সুখতারার খোজে পর্ব -১১

0
77

#সূখতারার_খোজে🧚‍♀️
#লেখক:আর আহমেদ
পর্ব ১১

-ডংগি মেয়ে কোথাকারে..এতো সাজোন গোজন করে কই যাওয়া হইছিলো শুনি? বাপে দেওয়া এক্ষান দামী কাপর, আর তুই সেইটা পড়ে ডং করে বেরাস?

চেঁচিয়ে তনয়াকে বলে উঠলো তারার চাঁচি। প্রতিত্তোরে তনয়া মুখে হাসি জড়িয়ে বললো,

-উফফ! এখন প্রায়’ই সাজতে করতে হবে আমায়। দেখা করতে হবে না? আরও এমন ড্রেস লাগবে।

এতে যেন আরও ক্ষেপে উঠলো তনয়ার মা। দৌড়ে গিয়ে চুলের মুঠি টেনে বলে উঠলেন,

-কি কস? বল কি বললি? কার সাথে ডলাডলি করিস তুই? আবার বলা হচ্ছে দেখা করতে যাবি?

-আহ্,মা খুব লাগছে তো!

-লাগুক। মর তুই। বাড়িতে তোর থেকেও বড় মেয়ে আছে,কই সে তো এতো নাটক করে না? তোর এতো ডং কিসের?

ঘর থেকে এমন বিদ্রুপের আওয়াজ জানে আসতেই ছুটে বেরিয়ে আসে তারা। সে পড়ছিলো। ব্যঘাত ঘটে ঝগড়ায়। সে এসে তনয়াকে ওভাবে দেখে ছুটে চলে এলো উঠোনে। তনয়াকে ছাড়িয়ে বললো,

-চাচী ও বড় হয়েছে। তুমি ওকে এভাবে মারতে পারোনা।

আরও ক্ষেপে বলে উঠলেন ইলিমা,

-তুই ছাড় ওকে! যুবতি মেয়ে কি’না দিনে দুপুরে সং সেজে ঘুরাফেরা করবে?

-ওর ভুল হয়েছে চাচী। আর হবে না।

তারার সাফাই যেন মোটেই পছন্দ হলো না তনায়ার। তারাকে ছিটকে দূরে সড়িয়ে কর্কষ স্বরে বলে উঠলো তনয়া,

-ভুল মানে? আমার কাউকে ভালোবাসা ভুল? তুই ভুল করিস নি তারা? আমার থেকে ভালোবাসার মানুষটাকে তুই কেড়ে নিয়েছিস! আগুনে জ্বালিয়েছিস আমার বুকে।

কথাগুলোয় তারার কপালে সূক্ষ্ম কয়েকটা ভাজ পড়লো। যে মেয়েটা সকালেই আপু সম্মোধন করে ডাকলো আর এখন তুই,তুকারি? তারা যেন থমকে গেলো কিছু মুহুর্তের জন্য। তনয়া ফিক করে হাসলো। ইলিমার রাগ যেন ক্রমশ উর্ধমুখী হচ্ছে। তনয়া বললো,

-তোর কি কপাল তারা? বিয়ের পরও লোকটা তোকে ভালোবাসে। ধন্যি মেয়ে তুই!

তারা বললো,

-এ..এ সব তুই কি বলছিস? তুই কার কথা বলছিস তনয়া?

-অভ্র!

-এটাই কি তোমার সবথেকে বড় ভুল নয় তনয়া?

উপস্থিত অন্যকারো রাগান্বিত কন্ঠস্বরে ফিরে তাকালো সবাই। ঘামে জর্জরিত অভ্র দাড়িয়ে। সে সটাং প্রবেশ করলো বাড়িতে। তনয়া যেন আনন্দিত! সবটা তার কাছে একটু তারাতাড়িই হচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। অভ্র আবারো বললো,

-আজ তুমি না থাকলে কবিতা চলে যেত না! কেন করলে এমন?

তারা অস্ফুটস্বরে বললো,

-চ..চলে গেছে ম..মানে?

অভ্র তাকালো তারার দিকে। তারা জিজ্ঞেসু দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে। অভ্র খানিক এগিয়ে ইলিমা বেগমের কাছে গেলেন। বলে উঠলেন,

-বলছিলেন না এত সং সেজে কই গেছিলো আপনার মেয়ে? আমি বলছি, ও আমার সাথে দেখা করতে গিয়েছিলো। অনেক বারণ করার পরেও কবিতাকে গড়গড় করে তারার সব ব্যাপারে বলেছে। সে চলে গেছে। ও বাড়িতে ফোন করেছি, কিন্তু সে ওখানে যায়নি!

থমকে গেলো তারা। কবিতা চলে গেছে মানে? আর তার ব্যাপারে কি এমন বলেছে তনয়া। মুখ থমথমে হয়ে উঠলো ইলিমার। তিনি জানতেন তারার সাথে অভ্রে বিয়ে হওয়ার কথা। কিন্তু বড়লোকের ছেলে তারাকে ধোকা দিয়েছে! আর তার’ই মেয়ে নাকি সে সংসার ভাঙেছে? তিনি দৌড়ে রান্নাঘরে চলে গেলেন। শাল গাছের কাঠ নিয়ে তেড়ে এলেন তনয়ার দিকে।তারা এবার আটকাতে পারলো না! তারাকে ছিটকে ফেলে ইলিমা একের পর এক লাঠিপেটা করলেন তনয়াকে। কাঠের এক একটা মারে শরীরে নরক যন্ত্রনা অনুভব করতে লাগলো তনয়া। ‘মা মা’ বলে সন্ধ্যার সময় ডুকরে কাঁদতে লাগলো তনয়া। তারা উঠে ছুটে গেলো ইলিমাকে আটকাতে। জাপটে নিয়ে পিছিয়ে গেলো। ইলিমা তবুও খ্যান্ত নন। যেন ওকে মেরে ফেললেই শান্তি! তখনি প্রবেশ করলেন তনয়ায় বাবা। পরিস্থিতি বোধগম্য হলো না।

_______

বাবার কাছে না গিয়ে সত্যি সত্যিই কবিতা ফ্লাট নিয়েছে। মামার কাছে একটি কল করতেই কারন জানার প্রয়োজন মনে করেননি, টাকা পাঠিয়ে দিয়েছে। ফ্লাটের জানালার দারে দাড়িয়ে কবিতা। সবে পেয়ে উঠেছে ফ্লাটে! তার লাগেজ এখনো ওভাবেই আছে। বারবার খালি অভ্রের কথা মনে পড়ছে! কষ্ট হচ্ছে! বুকে জ্বালা করছে কবিতার। বেলকনি দিয়ে মৃদু ঠান্ডা হওয়া বয়। বেবি হেয়ার গুলো দুলছে কবিতার। চোখ চিকচিক করছে পানিতে।

__________

সন্ধ্যা আকাশে জ্বলজ্বলে চাঁদ উঠেছে। অভ্র সহ তারার পুরো পরিবার মোড়ায় বসে। দিনের আলোর মতোই চাঁদের আলো চিকচিক করছে যেন। আঙিনায় থমথমে মুখ নিয়ে বসে আছেন তূরের বাবা এখতেয়ার। তার দুহাত পড়ে তূর। আর মাটিতে ছালা বিছিয়ে বসেছে তারা,তনয়া। সকলে খুব উদগ্রীব! কৌতুহলে তারা হাত কচলাচ্ছে! অভ্র অন্যদিকে ফিরে আকাশ পাণে সুদূর দূষ্টি স্হাপন করলো। ইলিমা বেগম কিছু বলতে চেয়েও আর বললেন না। অবশেষে বললেন এখতেয়ার,

-সময়টা ছ’মাস আগের। তনয়ার জন্য পাত্র দেখা হচ্ছিলো তখন। আমি কখনো ভাবিইনি অভ্রের মতো বড়লোক পরিবারের পাত্র পাবো। পেয়েছিলাম! মেয়ে দেখতে তারা এসেছিলেন স’পরিবারে। পাকা কথা হয়নি সেদিন। অভ্রকে একটু টাইম দাওয়া হয়েছিলো। সে ভাবুক,তনয়াকে সে আদেও জীবনসঙ্গী হিসেবে চায় কিনা! এতোক্ষণ লাগলো না, সন্ধ্যাতেই ফোন আসলো সে বিয়েতে রাজি নয়। দীর্ঘ শ্বাস নিয়ে অন্য পাত্রের তল্লাসিতে বের হই। সেদিনের পর তনয়া ভেঙে পড়ে! হয়তো অভ্রের মোহ তাকে একদিনে ঘায়েল করেছিলো। ছ’মাস আগে পর্যন্ত যে মেয়েটা তারা বলতে পাগল ছিলো তারপর থেকে সে তারার সাথে কথা বলাই বন্ধ করে দিয়েছিলো! কারন? বলছি..

সকলের কৌতুহল ক্রমশ তিনগুন বেগে বাড়ছে! সবটা জানার জন্য তাদের অপেক্ষা যেন বেশ ভুগাচ্ছে। আজমল আবারো বলতে লাগলেন,

-কারন তার ঠিক পরের সপ্তাহেই অভ্র ফোন করে বললো তার মেয়েকে পছন্দ। আর সে তনয়া নয়, আমার ভাইয়ের মেয়ে তারাকে। কোথথেকে লোভের আবির্ভাব হলো আমার মনে। মোটা অঙ্কের টাকা চেয়ে বসলাম! অভ্রের বারবার কলই প্রমান করছিলো সে যেভাবেই হোক তারাকে চায়। সুযোগের সৎ কি? অসৎ ব্যাবহার করলাম। অভ্রও রাজি হলো এক কথায়। ও তো বলেছিলো, পারলে দ্বীগুন দেবে! এরপরে পরিচয়, বলতে তারার নাম্বারটাই শুধু অভ্রকে দেই। প্রথম কলে বেশ ঝাড়ি খেয়েছিলো অভ্র। তারা অজানা ছেলের সাথে কথা বলে না কখনো। আর তারা এটাও জানতো না যে অভ্র তনয়াকে দেখতে এসেছিলো। জানিনা অভ্র তারাকে কথা বলাতে পারলো কিভাবে। তিন তিনটে মাস অভ্র তারার সাথে কথা বলেছে। সামনে আসেনি! চুপিসারে দেখে গেছে।এরপর আসলো সামনে ঠিক তিনমাস পর। তাদের কথা বলা আরও বাড়লো! সবটা জানতাম আমি। এরিমধ্য তূর ভুল করে বসলো। সে সরাসরি তারাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে দিলো। সরাসরি! তূরও জানতো না অভ্রের ব্যাপারে। তারা আমায় সবটা বললো। তূরকে আমিই দমালাম। জানতাম ও খুব ভালোবাসে তারাকে। তারার জন্য অনেক করেছে তূর। ভাবির খুব দেখাশোনা করতো তূর,তারার অনুপস্থিতে। যেখানে তারা এক কেজি চাল কিনে রাখতো ড্রামে, তূর চুপিচুপি পাঁচকেজি চাল দিয়ে আসতো! আগে হলে হয়তো তারা খেয়াল করতো। কিন্তু অভ্রের ভালোবাসাই তাকে সবসময় অন্যকোথাও রাখতো। সে খেয়ালই করেনি! তারও একমাস পর তারার জন্য যখন বুক ঝলসে যাচ্ছিলো তূরের, ভালোবাসার আগুনে কেমন দাউদাউ করে পুরছিলো তখন সে নতুন উদ্যমে গিয়ে ভালোবাসার প্রস্তাব দিলো। তারা সেদিন প্রচুর অপমান করলো তূরকে। প্রতিটা গালিই হয়তো তছনছ করে দিয়েছিলো তূরের মন। সে হয়তো ঘৃনাও করতে শুরু করেছিলো তারাকে। তাই এতোদিন কথা বলেনি! যখন প্রথম অভ্র লুকিয়ে তারাদের বাড়িতে আসলো তনয়া সবটা জানতে পারলো। সবটা জেনে হয়তো এক রক্তি ঘৃনাই জন্মে তার মনে। কিন্তু সে হুটহাট তারাকে ঘৃনা করে ঠিক করেনি। বিয়ে ভাঙার দুদীন পর’ই সব জানে যায় তনয়া। যখন লুকিয়ে আসতো অভ্র। সেদিনের পর তনয়া আর আসেনি তারার সামনে। কথা বলেনি পর্যন্ত! হঠাৎই শুনলাম অভ্রের বিয়ে। আচ্ছা যদি এতোদিন অভ্র সত্যিই তারাকে ভালোবাসতো তাহলে কি পারতো বিয়ে করতে? কেন করলো? যখন জানলাম সবকিছুর পেছনে আমার চেনা কেউ জড়িত তখন খুব অবাক হলাম!

কথাটা বলেই ইলিমার দিকে সন্দিহান দৃষ্টিতে তাকালেন এখতেয়ার…..

#চলবে..

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here