☁ নীল আকাশ 💔 Part : 12

0
188

☁ নীল আকাশ 💔
Part : 12
Writer : Maliha Rahman

তিথির দেহটা নিয়ে নীলা চিৎকার করে কান্না করতে থাকে। নীলার চিৎকার শুনে সবাই অপারেশন থিয়েটারের ভিতরে আসে। ডাক্তার বলে দেয় তিথি মারা গেছে।
একথাটা শুনে নীলার বাবা-মা সবাই কান্না করতে থাকে।
আকাশ দেয়াল গেসে দাড়িয়ে আছে আর চোখ থেকে পানি পরছে।
নীলা আকাশ কে দেখে আকাশের কাছে যায়।
আকাশ কে একের পর এক থাপ্পর মারতে থাকে আর বলে তুই আমার বোন কে মেরে ফেলেছিছ। একটা সময় নীলা অঙ্গান হয়ে যায়।

আকাশ দ্রুত নীলাকে কোলে করে নিয়ে যায় আভির কাছে। আভি আকাশ কে শান্ত হতে বলে।

আভি নীলা কে নিয়ে চলে যায়। আকাশ বাহিরে অপেক্ষা করতে থাকে। আভি এসে বলে চিন্তা করিছ না নীলার ঙ্গান ফিরে আসবে কিছু সময় পর।

এদিকে সবাই বসে ছিল তিথির লাশের পাশে। সোহেল এসে দেখে তিথির পাশে বসে সবাই কান্না করছিল।
কি হয়েছে তিথির তিথি কে এখানে এভাবে কেন রাখা হয়েছে। বাবা আমার তিথি আর নেই। সোহেল কে জড়িয়ে ধরে কান্না করে বলছে তিথির বাবা।
আর এসব হয়েছে আকাশের জন্য আমি ওকে ছারব না।

না আকাশের কোন দোষ নেই চাচা। সোহেল সবাই কে সবকিছুই খুলে বলে। তিথি যা যা করেছিল।
সোহেল কথা শুনে তিথির বাবা মাথায় হাত দিয়ে বসে পরে। এর মধ্যে আভি আর আকাশ আসে।

সোহেল সবার কাছে মাফ চায়।
তিথির দাফন কার্য শেষ করা হয়। কিন্তু নীলার ঙ্গান এখনো ফিরে নাই। আজকে দুই দিন হয়ে গেছে।

এ অবস্থা দেখে আভি নীলার কিছু টেস্ট করে। নীলার টেস্ট করে যা দেখল তাতে নীলার পরিবার আর আকাশ কে কি করে বলবে।
সবাই বাহিরে অপেক্ষা করছিল আভি নীলার আর বাবা-মা আর আকাশ কে কেবিন নিয়ে আসে।
আভি- আমি কি করে বলব বুঝতে পারছি না। তবে আল্লাহ বিপদ দিলে একসঙ্গে দেয়।
সবাই আভির কথায় শুনে ভয় পাচ্ছে। আকাশ রেগে গিয়ে বলে কি হইছে বলবি আভি।

দোস্ত নীলার হৃদয়ে দুটি ছিদ্র আছে আর নীলা বেশি দিন বাচবে না।
কথাটা শেষ হবার সাথেই আভির কলার চেপে ধরেছে আকাশ। চোখ রক্ত লাল হয়ে আছে আকাশের।
আভি – শান্ত হ দোস্ত আমার কিছু করার নেই সব আল্লাহর কাছে।
আকাশ আভি কে জড়িয়ে ধরে কান্না করতে থাকে।
আকাশ বেভেছিল নীলার ঙ্গান ফিরলে সব খুলে বলবে তিথির কথা। কিন্তু একথাটা শুনে আকাশ কে সবাই কে না করে দেয় তিথির কথা বলতে। নীলা ওর মৃত বোনের এসব কথা শুনে কষ্ট পাবে আরও। আর যে মানুষ টা মারা গেছে তাকে নিয়ে এসব না বলা ভাল।

আকাশের কথা শুনে নীলার বাবা মা আকাশ কে জড়িয়ে ধরে কান্না করে। আকাশ এ কয়দিন আকাশ নীলার বাবা মা অনেক খেয়াল রাখে। আকাশ একটু রাগী কিন্তু ওর মনটা অনেক ভালো তা তারা এতদিন বুঝতে পারছে।

নীলা এখন সুস্থ আগের থেকে। হাসপাতালে থেকে বাসায় গিয়েছে।
আকাশ নীলাকে নিয়ে এ কয়দিন অনেক বেভেছে। নীলা বেশি দিন বাচবে না। তাই যতদিন বাচবে আকাশের বউ হয়ে বাচবে। আর নীলাকে কার হতে দিবে না। নীলা শুধু তার বউ।

এসবের কিছু আবির জানে না। নীলার কি হয়েছে।
আকাশ একদিন মদ খেয়ে আবির কাছে গিয়ে আবিরের পা ধরে কান্না করে নীলাকে চায়। আবির আকাশের কান্না দেখে নীলা কে আকাশ দিয়ে দেয়। আবির নীলা কে কিছু না বলে কানাডা চলে যায়।

এদিকে আকাশ নীলার কাছে অনেক গিয়েছে নিজের ভালোবাসা বুজাইতে কিন্তু নীলা অপমান করছিল সবসময়। একদিন আকাশ নীলার university যায় নীলার সাথে কথা বলার জন্য কিন্তু নীলা সবার সামনে আকাশ কে থাপ্পড় মারে আর অপমান করে। তাই আকাশের মাথা নষ্ট হয়ে যায়। সেদিন আকাশ নীলা কে তুলে নিয়ে যায় আর তার পর বিয়ে করে।

বতর্মান

আকাশ নীলার হাত ধরে বসে থাকে। আর কিছুক্ষণ পরে আকাশ নীলাকে ঘুমের মধ্যে খাওয়া দেয়। আর নীলাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে যায়।

নীলা ঘুম থেকে ওঠে দেখে আকাশ নীলা কে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে আছে নীলা রাগে আকাশ কে ধাক্কা মেরে নিচে ফেলে দেয়।

[ আগামীকাল থেকে বতর্মান পর্ব শুরু। আর লেখায় ভুল হলে মাফ করে দিবেন। আর আশা করি আকাশ আর নীলা কে নিয়ে যত প্রশন ছিল তার উওর পেয়েছেন ]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here