স্নিগ্ধ অনুভব পর্ব ৭+৮

0
94

#স্নিগ্ধ_অনুভব
#পার্ট:৭
#পিচ্চি_লেখিকা

(গল্পের শেষের লিখা টুকু পড়ার অনুরোধ রইলো)

পুরো শরীরের ব্যাথায় নড়েচড়েও বসতে পারছি না। শরীর নাড়ালেই ব্যাথা গুলো চাড়া দিয়ে উঠে। একটা মানুষ যে এতটা নিষ্ঠুর হয়তে পারে তা আমার জানা ছিলো না। অনুভব কে না দেখলে হয়তো জানতেও পারতাম না। প্রথম প্রথম থাপ্পড় খেয়েও কিছুই বলতাম না। এখন তো আর থাপ্পড় চলে না। কথায় কথায় বেল্ট দিয়ে মারে। আর৷ যায় হোক এই লোকের সাথে সংসার হয় না। যে সম্পর্কে ভালোবাসা নেই,সে সংসার হবে কি করে?

ফ্ল্যাশব্যাক________

ক্যান্টিনে মেঘলা,তন্নি আর তামিম বকছিলো তখনই ঝড়ের গতিতে এসে কেউ আমাকে জড়িয়ে ধরলো। ঘটনার আকস্মিকতায় সবাই চমকে গেছি। ভয়ে ভয়ে চোখ মেলে দেখি তিশা আপু। তিশা আপুকে দেখে প্রাণ ভরে শ্বাস নিলাম। আপুর জায়গায় অন্য কেউ থাকলে আর অনুভব দেখলে আমার আজও মাইর খাইতে হতো।
“এই স্নিগ্ধুর বাচ্চা এতদিন কই ছিলি? ওই বাড়িতেও যাস না ভার্সিটিও আসিস না!কেন?”
“তুমি তো ভার্সিটি আসো না আজ হঠাৎ?”
“আমার প্রশ্নের আন্সার না দিয়ে আমাকেই প্রশ্ন করছিস!”
কিছু না বলে মাথা নিচু করে তাচ্ছিল্যের হাসি হাসলাম৷ এটা অবশ্য নিজের জন্যই। এই হাসিটাই হয়তো বরাদ্দ আমার জন্য। আমাকে চুপ থাকতে দেখে তিশা আপু গাঢ় দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে।
“কি হয়ছে বল তো? অনুভব ভাইয়া বলে তুই নাকি অসুস্থ ছিলি? এটা কি সত্যি?”
“হুম!”
“এখন ঠিক আছিস?”
“হুম!”
“কি হুম হুম করছিস? কি হয়েছে বল?”
“কই কিছু না তো!”
“মিথ্যা বলিস না। তোর চোখ মুখ দেখেই বোঝা যাচ্ছে তোর কিছু হয়ছে..”
“কিছু হয়নি আপু।”
“কিছু হয়নি তাহলে তাচ্ছিল্যের হাসি দিলি কেন?”
আমি আপুর দিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করে আবারও মাথা নিচু করে নিলাম। মেঘলারাও আমার পাশেই দাঁড়িয়ে আছে। ওরাও হয়তো সত্যিটা জানতে চায়। তিশা আপু ওদের সামনেই জিজ্ঞেস করলো,,
“তোকে যে বলেছিলাম কিছু তোর মনে আছে?”
“হুম।”
“কিছু জানতে পেরেছিস?”
আপুর কথা শুনে যেমন হাসি পাচ্ছে তেমনি বুক ফেটে কান্না আসছে। আপু আমাকে চুপ দেখে বাহু চেপে ধরে। সাথে সাথে ব্যাথায় চোখ মুখ কুচকে “আহ” বলে উঠি। আপু সাথে সাথে আমাার বাহু ছেড়ে বললো,,
“কি হয়ছে স্নিগ্ধু? এমন করলি কেন? কি হয়ছে বল?”
“কিছু হয়নি আপু।”
এবার পাশ থেকে মেঘলা বলে উঠলো,,
“তুই কি বলবি স্নিগ্ধু? তোর ওপর কিন্তু খুব রাগ হচ্ছে। বল কি হয়ছে?”
“তোরা এমন করছিস কেন?কিছু হয়নি আমার।
” দেখি তোর হাত দেখা।”
“না!”
আপু আর মেঘলা জোর করে জামার হাতা একটু উপরে তুলতেই দেখে জায়গাটা কালচে দাগ পড়ে গেছে। কয়েকটা দাগ সেখানে। মেঘলা তো দেখেই দু কদম পিছিয়ে গেছে। আমি মাথা নিচু করে চোখের জল বিসর্জন দিচ্ছি। আজ ঘরের কথা পরে জানবে যদিও ওরা পর না তবুও তো আমার স্বামী আমাকে মারে এটা ওরা আজ জানবে। হয়তো খুব খারাপ চোখে দেখবে বিষয়টা। মেঘলা আমার গায়ের দাগ দেখে হু হু করে কেদে উঠলো আপুও ঠায় বসে আছে। তামিম আর তন্নি তো বাকরুদ্ধ হয়ে গেছে। যে মেয়ে একটা চিমটি সহ্য করতে না পেরে ওদের মাথা খেয়ে ফেলতো আজ কি না সে এত মার খেয়েও চুপ করে আছে এটাই হয়তো ওদের অবাক করে দিয়েছে। কিছু না বলে চুপ করে রইলাম। তিশা আপু চোখ মুখ শক্ত করে বললো,,
“তোর এই অবস্থা কেন? ভা..ভাইয়া মারছে তোকে?”
“……………..
” চুপ করে থাকবি না স্নিগ্ধু বল কি করে হয়েছে?”
আমি তখনো মাথা নিচু করে কেঁদেই যাচ্ছি। আপু আমার হাত ওর মাথার উপর নিয়ে বললো,,
“আমি জানি কসম দেওয়া পাপ..তবুও আমার কসম বল কি করে হয়েছে তোর এসব? অনুভব ভাইয়া মেরেছে তোকে?”
আপুর দিকে একবার তাকিয়ে আপুকে জাপটে ধরে শব্দ করে কান্না করে দিলাম। ক্লাস শুরু হওয়ায় সব স্টুডেন্টরা ক্লাসে চলে গেছে শুধু আমরা বাদে। আপু আমাকে শান্ত করে সবটা বলতে বললো। আমিও শুরু থেকে শেষ সবটা বলেই কান্না শুরু করে দিলাম। মেঘলা, তন্নি, তামিম, তিশা আপু সবাই রেগে গেছে।
“ভাইয়া তোর সাথে এরকম বিহেভ কিভাবে করে? আর তুই সবটা সহ্য করিস কোন সাহসে?এত কেন উদার তুই?”(তিশা আপু)
“আপু ও তো বরাবরই অনুভব ভাইয়াকে প্রাণ দিয়ে ভালোবাসে তাই চুপ করে থাকে। তাই বলে এত টর্চার সহ্য করবে! আমার তো ওকে এখন ঠাটিয়ে থাপ্পড় দিতে ইচ্ছা করছে।”(মেঘলা)
” অনুভব ভাইয়ার কপাল ভালো তোর মতো বউ পেয়েছে। অন্য কোনো মেয়ে হলে তো এতদিনে অনুভব ভাইয়াকে জেলের ভাত খাওয়াতো।”(তন্নি)
“তোর ভালোবাসা এক পাক্ষিক হয়ে গেছে রে স্নিগ্ধু। তুই ওই কুৎসিত লোকটার থেকে দুরে যা নয়তো উনি তোকে এভাবে মারতে মারতেই মেরে ফেলবে।” (মেঘলা)

ওরা সবাই যে যার মতো করে অনেক কথা বললো। আমি পুরোটা সময়ই চুপ ছিলাম। তারপর তিশা আপু আমাকে জোড় করেই রেস্টুরেন্টে নিয়ে গেলো। আপুর বিএফ আসবে দেখা করতে। আমার মন ভালো না তাই আমাকে ঘুরার জন্য নিয়ে যাবে। আমি যেতে না চাইলেও ওরা সবাই জোড় করেই আপুর সাথে পাঠিয়ে দিলো।

রেস্টুরেন্টে বসে আপুর বিএফ আবিদ ভাইয়ার সাথে টুকটাক কথা বলছি। আমি বলছি বললে ভুল হবে উনিই জিজ্ঞেস করছে আর আমি আন্সার দিচ্ছি কখনো হুম হা এসবই করে যাচ্ছি। আপু ওয়াশরুম গেছে। হঠাৎ করেই কই থেকে অনুভব ঝড়ের গতিতে এসে আমার হাত চেপে ধরলো। চোখের দিকে তাকিয়ে মনে হচ্ছে আগুন পড়বে এখনই। আমাকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে টেনে হিঁচড়ে রেস্টুরেন্ট থেকে বের করে নিয়ে আসলো। অনেক আকুতি মিনুতি করেও লাভ হয়নি। নির্মম ভাবে মেরে ওখানেই ফেলে চলে গেছে। এত বেশি মার খাওয়ার ফলে সেন্সলেস হয়ে যায়।

বর্তমান___

সেন্স আসতেই দেখি বেডে আমি। সামনেই মাথায় এক হাত রেখে অনুভব বসে আছে। উনার মুখটাও আমার দেখতে ইচ্ছা করছে না। অনেক সহ্য করেছি আর না।
এই সংসার তো এমনিও থাকার নয় তাই আমিও আর ট্রাই করবো না। মুক্তি চাই আমার।
“আ..আমি বে..ডে ক..কি..ভাবে আ..স..লাম?”
অনুভব আমার দিকে পূর্ণ দৃষ্টি দিয়ে আমার কাছে এগিয়ে এসে বললো,,
” চুপচাপ শুয়ে থাক।”
“এ..ত না..ট..ক ক..রা..র কোনো দর..কার না..ই। অ..নে..ক ক..রে ফেলছেন।”
“স্নিগ্ধু কথা কম বলবি।”
অনেক কষ্টে মুখ দিয়ে স্পষ্ট ভাবে কথা বের করলাম।
“আ..আর কত চুপ থাকবো? কত? প্রথম দিন থেকে আপনার অত্যাচার সহ্য করেই যাচ্ছি আর না। মুক্তি চাই আমার।”
মুক্তির কথা শুনেই অনুভব আমার মুখ চেপে ধরে। রাগে গিজ গিজ করতে করতে দাতে দাত চেপে বলে,,
“মুক্তি! মুক্তি চাই তোর? আমি মরে গেলেও তোকে মুক্তি দেবো না। তাই মুক্তির চিন্তা তো তুই ছেড়েই দে।”
“বাহ বাহ!ওয়াও ভাইয়া তোমাকে তো অস্কার দেওয়া উচিত।”
কারো কন্ঠ শুনে দুজনেই পিছনে তাকাতে দেখি তিশা আপু, আবিদ ভাইয়া, তন্নি, তামিম, মেঘলা সবাই দাঁড়িয়ে। কথাটা তিশা আপুই বলেছে। সবাই রাগে ফুসছে। মেঘলা আমার কাছে এসে আমাকে ধরে বসলো। আর তিশা আপু গিয়ে অনুভবের সামনে দাঁড়ালো।
“তোরা সবাই এখানে?”
“কেন? আশা করো নাই বুঝি? মেয়েটা কে তো মেরেই ফেলতে পারো।”
অনুভব ভ্রু যুগল কিঞ্চিত কুচকে প্রশ্নবিদ্ধ চোখে তাকালো,,
“বুঝতে পারো নি! যেভাবে ক্ষত বিক্ষত করে রেখেছো এর থেকে ভালো ওকে মেরেই ফেলতে। অন্তত কষ্ট কম হতো ওর।”
“তিশু”
“কি তিশু? কি? আজকে ধমকেও থামাতে পারবে না। আরে ভালোবাসো না তো বিয়ে কেন করেছো ওকে? শুধু এভাবে কষ্ট দিয়ে মেরে ফেলার জন্য! সন্দেহ ভালো তবে অতিরিক্ত ভালো না। রেস্টুরেন্টে শুধু স্নিগ্ধু আর আবিদই ছিলো না আমিও ছিলাম। ওয়াশরুম গেছিলাম তাতেই এত কিছু হয়ে গেছে। জানতাম তুমি ওকে ছাড় দেবে না তাই আমরাই আসলাম। আজকে তোমাকে আমার বড় ভাই বলতেও লজ্জা করছে। আরে তুমি কিভাবে পারো একটা মেয়েকে এত টর্চার করতে? একটুও মায়া নেই তোমার মনে? তুমি কি এমন বিষয় নিয়ে ওর ওপর এত রেগে আছো তা আমি জানি না। তবে রেগে থাকার কারন টা ওকে বলতে স্নিগ্ধু ভুলটা শুধরাতো যদি তাও না করতো তখন শাসন করতে কিন্তু না তুমি ওকে ওর ভুল টাও বুঝাবে না অথচ মারতেই থাকবে। তোমার ওকে নিয়ে যখন এতই সমস্যা তবে সেদিন বিয়ে কেন করেছিলে? আরে তোমার থেকে তো নরপশুও ভালো অন্তত একেবারে মেরে ফেলে এভাবে টর্চার করে না। আমার তো তোমাকে ভাই ভাবতেই লজ্জা করছে। আজ স্নিগ্ধুর জায়গায় আমি থাকলে কি হতো তুমি সেই ছেলেকে ছেড়ে দিতে? না কারণ আমি তোমার অনেক আদরের। আজ ওর ভাই নেই বলে তুমি পাড় পেয়ে যাচ্ছো। আসলে কি জানো তুমি ওর যোগ্যই না। ওর ভালোবাসা পাওয়ার যোগ্যই না তুমি। আজকে ওর জায়গায় অন্য কেউ থাকলে তোমাকে জেল পর্যন্ত নিয়ে যেতো।”
তিশা আপুর একটা কথারও উত্তর দেয়নি অনুভব। বেশ অবাক হয়েছি উনার এমন আচরণে। মেঘলা আমাকে জড়িয়ে বসে আছে। তামিম এমন ভাবে রেগে আছে যেনো এখনি অনুভবকে মেরে ফেলবে কিন্তু আবিদ ভাইয়া ওকে ধরে রেখেছে। তন্নি এসে আমার পাশে বসলো। তিশা আপু আমাকে উদ্দেশ্য করে বললো,,
“আর তুই? তুই কি মানুষ? এত অত্যাচার সহ্য করে কেন থাকিস এখানে? এত কিসের ভালোবাসা তোর? যাকে প্রাণ দিয়ে ভালোবাসিস সে তোর ভালোবাসার দাম দিয়েছে? দেয়নি! তাহলে তুই কেন পড়ে পড়ে মার খাস বল? এত মহান হতে কে বলেছে তোকে? চল এই বাড়িতে আর তুই থাকবি না।”
“কো..কোথায় যাবো আপু?”
“ওই বাড়িতে!”
“না আপু। ওখানে গেলে অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে। আমি পারবো না। আর তাছাড়া মামুনি আর বাবাইও কষ্ট পাবে।”
আপু এবার এক প্রকার চেঁচিয়ে বললো,,
“মামুনি বাবাই..মামুনি বাবা… আর কত? আর কত সহ্য করবি তুই ওদের জন্য? নিজের জিবনে অর্ধেকটা তো ওদের জন্যই বিসর্জন দিয়ে দিচ্ছিস। ৩ বছর আগেও দিচ্ছিলি আজ আবারও দিচ্ছিস। এই ২ টা মানুষের কথা রাখতে আজ তোর এই পরিস্থিতি। অবশ্য তাদের কি দোষ তারা তো আর জানতো না তাদের ছেলে ফরেইন কান্ট্রি গিয়ে এতটা নরপশু হয়ে আসবে।”
“চুপ করো আপু প্লিজ। আর বলো না এভাবে! উনি তোমার ভাই হয়।”
“চুপ তুই একদম চুপ। যে যা আমি তাকে তাই বলছি। যে লোক নিজের বউ কে খালাতো বোন বলে পরিচয় দেয় তার মতো নিকৃষ্ট মানুষ আর কয়জন আছে? যে এত নিষ্ঠুর ভাবে মারতে পারে তাকে আমি মানুষ মনে করি না। তুই চল আমার সাথে।”
“আপু আমি বলছি কি স্নিগ্ধু এখন ওই বাড়ি গেলে ওকে অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে তার থেকে ভালো ও আমার সাথে আমাদের বাড়িতে যাক।” (মেঘলা)
“কিন্তু তোমার বাড়ির লোক এটা কিভাবে দেখবে?” (তিশা আপু)
“আপু স্নিগ্ধু কে আমাদের বাড়ির সবাই অনেক ভালোবাসে।”
“স্নিগ্ধু তুই ওর সাথে ওর বাড়ি যা।”
“আপু আপু প্লিজ….
” চুপ একদম চুপ। তুই আজ যা আমি তোর মামুনি আর বাবাইকে তাদের ছেলের অপকর্মের কথা গুলো জানায় তারপর তোকে আনবো আজ ওর সাথেই যাবি। এর বেশি একটা কথা বললেও তোর খবর আছে।”
“আপু প্লিজ তুমি মামুনি আর বাবাইকে কিছু বলো না। প্লিজ উনারা খুব কষ্ট পাবে আপু। প্লিজ আপু!”
“চুপ থাক।”
অনেক কষ্টে আপুকে মানালাম যাতে সে কিছু ওই বাড়িতে না বলে। ওদের জোড়াজুড়িতে এই বাড়ি ছেড়ে যেতেও রাজি হলাম। তন্নি আর মেঘলা আমাকে ফ্রেশ করিয়ে চেঞ্জ করিয়ে বাইরে নিয়ে আসলো। অনুভব মুখে গম্ভীর ভাব নিয়ে সোফায় বসে আছে। আজ যা বলার তা তো তিশা আপুই বলে দিয়েছে আমি আর কি বলবো? বেড়িয়ে আসতে যাবো তখনই অনুভব বলে উঠলো,,
“স্নিগ্ধু কোথাও যাবে না তিশু। তোরা যা!”
তিশা আপু তো এমনিতেই রেগে ছিলো এখন আরো রেগে গেছে।তেলে বেগুনে জ্বলে উঠে বললো,,
“তোমার কথা আমরা শুনবো না। আর স্নিগ্ধু শুনতে চাইলে ওকে মেরে ঝুলিয়ে দেবো। তুমি খবরদার আটকানোর চেষ্টা করবে না। মেঘলা চলো!”
অনুভবকে কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই আমাকে নিয়ে বাইরে চলে আসলো। মেঘলার বাড়ি থেকে গাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছে। মেঘলা বলে দিয়েছিলো। আমাকে নিয়ে মেঘলা তন্নি পিছনে বসলো আর তামিম সামনে বসলো৷ তিশা আপু আমার সাথে যাবো না। আবিদ ভাইয়াও বিদায় নিয়ে চলে গেছে। গাড়িতে মেঘলার কাঁধে মাথা রেখে চুপ করে বসে আছি। জিবনে কি থেকে কি হয়ে গেলো! আমি তো এমন জিবন চাইনি। আমি তো অনুভব কে ভালোবেসেই চেয়েছি তবে এই নিষ্ঠুর অনুভবকে চায়নি। শরীরের ব্যাথায় চোখ বুজে আসছে..চোখ মুখ কুচকে বন্ধ করে নিয়েছি। মেঘলা আমার মাথায় হাত দিয়ে বললো,,
“কষ্ট হচ্ছে? তাই না রে! কষ্ট পাস না। আমি জানি তুই মানসিকভাবে শারীরিক ভাবে ব্যাথিত শুধু একটু সহ্য কর দেখবি সব ঠিক হয়ে যাবে। অনুভব ভাইয়া আজকের পর তোর প্রতি একটু হলেও নরম হবে। তোর অনুপস্থিতি অনুভব ভাইয়াকে কষ্ট দেবে। দেখিস অনুভব ভাইয়া তোকে ভালোবাসবে আর কষ্ট দেবে না।”
কথা গুলো বলতে বলতে মেঘলা প্রায় কেঁদে দিয়েছে। তন্নি অন্য পাশ মুখ ফিরে বসে আছে। হয়তো সেও কাঁদছে। এই ৩ জন আমাকে এত কেন ভালোবাসে জানি না। তবে সবার থেকে বেশি এরাই ভালোবাসে। আমার একেকটা ব্যাথা যেন আমার না ওদের লাগে।
মেঘলার কথা শুনে একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে ভাবতে লাগলাম,,
“আদৌও কি কখনো আর এই সম্পর্ক ঠিক হবে? কখনো কি ভালোবাসবে আমাকে অনুভব? নাকি আজকের এই সাময়িক বিচ্ছেদের ফলে দুজনের পথ আবারও আলাদা হয়ে যাবে!”
#স্নিগ্ধ_অনুভব
#পার্ট:৮
#পিচ্চি_লেখিকা

আজ ২ দিন হলো আমি মেঘলাদের বাড়িতেই থাকি। আমার থাকা নিয়ে আঙ্কেল আন্টি কোনো প্রশ্ন করেননি। উনারা আমাকে খুব ভালোবাসে। আমাকে একা না তন্নি তামিম ওদেরও খুব ভালোবাসে। আমাদের ৪ জনের বাড়ির লোকই সবাইকে খুব ভালোবাসে তাই তো মেঘলা যখন আঙ্কেল আন্টিকে আমি থাকবো বলেছে তারা কোনো প্রশ্ন না করে আমাকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। তন্নি তামিম তো অর্ধেক বেলা আমাদের সাথেই থাকে। তিশা আপুও এসে দেখা করে যায়। আপুর রাগ এখনো কমে নি। ওইরকম ভাবে মার খাওয়ায় জ্বরে ২ দিন বিছানা ছেড়ে উঠতেই পারিনি। ভার্সিটিও যেতে পারিনি। তবে এই ২ দিনে আন্টিই আমার সেবা করেছে একদম মায়ের মতো করে জলপট্টি দেওয়া ওষুধ খাওয়ানো খাবার খাওয়ানো সব করেছে। অবাক হয়েছি অনেক। বাহিরের একটা মেয়েকে কেউ এত ভালোবাসতে পারে? অনুভব এই ২ দিনে খোঁজ নেয়নি। তিশা আপু সাফ সাফ বলে দিয়েছে আমি যেন অনুভবের কাছে না যায়। আমিও সব দিক ভেবে ঠিক করেছি যাবো না আর অনুভবের কাছে। কিছু একটা ব্যবস্থা ঠিক করে নিবো তবুও ওর কাছে আর ফিরবো না। আমার একাকিত্ব উনাকেও কষ্ট দেবে। আজ সব ঠিক থাকলে হয়তো দুজনের জিবন খুব সহজ হয়ে যেতো।
“এই স্নিগ্ধু তাড়াতাড়ি চল। কখন থেকে রেডি হচ্ছিস! তন্নিরা নিচে বসে আছে তাড়াতাড়ি চল।”
মেঘলার কথায় ধ্যান ভাঙলো,,
“হুম চল।”
আজ সুস্থ তাই ভার্সিটি যাবো। তন্নি আর তামিম আগেই এসে বসে আছে। আমাকে দেখেই বান্দরগুলা দৌড় দিয়া বাইরে গেলো আমি আর মেঘলা আন্টির থেকে বিদায় নিয়ে বাইরে আসলাম।

ভাসিটি এসে ক্লাস শেষ করে বসে আছি ক্যাম্পাসে। তন্নি আর তামিম ঝগড়া করছে আমি আর মেঘলা দর্শক। কি আর করার এই ২ ঝগড়ুটের মাঝে বসলে ঝগড়া দেখা ছাড়া উপায় নাই। বিরক্তি নিয়ে ২ টার কথার মধ্যে বলে উঠলাম,,
“ধুরু থাক তোরা..ঝগড়াই কর তোরা। আমার ভার্সিটি আসা টাই ভুল হয়ছে। এই মেঘু চল আমরা বাইরে যায় ২ জনে ঘুরমু ফিরমু খামু পরে বাড়ি যামু ওরা ঝগড়া করুক।”
“হ ঠিক কইছোস। চল আমরা যাই।”
২ জন উঠে আসতে লাগলাম তখনই তন্নি আর তামিম লাফ দিয়ে উঠে বললো,,
“আমরা আর ঝগড়া করমু না। আমাদেরও নিয়ে চল।”
“তোদের এক ফোটাও বিশ্বাস নাই। তার থেকে আমরা ২ জনই ঠিক আছি সর।”
“আরে না আর করমু না ঝগড়া। এই তামিম্ম্যা শুন আর ঝগড়া করবি না।”
“আচ্ছা করমু না।”
“মনে থাকে যেনো।”

সবাই মিলে লেকের পাড়ে ঘুরে পার্কের দিকে ছুট লাগালাম। অনেক গুলো দিন পর আজ আবারও মুক্ত ভাবে উড়ছি। সব ক্লান্তি কেটে গেছে এক মুহূর্তে। পার্কে ঢুকতে যাবো তখনই চোখ যায় রাস্তার ওপরে একটা গাড়ির ভেতর। অনুভব ড্রাইভ করছে পাশেই বসে আছে মিরা। হঠাৎ করেই বুকের মাঝে চিনচিন ব্যাথা করছে। যতই উনি আমাকে কষ্ট দিক তবুও উনার পাশে অন্য কাউকে দেখার মতো সাহস আমার নেই। মিরাকে দেখলেই মনে পড়ে যায় সেদিনের কথা। চোখের কোণে নোনা জল রা নাড়া দিচ্ছে। চোখ মুখ শক্ত করে সবার সাথে গেলাম। আড্ডাতে ভালো লাগছে না তাই মেঘলা আর আমি বাড়িতে চলে আসলাম।

বিকালবেলা বারান্দায় বসে বই পড়ছি তখন মেঘলা এসে নিচে যেতে বললো। এই অসময়ে নিচে কেন? কারো কিছু হলো নাকি! দেরী না করে দ্রুত পা চালিয়ে নিচে গেলাম। লিভিং রুমের দিকে তাকিয়েই আমার চোখ কপালে উঠে গেলো। অনুভব হেসে হেসে আন্টির সাথে গল্প করতে ব্যস্ত। আমাকে দেখেই আন্টি বললো,,
“তোমরা কথা বলো আমি আসছি।”
মেঘলা পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলো। আন্টির সাথেই চলে গেলো। আমি গিয়ে অনুভবের সামনে দাঁড়ালাম।
“দাঁড়িয়ে আছিস কেন?”
“এমনি। আপনি এখানে কেন?”
উনি পায়ের ওপর পা তুলে আরাম করে বসে বললো,,
“আমি আমার বউকে নিয়ে যেতে এসেছি। আর আন্টি পারমিশনও দিয়ে দিয়েছে। সো এবার আমার বউ যা আর চটপট রেডি হয়ে আয়।”
“এসব আবার কি ধরনের নাটক? আমি যাবো না আপনার সাথে। আপনি চলে যান।”
“আজব! এসেছি বউ নিতে একা চলে গেলে কেমনে হবে?”
“ঢং বাদ দিয়ে যান এখান থেকে। আমি আপনার সাথে থাকতে চায় না। আপনার মতো মানুষের সাথে থাকা যায় না। অনেক সহ্য করেছি আর না। আমিও মানুষ। আর আপনার অপমান মাইর এসব সহ্য করেও একসময় বেহায়ার মতো আপনার সাথেই থেকেছি কিন্তু আর বেহায়া হয়ে আপনার কাছে থাকতে চায় না।”
“সেইটা তোর ব্যাপার। দেখ স্নিগ্ধু আমি চাই না এই বাড়িতে কোনো রকম সিনক্রিয়েট করতে তাই নিজে গিয়ে রেডি হয়ে আয়।”
“আপনি কিন্তু বাড়াবা…..
” চুপ..আর একটা কথা বললেও সিনক্রিয়েট শুরু করে দিবো। চুপ চাপ রেডি হয়ে আয়।”
আচ্ছা ঝামেলায় পড়লাম তো৷ এখন কি করি আমি? যদি যেতে না চায় সত্যি সিনক্রিয়েট করবে উনি। আবার আমার যাওয়ার কোনো ইচ্ছা নাই। কি করবো এখন? চুপচাপ রুমে এসে মাথা চেপে ধরে বসে পড়লাম। বেশ কিছুক্ষণ ভেবে ঠিক করলাম যাবো অনুভবের সাথে৷ আন্টি আঙ্কেল মেঘলা ওরা আমার বিপদে পাশে ছিল। ওদের বাড়িতে সিনক্রিয়েট হলে উনারা আমাদেরও খারাপ ভাববে আর আশ পাশের লোকজনও ব্যাপার টা বাজে ভাবে নিবে। তাই রেডি হতে লাগলাম।

রেডি হয়ে বসে আছি। মেঘলা রুমে এসে দেখে আমি রেডি হয়ে বসে আছি। মেঘলা আমার কাছে রেগে এসে বললো,,
“তুই রেডি হয়ছিস কেন? তুই আবারও ওই লোকটার সাথে যাবি?”
“মেঘু শান্ত হ। আমার কথাটা শোন!”
“চুপ একদম চুপ। কি শুনবো হ্যাঁ? আবারও তুই মাইর খাওয়ার জন্য নিজে থেকে ওই নরকে যাচ্ছিস!”
“মেঘু আমি এখনো উনার স্ত্রী আমি চাইলেই কিছু করতে পারবো না আর তাছাড়াও আমি যদি না যায় উনি এখানে ঝামেলা করবে..তখন আঙ্কেল আন্টি কষ্ট পাবে।”
“আব্বু আম্মু কষ্ট পাবে না। তুই যাবি না ব্যাস!”
“প্লিজ মেঘু বোঝার চেষ্টা কর।”
অনেক কষ্টে মেঘলা কে বুঝিয়ে রাজি করালাম যাওয়ার জন্য। কিন্তু সে তে নাছোড়বান্দা।
“তুই যেতে পারিস তবে আমার শর্ত আছে!”
“এহহহ শর্ত? কি শর্ত?”
“ওই লোক টা তোকে একটা থাপ্পড় মারলেও তুই আবার চলে আসবি। দরকার হলে ৪ জন মিলে একটা ফ্ল্যাট নিয়ে থাকবো।”
“পাগল হয়ে গেলি মেঘু?”
“এত কিছু বুঝি না। জেনে শুনে তোকে আগুনের মধ্যে যেতে দিচ্ছি তাই তার আচ্ থেকেও তোকে বাচতে হবে। তুই প্রমিস কর ওই অনুভব ভাইয়া তোকে থাপ্পড় মারলেও তুই আর ওই বাড়িতে থাকবি না!”
কি আর করার অগত্যা প্রমিস করলাম। একবার এখান থেকে বের হয় আমাকে ব্ল্যাকমেইল করার সাধ মিটিয়ে দেবো। মেঘলা আমাকে নিয়ে লিভিং রুমে গেলো। আন্টিও ওখানেই বসে অনুভবের সাথে গল্প করছে। আন্টি আর মেঘলা আমাদের বাইরে পর্যন্ত দিয়ে গেলো। মেঘলা অনুভবের কাছে দাঁড়িয়ে বললো,,
“ভালোবাসা আগলে রাখতে শিখেন ভাইয়া। অতিরিক্ত অবহেলা অপমানে মানুষের মন বিষে যায়। কেউ ভালোবেসে আগলে রাখতে চাইলে তাকে আপন করে নিতে হয়। আজ অবহেলা করছেন এমন একটা দিন আসবে যেদিন আপনি খুঁজবেন তাকে। তাই হারিয়ে যাওয়ার আগেই ধরে রাখেন।”
মেঘলার কথা শুনে অনুভব টেডি স্মাইল দিয়ে বললো,,
“হারাতে দিলে সে না হারাবে! আমি তো তাকে হারাতেই দিবো না!”
মেঘলার কথায় অবাক না হলেও অনুভবের কথায় যথেষ্ট অবাক হয়েছি। হারাতে দিবে না মানে?

মেঘলা আমাকে গাড়ি পর্যন্ত দিয়ে চলে গেলো। গাড়ি চলতে শুরু করেছে। অনুভব ড্রাইভিং করছে। দুজনের মাঝেই পিনপতন নিরবতা। নিরবতা কাটিয়ে অনুভব বলে উঠলো,,
“মুখটা পেঁচার মতো করে রাখছিস কেন?”
“পেঁচার মতো করে রাখতে যাবো কেন? আপনার সাথে কথা বলার চিন্তা করাও ভুল তাই চুপ করেই বসে আছি।”
“হয়ছে হয়ছে। ২ দিনে দেখি পাখির মুখে বুলি ফুটেছে। যায় হোক ভাবলাম ২ দিন পর বউ আমাকে দেখে খুশি হয়ে বাংলা সিনেমার মতো দৌড়ে এসে জড়িয়ে ধরবে তা না আমাকে দেখে দুর দুর করে তাড়িয়ে দিচ্ছিলো..ভাবা যায়!”
“না ভাবার কি আছে? আপনি তো খুব ভালো কাজ করেননি যে জড়িয়ে ধরবো। ২ দিন টর্চার করতে পারেননি তাই এখন নিয়ে যাচ্ছেন যাতে টর্চার করে মেরে ফেলতে পারেন।”
কথাটা বলে অনুভবের মুখের দিকে তাকালাম। ঠোঁট কামড়ে হাসছে। আজব! হাসার কি হলো?
“জ্বর একেবারে সেড়েছে নাকি এখনো আছে?”
উনার কথা শুনে ভ্রু যুগল কুচকে বললাম,,
“আপনি কিভাবে জানলেন? আমার জ্বর ছিলো?”
“তোর বুঝে কাজ নেই। ভেবেছিলাম পরেরদিন এসে নিয়ে যাবো তারপরই জানলাম তুই অসুস্থ..পরে আর নেয়নি। এটা ভাবিস না সেবা করতে পারবো না বলে নেয়নি আসলে আমার হসপিটালের কাজ অনেক ওগুলো সামলাতেই হিমশিম খায় তোকে নিয়ে আসলে তখন তোর দেখাশোনা করতে পারতামই না উল্টো আরো অসুস্থ হয়ে যেতি তাই ভাবলাম মেঘলাদের বাড়িতে থাকাটাই তোর জন্য ভালো। ভেবেছিলাম আরো কয়েকটা দিন থাকতে দিবো কিন্তু…
” কিন্তু কি?”
অনুভব আমার দিকে তাকিয়ে হাসলো। আমিও বুঝলাম উনার কথায় আগ্রহ দেখিয়ে ফেলেছি তাই হাসছে। উনার কথা শুনে আনমনেই জিজ্ঞেস করে ফেলেছি। অনুভব ড্রাইভিং এ মন দিয়েই বললো,,
“কিন্তু না হয় অন্য একদিন শুনিস। আচ্ছা তোর হিটলার ননদ টা কই গেছে?”
“হিটলার ননদ মানে? ”
“আরে তিশু!”
“ওই আপনি আপুরে হিটলার বললেন কেন?”
“হিটলারই তো। সেদিন যেভাবে ঝেড়ে গেলো। ওরে বাবা।”
“চুপ করে গাড়ি চালান তো।”
অনুভব আর কিছু বললো না। ড্রাইভিং এ মন দিলো। আবার আমার ভাগ্যে কি আছে কে জানে?

ফ্ল্যাটে এসে আমি আগে ফ্রেশ হয়ে কিচেনে গেলাম। অনা রান্না করছে আজ। ওকে দেখেই ঠোঁটের কোণে হাসি ফুটলো। অনা আমাকে দেখেই হাসি মুখে জিজ্ঞেস করলো,,
“কেমন আছো ভাবি?”
“আলহামদুলিল্লাহ ভালো,,তুমি?”
“আলহামদুলিল্লাহ ভালো। তুমি ছিলে না মনে হচ্ছিলো এই বাড়িটার দম নেই৷”
“কেন? তোমার স্যার তো ছিলো আর মিরাও তো নিশ্চয় আসতো..তাহলে?”
অনা মৃদু হেসে বললো,,,
“তুমি নেই স্যারও এ বাড়ি আসতো না। স্যার কেমন যেনো করতো ২ মিনিটও বসতো না। এসে আমাকে জিজ্ঞেস করতো তোর ভাবি আসছে? যদি বলি না তাহলেই চলে যেতো। হসপিটালেই থাকতো সারা দিন-রাত।”
“আমি না থাকলেই তো উনার সুবিধা। তাহলে এমন করার কি আছে?”
“জানি না। জানো ভাবি যেদিন তুমি চলে গেলে সেদিন স্যারেরও অনেক জ্বর এসেছিলো পরে তুষার স্যার আর তুবা ম্যাম এসে উনার পাশে ছিলো। যদিও আমি তিশা আপুকে ফোন করেছিলাম কিন্তু উনি সাফ সাফ বলে দেন আসতে পারবে না। পরে একটু পরই তুষার স্যাররা আসছিল।”
উনার জ্বরের কথা শুনেই একটু নড়ে উঠলাম। জ্বর কেন এসেছিল? আর আমি নেই বলে বাড়িতেই বা আসতেন না কেন? নিজেকে সামলে অনাকে আবার জিজ্ঞেস করলাম,,
“মিরা আসতো না এই বাড়ি?”
“না।”
“আচ্ছা তুমি কাজ করো আমি আসছি।”
অনার সাথে আর কথা বাড়ালাম না। ভালো লাগছে না কিছু। কেমন যেনো সবটাই জট পাকিয়ে যাচ্ছে। রুমে এসে দেখি অনুভব সোফায় বসে লেপটপ নিয়ে কাজ করছে। আমি বিছানায় বসতে বসতে শান্ত ভাবে জিজ্ঞেস করলাম,,
“আপনি ২ দিন বাড়ি ফিরেননি কেন?”
আমার প্রশ্নে এক পলক আমার দিকে তাকিয়ে আবার লেপটপে মনোযোগ দিয়ে বললেন,,
“এত কিছু জেনে কি করবি?”
“আজব তো! আমি আপনার বউ হয় সো আমি জানতেই পারি আপনি কোথায় ছিলেন? কি করছিলেন? সব জানতে পারি।”
অনুভব লেপটপ বন্ধ করে পূর্ণ দৃষ্টি দিয়ে তাকালেন আমার দিকে। উনার তাকানো দেখে আমি মাথা নিচু করে নিলাম। দুর থেকে হলেও ওই চোখে তাকানোর সাহস আমার নেই।
“৩ দিন কই ছিলো তোর এসব অধিকার?”
“৩ দিনও ছিলো অধিকার শুধু খাটানোতে মানা ছিল। হ্যাঁ অধিকার ফলাতাম যদি না আপনি এমন নিকৃষ্ট হয়ে যেতেন। যায় হোক, জ্বর আসছিলো কিভাবে?”
“তেমন কিছুই না। বাদ দে। চল ক্ষুধা লাগছে।”
“হুম।”

খাওয়া দাওয়া শেষ করে ২ জনই এসে শুয়ে পড়লাম। আজও উনি সোফায় ঘুমাবেন আর আমি বেডে। একবার ভাবলাম বেডেই থাকতে বলবো পরে ভাবলাম “না করুক এই লোক কষ্ট আর তাছাড়া বিড়ালের বাচ্চার মতো জড়োসড়ো হয়ে ঘুমায় কিউট লাগে অনেক।”

পরেরদিন সকাল সকাল উঠে লিভিং রুমে গেলাম। অনুভব এখনো ঘুমাচ্ছে,,অনা বাকি স্টাফ দের সাথে এটা ওটা কাজ করছে। এমন সময় কলিং বেল বেজে উঠলো৷ এত সকালে কে আসলো বুঝলাম না। তাই উঠে গিয়ে দরজা খুলতেই দেখি মিরা। এই ডাইনী টা আমার বাড়ি কি করে? আমি কিছু বলতে যাবো তার আগেই উনি আমাকে একটা থাপ্পড় দিলো। থাপ্পড় টা অনেক জোড়ে মেরেছে। তাই টাল সামলাতে না পেরে নিচে পড়ে গেছি আর ঠোঁটের ফিনকি বেয়ে রক্ত পড়ছে। থাপ্পড়ের শব্দে আর আমার পড়ে যাওয়ার শব্দে অনা দৌড়ে আসে। অনা আমাকে ধরতে গেলেই মিরা ওকে ধাক্কা দেয়। সব কিছু এত তাড়াতাড়ি হয়ে গেছে যে কিছু বুঝে উঠতে পারছি না। মিরা এসে আমাকে এক টানে তুলে আরেকটা থাপ্পড় দিয়ে বাহু চেপে ধরে বলে,,
“আমার অনুভব কে কেড়ে নিতে এসেছিস তোকে তো আমি খুনই করে ফেলবো। কি ভেবেছিস কিছু বুঝি না আমি। অনুভব তোকে খালাতো বোন বলে পরিচয় করালেই আমি মানবো? অসম্ভব। তোর মতো মিডিল ক্লাস মেয়ে তো অনুভবের রক্ষিতাই হতে পারিস। কত টাকা চাই তোর?”
আমি আমার বাহু ছাড়িয়ে নিয়ে বললাম,,
“ভদ্রভাবে কথা বলেন। কাকে কি বলছেন আপনি?”
“তোর মতো রক্ষিতার সাথে ভদ্র ভাবে কথা বলবো? তোর…..
আর কিছু বলার আগেই গায়ের সমস্ত শক্তি দিয়ে মিরাকে একটা থাপ্পড় দিয়েছি। মিরা ছিটকে পড়েছে। টাল সামলাতে পারেনি হয়তো। রাগে আমার মাথা ফেটে যাচ্ছে। মিরাকে কিছু বলতে যাবো তার আগেই অনুভব এসে পড়ে। অনুভব এসে দেখে মিরা ফ্লোরে পড়ে আছে। অনুভব গিয়ে মিরাকে তুলে বলে,,
” কি হচ্ছে এখানে? আর স্নিগ্ধু তুই ওকে মারলি কেন?”
অনুভবের কথায় যেনো আগুনে ঘি দেওয়ার মতো রাগ বাড়িয়ে দিলো। মিরা ন্যাকা কান্না করতে করতে বললো,,
“দেখো না অনুভব ওকে শুধু বলেছিলাম তুমি অনুভব কে ডেকে দাও আর ও বললো আমি কি তোর মেইড যে ডেকে দিবো। এই নিয়ে দুজনের মধ্যে তর্ক হওয়াতে ও আমাকে থাপ্পড় মেরেছে।”
মিরার মিথ্যা বলা দেখে আরো রেগে গিয়ে বললাম,,
“মেরেছি ঠিক করেছি। আর মিথ্যা বানোয়াট গল্প না বলে সাহস থাকলে সত্যি বলেন।”
“স্নিগ্ধু কি হয়ছে সেইটা বল!”
“ও আর কি বলবে অনুভব? তুমি এখনো ওকে জিজ্ঞেস করছো?”
“সাট আপ মিরা। আমি ওকে জিজ্ঞেস করেছি ও আন্সার দিবে তুমি না আর শোনো স্নিগ্ধু বিনা করণে কারো সাথে উচু গলায়ও কথা বলে না আর তোমাকে থাপ্পড় মারবে অবিশ্বাস্য এবং হাস্যকর কথা।”
“তুমি আমাকে বিশ্বাস করো না অনুভব? ”
বলেই ন্যাকা কান্না শুরু করলো। ওদের এসব নাটক দেখে রাগে গা জ্বলছে।
“এই আপনাদের এসব নাটক বাইরে গিয়ে করেন। বের হন বাড়ি থেকে। এখনো সম্মান দিয়ে কথা বলছি এটাই আপনার ভাগ্য। 2nd টাইম আপনাকে এই বাড়িতে দেখলে খুন করে ফেলবো।”
“শান্ত হ স্নিগ্ধু শান্ত হ। কি হয়েছে বল? থাপ্পড় কেন মেরেছিস বল?”
“মেরেছি আরো মারবো। ওর সাহস কি করে হয় আমাকে রক্ষিতা বলার? ওর মতো মেয়েরা অন্যের স্বামী কে নিয়ে টানাটানি করবে আর ঘরের বউকে বলবে রক্ষিতা।”
রাগের মাথায় অনুভবের শার্টের কলার চেপে ধরে বললাম,,
“সবটাই তোর জন্য। আমি তো তোর বউ না সেটা আগেই বলে দিয়েছিস তাহলে ও তো রক্ষিতা বলবেই। আমি তোর বউ এটা বললে তোর কোন মহা ভারত অশুদ্ধ হবে হ্যাঁ? ওকে এখন থেকে যেতে বল নয়লে আমি কি করে ফেলবো নিজেও জানি না।”
অনুভব হঠাৎ করেই আমাকে জড়িয়ে ধরে মাথায় হাত দিয়ে বললো,,
“শান্ত হ বউ। তুই আমার বউ কেউ তোকে এসব বলবে না।”
মিরা হা করে তাকিয়ে আছে অনুভবের দিকে আর আমি চুপ করে উনার বুকে মুখ গুজে দাঁড়িয়ে আছি। উনি মিরাকে রাগে গিজ গিজ করে বললো,,
“গেট আউট।”
“অনুভব আম…
অনুভব রাগী চোখে তাকালেই মিরা চলে যায়। রাগ কমে গেলেই হু হু করে কেঁদে উঠি। নিজেকে অনুভবের থেকে ছাড়িয়ে বললাম,,
” আজ আপনার জন্য আমাকে এত বাজে কথা শুনতে হলো। বউ হয়েও আজ আমি সবার কাছে….
আর কিছু না বলে কাঁদতে কাঁদতেই রুমে গিয়ে দরজা লাগিয়ে দিলাম।

চলবে…

(

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here