প্রজাপতির_রং🦋 Part_34

0
218

প্রজাপতির_রং🦋
Part_34
#Writer_NOVA

—- হ্যালো লিসেনার।কেমন আছেন সবাই?ফিরলাম বিজ্ঞাপনের পরপরি। আমি RJ নোভানাজ কিন্তু চলে এসেছি লাভ কমপ্লেন নিয়ে বহু আগে।আপনারা শুনছেন ঢাকা এফএম 90.04।এখন সময় ৫ টা বেজে ০৭ মিনিট।লাস্ট ঘন্টায় কিন্তু চলে এসেছি আমরা। যাওয়ার সময়ও ঘনিয়ে এসেছে। যারা এখনো আমার সাথে এড হোননি তারাও জলদী করে চলে আসেন।কি অবস্থা সবার? দিনকাল যাচ্ছে কেমন? আমি কিন্তু বিন্দাস আছি।আল্লাহর রহমতে আলহামদুলিল্লাহ চলছে সব।আপনারা জলদী জলদী করে টেক্সট,কমেন্ট করে ফেলুন।এখন আপনাদের পছন্দের সব গান বাজিয়ে দিবো।তাই যত দ্রুত সম্ভব আপনাদের প্রিয় গানের কথা আমাকে জানিয়ে দিন।আপনারা জানাতে থাকেন ততক্ষণে আমি কি করি, কি করি? হুম পেয়েছি। কতগুলো টেক্সট, কমেন্ট পড়তে পারি।পুরান ঢাকা থেকে তিশান জিজ্ঞেস করেছে, আপু কেমন আছো? আলহামদুলিল্লাহ ভালো তিশান।আপনি কেমন আছেন? মানিকগঞ্জ থেকে সুপ্তি জিজ্ঞেস করেছে, আপু আজকে তোমাকে আজ অনেক খুশি খুশি লাগছে ঘটনা কি? এই প্রশ্ন জিজ্ঞেস করেছি বলে প্লিজ কিছু মনে করো না।আমি এমনি জিজ্ঞেস করলাম।অন্য দিনের তুলনায় আজ তোমাকে বেশি খুশি লাগছে তো তাই।আরে সুপ্তি কিছু মনে করার নেই। আমি কিছুই মনে করিনি।আজকে আমি সত্যি অনেক খুশি।আমরা যখন আমাদের সবচেয়ে প্রিয় জিনিস কিংবা মানুষকে হারিয়ে ফেলি।যেটা বা যাকে কখনো আর ফিরে পাবো না।কিন্তু আল্লাহর রহমতে সেটা আবার আমাদের কাছে ফিরে আসে। তখন কতটা খুশি লাগে বল তো? সবকিছু একটা ঘোরের মতো লাগে।খুশিতে পাগল হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়।আমিও আমার হারিয়ে যাওয়া প্রিয় মানুষটাকে পেয়েছি। তাই এত খুশি।আমার তো ইচ্ছে করছে উড়াধুরা ডান্স করতে।হি হি হি 😁।মিরপুর থেকে পারভেজ জিজ্ঞেস করছে, আপু তুমি কি ম্যারিড? ভাই আমার একটা দুই বছরের বেবী আছে। তাহলে এবার বুঝে নিন বিয়ে হয়েছে কিনা।কমেন্ট পরবো এখন। নিশাত জাহান লিখেছে, আপু আমার কমেন্ট পড়ো না কেন? কে বলেছে আপু পড়ি না।এই তো পড়ে ফেললাম।কষ্টের নদী আইডি থেকে একজন কমেন্ট করছে আপু আমার জন্য হৃদয় খানের কোন গান প্লে করে দিও।ভাইয়া কোন গান প্লে করে দিবো একটু বলে দিলে ভালো হতো।আপনি গান ডেডিকেট করে দিন।আমি অবশ্যই বাজিয়ে দিবো।আরিফ হাসান কমেন্ট করে জানিয়েছে তার জন্য আরফিন রুমির মন রাখো পাঁজরে গানটা বাজিয়ে দিতে।খুব সুন্দর একটা গান।আমারও খুব পছন্দ। আচ্ছা আমি বাজিয়ে দিবো।কি ব্যাপারা হুম? দুদিন শো করতে আসিনি বলে আপনারা আমাকে ভুলে গেছেন হুম।এটা কিন্তু ঠিক নয়।কমেন্ট,টেক্সট এত কম কেন? আড়ি দিয়ে দিবো কিন্তু সবার সাথে।নুসরাত টেক্সট করেছে।আপু প্লিজ আমার জন্য ইমরান মাহমুদুলের “তুই তো দেখিস না” গানটা প্লে করে দিবে।প্লিজ আপি, প্লিজ, প্লিজ, প্লিজ।এতবার অনুরোধ। এতবার করে যেহেতু নুসরাত অনুরোধ করলো।আমি কি ফেলে দিতে পারি বলেন।চলুন শুনে আসি ইমরান মাহমুদুলের কন্ঠে তুই তো দেখিস না গানটি।গানের পরে পাঁচ মিনিটের বিজ্ঞাপন বিরতি নিবো।তাই কোথাও যাবেন না।আমার সাথেই থাকুন, ঢাকা এফএমর সাথে থাকুন।

♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♥♥♥♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪

তুই ছাড়া একেকটা দিন, কি যে যন্ত্রণা
বুকের ভেতর অন্তহীন নীল নীল বেদনা(×২)
দুচোখ কি দহনে তুই তো দেখিস না
তুই ছাড়া একেকটা দিন, কি যে যন্ত্রণা
বুকের ভেতর অন্তহীন নীল নীল বেদনা(×২)

চোখের ভেতর বৃষ্টি হয় হৃদয়টা হয়ে যেন নদী
তোর না থাকার একেকটা খন ছুঁয়ে দেখতি যদি(×২)
আমায় ছেড়ে কখনো দূরে যেতি না
তুই ছাড়া একেকটা দিন, কি যে যন্ত্রণা
বুকের ভেতর অন্তহীন নীল নীল বেদনা(×২)

হাজার জনম চাই না তোরে একটা জনম শুধু চাবো
বুকপর ভেতর নিশ্বাস জুড়ে তোকেই শুধু পাবো।(×২)
এক জনমের প্রতিখনে আড়াল হবো না।
তুই ছাড়া একেকটা দিন, কি যে যন্ত্রণা
বুকের ভেতর অন্তহীন নীল নীল বেদনা(×২)

♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♥♥♥♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪♪

গান প্লে করা শেষে বিজ্ঞাপন বিরতি দিলাম।বেশ কিছু সময় ধরে মোবাইলের ভাইব্রেশনে শব্দ পাচ্ছিলাম।যদিও কানে হেডফোন থাকায় পাওয়ার কথা নয়।কিন্তু মোবাইলটা সামনে থাকায় একবার হাত পরেছিলো তার ওপর।মোবাইল হাতে নিয়ে দেখতে পেলাম আননোন নাম্বার থেকে তিনটা মিসড কল এসেছে। কে কল করতে পারে তা ভাবতে ভাবতেই আরেকবার ঐ নাম্বার থেকেই কল চলে এলো।রিসিভ করে কানে দিতেই জোরে চিৎকারের শব্দ পেলাম।

——– ভাবী-ই-ই-ই-ই-ই-ই-ই-ই-ই-ই-ই!!!!

আমিঃ মুসকান??

মুসকানঃ হ্যাঁ, ভাবী আমি মুসকানই।কোথায় তুমি? তোমার নামে বিচার আছে।

আমিঃ আমি আবার কি করলাম?

মুসকানঃ তুমি কি করো নি তাই বলো? আমাদের একটা গুলুমুলু ভাতিজা আছে তার কথা আমাদেরকে কেন বলোনি? এর জন্য তোমাকে শাস্তি পেতে হবে।

আমিঃ তোমরা জিজ্ঞেস করোনি তাই আমি বলিনি।তোমরা যদি জিজ্ঞেস করতে তাহলে তো আমি বলতামই।

মুসকানঃ আমরা কি করে জানবো? তাজ ভাইয়া বলছে তার বেবী নাকি ছয় মাসে পেটে থাকতে মারা গেছে। তাই আমরাও সেটাই বিশ্বাস করে নিয়েছি।গতকাল রাতে এসে বলছে তোমাদের একটা দুই বছরের বাচ্চা আছে। ভাইয়া খুশিতে পাগল হয়ে যাচ্ছিলো।আমরা শুনে প্রথম ভেবেছি ভাইয়া বোধহয় তোমার শোকে পাগল হয়ে গেছে। পরে ভাইয়া তোমাদের তিনজনের ফ্যামেলী ফটো দেখালো।যেটা গতকাল তুলেছিলো।আম্মু তো পাগল হয়ে গেছে তোমাদের ছেলেকে বাস্তবে দেখতে।এখন তোমার শাস্তি হলো ছেলেকে নিয়ে সোজা আমাদের বাসায় চলে আসবে। কোন অযুহাত শুনবো না।

আমিঃ আজ তো আসা সম্ভব নয় মুসকান।আজ কোথাও যাবো না। শরীরটা ভালো লাগছে না।তাছাড়া সন্ধ্যা হয়ে এসেছে।

মুসকানঃ তাহলে আগামীকাল।

আমিঃ আগামীকাল তোমার ভাইয়ার অফিসে আজ বিদেশি ক্লায়েন্টদের সাথে মিটিং আছে। সব ফাইল আমার কাছে। আমি যদি না যাই তাহলে মিটিং হবে না।এতে কোম্পানির বিশাল লস হয়ে যাবে। অন্য একদিন যাবো।

মুসকানঃ আমার কাছে একটা আইডিয়া আছে।

আমিঃ কি???

মুসকানঃ তুমি এনানকে নিয়ে আগামীকাল অফিসে চলে আসো।আমিও ভাইয়াদের সাথে অফিসে চলে আসবো।তাহলেই তো সমস্যার সমাধান হয়ে যায়।

আমিঃ আমি তো শো করতে এসেছি। আগামীকালও শো করতে হবে।তখন এখান থেকে বাসায় গিয়ে নাভানকে আনতে অনেক দেরী হয়ে যাবে।

মুসকানঃ আগামীকাল মিটিং কয়টায়?

আমিঃ এগারোটার দিকে।

মুসকানঃ আগামীকাল দশটার দিকে বাসায় গিয়ে তুমি এনানকে বাসা থেকে নিয়ে আসবে।ওকে নিয়ে আসবে মানে নিয়ে আসবে।তুমি এগারোটার আগে চলে এসো।বাকি কিছু আমি সামলে নিবো।আর হ্যাঁ,আরেকটা কথা তোমাকে না ভাইয়া শো করতে মানা করেছে। তাহলে তুমি শো করতে আসছো কেন?

আমিঃ না মানে আসলে (ধূর কি বলি এখন? যেমন ভাই, তেমন বোন।কিছু তো একটা বলতে হবে।কি বলবো, কি বলবো? পেয়ে গেছি)বাসায় বোর হচ্ছিলাম তো তাই চলে আসছি।

মুসকানঃ তুমি যদি এনানকে না আনো তাহলে আমি বলে দিবো তুমি শো করতে এসেছো।কথাটা মনে রেখো।

আমিঃ ওরে পাঁজি মেয়ে।

মুসকানঃ হি হি জলদী চলে এসো কালকে।আমি রাখছি।

আমিঃ মুসকান একটা কথা ছিলো।

মুসকানঃ হ্যাঁ, ভাবী বলো।

আমিঃ আরিয়ান তো জানতো আমার ছেলে আছে। তাহলে তোমাদের বলেনি কেন?

মুসকানঃ এই ষাঁড় গরুর কথা আর বলো না ভাবী।আহাম্মক একটা। তোমাদের ছেলেকে দেখে মনে করছে এটা তোমার বান্ধবী হিমি নাকি এমি কি যেনো নাম। ওহ হ্যাঁ হিমি।হিমির ছেলে মনে করছে।গতকাল ভাইয়া ছবি দেখানোর পর আরিয়ান ভাইয়া বলছে, “আমি তো এই বাচ্চাকে আগেই দেখেছি। কিন্তু আমি ভাবছি হিমির ছেলে।যেহেতু ভাবীর বাচ্চা পেটে থাকতে মারা গেছে সেহেতু তার বাচ্চা আসবে কোথা থেকে? আর আমাদের ভাই তো এখানেই ছিলো।নতুন করে বেবী হওয়ার তো প্রশ্নই উঠে না😶।ভাই ছাড়া নতুন বেবী পেটে আসবে কি করে?” ও কথাগুলো এভাবে বলছে জানো?এর বদমাশ মার্কা কথা শুনে আমি হাসতে হাসতে শেষ।

আমিও হাসতে লাগলাম।আরিয়ান সত্যি অনেক ফাজিল ছেলে।ও ভাবছে নাভান হিমির ছেলে তাই সে কাউকে কিছু জানায়নি।আর ও জানতো আমার বাচ্চা পেটে থাকতে মারা গেছে। আর ওর ভাইতো গত আড়াই বছর ধরে ওদের কাছেই আছে। তাহলে আরেকটা বেবী হওয়ারো চান্স নেই। তাই সে ধরেই নিয়েছে নাভান হিমির ছেলে। আমি মুসকানের সাথে কথা শেষ করে কল কেটে দিলাম।বিজ্ঞাপন বিরতি শেষ হয়ে গেছে। আবার শো শেষ করতে হবে। এনাজ যদি জানে আমি শো করতে এসেছি তাহলে আমার খবর আছে। শো-টা বেশি দিন চালাতে পারবো বলে মনে হয় না।

🦋🦋🦋

সন্ধ্যা নেমেছে বহু আগে। পুরো পৃথিবী রাতের কালো আঁধারে ডুবে গেছে। এই আঁধারের সাথে সাথে আরেকজনের জীবনও আঁধারে ডুবে গেছে। সে আর কেউ নয়।রোশান দেওয়ান!!!বিষন্ন মনে একের পর এক সিগারেট ফুঁকছে রোশান।সারা রুম অগোছালো। মদের বোতলগুলো এদিক সেদিক পরে আছে।নেশায় বুদ হয়ে একপাশে পরে আছে রোশান।রোশানের চেহারার অবস্থা অনেক খারাপ।চুলগুলো অগোছালো, এলোমেলো। চোখ,মুখ লাল হয়ে আছে। পুরো বিধ্বস্ত লাগছে ওকে।কিছুটা দূরে দাঁড়িয়ে তমাল তার বসকে পর্যবেকক্ষণ করছে। কয়েকদিনের ব্যবধানে গোছালো ছেলেটা পুরো অগাছালো হয়ে গেছে। ওকে দেখলে এখন কেউ বিশ্বাস করতেই পারবে না এটা যে আগের রোশান।তমাল ধীর পায়ে এগিয়ে গিয়ে রোশানের সামনে দাঁড়ালো। ভয়ে ভয়ে মৃদুস্বরে ডাকলো।

তমালঃ বস!!!

রোশানঃ হুম বল।

রোশান মাথা না উঠিয়ে ঠান্ডা কন্ঠে বললো।এতে তমাল কথা বলার সাহস পেয়ে গেল।কোন ভনিতা ছাড়া বলে উঠলো।

তমালঃ এই পর্যন্ত আধা ঘণ্টার মধ্যে দুই প্যাকেট সিগারেট শেষ করে ফেলছেন।সারাদিনে মদ গেলাও হয়েছে কয়েক বোতল।আরো খেলে সমস্যা হবে। আপনার তো অভ্যাস নেই।

রোশান মাথা উঠিয়ে তাচ্ছিল্যের হাসি দিলো।সেই হাসিতে তমাল স্পষ্ট চাপা কষ্টের দেখা পেলো।

রোশানঃ কিছু হবে না তমাল।আমার জন্য চিন্তা করো না।আমি ঠিক হয়ে যাবো।তবে কিছু দিন যাক তারপর। এত তাড়াতাড়ি ওকে ভুলতে পারবো না আমি।আমার একটু সময় লাগে।এবার তো কিছুই না।সেবার যখন আমার পাখির বিয়ে হয়ে গেলো তখন সারারাত সিগারেট টানতাম।নয়তো বারে গিয়ে পরে থাকতাম।তখন আমাকে একটা মেয়ে সামলিয়ে ছিলো।মেয়েটার নাম ছিলো জারা।বাবার বন্ধুর মেয়ে। বাবা ওর সাথে আমার বিয়ে ঠিক করতে চেয়েছিলো।কিন্তু আমি মানা করে দেই।জারা আমায় খুব ভালোবাসতো জানো।কিন্তু আমি ওকে ঠকাতে চাইনি। ওর ভালোবাসাকে দূরে ঠেলে দিয়ে আবারো নোভার পেছনে ছুটেছিলাম।অনেক ভালোবাসি ওকে।ওর জায়গা আমি অন্য কাউকে দিতে চাই না।

তমালঃ ঐ জারা নামের মেয়েটা কোথায়?

রোশানঃ ইউরোপ কান্ট্রিতে আছে।

তমাল অবাক চোখে রোশানের দিকে তাকিয়ে রইলো। রোশান কখনো কাউকে নিজের কোন কথা বলে না।কতটা কষ্টে থাকলে কেউ এভাবে কথা বলে তা তমালের জানা নেই। এই মুহুর্তে তমাল মনে মনে আল্লাহর কাছে একটা দোয়া করছে।আর সেটা হলো সেই জারা মেয়েটা যেনো এখন ফিরে আসে। একমাত্র ঐ মেয়েটাই রোশানকে সামলাতে পারবে।তমাল মুখ খুলে কিছু বলতে চেয়েছিলো। কিন্তু তার আগে বাসার কোলিং বেল বেজে উঠলো। তমাল দ্রুত পায়ে সদর দরজার দিকে চলে গেল ।

তমাল দরজা খুলতেই অবাক হয়ে গেলো।দরজার অপরপাশে দাঁড়িয়ে আছে একটা মেয়ে। দেখতে,শুনতে সবদিক দিয়ে মাশাআল্লাহ। চেহারায় আছে লাবণ্যতা।পরনে নেভি ব্লু কালার হাটু অব্দি টপস,কালো কালার জিন্স, গলায় কালো রঙের ওড়না পেঁচানো। পায়ে নেভি ব্লু রঙের কেডস, হাতে ল্যাগেজ,চুলগুলো লাল রং করা।বয়স ২৪ না হলেও তার কাছাকাছি হবে।মেয়েটাকে আগে কখনো দেখেছে বলে মনে হচ্ছে না তমালের।

তমালঃ কাকে চাই?

— রোশান আছে?

পিচ্চি মেয়ের মুখে রোশানের নাম শুনে কিছুটা রেগে গেল তমাল।এতটুকু মেয়ে নিজের থেকে বড় ছেলেকে নাম ধরে ডাকছে বিষয়টা পছন্দ হলো না তমালের।চোখ মুখে বিরক্তি নিয়ে উত্তর দিলো।

তমালঃ হ্যাঁ,আছে।কিন্তু আপনি কে?

— আমি জারা রহমান।রোশানের বাবার বন্ধুর মেয়ে।

কথাটা শুনে চমকে তাকালো তমাল।নিমিষেই ওর মুখে থাকা বিরক্তি খুশিতে রূপান্তরিত হলো।আল্লাহ তাহলে তার দোয়া এত তাড়াতাড়ি কবুল করে নিয়েছে।এর জন্য বলে মন থেকে কিছু চাইলে আল্লাহ কখনো ফিরিয়ে দেয় না।তেমনি তমালের কথাও ফেলেনি আল্লাহ। মনে মনে আল্লাহর দরবারে কোটি কোটি শুকরিয়া জানালো তমাল।মুখে হাসি রেখেই খুশিতে গদগদ হয়ে বললো।

তমালঃ আরে ম্যাডাম আসুন।বাইরে দাঁড়িয়ে আছেন কেন? ভেতরে আসুন।

জারাঃ রোশান কোথায়?

তমালঃ আপনি কি বিদেশে থাকেন?

জারাঃ হুম।

তমালঃ আজ কি বিদেশ থেকে ফিরলেন?

জারাঃ হ্যাঁ, রোশানের বাবা গত পরশু কল করে আমাকে ওর বিষয় সবকিছু খুলে বললো।গতকালই চলে আসতাম।কিন্তু টিকিট পেতে দেরী হয়ে গেলো।রোশান কোন রুমে?

তমাল হা করে তাকিয়ে রইলো।একটা লোক তার ছেলের কথা বলতেই মেয়েটা সুদূর থেকে ছুটে চলে এলো।তাহলে নিশ্চয়ই মেয়েটা রোশানকে অনেক ভালোবাসে।না চাইতেও তমালের মুখে হাসি ফুটে উঠলো। জারা তমালের চোখের সামনে তুড়ি বাজালো।

জারাঃ ও হ্যালো, কোথায় হারিয়ে গেলেন?রোশান কোন রুমে? আমায় নিয়ে চলেন।

তমালঃ হ্যাঁ, ম্যাম চলেন।

সিঁড়ি বেয়ে দুজনেই ওপরে গেলো গেল।জারাকে রুম দেখিয়ে তমাল চলে গেল। ওদের দুজনকে একটু স্পেস দেওয়া উচিত।জারা দরজা ঠেলে ভেতরে ঢুকতেই মদের বিশ্রী গন্ধ নাকে এসে লাগলো।জারা নাকে হাত দিয়ে সামনে এগিয়ে গেলো।পুরো রুমটা আবছা অন্ধকার করে রাখায় জারা কিছু দেখছেও না।পায়ের সাথে বারি খেয়ে মদের বোতলটা ঝনঝন শব্দ করে উঠলো।তাতে রোশান কথা বললো।

রোশানঃ তমাল,আমাকে একটু একা থাকতে দেও।

জারা কোন উত্তর দিলো না। সে অন্ধকারে হাতড়ে লাইটের সুইচ খুঁজতে লাগলো। একসময় পেয়েও গেল।লাইট অন করতেই সাথে সাথে রোশান চোখ বন্ধ করে চোখের ওপর হাত দিয়ে চেচিয়ে উঠলো।

রোশানঃ তমাল লাইট বন্ধ করো।আমার চোখে লাগছে।

অপর দিক থেকে কোন উত্তর না আসায় রোশান পিটপিট করে চোখ খুললো।সামনে তাকিয়ে কিছুটা চমকে উঠলো। চোখ দুটো ভালো করে ডলে আবার তাকালো।না সে ভুল দেখছে না।তার চোখের সামনে হাত গুঁজে জারা দাঁড়িয়ে আছে।

রোশানঃ আজ এত তাড়াতাড়ি নেশা হয়ে গেলো। আমি চোখের সামনে জারাকে দেখতে পাচ্ছি।

জারাঃ তুমি ভুল নয় ঠিকই দেখতে পাচ্ছো।

জারার শব্দ পেয়ে রোশান অবিশ্বাস্য চোখে ওর দিকে তাকালো। তারপর বসা থেকে উঠে দৌড়ে এসে জারাকে জড়িয়ে ধরলো। এতে জারা একটুও অবাক হলো না। ওর জানা ছিলো রোশান এমনকিছুই করবে।বেশ কিছু সময় পর রোশানের ফোঁপানোর আওয়াজ পেলো জারা।তার মানে রোশান কাঁদছে।

জারাঃ কাঁদো রোশান, বেশি করে কাঁদো। এটাই হবে তোমার শেষ কান্না। আমি তোমাকে আর কাঁদতে দিবো না।এখন থেকে তুমি শুধু হাসবে।অনেক কষ্ট পেয়েছো একতরফা ভালোবেসে।নিজেও পেয়েছো আমাকেও দিয়েছো।কিন্তু আর নয়।এবার তোমাকে নিজের করে সব কষ্ট ভুলেও যাবো,তোমাকেও ভুলিয়ে দিবো।সব ঠিক করে ফেলবো আমি।সব ঠিক করে ফেলবো।
(মনে মনে)

মনে মনে কথাগুলো বলে একটা দীর্ঘশ্বাস ছাড়লো জারা।তবে তার চোখ দুটো চকচক করছে। নতুন আশায় যে সে দেশে ফিরেছে।এবার সে আশা পূরণ করবেই করবে।আর সেই আশাটা হলো রোশানের বউ হওয়া।রোশান এখনো জারাকে ধরে কান্না করেই যাচ্ছে। জারা চোখ বন্ধ করে আলতো করে ওর দুই হাত রোশানের পিঠে রাখলো।

#চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here