প্রজাপতির_রং🦋 Extra_Part

0
206

প্রজাপতির_রং🦋
Extra_Part
#Writer_NOVA

এনাজ হুট করে এসে আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে কাঁধে মুখ গুঁজে দিলো।ঘটনার আকস্মিকতায় কিছুটা চমকে গেলেও নড়লাম না।মিনিট খানিক পর কাঁধে ঠান্ডা কিছুর পরশ পেতেই বুঝলাম সে কাঁদছে। কিন্তু কেন তা খুঁজে পেলাম না।আমি স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম।তাকে থামানোর চেষ্টা করলাম না।কাঁদুক সে।তাহলে মন হালকা হবে।আমার চোখ বেয়েও নোনাজল গড়িয়ে পরছে।সেটাও মুছলাম না।আমাকে ছেড়ে কিছু দূর দাঁড়ালো। তারপরে চোখ মুছতে মুছতে বললো।

তাজঃ আজ আমি তোমাকে সব খুলে বলবো।আমার উচিত ছিলো আরো আগেই তোমাকে সবকিছু খুলে বলার।কিন্তু আমি আগে তোমার সাথে কিছুটা স্বাভাবিক হতে চেয়েছিলাম।কিন্তু আমি দেখছি এটাই আমার ভুল হয়েছে।তোমাকে সব খুলে বললে হয়তো পরিস্থিতি এমন হতো না।তুমি কি জানো এই দেড়টা বছর তোমাকে আমি ঠিক কোথায় কোথায় খুঁজেছি? আমি সাত মাস কোমায় ছিলাম।আগুনে আমার চেহারা নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। বাম গালের মাংস পুরে হা হয়ে গিয়েছিল। হাতের বাহু থেকে মাংস নিয়ে সেই শূন্যস্থান পূরণ করতে হয়েছিলো।সব মিলিয়ে আমার স্বাভাবিক জীবনে আসতে পুরো একটা বছর লেগেছিল। যখন স্বাভাবিক জীবনে ফিরলাম তখন আমি হন্যি হয়ে তোমার বাড়ি,আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি চিরে ফেলেছিলাম।কিন্তু তোমাকে পাইনি।কেউ তোমার কোন খোঁজ দিতে পারেনি।এতে আমার মানসিক অবস্থা অনেক খারাপ হয়ে গিয়েছিলো।ঘুমের ঘোরে আমি তোমার নাম নিয়ে চিৎকার করে উঠতাম।আর যখন তোমার কথা মনে হতো তখন আমি পুরো পাগল হয়ে যেতাম।যার কারণে ইংলেন্ডে আমাকে ট্রিটমেন্ট করতে পাঠিয়ে দিয়েছিলো আমার পালিত বাবা।মানুষটা আমার জন্য অনেক করেছে,জানো।তারপর প্রায় পাঁচ মাসের মতো ট্রিটমেন্ট করে আমাকে আবার সুস্থ করেছে। বাকি দিনগুলো আমার ঐখানেই কাটতো।আমি ট্রমার মধ্যে চলে গিয়েছিলাম।কারো সাথে বেশি একটা কথা বলতাম না।তোমার হাসিখুশি এনাজ পুরো চুপচাপ হয়ে গিয়েছিল। ছয় মাস আগে বাবার বিজনেসে বসলাম।কাজের চাপে সারাদিন ভালোই কাটতো।কিন্তু রাতটা আমার কাছে কিরকম বিষাক্ত ছিলো তা আমি বুঝাতে পারবো না তোমায় বাটারফ্লাই ।কত রাত যে নির্ঘুম কাটিয়েছি মাথা ব্যাথায় ছটফট করতে করতে। তা গুণেও শেষ করতে পারবো না। তোমার কথা মনে হলে আমি নিজেকে ঠিক রাখতে পারতাম না।গত ছয় মাসও তোমাকে এদিক সেদিক খুঁজেছি।কিন্তু তুমি আমার চোখের সামনে ছিলে তাও খুঁজে পাইনি।কারণটা হলো যে হারিয়ে যায় তাকে খুজে পাওয়া যায়। কিন্তু যে নিজ থেকে হারিয়ে যায় তাকে তো খুঁজে পাওয়া যায় না।

লোকটার কথা শুনে আমি হা হয়ে গেলাম।এতটা কষ্ট সহ্য করেছে মানুষটা।আর আমি তাকে ভুল বুঝেই গেলাম।একবারও তার দিকটা বিবেচনা করলাম না।এতটা স্বার্থপর কবে হলাম আমি।নিজেকে মনে মনে ধিক্কার জানালাম।

এনাজঃ কিছু দিন আগে আমি ইংল্যান্ড গিয়েছিলাম মনে আছে তোমার?সবাইকে বলেছিলাম আমি ব্যবসায়ের কাজে গিয়েছি।কিন্তু আমি ডাক্তার দেখাতে গিয়েছিলাম।আমার ঘাড়ে যে বারিটা মেরেছিলো ওরা তার জন্য প্রায় আমি অসহ্যকর মাথা ব্যাথা ও ঘাড় ব্যাথায় ভুগতাম তার ট্রিটমেন্ট করতে গিয়েছিলাম।আল্লাহর রহমতে এখন ভালো আছি।

কথাগুলো বলে থামলো এনাজ।তারপর আমার দিকে একটা অদ্ভুত প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলো।যা শুনে আমি হতভম্ব।

এনাজঃ আচ্ছা, বাটারফ্লাই। আমার বাচ্চাটাকে ছয় মাসের পেটে থাকতে কি সত্যি মারা গিয়েছিলো? এই প্রশ্নটা না আমার মাথায় ইদানীং অনেক বেশি ঘুরছে।

আমি চোখ দুটো রসগোল্লা করে এনাজের দিকে তাকিয়ে রইলাম।কি বলে এই ছেলে?আমার বাচ্চা পেটে থাকতে মারা গেলে নাভান এলো কোথা থেকে?

আমিঃ কি বলছেন এসব?

এনাজঃ হ্যাঁ আমি ঠিকই বলছি।এক বছর পর যখন আমি একটু সুস্থ হলাম তখন তোমাদের গ্রামে গিয়েছিলাম তোমার খোঁজে, আমার সন্তানের খোঁজে। তখন সেখানকার হাশেম চাচার বউ বললো আমাদের সন্তান নাকি ছয় মাসের পেটে থাকতে মারা গেছে।তুমি নাকি ওয়াসরুমে পিছোল খেয়ে পরে পেটে ব্যাথা পেয়েছিলো।তার জন্য নাকি ওকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। বিশ্বাস করো এই কথাটা যখন আমি শুনেছি আমার পুরো পৃথিবী থমকে গেছে। আমার চারপাশ ঘুরতে শুরু করেছিলো।আমি শুধু পারিনি চিৎকার করে কাঁদতে।নিশ্চয়ই তোমার এর থেকে বেশি কষ্ট হয়েছে তাই না?তুমি তো ওকে ছয় মাস পেটে ধরেছিলে। আমাদের সন্তানের কথা ভেবে কতরাত যে নির্ঘুমে কাটিয়েছি।ও থাকলে এতদিনে দুই বছর হয়ে যেতো ওর তাই না? আমি তোমকে কথাটা জিজ্ঞেস করবো করবো ভেবেও করিনি।যদি তুমি কষ্ট পাও তাই।প্লিজ তুমি পুরনো কথা মনে পরে ভেঙে পরো না।আমারা বরং আবার একটা বেবী নিবো।

শেষের কথাটা অনেক আশা ও উচ্ছাস নিয়ে বললো।যা শুনে আমার অনেক হাসি পাচ্ছে। কিন্তু আমি হাসলাম না।সিরিয়াস মুহুর্তে হাসা উচিত নয়।তবে
শুনো ছেলের কথা!!!আমি পিটপিট চোখে এনাজের দিকে তাকিয়ে রইলাম। তার চোখ, মুখ উপচে পরছে আকুলতা।তাহলে ঘটনা এই।আমার স্বামী মহাশয় জানে তার সন্তান ছয় মাসের পেটে থাকতে মারা গেছে। তাই কখনও আমাকে বাচ্চার কথা জিজ্ঞেস করেনি।যদি আমি কষ্ট পাই।নাহ,এই মানুষটাকে আর কষ্ট দেওয়া যাবে না।অনেক হয়েছে। এবার সব ঠিক করেই নিবো।করুন চোখে আকুল সুরে এনাজ আমাকে বললো।

এনাজঃ কি হলো বলো? আমি কি বাবা ডাকটা শুনতে পারবো না।দিবে না আমাকে একটা বেবী?

আমিঃ বাচ্চার কথা জিজ্ঞেস করার জন্য অন্য কোন মানুষ পাননি?ঐ হাশেম চাচার বউকেই জিজ্ঞেস করতে হলো? ঐ মহিলা তিলকে তাল বানিয়ে সারা গ্রামে ছড়ায়।আর আপনি গিয়ে তাকেই জিজ্ঞেস করেছেন😤?

এনাজঃ উনাকে জিজ্ঞেস করতেই সে এসব বললো।

হাশেম চাচার বউ হলো সারা গ্রামের লোকের বার্তাবাহক বলতে পারেন।তবে সেটা সঠিক নয়।সব আজগুবি আর ভুল খবর এর কাছে পাবেন।মহিলা একে ওপরের সাথে ঝগড়া লাগাতে বেশ পটু।এবাড়ির কথা ও বাড়ি লাগাবে।ও বাড়ির কথা এ বাড়ি।তাই সবাই তাকে এড়িয়েই চলে।এনাজের মারা যাওয়ার ঘটনার পর কিছুদিন আমি বাবার বাসায় ছিলাম।সেখানে একদিন ওয়াসরুমে সামান্য পিছল খেয়ে পরে গিয়ে পেটে ব্যাথা পেয়েছিলাম।সবাই একটু ভয় পেয়ে গিয়েছিল। ভেবেছে বাচ্চার ক্ষতি হয়ে গেছে। তাই জলদী করে ঢাকায় নিয়ে আসা হয় আমার।যতটা ভয় পেয়েছিলাম সবাই ততটা কিছুই হয়নি।ডাক্তার বলে ছিলো বাচ্চা ঠিক আছে।

তখন এই মহিলা সারা গ্রামে ছড়িয়েছিলো আমার বাচ্চা মারা গেছে। নাভান হওয়ার আগে আমি আর বাসায় যায়নি।আর ঐ মহিলা এদিকে বেশি একটা আসতো না বলে সে জানতো আমার বাচ্চা মৃতই ছিলো।এই ঘটনাকে আমি ততটা পাত্তাই দেইনি।কিন্তু এখন দেখছি সেই সামান্য কথা কতবড় আকার ধরা করেছে। আমার স্বামীর কান অব্দি পৌঁছে গেছে। এটা কোন কথা? কি থেকে কি হলো?আমি ভাবনায় হারিয়ে গেছি।এনাজ আমার চোখের সামনে তুড়ি বাজিয়ে বললো।

এনাজঃ এই কোথায় হারিয়ে গেলে?

আমিঃ কোথাও না।আপনার বেবী লাগবে তাই তো?

এনাজঃ হুম।একটা কিউট, গুলুমুলু বেবী।একদম তোমার মতো।

আমিঃ আপনি দাঁড়ান আমি এখুনি নিয়ে আসছি।

এনাজঃ আরে শোনো এখন কোথা থেকে আনবে? এই মেয়ে কি পাগল হলো নাকি?বাটারফ্লাই শোনো………

🦋🦋🦋

এনাজের কথা পুরোটা শোনার আগেই আমি সিঁড়ির দিকে ভো দৌড় দিলাম।সিঁড়ির সামনে এসে আমি হাঁপিয়ে গেলাম।এতটুকু দৌড়ে হাঁপিয়ে গেছি।এখন কি আর আগের বয়স আছে। এক বাচ্চার মা হয়ে গেছি তো।ধীরে সুস্থে সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠলাম।তারপর আস্তের ওপর দরজার ছিটকিনি খুলে ভেতরে ঢুকলাম। চোরের মতো পা টিপে টিপে রুমে ঢুকলাম।নাভানকে ঘুমন্ত অবস্থায় কোলে তুলে নিলাম।তারপর আবার পা টিপে টিপে বের হয়ে গেলাম।গাড়ির কাছে আসতেই এনাজ আমার দিকে জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো।

এনাজঃ এই বাচ্চা কার?

আমিঃ অনলাইন থেকে আপনার নামে অর্ডার করেছিলাম।বছর দুই আগে দিয়ে গেছে।

ব্যঙ্গ সুরে কথাটা বলে মিটমিট করে হাসতে লাগলাম।এনাজ বোকার মতো ফেস করে অবাক হয়ে বললো।

এনাজঃ অনলাইনে বাচ্চা অর্ডার করা যায়?

এনাজের কথা শুনে আমার ভীষণ হাসি পাচ্ছে। মুখ টিপে হেসে বললাম।

আমিঃ হ্যাঁ,যায় তো।আপনি জানেন না।

এনাজঃ কোথায় না তো।আমি তো এসব বিষয় কিছু জানি না।তা বাচ্চাটা তো এখনো ঘুমে।ওকে কেন নিয়ে এসেছো? কার না কার বাচ্চা।

আমিঃ অন্য কারো নয়।এটা আপনার বাচ্চা। যাকে আপনি ছয় মাসের পেটে রেখে গায়েব হয়েছিলেন।

আমার কথা শুনে বিস্মিত চোখে এনাজ আমার দিকে তাকালো।

এনাজঃ মমমমাননে???

আমিঃ মানে হলো এতদিন আপনি ভুল জানতেন।আপনার সন্তান ছয় মাসের পেটে থাকতে মারা যায়নি। এই যে আপনার সন্তান। আপনি এতদিন ভুল ইনফরমেশন জেনে এসেছেন। যদি বিশ্বাস না হয় তাহলে তায়াং ভাইয়াকে জিজ্ঞেস করতে পারেন।

এনাজ হা করে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। চারিপাশটা বাতির আলোয় আলোকিত থাকায় সেটা দেখতে আমার অসুবিধা হলো না।এনাজ হাত দুটো বাড়িয়ে দিলো।তবে ওর হাত থরথর করে কাঁপছে। চোখে পানি টলমল করছে।কাঁপা কাঁপা গলায় বললো।

এনাজঃ এটা আআআমার ছছেললে!!! তুমি ভুল বলছো না তো।আমার অংশ ও!!!

আমিঃ জ্বি না আমি ভুল বলছি না।এটা আপনার ছেলে নাভান।আর সেদিন জিজ্ঞেস করেছিলেন না নাভান কে? এই আপনার ছেলের নামই নাভান।অবশ্য রিয়েল নাম এনান আহমেদ। আমি চিন্তা করছি ওর নাম জন্ম নিবন্ধন কার্ডে এনান আহমেদ নাভান করে আনবো।

এনাজঃ ওকে একটু আমার কোলে দিবে?

আমিঃ দিতেই তো আনলাম।ওকে ঘুম থেকে উঠিয়ে দেই।

এনাজঃ না না ও ঘুমাচ্ছে ঘুমাক।আমি তো ওকে কোলে নিবো শুধু। ঘুম ভাঙালে কান্না করবে তো।

আমিঃ কেন ওর মুখে বাবা ডাক শুনবেন না?

এনাজ চমকে উঠলো। তবে সেটা খুশিতে।মাথাটা উপর নিচ ঝাঁকিয়ে বুঝালো সে শুনতে চায়।আমি নাভানের ঘুম ভাঙানোর জন্য ওকে ডাকতে লাগলাম।

আমিঃ নাভান, এই নাভান। দেখো কে আসছে? তুমি না জিজ্ঞেস করতে বাবা কবে আসবে? এই যে দেখো তোমার বাবা এসেছে। এখন যদি ঘুম থেকে না উঠো তাহলে বাবা কিন্তু চলে যাবো।

এনাজঃ ও কথা বলতে পারে।

আমিঃ হুম সবকিছু বলতে পারে।

নাভান দু হাতে চোখ কচলে আমার কাঁধ থেকে মাথা উঠালো।তারপর আধো আধো কণ্ঠে জিজ্ঞেস করলো।

নাভানঃ বাবা কো?

আমিঃ সামনে তাকাও। দেখো তোমার বাবা এসেছে তোমার সাথে দেখা করতে।

নাভান পিটপিট চোখে সামনে তাকালো।এনাজ দু হাত বাড়িয়ে রেখেছে। নাভান আমার দিকে তাকালো সম্মতির আশায়।আমি মাথা নাড়িয়ে আস্বস্ত করে নাভানকে বললাম।

আমিঃ যাও বাবার কোলে যাও।এটাই নাভানের বাবাই।

আমার সম্মতি পেয়ে নাভান ওর বাবার কোলে চলে গেল। এনাজ ওকে কোলে নিয়ে দিকপাশ না তাকিয়ে সারা মুখে চুমু খেতে লাগলো।সে এখন খুশিতে পাগলপ্রায়। কি থেকে কি করবে।তা সে নিজেই জানে না।ওর চোখ দিয়ে পানি পরছে। নাহ এটা কোন কষ্টের নয়।বরং পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সুখের।তাকে অনেকদিন পর এত খুশি হতে দেখলাম।চোখ,মুখে আনন্দ উপচে পরছে। যা দেখে নিজের অজান্তেই হাসি ফুটে উঠলো আমার। হঠাৎ এনাজ নাভানের দিকে ভালো করে খেয়াল করে কিছুটা চমকে উঠে আমাকে বললো।

এনাজঃ ওকেই তো আমি পার্কে দেখেছিলাম।ওহ শীট,কি কপাল আমার।আমি নিজের ছেলেকেও চিনতে পারিনি।কখনও কল্পনাও করিনি এই ছেলে আমার রক্তের হতে পারে।

আমি অবাক চোখে তার দিকে তাকাতেই এনাজ আমাকে পার্কের সব ঘটনা বললো।আমি বিস্মিত চোখে তাদের দিকে তাকিয়ে রইলাম।আল্লাহ তাহলে বাপ-বেটাকে বহু আগেই মিলিয়ে দিয়েছিলো।নাভান শক্ত করে তার বাবার গলা জড়িয়ে ধরে আছে। এনাজও নাভানকে শক্ত করে নিজের সাথে মিশিয়ে রেখেছে।

আমিঃ নাভান।

নাভানঃ হুম।

আমিঃ বাবা কে বাবা বলে ডাক দাও।

নাভানঃ আচ্ছা।

আমিঃ বলো।

নাভানঃ বাবা,ও বাবা,বাবা।আমার বাবা।তুমি কই ছিলা বাবা?আমাদের ছেড়ে আর কোথাও যাইয়ো না।

নাভান বাবা বলে ডাক দিয়ে ওর বাবার গালে আলতো করে চুমু খেলো।এনাজ আবারো খুশিমনে ওকে জড়িয়ে ধরলো।

এনাজঃ আমি আর কখনো তোমাদের ছেড়ে কোথাও যাবো না।আবার বলো বাবা।আরেকবার বাবা বলে ডাক দেও আমাকে।

নাভানঃ বাবা।আমার বাবাই।

এনাজ আবারো বাচ্চাদের মতো চোখের পানি ফেলতে লাগলো।এই ছেলেটার বাচ্চামো দেখে আমি নিজেই অবাক।এক ছেলের বাবা হয়ে গেছে আর সে নিজেই বাচ্চামো করছে।কিছু সময় পরপর নাভানের কপালে,গালে,থুতনীতে চুমু খাচ্ছে।ও পুরো দিশেহারা হয়ে গেছে। এবার নাভানকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে কপালে চুমু খেয়ে কপালে কপাল ঠেকিয়ে রাখলো।নাভান তো ওর বাবার গলায় ছাড়ছে না।কিরকম চুপ করে আছে।হয়তো নাভান ওর বাবার আদর,স্পর্শ, স্নেহগুলো উপভোগ করছে। একেই তো বলে নিজের রক্তের টান।আমি নিরব দর্শকের মতো তাদের বাপ-বেটার কান্ড দেখতে লাগলাম।আজ অন্যরকম ভালো লাগা কাজ করছে আমার।অবশেষে বাবা-ছেলের দেখা হলো তাহলে।আল্লাহর কাছে লাখো কোটি শুকরিয়া। উনি আমার ছেলেকে তার বাবার কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে। বাবা-ছেলের মিল দেখে নিজেকে আজ পরিপূর্ণ মনে হচ্ছে।আলগোছে চোখের পানিটা মুছে নিলাম।আর কান্না নয়। আল্লাহ যদি চায় তাহলে এবার বোধহয় আমার সুখের দিন শুরু হবে।

#চলবে

আরিয়ান কেন নাভানের বিষয়টা এনাজকে বলিনি তা সামনের পর্বে বলে দিবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here