ভেতরে বাহিরে পর্ব -৩৩

0
93

#ভেতরে_বাহিরে
পর্ব:৩৩
লেখিকা: #রুবাইদা_হৃদি

শ্রাবণের ধারার মতো পড়ুক ঝরে, পড়ুক ঝরে

তোমারি সুরটি আমার মুখের ‘পরে, বুকের ‘পরে ॥

পুরবের আলোর সাথে পড়ুক প্রাতে দুই নয়ানে–

নিশীথের অন্ধকারে গভীর ধারে পড়ুক প্রাণে।

নিশিদিন এই জীবনের সুখের ‘পরে দুখের ‘পরে

শ্রাবণের ধারার মতো পড়ুক ঝরে, পড়ুক ঝরে…

রক্তিম বিকেলের কুয়াশা আচ্ছাদিত নম্র রোদ লাল শাড়ি পরিহিতা রমণীর সৌন্দর্য যেন দ্বিগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। সদ্য ঘুম ভাঙ্গা চোখে আধো জাগ্রত অবস্থায় এলোমেলো পা ফেলে আবেশ এগিয়ে গেলো তার প্রেয়সীর দিকে।
মাধুর্য তখনো সামনের দিকে ফিরে আছে দু-চোখ বন্ধ করে। নিজস্বতায় ঘিরে ধরেছে গ্রাম্য প্রকৃতি। এ যেন অনাবিল সুখের সাম্রাজ্য।
যেদিকে দুচোখ যায় সেদিকেই সবুজের ছোঁয়া।
আবেশ মাধুর্যের কোমর স্পর্শ করতেই খানিক কম্পয়মান হয় মাধুর্যের সমস্ত ইন্দ্রিয় । আবেশ তাকে আলগা বাধনে নিজের সাথে আঁকড়ে ধরে ঘুম কন্ঠে বলল,

‘ মিষ্টতা তোমারি মতো কন্ঠের উচ্চারিত প্রত্যেকটা গানের লাইন।’

মাধুর্যের অধরে কিঞ্চিৎ হাসির রেখা ফুঁটে উঠলো। এইতো গত দুইমাস আগেই আবারো বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলো তারা। এর মাঝে সবকিছু রঙ্গিন ফানুসের মত উড়ে গেছে সময় অতীতেত পাতায়। অবশ্য তার জীবনের সেরা দু’টি মাস সে কাটিয়েছে। আবেশের সাম্রাজ্য ঘিরে মাধবীলতার বসবাস। মাধুর্য হাসির রেখা টেনেই বলল,

‘ আজ বাইরে যাবেন না ?’

‘ রেডি হয়ে নাও।’

‘ কেন !’ মাধুর্য প্রশ্নসূচক চোখে ঘুরে তাকিয়ে বলল। আবেশ কিছু না বলে মাধুর্যকে তার হাতের বাঁধন থেকে মুক্ত করে দিয়ে বলল,

‘ আজকে আরেকটা স্পেশাল দিন হতে চলে তোমার জন্য ।’

‘ আজ তো কোনো স্পেশাল ডেট নেই।’

‘ আমার রাণী যে বোকা সেটা জানতাম তবে এতোটা বোকা এইটা তো জানতাম না।’

আবেশের এহেন কথায় ফুঁসে উঠে মাধুর্য । রোষানল দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে আবেশের দিকে । আবেশ ভয় পাবার অভিনয় করে বলল,

‘ চোখের দৃষ্টিতে ঝলসে দিবে তো। তখন এই ঝলসানো ব্যক্তিকে তোমার মনে ধরবে,বুঝি !’

আবেশের কথা শুনে দৃষ্টি শিথিল করে মাধুর্য । নিজের কার্যে লজ্জা পেয়ে মিইয়ে যাওয়া কন্ঠে বলল,

‘ আজকে কী জন্য স্পেশাল?’

‘ মেডিকেলের রেজাল্ট দিবে আজ। সেটা ভুলে গেলে?’

আবেশের কথা শুনে ভয়ার্ত চোখে তাকিয়ে থাকে মাধুর্য । আসলেই ! আজ রেজাল্ট বেরুবে। সে কী করে ভুলে গেলো!
ইতিমধ্যে তার হাঁত-পা কাঁপছে। বাসার সবার আশা না রাখতে পারলে কী হবে ভাবতেই শীতল হয়ে আসছে তার হৃৎপিন্ড ।
মাধুর্যের এহেন অবস্থা দেখে আবেশ হাসিমুখে বলল,

‘ টপ টুয়েন্টি তে আমার বউ থাকবে। তবে সে কেন অস্থির হয়ে আছে?’

‘ আমার ভয় হচ্ছে আবেশ।’

আবেশ মাধুর্যের কথায় কোনো উত্তার দিলো না । সে জানে মাধুর্যের রেজাল্ট। একটু আগেই তার ফোনে মেসেজ এসেছে । এবং সে বাসার সবাইকে মেসেজের মাধ্যমেই খবর টা দিয়ে মাধুর্যের জন্য সারপ্রাইজ প্ল্যান করেছে ।

ঘন্টা দুই বাদে মাধুর্য ধীরপায়ে সিড়ির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তার বুক ঢিপঢিপ করছে । হয়তো সে ফেইল করেছে । বা তার রেজাল্ট আসেই নি। উদ্ভট সব চিন্তা করতে করতে সিড়ি দিয়ে আনমনে নামছে সে । নীচে নামতেই মাহফুজা তাকে জড়িয়ে ধরে উৎফুল্ল কন্ঠে বলল,

‘ আমার নবাগত ডাক্তার মেয়ে। গর্বে আমার বুক ফুলে উঠছে মাধু। এতোখুশি দেওয়ার জন্য তোর কাছে আমি কৃতজ্ঞ।’

মাধুর্য বুঝতে না পেরে আবেশের দিকে তাকালো। আবেশ বড় একটা কাগজ উঁচিয়ে দেখালো। সেখানে স্পষ্ট ভাবে লেখা,

‘ তুমি পেরেছো।’

মাধুর্যের চোখে পানি। বাকি সবাই তাকে অভিনন্দন জানাচ্ছে। খুশি গুলো জাপটে ধরে আছে যেন। সবার হাসিমাখা মুখের দিকে তাকিয়ে আরেকটা বেদনাদায়ক কথা মনের কোণে জানান দিলো,
এই মানুষ গুলোকে ছেড়ে অচেনা শহরে,অচেনা ভীড়ে হারাতে হবে।
____________

সিলেট ছেড়ে সবাইকে রেখে একদম যেতে ইচ্ছা করছে না মাধুর্যের৷ কেমন শূন্যতা বিরাজ করছে তার মাঝে৷ আনমনে সব প্যাকেজ করছে সে৷ ঢাকার মেডিকেল কলেজে চান্স পাওয়াটা নিঃসন্দেহে তার কাছে দিবাস্বপ্ন মনে হচ্ছে৷ আদেও কী সে এতোটা সুখ পাবার যোগ্য?
ইদানীং সব সুখ যেন উঁপচে তার কাছে পড়ছে৷ বুক চিড়ে দীর্ঘশ্বাস বেরিয়ে আসলো তার৷

‘ ভাবী ঢাকা গিয়ে নতুনদের ভীড়ে আমায় কিন্তু ভুলে যে-ও না৷’ নাজিফা মন খারাপ করে বলল৷ মাধুর্যের মন আরো বিষিয়ে উঠলো৷ সে কী করে থাকবে তার আম্মু’মা কে ছেড়ে,বান্ধবীর মতো নাজিফাকে ছেড়ে৷ সাথে ইরার মতো বড় বোন আর ফয়েজের মতো বড় ভাইকে ছেড়ে৷ সবথেকে বড় কথা আবেশকে ছেড়ে গত দুই মাস সে একফোঁটাও থাকে নি ৷ আবেশ তার অভ্যাস৷ অভ্যাস কী-করে ত্যাগ করবে সে?
এইসব ভেবে চোখের কোণা বেয়ে অশ্রুবিন্দু টুপ করে ঝড়ে পরতেই নাজিফা মাধুর্যকে জাপটে ধরে ডুকরে কেঁদে উঠে৷ মাধুর্য নাজিফার মাথায় হাত বুলিয়ে বলল,

‘ নাজু বুড়ি তোমার ছোট ভাইয়াকে বলে দিয়ো,আমি চলে যাচ্ছি বলে সে যেন কিন্তু আমায় ভুলে না যায়৷’

নাবিহা মাধুর্যের কথায় হেসে উঠলো৷ মাধুর্য নিজের কথায় নিজেই লজ্জা পেয়ে মিইয়ে যায়৷ তবুও দমে না গিয়ে মুখ ফুলিয়ে বলল,

‘ তাকে বলে দিয়ো,তাকে ছাড়া থাকতে আমার বড্ড কষ্ট হবে৷ সাথে বাসার সবাইকে ছেড়ে৷’

‘ নাজু তাকেও বলে দিয়ো কষ্ট হলেও থাকতে হবে৷ আমি ডাক্তার মিসের মাধুর্য এহসানকে দেখতে চাই৷’

আবেশ রুমে ঢুকে নির্লিপ্ত গলায় বলল পকেটে হাত গুজে দাঁড়িয়ে৷ মাধুর্য নাজিফাকে ছেড়ে মুখ ভার করে দাঁড়িয়ে রইলো৷ আবেশের ও বড্ড কষ্ট হচ্ছে৷ তবুও তার মুখে কাঠিন্যে ভাব বজায় রেখে বলল,

‘ গোছানো শেষ তোমার? দ্রুত রেডি হয়ে আসো৷ লেট হয়ে যাচ্ছে৷’

‘ দেখলে নাজিফা কেউ একজন চায় আমি যেন দ্রুত বাসা থেকে দূরে চলে যাই৷’ মাধুর্য কান্না আটকিয়ে বলল৷ আবেশ ইদানীং কেমন কঠোর হয়ে উঠেছে৷ সে চলে যাচ্ছে তবুও তার কষ্ট হচ্ছে না,বুঝি?
মাধুর্য মুখ বুজে দাঁড়িয়ে রইলো৷ আবেশ ঘুরে দাঁড়ালো৷ তার চোখ জ্বলছে৷ তবুও গম্ভীর কন্ঠে বলল,

‘ কিছু পেতে হলে কিছু হারাতে হয়৷ এখন তুমি আমাদের সাথে যে সময় গুলা কাটাতে সেই সময় গুলা হারাচ্ছো৷ তবে এই হারানো গুলোই একসময়ের সাফল্য হবে তোমার৷’

‘ আমার তো সাফল্য চাই না…’

‘ সেটা তোমার চাইতে হবে মাধুর্য৷ টিকে থাকতে হলে চাইতেই হবে৷’

আবেশের কথার মানে বুঝতে না পেরে মাধুর্য স্তব্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে রইলো৷ নাজিফা মাধুর্যকে ধরে রেখেই ভাঙা গলায় বলল,

‘ যখুনি বন্ধ পাবে আমাকে ফোন দিবে আমি তোমাকে গিয়ে নিয়ে আসবো৷ কারো বারণ শুনবো না৷’

মাধুর্য নির্লিপ্ততা নিয়ে বলল,

‘ আচ্ছা৷’

নাজিফা আর কিছু না বলেই রুম থেকে চলে যেতেই আবেশ মাধুর্যের হাত ধরতেই মাধুর্য রাগ দেখিয়ে হাত টেনে সরিয়ে নেয়৷ আবেশ নিজের কাজে অনড়৷ সে আবারো মাধুর্যকে টেনে নিয়ে তার সাথে মিশিয়ে মাধুর্যের কনিষ্ঠ আঙুল টেনে ধরে বলল,

‘ আমার রাজ্যজুড়ে আপনার বসবাস মাধবীলতা৷ আপনাকে ভুলে যাওয়া মানে আমার অস্তিত্ব ভুলে যাওয়া৷ আমার সর্বাংশে তে আপনি বিরাজমান৷ যার কোনো ভুল নেই৷’

আবেশের নির্বিঘ্নে বলা প্রত্যেকটা কথা মাধুর্যের কান্নার গতি বাড়িয়ে দিলো৷ আবেশ ঝুঁকে মাধুর্যের মাথায় চুমু খেয়ে আবার বলল,

‘ আপনাকে আমি বড্ড ভালোবাসি মাধবীলতা৷ আমার কাছে,আমার ঘরে দ্রুত ফিরে আসবেন ইন-শাহ্-আল্লাহ৷ তবে ডাক্তার হয়েই৷’

মাধুর্য মাথা নীচু করে সম্মতি দিতেই আবেশ আবারো গভীর চুম্বনে লিপ্ত করলো মাধুর্যের কপাল৷ এ যে স্বর্গীয় এক অনুভূতি৷ যা ভাষায় প্রকাশ করা দায়৷

_______________

সমস্ত ফর্মালিটি শেষে আবেশ এসে দাঁড়ালো মাধুর্যের সম্মুখে৷ ফর্সা মুখ লালাভ বর্ণ ধারণ করেছে মাধুর্যের৷ বাচ্চাদের মতো ফুঁপিয়ে উঠছে বারেবারে ৷ হোস্টেলের বাইরে ফাঁকা জায়গায় দাঁড়িয়ে আছে তারা৷ কিছুটা দূরের রাস্তা থেকে গাড়ির শোরগোল ভেসে আসছে৷ এতো হট্টগোল মাধুর্যের কাছে সম্পূর্ণ অচেনা৷ ভয়ে গুটিয়ে আছে সে৷ আবেশ বুঝতে পেরে বলল,

‘ ভয় পাচ্ছো কেন!’

‘ আমি থাকতে পারবো না আবেশ৷’

‘ পারতে তোমাকে হবেই মাধবীলতা৷’

আবেশের কন্ঠস্বর কম্পয়মান৷ সে নিজেকে সামলে মাধুর্যের মাথায় হাত রেখে বলল,

‘ ৪০৪ নাম্বার রুমটা তোমার৷ যেখানে তুমি তোমার মতো সব গুছিয়ে নিবে৷ আর সিলেটের বাড়িতে তোমার রুমটা আমাদের ৷ আর কিছুদিন এরপরে আমরা মিলে আমাদের হয়ে থাকবো৷’

‘ আপনি আসবেন না আমাকে দেখতে?’ মাধুর্য শ্লেষ মাখা কন্ঠে বলল৷ আবেশ মুখে কিয়ৎ হাসি ফুঁটিয়ে বলল,

‘ মহারাণী যখন হুকুম দিবেন আমি তা তামিলের জন্য হাজির হয়ে যাবো৷’

আবেশের কথার ধরণে হেসে দেয় মাধুর্য৷ আবেশ এইবার প্রশান্তি পায়৷ মাধুর্য ক্রন্দনরত মুখশ্রী যেমন তার হৃদয়ে বেদনার ঝংকার তুলে তেমনি হাসিমাখা মুখ আকাশসম খুশির ফোয়ারা এনে দেয়৷
আবেশ বিদায় নিতেই মাধুর্য আবারো কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে৷ শাড়ির আঁচল দিয়ে চোখের নীচে জমে থাকা পানিটুকু মুছে দৃঢ়তার সাথে নিজমনে বলল,

‘ আমি পারবো৷ আবেশ আপনার জন্য হলেও আমার পারতেই হবে৷ অনেক হিসেব বাকি আছে যে৷’

_____________

দো-তলা বিল্ডিংয়ের সাদা রঙ কিছুটা জীর্ণ৷ সিড়ি দিয়ে উঠেই ডান পাশে লম্বা করিডোর ধরে এগিয়ে যেতেই ৪০৪ নাম্বার রুমটা নজরে আসে মাধুর্যের৷ কিছুটা ভয় আর উত্তেজনা সম্মেলনে এগিয়ে চলেছে সে৷
আশেপাশের মেয়েরা নিজেদের কাজে ব্যস্ত৷ তার দিকে ঘুরে তাকানোর সময়টা কারো নেই বোধহয়৷ মাধুর্য লম্বা শ্বাস টেনে রুমের দিকে এগিয়ে যায়৷ তার স্বপ্ন পূরণের দ্বিতীয় ধাপ ৷
প্রথম ধাপ ছিলো এডমিশন৷ সেইসব দিনের কথা মনে পড়লে সুখ অনুভব হয় তার৷ আবেশ নিজের অফিস সামলে তাকে পড়াতো নিজে বসে থেকে৷ কতো রাত জাগার সৃতি সেই সাথে দুষ্টুমির বহিঃপ্রকাশ ৷
সেসব যেন একঝাঁক উড়ো সুখ৷ মাধুর্যের ভাবনায় ব্যাঘাত ঘটে বাজখাঁই প্রশ্নের মুখে পড়ে৷

‘ নতুন? ‘

সামনে থাকা একটা মেয়ে তাকে দেখে কিছুটা ধমকের সুরেই বলল কথাটা৷ মাধুর্য ছিটকে উঠে নিশ্চুপ ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে রইলো৷ মেয়েটা আবারো ধমকে উঠে বলল,

‘ ওই তুই কী বোবা? না মুখ সেলাই৷ বেয়াদবি করিস আমার সাথে? জানিস আমি কে!’

মাধুর্য চোখ তুলে তাকিয়ে বারদুয়েক মাথা হেলিয়ে ছোট করে উত্তর দিলো ৷ মেয়েটার চোখেমুখে অসন্তুষ্টির ছাপ ৷ বিশ্রী একটা গালী দিয়ে আবার বলল,

‘ যা জিগ্যেস করব মুখ খুলে কথা বলবি৷ না হলে মর্গে নিয়া আটকায় রাইখা আসবো৷’

মাধুর্য ভয় পেয়ে সামনের দিকে পা বাড়াতেই মেয়েটা ইচ্ছাকৃত ভাবে মাধুর্যকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় ৷ মেঝেতে পড়ে গিয়ে ব্যথায় আর্তনাদ করে উঠলেই আশেপাশের দাঁড়িয়ে থাকা মেয়েরা উচ্চস্বরে হেসে উঠে৷ মাধুর্য ব্যথা সহীত অসহায় দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে অচেনা সব মুখের দিকে৷ এইদিকে তার হাত ফেঁটে রক্ত বের হচ্ছে ৷ আবারো নরক যন্ত্রণা তার সম্মুখে এসে দাঁড়িয়েছে সে খুব ভালো ভাবেই উপলব্ধি করলো….
চলবে….

[

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here