প্রেমালয় পর্বঃ_৩

0
189

প্রেমালয় পর্বঃ_৩
#মেহেদী_হাসান_রিয়াদ

শিশির ভয় মিশ্রিত চোখে মুগ্ধর দিকে তাকালো। ঠোট ফুলিয়ে বললো,
– আচ্ছা থাকুন। আপনার ফোন টা একটু দেওয়া যাবে?
– সরি, ফোন নাম্বার নাও এর পর ফোন দিয়ে ফ্রেন্ডশিপ করো, কথা বলো, ইম্প্রেস করার চেষ্টা করো, এক সময় সাক্সেস হয়ে জুটিয়ে প্রেম করো, আমাকে দিয়ে এইসব হবে না বোন। কাল সকাল অব্দিই আছি। এর পর তোমার রাস্তায় তুমি আর আমার রাস্তায় আমি। ওকে?
– এক্সকিউজ মি. আমি শুধু ফোন টা চেয়েছি, আমার ফ্রেন্ডকে কল দেওয়ার জন্য। ফোন নাম্বার না। কি ভাবেন নিজেকে?
– ওয়েট ওয়েট, আপনি কিন্তু রেগে যাচ্ছেন। কথায় আছে না, রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন? এখন এখানে আমার হ্যাল্প ছারা আপনি শুন্য।
– হেল্প করে আবার খোটা দিচ্ছেন আমায়?
– এই না না, একধম না। আপনাদের মেয়েদের একটাই দোষ, বুঝাই একটা আর বুঝেন একটা। আচ্ছা যাই হোক, ঝগড়া করবেন না। ইটস আই ডোন্ট লাইক। টেইক ইট।
মুগ্ধর হাত থেকে ফোন টা নিয়ে মাহিমাকে ফোন দিলো শিশির।
– হ্যালো, মাহিমা আমি শিশির।
– এই কোথায় তুই?
– আমি হসপিটালে।
– হসপিটালে মানে? কি হয়েছে তোর? আর কিভাবে কি হলো?
– তোকে বাসায় এসে সব বলবো।
– কোন হসপিটালে, আর কে আছে তোর সাথে? কিছু চিনিস এখানে?
– একটা ভাইয়া আছে সাথে, সে ই আমায় এখানে নিয়ে এসেছে। তুই টেনশন নিস না। খেয়েছিস?
– তোর টেনশনেই শেষ আবার খাওয়া।
– আচ্ছা খেয়ে ঘুমিয়ে পর, আমি ভালো আছি, বায়।

মুগ্ধর দিকে ফোন টা বাড়িয়ে দিলো শিশির। মুগ্ধর দিকে তাকিয়ে ববলো,
– একটা প্রশ্ন করি?
– হুম,
– আপনার ফোনের ওয়েল পেপারে যে,,,,,,
– হুম, আমার ফ্যামিলি ফটো।
– ওহ্,,
– আপনার নাম টাই তো জানা হলো না।
– জ্বি শিশির,,,
– কি করেন আপনি?
– স্টাডি, এবার অনার্সে ভর্তি হলাম। আপনি?
– আমি মুগ্ধ।
– সরি, মুগ্ধ মানে বুঝলাম না।
– আমার নাম।
– ওহ্,, বলেই একটু হেসে দিলো শিশির।
– তো রাস্তায় গাড়ির নিচে কোন দুঃখে এসেছিলেন? সুইসাইড করার প্ল্যান আছে নাকি?
শিশির হেসে দিলো,
– হা হা, ডিম নিতে বেড় হয়েছিলাম।
– তার মানে সন্ধায় ও কিছু খান নি? ইশ আমার তো খেয়াল ই নেই বিষয় টা। আপনি একটু বসুন আমি বাইরে গিয়ে দেখি কিছু পাই কি না।
– আরে না না, দরকার,,,,

এতো রাতে প্রায় সব দোকান পার্ট ই বন্ধ। তবুও কিছু দুরে বড় রেস্টুরেন্ট গুলো মাঝে মাঝে দু একটা খোলা দেখা যাচ্ছে। একটা সস্থির নিশ্বাস ফেললো মুগ্ধ। এবার খাবার পাওয়া গেলেই হলো।
দরজা খুলে ভেতরে প্রবেশ করে মুগ্ধ। শিশির তখন বেডের সাথে আধ সোয়া হয়ে বসে আছে। হাত আর মাথা বেন্জেজ করা।
মুগ্ধ খাবার টা শিশিরের পাশে রেখে বললো,
– এতো রাতে এতোগুলো রেস্টুরেন্ট ঘুরে একটাতেই পেলাম খাবার। তারাতারি খেয়ে নিন। এর পর ঔষধ নিয়ে শুয়ে পরবেন।

শিশির কিছু বলছে না। চুপ করে মুগ্ধর দিকে তাকিয়ে আছে। ছেলেটা কেমন সন্দেহ জনক। প্রথম পরিচয়েই এতো কিছু করছে। আচ্ছা এই খাবারে আবার কিছু মেশানো নেই তো?

মুগ্ধ খেয়াল করলো শিশিরের হাত বেন্ডেজ করা। যতই ‘ধরি মাছ না ছুই পানি’ এভাবেই বাচতে চায়, ততোই যত পানিতে নামে ততোই ভিজে যাচ্ছে সে।
– ক্যান আই হ্যাল্প ইউ?
– নো থ্যাংক্স, আমি খাবো না।
– ভয় পাবেন না কিছু মেশাইনি।
একটু অবাক হলো শিশির, কথা গুলো সে শুনে ফেলেনি তো?

শিশিরের মুখে খাবার তুলে দিতে লাগলো মুগ্ধ। যাই হোক ঔষধ তো খাওয়াতে হবে। শিশির প্রথমে আপত্তি করলেও, পরে কিছু বলেনি। খিদেও পেয়েছে প্রচুর। এখন এটাই শেষ ভরসা।
,
,
পর দিন শিশিরকে বাসায় নামিয়ে দেয় মুগ্ধ। মাহিমাকে ঔষধ গুলো বুঝিয়ে দিলো সে।
মুগ্ধর দিকে এক দৃষ্টিতে চেয়ে ছিলো মাহিমা। মাহিমার দিকে হাতের তুড়ি মেয়ে মুগ্ধ বলে উঠে,
– হ্যালো, বুঝলেন?
– হুম,
– কি বুঝলেন?
– আপনি যা যা বুঝালেন?
– আচ্ছা গুড, এখন ওকে নিয়ে ভেতরে যান, আর মেডিসিন গুলো টাইমলি দিবেন।
বলেই গাড়ি স্টার্ট দিয়ে চলে গেলো মুগ্ধ। মাহিমা শিশিরের দিকে তাকিয়ে বলে,
– ছেলেটা কে রে?
– ওই যে রাতে তোকে যার কথা বললাম?
– তুই সারা রাত ওর সাথে ছিলি?
– কি সব আবোল তাবোল বকছিস? ওর সাথে থাকবো কেনো? ও এক জায়গায় ছিলো, আর আমি আরেক জায়গায়।
– ওহ্ তাহলে ঠিক আছে,,,, আচ্ছা ওর নাম কি?
– মুগ্ধ,,,,,
মাহিমা গালে হাত দিয়ে বলে,
– আমিও মুগ্ধ,,,
– মানে?
– মানে কিছু না ভেতরে চল।
,
,
ফোনটা বেজে উঠলো। শিশির ফোন টা হাতে নিয়ে দেখে, ফোনের স্কিনে সুশান্তের নাম্বার। ফোন টা রিসিভ করে কানে নেয় শিশির।
– হ্যালো ভাইয়া?
– হুম, কি করিস?
– এইতো বসে আছি তুমি?
– এইতো অফিসে। খেয়েছিস?
– হুম, খালা খালু কেমন আছে?
– ভালো আছে তারা। তোর আম্মু ফোন দিয়েছিলো, বললো গত কাল বিকেল থেকেই নাকি তোকে ফোনে পায়নি। কি হয়েছে তোর?
– ফোনে চার্জ ছিলো না, চার্জে দিতে ভুলে গেলাম তাই।
– কি এমন কাজ ছিলো যে, ফোন চার্জে দিতে ভুলে গেলি?
– একটু বিজি ছিলাম তাই।
– কি এমন বিজি ছিলি, শুনি?
– তুমি কি আমায় জেরা করছো?
– জেরা কই করছি, এমন জানতে ইচ্ছে হলো তাই বললাম।
– নতুন ভার্সিটি ভর্তি হলাম তাই পড়াশুনার চাপ বেশি।
ফোনের ওপাশ থেকে হেসে দিলো সুশান্ত।
– ওরে আমার বিদ্যা সাগর রে,, সে এখন পড়াশুনায় এতোই বিজি যে, ফোনটাও চার্জে দিতে ভুলে যায়। অথচ আগে এই ফোন টিপার অভিযোগেই বখা খেতো সে।
– ভাইয়া, সময় কি আর এক থাকে?
– আচ্ছা গুড। মনোযোগ দিয়ে পড়াশুনা করবি। আর একটা কথা মনে রাখবি। ওখানে কোনো ছেলে ফ্রেন্ড বানাবি না। পড়াশুনার বাইরে যেনো কিচ্ছু না শুনি। আর কিছু প্রয়োজন হলে বলবি।
– আচ্ছা, এখন রাখি বায়, পরে কথা হবে।
– হুম, আর শুন,
– কি?
– খালাম্মাকে ফোন দিয়ে কথা বল। টেনশনে আছে তারা।
– আচ্ছা।
বলেই ফোন রেখে দিলো শিশির। মনে মনে বকতে থাকে সুশান্তকে।
‘শালা আমার ছেলে ফ্রেন্ড থাকুক আর না থাকুক, আমি যাই করি তোর কি রে? এমন ভাবে জেরা শুরু করে আর উপদেশ দেয়, মনে হয় আমি তার মায়ের পেটের আপন বোন।
,
,
সন্ধার পর পড়তে পড়তে মুগ্ধর কথা ভাবছে শিশির। গত কাল এই সময়টাই মুগ্ধর পাশে ছিলো সে। ছেলেটা সত্যি খুব কিউট। খুব ভালোও।
পড়ায় মন বসছে না। বোরিং ফিল হচ্ছে তার। তৃতীয় তলায় একটা ফ্লাটে থাকে তারা। বেলকনিতে গিয়ে বসলো সে। একটু শীতল ভাব বিস্তার করে আছে প্রকৃতি জু্রে। আকাশটাও আজ মেঘ জমে খুট খুটে অন্ধকারে ঘেরা।
ভেতর থেকে মাহিমার ডাক শুনা যাচ্ছে।
– শিশির তারাতারি খেয়ে নে। বাইরে মেঘ করছে হয়তো কারেন্ট চলে যাবে।
খাওয়ার কথা শুনেও মনে পরলো, কালকে মুগ্ধ কতো সুন্দর করেই খাইয়ে দিলো তাকে। ছেলেটা একটু অদ্ভুত টাইফের। আবার কেয়ারিং ও। বেলকনির গ্রিল ধরে বাইরের দিকে তাকালো শিশির। লেম্প পোষ্টের আলোয় সারা শহর আলোকিত। রাস্তায় একটা লেম্পপোষ্টের নিচে চোখ পড়তেই চক্ষু ছড়ক গাছ তার। দেখে কালো রঙের একটা গাড়ির সাথে হেলান দিয়ে দাড়িয়ে আছে মুগ্ধ। তবুও শিশির একটু ভালো ভাবে লক্ষ করলো এটা কি মুগ্ধ নাকি অন্য কেও?
না এটা তো মুগ্ধই। শিশিরকে দেখেই হাত নাড়লো মুগ্ধ। শিশির উল্টো দিকে ঘুরে গেলো।
‘ কি সাংঘাতিক একদিন না যেতেই পিছু নিয়ে নিলো?
শিশির রুমের দিকে উকি দিয়ে চুপিচুপি মাহিমাকে ডাক দিলো। মাহিমা তার দিকে এগিয়ে এসে বললো,
– কি রে কি হয়েছে খেতে ডাকলাম, না গিয়ে আবার এখানে ডাকলি কেন?
– মুগ্ধ,,,
– মুগ্ধ? কি দেখে মুগ্ধ হলি?
– আরে পেছনে মুগ্ধ, রাস্তায়।
মাহিমা যেনো আর একটুও দেড়ি না করে উকি দিয়ে চার পাশ টা চেক করতে লাগলো। কিন্তু কোথাও মুগ্ধকে দেখতে পেলো না সে।
– কি রে কোথায়?
শিশির এবার পেছনে তাকিয়ে দেখে মুগ্ধর নাম গন্ধও নেই নিচে। ওই জায়গায় একটা সি’এন’জি দাড়ালো। মাহিমাকে বলে উঠে,
– আরে আমি নিজ চোখে মুগ্ধকে ওখানে দেখলাম।
– কোথায়?
– ওই যে সি’এন’জি টার জায়গাতেই মুগ্ধ গাড়ি নিয়ে দাড়িয়ে ছিলো। আমাকে দেখে হাতও নারিয়েছে।
মাহিমা আর শিশির দুজনই সি’এন’জি টার দিকে তাকালে। দেখে ওখানে সি’এন’জি র সাথে জামা কাপড় ছেড়া একটা পাগল দাড়িয়ে বিড়ি টানছে। শিশির ও মাহিমার দিকে তাকিয়ে, বিড়ির ধোয়া ছেড়ে দাত বের করে বড় একটা ভেটকি দিয়ে হাত নাড়িয়ে বললো,
~ হায়,,,,,,,,

To be continue…..

~~ ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরুধ রইলো।💖

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here