ভোল্টের ঝটকা খেল । আয়মান বলল ,

– দোস্ত , তুই একা এত কিছু খেয়েছিস !!

তখন ফাহিম আর তাসিন দাঁড়িয়ে বলল ,

– ট্যান ট্যানা !!! আমরাও খেয়েছি !!

পূর্ণতা দাঁড়িয়ে বলল ,

– সাথে আমি ও আছি ।

প্রেনা পূর্ণতা কে দেখে যেন অজ্ঞান হয়ে যাবে এমন অবস্থা । নিজেকে কোনো রকম সামলে আয়মানকে বলল ,

– আমার খারাপ লাগছে । আমি বাড়ি যাবো ।

পূর্ণতা প্রেনার কান মলা দিয়ে বলল ,

– এত তাড়া কিসের ? আগে প‌ই প‌ই করে ডায়রিতে হিসেব উঠিয়ে নিই , তারপর যেও !!

আবরন আয়মানকে বলল ,

– না মানে ! কিভাবে কি ? আমাকে একটু বুঝাবি ?

আয়মান বলল ,

– ওকে , রিল্যাক্স , আমি বলছি ।

……………………………………………….

একটা বড় টেবিলে সবাই গোল হয়ে বসেছে । উদ্দেশ্য প্রেনা – আয়মানের রিলেশনের শুরু টা শোনা এবং কেন ওরা বিষয়টা সবার থেকে গোপন করেছে তা জানা !

আয়মান বলতে শুরু করল ,

– সেদিন নবীন বরণ অনুষ্ঠানে আমি প্রেনাকে প্রথম দেখেছি বিষয়টা এমন না , এর আগেও ওকে অনেকবার ফলো করেছি , অনেকবার কথা ও বলেছি । তখন প্রেনা কলেজে পড়ত । ওকে পছন্দ করতাম , কিন্তু ও কখনো পাত্তা দেয় নি ।

ফাহিম বলল ,

– ওর জন্য তুই অন্য কারো সাথে রিলেশনে যাসনি ?

আয়মান প্রেনার দিকে তাকিয়ে বলল ,

– হুম ।

– তারপর ? ( তাসিন)

– তারপর ওকে অনেক বার বলেছিও যে ভালোবাসতে দোষ কিসে !
ওর একটাই উত্তর ছিল আমার অনেক বড় স্বপ্ন আছে , আমি মেডিক্যাল এ ভর্তি হতে চাই , এসবে আমি জড়াতে চাই না । জাষ্ট লিভ মি ।

কিন্তু কখনো একবারও জানতে চায় নি আমি কিসে পড়ি !!

এরপর একদিন সত্যির মুখোমুখি হতে হলো ওকে , সেটা ছিল নবীন বরণ অনুষ্ঠানের দিন । ঐদিন যখন আবরন আমাকে পূর্ণতার ফুলের সাথে মলম টা দিতে বলে পূর্ণতা কে দেখিয়ে দিচ্ছিল ঠিক তখন ওর পাশে প্রেনাকে বসা দেখে আমি অবাক হ‌ই আর খুশিও হ‌ই । ঐদিন ওকে ফুলের সাথে একটা ছোট্ট চিরকুট দিয়েছিলাম , সেটা ও তখন পড়ে নি পূর্ণতা দেখবে ভেবে ।
পরে পড়েছিল বাসায় গিয়ে ।

পূর্ণতা ভ্রু কুচকে বলল ,

– কি লেখা ছিল তাতে !

প্রেনা বলল ,

– বাসায় গিয়ে ছোট্ট কাগজটা খুলে দেখি তাতে ফোন নাম্বার দিয়ে নিচে লেখা আমাকে একটা কল দিও , আমি তোমাকে বুঝিয়ে বলতে চাই ।

আয়মান বলল ,

– ও কল দিয়েছিল , আমি পরে ওকে সব বুঝিয়ে বলি যে এক‌ই সাথে পড়াশোনা তাহলে রিলেশনে যেতে সমস্যা কি ! বিয়ের ব্যাপারটা নাহয় পরে ভাবি !

প্রেনা বলল ,

– আমি ওর কথায় কি করে যে সায় দিয়েছিলাম , আমি নিজেও জানি না ।

আবরন বলল ,

– তা বিয়ের দাওয়াত কবে পাচ্ছি ?

পূর্ণতা রেগে বলল ,

– এই আপনি জীবনে বিয়ে খান নি ?? এত বিয়ে খাওয়ার শখ কেন ?

– বন্ধুর বিয়ে খাবো না ? আর তোমার ও তো বান্ধবী !!

– না খাবেন না , কেউ ওদের বিয়ে খাবো না , রিলেশন যেভাবে না জানিয়ে শুরু করেছে , বিয়ে ও না জানিয়ে করবে তাতে আমাদের কি !

প্রেনা ঠোঁট ফুলিয়ে বলল ,

– এমন করিস না প্লিজ !! আমার ভুল হয়েছে! মাফ করে দে না ! প্লিজ !!😢

পূর্ণতা কিছু না বলে অন্যদিকে মুখ ঘুরিয়ে রাখল ।

আবরন বলল ,

– ঠিক আছে , তাহলে পূর্ণতার অভিমান ভাঙ্গাতে তোরা বরং জলদি জলদি বিয়ে টা সেড়ে ফেল , দেখবি ওর রাগ সুর সুর করে নেমে যাবে ।

আয়মান পূর্ণতা কে উদ্দেশ্য করে বলল ,

– হিসেবে তুমি আমার শালিকা তাই না ?? তুমি যদি অভিমান করো তাহলে কিন্তু আমাদের হার্ট ব্রেক করবে । কারন দুইজন দুইজনকে খুব ভালোবাসি তো !! 😓

পূর্ণতাকে উদ্দেশ্য করে এবার সবাই বলল ,

– ফরগিভ দেম !!

পূর্ণতা ভাব নিয়ে বলল ,

– ইটস ওকে । কিন্তু আর কোনোদিন যদি কিছু লুকিয়েছিস তাহলে খবর আছে বলে দিচ্ছি , তখন আর মাফ করবো না , হুহ !

ফাহিম দাঁত কেলিয়ে বলল ,

-তাহলে এই খুশিতে ট্রিটস কবে পাচ্ছি ?

আয়মান বলল ,

– আবার ট্রিটস চাচ্ছিস , আজকে কত টাকা খেয়েছিস হিসাব আছে ?

তাসিন বলল ,

– সেটা তো পূর্ণতা একা খেয়েছে !!

আবরন হাসল ।

পূর্ণতা আয়মানকে বলল ,

– হ্যা , ভাইয়া । আমি খেয়েছি ! উনাদের বরং আরেকদিন ট্রিট দিয়ে দিয়েন ।

প্রেনা অবাক হয়ে বলল ,

– লাইক সিরিয়াসলি ? তুই এত কিছু খেয়েছিস ?

পূর্ণতা বলল ,

– হ্যা , আমি‌ই তো খেয়েছি , বাকিরা সবাই চেয়ে চেয়ে দেখেছে ।

এই বলে সেখান থেকে হেঁটে বেরিয়ে যেতে লাগল , ওকে বেরোতে দেখে আবরন সবাইকে বলল ,

– আমি গেলাম । আমার কাজ আছে ।
আল্লাহ হাফেজ ।

সবাই “আল্লাহ হাফেজ ” বলতেই আবরন কিছুটা দৌড়েই পূর্ণতার পিছু পিছু গেল ।

ওরা চলে যেতেই ফাহিম বলল ,

– এদিকে তোদের জল গড়িয়ে গিয়েছে আর ওদিকে আবরন পূর্ণতার জল গড়িয়েও গড়াচ্ছে না ।

সবাই ওর কথা শুনে হাসল ।

………………………………………………..

আবরন গাড়ি ড্রাইভিং করতে করতে পূর্ণতার দিকে তাকিয়ে বলল ,

– কেমন ছিল সারপ্রাইজ !

পূর্ণতা বলল ,

– থ্যাংকস !

আবরন ভ্রু কুচকে বলল ,

– আমি কি জিজ্ঞেস করছি আর তুমি কি উত্তর দিচ্ছ !

পূর্ণতা বলল ,

– ওদের খুব মানিয়েছে তাই না ?

আবরন বলল ,

– হ্যা ।

– আচ্ছা , ওরা বিষয়টা না লুকালে হয়তো আমরা আজকের মজাটা পেতাম না তাই না ?

আবরন হেসে বলল ,

– তুমি তো আয়মান কে সেই বাঁশ দিয়েছো !!

পূর্ণতা হাসল ।

আবরন ওর দিকে একনজর তাকিয়ে আবার ড্রাইভিং মনোযোগ দিয়ে বলল ,

– তোমার কোনো সিক্রেট রিলেশন আছে নাকি ?

পূর্ণতা বলল ,

– উহু ।

– কেন ? কাউকে ভালোবেসে তাকে বিয়ে করে সুখি হতে চাও না ?

পূর্ণতা বলল ,

– হ্যা চাই , কিন্তু আমি বিয়ের আগে কাউকে ভালোবাসতে চাই না ।

– কেন ?

– কারন বিয়ের আগে ভালোবাসা টা আজকাল সিম্পল , পছন্দের কাউকে মনে মনে রেখে তাকে যদি বিয়ের পর ভালোবাসতে পারি তাহলে সেটা হবে ইউনিক ।

আবরন বলল ,

– চিন্তা ভাবনা ভালো । তা কেমন ছেলে পছন্দ ?

পূর্ণতা বলল ,

– কোনো পছন্দ নেই , যে ভাগ্যে আছে তাকেই আলহামদুলিল্লাহ বলে মেনে নেব ।

– তুমি এই যুগের মেয়ে ??

– না , আমি তো প্রাচীন যুগের । বাই দ্য ওয়ে , আমরা এখন কোথায় যাচ্ছি ?

আবরন বলল ,

– সারপ্রাইইইইইজ !!

পূর্ণতা হাসল ।

…………….…………………………………..

আবরন পূর্ণতাকে একটা বাসার গেইটের সামনে নামিয়ে বলল ,

– ওয়েট , আমি গাড়িটা পার্ক করে নিই ।

পূর্ণতা মাথা নেড়ে চারপাশটা দেখতে লাগল ।

আবরন গাড়ি পার্ক করে আসতেই পূর্ণতা বলল ,

– এটা কাদের বাসা ?

আবরন বলল ,

– গেলেই দেখতে পাবে ।

এই বলে পূর্ণতার গলায় পেচানো ওরনাটা ঘাড়ের উপরে থেকে নিয়ে ওর মাথা ঢেকে দিল ।

পূর্ণতা ওর আচরনে বিষম খেয়ে বলল ,

– এটা কেন পড়ালেন ?

– কারন , এখন তোমাকে দেখতে পারফেক্ট লাগছে ।

এই বলে ওর হাত ধরে নিয়ে গেল দোতলায় ।

দরজায় বেল দিতেই পূর্ণতা স্বাভাবিক হয়ে দাঁড়িয়ে আবরনকে বলল ,

– কি যে সারপ্রাইজ দেবেন আল্লাহ জানে !

আবরন হেসে আবার কলিং বেল বাজাতেই আধিরা আনজুম এসে দরজা খুলে দাঁড়াতেই পূর্ণতা আবরনের দিকে একবার তাকিয়ে আবার আধিরা আনজুমের দিকে তাকিয়ে বলল ,

– আসসালামু আলাইকুম ।

আধিরা আনজুম বললেন ,

– ওয়ালাইকুমুসসালাম আম্মু । এসো এসো ভেতরে এসো ।

পূর্ণতা ভেতরে যেতে যেতে আবরনের দিকে তাকিয়ে ইশারা ক‍রতেই আবরন ব্যাপারটা বুঝে আধিরা আনজুমকে জড়িয়ে ধরে বলল ,

– এটা আমার আম্মুজান ।

আধিরা আনজুম হেসে বললেন ,

– আমার পাগল ছেলে । যা ফ্রেশ হয়ে নে ।

আবরন বলল ,

– যাচ্ছি ।

তারপর পূর্ণতা কে উদ্দেশ্য করে বলল ,

– তুমি আম্মুর সাথে কথা বলো আমি আসছি । আর ভয় পেয়ো না ।

আধিরা আনজুম বললেন ,

– ভয় পাবে কেন ? আমি কি ভুত না পেত্মী ?

পূর্ণতা হাসল ।

আবরন বলল ,

– না ,ও আবার একটু ভীতু ।

পূর্ণতা আবরনের দিকে তাকিয়ে হাসি দিয়ে মনে মনে একশ একটা গালি দিল ।

আবরন বিষয়টা বুঝে দাঁত কেলিয়ে হেসে ফ্রেশ হতে নিজের রুমে চলে গেল ।

আধিরা আনজুম পূর্ণতা কে উদ্দেশ্য করে বলল ,

– এসো আমরা কথা বলি ।

পূর্ণতাকে আধিরা আনজুম নিজের রুমে নিয়ে গিয়ে বসালেন ।

– তোমার বাসায় কে কে আছে আম্মু ?

পূর্ণতা হালকা হেসে উত্তর দিল ,

– আম্মু আর ভাইয়া । আর বাবা ফ্রান্স এ থাকে । ভাইয়া ও চলে যাবে কয়েকমাস পর ।

– আহারে , বাসায় তো তাহলে তোমরা মা – মেয়ে থাকবে । মাঝে মাঝে এসো মাকে নিয়ে , তাহলে ভালো লাগবে ।

পূর্ণতা মাথা নেড়ে বলল ,

– আপনিও যাবেন ।

আধিরা আনজুম হেসে বলল ,

– মেডিক্যাল কেমন লাগছে ?

– ভালোই ।

– এখন ভালো লাগবে নতুন নতুন তো ! কয়দিন বাদেই যখন পড়া লেখার চাপ বাড়বে তখন আর ভালো লাগবে না ।

পূর্ণতা বলল ,

– স্বপ্ন অনেক বড় , তা বাস্তবায়ন করতে হলে তো একটু কষ্ট করতেই হবে ।

– তা অবশ্য ঠিক । পড়াশোনা করে নিজের পায়ে দাঁড়াবে তাহলেই নিজের পরিচয় থাকবে ।

– হুম ।

আবরন ফ্রেশ হয়ে একটা ট্রাউজার আর টি শার্ট পড়ে আধিরা আনজুমকে ডাকতে লাগল ,

– আম্মু , আম্মু !!

আধিরা আনজুম পূর্ণতার সাথে কথা বলতে বলতে ছেলের ডাক শুনে পূর্ণতা কে বলল ,

– দেখো , আমি সাড়া না দিলে ও এখন কি করবে ?

পূর্ণতা ভ্রু কুচকে এক গাল হেসে আবরন ওর মাকে কি বলে ডাকবে তা শুনতে অধির আগ্ৰহে বসে র‌ইল ।

আবরন আধিরা আনজুমের সাড়া না পেয়ে ডাকল ,

– আধিরা আনজুম , ওও আধিরা আনজুম ।

আধিরা আনজুম হেসে পূর্ণতা কে বলল ,

– দেখেছো ? ছেলে এখন তার বাবার মতো ডাকছে !!

পূর্ণতা হাসল ।

আবরন ওদের দুইজনকে খুঁজে পাচ্ছিল না তখন আধিরা আনজুমের গলা শোনা গেল ,

– আমি আমার রুমে আছি । এখানে আয় ।

আবরন আধিরা আনজুমের রুমে প্রবেশ করতেই পূর্ণতা আবরনকে দেখে খুব‌ই অবাক হলো । কারনটা হচ্ছে এই প্রথম ওকে পাঞ্জাবি পাজামার বাহিরে অন্য কিছু পড়তে দেখলো ।

পূর্ণতা কে ওভাবে তাকাতে দেখে আবরন ওর দিকে তাকিয়ে চোখ টিপ দিয়ে আধিরা আনজুমকে বলল ,

– আম্মু জানো ! আমাদের আয়মান প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছে ।

– বলিস কি ?? কার সাথে ?

– এই যে পূর্ণর বান্ধবীর সাথে , প্রেনা ওর নাম ।

– বাহ , তা তুই কি জীবনে প্রেম করবি না , নাকি ডিরেক্ট বিয়ে করে ব‌উ বাড়ি আনবি ??

আবরন পূর্ণতার দিকে তাকিয়ে আবার আধিরা আনজুমের দিকে তাকিয়ে উত্তর দিল ,

– না , তাকে মনে মনে ভালোবেসে যাবো কিন্তু তা বিয়ে করে তারপর প্রকাশ করবো ।

আধিরা আনজুম হেসে বললেন ,

– তুই বিয়ে করবি বুড়ো বয়সে !

– আরে না ! এম বি বি এস টা করেই বিয়ে করে ফেলবো । তারপর ডিগ্ৰি নিতে বাহিরে যাবো । সেটা পরের ব্যাপার ।

………………………………………………..

দুপুরে লাঞ্চ টাইমে আধিরা আনজুম পূর্ণতা আর আবরনকে খাবার টেবিলে বসিয়ে খাবার আনতে রান্নাঘরে গেলেন । তখন পূর্ণতা আবরনের দিকে তাকিয়ে বলল ,

– আমার ক্ষুধা নেই , কত কিছু খেয়েছি । এখন পেট ভরা ।

– তো আমার কি ? তুমি খেয়েছো কেন ? এখন আম্মু তো তোমাকে না খাইয়ে ছাড়বে না !!

পূর্ণতা ঠোঁট উল্টিয়ে আবরনের দিকে তাকালো , আবরন বলল ,

– ওকে , দেখছি কি করা যায় ?

আধিরা আনজুম পূর্ণতা কে খাবার বেড়ে দিতেই আবরন আধিরা আনজুম কে আলাদা ভাবে ডেকে কানে কানে বলল ,

– আম্মু ,তোমার ঘরের হবু বৌ আবার নিজের হাতে খায় না । তুমি বরং ওকে আর আমাকে এক প্লেটে দাও , আমি ওকে খাইয়ে দিচ্ছি ।

আধিরা আনজুম বললেন ,

– বিয়ে করে বৌ কে নিজের হাতে খাওয়াস , এখন আমি খাইয়ে দিচ্ছি !

আবরন বলল ,

– আম্মু , এমন করো না । তুমি খেয়ে নাও নিজে , আমি ওকে খাইয়ে দিচ্ছি ।

– আমার সামনে বসে খাওয়াবি নাকি ! ও তো লজ্জায় খাবে না ।

– তা অবশ্য ঠিক । আমি তাহলে ওকে আমার রুমে নিয়ে গিয়ে খাইয়ে দিই । তুমি টিভি দেখতে দেখতে খেয়ে নাও 😜

আধিরা আনজুম ছেলের কাধে চাপড় মেরে বললেন ,

– তবে রে !! তুই ওকে এখানে বসেই খাইয়ে দে , আমি ড্রয়িং রুমে টিভি দেখতে দেখতে খেয়ে নিচ্ছি ।

– ওকে , ডিল ।

………………………………………………..

আবরন এক প্লেট খাবার নিয়ে চেয়ার টেনে পূর্ণতার পাশে বসতে বসতে বলল ,
– অনেক কষ্টে ম্যানেজ করেছি । বলেছি তুমি কেউ খাইয়ে না দিলে খাও না !

পূর্ণতা রাগি রাগি ভাব নিয়ে আবরনকে ফিস ফিস করে বলল ,

– আপনি তখন থেকে আমাকে নিয়ে বাজে কথা বলছেন ! তখন বলেছেন আমি নাকি ভীতু , এখন আবার বলেছেন নিজের হাতে খেতে জানি না !

আবরন হেসে বলল ,

– এখন আমি তোমাকে অল্প খাইয়ে দিব ,

আবরন পুরোটা বলে শেষ করার আগেই পূর্ণতা বলে উঠল ,

– আর নিজে বেশি খাবেন ??

আবরন বলল ,

– হ্যা ।

– দেখুন , আগেই বলছি মুখে মেখে খাওয়াবেন না , ভাইয়া সব সময় এভাবে খাওয়ায় আমার মেজাজ গরম হয়ে যায় ।

আবরন খাবার নলা করতে করতে বলল ,

– তারমানে বাসায় নিজের হাতে খাও না ?? এটা সত্যি দাড়ালো ?

– না , মাঝে মাঝে আরকি ।

আবরন কথা বলতে বলতে ইচ্ছা করে পূর্ণতার মুখ মাখিয়ে নলা মুখে দিল ।

পূর্ণতা কাদো কাদো ফেস করে খাবার মুখে নিয়ে বলল ,

– অ্যাএএএএএ !! 😭 আমার সাথেই এমন করেন কেন ??

আবরন হাসতে লাগল । 😂

#চলবে ♥️

বিঃদ্রঃ আমি নিয়মিত এই সময়ে গল্প দিই । তবে মাঝে মাঝে সারপ্রাইজ হিসেবে দিনে দুপুরে দিয়ে থাকি । অর্থাৎ , গল্পের পরের পর্ব অবশ্যই আমি দিয়ে যেতে থাকবো , সো প্লিজ কাইন্ডলি next next , nice next না করে গঠনমূলক মন্তব্য করুন । তাহলে সেগুলো পেলে আমার লেখার আগ্ৰহ বাড়ে । আর ভুল ত্রুটি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন । ধন্যবাদ । ♥️

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here