রম্য গল্প বাট শিখনিয়

0
797

পাশের বাসার ছেলেটা যখন ছাদ থেকে আমাদের রান্না ঘরের জানালায় উঁকিঝুকি করছিল আমার শাশুড়ি তা ঠিক দেখতে পেলেন। আমাকে সেখান থেকে সরিয়ে অন্যকাজ দিয়ে পাঠিয়ে দিলেন।
এর ১৫/২০ মিনিট পর কাজটা শেষ করে রান্না ঘরে এসে দেখলাম মা রান্নাটা প্রায় শেষ করে ফেলেছেন। কিছু টুকটাক কাজ করে জানলায় চোখ পড়তে ই দেখলাম ছেলেটা আর নেই। হাসলাম মনে মনে।
খাওয়া দাওয়া করে বিকেলের দিকে আমি আর মা ছাদে যাই। কিছু গাছ আছে ফুল আর সবজির সেগুলো দেখি আর মগভর্তি করে গরম গরম চা। দোলনায় বসে গল্প করি আর মাঝে মাঝে মা আমার চুল বেঁধে দেন। পুরনো গল্প করতে করতে। কিভাবে চুল লম্বা করতে হয় তা বলে দেন। মায়ের জন্য ই বিয়ের পর এত লম্বা হয়েছে চুলগুলো আগে ওত ছিল না।
বিকেলে মাঝে মাঝে আমার দেবর সুহান রাস্তার মোড়ের পিয়াজু, গরম গরম জিলাপি আর চপ নিয়ে আসে মা এগুলা খুব পছন্দ করেন। কিন্তু আমার দেবর টা আমায় ভাগে কম দেয় চিটিং করে ভাগাভাগিতে। আমি মাঝে মাঝে ঝগড়া করি একদিন চুল ধরে টানাটানি করছি। হঠাৎ মনে হল আরে আমি একি করছি! মা’র দিকে ভয়ে তাকাতে ই দেখি মা হেসে একদম কুটিকুটি যেন ভিষণ মজার রেসলিং দেখছেন। লজ্জা পেয়ে গেলাম।
পরক্ষণে পাশের বাসার ছেলেটা ছাদে আসতে ই মা আমাদের নিয়ে বাসায় চলে আসলেন।
আমার শাশুড়ি আবার যুগের সাথে তাল মিলিয়ে চলা মানুষ। শপিং এ গেলে ই আমাকে যে ডিজাইনের শাড়ি বা ড্রেস কিনে দিবেন তার সাথে হালকা ম্যাচ করে নিজের জন্য কিনেন। এ নিয়ে আমার বাবার বাড়ি শ্বশুড়বাড়িতে বেশ সুনাম আমাদের।
শপিং এ দোকানের লোকেরা কিছুটা ভ্রু কুচকালেও আমার শাশুড়ি তাতে ভ্রু-ক্ষেপ করেন না। আমার বেশ ভালো ই লাগে। মাঝে মাঝে আবার রিকশায় বেড়াতে বের হই। দেবরটার রিকশায় জায়গা হয় না বলে পিছন পিছন সাইকেল নিয়ে আসে। আইসক্রিম কিনতে দোকানে ঢুকলেন। মা জানেন বাইরে বের হলে আমার আইসক্রিম খেতে ই হবে। দোকানে যেতে ই দেখতে পেলাম আবার সেই ছেলে শাশুড়ি কিছু না বলে মুখে বিরক্তি ভাব এনে আমাদের নিয়ে বেড়িয়ে পরলেন। ছেলেটা হা করে তাকিয়ে আছে।
সন্ধ্যা রুমে বসে একটা জামার কি জানি ঠিক করছিলাম হঠাৎ আমার শাশুড়ি মায়ের একটু জোড়ে হাক ডাক শুনে ঘাঁবড়ে গেলাম। এভাবে তো কখনো আমার নাম ধরে চিল্লাচিল্লি করেন না। ভয় পেয়ে দৌড়ে গেলাম। কি হয়েছে জানতে।
আমি যেতে ই কিছুটা ধমকের সুরে বললেন, তুমি আবার বিয়ে করতে চাও? কথাটা শুনে আমি যেন ৪২০ ভোল্ট এর শক খেলাম। কিছু না বলে আমি মায়ের দিকে ড্যাব ড্যাব করে তাকিয়ে আছি। এই মুহূর্তে কি বলা উচিত তাও আমি জানি না।
এই ছেলে তোমাকে বিয়ে করতে চায়। প্রস্তাব নিয়ে এসেছে। আমি মায়ের পিছন দিকে তাকিয়ে দেখলাম সোফায় সেই পাশের বাসার ছেলে বসা। সে নাকি বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে এসেছে। আমি একবার ছেলের দিকে আর একবার আমার শাশুড়ির দিকে তাকাচ্ছি।
মা হেসে বললেন, দেখো বাবা ও আমার ছেলের বউ। আমার ছেলে দেশের বাইরে থাকে। তোমার হয়ত কোথায়ও ভুল হচ্ছে। কেউ কি তার ছেলের বউকে আবার অন্যকারো সাথে বিয়ে দেয়!
ছেলেটা অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে কিছুক্ষণ তাকিয়ে বলল আপনাদের দেখলে তো মনে হয় না এরকম সম্পর্ক তাই…
আসলে বাবা আমার দুই ছেলে কোনো মেয়ে নেই। একটা মেয়ের খুব শখ ছিল পুতুলের মত করে রাখব মেয়েকে কিন্তু উপরওয়ালা দেন নি। তখন মনে মনে বলেছিলাম ঘরে বউ আনব না মেয়ে আনব। আমার সব শখ আহ্লাদ পূরণ করব। চুল বেঁধে দিব নতুন নতুন জামা বানিয়ে দিয়ে সাজাব একটু দুষ্টমি করবে ঘরে আর আমি হাসব ওর পাগলামি দেখে। তাই ও আমার মেয়ে।
মা’য়ের কথাগুলো শুনছিলাম আর একপাশ দিয়ে মায়ের একটা হাত কে শক্ত করে পুরোটা জড়িয়ে ধরে হাসছিলাম কিন্তু চোখে দিয়ে পানি পরছিল এটা শোকের না সুখের জল। এমন ভাগ্য করে কয়জন আসে ..!
কমবে না তো ২য় মেয়ে আসলে?
— বড় মেয়ে তো বড় ই এর সেটার মত আর কিছু হয়।
ভাগ্য করে এসে ছিলাম বলে..!
আমি আর মা হাসছি কিন্তু চোখে অনবরত জল পরছে।
মেয়ে

লেখিকা :- ফাবিহা ফেরদৌস
–+-
বিঃ দিঃ
রম্য গল্প বাট শিখনিয়

এখনই জয়েন করুন আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে।
আর নিজের লেখা গল্প- কবিতা -পোস্ট করে অথবা অন্যের লেখা পড়ে গঠনমূলক সমালোচনা করে প্রতি মাসে জিতে নিন নগদ টাকা এবং বই সামগ্রী উপহার।
শুধুমাত্র আপনার লেখা মানসম্মত গল্প/কবিতাগুলোই আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। এবং সেই সাথে আপনাদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরষ্কার।

গল্পপোকার এবারের আয়োজন
ধারাবাহিক গল্প প্রতিযোগিতা

◆লেখক ৬ জন পাবে ৫০০ টাকা করে মোট ৩০০০ টাকা
◆পাঠক ২ জন পাবে ৫০০ টাকা করে ১০০০ টাকা।

আমাদের গল্প পোকা ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করার জন্য এই লিংকে ক্লিক করুন: https://www.facebook.com/groups/golpopoka/?ref=share

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here