ভালোবাসি_বলেই_তো ♥️ লেখিকা #আদ্রিয়া_রাওনাফ পর্ব – ১

0
52

 

আজ মেডিক্যালের “নবীন বরন” অনুষ্ঠান । প্রতি বছরের মতো এবারো সকল অনুষ্ঠানের দায়িত্ব নিজ ঘাড়ে নিয়েছে মেডিক্যালের ভিপি । তবে তার ইচ্ছা অনুযায়ী এবারের অনুষ্ঠান গুলো কিছুটা ব্যতিক্রম ভাবে উদযাপিত করা হবে । তবে সব আয়োজন সে , তার বন্ধু এবং অন্যান্য সহযোগীদের সাথে নিয়ে করবে ।

অন্যান্য বছর গুলো ক্যাম্পাস ৩ দিন আগের থেকে সাজালেও , এবছর ৭ দিন আগের থেকে সাজ-সজ্জার কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে ।

এ বছর ক্যাম্পাসে প্যান্ডেল করা হয় নি । সরাসরি প্রকৃতির সাথে সংযোগ রেখে স্টেজটা করা হয়েছে ক্যাম্পাসের সবচেয়ে বড় কৃষ্ণচূড়া গাছটার নিচে । আর ছায়াঘেরা জায়গাটাতেই রাখা হয়েছে কয়েক হাজার চেয়ার । সব গাছগুলোর কান্ডকে রঙ্গিন জরি কাগজের সাহায্যে ডিজাইন করে পেচিয়ে লাগানো হয়েছে । আর উপরের দিকটাতে অসংখ্য রঙ্গিন কাগজ আর ফিতার মেলা । কিছু কিছু জায়গা ফুল দিয়েও সাজানো হয়েছে ।

অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি করা ইনভাইটেশন কার্ডে সকল ছাত্র-ছাত্রীদেরকে ১২ টায় উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে ।
………………………………………………
সকাল ১১ টা ,

নীল শাড়ি গায়ে জড়িয়ে বিছানার উপর পা তুলে গাল ফুলিয়ে বসে আছে পূর্নতা ।
এর কারন হচ্ছে , তার একমাত্র বান্ধবী তাকে এসে রেডি করিয়ে দিবে বলেছে । ১২ টায় অনুষ্ঠান , আর তার এখনো আসার কোনো নাম গন্ধ নেই । পূর্ণতা মনে মনে বিরক্ত হয়ে বলছে ,

– সেই কখন আম্মু শাড়ি পড়িয়ে দিয়ে রান্না ঘরে চলে গেল । আর প্রেনার এখনো আসার কোনো নাম গন্ধ নেই । তারপর শেষে তাড়াহুড়ো করে বের হতে হবে । ধূর , ভাল্লাগেনা ।

এই বলে পূর্ণতা বিছানা থেকে উঠে দাঁড়াতেই কলিং বেলের শব্দ শোনা গেল । পূর্ণতার বুঝতে বাকি র‌ইল না , প্রেনা এসেছে । ও নিজের রুমের দরজাটা খুলে দিয়ে আবার গাল ফুলিয়ে বিছানায় আবার এক‌ই ভাবে বসে র‌ইল ।

কলিং বেল বাজতে শুনে মিলি রহমান রান্নাঘর থেকে বের হয়ে গিয়ে দরজা টা খুলে দেখলেন নীল শাড়ি পড়ে সেজেগুজে প্রেনা দাঁড়িয়ে আছে । মিলি রহমান বললেন,

– এতক্ষন পর তোর সময় হলো আসার ?? গিয়ে দেখ পূর্ণ গাল ফুলিয়ে আছে ।

প্রেনা হেসে বলল ,
– তুমি চিন্তা করো না আন্টি । আমি ব্যাপারটা হ্যান্ডেল করছি ।

এই বলে প্রেনা এগিয়ে গেল পূর্ণতার রুমের দিকে । ওর রুমের দরজাটা খোলা পেয়ে প্রেনা ভিতরে প্রবেশ করে দেখলো পূর্ণতা উল্টো দিকে মুখ করে বিছানায় বসে আছে । প্রেনা বলল ,

– কিরে !! এভাবেই বসে থাকবি নাকি রেডি হবি ??

পূর্ণতা উঠে দাঁড়িয়ে বলল ,
– এতক্ষন পর আসতে মন চাইলো ?? নিজে তো একেবারে সেজেগুজে রেডি হয়ে চলে এসেছেন । এখন আমাকে কে রেডি করিয়ে দেবে ??

– কেন ? আমি‌ই দিব । আয় চুলে খোপা করে এই বেলী ফুলের মালা পেচিয়ে দিই ।

– সত্যি ? তুই এনেছিস মালা ??( চোখ খুশিতে চকচক করে উঠলো)

– হ্যা , এনেছি তো । এটা কিনতে গিয়েই তো একটু লেইট হয়ে গেল ।

পূর্ণতা খুশি হয়ে দৌড়ে এসে প্রেনা কে জড়িয়ে ধরে গলে চুমু খেল । প্রেনা হেসে বলল ,

– হয়েছে , হয়েছে । এখন বস । নাহলে দেড়ি হয়ে যাবে ।

……………………………………………….

ম‌ই বেয়ে ফাহিম গেইটের উপরে উঠেছে মেইন গেইটটা সাজাবে বলে । নিচে আয়মান দাড়িয়ে আছে দুই ঝুড়ি ফুলের মালা নিয়ে । ওর ই পাশে তাসিন দাড়িয়ে আছে এক ডালা ভর্তি গাদা ফুলের পাপড়ি হাতে নিয়ে ।

প্ল‍্যান মোতাবেক ফাহিম আয়মানের কাছ থেকে ফুলের মালা গুলো চেয়ে চেয়ে গেইট ডেকোরেশন করছে । অবশেষে ডালা ভর্তি ফুলের পাপড়ি গুলো নিয়ে এমন ভাবে সেট করলো যেন দড়ি ধরে টান দিলেই ডালা কাত হয়ে উপর থেকে ফুলের বৃষ্টি ঝরে । এটা শুধুমাত্র প্রধান অতিথিকে বরণ করার জন্য‌ই ।

ফাহিম সবকিছু সেট করে নিচে নামতেই উপর থেকে ঠাস করে সব ফুলের পাপড়ি নিচে পড়ে গেল । আয়মান বলল,

– আয় হায় !! ফাহিম !! কি করলি তুই ??

তাসিন বলল ,
– আজকে কপালে শনি আছে যদিও আজকে মঙ্গলবার !! আবরন যদি দেখে অতিথি আসার ৩০ মিনিট পূর্বে তুই এই কাজ করেছিস , তোকে আস্ত চিবিয়ে খাবে ।

ফাহিম কাদো কাদো ফেস করে বলল ,

– ভাই হেল্প কর প্লিজ । কিভাবে যে পড়ে গেল বুঝতে পারছি না ।

– আকাম করলি তুই !! আমরা কেন হেল্প করবো ?? ( আয়মান )

– আরে , দৌড় দে । আবার ফুলের পাপড়ি নিয়ে আয় । আমি আর তাসিন ততক্ষনে এই জায়গাটা পরিষ্কার করে ফেলি । নাহলে আবরন এসে দেখলে আজকে কপালে সত্যিই শনি আছে ।
জলদি যা ।

– ধূর !! যাচ্ছি আমি । জলদি পরিষ্কার কর । আবরন এসে দেখলে তোকে এই ময়লা ফুলের পাপড়ি ব্লেন্ড করে জুস বানিয়ে খাওয়াবে ।
এই বলতে বলতে আয়মান চলে গেল ফুলের পাপড়ি আনতে ।

ফাহিম আর তাসিন মিলে পরিষ্কার শুরু করলো ।
……………………………………………..

প্রেনা পূর্ণতাকে সাজিয়ে দিয়ে আয়নার সামনে দাড় করিয়ে বলল ,

– তোকে একদম নীল পরি লাগছে রে !! কারো নজর যেন না লাগে তোর উপর ।
এই বলে নিজের চোখের থেকে কাজল নিয়ে পূর্ণতার কানের পেছনে লাগিয়ে দিল ।

পূর্ণতা আয়নায় তাকিয়ে দেখলো নীল শাড়ির সাথে ম্যাচিং করে হাতে নীল চুড়ি , কানে সোনালি কানের দুল , গলায় একটা চিকন চেইন পড়িয়েছে প্রেনা । আর সাজ বলতে মুখে একটু ফেইস পাউডার , চোখে কাজল , ঠোঁটে হালকা ন‍্যুড লিপস্টিক দিয়েছে । ব্যস , রেডি ।
পূর্ণতা হ্যান্ড ব্যাগ টা হাতে নিয়ে রুম থেকে প্রেনা কে নিয়ে বের হয়ে গেল ।

– আম্মু , আসছি ।

মিলি রহমান বললেন ,
– অনুষ্ঠান শেষ হলে জিব্রানকে কল করিস । ও তোকে নিয়ে আসবে ।

– ভাইয়া না কক্সবাজার গিয়েছে বন্ধুদের সাথে ?

– কাল রাতে এসেছে । ওর বন্ধুর বাসায় উঠেছে । বাসায় ফেরার পথে তোকে নিয়ে আসবে ।

– আচ্ছা , ঠিক আছে । তুমি চিন্তা করো না । আসছি । আল্লাহ হাফেজ ।

– আল্লাহ হাফেজ আন্টি । ( প্রেনা )

– আল্লাহ হাফেজ । আর শোন প্রেনা , একসাথে থাকবি দুজনে । আলাদা হবি না । মনে যেন থাকে ।

– ওকে , আন্টি । ডোন্ট ওয়ারি ।

প্রেনা আর পূর্ণতা বেরিয়ে পড়লো । রাস্তায় এসে প্রেনা রিকশা ডাক দিল ,

– এই মামা , যাবেন ??

পূর্ণতা চোখ গোল গোল করে বলল ,
– প্রেনা , ওয়েট ওয়েট ওয়েট !!

প্রেনা পেছনে তাকিয়ে বলল ,
-আবার কি ??

– তোর স্কুটি কোথায় ?? আমরা রিকশায় যাবো নাকি !!

– আমারে কি পাগলা কুত্তায় কামড়াইছে যে আমি শাড়ি পড়ে যাবো স্কুটি চালাতে !! এখন কথা না বাড়িয়ে রিকশায় উঠ । উপস্থিত থাকতে বলেছে ১২ টায় । আর আমরা এখানেই ১২ টা বাজিয়ে দিয়েছি ।

পূর্ণতা রিকশায় উঠে বসে বলল,
– ওও , আসলেই তো । আমাদের নবীনদের তো আজ নীল রং পরিধান করে যেতে বলা হয়েছে । মেয়েরা নীল শাড়ি , আর ছেলেরা নীল পাঞ্জাবি । আজ তার মানে সব মেয়েরা হিমুর রূপা হয়ে যাবে । তাই না ??

প্রেনা বলল ,
– হিমুই যেখানে নেই অনুষ্ঠানে , রূপা হয়ে কি লাভ !!

– ধুর ! তুই ও না …………..

……………………………………………..

ফাহিম ম‌ই থেকে নেমে দাড়াতেই পেছন থেকে কারো গলা শোনা গেল ,

– তোদের এখনো হয় নি ?? একটা গেইট সাজাতে এতো সময় নিচ্ছিস ?? অতিথিরা তো ওন দ্য ওয়ে ।

ফাহিম , আয়মান , তাসিন পেছনে ঘুরে তাকিয়ে দেখলো আবরন নাক ফুলিয়ে রাগি রাগি ফেস করে ওদের দিকেই তাকিয়ে আছে ।
ফাহিম একটা ঢোক গিলে মনে মনে ভাবছে , ” যাক , মাত্র‌ই কাজ শেষ করলাম । একদম পারফেক্ট টাইমিং । ”

তারপর জবাব দিল ,

– ইয়ে মানে !! কাজ তো শেষ । এই যে আমার হাতে দড়ি দেখছিস , এটা ছেড়ে দিলেই ডালা ভর্তি ফুলের পাপড়ি কাত হয়ে বৃষ্টির মতো ঝড়বে ।

– সব ঠিক ঠাক করেছিস তো ?? কোনো কিছুতে যেন ভুল না হয় । নাহলে অনুষ্ঠান শেষে খবর করে দিব । ( আবরন )

আয়মান তাসিনকে উদ্দেশ্য করে বলল ,
– দাড়িয়ে দাড়িয়ে দেখছিস কি ?? যা , ম‌ইটা জায়গা মতো রেখে আয় ।

তাসিন ম‌ই হাত দিয়ে ধরে বলল ,
– যাচ্ছি , যাচ্ছি ।

আবরন বলল ,
– অতিথিরা কিছুক্ষনের ভেতরেই চলে আসবে । তাই আমি এখানেই দাড়াচ্ছি । তোদের কোনো কাজ থাকলে জলদি সেড়ে আয় ।

আয়মান বলল ,
– আমি বরং স্টেজের দিকটায় গিয়ে দেখে আসি ।

ফাহিম বলল ,
– আমি এখানেই দাড়াই , আমাকে দড়ি ধরে থাকতে হবে ।

– ঠিক আছে , দাড়িয়ে থাক । অতিথি প্রবেশ পথে আসতেই দড়ি ছেড়ে দিস ।
( আবরন )

– আচ্ছা , চিন্তা করিস না । ( ফাহিম )

…………………………………………….
আয়মানকে স্টেজের সামনে দেখেই জল দৌড়ে গিয়ে ওর সামনে দাঁড়িয়ে হাপাতে হাপাতে জিজ্ঞেস করলো ,

– আয়মু , আমার আবরন বেবি কে দেখেছো ??

আয়মান জলকে দেখে মনে মনে ভাবছে ,
-” লে , চিপকুগাম এসে পড়েছে । এখন তো আবরনকে পেলেই চিপকে থাকবে । ”

আয়মানকে চুপ করে থাকতে দেখে জল বলল ,
– কি হলো ! চুপ করে আছো কেন ? আবরন কোথায় ??

আয়মান রেগে বলল ,
– আমি কি দেখেছি নাকি ?? দেখলে তো বলেই দিতাম । আর আবরন স্বর্গে গিয়েছে । তুমি গিয়ে তোমার কাজ করো ।
এই বলে আয়মান সেখান থেকে কেটে পড়লো ।

জল দাড়িয়ে দাড়িয়ে বলতে শুরু করলো ,
– আমার সাথে এভাবে কথা বলার সাহস ও পেলো কোথায় ?? দাড়াও , আবরন বেবির সাথে দেখা হলেই বিচার দিব । তখন বুঝবে , জলের সাথে মিসবিহেইভ করার মানে !!
এই বলে আবার আবরনকে খুঁজতে শুরু করলো ।

………………………………………………

পূর্ণতা এবং প্রেনা মেডিক্যালের মেইন গেইটের সামনে এসে রিকশা থেকে নেমেছে মাত্র । পূর্ণতা প্রেনাকে বলল ,

– রিকশা তুই ডেকেছিস ! ভাড়া ও তুই দিবি !
এই বলে দাঁত কেলিয়ে সে গেইটের দিকে হাঁটতে শুরু করলো ।

প্রেনা রিকশাওয়ালার ভাড়া মিটিয়ে দিয়ে ওর ৫-৬ হাত পেছনে হাঁটতে শুরু করে বলল ,
-পূর্ণ দাড়া , আমি আসছি ।

পূর্ণতা মেইন গেইটে পা রেখে প্রেনার ডাকে পিছনে ঘুরে তাকাতেই ………..

#চলবে ♥️

বি:দ্র: আমার লিখা প্রথম গল্প এটি । আশা করি শুরুটা সকলের ভালো লাগবে । শেষ পর্যন্ত যেন ভালো ভাবেই লিখে যেতে পারি সেইজন্য দোয়া করবেন । পজিটিভ সাপোর্ট পেলে গল্পটি continue করবো । কমেন্টে সবার মতামত জানান। আশা করি উৎসাহ দেবেন ।
ভুল ত্রুটি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন ।
❤️

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here