#বাইজি_কন্যা পর্ব ২০

0
65

#বাইজি_কন্যা পর্ব ২০
#লেখা_জান্নাতুল_নাঈমা

যে বিষয়’টা খুব সহজে নিজেরা মিটিয়ে নিচ্ছিলো সে বিষয়টা খুবই জটিল রূপ ধারণ করলো। শাহিনুরের সহজ মনে করা প্রশ্নটি পাঁচফোড়ন গৃহের প্রতিটি সদস্যের মনে মারাত্মক শঙ্কা বয়ে আনলো। পলাশ চৌধুরী শাহিনুরের স্নিগ্ধ মুখশ্রী’তে, স্বচ্ছ দৃষ্টিজোড়ায় নিজের সর্বনাশ ব্যতিত অন্য কিছুই দেখতে পেলো না। তার সমস্ত ইন্দ্রিয়শক্তি জাগ্রত হয়ে ওঠলো। মস্তিষ্কে নাড়া দিয়ে ওঠলো কেবল একটি বাক্যই ‘এই মেয়ে’কে শিঘ্রই নিজের আয়ত্তাধীন করতে হবে! ‘ বাবা,ভাইয়ের দিকে ক্ষুব্ধ হয়ে তাকিয়ে বললো,
-‘ আব্বা, ঐ শালির মেয়েরে আজ আমি…’
বাকিটুকু বলার আর সুযোগ পেলো না। এটুকু বলতেই দিক বেদিক চিন্তা না করেই সকলের সামনে ঠাশ করে পলাশের গালে এক চড় বসালো অলিওর। বাড়ি ভর্তি লোকজন বিস্ময়ে কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে গেলো৷ ভয়ে গুটিয়ে গেলো পুলিশ অফিসার নিজেও৷ অলিওর চৌধুরী’র ক্ষমতা সম্পর্কে সকলেই বেশ অবগত । শহরের বিশিষ্ট শিল্পপতি, বড়ো বড়ো নেতাদের সাথে হাত আছে তার। সমানতালে দেশে বিদেশে বড়ো বড়ো শিল্পপতিদের সঙ্গে ব্যবসায়ে সফলতা অর্জন করছেন। ধন,সম্পদ, ক্ষমতায় তার থেকে বলবান বা তার সমানে সমানও গ্রামে,উপজেলায় বা জেলায় আর একটিও নেই। দশটা খুন করলেও সেটা ধামাচাপা দেওয়ার মতো ক্ষমতা, কূটবুদ্ধি কোনটারই অভাব নেই তার। সবটা জেনেও এদের বিরুদ্ধে লোক দেখানো তদন্ত করতেই হবে। সকলের অবস্থা যখন জীর্ণশীর্ণ তখন পলাশ গালে হাত দিয়ে রক্তিম বর্ণ চোখে বাবার দিকে তাকালো, ক্রোধান্বিত কন্ঠে হুংকার ছড়লো,
-‘ আব্বা…আপনি আমার গায়ে হাত তুললেন! আমার উদ্দেশ্য সফল হতে যতো সময় লাগবে ততো হিংস্র হবো আমি, ঠিক ততোটাই নৃশংসরূপে সফলতা অর্জন করবো আমি হুহ। ‘
এটুকু বলেই স্থান ত্যাগ করলো পলাশ। তীব্র ক্রোধে শরীরের রক্ত টগবগ করছে তার৷ বাবার প্রতিই বেশী ক্ষিপ্ত হয়েছে কারণ বাবা না থাকলে আজ শারমিন বাইজি,আর তার মেয়ে দু’টোই হাতের মুঠোয় থাকতো তার। পলাশ চলে যেতেই অলিওর চৌধুরী বড়ো একটি দম ছাড়লো তারপর প্রণয়ের দিকে তাকাতেই দেখতে পেলো,প্রণয় চোয়ালজোড়া শক্ত করে সটান হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অলিওর প্রণয়কে অমন অবস্থায় দেখে বললো,
-‘ তুমিও কি ওর মতো মূর্খতা করবে? ‘
-‘ আপনার কি মনে হয় আব্বা? ‘
বাবার দিকে না ফিরেই দৃঢ় কন্ঠে প্রশ্নটি করলো প্রণয়। অলিওর বললো,
-‘ পল্লবের পর যদি আমি কাউকে বিশেষ ভরসা করি সে এক তুমিই। ‘
-‘ তাহলে নিশ্চিন্ত থাকুন, রোমানার মৃত্যু’তে আপনারা কেউ দায়ী না। তাই এই ঘটনার জন্য কোন প্রকার ভোগান্তিও আপনাদের পোহাতে দেবো না। ‘
কথাগুলো শেষ করেই এক পলক শাহিনুরের দিকে তাকালো প্রণয়, পরোক্ষণেই দৃষ্টি সরিয়ে দীর্ঘশ্বাস ছাড়লো।

অত্যন্ত কৌশলে রোমানার চাচাদের সঙ্গে বোঝাপড়া করলো প্রণয়। তারাও মানতে বাধ্য হলো যে, রোমানা আত্মহত্যাই করেছে। অলিওর চৌধুরী’র কোন কন্যা সন্তান নেই। বোনের মৃত্যুর পর প্রেরণা বহু শখ করেই রোমানাকে নিজের কাছে নিয়ে আসে। নিজের ছেলেদের থেকেও বেশী আদরে মানুষ করেছেন রোমানা’কে। প্রণয়’কে রোমানা ভালোবাসে বলে বাগ্দানও সেরে ফেলেছেন। কিছুদিন পরই তাদের বিয়ে হবার কথা ছিলো। কিন্তু তার পূর্বেই কি নিয়ে হতাশ হলো রোমানা? কেউ বুঝতে পারলো না। শেষে ধারণা করা হলো,ছোট বেলায় মা মারা গেছে,বড়ো হওয়া অবদি আজ পর্যন্ত নিজের বাবা’কে পাশে পায়নি। এসব নিয়েই হয়তো গভীর চিন্তা করতে করতে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলো। আর সে হাতাশাই তাকে মৃত্যুর পথে ঠেলে দিয়েছে। মেয়েটা অতিরিক্ত আবেগপ্রবণ কিনা… ঠিক এমন ধারণাই সকলের মস্তিষ্কে চাপিয়ে দিলো প্রণয়। যুক্তি দিয়ে,বুদ্ধি দিয়ে,কৌশল খাঁটিয়ে নিজের পরিবার’কে বাঁচাতেও সক্ষম হলো। আবার পরম আত্মীয়দের সাথে সম্পর্কও অটল রাখলো। মোটা অংকের টাকা খাওয়িয়ে পুলিশও বিদায় করলো। পুলিশ বিদায় হওয়ার পর ধীরে ধীরে মানুষ জন কমতে শুরু করলো। এতোক্ষণ অতিরিক্ত ভীড় থাকায়,পুলিশের বৈঠক থাকায় কেউ বাড়ির বাইরে যেতে পারেনি।ভীড় কমতে থাকলে শারমিন সিদ্ধান্ত নিলো এবার সে চলে যাবে। তাই শাহিনুরের হাত শক্ত করে চেপে ধরে আগাতে লাগলো সদর দরজার দিকে। তখনি পিছন থেকে শুনতে পেলো,
-‘ না না ফাঁসিতে মরা মানুষ গোসল করাতে পারমুনা আমার ডর করে। ‘
সহসা চরণদ্বয় থামিয়ে ঘুরে দাঁড়ালো শারমিন৷ দেখতে পেলো অরুণা তাদের বাড়ির কাজের মহিলা সহ,গ্রামের মহিলাদের বলছে,তারা যেনো রোমানা’কে শেষ গোসল করাতে সাহায্য করে। কিন্তু বিস্ময়কর ব্যাপার হলো কেউ রাজি হলোনা। শবনম অরুণা ব্যতিত একটি মানুষও রোমানা’কে গোসল করানোর জন্য এগিয়ে এলো না৷ এমন নির্মম দৃশ্য সইতে না পেরে মান্নাত সহ বাকি বাইজিদের দিকে তাকালো শারমিন। বললো,
-‘ তোদের মধ্যে একজন থাকবি আমার সাথে বাকিরা নুর’কে নিয়ে বাইজি গৃহে ফিরে যাবি। ‘
শারমিনের আদেশ পেয়ে মান্নাত থেকে গেলো। বাকিদের সঙ্গে বাইজি গৃহে ফিরে গেলো শাহিনুর৷ মেয়ে’কে বিদায় দিয়ে শারমিন আর মান্নাত অরুণার সামনে গিয়ে দাঁড়ালো। সঙ্গে সঙ্গে অরুণার বুকের ভিতর মৃদু কেঁপে ওঠলো। এতো ভীড়ের মাঝে এতোক্ষণ সে খেয়াল না করলেও এবার সুস্পষ্ট ভাবে শারমিন’কে দেখে কেমন যেনো গুটিয়ে গেলো। শারমিন তাচ্ছিল্য হেসে বললো,
-‘ ভয় পাবেন না বড়ো ভাবি, আমি আপনাকে সাহায্য করার জন্যই এগিয়ে এসেছি। ‘
অরুণা আশপাশে সচেতন দৃষ্টি বুলিয়ে শারমিনের একটি হাত চেপে ধরে কিছুটা দূরে নিয়ে গেলো৷ ফিসফিস কন্ঠে বললো,
-‘ এভাবে সকলের সামনে বড়ো ভাবি বলছো কেন? এই করুণ দিনে তুমি রসিকতা করতে আইসো না। ‘
মৃদু হেসে শারমিন বললো,
-‘ জমিদারের বড়ো গিন্নি আপনাকে অসহায় মুখে দেখতে ভালো লাগলো না, অলিওর চৌধুরী’র বড়ো গিন্নি’কে কি সামান্য কাজের লোকের কাছে অনুরোধ করা মানায়? মানায় না, তাইতো ছুটে এলাম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে। ‘
-‘ এক বাইজির থেকে সাহায্য নেবো? তোমার মতো বাইজির করুণা নিতে হবে আজ আমাকে? ‘
চোয়ালজোড়া শক্ত হয়ে ওঠলো শারমিনের। সিনা টান করে দাঁড়িয়ে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে অরুণার দিকে তাকিয়ে বললো,
-‘ এই বাইজি’কে আপনার স্বামী মন,প্রাণ দিয়ে বসে আছে। যে স্বামী ঘরে দু’টো বউ রেখে পাঁচটি সন্তান রেখেও এক বাইজির ভালোবাসা পাওয়ার জন্য দিনের পর দিন কাঙালের মতো অপেক্ষা করছে, এই বুড়ো বয়সে এসেও, সে স্বামীর ঘর কি করে করছেন!’
শারমিনের উচিৎ জবাবে কোন উত্তর খুঁজে পেলো না অরুণা। সারাটারাত পেরিয়ে তখন ফজরের আজান দিচ্ছে। অরুণা স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। শারমিনের বুকে দাউদাউ করে অগ্নি জ্বলছে তবুও সে শান্ত কন্ঠে আবার অরুণা’কে বললো,
-‘ জমিদার গিন্নি আর অপেক্ষা করবেন না। এবার মেয়েটার গোসলের ব্যবস্থা করুন। আমরা আমাদের গৃহে ফিরে যাব শিঘ্রই। ‘
নিয়তির খেলা বড়োই অদ্ভুত। যে গৃহে বাইজিদের প্রবেশ নিষেধ ছিলো আজ সে গৃহে অনায়াসে তারা প্রবেশ করেছিলো। আশ্চর্যজনক ভাবে পাঁচফোড়ন গৃহের চরম বিপদে পাশে এসে দাঁড়িয়েছিলো শারমিন৷ এ খবর অনেকেই জানলো,আবার অনেকের কাছে গোপনও রইলো। শারমিন বাইজি গৃহের সদস্য ছাড়াও তার গোপন পরিচয়টুকু অলিওর,প্রেরণা আর অরুণা ছাড়া কেউ জানেনা৷ সকলেই এটুকু জানলো বাইজিদের সহয়তায় শেষমেশ গোসল করানো হলো রোমানা’কে। এই নিয়ে গ্রামবাসীরা কানাঘুষা করলো,
-‘ পাপিষ্ঠের শেষ কার্য পাপিদের দ্বারাই সম্পন্ন হলো!’
[২৭]
পাঁচফোড়ন গৃহের প্রতিটি সদস্যই ভেঙে চূরমার হয়ে গেলো তখন, যখন রোমানার জানাজা পড়ানোর জন্য মানুষ খুঁজে পাওয়া গেলো না। মসজিদের ইমাম সরাসরি অলিওর চৌধুরী’কে বললেন,
-‘ আমার নবী যাদের জানাজা পড়ায়নি তাদের জানাজা আমিও পড়াবো না! ‘
(হজরত জাবের ইবনে সামুরা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুল (সা.) এর সামনে আত্মহত্যাকারী এক ব্যক্তির লাশ আনা হয়, রাসুল (সা.) তার জানাজা পড়েননি।)
নিরুপায় হয়ে প্রণয় খুব রিকোয়েস্ট করে তার এক শৈশব বন্ধু যিনি পাশের গ্রামের মসজিদে ইমামতি করেন তাকে নিয়ে এলো। কিন্তু হতভাগিনীর জানাজা নামাজে নিজেদের লোকজন ছাড়া তেমন কেউ অংশগ্রহণও করলো না। শেষ ধাক্কাটা এতোটাই প্রখর ছিলো যে প্রণয়ের দৃষ্টি’তে রক্ত টগবগিয়ে ওঠেছিলো। কিন্তু ভাগ্যের নির্মমতা,দুনিয়ার নিষ্ঠুরতায়, সৃষ্টিকতার কাছে, পুরো দুনিয়ার কাছে পাপীষ্ঠ হয়ে জমিদার বাড়ির জঙ্গলের এক কোণে সাড়ে তিন হাত মাটির নিচে ঠাঁই হলো রোমানার। গোরস্থানেও তাকে জায়গা দেওয়া হয়নি। দুনিয়া’তেই এমন ভয়ংকর পরিণতি দেখে হৃদপিণ্ড অস্থির হয়ে ওঠলো প্রণয়ের। রোমানার এই পরিণতি মেনে নিতে বক্ষঃস্থলে তীব্র ব্যথার সঞ্চার হলো।

সকাল দশটা। শোকের তীব্র ছায়ায় পাঁচফোড়ন গৃহ আচ্ছন্ন হয়ে আছে৷ একদিকে রোমানার মৃত্যু অপর দিকে অঙ্গনের চিন্তা। সব মিলিয়ে প্রেরণার অবস্থা খুবই খারাপ। প্রণয় অনেক চেষ্টা করেও অঙ্গনের খোঁজ করতে পারেনি। এদিকে, অঙ্গন দূরবর্তী স্থানে গিয়ে দীর্ঘ একটা সময় একা কাটিয়ে শেষে বাড়ি ফেরার সিদ্ধান্ত নিলো৷ সিএনজি’তে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার পথ শেষ করে নিজের এলাকায় পা ফেললো অঙ্গন। আশপাশের পরিচিত অনেকেই তাকে সালাম দিলো, অনেকে স্বান্তনা বাণী দিলো,অনেকে প্রশ্ন করলো, সে কোথায় গিয়েছিলো? অস্বস্তি হলো,বিরক্ত লাগলো হঠাৎ একটু বেশীই কদর করছে তাকে লোকজন৷ তাই চোখমুখে বিরক্তি ফুটিয়ে গুটিকয়েক জনের দিকে তাকালো। তারা ভয়ে,বিব্রত হয়ে সরে গেলো। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না। অকস্মাৎ একজন বলে ফেললো,
-‘ আহারে মেয়েটা অকালে চলে গেলো। ‘
এটুকু কর্ণকুহরে পৌঁছাতেই হাঁটা পা থেমে গেলো অঙ্গনের। পা থেকে মাথা অবদি কিছুটা কেঁপেও ওঠলো। বক্ষঃস্থলে মৃদু ধড়াস করে ওঠলো। এক ঢোক গিলে পাশ ফিরে ঐ ব্যক্তির দিকে তাকালো। যে ব্যক্তি কয়েকপল আগে উচ্চারণ করেছিলো,
-‘ আহারে মেয়েটা অকালে চলে গেলো। ‘
অঙ্গন কৌতূহলী হয়ে প্রশ্ন করলো,
-‘ কে অকালে চলে গেলো? ‘
অপর ব্যক্তিটি বললো,
-‘ তুমি বাড়ির খবর জানোনা? ‘
অঙ্গনের কপাল বেয়ে ঘাম নিঃসৃত হতে লাগলো। হাঁসফাঁস কন্ঠে বললো,
-‘ কি হয়েছে? ‘
পাশ থেকে আরেকজন বললো,
-‘ হায় আল্লাহ গো অঙ্গন ভাই সর্বনাশ হয়ে গেছে। তুমি কই ছিলা কাল থেকে,রোমানা আপা আর নাই গো ভাই, ফাঁসি দিয়া মইরা গেছে রোমানা আপা। ‘
কঠিন কোন বস্তু দ্বারা আকস্মিক ভাবে মাথায় আঘাত পেলে মানুষের মস্তিষ্ক যেমন চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে যায়,’ফাঁসি দিয়া মইরা গেছে রোমানা আপা’ এটুকু বাক্যতে ঠিক অমনভাবেই অঙ্গনের মস্তিষ্ক চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে গেলো৷ ভূমিকম্পের ন্যায় পুরো পৃথিবী ঘুরতে শুরু করলো, চারদিকে নেমে এলো ঘনীভূত আঁধার। নিমিষেই সকলের চক্ষের সম্মুখে অত্যন্ত নিবিড় ভাবে ঘুমিয়ে লুটিয়ে পড়লো ভূমিতলে অঙ্গন। কিন্তু যে অঙ্গন চৌধুরী সকল’কে সাক্ষী রেখে ঘুমালো সে অঙ্গন চৌধুরী আর জেগে ওঠলো না৷ ঠিক বারো ঘন্টা পর হাসপাতালের কেবিনে জ্ঞান ফিরলো নতুন অঙ্গন চৌধুরীর। কিন্তু স্বাভাবিক ভাবে নয় প্রণয় চৌধুরী সহ আরো কয়েক জন ডাক্তারের দীর্ঘ প্রচেষ্টার ফলেই জ্ঞান ফিরেছে তার। কিন্তু জ্ঞান ফেরার পর পাশে শুধু প্রণয়’কে দেখে অত্যন্ত শান্ত ভঙ্গিতে অঙ্গন প্রশ্ন করলো,
-‘ ভাইয়া আমার রোমানা? আমার রোমানা কোথায়?’
বিস্মিত হলো প্রণয়৷ পরোক্ষণেই নিজেকে স্বাভাবিক করে নিয়ে অঙ্গনের মাথায় হাত বুলালো। বললো,
-‘ অঙ্গন সত্যিটা মেনে নেওয়ার চেষ্টা কর। মেয়েটা অভিমান করে আমাদের সকলের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। ‘
প্রণয় কথাগুলো শেষ করা মাত্রই অঙ্গন আশপাশে এলোমেলো দৃষ্টি বুলালো। স্যালাইন চলছিলো তার, হাতের রগ থেকে টেনে সুঁচ খুলে অকস্মাৎ প্রণয়’কে আক্রমণ করলো, মাথায় প্রচণ্ড শক্তি দিয়ে কামড়েও ধরলো। এমন আক্রমণাত্মক পরিস্থিতি’তে সর্বচ্চ শক্তি খাঁটিয়ে অঙ্গন’কে নিজের থেকে ছাড়ালো প্রণয়। তারপর চিৎকার করে নার্সদের ডাকলো। নার্সরা এসে অঙ্গন’কে ধরতেই প্রণয় ত্বরিতগতি’তে একটি ইনজেকশন পুশ করে দিলো। প্রায় দশমিনিট জবরদস্তি চলার পর অঙ্গন ঘুমিয়ে পড়লো৷ প্রণয় রুদ্ধশ্বাস ছেড়ে বিক্ষিপ্ত চেহেরা নিয়ে কেবিন থেকে বের হলো। কেবিনের বাইরে রঙ্গন দাঁড়িয়ে ছিলো। এমন কঠিন সময়ে রঙ্গন’কে হঠাৎ জড়িয়ে ধরে বললো,
-‘ পারলাম না রঙ্গন, আমি শেষ রক্ষা করতে পারলাম না। অঙ্গনের এই সত্যি টা আমি আম্মা’কে কোন মুখে বলবো। রোমানার মৃত্যু, অঙ্গনের মানসিক অসুস্থতা কীভাবে সহ্য করবে আম্মা? ‘
পাঁচফোড়ন গৃহে সর্বপ্রথম অলিওর চৌধুরী জানতে পারলো অঙ্গনের খবর। রোমানার মৃত্যু শোক হয়তো দিন পেরোলে, মাস পেরোলে, বছর গড়ালে কাটিয়ে ওঠতে পারবে। কিন্তু চোখের সামনে অঙ্গনের এই পরিণতি কি করে সহ্য করবে সে ? শতহোক অঙ্গন তার নিজের ছেলে! বক্ষঃস্থল চেপে ধরে বিছানায় বসে পড়লো অলিওর চৌধুরী। প্রণয়ের কাছে খবর গেলো, মা,ভাইয়ের পর এবার তার বাবা অসুস্থ হয়ে পড়েছে এখুনি বাড়ি ফিরতে হবে তাকে।

চলবে…
[ কার্টেসী ছাড়া কপি নিষেধ ]
[ নেক্সট পার্ট থেকে নুরের কাহিনী শুরু হবে ইনশাআল্লাহ। এ পর্যন্ত নুরের চেয়ে বেশী অন্যান্য চরিত্র বর্ণণা করা হয়েছে। কিন্তু পরবর্তী পার্ট থেকে ওর কাহিনী আসবে ইনশাআল্লাহ ]

বিঃদ্রঃ পাঠকবাসী কথা রেখেছি কিন্তু….

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here