ভালোবাসি_বলেই_তো ♥️ লেখিকা – #আদ্রিয়া_রাওনাফ পর্ব – ১০

0
28

 

মেডিক্যাল এর পার্কিং লর্ডে গাড়ি পার্ক করে আবরন গাড়ি থেকে নেমে পূর্ণতা কে হাত ধরে নামালো । পূর্ণতার হাত আবরন এভাবে ধরায় ও অনেকটা ইতস্তত বোধ করছে । তারপর মনে মনে ভাবল ,

– এমনিতে তো সাহস করে কত কথা উনাকে বলি , কিন্তু উনি আমার খানিকটা কাছাকাছি থাকলে আমার অন্য রকম অনুভূতি হয় , আমার ভিতরটা কাপাতে থাকে । কেন ? কেন এমন হয় ?

আবরন ওর হাত ধরে হেঁটে হেঁটে মেডিক্যাল এর গেইট থেকে ১০ পা দূরে থাকতেই হাত ছেড়ে দিয়ে বলল ,

– আমি জানি , তোমার ভয় লাগছে ! এত ভয় পেয়ো না , এই ভয় কিভাবে ভাঙ্গাতে হয় সেই ট্রেনিং টা একদিন সময় বুঝে দিয়ে দিব …. মিস কান্নাপরী ।

এই বলে আবরন হেঁটে সামনে এগিয়ে যেতেই ফাহিম , আয়মান আর তাসিন এসে ওর উপর হুমড়ি খেয়ে পড়ল । আর ভার্সিটির মেয়েরা চোখ বড় বড় করে তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছে আর যেন নতুন করে ক্রাশ খাচ্ছে ।

পূর্ণতা কিছুক্ষণ চুপচাপ সেখানে দাঁড়িয়েই আবরনের বলা কথা গুলো ভাবছিল । তখন‌ই জল এসে ওকে পেছন থেকে ডেকে বলল ,

– পূর্ণতা জামান !!

পূর্ণতা পেছনে ফিরে ভ্রু কুচকে তাকালো ।
জল ৩য় বর্ষের ছাত্রী বলে ওর সিলেক্টেড কালার সবুজ । সবুজের সাথে হলুদের মিশ্রনে শাড়ি পড়ে পূর্ণতার দিকে এক গাল হেসে জল মুড দেখিয়ে বলল ,

– ভালোই তো দেখছি হাত করে ফেলেছো আবরনকে । তা কি পড়া পানি খাইয়েছো আমাকে যদি বলতে আমিও একটু ট্রাই করতাম ।

পূর্ণতা কিছু না বলে ওকে ইগনোর করে চলে যাচ্ছিল কিন্তু জল পেছন থেকে ওকে বলল ,

– তোমার চরিত্র এতো নগন্য তা তো জানা হয়ে গেল !! এখনো ক্লাস শুরু হয় নি আর এর মধ্যেই আবরনের পার্সোনাল কারে তোমার জায়গা হয়ে গেল ?? ছি ছি ছি !! শেইম অন ইউ । তুমি বরং আর এই ভার্সিটিতে না এসে রাস্তায় গিয়ে নিজের সৌন্দর্য দেখিয়ে ঘুরে বেড়াও । কারন এটা পড়াশোনার জায়গা , তোমার মতো মেয়েদের জায়গা এই মেডিক্যাল এ নেই । এখন আমি একা বলছি , যখন ভার্সিটি ওপেন হবে তখন সবাই বলবে ।

এই বলে জল চলে গেল ।

পূর্ণতা এতক্ষন চুপচাপ দাঁড়িয়ে শুনছিল কিন্তু হজম করতে পারছিল না তখন ওর পাশে প্রেনা এসে দাঁড়িয়ে কাধে হাত রেখে বলল ,

– তুই এভাবে আমাকে রেখে চলে এলি যে ?? কার সাথে এসেছিস ?

পূর্ণতা কাধ থেকে প্রেনার হাত নামিয়ে দিয়ে বলল ,

– ইচ্ছা , তাই একা এসেছি ।

এই বলে গেইটে প্রবেশ করতেই দেখল আজকে অনেক জাক জমকপূর্ণ ভাবে সাজ সজ্জা করা হয়েছে ক্যাম্পাসের ।

আজকের স্টেজ টা ও সেই কৃষ্ণচূড়া গাছ টার নিচে করা হয়েছে , তবে আজকে নাচ গান থাকায় স্টেজ আরো অনেক বড় করা হয়েছে ।

পূর্ণতা দাঁড়িয়ে পুরো ক্যাম্পাস টা দেখার চেষ্টা করছিল , কিন্তু এত বড় ক্যাম্পাসের সাজ সজ্জা কি আর এক জায়গায় দাঁড়িয়ে দেখা যায় ?

এসব ভেবে মন খারাপ করে চারপাশের মানুষজন দেখতে মনোযোগ দিল পূর্ণতা । বিশেষ করে বেশির ভাগ মেয়েরা ই এত সাজা সেজেছে যে সবার থেকে নিজেকে খুব নগন্য মনে হচ্ছিল পূর্ণতার । অনুষ্ঠান এখনো শুরু হয় নি বলে পূর্ণতা গ্যালারির দিকে যাচ্ছিল এক জায়গায় বসবে বলে । ভিতরে যেতেই দেখল একদম সামনের ডান কোনায় সব কালো লাল পরিধানকারীরা বসেছে । পূর্ণতা সেদিকে এগিয়ে গিয়ে বসতেই কিছু মেয়ে ওকে দেখে বলল ,

– বাহ , তোমার শাড়িটা তো খুব সুন্দর ।

আরেকজন বলল ,

– হ্যা , অনেক ইউনিক । খেয়াল করে দেখো সবাই শুধু লাল কালো রং এর শাড়ি পড়েছে , কিন্তু তোমার শাড়িতে সোনালি কাজ ও আছে । অনেক সুন্দর লাগছে তোমাকে ।

– আমরা এত সেজেও আমাদের সুন্দর লাগছে না ।

পূর্ণতা কি উত্তর দিবে ভেবে না পেয়ে বলল ,

– এভাবে বলো না , তোমাদের সুন্দর লাগছে ।

ওরা হেসে বলল ,

– নতুন কিনেছো নাকি আগের‌ই ছিল শাড়িটা ??

পূর্ণতা উত্তর দেওয়ার আগেই মাইকে কথা বলে উঠল আবরন ।

ওর কন্ঠস্বর শুনেই সবাই ওর দিকে মনোযোগ দিতে শুরু করল ।

আবরন বলল ,

– আর অল্প কিছুক্ষনের মধ্যে ই আমাদের অনুষ্ঠান শুরু হতে যাচ্ছে , সবাই সবার আসন গ্ৰহন করুন । কেউ গ্যালারিতে হাঁটাহাঁটি না করে যার যার আসন গ্ৰহন করুন , ধন্যবাদ ।

এই বলে আবরন স্টেজ থেকে নামতে নামতে এক পলক পূর্ণতার দিকে তাকিয়ে এক গাল হাসল ।পূর্ণতা আবরনকে খেয়াল করে মনে মনে ভাবছে ,

– আপনি কি শুধু আমার সাথেই এত কথা বলেন ?? আর কারো সাথে কি কথা বলেন নি ?? আপনি কি জানেন আপনার জন্য আমাকে কত কথা শুনতে হয় ??

এখন থেকে আপনাকে এড়িয়ে চলবো , হুহ ।

এসব ভাবতেই হঠাৎ ফোন থেকে টুং টাং করে অনেক গুলো ম্যাসেজ টিউন ভেসে আসতে লাগল ।

পূর্ণতা ব্যাগ থেকে ফোনটা বের করতেই আগের মতো without lock এর অপশনে ফোন খোলার চেষ্টা করতেই ফোনে password চাইলো ।
পূর্ণতা কিছুটা বিরক্ত হয়ে কি বোর্ডে “kauwa” টাইপ করতেই লক খুলে গেল । তারপর নটিফিকেশন বার এ যেতেই দেখল “Abaran” লেখা নামে whatsapp এ ম্যাসেজ এসেছে । ম্যাসেজে ক্লিক করে ভিতরে ঢুকতেই দেখল ,

– মিস. কাউয়্যার ব‌উ । তোমার তো সাহস কম ।

– তাই সাহসিকতা বাড়াতে আমি তোমার নাম গানের লিষ্টে দিয়ে দিয়েছি ।

– আয়মানকে পাঠাচ্ছি , ও তোমাকে আনতে যাচ্ছে। চুপচাপ ভদ্র মেয়ের মতো চলে এসো ।

ম্যাসেজ পড়ে শেষ করতে না করতেই আয়মান গিয়ে পূর্ণতার সামনে হাজির ।

পূর্ণতা বলল ,

– লাইক সিরিয়াসলি ? আমাকে যাচাই বাছাই না করে কি করে গানে নাম দিয়ে দিল !!

আয়মান দাঁত কেলিয়ে বলল ,

– এই ক্ষমতা আমাদের আবরন রাখে । জাষ্ট বাঁ হাতের খেলা । এখন চলো ।

পূর্ণতা গাল ফুলিয়ে আয়মানের সাথে গেল।

প্রেনা পূর্ণতার দুই লাইন পেছনে বসেছিল । পূর্ণতা কে আয়মানের সাথে
যেতে দেখে নিজেও জায়গা থেকে উঠে সেদিকে গেল ।

………………………………………………..

আবরন স্টেজের পেছনের সিক্রেট গ্যালারিতে একটা চেয়ারে বসে যারা আজকের অনুষ্ঠানে অংশগ্ৰহন করবে তাদের সাথে কথা বলছিল ।

এই গ্যালারিটা শুধু মাত্র যারা অনুষ্ঠানে পার্টিসিপেইট করবে তাদের জন্য তৈরি । সবাই তৈরি হচ্ছে অংশগ্রহণ এর জন্য ।

আয়মান পূর্ণতা কে গ্যালারিতে নিয়ে গিয়েই আবরন কে বলল ,

– আমার কাজ শেষ , আমি গেলাম । আমার ঐ দিকটায় কাজ আছে ।

আবরন বলল ,

– যা ।

পূর্ণতা চুপচাপ গিয়ে আবরনের থেকে ২-৩ হাত দূরে দাঁড়িয়ে বলল ,

– এসবের মানে কি ?

আবরন বসা থেকে উঠে দাঁড়িয়ে পূর্ণতার দিকে এগিয়ে গিয়ে বলল ,

– এখন থেকে সাহস না করলে যখন ডাক্তার হবে তখন বড় বড় কনফারেন্সে স্টেজে দাঁড়িয়ে বক্তৃতা দিতে হবে , তখন কি করবে ?? এখন থেকেই অভ্যাস করো বুঝলে !!

পূর্ণতা কাদো কাদো ফেস করে বলল ,

– কিন্তু আমি তো গান গাইতে জানি না ।

– হয়েছে , তোমাকে বলেছি না আমার সাথে মিথ্যা বলবে না , তাহলে শাস্তি পেতে হবে । শাস্তি তো পরে আমি দিবোই কিন্তু তুমি কি জানো জিব্রান ভাইয়া ও এখানে এসেছে শুধুমাত্র তুমি গানে পার্টসিপেইট করবে বলে ।

পূর্ণতা ৪৪০ ভোল্টের ঝটকা খেয়ে বলল ,

– মানে !!

আবরন দাঁত কেলিয়ে বলল ,

– ভাইয়া ই তো বলল তোমার গানের গলা ভালো , তাই আমিও নাম দিয়ে দিলাম ।

পূর্ণতা কপালে হাত দিয়ে বলল ,

– হায়রে , আমি তো ইংলিশ গান পারি ।
বাংলা গান তো পারি না !!

এই বলে আবার নিজেই জিব্হ কেটে বলল ,

– ইয়েমানে , এখন কি হবে !!

আবরন বলল ,

– বাংলা গান জানো না , তুমি বাংলাদেশের নাগরিক !!

পূর্ণতা বলল ,

– সব আপনার দোষ !! আমাকে জিজ্ঞেসও করেন নি !! এখন আপনিই ব্যবস্থা করবেন !

– ওকে ফাইন , তোমাকে ইংলিশ গান গাওয়ার ব্যবস্থা ই করে দিচ্ছি ।

পূর্ণতা মনে মনে ভাবছে ,

– ধুর , ভেবেছি বাংলা গান না পারলে বুঝি আমার নাম কেটে দেবে । এ তো দেখছি নাছোরবান্দা 🤦এখন কি হবে !!

আবরন বলল ,

– এখন আবার কি মতলব আটছো ??

পূর্ণতা জোড়পূর্বক হেসে বলল ,

– ইয়ে মানে !! বাংলা গান পারি না , কিন্তু হিন্দি গান পারি । সেটাতে মেল ফিমেল দুটো ভার্সন ই আছে । আমি একা গাইলে তো চলবে না ।

আবরন ঠোঁটে বাকা হাসি দিয়ে বলল ,

– আমি আছি না মেল ভার্সন গাইতে । প্রবলেম নেই , গিটারে সুর টা ও আমি তুলবো ।

গানের নাম কি বলো ?

পূর্ণতা গানের নাম বলতেই আবরন বলল ,

– এই গান আমার অনেক পছন্দের । ওকে রেডি থেকো ।

পূর্ণতা বলল ,

– আপনি গাইবেন আমার সাথে গান ?

আবরন কিছুটা ধমকের সুরে বলল ,

– অন্য কারো সাথে গাওয়ার ইচ্ছা আছে নাকি ??

পূর্ণতা বলল ,

– না মানে !

আবরন ওকে থামিয়ে দিয়ে বলল ,

– এসব কথা বাদ । এদিকে এসো কয়েকবার প্র‍্যাকটিস করি ।

(At the same time)

প্রেনা সিক্রেট গ্যালারিতে প্রবেশ করতে যেতেই ফাহিম আর তাসিন ওকে বাধা দিল । প্রেনা বলল ,

– আমি পূর্ণতার সাথে দেখা করবো !

তাসিন বলল ,

– আমাদের আউট কাউকে ঢুকতে দেওয়ার পার্মিশন নেই । সরি !

এর‌ই মধ্যে আয়মান সেখানে উপস্থিত । প্রেনাকে দেখে বলল ,

– কোনো সমস্যা ?

প্রেনা কিছু না বলে রাগ করে সেখান থেকে চলে গেল । ওকে এভাবে চলে যেতে দেখে আয়মান ও ওর পেছন পেছন গেল । ফাহিম আর তাসিন হা করে ওদের যাওয়ার দিকে তাকিয়ে র‌ইল । তারপর ফাহিম বলল ,

– কেইস টা কি বলতো ?

তাসিন বলল ,

– প‌ই প‌ই করে গবেষণা করে দেখতে হবে ।

– ঐ দিকে আবরন পূর্ণতার পেছনে লেগেছে আর এই দিকে দেখছি হরতালেও ভিতরে ভিতরে টেম্পু চলছে ।

– তাই তো দেখছি ।

………………………………………………

১২:৩০ মিনিটে অনুষ্ঠান শুরু হয়েছে । আজকের উপস্থিত বক্তৃতা দিয়েছে ভার্সিটির ৪র্থ বর্ষের একজন ছাত্রী । আবরন পার্টিসিপেইটর বলে আজ এই দায়িত্ব থেকে মুক্ত ছিল । প্রায় ২ টা পর্যন্ত বক্তৃতা চলার পর লাঞ্চ ব্রেকে সবাই লাঞ্চ করে অপেক্ষা করছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হ‌ওয়ার জন্য ।

পূর্ণতা আর আবরন লাষ্ট সিরিয়ালে । প্রথমেই যেহেতু গান দিয়ে শুরু হবে তাই আবরন সবাইকে সারপ্রাইজ‌ড্ করতে শেষে নামটা রেখেছে । এতে সবাই মজা ও পাবে ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শুরু হতেই যেন গ্যালারি গরম হয়ে উঠল সকলের হৈ চৈ তে । প্রথমে যেমন খুশি তেমন সাজো এবং মডেলিং এর পর্ব শুরু হয়েছে।
এর পর একে একে সবার গান গাওয়ার পালা শেষ হতে হতে সন্ধ‍্যা নেমে গেল । সবার গান শেষ হতেই উপস্থিত বক্তা বক্তব্য দিল যে ,

– এখন রয়েছে সবার জন্য একটা বড় সারপ্রাইজ !! আমাদের সর্বশেষ গানের পার্টিসিপেইটর যে তার নামটা আমি বলছি না !! তার নামটা বললে ভুল হবে , কারন গান গাইবে দুইজন অর্থাৎ তাদের নামটা বলছি না । আমি তাদের কে অনুরোধ করবো যেন তারা স্টেজে চলে আসে আর স্টেজের লাইট গুলো অফ করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে । লাইট অফ প্লিজ ।

সবাই হৈ চৈ বন্ধ করে অধীর আগ্ৰহ নিয়ে অপেক্ষা করছে । স্টেজের সব লাইট অফ হতেই স্টেজে সেই ফাকে আবরন আর পূর্ণতা প্রবেশ করল । আবরন পূর্ণতা কে স্টেজে উঠার আগেই বলেছে ,

– আমি তোমার সাথে আছি । ভয় পেয়ো না প্লিজ । নিজের উপর ভরসা রেখো । দরকার হলে সামনে তাকিয়ো না , আমার দিকে দেখো তাহলে ভয় লাগবে না ।

পূর্ণতা শুধু মাথা নেড়েছিল ।

গ্যালারিতে বসা সবাই দাঁড়িয়ে আছে স্টেজে প্রবেশরত দুটি ছায়ার মুখোমুখি হতে । জিব্রান ও তাদের মধ্যে ছিল । ওর জানা ছিল যে এখন আবরন আর পূর্ণতার পালা , তাই ইচ্ছে করে পেছন থেকে উঠে একদম সামনে গিয়ে সেকেন্ড মাইকটা হাতে নিয়ে সবাইকে বলল ,

– সবার ফোনের ফ্লাশ লাইট অন করুন ।

সবাই হৈ চৈ করে একসাথে অন্ধকারে ফ্লাশ লাইট অন করতেই গিটারের হালকা টিউনের সাথে একটা অতি পরিচিত কন্ঠ ভেসে আসতে লাগল ,

Rehna tu pal pal dil ke paas
Judi rahe tujhse haar ek sans ….

এরপরেই একটা মেয়ে কন্ঠ ভেসে আসতে লাগল ,

Khud pe pehle na itna yaqeen mujhko ho paya
Mushqil si ghadiyan asaan huyi ab jo tu aaya

আলোতে সবাই আবরন আর পূর্ণতা কে জুটি গান গাইতে দেখে এক শব্দে হৈ চৈ করে উঠল ।

Ik baat kahun tujhse
Tu paas hai jo mere

Seene se tere sar ko laga ke
Sunti main rahun naam apna
Seene se tere sar ko laga ke
Sunti main rahun naam apna

Oh likh di tere naa’ jindadi zaaniye
Bas rehna tere naal ve zuriye
Rehna tu pal pal dil ke paas
Judi rahe tujhse har ik saans

Seene se tere sar ko laga ke
Sunta main rahun naam apna
Ho naam apna

Naal tere ik ghar main sochaan
Baari kholaan te chann dikh jaave
Akkhaan’ch beetan raatan saariyan
Je mann laage te akh na laage

Pyaar hi odhein te pyaar hi khaana
Vich koi aave te pyaar hi aana
Duniya de vich assi duniya ton door
Hunn naal tere mera har sapna

Seene se tere sar ko lagaa ke
Sunta main rahun naam apna o…

Teri ungliyon se aasmaan pe kheechun ek lambi laqeer
Aadha tera aadha mera iss jahaan mein hum do ameer

Koi nazar na aaye mainu
Tu duniya ton wakhri ho gayi
Uthaan tainu takkda jaawan
Tu hi meri naukri ho gayi (x2)

Dooriyan ek pal bhi na gawaara ho
Chal ghoome duniya phir sang awaara ho

Seene se tere sar ko laga ke
Sunti main rahun naam apna
Seene se tere sar ko laga ke
Sunti main rahun naam apna

Rehna tu pal pal dil ke paas
Judi rahe tujhse har ek saans

#চলবে ♥️

বিঃদ্রঃ সবাইকে অনেক অপেক্ষা করিয়ে এই পর্বটা দিলাম । এর পরের পর্বটা পড়তে ধৈর্য্য ধারন করুন , কারন ধৈর্যের ফল মিঠা হয় 😛 । ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন । ধন্যবাদ ♥️ শুভ রাত্রি 🌌

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here