বিবি,পর্ব (৪২)

0
102

#বিবি,পর্ব (৪২)
#রোকসানা_রাহমান

হোস্টেল থেকে ফেরার পথে বাবাকে কল করেছিল কোমল। অনড়ার খোঁজ চাইলে তিনি সঙ্গে সঙ্গে কোনো তথ্য দিতে পারলেন না। বলে রাখলেন সন্ধ্যার পর জানাবেন। ঠিক সন্ধ্যায় জানাতে না পারলেও তার কিছু সময় পর জানিয়েছিলেন, অনড়া নানির সাথে গ্রামেই আছে। কোমল যেন হাঁপ ছেড়ে বাঁচল! দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি পেল। জমিলা বেগম বয়োঃবৃদ্ধ মানুষ। বছরের পর বছর গর্ভিনীদের সঙ্গে সময় কাটিয়ে ভালোই অভিজ্ঞ হয়েছেন। অনড়ার দেখভাল তার চেয়ে অধিক ভালো আর কে করতে পারবে! এই ঘটনার প্রায় একমাস পরের এক রাতের বেলা। নিবিড় রাতের খাবার শেষ করে শয়নকক্ষে বিশ্রাম নিচ্ছিল। সহসা মায়ের চেঁচামেচির হালকা সুর এসে বিঁধল কর্ণকুহরে। সে কৌতূহলবশত উঠে বসল। ধীর ও শব্দহীন পদধ্বনিতে এগিয়ে গেল মায়ের রুমটির কাছে। দুয়ারে পৌঁছানোর পূর্বেই বুঝতে পারল কোমলকে বকাবকি করছে কোনো এক বিষয়ে। শাশুড়ির প্রতি যার প্রাণ ত্যাগ পরিমাণের শ্রদ্ধা, সম্মান, ভালোবাসা সে ঠিক কোন অপরাধে এমন রুক্ষস্বরকে সয়ে নিচ্ছে তা জানার তীব্র আকাঙ্খা তৈরি হলো। বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হলো না। কুলসুম নাহার ধমকাধমকির মধ্যেই পুনঃবার প্রকাশ করে ফেললেন। তার ভাষ্যমতে, বেশ কিছুদিন ধরেই কোমলকে বলছিলেন, তিনি গ্রামে যাবেন। অনড়াকে সাথে নিয়ে স্বামীর ভিটেতে থাকবেন। অতঃপর নাতি- নাতিনের মুখ দেখে তাকে সঙ্গে করে তবেই ফিরবেন। এ কথাটা যেন নিবিড়ের কানে দেওয়া হয়। তাকে রাজিও করানো হয়। কোমল তার এই আদেশটুকু শিরোধার্য করছে না। কেন করছে না তার কারণও প্রকাশ করছে না। চুপচাপ অবনত হয়ে শাশুড়িমায়ের বকা শুনছে, ধমক খাচ্ছে। তার এই ধৈর্য্য ও নিশ্চুপতা তিনি বেশি সময় সহ্য করতে পারলেন না। গলার স্বর পূর্বের চেয়ে উচ্চতর হতেই নিবিড় দুয়ার থেকে কঠিন ও দৃঢ়স্বরে বলল,
” গ্রামে যেতে চাও? চলো, আমি দিয়ে আসছি। শুধু জেনে রাখ, তোমার সাথে এটা আমার শেষ দেখা হবে। ঢাকাতে কাটানো তোমার শেষ রাত। ভেবে নিও, তোমার ছেলে মারা গেছে। ”

কুলসুম নাহারের পিল চমকে ওঠল। কলিজা কামড়ে ধরল বুঝি কোনো বিষাক্ত পোকা! বিস্ফারিতনেত্র মেলে বিস্মিত স্বরে বললেন,
” মায়ের লগে সম্পর্ক ছিন্ন কইরা দিবি? ”
” সে যদি চাই তাহলে অবশ্যই দিব। সন্তান হিসেবে তো আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য। ”

কথা দুটো বলেই নিজকক্ষে ফিরে গেল। মায়ের সেই চেঁচামেচি আর শোনা যাচ্ছে না। কানদুটো একটু আরাম পেতেই চোখ বুঝে নিল পরম স্বস্থিতে।

___________
ভোরের আলো প্রকৃতি ছুঁয়ে ঘরের মধ্যে অবাধে প্রবেশ করতেই ঘুম ভাঙল কোমলের। চোখ মেলে দেখল, চারপাশ ফর্সা, স্পষ্ট। নিবিড়ের নামাজ শেষ। মোনাজাতে বসে আছে। বিবাহের পর থেকে সবসময় সে নিবিড়ের পরে ঘুম থেকে উঠে। আজও তেমনটাই ঘটেছে। তবুও তার মনখারাপ হলো। আগে নিবিড় তার চোখদুটিতে আদর করত। তারপর অত্যন্ত মিষ্টি ও কোমল স্বরে ‘ বিবি ‘ বলে ডাক দিত। এখন তেমনটা হয় না।

নিবিড় নামাজ শেষ করে উঠতেই কোমল হালকা স্বরে বলল,
” সেদিন যদি শর্ত ভেঙে বিয়ে না করতে তাহলে আমাদের পথ চলা এত দূর অবধি হতো না। তোমার মন ও বিবেক দুটোই আমাকে অযোগ্য প্রমাণ করে গোপন ও দুর্বল সম্পর্কটা ছিন্ন করে দিত। এখন আমরা দুটো আলাদা পথের পথিক হতাম। ”

জায়নামাজ এক ভাঁজ করে স্ত্রীর কোলে রাখল নিবিড়। তার নিচু দৃষ্টির দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি ছুঁড়ে বলল,
” তখনও অযোগ্য ছিলে না, এখনও না। তোমার যোগ্যতা রূপে নয়, বয়সেও নয়, শুধুমাত্র গুণে। যেটা এখনও বহাল আছে। আমার কষ্টটা অন্যখানে যেটা তোমার খুব ভালো করেই জানা। তারপরও নিজেকে ছোট বানাচ্ছ? ”

কোমলের দৃষ্টি উঁচু হলো। স্বামীর চোখের দিকে চাইতেই মনিদুটো অশ্রুতে ডুবে গেল। নিবিড় সেই দৃষ্টিকে গ্রহণ করতে পারল না। অন্যদিকে চেয়ে বলল,
” নামাজ পড়ে নেও। ”

নামাজ শেষ করে বাইরে বেরুতে ইচ্ছে হলো না। স্বামীর পাশে বসল। আপনমনে বলল, ‘ সাত মাস হতে চলল অনুর সাথে কথা বলছি না। কোনো রকম যোগাযোগ রাখছি না। এতে কি তোমার কষ্ট কমেছে? আমাকে কাছে টেনেছ? দূরত্ব কমার বদলে বেড়েই চলছে শুধু! ‘ বুকের খুব গভীর থেকে একটা ভারী নিশ্বাস বেরিয়ে আসতে শুনতে পেল,
” তোমার বাবা অসুস্থ? ”

কোমল উদাসভাব কাটিয়ে উত্তর করল,
” হ্যাঁ, একটু। ”
” একটু অসুস্থতার জন্য দুইদিন হাসপাতালে ভর্তি ছিল, তাই না? ”

কোমল নিরুত্তর থাকলে সে আবার বলল,
” তোমার বাবা তোমাকে দেখতে চাচ্ছেন, যাচ্ছ না কেন? ”
” তোমাকে বলা হয়নি তাই। ”
” বলোনি কেন? যে কথাটা তুমি বললেই হতো সেটা তোমার মায়ের কাছ থেকে শুনতে হয়েছে। ”

কোমল এবারও চুপ থাকলে সে একটু জোরাল স্বরে বলল,
” আমার উত্তর চাই, কোমল। ”
” গ্রামে তো অনুও আছে। আমার মনে হয়েছিল, বাবার অসুস্থতার কথা বলে যেতে চাইলেও তুমি ভাববে আমি অনুর সাথে দেখা করতে চাচ্ছি। ”

নিবিড় প্রত্যুত্তরে চুপ থাকল। স্ত্রীর দিকে কয়েক মুহূর্ত চেয়ে থেকে আহত স্বরে বলল,
” তুমি আমাকে অবিশ্বাস করছ বলে ধরে নিলে, আমিও তোমাকে অবিশ্বাস করব? যে ভালোবাসার জোরে আমি এখনও শক্ত আছি সেই ভালোবাসার সৃষ্টির মূলেই তো তুমি! তোমাকে অবিশ্বাস করা মানে আমার ভালোবাসাকে অবিশ্বাস করা। এইটুকু বোধও তোমার হয়নি? কোমল, আমাকে এমন করে নিরাশ করো না। আমার সেই পুরোনো কোমলকে ফিরে পাব বলে খুব আশা করে আছি। ”

কোমল অবোধের মতো চেয়ে থাকলে নিবিড় পুনরায় বলল,
” নাস্তা সেরে তৈরি হও। ”

___________
মোল্লাবাড়িতে পা রাখতেই নিবিড়ের হাবভাব বদলে গেল। কঠিন ব্যবহার নরম হলো। গম্ভীর মুখে এক ঝলক আনন্দের প্রলেপ পড়ল স্থায়ীভাবে। মলিন ওষ্ঠদ্বয়ে এক ফালি হাসি লটকে রইল সারাক্ষণ। কোমলের সাথে দুষ্টু মিষ্ট কথাও চলল মাঝেমধ্যে। স্বামীর এই পরিবর্তনে কোমলের গত হওয়া দুর্দম বেদনাকে ভুলে অনড়াকে দেখতে যাওয়ার আবদার করে বসল। নিবিড় এক মুহূর্ত নীরব থেকে বলল,
” যাও। কিন্তু বেশিক্ষণ থাকা চলবে না। ”

কোমল কৃতজ্ঞতায় গলে পড়ে বলল,
” আচ্ছা, যাব আর আসব। ”

অনড়াকে দেখতে গিয়ে আরেক বিপত্তি ঘটল। সে কিছুতেই দেখা করবে না। ভেতর থেকে দরজার খিল আটকে আছে। কোমলের সাথে জমিলা বেগমও অনেক ডাকাডাকি করলেন। একসময় বাধ্য হয়ে বললেন,
” তুমি চইলা যাও, পরে আমি বুঝাইয়া তোমার কাছে নিয়া যামু নে। ”

কোমল সেই কথা মানল না। তার মনে হলো, আজ দেখা না হলে কোনোদিন হবে না। এখানে কতদিনের জন্য আছে, জানে না। নিবিড় যদি বলে আজই চলে যেতে, তাহলে তাকে যেতেই হবে। তাই জেদ ধরে বলল,
” আমি আজই দেখা করব, নানি। সবসময় এমন করলে চলে? ঢাকা থেকে আসার সময় আমাকে বলে আসেনি। ও কি জানে না, ওর জন্য বুবুর কত চিন্তা হয়? ”

কোমল দরজায় বিরতিহীন আঘাত করতে থাকলে অনড়া দরজা খুলে দিল। বুবুর দিকে না তাকিয়ে বিছানায় গিয়ে আধশোয়া হলো। অনড়ার আপাদমস্তক পর্যবেক্ষণ করতে করতে ভেতরে ঢুকল। ওর কোমরের কাছে বসে বলল,
” তোর দেখি শুধু পেটটাই ফুলেছে রে অনু! আমার তো পুরো শরীরটাই ফুলে গেছিল। এমনি কালো তখন আরও কালো হয়ে গেছিলাম। যে দেখেছে সেই বলেছে, আমার ছেলে হবে। ”

কথাটা মজা করে শুরু করলেও শেষটায় হৃদয় ভার হয়ে আসল। হঠাৎ করে মনে পড়ল, তার ছেলে হয়েছিল নাকি মেয়ে হয়েছিল জানা-ই হয়নি। গোপন শোক কাটিয়ে আবারও প্রফুল্লচিত্তে বলল,
” বাচ্চা নড়ে তো ঠিকমতো? ”

অনড়া সংক্ষেপে উত্তর দিল,
” হ্যাঁ। ”
” অন্য কোনো সমস্যা নেই তো? থাকলে বল। বাচ্চার বাবাকে ডেকে আনি। সে তো এখন পুরোপুরি ডাক্তার। প্রাইভেট হসপিটালে ভিজিটে রোগী দেখছে। কয়েক দিনের মধ্যে নিজস্ব চেম্বারও খুলে বসবে। ”
” ডাকলে আসবে? ”

অনড়ার প্রশ্নটায় কোমলের ঠোঁটের হাসিটা মিলিয়ে গেল। অপ্রতিভ হয়ে বলল,
” আসবে না কেন? অবশ্যই আসবে। ”
” মিথ্যা সান্ত্বনা দিচ্ছ কেন, বুবু? ”

অনড়ার হাত ধরে একটু কাছে ঘেষে বসল। বামহাত গালে রেখে নরম স্বরে বলল,
” বাবুটা পৃথিবীতে আসুক। দেখবি সব ঠিক হয়ে গেছে। বাবুর বাবা নিজ থেকে তোকে ঐবাড়িতে নিয়ে যাবে। ”
” স্ত্রীর মর্যাদা দিবে? ”
” হ্যাঁ। ”
” তোমার মতো বিবি বলে ডাকবে? ”

কোমল একটু সময় নিয়ে বলল,
” দুজনকে বিবি ডাকলে তো সমস্যা। একজনকে ডাকলে অন্যজন চলে আসব। তাই তোকে ছোটবিবি ডাকবে। ”
” আমি তার ছোটবিবি না একমাত্র বিবি হতে চাই, বুবু। যত দিন না হচ্ছি ততদিন তার সংসারে পা রাখব না৷ ”

ছোট বোনের এমন সিদ্ধান্তে তার বুক কেঁপে উঠল। এক মুহূর্তের জন্য মনে হলো, অনড়া তাকে নিবিড়ের জীবন থেকে সরে যেতে বলছে। সে থাকলে তো একমাত্র বিবি হওয়া সম্ভব নয়!

” কোমল? তোমার জামাই আইছে। বাইরে ডাকে। ”

জমিলা বেগমের দিকে তাকিয়ে সন্দেহিসুরে বলল,
” ও সত্যি এখানে আসছে, নানি? ”
” হ, ঐ তো উঠোনে দাঁড়াইয়া আছে। ”

কোমল আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে বলল,
” বাইরে দাঁড়িয়ে আছে কেন? ভেতরে আসতে বলেন। ”
” কইছি। আহে না। ”

সে নিজেই উঠে বাইরে গেল। নিবিড়কে কিছু বলার সুযোগ না দিয়ে ভেতরে টেনে আনল জোর করে। অনড়ার সামনে দাঁড় করিয়ে বলল,
” ওর মুখ দেখ, কী সুন্দর হয়েছে! আমার তো মনে হয় মেয়ে-ই হবে। তুমি চেয়েছিলে না আমাদের একটা মেয়ে হোক? ”

নিবিড় দাঁতে দাঁত চেপে বলল,
” আমাদের বলেছিলাম। অন্য কারও না। চলো এখান থেকে। ”

কোমলের হাত ধরার পূর্বে সেই নিবিড়ের হাত ধরে ফেলল। অনড়ার বর্ধিত পেটে রেখে বলল,
” দেখ তো বাবু নড়ছে নাকি। ”

নিবিড় ঝটিতে হাত সরিয়ে নিতে গিয়েও থেমে গেল। দৃষ্টি চলে গেল অনড়ার মুখে। সেখানে স্থির রেখে জায়গা বদল করে পেটে হালকা চাপ দিল কয়েকবার। মুহূর্তেই রাগ উবে গেল। চৌকস হেসে বলল,
” কোমল, তুমি যদি চাও বোনের সাথে থাকতে পার কিছুদিন। ”

কোমল বিস্মিত নয়নে চেয়ে বলল,
” সত্যি? ”

অনড়ার থেকে দৃষ্টি সরিয়ে নিল। মৃদু হেসে বলল,
” হ্যাঁ। আমি তো চাইব, ডেলিভারি হওয়া পর্যন্ত থাকো। ”

কোমল সত্যি সত্যি থেকে গেল। অনড়া শত আপত্তি দেখালেও মানল না। নিবিড় নিজ উদ্যোগে তার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সেখানে দিয়ে আসল। সাথে এটাও বলে আসল, ডেলিভারীর ব্যথা শুরু হলে তাকে যেন অবশ্যই জানায়।

প্রথম কয়দিন কোমলের উপস্থিতিতে বিরক্ত দেখালেও একটা সময়ে গিয়ে মেনে নিল অনড়া। দুই বোন একসাথে ঘুমাতে শুরু করল। মাঝরাত অবধি গল্প চলল, আড্ডা চলল। বোন ঘুমিয়ে যাওয়ার পর কোমল ঘুমাত। এমন করেই চলল কয়েক রাত। ঠিকঠাক, স্বাভাবিক। এই স্বাভাবিকতা ভেঙে দিল এক ভোরে। বাচ্চার কান্না শুনে ঘুম ভাঙল কেমলের। চোখ মেলে উঠে বসতে দেখল, জমিলা বেগমের কোলে সদ্য জন্ম নেওয়া একটি শিশু। সে অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করল,
” এটা কার বাচ্চা, নানি? ”

তিনি একটুক্ষণ চুপ থেকে আচমকা বললেন,
” আমাগো অনড়ার। ”

কোমল ঝটিতে তাকাল অনড়ার দিকে। সে ঘুমাচ্ছে। চারপাশ বেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। আতুরনিবাসের ছিঁটে-ফোটাও নেই কোথাও। সবিস্ময়ে বলল,
” কখন হলো? আমি তো কিছুই টের পেলাম না! ”

জমিলা বেগম নাতির কাছে ছুটে এলেন। কোলের কাছে বাচ্চাটাকে রেখে মৃদু স্বরে ডাকতে লাগলেন। সে লাফিয়ে উঠতে বলল,
” তুমি তো ঘুমাইছিলা, তাই বুঝতে পারনি। ”

কোমল কিছু বুঝে উঠার পূর্বে তিনি তাড়া দিয়ে বললেন,
” তুমি একটু বাইরে যাও তো। অনুরে ভালা কইরা পরীক্ষা করি। ভেতরে কিছু থাইকা গেল নাকি! ”

তাকে ঠেলতে ঠেলতে বের করে দিলেন। দরজা লাগানোর পূর্বে হাতে মোবাইল ধরিয়ে দিয়ে বললেন,
” তোমার শাশুড়ি রে শুভ সংবাদটা দেও। ”

কোমল অনেকটা ঘোরের মধ্যে থেকেই নিবিড়ের নাম্বারে কল দিল। সে সংবাদটা শুনে খুশি হওয়ার বদলে রেগে গেল। রাগান্বিত স্বরেই বলল,
” একটা কাজ দিয়ে এলাম সেটাও করতে পারলে না! ”

বলেই কল কেটে দিল। কোমল থতমত খেয়ে বাইরে বসে পড়ল। কী হচ্ছে কিছুই বুঝতে পারছে না যেন! সবকিছু কেমন স্বপ্নের মতো দ্রুত ঘটে যাচ্ছে। নিবিড়-ই বা কী কাজ দিয়েছিল তাকে?

এই স্বপ্নের মধ্যে আরও দুদিন কেটে গেল কোমলের। নিবিড় আসেনি। মোবাইল বন্ধ করে রেখেছে। বাধ্য হয়ে বাবাকে ঢাকা পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিতে আরেক ঘটনা ঘটে গেল। অনড়া বাচ্চা রেখে কোথাও চলে গেছে। জমিলা বেগমকে জিজ্ঞেস করতেই তিনি একটা কাগজ ধরিয়ে দিলেন। সেখানে শুধু একটা শব্দ লেখা, ‘ গুরুদক্ষিণা। ‘

কোমল কয়েক মুহূর্ত সেখানে চেয়ে থেকেই যেন তার মস্তিষ্কের জোট খুলে গেল। বাচ্চাকে জমিলা বেগমের কাছে রেখে বিকেলের বাসে করে ঢাকা ছুটল। সোজা গিয়ে ওঠল সুমনার বাসায়। অনড়ার দর্শন পেয়ে সরাসরি জিজ্ঞেস করল,
” আমার হাতে মার খেয়েছিস কখনও? ”
” না। ”
” যদি খেতে না চাস, তাহলে এখনই সব সত্য বলবি আমায়। ”

চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here