মেঘে_ঢাকা_চাঁদ,পর্ব ৪৫,৪৬

0
66

#মেঘে_ঢাকা_চাঁদ,পর্ব ৪৫,৪৬
সায়লা সুলতানা লাকী
৪৫

গ্রাম থেকে সত্যি সত্যিই দুজন সাহায্যকারী আনা হল হিমেলদের বাসায়। এদের একজনের কাজ হল শুধু রেহেনা বেগমকে দেখাশোনা করা। নিয়মিত থেরাপি পড়ায় রেহেনা বেগম কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠলেন অল্প সময়ের মধ্যেই। এখন হাত দিয়ে কোনো কিছু শক্ত ভাবে ধরতে পারছেন তিনি এসব । তার অবস্থার উন্নতি দেখে লাবন্যের নানির মন ভালো হয়ে গেল। সুমুর বরের সাথে কথা বলে এমনিতেই মনটা অনেক হালকা হয়েছিলো যখন জেনে ছিলেন যে সুমুর বরই সমস্যাটার সমাধান খুঁজে তা মিটানোর চেষ্টা করছে। এদিকে জামাইয়ের চেষ্টা কতটুকু কাজ করছে তা জানার জন্য রেহেনা বেগমের ছটফটানিটা যতটুকু বোঝা যায় তা লাবন্যের নানির মধ্যে দেখা যায় না। আসলে নানি প্রচন্ড রকমের শক্ত হওয়ায় তার টেনশন বাহির থেকে বোঝা যায় না। কিছু দিন পর জানা গেল, একটা কর্পোরেট অফিসের রিসিপশনে সুমুর একটা চাকরি যোগাড় করেছে ওর বর। এখন আর সুমু বাসায় থাকছে না সবসময়। তাই ওকে আর অন্যের কাজ করতে হয় না। উল্টো ওর বাচ্চাকেও সুমুর শাশুড়িকেই দেখতে হবে তার মেয়ের বাচ্চাদের সাথে। এখন শুধু অপেক্ষা সুমু নতুন চাকরিতে কত দ্রুত অভ্যস্ত হতে পারে তা দেখার জন্য । এমনিতে নতুন চাকরি পেয়ে সুমু বেশ খুশি। নিজেকে নতুন করে আবিস্কার করছে বলে বেড়াচ্ছে সবার কাছে।

হোমায়রা প্রতিদিনই ভিডিও কল দিয়ে মায়ের সাথে কথা বলে দিনের একটা নিদিষ্ট সময়ে। কি কথা বলে তা কখনও লাবন্য বা ওর নানি শুনতে চায় না তাই কখনও আড়ি পাতে না শোনার জন্য। কিন্তু নাজমুল সাহেব মাঝে মধ্যেই উচ্চ স্বরেই তার বিরক্তির জানান দেন কিছু কিছু বিষয়ে কথা বলার সময়। একদিন বেশ রাগ নিয়েই বললেন “এখনি সময় আছে এসব কানপড়া নেওয়া ছাড়ো, না হলে একেবারে একা হয়ে পরবে। মেয়েরা নিজের সংসার নিয়ে পরে আছে দূর দূরন্তে। তোমার প্রয়োজনে ওদের ডাকলেও কাছে পাবে না। আর ওদের কথায় সব দায়িত্ব কাজের মানুষের উপর ছেড়ে দিয়ে নিশ্চিন্তেও থাকতে পারবে না। নিজের কষ্ট নিজেকেই ভোগতে হবে। তাই সবার মতো তুমিও তোমার আখের গোছাও। যারা কানপড়া দিয়ে দিয়ে কানকে ভারি করছে তারা ওই কাজ ছাড়া আর কোন উপকারেই আসতে পারবে না জীবনে। এটা অন্তত বোঝার বয়স ও সময় দুটোই পেয়েছো। কারো কথায় নিজোর পায়ে নিজে কুঁড়াল মেরো না। নিজের ভালো বুঝতে শিখো। কার কথা শুনবা আর কাকে এভোয়ড করবা তা ঠিক করো সময় থাকতেই।” ইনডাইরেক্টলি কথা গুলো বেশ কয়েকবার বলেই তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন রেহেনা বেগম কে। শেষ বার তিনি আর একটু বেশি রেগে গিয়ে বলে বসলেন “বাসার ওয়াই ফাইটাই যত নষ্টের নারোদ, ভাবছি সংসারের আগাম শান্তির জন্য এটা বন্ধ করে দিব। না থাকবে বাঁশ আর না বাঁজবে বাশুরী। টাকা খরচ করে যখন কথা বলতে হবে তখন কথার ও হিসাব থাকবে।এত যন্ত্র মন্ত্র তখন আর চলবে না। ”

হিমেল বারাবারই এসব বিষয়ে চুপ থাকে। বাবাকে বা মা’কে কাউকেই কিছু বলে না। লাবন্য অবশ্য এসব কথা যখন হয় তখন খুব অস্বস্তিবোধ করে। ওর সাথে ওর নানিও খুব সমস্যায় পড়েন বলে চেহারা জানান দেয় তার। তবে আর যাই হোক নাজমুল সাহেবের কথায় একটু একটু ফল পেতে দেখা গেল । মাঝে মাঝেই শোনা যায় রেহেনা বেগম কথা বলতে বলতে একটু রেগে যান মেয়ের সাথে , উচ্চস্বরে বলে উঠেন “তোর এতসব কথা বলার কি দরকার? কে কি করবে তা কি তোকে জিজ্ঞেস করে করবে নাকি? আমার সংসারের জন্য কি তোর কাছ থেকে বুদ্ধি নিতে হবে? তুই চুপ থাক। নিজেরটা দেখ। এদিকে তাকাতে হবে না।”
লাবন্য তখন চুপ চাপ বসে হাসে। ওর কাছে কেন জানি বেশ মজা লাগে। মনের অজান্তেই নিজেকে প্রশ্ন করে “আম্মু বেঁচে থাকলে কি আমিও এমনটাই করতাম? কি জানি হয়তো করতাম হয়তোবা না।”

বেশ কিছুদিন এভাবে চলার পর একটা সময় আবার ওরা নিজের বাসায় ফিরে আসে। রুশের কান্নাকাটিতে ওর নানুমনি মনে হল একটু বেশিই নরম হয়ে গিয়েছিলেন তাই হয়তো হিমেলের পীড়াপীড়ি সত্বেও লাবন্যদের বাসায় ফিরে আসেন তিনি। ওখানে থাকার সময়টাতে তিনি খুব একটা সাচ্ছন্দ্যে ছিলেন না। সবসময় বড় জামাইয়ের সামনে কেমন একটা সংকোচবোধ হত। যা লিখনের সামনে হয় না। লিখন কেমন জানি একটা মানুষ।সবসময় একটু বেশি গা ঘেঁষা টাইপের। সব বিষয় নিয়েই তার শরণাপন্ন হয়। বুদ্ধি পরামর্শ করে।অন্তত তার একটা মতামতের জন্য অপেক্ষা করে। প্রচন্ড রাগ,ঘৃণা, ক্ষোভ থাকা সত্তেও ওকে কখনও আম্মা বলে না ডাকতে চাপ দিতে পারেন নাই তিনি।

আজ ক’দিন ধরেই ঘুমটা কম হয় লাবন্যের। লিখন অফিস থেকে আগে এ বাসায় আসে, রুশের সাথে বেশ কিছু সময় কাটিয়ে তারপর রাত দশটা কিংবা এগারোতে বাসা থেকে বের হয়। লিখন যতক্ষণ থাকে ততক্ষণ লাবন্য আর নিজের রুম থেকে বের হয় না। ওর আব্বু যাওয়ার পর ও খাওয়া দাওয়া করে রুশের পড়া নিয়ে বসে। ইদানীং রুশও বেশ মনমতলবি করে পড়া নিয়ে। সারাক্ষন তার খেলা, আর এই খেলা নিয়েই যত বায়না। টিভিতে যত রকমের ক্রিকেট খেলা হবে তার সবটাই সে দেখবে। তাই পড়াটা ফাঁকেঝোকে বাকি থেকে যায়। সেজন্য নানির কড়া নির্দেশ দিলেন রাতে মিনিমাম এক ঘণ্টা রুশকে নিয়ে বসতেই হবে লাবন্যকে। রুশের পড়া হয় আর না হয় তবে এই বসাতে ওদের দুই ভাইবোনের বন্ধনটা কিন্তু আরও দৃঢ় হচ্ছে ধীরে ধীরে । দুজন তখন সারাদিনের ঘটে যাওয়া নানান সুখ দুঃখ ভাগ করে দুজনের সাথে। কাজটা যদিও লাবন্য নিজ থেকেও করত চাইতো কিন্তু করি করি করে আর করা হয়ে উঠতো না। নানির কঠিন নির্দেশটা পেয়ে এখন এটা অনিবার্য হয়ে গেল, আর তার সাথে নানির প্রতি শ্রদ্ধাটা আরও বেড়ে গেল।
সময় নিয়ে নানির সাথে বসে একটু টিভি ওয়াচ করে ওরা দুইভাইবোন যা কখনোই ওর আম্মুর সাথে করতো না। এখন চেষ্টা করে বাহিরে সময় না দিয়ে বাসায় নানিকে পর্যাপ্ত সময় দিতে। এসবের কারনে ওদের নানিও বেশ আনন্দিত। নিজের বাড়িতে সবার কাজেই সে কাজি থাকতেন কিন্তু তার বেলায় কেউ কাছে থাকতো না৷ সবাই সবার দায়িত্বে কি পরে তার হিসাব নিয়েই দরকষাকষিতে ব্যস্ত থাকতো বলে নানির মনে হত। এখানে সেই দরকষাকষির ঝামেলাটা উপলব্ধি হয় না। এটাই যেনো তার জন্য অনেক বড় শান্তি।

হিমেল ওর মায়ের অসুস্থতার আগে যে একটু রাগ রাগ অবস্থা বিরাজ করছিলো ওর মায়ের সাথে তা এখন আর নাই। অফিস থেকে এসেই মায়ের রুমে বাকিটা সময় কাটায়। মাঝে মাঝে মায়ের সাথে বসে লুডু খেলে। এ নিয়ে রেহেনা বেগমের আনন্দ যেনো আর ধরে না। মেয়েদের সাথে মোবাইল কলে কথা বলতে গিয়ে খেই হারিয়ে ফেলেন এই সব গল্প শোনাতে যেয়ে।

এই সবের মধ্যে হোমায়রা একসময় বলে বসে
“আম্মু ছেলে যখন এখন তোমার উপর এত তুষ্ট তখন সুযোগটা কাজে লাগাও। সুন্দরী কোন পাত্রী ধরে বিয়েটা করিয়ে দাও। ওর মাথা থেকে ওর ওই বন্য নামের ভুতটা নামিয়ে দাও। না হলে এই ভুত তোমার ঘাড় মটকাবে দেখো!”

“তাই নাকি? তুই জানিসতো ভালো মতো? শুধু ঘাড়টাই মটকাবে? আর কিছু করবে না?” রেহেনা বেগম একটু ব্যঙ্গ করেই প্রশ্নগুলো করেন বড় মেয়েকে। কারন তিনি এখন আর তেমনটা মনে করেন না। অসুস্থ হলে প্রকৃত আপনজন চেনা যায় কথাটা একেবারে সত্য, তা তিনি জানেন।

“আম্মু তুমি আসলে এখন কেমন জানি হয়ে যাচ্ছো দিনেদিনে! কেমন সব আজব আচরণ করো আমার সাথে। তুমি নিজে….”

“শোন আমার কি মনে হয় জানিস? আমার মনে হয় হিমুর মাথার ওই বন্য ভুতটা একটু একটু করে আমার মাথাটাকেও কব্জা করেছে, তোর আব্বুরটাও। সবাই ওই বন্য ভুতের আছরে আছি, বুঝলি? বলতো এখন কি করি?”

“কি সাংঘাতিক? আম্মু এসব কি বলছো তুমি তাও আবার হাসছো? তোমার দুর্দিনতো তাহলে শুরু হল বলে মনে হচ্ছে । ”

“হুমম আমার দুর্দিনে কি তুই পাশে থাকবি নাকি গা ঢাকা দিবি? বেশি ভয় পেলে গা ঢাকা দিতে পারিস, আমি খুঁজবো না একটুও।” কথাটা একটু শক্ত গলাতেই বললেন রেহেনা বেগম, ঠিক যেনো বুঝিয়ে দিলেন তার বিরক্তিটাকে।

সেদিনের পর বেশ কয়েকদিন আর হোমায়রা কল দেয়নি। এর পর যখন দিয়েছে তখন নিজের দুই একটা কথা বলে রেখে দেয়। সুমু চাকরিতে ঢুকে একটু বেশিই ব্যস্ত হয়ে পড়েছে, খুব একটা সময় পায় না মায়ের সাথে গল্প করার জন্য ।

হিমেল সেদিন পেছনে দাঁড়িয়ে মায়ের আর হোমার কথপোকথনগুলো শুনেছিলো শেষ পর্যন্ত। কথাগুলোতে কি যে এক শান্তি লুকিয়ে ছিল তা ও বুঝাতে পারবে না কাউকে তবে উপলব্ধি করতে পেরেছিলো পুরোপুরি। সে রাতেই ও ওর বন্যকে কল দিয়ে সেই শান্তির পরশ ছুঁয়ে দিয়েছিলো ওর অন্তরে।
কথা বলতে বলতে একটা সময় লাবন্য কেঁদে ফেলে। হিমেলকে বলে
“জানো খালামনি একদিন এমন হবে তা সবসময়ই আম্মুর বিশ্বাস ছিলো। আম্মু বলতো খালামনির মনটা খুব নরম। তিনি মানুষকে ভালোবাসতে জানেন।সে নিশ্চয়ই একটা সময় আমাকে আপন করে নিবেন, আমাকে ভালোবাসবেন। আজ তোমার কথাগুলো শুনে বারবার আম্মুর কথাই মনে পড়ছে। আম্মু বেঁচে থাকলে আমাকে ডেকে বলতো দেখ লাভ আমি বলছিলাম না আপা তোকে একটা সময় গিয়ে মেনে নিবে। দেখেছিস তা সত্য হল।”

“কাঁদিস না, শুধু খালামনির জন্য দোয়া কর। দোয়া করা ছাড়াতো আর কিছু করার নাই। এভাবে খালামনি আমাদেরকে ছেড়ে চলে যাবে তা কে জানতো? আল্লাহর ইচ্ছা, তিনি যা ভালো মনে করেন তাই করেন। আমারা মানুষ অনেক ক্ষেত্রেই ভালো মন্দ সামনে থেকে দেখেও বুঝাতে পারি না !”

“মাঝে মাঝে ভাবি, খুব বেশি কি চেয়েছিলাম আল্লাহর কাছে? ”
“উঁহু, আল্লাহতো চাইতেই বলেছেন সেক্ষেত্রে কম আর বেশি কি?”
“তবে কেন আমার জীবনটা হঠাৎ করেই এমন এলোমেলো হয়ে গেল? শান্ত এই জীবনটা কেন এমন অশান্ত হয়ে ফুঁসে উঠল? কেন আমার সাজানো গোছানো স্বপ্নগুলো এতসব বিভৎস সময় পার করল? এমনতো হওয়ার কথা ছিলো না, ছিলো কি?”

“আবার সব অশান্ত গুলোকে শান্ত করে জমে থাকা ধূলাবালি ধুয়েমুছে নতুন করে গুছিয়ে নেওয়ার জন্য এমনটা হয়ে ছিলো মনে কর। এখন সব ঝকঝকে চকচকে হবে তোর স্বপ্ন গুলো। যার ঝলকানিতে, যার আলোতে সব অন্ধকার দূর হবে। সাথে আমিও আলোকিত হব, কি বলিস এটা মন্দ কি?”

“কিন্তু সেখানে যে আমার আম্মু নামের পুতুলটাই নাই। আম্মু ছাড়া সে স্বপ্ন যে অসম্পূর্ণই থেকে যাবে।”
“কিছু স্বপ্ন অসম্পূর্ণকে পূর্ণ বলে মেনে নিতে হয়। এভাবেই মেনে নেয় মানুষ, এরপর একটা সময় গেলে দেখে স্বপ্নটা আর অসম্পূর্ণ নাই কেউ না কেউ এসে তা পূর্ণ করে দিয়েছে। এটাই জীবন, এভাবে চলে । তুই আর আমি এর বাহিরে না। ভালোবাসা, আর বিশ্বাস দিয়ে নতুন করে সাজাবি এখন তোর স্বপ্ন যেখানে আমি নিশ্চিন্ত মনে ডুব দিতে পারব।”

“তুমি যেনো কেমন করে কথা বলো, আমি একটা ঘোরের মধ্যে চলে যাই।”
“ভালোবাসিস তা বললেই হয়, এত ঢং করিস কেন?”
“এই শুরু হল তোমার…”
“আমি কিছু চাইলেই তুই…”

“ভালোবাসা হয় না কভু তোমার আমার কথায়।
ভালোবাসা বসত করে ভালো মন পায় যেথায়।”
“উঁহু হলো না।”
“মানে?”
“ভালোবাসা হয় না কভু তোর আর আমার কথায়।
ভালোবাসা বসত করে হেথায়
যেথায় মনের সাথে মনের মিলন দেখতে পায়।”
“ওয়াও, গুরু ওয়াও।” দারুণ বলেছোতো বলে লাবন্য হিহিহি করে হেসে উঠল।
হিমেল চুপচাপ ওর বন্যের বাঁধ ভাঙা সেই হাসি মন ভরে শুনেছিল।

এদিকে নাজমুল সাহেব নিজের থেকেই লিখনের সাথে যোগাযোগ করলেন একদিন। কলটা দিতেই লিখন রিসিভ করল
“হ্যালো, আসসালামু আলাইকুম ভাই। ”
“ওয়ালাইকুম আস সালাম, কেমন আছো?”
“আলহামদুলিল্লাহ, ভাই আপনি আমাকে কল দিয়েছেন, আমিতো নিজেকে বিশ্বাস করতে পারছি না। ভাই বাসার সবাই ভালোতো? আপনি ভালো আছেনতো?”
“আলহামদুলিল্লাহ, আমরা সবাই ভালো, আর আরও ভালো থাকতে চাচ্ছি বলেই কলটা দিলাম। একটা জরুরি বিষয় নিয়ে কথা বলতে চাচ্ছিলাম তোমার সাথে ।”
“জি ভাই বলেন, বলেন ভাই আমি শুনছি।”
“সব কথা মোবাইলেতো হয় না। সাক্ষাতে বলতে হবে। তুমি বাসায় থাকো কখন? আমরা আসব কথা বলতে।”
“ভাই আপনি যখন আসতে চান বলেন আমি তখনই থাকবো বাসায়। ”
“ঠিক আছে সামনের শুক্রবার বিকেলে আসব।”
“ভাই বিকেলে কেন সকালেই আসেন। দুপুরে একসাথে খাব। আমাদের শাশুড়ি আম্মা খুব ভালো বিরিয়ানি রান্না করেন। একসাথে বসে খাবো।”

“না না না তাকে কষ্ট দেওয়ার দরকার নাই। আমরা বিকেলেই আসব, তুমি থেকো বাসায় তখন।” আর বিশেষ কিছু বললেন না। কলটা কেটে দিলেন নাজমুল সাহেব। কিন্তু অপরপ্রান্তে লিখনের মনে নানান রকম চিন্তার উদয় হতে শুরু করল তিনি বাসায় আসবেন শুনে, কখনও মনে হতে লাগল শুভ কিছুই হবে, যেমনটা ওর মেয়ে চায় তেমনটা। আবার মনে হতে লাগল, যেহেতু আপা বা তার মেয়েরা রাজি না এই সম্পর্ক নিয়ে তাই হয়তো কঠিন কিছু বলবে এসে। আড যদি ঘটনা তাই হয় তখন কীভাবে সামাল দিবে এই পরিস্থিতি? লাবুকে কীভাবে বোঝাবে? ওর মনের অবস্থা তখন কেমন হবে? এক আঘাত এখনও থকথকে আছে তার উপর আরেকটা বড় আঘাত কি মেয়েটা নিতে পারবে?এমন দোটানায় বেশিক্ষণ থাকতে পারল না নাজমুল সাহেবের কথাগুলো লাবন্যের নানিকে জানিয়ে দিল সাথে সাথে। কিন্তু তাতেও শান্তি মিলল না। সন্ধ্যা হতেই বাসায় ফিরলো বিষয়টা নিয়ে তার সাথে কথা বলার জন্য। লিখনকে দেখেই লাবন্যের নানি বুঝলেন ওর মনের অবস্থাটা। নামাজ পড়ে এই সময়তে কোরআন পড়েন তিনি বেশ কিছুর সময় নিয়ে কিন্তু আজ আর তা করলেন না। কয়েকপাতা পড়েই উঠে গেলেন।

চলবে

#মেঘে_ঢাকা_চাঁদ (পর্ব ৪৬)
সায়লা সুলতানা লাকী

“লিখন তোমাকে বেশ চিন্তিত বলে মনে হচ্ছে, নতুন কোনো সমস্যা হয়েছে কি?” লাবন্যের নানি চশমার গ্লাস পরিস্কার করতে করতে বসলেন লিখনের মুখোমুখি হয়ে।

“আম্মা নাজমুল ভাই আজকে কল দিয়েছিলেন, বললেন শুক্রবার বাসায় আসবেন কি নাকি জরুরি বিষয়ে কথা বলবেন তিনি। আমি খুব ভয় পাচ্ছি তার কলটা পাওয়ার পর থেকে। ” বেশ দ্রুত বলে দম ছাড়ল লিখন।

“আসবে আসুক, এতে এত ভয়ের কি আছে? লাবন্যের খালুজি ওদের দেখতে ওদের বাসায় আসতে পারেন না? তুমি অযথাই এত অস্থির হচ্ছো।”

“আম্মা বিষয়টা এত সহজ না। এমনি এমনি আসলে আর আমাকে বাসায় থাকতে বলতেন না। আর তিনি তো বললেনই বিশেষ কিছু কথা বলতে আসবেন।”

“আসুক, আসলেই জানা যাবে। শুধু শুধু ভয় পেয়ো না।”

“আম্মা, আমার লাবু যে হিমেলকে….. আম্মা এই রিলেশনটা আপা বা তার মেয়েরা কেউ পছন্দ করে না। আগে পরে রেশমা প্রায় খুব কান্নাকাটি করতো মেয়েটার ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে। অল্প বয়সের ভালো লাগা, এই সময়তই মন ভেঙে গেলে সামলাতে পারবে কি?”

“পারবে, তোমার বিয়ের পর নিজেকে সামলিয়েছে না? হিমেলের সাথেও যদি ওর বিয়ে না হয় তবুও ও নিজেকে সামলে নিবে। লাবু ভেঙে যাওয়ার মতো কোনো মেয়ে না।”

“না আম্মা ওকে বাহির থেকে যতটা শক্ত মনে হয় ও আসলে ততটা শক্ত না। ওর মনটা খুব নরম। ছোটবেলায় ওর পছন্দের কোনো জিনিস নষ্ট হলে খুব কাদঁতো। এটাতো খেলনা না ওর জীবন, ওর ভালোবাসা, ওর ভালোলাগা, ওর স্বপ্ন। এটা নষ্ট হলে ও সহ্য করতে পারবে না। ও সত্যি সত্যিই ভেঙে পরবে।”
“তো কি করতে চাও?”
“নাজমুল ভাইকে আর আপাকে যদি একটু বুঝিয়ে বলতেন…”

“মন থেকে যে সম্পর্কের প্রতি শ্রদ্ধা, ভালোবাসা, মায়া, স্নেহ না আসে, তাকে তুমি জোর করে ধরে বেঁধে দিলে সেটা টিকবে কি? আর তোমার মেয়েও এমন রিলেশনে যেতে চাইবে কি?”

“আম্মা আমি কিচ্ছু জানি না, আমি শুধু আমার মেয়েটার সুখ চাই। তার জন্য বলেন আমাকে কি করতে হবে। আমি তাই করব। আমার মাথায় কোনো বুদ্ধি কাজ করছে না। নিজেকে বড় হেল্পলেস লাগছে।”

“অপেক্ষা করো, আল্লাহকে ডাকো। দেখো তিনি লাবুর ভাগ্যে কি রেখেছেন।”

“আম্মা লাবু আমার আর রেশমার বড় সাধনার। এতটুকু কষ্টও পেতে দেইনি…..”

“সব বাবা মা’ই তাই করে, নিজের সর্বোচ্চ দিয়ে সন্তানের জন্য করে। তুমি তার বাহিরে কিছু করোনি।”

“হয়তোবা তাই ঠিক , কিন্তু এখন মনে হচ্ছে আমার উপর আমার সাথে রেশমার ভাবনাটাও যোগ হয়েছে। তাই হয়তো একটু বেশিই ভয় পাচ্ছি।”

“এত ভয় ভয় করো না। শুক্রবারের জন্য প্রিপারেশন নাও। ”
“আম্মা আমি আগামীকাল কিছু বাজার করে আনবো আপনি….”
“হুমম তাই কর, বাকিটা আমি দেখছি।” কথাটা শেষ করে নানি উঠে চলে গেলেন নিজের রুমে।

লিখনও উঠে ওর রুমে আসল। আলমারিটার যে পাশটা রেশমার, সেই কপাটটা ধরে দাঁড়িয়ে রইল কিছুক্ষণ। এপাশটায় অনেক সুখ দুঃখের স্মৃতি জমা আছে যা অনেকদিন ধরেই মনের মধ্যে নাড়া দিয়ে জাগিয়ে তুলছে কিন্তু সেই স্মৃতি স্পর্শ করে অনুভব করার ক্ষমতা হারিয়েছে এখন। কেন জানি হঠাৎ করেই চোখ ভিজে উঠল। মনে হল লাবন্যকে ডেকে চাবিটা চাইতে। পরে আবার মনকে থামিয়ে দিল, নিজের ইচ্ছেটাকে মাটিচাপা দিল।। সামনের দিনগুলোতে কি হয় তা এখনও অজানা এর মধ্যে লাবুকে রাগানো উচিৎ হবে না এমনটাই ভাবল। ঘরটার চারপাশ ঘুরে ঘুরে তাকালো আর একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলল। এই ঘরটার কোনায় কোনায় রেশমা মিশে ছিলো। প্রতিদিন ওর জন্য সেজেগুজে পরিপাটি হয়ে অপেক্ষা করতো রেশমা। সারাদিনের ধকল এক নিমিষেই শেষ হয়ে যেত রুমটায় ঢুকলেই। রেশমার মিষ্টি হাসিটা চোখে ভেসে উঠল। এতটা অস্থিরতা এর আগে আর অনুভব করে নাই লিখন। কেন যে এমন লাগছে তাই বুঝতে পারছে না। একটা সময় বিছানায় বসে দুই হাতের আজলে মুখটা ডেকে ডুকরে কেঁদে উঠল। বন্ধ দরজার ভেতর লিখন কাঁদছে, কেন কাঁদছে আজ তা ও নিজেও বুঝতে পারছে না।

“আজকে লিখন এখনও এ বাসায় আছে? কি হল ওর? ওই বাসায় কি আবার কোন সমস্যা হলো কি না? লাবন্যের নানি এশার নামাজ পড়ে ড্রয়িং রুমে এসে বসল লাবন্যের পাশে।

“হলে হলো তাতে আমাদের কি? ওসব নিয়ে অযথা তুমি ভাবছো কেন?” টিভি ওয়াচ করতে করতে লাবন্য উত্তর দিল।

“সবকিছু কড়ায়গণ্ডায় হিসাব করে চলে? না চাইলেও অনেক কিছু ভাবতে হয়।

“আমি ভাবি না। যে আমার জন্য ভাবে না তার জন্য আমি ভাবি না। যে আমার জন্য এক চিমটি আগায় আমি তার জন্য দুই হাত এগিয়ে যাই..”

“ইচ্ছে করছে তোর গালে একটা চড় বসাই খুব জোরে। রেশমা তোকে আসলেই মানুষ করতে পারেনি, বেশি লাই দিয়ে ফেলছে। কোনো কথা বলার আগে যে দুইবার চিন্তা করতে হয় তা কি জানিস? তোর বাপ তোর কথা ভাবে না তো কার কথা ভাবে? আজও বলল তোর সুখের জন্য ওর যা করতে হবে ও তাই করবে।”

“যদি ভাববেই তবে আম্মু মরতেই আমার সাপোর্ট হয়ে না দাঁড়িয়ে হুট করেই একটা বিয়ে করে আরও দূরে সরে গেলো কেন? ”

“ওর মাথায় তখন যা ভালো ঠেকছে তাই করছে। তোর বাপ একজন মানুষ, আর মানুষই ভুল করে। নিজের বাপ বলে যে তাকে তুই ফেরেশতা ভাববি তাতো তোর ভুল তোর বাপের না। ”

“তুমি সবসময়ই আব্বুর সাইড নাও কেন?”

“আমি কারো সাইড নেই না। যা সত্য তাই বলি। সেই সময়টাতে বিয়েটা করেছে বলেই হয়তো এখন ও তোদেরকে ভালো মতো সময় দিতে পারছে। ওর মায়ের জন্য আলাদা কোনো টেনশন কাজ করছে না। তোরা ছাড়াও ওর নিজের একটা জীবন আছে তা ভুললে চলবে কেন? তোরাই ওর সব জীবনটা তো আসলে তা না। প্রতিটা মানুষের আলাদা একটা ভূবণ থাকে যা তার একেবারে নিজস্ব। তুই শুধু নিজের স্বার্থই দেখছিস, তোর বাপেরটা একবার দেখ তাহলে আর কষ্ট থাকবে না।”

“এখন আর কষ্ট লাগে না। এখন কোনো কষ্ট নাই শুধু রুশকে নিয়ে একটু টেনশন হয়। ওর কী হবে? ও কি করবে ভবিষ্যতে? ওর পড়াশোনা সবকিছু নিয়েই খুব টেনশন হয়।”

“তুই টেনশন করলেই কি সব এমনি এমনি হয়ে যাবে? যাবে না। এগুলো আল্লাহর উপর ছেড়ে দে। তিনি যা ভালো মনে করেন তাই করবেন। অযথা বেশি ভাবিস না। বর্তমানকে সুন্দর করতে চেষ্টা কর। আল্লাহর উপরে পুরোপুরি ভরসা রাখ তিনি উত্তম অভিভাবক। যা করবেন তা ভালোই করবেন।”

“তুমিও খুব টেনশনে আছো, ঘটনা কি বলোতো?”
“মানে?”
“টেনশনে আছো কেন তাই বলো।”

“শুক্রবার রেহেনারা আসবে, কি বলবে তাই নিয়ে টেনশন করছে তোর বাপ।আমি টেনশন করছি না।”

“এতে টেনশনের কি আছে? আসবে হয়তো তোমাকে দেখতে।”
“না, লিখনকে বলছে বাসায় থাকতে। আমাকে দেখতে আসলে ওকে থাকতে বলতো না। ও ভাবছে ওরা আসবে তোর আর হিমুর বিষয়ে কথা বলতে। ”

“ইন্না-লিল্লাহ, তাই নাকি? বিয়ে সংক্রান্ত কথা? আমি আগেই বলে রাখছি আমি কিন্তু এখনই বিয়ে করব না। রুশকে মাঝপথে রেখে আমি বিয়ে করতে পারব না।”

“কি আশ্চর্য, তুই এত বেশি বেশি ভাবছিস কেন? তোরা না এক এক জন যা বোঝার তার চেয়ে দশ লাইন বেশি বুঝিস।” কথাটা শেষ করেই নানি উঠে নিজের রুমে চলে গেলেন।

রুমে এসেও স্বস্তি পেলেন না লাবন্যের নানি। তার মনে খচরখচর করতে লাগল নানান প্রশ্ন। লাবন্য আগে পিছে কিছু চিন্তা না করে ওদের আসাটাকে সরাসরি বিয়ে পর্যন্ত চিন্তা করে ফেলছে। এদিকে যদি রেহেনা বেগম তার মেয়ের কথায় হিমুর অন্য কোথাও বিয়ের কথা বলতে আসে তবে লাবুর মনের অবস্থা কি হবে তাতো সত্যি সত্যিই বড় চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়াবে । রেশমাও নেই যে ও ওর মেয়েকে সুন্দর মতো সামলে নেবে। সবটাইতো এখন তার দায়িত্ব। ঠিকমতো পারবেনতো সামলাতে? একবার ভাবলেন একটা কল দিয়ে রেহেনার সাথে কথা বলতে, কি বিষয়ে কথা বলতে আসতে চেয়েছে নাজমুল। আবার মতের পরিবর্তন করলেন। কারন এতে হিতে বিপরীতও হতে পারে। রেহেনা তার কলটাকে ইতিবাচকভাবে নাও নিতে পারে। হিমুকে কিছু জানাতে মন চাইলো না, ছেলেটা একা একা পুরো পরিবারের সাথে লড়ছে বন্যকে আপন করে নিতে। এখন ওর মায়ের সাথে নরম ব্যবহারটাই দরকার ওর, কোনো উলটা পালটা হলে আবার মায়ের সাথে রাগারাগি করবে তাতে রেহেনার শরীরটাই খারাপ হবে। এসব আবোল তাবোল ভেবে ভেবে অস্থির হয়ে উঠলেন তিনি।

রাতে হিমেল কল দিতেই লাবন্য রিসিভ করল
“হ্যালো”
“হুমম, মনে হল কলের অপেক্ষায় ছিলি?”
“ততো সবসময়ই থাকি। আগে কল বেশি দিতে এখন দেওতো সময় মেপে মেপে। চাকরির অযুহাত দিয়ে পালিয়ে বেড়াও।”
“হুমম, পরকীয়া করি।”
“মানে? পরকীয়া কাকে বলে তা জানো?”
“হুমম জানি। তোর চেয়ে ভালোই জানি।”
“বাদ দাও, তোমার সাথে তর্ক করে গাধায়, আমি না। আসল কথা বলি, খালুজি নাকি বাসায় আসবেন আব্বুকে থাকতে বলেছেন সেদিন।”
“হুমম, আমাকেও বলেছে।”
“আমি কিন্তু আগেই বলে রাখছি আমি এখন বিয়ে টিয়ে করব না।”
“মানে কি?”
“আশ্চর্য! তুমি জানো না আম্মু যে রুশের দায়িত্ব আমাকে দিয়ে গেছে? ওকে এমন একা রেখে আমি বিয়ে করি কীভাবে? আমি স্বার্থপর, তাই বলে এতটা না। ”
“শোন তুই মোটেও স্বার্থপর না, রুশ তোর ভাই যেমন তেমন আমারও ভাই। রুশ কখনও একা না। মন থেকে এমন চিন্তা ঝেড়ে ফেল। ওর সাথে সবসময়ই তুই আর আমি ছিলাম আছি আর থাকব।”

“তুমি বাসায় বলবে এখন বিয়ের কথা যেনো কেউ না বলে। সময় লাগবে আরও। ”

“তোর নয়তো বিয়েটা এখন লাগবে না, কিন্তু আমার যে বৌটা এখন লাগবে। বলতো এখন কি করি?”

“এটা আবার কেমন কথা হলো? তোমার আবার এখনই বৌ লাগবে কেন? প্রতিরাতে চুটিয়ে প্রেম করছো তাতে মন ভরে না? এত বৌ বৌ করছো কেন? লক্ষ্মণতো সুবিধার না তোমার।”

“আম্মু অসুস্থ তাই আর ডাকি না। সকালে অফিসের জন্য প্রতিদিন লেট হয়। আব্বুর ইনসুলিন নাস্তা সব গুছিয়ে বের হতে হতে লেট হয়ে যায়। আর নিজের কথাটা না হয় আর নাই বললাম।”

“তোমরা পুরুষরা সব এক। নিজের সুবিধার জন্য বিয়েটা কর। এখন তোমার বাসায় দরকার তাই বৌ দরকার। এটা কেমন কথা? তোমারতো আসলে একটা বৌ না বাসার প্রয়োজনে একজন কেয়ারটেকার দরকার।”

“এইতো এতক্ষণে খেপছে পাগল। এতক্ষণ কেমন ন্যাকা ন্যাকা হয়ে কথা বলছিলি তাই জায়গা মতো খোঁচা দিলাম। এখন আসল চেহারায় ফিরছিস।”

“মানে কি?”
“তোর জন্য একটা শাড়ি অর্ডার করেছি। শুক্রবার পরিস। ফুলের মালা দিবো নাকি ফুল?”
“শাড়ি পরব না, কেমন বৌ বৌ লাগবে।”

“তাহলে কি পরবি জিন্স কুর্তা? আম্মুকে আবার রাগাতে চাস? এমনি আম্মু বলে তোর মধ্যে মেয়েলি ভাব কম।”

“আমি যেমন তেমনটাইতো পাবা। খালামনিকে খুশি করতে মিথ্যামিথ্যি সাজবো? আমাকে দিয়ে তা হবে না। আমি ভন্ড না।”

“আচ্ছা যা তুই তোর মতোই থাক। লাগবে না তোর কিছু করতে। শুধু মাথাটাই ঠান্ডা রাখিস। বাকিটা আল্লাহর উপর ছেড়ে দিলাম।”

“হোমা আপুর কোনো মন্ত্র না নিলেই হবে, দেখো খালামনি আমার আমিতেই খুশি থাকবে।”

“আম্মু এখন কারো কোনো কথা শুনে না। ”

“তুমি কি পরে আসবে?”
“আমি আসবো না।”
“ধুর, তাহলে আর সাজবোই না। ”
“কেন সাজবি না। তুই না শুধু তোর জন্য সাজিস? তুইতো কখনও আমার জন্য সাজিস না তাই না?”

“হুমম, আমি সব সময়ই আমার জন্য সাজি, তবে মাঝে মধ্যে কেউ একজন ভালোবাসার দৃষ্টি দিয়ে আমার সাজ দেখে আর বেহায়ার মতো করে হাসে তা দেখতে আমারও ভালো লাগে। মনে হয় তার জন্য রোজ রোজ সাজি।”

“সত্যি সত্যিই সাজবি? রোজ রোজ? খালামনির মতো করে? কেউ একজন আমার জন্য তার মনের ভালোবাসার মাধুরি মিশিয়ে সেজেগুজে বসে অপেক্ষা করবে আর আমি সেই টানে ছুটির আগেই ছুটতে শুরু করব বাসার দিকে। ইশশশ কবে যে সে দিন আসবে? কবে যে সেই স্বপ্ন আমার পূর্ণ হবে? ”

“শুরু হলো তোমার স্বপ্ন দেখা।”
“এই স্বপ্নগুলো হল অক্সিজেনের মতো। জীবন বাঁচায়। স্বপ্ন শেষ, জীবনও শেষ। ”
“ইন্না-লিল্লাহ, কি কঠিন কথা। এই তুমি এমন সব কথা বলো নাতো ভালো লাগে না। দেখো তুমি দিনরাত চব্বিশ ঘণ্টাই স্বপ্ন দেখো বেশি বেশি স্বপ্ন দেখো, তবুও বেঁচে থাকো। আমার সব ভালোবাসাই যদি একে একে মরে যায় তবে আমি বাঁচবো কেমন করে?” কথাটা বলেই লাবন্য কেঁদে ফেলল।

“কাঁদিস নাতো বোকা, আমিতো এমনি এমনি বললাম। আরে বোকা একটা মেয়ে, কথা না বুঝেই কাঁদে। এত তাড়াতাড়ি কে মরতে চায়? তোকে নিয়ে অনেক দূর পাড়ি দেওয়ার বড় স্বাদ যে মনে পুষে আছি।” বলে হা হা হা করে হাসগে লাগল

চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here