সবটাই_তুমিময় পর্বঃ৬

0
310

সবটাই_তুমিময় পর্বঃ৬
#লেখনিতে-মিথিলা মাশরেকা

-আপনার ঠিক কি চাই মিস্টার অঙ্কুর?

শক্ত গলায় প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করলেও উত্তরের জন্য একদমই প্রস্তুত নই আমি।তবুও অঙ্কুরকে প্রশ্নতাক করতে সব দ্বিধা,ভয়,ঘৃনা,আক্রোশ একপাশে ঠেলে সোজা রুমেই ঢুকে পরেছি তার।এসে দেখি উনি বেডে স্বাভাবিকভাবে আধশোয়া হয়ে ল্যাপটপে ব্যস্ত।এতোক্ষন আমার আসাটা নিয়ে বিস্ময়ে তাকিয়ে ছিলেন।প্রশ্নটা শুনে কোল থেকে ল্যাপটপ সরিয়ে বিছানা ছেড়ে নামলেন উনি।অন্যদিক ফিরে দাড়িয়ে অনেকটা সময় নিয়ে বললেন,

-আমার কি চাই তা তো আপনার অজানা নয় মিস অদ্রি।আমি তো আগেই বলেছি,আই ওয়ান্ট আ বেবি ফ্রম ইউ।আপনার কাছে বেবি চাই আমার।শুধু এটুকোই।

আবারো সেই একই কথা!দাতে দাত চেপে রাগ সংযত করে শেষবারের মতো শান্ত করলাম নিজেকে।তাকে বোঝাবো।ভুল করছেন উনি।বললাম,

-শুধু এটুকোই?আপনার কাছে এসব এটুকো মনে হয়?আমি….

এবার উনিই ফুসে উঠে আমার সামনে এসে দাড়ালেন।চেচিয়ে বললেন,

-আপনি কি?আপনি কি মিস অদ্রি?সেরোগেশনে রাজি ছিলেন না,এখন জানলাম তার জন্য ফিজিক্যালি ফিট নন আপনি।কিন্তু আমার বেবি চাই!এট এনি কস্ট!বিয়ের আগে বাচ্চার মা হয়ে অপমানিত হতে হবে না আপনাকে।তাই বিয়ে করেই…..

-তারমানে শুধু‌ বেবির জন্য আমাকে‌ বিয়ে করতে চাইছেন আপনি?

উনি আবারো অন্যদিক ফিরলেন।হাত মুঠো করে দাড়িয়ে রইলেন অনেকক্ষন।গিয়ে ওনার সামনে দাড়িয়ে বললাম,

-চুপ করে থাকবেন না!আন্সার মি!শুধুমাত্র বেবির জন্যই কি আপনি….

-হ্যাঁ।শুধুমাত্র বেবির জন্যই আপনাকে বিয়ে করবো আমি।

কথাটা শুনে রন্ধ্রে রন্ধ্রে চলা রক্তপ্রবাহ আটকে গেলো আবারো।দুপা পিছিয়ে গেলাম।এই লোকটার প্রতি ঘৃনাটা চরমে পৌছেছে আমার।রাগে,ঘৃনায় চোখ দিয়ে পানি পরতে লাগলো।অঙ্কুর আমাকে কাদতে দেখে একটু ব্যস্ত হয়ে পরলেন।এগিয়ে কিছু বলতে যাচ্ছিলেন,হাত দিয়ে থামিয়ে দিলাম ওনাকে।উনি বললেন,

-মিস অদ্রি,বিয়েটা হবেই।তবে আপনার মত ছাড়া…..

-জাস্ট শাট আপ!কোনো কথা শুনতে চাইনা আমি আর আপনার!কান খুলে শুনে রাখুন মিস্টার অঙ্কুর!এই বাসায় বন্দি থেকে পচে মারা পরবো,তবুও আপনার মতো জঘন্য মানুষের জঘন্য কথায় রাজি হবো না!কোনো বিয়ে হবে না!কোনো বাচ্চাও হবে না!শুনেছেন?আর হ্যাঁ,জোর করবেন কি না,সেটা আপনি ভালো জানেন।কিন্তু যদি জোর করতে আসেন,আই সোয়ার,নিজেকে শেষ করে দেবো আমি।কথাগুলো মনে রাখবেন!

-আপনার কাছে দ্বিতীয়বার মৃত্যুর কথা শুনতে চাইনা মিস অদ্রি!

-বলবো না!বাট ট্রাস্ট মি,আমার কথা না মানলে কাজে করে ফেলবো!দ্বিতীয়বার ভাববো না!

বেরিয়ে আসছিলাম রুম থেকে।অঙ্কুর বলে উঠলেন,

-সন্ধ্যায় প্রদীপ সরকার এ বাসায় আসছে।তার থেকে নিজেকে ঠিক কোথায়,কিভাবে লুকোবেন সেটা এখনই ভেবে রাখুন।নইলে তার চোখে পরলে যে আপনার মৃত্যু সুনিশ্চিত,এ বিষয়ে আপনি অবশ্যই নিশ্চিত।তাইনা মিস অদ্রি?

প্রদীপ সরকারের নাম শুনে রাগে হাত মুঠো হয়ে আসলো আবারো।পেছন ফিরে বললাম,

-আজ তবে প্রদীপ সরকারের হাতেই অদ্রি মারা যাবে!তাতে অন্তত এই জাহান্নাম থেকে তো মুক্তি পাবো!আপাতত নিজের মৃত্যুকামনাই করছি!

অঙ্কুর ঝড়ের বেগে এসে ওড়না ধরে টান লাগালেন আমার।ওড়না ধরে রাখতে গিয়ে দেয়ালে গিয়ে পিঠ ঠেকেছে আমার।ওড়নার একপ্রান্ত অঙ্কুরের হাতে,আরেকপ্রান্ত কোনোমতে গায়ে জরিয়ে নিলাম।নিজেকে সামলে উঠে মাথা তোলার আগেই উনি দেয়ালের দুপাশে হাত রেখে একদম কাছে এসে দাড়ালেন আমার।পুরো চেহারাটাই লাল হয়ে গেছে তার।পাশে হাত,নিচ দিয়ে বেরোবো,হাত নিচে ঠেলে দিলেন উনি।জামা খামচে ধরে চেচিয়ে বললাম,

-গেট আউট অফ মি!

-আপনাকে এতো সহজে তো মরতে দিতে পারি না মিস অদ্রি।আপনাকে মরতে দেবো বলে তো সেদিন বাচাই নি।মরতে দেবো বলে তো আমার পুরো লাইফটাকে উল্টেপাল্টে দেইনি আমি।মরতে দেবো বলে তো এতোকিছু করছি না আমি।আপনি‌ মারা গেলে এগুলোর হিসেব দেবে কে?আমার সব ক্ষতগুলোর হিসেব কে দেবে?না!মরতে তো আপনাকে দেবোই না!সবটা সুদে আসলে উশুল করেই দম নেবে এএসএ!মাইন্ড ইট!

উনি ওড়না ধরেই টানতে টানতে রুমের বাইরে‌ নিয়ে আসলেন আমাকে।নিজের মতো করে আমিও ওড়না ছাড়ানোর চেষ্টায় ছিলাম।লাভ হয়নি।করিডরের শেষ প্রান্তে একটা বড়সড় রুমে এনে ছেড়ে‌ দিলেন ওড়নাটা।বললেন,

-প্রদীপ সরকার চলে না যাওয়া অবদি এখানেই থাকবেন আপনি!

এটুক বলেই দরজা লক করে বেরিয়ে গেলেন অঙ্কুর।সিক্রেট ইনফর্মার কাজটতে জড়ানো নিয়ে আজ প্রথমবার আফসোস হচ্ছে আমার।মারা গেলেও এ আফসোসটা করতাম না।কিন্তু মৃত্যুর চেয়ে আরো ভয়ানক শাস্তি পেতে হচ্ছে আমাকে।আরো ভয়ানক কিছু ভেবে রেখেছেন অঙ্কুর!

.

গত ছ মাসে অদ্রি ছদ্মনামে অনেকগুলো পেপারওয়ার্ক করেছি।রিস্কি ছিলো,তবে রিস্কি মনে করিনি।এই একমাত্র প্যাশনের বাইরে আর কিছুই‌ ভাবতে পারতাম না।জব ইন্টারভিউ,কোচিং,ভার্সিটির নানা ট্রিপের কথা মনিমাকে বলে বেরোতাম বাসা থেকে।পাঁচদিন আগেও বেরিয়েছিলাম।কিন্তু এবারের রিপোর্টটা একটু বেশিই চ্যালেন্জিং ছিলো।সমাজসেবকরুপী কুখ্যাত জুয়ারু প্রদীপ সরকারের বিরুদ্ধে প্রমানের খোজে ছিলাম এবার আমি।উনি বরাবরই মুল নিশানা ছিলেন আমার।দীপক তালুকদারের থেকে পাওয়া হিন্টস্ গুলো কাজে লাগিয়ে,আরো বেশ কয়েকসপ্তাহ টানা ফলো করার পর প্রদীপ সরকারের পরবর্তী আড্ডার খবর পেয়ে যাই।জানতে পারি একটা নাইট ক্লাবে পরবর্তী ডিল করার কথা তার।

ক্লাবের এক ওয়েট্রেসকে টাকা খাইয়ে ওর‌ শিফটটা আমিই নিয়ে নেই সেদিন।ছদ্মবেশে পৌছে যাই ক্লাবে।কিন্তু সেখানে গিয়ে যা‌ দেখেছিলাম,সেটা বড়সড় শক ছিলো আমার জন্য।প্রদীপ সরকারের সাথে এএসএ!ওই কুৎসিত লোকটার সাথে এএসএ’কে দেখে থমকে গিয়েছিলাম।তার থেকেও বেশি বিস্মিত হয়েছিলাম এটা শুনে,পুরো দেশ যার উপর এতোটা ভরসা করে,সেই এএসএ প্রদীপ সরকারের কাছে টাকার বিনিময়ে ম্যাচ হারার ডিল করতে এসেছেন।মানুষ টাকার জন্য ঠিক কতটা নিচে নামতে পারে তার এক বাস্তব উদাহরন!প্রদীপ সরকার বললো,

-শোনো এএসএ,আপকামিং আন্তর্জাতিক ম্যাচে সমস্ত গ্যামব্লাররা তোমার দলের জয়ের উপর টাকা বাজি রাখতে যাচ্ছে।সে টাকাগুলো জিততে হলে ওই ম্যাচে হারতে হবে তোমার দলকে।এজন্য‌ যা এমাউন্ট চাই তোমার,পেয়ে যাবে!ডিলে রাজি থাকলে বলো,আমি….

এএসএ টেবিলে রাখা পেপারওয়েটটা ঘুরাতে ঘুরাতে বললেন,

-ডিল করবো বলেই এখানে আসা।এএসএ’র টিম ওইদিন ম্যাচ হারবে।আমি কনফার্ম করছি আপনাকে।আপনি এটা ভাবুন,টাকাটা কিভাবে পে করবেন?

-তারআগে এটা তো শিওর হই,তুমি আমার জন্যই খেলছো!

-পরশু ক্লাবের যে ম্যাচটা হবে,তাতে এএসএ জিরো রানে আউট হবে।এটা এনাফ?নাকি….

-স্পোর্টলাইফে এ অবদি জিরো রানে আউট হওনি তুমি এএসএ!

-এবার থেকে হবো।

প্রদীপ সরকারের ঠোটে সন্তুষ্টির হাসি।বললো,

-গ্রেট!ডিল কনফার্মড্!

-তবে একটা কথা ক্লিয়ার হলাম না এএসএ!তোমার বাবা এতোবড় ব্যবসায়ী,এতো টাকাপয়সা তার,তোমারও ক্রিকেট ক্যারিয়ারে ইনকাম অনেক।তবুও তুমি কেনো আমার সাথে ডিল করতে রাজি হয়ে গেলে?

পেপারওয়েট ছেড়ে এএসএ তারদিক তাকালেন।উঠে দাড়িয়ে কোটটা টেনে ঠিক করে বললেন,

-মানুষকে বাইরে থেকে দেখে বিচার করা উচিত না।আমি বরাবরই স্বার্থপর একটা মানুষ মিস্টার সরকার!স্বার্থ ছাড়া কোনো কাজই করি না আমি।আর এটাও খুব ভালোভাবেই জানি,টাকাই পৃথিবীতে সব।সেটা বাবারই থাকুক,বা আমার।লাইফলিড করতে গেলে,আজ হোক বা কাল,টাকা কম পরবেই।তাই,টাকাকেই প্রায়োরিটি দেই সবসময়।আর যেখানে একটা ম্যাচ হেরে আমি দশটা ম্যাচ জেতার সমপরিমান টাকা পাচ্ছি,কেনো বেকার খাটুনি খাটবো বলুন তো?

বারের এককোনে বসে আলোচনা চলছিলো তাদের।লুকিয়ে সবটা শুনছিলাম।ক্যামেরায় দুটো ছবি ক্লিক করে‌ও নিয়েছি চুপিচুপি।কথা শেষে পাশের এক লোকের হাতে থাকা কয়েকটা ফাইলের মধ্য থেকে এএসএ’কে একটা ফাইল এগিয়ে দিলো প্রদীপ সরকার।উনি ফাইলটায় চোখ বুলিয়ে সাইন করতে লাগলেন।সাইন করা শেষে হাত মেলালেন দুজনে।ফাইলগুলো একটা ব্রিফকেসে রাখলেন প্রদীপ সরকার।

ফাইলগুলো যে তার কুকর্মের প্রমান,সেটা বুঝতে বাকি রইলো না।তাছাড়া এএসএ’র এই ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রমানটাও আছে ওতে।তার ক্লাবের পরিচালককে সবটা দেখাবো আমি।এই লোক ইচ্ছে করেই পরের ইন্টারন্যাশনাল ম্যাচে হারতে চলেছে।নিজেও খারাপ খেলবে আর তার টিমকেও মিসলিড করবে হারার জন্য।তাই খেলার ফ্লো ঠিক রাখতে তাকেই ক্লাব থেকে বের করানোর ব্যবস্থা করতে হবে।এজন্য ওই ফাইলগুলোই আগে জোগার করতে হবে আমাকে।যাতে প্রমান করতে পারি এই লোকটা একটা ঠকবাজ!ফ্রড!

ওরা কথা বলছিলো তখনও।ক্লাবে বাকিসব নিজেদের মতো নাচ আর ড্রিংক করতে ব্যস্ত।আস্তেধীরে ক্লাবের এককোনে থাকা ফায়ার সেন্সরের কাছে গিয়ে লাইটার ধরলাম।সাথেসাথে ফায়ার এলার্ম বেজে উঠলো।হন্তদন্ত হয়ে ছোটাছুটি করতে লাগলো সবাই।ভীড়ের মধ্যে মিশে গিয়ে দরজার সামনেই দাড়ালাম।ফায়ার এলার্ম শুনে ক্লাবের ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিলো।টর্চের আলোতে দেখলাম ভীড়ের মধ্যে এএসএ ও বেরিয়ে গেলেন।প্রদীপ সরকার যেইনা বেরোতে যাবেন,ইচ্ছে করেই ধাক্কা লাগিয়ে দিলাম তাকে।লোকটা হুড়মুড়িয়ে পরে গেলো।ব্রিফকেসটা একদম দুরে গিয়ে পরেছে।

-সরি স্যার!সরি সরি!এক্সট্রেমলি সরি!সরি স্….

-স্টপ ইউর ননসেন্স!ব্রিফকেসটা কোথায়?জলদি আনো!

অন্য আরেকটা ব্রিফকেস তার হাতে ধরিয়ে দিয়ে বললাম,

-এ্ এইতো!এইতো আপনার ব্রিফকেস স্যার!আ্ আগুন!

আগুন শুনেই একদৌড়ে‌ বেরিয়ে গেলো লোকটা।ক্লাবের বাকিসবের সাথে আমিও বেরিয়ে আসলাম।সবটাই ঠিক সেভাবেই হয়েছিলো,যেভাবে আমি প্লান করেছিলাম।ব্রিফকেসটা নিয়ে স্কুটি স্টার্ট দিয়ে অনেকটাই দুর অবদি চলেও আসি।কিন্তু হুট করেই দুটো গাড়ি এসে সামনে দাড়িয়ে যায় আমার।কোনোমতে স্কুটি থামিয়ে নেমে দাড়ালাম।সামনের গাড়িদুটোর একটা থেকে প্রদীপ সরকার আর ওর দলবল বেরিয়ে এলো।প্রদীপ সরকার বললো,

-এই মেয়েটাই ছিলো!ওর কাছেই আছে ব্রিফকেসটা!

দশ বারোজন মিলে ঘিরে ধরলো আমাকে।দম মেরে দাড়িয়ে রইলাম।ভেবেছিলাম সবটা আমার পরিকল্পনামতোই হয়েছে।কিন্তু না,আজ ধরা পরে গেছি।কোনো রক্ষে নেই আর।হয়তো এটাই ছিলো নিয়তিতে।স্কুটিতে রাখা ক্যামেরা,ব্রিফকেসটা যথেষ্ট ছিলো আমার মৃত্যুর কারন হিসেবে।ছোটাছুটির চেষ্টাটাও করিনি।জানতাম লাভ হবে না।প্রদীপ সরকারের ইশারায় এক লোক এগোলো আমার দিকে।বললো,

-স্যার!মেয়েটাকে তো ওই ক্লাবে কোনোদিন দেখিনি!ও পুলিশের কোনো গুপ্তচর হবে নিশ্চিত!

প্রদীপ সরকার তেড়ে এলো আমার দিকে। বললো,

-কে তুমি?

….

-এই মেয়ে?কথা‌ বলো!কে তুমি?কি ভেবেছিলে তুমি?আমার আড্ডায় ঢুকে,আমাকেই বোকা বানিয়ে,আমার বিরুদ্ধেই প্রমান জোগার করে নিয়ে চলে যাবে আর আমি টেরও পাবো না?এতোটা সাহস তোমার?

….

-চুপ করে আছো কেনো?জবাব নেই?

…..

-এতো সময় নেই আমার!একটা প্রশ্নের জবাব দাও।তুমি কে?

…..

-এমনি এমনি জিজ্ঞাসা করছি না তোমার নাম!কাল নিউজে তোমার মৃত্যুসংবাদ কি নামে টেলিকাস্ট হবে বলো?ডেডবডি তো কেউ খুজে পাবে না!আইডেন্টিফিকেশনও সম্ভব হবে না!তাই….

চোখ তুলে তাকালাম।কোনোরুপ সংকোচ ছাড়াই বলে দিলাম,

-অদ্রি।

সবাই খানিকটা বিস্ময়ে তাকালো।একটু থেমে থেকে প্রদীপ সরকার বললো,

-ওওও!আই সি!তুমিই অদ্রি?ফ্রম ভোরের বাংলা?অনেক শুনেছি তোমার নাম।এভাবে দেখা হবে ভাবিনি!বাট আই ওয়ান্ট টু মেক মেমোরেবল দিস মিটিং!ইউনিক ডেথ দেবো তোমাকে অদ্রি!এটুকো বয়সে এতোবেশি সাহসিকতা!তার পুরষ্কার আরো অনন্য হওয়া উচিত!এমন ভয়ংকর মৃত্যু হবে তোমার,সাংবাদিকতা পেশাকে ভুলে যাবে এদেশের মানুষ!আই উইল মেক শিওর দ্যাট অদ্রি!

চোখ‌ বন্ধ করে রইলাম।মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত করলাম নিজেকে।কিন্তু মনিমাকে শেষবারের মতো দেখতে পারবো না ভেবে চোখ বেয়ে পানি পরতে লাগলো শুধু।এরমধ্যেই কেউ বলে উঠলো,

-কেউ ছোবে না ওকে!

চোখ মেললাম আমি।ল্যাম্পপোস্ট,স্কুটি আর গাড়ির হেডলাইটের আলোয় দেখলাম এএসএ আমার সামনেই দাড়িয়ে।তারমানে কথাটা উনিই বলেছেন।উনি আবারো বললেন,

-একে আমার হাতে ছেড়ে দিন মিস্টার সরকার!আমি দেখে নেবো একে!

উপস্থিত সবাই বিস্ময়ে তারদিক তাকিয়ে।একবারের জন্য ভেবেছিলাম হয়তো বাচাবেন বলে ওমনটা বললেন উনি।কিন্তু না,উনি তো বললেন আমাকে দেখে নেবেন।আবারো চুপ করে দাড়িয়ে রইলাম।একটু সময় নিয়ে প্রদীপ সরকার বললো,

-তুমি?এসবের অভ্যেস নেই তোমার এএসএ!

-করে নেবো!ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো ম্যাচ ডিল করতে আসলাম,সেখানে কেউ বাধা হয়ে দাড়াবে,আই ওন্ট টলারেট দ্যাট মিস্টার সরকার!এর ভবিষ্যৎ আমি ডিসাইড করতে চাই!

-কিন্তু….

-আই ওয়ান্ট হার!এন্ড আই মিন ইট!

-ওকে ওকে।এতো জোর করছো যখন,নিয়ে যাও!তবে হ্যাঁ,এটা অবশ্যই নিশ্চিত করবে ওর মুখ যেনো বন্ধ থাকে।নইলে আমার সাথে সাথে কিন্তু তোমারও এতোবছরে তৈরী করা নাম ধুলোয় মিশে যাবে এএসএ!

উনি বাকা হেসে বললেন,

-এএসএ জানে,ওর কি করনীয়।এনিওয়েজ,আসছি!

এটুক বলেই উনি সোজা এসে হাত ধরলেন আমার।তাদের সম্পুর্ন কথোপকথনের সময়ও উনি আমার দিকেই তাকিয়ে ছিলেন।আমাকে নিয়ে চলে আসতে গিয়ে আবারো কি মনে করে থেমে গেলেন উনি।পেছন ফিরে বললেন,

-ও হ্যাঁ!টাকাটা যেনো আমার একাউন্টে আজই ট্রান্সফার হয়ে যায়!পরশু ম্যাচে এএসএ জিরো বলে আউট হচ্ছে!এন্ড ইটস্ ফাইনাল!

-অবশ্যই!

উনি আমার হাত ধরে হাটা লাগালেন।পিছন ফিরে দেখলাম একজন আমার স্কুটির দিকে এগোচ্ছে।ব্রিফকেসটা নেবে বলে হয়তো।একটুপরেই বিকট শব্দ!বিস্ফোরন হয়েছে খানিকটা দুরে।আবছা হয়ে আসতে লাগলো চারপাশ।শেষ অবদি শুধু চোখে পরলো আমার স্কুটিটা জ্বলছে।তারপর আর কিছুই মনে নেই।

জ্ঞান ফেরার পর এএসএ’র বাসায় পাই নিজেকে।যে মানুষটা এভাবে টাকার জন্য ম্যাচ ডিল করেছে,ভেবেছিলাম তার সত্যিটা জেনে ফেলায় আমাকে মেরে ফেলবেন উনিও।হয়তো ওদের দেওয়া মৃত্যুর চেয়ে আরো ভয়ানক মৃত্যু হবে আমার।কিন্তু না!উনি তো মারেন নি আমাকে!মারবেনও না।তবে হ্যাঁ,তার থেকেও ভয়ংকরভাবে রেখে নরকযন্ত্রনায় বাচিয়ে রাখতে চাইছেন উনি আমাকে।আমাকে ছেড়ে দিলেও তার সত্যিটা কেউ জানতো না।জানাতে পারতাম না আমি।কোনো প্রমানই তো নেই আমার কাছে!তবুও শাস্তি দিচ্ছেন উনি আমাকে।শুধু এজন্য,তার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের সত্যিটা আমি জানি বলে!শুধু এজন্যই তো?

#চলবে….

[ গল্পটা কাল্পনিক।অনুগ্রহ করে কেউ বাস্তবের সাথে মেলাতে যাবেন না।ভুলত্রুটি মার্জনীয় ]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here