শর্বরী পর্ব ৯+১০

0
118

#শর্বরী
অলিন্দ্রিয়া রুহি

(৯)

নয়ন বাড়ি ফিরলো অসংহত চিত্তে। স্নেহার নাম ও বাড়ির ঠিকানা জানার যে খুশিটুকু তার মধ্যে হওয়ার কথা ছিল, তার সিকিভাগও নেই। এর কারণ, স্নেহাকে তার প্রথম বিয়ের কথা জানানো হয়নি। অবশ্য জানাতে পারেনি! স্নেহা সময় দিলে তো! যে চঞ্চল মেয়েটা! নয়নকে পুরোপুরি স্তব্ধ করে দিয়েছিল সে সময়ে। তাই কী বলবে আর কী করবে,বুঝে উঠতে পারেনি সে। এখন মনে হচ্ছে, স্নেহার সঙ্গে আরেকবার আলাদাভাবে দেখা করার প্রয়োজনীয়তা আছে। আগে তাকে জানাতে হবে নয়নের প্রথম বিবাহের কথা। এরপরে সিদ্ধান্ত স্নেহার। যদি তার কোনো সমস্যা না থাকে তাহলে নয়ন তাকে বিয়ে করতে প্রস্তুত। এর আগে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ হলো, আইনত শিমুলের সাথে সমস্ত সম্পর্ক শেষ করে দেওয়া। এইসব অভিপ্রায় নিয়ে উতলা হয়ে উঠল মন। দুপুরের খাওয়ার কথাও ভুলে বসল প্রায়। শুয়ে রইলো উদোম গায়ে, জানালার দিকে পিঠ দিয়ে। মিষ্টি রোদ আসছে। নয়নের জ্বর শরীরে ভালো লাগছে তা ভীষণ। কড়া রোদে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকতে গিয়েই এই জ্বর বাঁধিয়েছে সে। তাও মাত্র একদিনেই! না জানি বাকী দিনগুলো কী নাজেহাল করে ছাড়বে স্নেহা! নয়ন একা একাই মিটমিট করে হাসল।
নেহাল স্নান সেড়েছে সবে। ভেজা শরীরে তোয়ালে হাতে প্রবেশ করল ছোট ভাইয়ের ঘরের ভেতর। নয়ন নেহালকে দেখামাত্র উঠে বসল। ডাকল একবার,

“ভাই?”

নেহাল মাথা মুছতে মুছতে এগিয়ে গিয়ে নয়নের পাশটা দখল করে নিলো। তোয়ালেটা একপাশে সরিয়ে রেখে কঠিন গলায় প্রশ্ন করল,

“খাসনি কেন?”

“ভুলে গিয়েছিলাম। খেয়ে নেবো।”

“আচ্ছা। খাওয়া শেষে আমি আসবো। কয়টা কথা আছে তোর সাথে।”

বলে উঠে চলে যেতে নিচ্ছিলো নেহাল,নয়ন চোখ ইশারায় থামতে বলল।

“তুমি কী বলতে চাও। বলো ভাই…আমি একটু পর খেয়ে নিচ্ছি।”

নেহাল অগত্যা বসল। কথাগুলো কীভাবে শুরু করবে বুঝতে পারছে না। নয়ন তো ছোট বাচ্চা নয়! সে যথেষ্ট বড় এবং ম্যাচিউর। তাকে বোঝাতে আসা ব্যাপারটা কেমন যেন দেখায়! তবুও বড় ভাবীর কথায় এসেছে। কিন্তু নিজেই গুলিয়ে বসে আছে বলবেটা কী! তবুও কিছু একটা বলতেই হয়, তাই নেহাল ইতস্ততভাবে বলল,

“দেখ নয়ন, তুই আমাদের সবার ছোট এবং আদরের। তুই আমার উপর রাগ করে আছিস নিশ্চয়ই। কিন্তু বিশ্বাস কর, শিমুলের সাথে আমি কিছুই করিনি! বরং কোন মোহে পড়ে ওর ডাকে সাড়া দিয়েছিলাম,এটাই বুঝতে পারছি না। তুই আমাকে ক্ষমা করে দিস ভাই। তোর মনে আমি ক্ষত হিসেবে থাকতে চাই না।”

“না ভাই,তোমার প্রতি রাগ নেই আমার। আর শিমুল যেভাবে তোমাকে বশ করেছে,আমাকেও করেছে। আমি কী ভেবে ওকে হুট করে ‘হ্যাঁ’ বলে দিলাম জানি না! এখন সবকিছু বাদ ভাই। যা হবার তা হয়ে গেছে। আমার তোমাকে অন্যকিছু বলার আছে।”

“কী? বল!”

নয়ন উশখুশ করল। মাত্র দু’দিন কেটেছে মাঝে শিমুলের চলে যাওয়ার। আর এখনি আবার যদি দ্বিতীয় বিয়ের কথা বলে! কেমন দেখাবে ব্যাপারটা! আবার না বলেও উপায় নেই। শুক্রবার হতে মাত্র একদিন বাকী। আগামীকাল বৃহস্পতিবার, এরপরই শুক্রবার। আর এই শুক্রবারই স্নেহা ওদের বাসায় প্রস্তাব নিয়ে যেতে বলেছে। তাহলে এখনি সবকিছু খুলে বলতে হবে পরিবারের সবাইকে। হালকা কেশে মনে সাহস সঞ্চার করল নয়ন। তার ইতস্তত বিক্ষিপ্ত মনের ঘটনা নেহাল বুঝতে পারল অনেকাংশে। তাই আশ্বস্ত করার জন্যে নয়নকে বলল,

“তোর ভেতর যা আছে খুলে বল। আমি কিছুই মনে করব না।”

মাথা দোলালো নয়ন। চাপা গলায় ধীরকণ্ঠে স্নেহার ব্যাপারটা খুলে বলতেই নেহাল চমকে তাকিয়ে রইলো। তার চোখমুখ দেখে আদতে কিছু বোঝা যাচ্ছে না। কিন্তু নয়নের এহেন সিদ্ধান্তে সে ভীষণ খুশি হয়েছে। সে নিজেও চাচ্ছিলো, নয়ন আরেকটি বিয়ে করে থিতু হয় যেন। কথাটি কীভাবে নয়নকে বোঝাতো, তাই নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় ছিল এতক্ষণ। যাক..এবার সব দুশ্চিন্তার অবসান ঘটেছে। নেহাল সহাস্যে সম্মতি জানালো। বাড়ির সবার সাথে এই ব্যাপারে কথা বলবে,তাও জানালো। তারপর চলে গেলে নয়ন পড়ল আরেক চিন্তায়। সে আগে থেকেই জানতো, তার পছন্দকে বাড়ির সবাই-ই পছন্দ করবে। যখন শিমুলকে বিয়ে করার কথা বাড়িতে জানিয়েছিল,তখনো কেউ বাঁধা প্রদান করেনি। হাসিমুখে বিয়ের সমস্ত আয়োজন করেছে। নয়নের সুখটাই তাদের কাছে বড়। এবারও স্নেহার বেলায় কেউ কার্পণ্য করবে না- জানে নয়ন। শুধু ভাবনা একটা জায়গাতেই। স্নেহা যদি নয়নের প্রথম বিবাহের কথা জানতে পারে,তখন? আদৌও সে নয়নকে বিয়ে করতে চাইবে? মন থেকে আপন করে নিতে পারবে তো নয়নকে? নয়ন আবার শুয়ে পড়ল। মাথার নিচে হাত গুঁজে ভাবতে লাগল, আগামীকাল তাকে আরও একবার স্নেহার কলেজের সামনে যেতে হবে। স্নেহাকে জানাতে হবে সবকিছু। এরপর স্নেহা যা সিদ্ধান্ত নিবে,তাই সই। যদি সে বিয়ে করতে মানা করে দেয়,তাহলে তাই হাসিমুখে মেনে নেওয়ার চেষ্টা করবে সে। মনস্থির করল নয়ন…

____________

জয়নাল আজ একটু দ্রুতই বাড়ি ফিরে এলো। মার্কেটে তার নিজস্ব দুটি দোকান রয়েছে। একটায় সে বসে,অপরটায় একজন বিশ্বস্ত কর্মী রাখা। যদিও প্রতিদিন অপর দোকানে ঢু মারে জয়নাল, এবং সবকিছুর খোঁজ খবর রাখে। প্রতিদিন দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফিরতে ফিরতে রাত একটা কী দেড়টা বেজে যায়। সেই তুলনায় আজ ব্যাপক জলদি চলে এসেছে। ঘড়িতে সবে মাত্র আটটা বাজে। এই জলদি আসার পেছনের কারণ হলো, জয়নাল অসুস্থ। শারীরিক ভাবে নয়,মানসিক ভাবে। মানসিক অসুস্থতাকে আমরা সহজ ভাবে দেখলেও এটি মোটেও সোজা কোনো বিষয় নয়। বরং শারীরিক রোগের চাইতেও ভয়াবহ! শিমুলের কর্মকান্ড, পরিবারের আচরণ- এইসব কিছু নিয়ে জয়নাল মোটামুটি চিন্তায় চিন্তায় শেষ। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে একটি নতুন চিন্তাধারা। গতকাল রাতে সে যখন বাড়ি ফিরছিল,তার বারবার মনে হচ্ছিল, কেউ তাকে ফলো করছে। জয়নাল যতবার পিছে তাকিয়েছে,কাউকেই দেখতে পায়নি। কিন্তু হাঁটতে শুরু করলেই কারও উত্তপ্ত নিঃশ্বাস ঘাড়ের কাছটায় পেয়েছে। মনের ভুল ভেবে দোয়া দুরুদ পড়তে পড়তে একপ্রকার দৌড়ে বাসায় ফিরেছে জয়নাল। প্রতিদিন বাড়ি এসে গোসল সেড়ে খেয়ে দেয়ে ঘুমোতে ঘুমোতে তিনটা বেজে গেলেও গতকাল সে গোসলও সাড়েনি। আর না খেয়েছে কিছু! অভুক্ত অবস্থাতেই শুয়ে পড়েছে বিছানায়। ঘুম গাঢ় হবে হবে, এমন সময়ে সে শুনেছে ছাদে কেউ হাঁটছে। যে হাঁটছে সে খুবই রিল্যাক্স মুডে আছে। পায়ের শব্দতেই এমন ধারণা হয়েছে জয়নালের কাছে। ব্যাপার গুলো অতি আশ্চর্যের এবং বিস্ময়কর জয়নালের কাছে। এরপর থেকেই দুর্বলতা এবং অসুস্থতা। একটা আলস্য সারা তনুমনে… জয়নাল বিশ্বাস করে অতিপ্রাকৃত ব্যাপার গুলো। নয়তো কোরআনে জ্বিনজাতির ব্যাপারে উল্লেখ থাকতো না! কিন্তু তার সাথে হঠাৎ এসব কী শুরু হয়েছে! এর আদ্যোপান্ত কিছুই জয়নালের কাছে বোধগম্য নয়। বিছানায় শুয়ে শুয়েই বিক্ষিপ্ত মেজাজে ভাবছিল এতসব কিছু। প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে জয়নাল খেয়াল করল বাড়িতে কেউ নেই। এই সময়ে তার বাবা সাধারণত চায়ের দোকানে মুরুব্বিদের সাথে খানিক আড্ডা দিয়ে কাটায়। মা নাটক দেখে। আজকে টিভি বন্ধ। দরজা বাহির থেকে চাপা দেওয়া। কোথাও গেছে হয়তো! জয়নাল শিমুলের নাম ধরে কয়েকবার উচ্চস্বরে ডাকলো। শিমুলের জবাব নেই। সেও কী নেই তবে? মায়ের সঙ্গে বেরিয়েছে? হবে হয়তো…
জয়নাল মাথা ঘামালো না। বাথরুম সেড়ে ভারযুক্ত মগজ নিয়ে যখন নিজের রুমের দিকে পা বাড়ালো, তখন সে খেয়াল করল, বিছানায় কেউ বসে রয়েছে। পেছন থেকে যতদূর বোঝা যায়, ব্যক্তিটি মেয়ে। জয়নাল হতবাক হয়ে পড়ল। তার কামড়ায় শিমুল ব্যতীত অন্য কে হতে পারে! আর এভাবে খালি বাড়িতে ঢুকেছেই বা কোন সাহসে! জয়নাল একবার ভাবলো,ধমক লাগাবে কী-না। পরমুহূর্তেই কে না কে, তা দেখার জন্য নরম সুরেই ডেকে উঠল। মেইন দরজা খোলার শব্দ পাওয়া যাচ্ছে। সঙ্গে ভেসে হাসছে শিমুলের উচ্চ শব্দের হাসি, মায়ের কথা। তারা কী যেন বলাবলি করছে আর হাসছে। জয়নাল রুমে না ঢুকে একবার পেছন ফিরে তাদেরকে দেখে নিলো। মা বললেন,

“এখানে দাঁড়িয়ে কীরে?”

জয়নাল জবাব দিলো,

“কিছু না।”

তারপর সামনে তাকাতেই তার শিরদাঁড়া বেয়ে একফোঁটা শীতল ঘাম গড়িয়ে পড়ল। বিছানায় কেউ নেই! ঘর খালি! গলা শুকিয়ে কাঠ! এই মাত্রই তো দেখল মেয়েটিকে। বসে ছিল এইখানটায়! গেল কই? জয়নালের মনে হলো,তার মাথা ঘুরছে। সে কোনোক্রমেই দাঁড়িয়ে থাকতে পারবে না। ভকভক করে একগাদা বমি দিয়ে মেঝে ভাসিয়ে ফেলল জয়নাল।

______________

কক্সবাজারের দুটো টিকিট কাটা হয়েছে অনলাইনে। মরিয়ম বেগম রাজী হয়েছেন নেহাল আর কুসুমকে এই মুহূর্তে দূরে কোথাও ঘুরতে যেতে দিতে। সেই নিয়ে উচ্ছ্বসিত কুসুম। বিয়ের পর এই প্রথম এতদূরে ঘুরতে যাবে তারা! মোট চার দিন পাঁচ রাত থাকবে কক্সবাজারে। এই চার দিন হবে তাদের জীবনের শ্রেষ্ঠ মুহূর্ত,শ্রেষ্ঠ সময়। নেহাল বলল,

“ফোন বন্ধ করে রাখবো ভাবছি। এতে কেউ আর ডিস্টার্ব করতে পারবে না আমাদের।”

কুসুম ভ্রু কুঁচকে হাসলো। সে আলমারি খুলে শাড়ি বাছাই করছে। কোনটা কোনটা নিবে,কোনটা পরে যাবে,তাই ভাবছে। নেহালের একটা শার্ট আছে সাদা রঙের। কুসুম সেটা বের করে বলল,

“এটা নিয়ে যাবেন?”

“কেন? ওটা নিতে চাইছিলাম না আমি।”

“উঁহু,নিবেন। আপনাকে সাদায় ভীষণ সুন্দর লাগে।”

“তাহলে তুমি কালো শাড়িটা নাও। আমি সাদা,তুমি কালো। মানাবে,কী বলো?”

“নাহ, আমি লাল টুকটুকে শাড়িটা নিচ্ছি। ওটা পরব। আপনি সাদা,আমি লাল। আমার রক্তলালে আপনার সাদা শার্ট ডুবে যাবে প্রগাঢ় ভালোবাসায়…”

নেহাল স্মিত হেসে এগিয়ে এলো।

“আমাদের জীবনে সবকিছু কত সুন্দর যাচ্ছে! তাই না কুসুম? নয়নটাও অন্য একজনেতে বিভোর! আমরা ঘুরতে যাচ্ছি। পরিবারের সবাই খুশি। একটা আমেজ, রবরব ভাব।”

“আরও হবে। নয়ন ভাইয়ার বিয়েটা এবার আরও ধুমধাম করে দিবো কেমন? অনুষ্ঠানের আনন্দে সবাই পুরোনো শোক ভুলে যাবো।”

“সবসময় এমন খুশি থাকতে চাই কুসুম।”

“ইনশাআল্লাহ।”

কুসুম আশ্বাস দিলো। নেহাল আশ্বস্ত হলো। অথচ ওরা জানে না,কী দুর্ঘটনাটাই না অপেক্ষা করছে আগামীর জন্যে!
#শর্বরী
অলিন্দ্রিয়া রুহি

(১০)

নেহাল আর কুসুমকে বাসে তুলে দিতে নয়ন এসেছে সঙ্গে করে। দু’জনকে সিটে বসিয়ে দিয়ে পাশের সিটে নয়নও বসল। বাস ছাড়তে মিনিট সাতেক বাকী। নয়ন মুখ গোমড়া করে রেখেছে। আজ বৃহস্পতিবার,আগামীকাল শুক্রবার। নেহাল ইতিমধ্যে বাড়ির সবাইকে নয়নের স্নেহার কথা জানিয়ে দিয়েছে এবং নয়নের জ্ঞাতসারেই সবাই খুশি হয়েছে। হাবিব শিকদার জানিয়েছেন, শুক্রবারেই মেয়ের বাসায় যাবেন প্রস্তাব নিয়ে। কিন্তু নয়নের ভালো লাগছে না এই মুহূর্তে নেহাল আর কুসুমের চলে যাওয়াটা। তার বিয়ের কথাবার্তার সময় নেহাল থাকবে না! কেমন করে হয়! নেহাল অবশ্য বুঝিয়ে বলেছে,এখনই তো বিয়েটা হয়ে যাচ্ছে না। এখন শুধু কথাবার্তা পাকা করা হবে। সে চারদিন পরই ফিরে আসবে। তারপর ধীরেসুস্থে একটা ডেট ফালানো হবে বিয়ের এবং নয়নের বিয়ের আগাগোড়া সবটাই নেহাল নিজ হাতে সামলাবে। বাসের হেল্পার উঠে যাত্রী বাদে সকলকে নেমে যাওয়ার নির্দেশ দিলে নয়ন উঠে দাঁড়াল। স্মিতহাস্যে বলল,

“চলি।”

“সাবধানে যাস। আর মুখটা প্যাঁচার মতো বানিয়ে রাখিস না। আমরা চিরজীবনের জন্য চলে যাচ্ছি না!”

নয়ন ঠোঁট বাঁকায়। ভাবীর থেকে বিদায় নিয়ে নেমে পড়ে। দাঁড়িয়ে থাকে জানালা ঘেঁষে। দু মিনিটের মাথায় বাস চলতে শুরু করে ধীর গতিতে। হাত নাড়ায় কুসুম, নয়ন প্রত্যুত্তরে নিজের হাত নাড়িয়ে বিদায় জানালো। দেখতে দেখতে দৃষ্টিসীমার বাহিরে চলে গেল বাস। মৃদু শ্বাস ফেলে ফুটপাত ধরে হাঁটতে লাগলো নয়ন। গন্তব্য, স্নেহার কলেজ। স্নেহাকে আজ প্রথম বিয়ের কথা জানাবে সে। এরপর যা ঘটুক, দেখা যাবে! কিন্তু মিথ্যার আশ্রয়ে কোনো পবিত্র সম্পর্ক শুরু করতে মোটেও আগ্রহী নয় নয়ন।

.

.

একটা বাচ্চা তার আম্মুকে কিছু কিনে দেওয়ার আবদার করছে বারংবার। কিন্তু মায়ের সেদিকে খেয়াল নেই। সে একমনে দামাদামি করে চলেছে দোকানীর সাথে। দোকানীও বুঝেছে, শাড়িটা মহিলার খুব পছন্দ হয়েছে। তাই সেও দাম ছাড়তে চাচ্ছে না কিছুতেই। জয়নাল নিজের দোকানে বসে বসে দৃশ্যটা দেখলো। শাড়িটার কেনা দাম সাতশোর বেশি হবে না। অথচ দোকানী চাইছে সতেরোশো টাকা! জয়নাল মৃদু শ্বাস ফেলে দৃষ্টি সরিয়ে নিয়ে ডুবে গেল গতকাল রাতের ঘটনাটায়। সে হতভম্ব তার সাথে হওয়া সমস্যা গুলোর জন্য। সে রাতে বমি করার পর শরীরটা অনেক হালকা লাগছিল জয়নালের। সবকিছু পরিষ্কার করে,নিজে পরিষ্কার হয়ে বিছানায় গা এলিয়ে দেয় খুব দ্রুতই। ঘুমও চলে আসে সঙ্গে সঙ্গে। যখন ঘুম ভেঙেছিল তখন রাত দুটোর বেশি। ছাদে কারও পায়ের চলাচল… শব্দটা ভীষণ স্পষ্ট এবং প্রখর ছিল। কাঁথার ভেতর মুখ গুঁজে চুপচাপ শুয়েছিল জয়নাল। না উঠেছে,না নড়েছে। এক অজানা ভয় তাকে গ্রাস করে নিচ্ছে ধীরে ধীরে। তার সাথে যা-ই ঘটছে,সেটা ভালো ঘটছে না কোনোভাবেই। দ্রুতই কিছু একটা করা দরকার। কিন্তু কী করবে জয়নাল! কোনো হুজুরকে বলবে তার সমস্যাটা? জয়নাল হাতঘড়ি দেখলো। সময় দুপুর তিনটা। তার মার্কেট থেকে ঘন্টা একের দূরত্বে একজন হুজুরের বসবাস,জয়নাল জ্ঞাত সেই ব্যাপারে। শোনা গেছে,ওই হুজুর খুবই ভালো চিকিৎসা দিতে জানে। তার কাছে গেলে এখনই রওনা দিতে হয়। জয়নাল ভাবলো, এখান থেকে বেরিয়ে সোজা একটা হোটেলে যাবে। কিছু খাবে,এরপর সোজা হুজুরের কাছে। দোকান বন্ধ করে অপর দোকানের কর্মীর সঙ্গে টুকটাক কিছু আলাপ করে মাথায় রোদ নিয়েই বেরিয়ে পড়ল জয়নাল। এতক্ষণ ক্ষুধা ভাব থাকলেও এখন পেটের ভেতর মোচড় দিয়ে উঠছে। হোটেলে খাওয়ার চিন্তাটা মাথা থেকে ঝেড়ে বাসে উঠে পড়ল জয়নাল। সিটে গা এলিয়ে দিতেই চোখ জোড়া মুদে গেল আপনা আপনি। বন্ধ চোখের পাতায় ভেসে উঠল গতকালকের সেই মেয়েটির অবয়ব….

.

.

কলেজ ছুটি হয়েছে। একে একে মেয়েদের ঢল বেরোচ্ছে ভবন থেকে। এটি নিশ্চয়ই গার্লস কলেজ, চিন্তা করল নয়ন। সে দাঁড়িয়ে আছে পূর্বের দিনে আসা সেই টং দোকানে। মাথা উঁচু করে অস্থির নেত্রে খুঁজছে এদিক ওদিক, কিন্তু কোথাও তার স্নেহাকে খুঁজে পেল না। সবাই চলে যাওয়ার পর দারোয়ান গেট আঁটকে দিলো। তারপরও নয়ন দাঁড়িয়ে রইলো আধঘন্টার ন্যায়। স্নেহার টিকিটাও খুঁজে পেল না শেষতক। তবে কী স্নেহা আজ কলেজেই আসেনি! নয়নের চিত্ত বেদনায় নীল। আনমনে সিগারেট ফুঁকতে ফুঁকতে ফুটপাত ধরলো আবারও। আগামীকাল সরাসরি পরিবার সমেত স্নেহার বাসায় চলে যাওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় তাহলে নেই। সেখানেই না হয় সবকিছু খুলে বলা যাবে স্নেহাকে। কিছুটা স্বস্তি মিললেও দুশ্চিন্তার অন্ত হলো না। স্নেহা যদি তাকে বিয়ে করতে রাজী না হয় শেষ পর্যন্ত! নয়নের ভাঙা মন যদি আরও একবার ভেঙে যায়! এত ব্যথা সইবে কী করে সে!

***

দুপুরের দিকে একটা হোটেলের সামনে থেমেছিল বাস। সেখান থেকেই সব যাত্রীরা খাওয়া দাওয়া এবং বিশ্রাম সেড়ে রওনা হয়েছে কক্সবাজারের পথে। কুসুম ক্লান্ত। বাসে চড়ার অভ্যেস নেই। দু’জনে সবসময় রিকশাতেই ঘোরা হয়েছে কমবেশ। এবং এই প্রথম এত দূরের যাত্রা! তার উপর গর্ভবতী। এখনই নাড়িভুঁড়ি উল্টে আসছে রাস্তার উটকো গন্ধে। কতক্ষণে যেয়ে পৌঁছোবে,কে জানে! কুসুম দুর্বল গলায় প্রশ্ন করল,

“আর কতক্ষণ লাগবে যেতে?”

সে কথার জবাব না দিয়ে পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়লো নেহাল।

“খারাপ লাগছে তোমার?”

“একটু।”

“পানি খাবা?”

“উঁহু, পেটে মোচড় দিচ্ছে।”

“মোচড়টা কে দিচ্ছে? তোমার মতোই আরেকটি ছোট্ট কুসুম?”

কুসুমের খারাপ লাগা অনেকাংশেই লাঘব হয়ে গেল এই এক কথায়। পেটের উপর আলতো করে হাত ছুঁইয়ে দিলো। ঠোঁটের কোণায় এক চিলতে হাসি। নেহালের অধর জুড়েও হাসি। মেয়েটা অল্পতেই সুখ খুঁজে পায়। কুসুম কী যেন অনুভব করে বলল,

“উঁহু, আমার মনে হচ্ছে,তোমার মতোই আরেকটি ছোট্ট নেহাল।”

“ছেলে হবে বলছো?”

“মন বলছে।”

“কী নাম রাখবে?”

“নিনাদ।”

সঙ্গে সঙ্গে উত্তর দিলো কুসুম। উত্তর দিয়ে নিজেই তাজ্জব বনে গেল। উত্তরটা সে একটুও ভেবে দেয়নি। কী ভেবে হুট করে এই নামটাই মাথায় এলো! কুসুমের চমকিত মুখখানা নেহালের চোখ এড়ালো না। সে প্রশ্ন করল,

“কী ব্যাপার? কী হলো?”

“বিশ্বাস করো, আমি কিছু না ভেবেই নামটা বলেছি। তুমি যখন জিজ্ঞেস করলে ছেলে হলে কী নাম রাখবো, আমার মনে এই একটা নামই চলে এলো হুট করে। মনে হলো, এই নামটা শুধুমাত্র আমার অনাগত ছেলের জন্যেই তৈরি হয়েছে।”

“ছেলে হবে নাকি মেয়ে,তা অদৃশ্য কাঠি নাড়া মালিক ছাড়া আর কেইবা বলতে পারে! তবে যদি ছেলে হয়, তবে এই নামটাই থাকবে। নিনাদ! আমাদের ছোট্ট নিনাদ! কী? খুশি?”

উৎফুল্ল চিত্তে নেহালের এক বাহু জড়িয়ে ধরলো কুসুম। নেহালের কাঁধের উপর মাথা রেখে আদুরে গলায় বলল,

“খুব খুশি।”

.

.

আসরের আগে আগেই পৌঁছে গেল জয়নাল। হুজুর নামাযের পর বসবেন। তাই অপেক্ষা করতে হলো জয়নালকে। পেটে পাঁক দিচ্ছে বারংবার, অথচ খাওয়ার প্রতি রুচি লাগছে না। আর রুচি না লাগলে জোর করে হলেও খাওয়া যায় না কিছুই! তাই বসে রইলো জয়নাল হাফ বোতল পানি খেয়ে। আযান পড়লে সেও নামায পড়ে নিলো। তারপর সেই রুমে প্রবেশ করল যেখানে হুজুর বসেন। সবার সমস্যা শুনেন এবং সেই অনুযায়ী সমাধান করার চেষ্টা করেন। হুজুর বসে রয়েছেন। জয়নালকে ইশারায় কাছে এসে বসার আমন্ত্রণ জানালেন। জয়নাল আমন্ত্রণ গ্রহণ করল। হুজুরের মুখোমুখি বসে গত দুইদিনে ঘটা সমস্ত কথা নির্দ্বিধায় বর্ণনা করে গেল একের পর এক। হুজুর শুনলেন চুপচাপ। জয়নাল থামলো,দম নেয়। অস্পষ্ট চোখে তাকাল। তার কেন যেন খুব ভয় লাগছে। সে বারবার চাইছে,সবকিছু মনের ভুল হয় যেন। এর বেশি কিছু না। কিন্তু হুজুরের চিন্তিত চোখমুখ তার শরীরে হেলদোল শুরু করে দিলো। যখন হুজুর বললেন, “বড়ই গাছের নিচে পোঁতা হয়েছে এমন এক পুতুল, যা তোমার ন্যায়, তোমার রূপ এবং তোমারই অবয়ব”, তখন জয়নাল চমকে গেল পুরোপুরি।

(চলবে)
(রেগুলার দেওয়ার চেষ্টা থাকবে এখন থেকে এবং খুব দ্রুতই শেষ হয়ে যাবে,ইনশাআল্লাহ)
(চলবে)
[প্যানিক হবেন না!]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here