শিশির_ভেজা_রোদ্দুর Last_Part

0
274

শিশির_ভেজা_রোদ্দুর
Last_Part
#Writer_NOVA

সোফা থেকে উঠে রুমের দরজার সামনে গিয়ে দুই হাতে কান ধরে এনাজকে চেচিয়ে ডেকে উঠলাম,

— নাভানের আব্বু! দেখে যাও তোমার গুনধর পুত্র কি করছে।

এনাজ দ্রুত আমার পাশে এসে জিজ্ঞেস করলো,
— কি হয়েছে?

— তোমার ছেলের কান্ড দেখো😤।

— কি করছে?

— হেয়ার জেলটা টেবিলে কে রাখছে?

— আমি রেখেছিলাম। পরে আর রাখতে মনে নেই।

— সব দোষ এখন তোমার।

এনাজ নাভানের দিকে তাকিয়ে বললো,
— নাভান কি করছো এসব বাবা?

আমি রাগী গলায় এনাজকে বললাম,
— ও কিন্তু আমার হাতে মার খাবে।

— তুমি শান্ত হও আমি দেখছি।

— কি শান্ত হবো বলো তো? হেয়ার জেল দিয়ে সারা ডেসিং টেবিল, ওয়ারড্রব লেপছেন তিনি। বলছিলাম না আমাকে অবসর দেখতেই পারে না। এবার বিশ্বাস হলো তো।

এনাজ নাবাকে আমার কোলে দিয়ে রুমে ঢুকে গেলো। আমার বিচ্ছু ছেলে আমার কন্ঠ পেয়েই খাটের চিপায় লুকাইছে। টেবিলটের ওপর কিছু রাখলে তা নাভান অনায়াসে নাগাল পায়। হেয়ার জেল ওর আব্বু টেবিলের ওপর রাখছে। সেটা নিয়ে আমার পুত্রধন ডেসিং টেবিল, ওয়ারড্রবে সুন্দর করে লেপে দিছে। পরনের প্যান্ট,গেঞ্জির অবস্থাও নাজেহাল। এনাজ নাভানের সামনে গিয়ে বললো,

— কি করছো এসব বাবা?

নাভান একবার আমার দিকে তাকিয়ে ওর আব্বুকে বললো,
— বাবা, আমি একটু খেলছি।

আমি রেগে ফোঁস করে উঠে বললাম,
— তোর খেলা বের করছি আমি।

এনাজ আমাকে থামিয়ে দিয়ে বললো,
— আহ কি শুরু করলে তুমি? যাও গিয়ে সোফায় বসো।

— তোমার জন্য আমি ছেলেটাকে শাসন করতে পারি না। আদর দিয়ে বাদড় বানাচ্ছো। সব দোষ তোমার। তুমি কেন হেয়ার জেলটা টেবিলে রাখবে। এখন আমি কিছু করবো না। এগুলো সব তুমি পরিষ্কার করবে।

— আচ্ছা, আমিই করবো। যাও তুমি এখান থেকে।

আমি রাগে গজগজ করতে করতে দরজার সামনে থেকে সরে গেলাম। যেমন বাপ তেমন বেটা। মাঝখানে আমার জীবন তেজপাতা। প্রায় চল্লিশ মিনিট পর ছেলেকে নিয়ে এনাজ হাজির হলো। নাভানের হাত-পা ধুয়ে, ড্রেস পাল্টিয়ে সাথে করে নিয়ে আসছে। নাভান ভুলেও আমার সামনে আসছে না। ওর বাবার পিছনে লুকিয়ে আছে। আমি তাদের দিক থেকে দৃষ্টি সরিয়ে কাঠ কাঠ গলায় এনাজকে বললাম,

— খেতে এসো।

এক মিনিটও দাঁড়ালাম না। মেয়ে নিয়ে কিচেনে চলে গেলাম। এখন হারে হারে টের পাচ্ছি আমি কত জ্বালাতাম সবাইকে। সোফায় বসে বাপ-বেটা ফুসুরফাসুর করছে। আমি সেদিকে কান না দিয়ে খাবার বারতে লাগলাম।

— আম্মু সরি!

কিচেনের দরজার সামনে এসে মুখটাকে শুকনো করে কথাটা বললো নাভান। হাত দুটো বড় মানুষের মতো পেছনে রেখেছে। ওর দিকে তাকিয়ে আমার রাগ নিমিষেই ফুস। ফিক করে হেসে ওকে কাছে ডাকলাম।

— এদিকে এসো।

— না, তুমি পিট্টি দিবা।

— না আসলে দিবো।

— আচ্ছা, আসতেছি। তুমি মাইরো না।

— ঠিক আছে মারবো না এসো।

নাভান গুটি গুটি পায়ে আমার সামনে এসে দাঁড়ালো। আমি এক হাতে নাবাকে ধরে আরেক হাতে ওকে জড়িয়ে ধরে কপালে চুমু খেলাম।ওর ইনসেন্ট ফেস দেখে রেগে থাকার সাধ্যি আমার নেই।

— দুষ্টুমি করো না বাবা। তোমার আম্মু কি এতকিছু একা সামলাতে পারে বলো? তুমি তো গুড বয় তাই না? গুড বয় কি কখনো দুষ্টুমি করে বলো?

— একটুও না।

— তাহলে তুমিও করো না বাবা।

— আচ্ছা, আর করবো না। নাভান তো গুড বয়।

— হু, একটু পরই এসব ভুলে যাবে তাও আমি জানি। গুড বয়গিরিও ছুটে যাবে।

—😁😁

— আবার ইঁদুরের দাঁত দেখানো হচ্ছে পাঁজি ছেলে।

— লাবুউ আম্মু।

— লাভ ইউ টু বাবাই।

এনাজ দরজায় হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে দুই হাত গুঁজে বললো,
— আজ আমাকে কেউ ভালোবাসে না বলে।

নাভান দৌড়ে ওর বাবার কোলে উঠে বললো,
— লাবুউ বাবা।

— লাবুউ দুষ্টু ছেলে। আচ্ছা চলো আমরা খেতে যাই।

— আমি আর খাবো না বাবা।

— আচ্ছা তোমাকে খেতে হবে না। বাবা খাবে।

আমি পাতিল থেকে বাটিতে ডাল বেড়ে নিয়ে বললাম,
— তোমরা যাও আমি আসছি।

এনাজ নাভানকে নামিয়ে আমার থেকে নাবাকে কোলে নিলো। এক হাতে নাবাকে ধরে আরেক হাতে নাভানের হাত ধরে চলে গেল। আমি মুচকি হেসে বোলে ভাত বাড়তে লাগলাম।

💖💖💖

একসাথে খাবার খেয়ে দুটোকে ঘুম পারাতে এলাম। কন্যা আমার ঘুমানোর নামও নেয় না। নাভানকে ওর বাবা কোলে নিয়ে ঘুম পারিয়ে ফেলছে। আর নাবা দুষ্টুমি শুরু করছে। হঠাৎ চিৎকার করে মোবাইলের রিংটোনট বেজে উঠলো। হাতে নিয়ে দেখি তায়াং ভাইয়ার কল। কল রিসিভ করে বড় করে একটা সালাম দিলাম।

— আসসালামু আলাইকুম। কেমন আছিস ভাইয়া।

— ওয়া আলাইকুমুস সালাম। আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি। তোরা সবাই কেমন আছিস?

— আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি। কি করিস?

— এই তো মাত্র খাওয়া-দাওয়া শেষ করলাম। তোরা কি করিস?

— আমি নাবাকে ঘুম পারানোর চেষ্টা করছি। নাভানের আব্বু নাভানকে ঘুম পারাচ্ছে। নূর আপি, নূরিতা কি করে?

— নূর সারা রুম ঘুরে নূরিতাকে ঘুম পারাচ্ছে।

— খালামণি কেমন আছে?

— আছে আলহামদুলিল্লাহ ভালোই। তবে একটু প্রেসারটা বেড়েছে। এনাজ কোথায়?

— রুমেই আছে। কেন কোন দরকার?

— ওর নাম্বারে অনেকবার ট্রাই করলাম। কিন্তু রিসিভ হলো না। তাই তোকে কল করলাম।

— ওর মোবাইল বোধহয় নাভান সাইলেন্ট করে রাখছে। একটু আগে ছেলেটাকেই মোবাইল নাড়াচাড়া করতে দেখেছি। তা কিছু বলবি ভাইয়া?

— হ্যাঁ, বলার ছিলো।

— কি বলবি বল।

— আগামী রবিবার তন্বী আসবে। তোরাও চলে আসিস। তোদের দুজনকে একসাথে অনেকদিন দেখি না। একসাথে দেখলে মনে হয় সেই বিয়ের আগে যেরকম থাকতি সেরকমি আছে সবকিছু।

— ভাইয়া সেবারও তো একসাথে দেখলে।

— অনেক দিন হয়ে গেছে।

— তন্বীর সাথে তো দুপুরে কথা হলো। আমাকে তো কিছু বললো না।

— সন্ধ্যার সময় আম্মুকে কল করে বললো।

— ওহ আচ্ছা। কিন্তু তোর বন্ধুর অফিস আছে। কাজের অনেক চাপ। ওকে রাজী করা। আমি কিছু বলতে পারবো না। ও যদি রাজী হয় তাহলে আমার কোন আপত্তি নেই।

— এনাজের কাছে মোবাইল দে।

আমি বালিশের থেকে মাথা উঠিয়ে এনাজকে ডাকলাম,
— এই যে শুনছো?

— হুম বলো।

— তায়াং ভাইয়া তোমার সাথে কথা বলবে।

— মোবাইল দাও।

আমি এনাজকে মোবাইল দিলাম। সে কথা বলতে বলতে নাভানকে কোলে নিয়ে বারান্দার দিকে চলে গেলো। তাদের কথা আমি আর শুনতে পেলাম না।
তায়াং ভাইয়া বিয়ের পর থেকে সবসময় এমন করে। তন্বী এলে আমাকে খবর দিয়ে নিবে। আমি এলে তন্বীকে। দুজনকে ও সমান নজরে দেখে। যার কারণে এক বোন এলে আরেকজনকে আসতেই হয়। ওর মতো ভাই পেয়ে সত্যি নিজেকে গর্বিত মনে হয়। আজকালকার দিনে ওর মতো ভাই পাওয়া যায় না।কিছু সময় পর এনাজ ফিরে এলো।মোবাইল আমার বালিশের পাশে রেখে আমাকে বললো,

— তুমি রবিবার বাচ্চাদের নিয়ে তায়াং-দের বাসায় চলে যেয়ো।

— তুমি যাবা না?

— অফিস শেষ করে বিকালে যাবো।

— আচ্ছা।

এনাজ আবার নাভানকে নিয়ে সারা রুম পায়চারি করতে লাগলো।নাবা ঘুমাচ্ছে না। ড্যাব ড্যাব করে আমার দিকে তাকিয়ে কিছু সময় পরপর খিলখিল করে হাসছে।ওকে ঘুম পারাতে এসে আমি ঘুমে কাবু।চোখ টেনে মেলতে পারি না। আর উনি আমার ওড়না নিয়ে হাত-পা ছড়িয়ে ছিটিয়ে খেলছে। নাভানকে বালিশে শুইয়ে দিয়ে আমাকে বললো,

— নাবাকে দাও আমি ঘুম পারিয়ে দেই।

— নাও জলদী। আমি আর পারবো না। আধা ঘণ্টা ধরে ঘুম পারাতে গিয়ে আমি ব্যর্থ।

এনাজ নাবাকে কোলে নিয়ে সারা রুমের এদিক সেদিক পায়চারি করতে লাগলো। আশ্চর্যের বিষয় মিনিট দশকের মধ্যে নাবা ঘুমিয়ে গেলো। আমারও ততক্ষণে চোখ লেগে গিয়েছিলো। এনাজ গালে একটা চুমু খেয়ে নিচুস্বরে ডাকলো,

— টিডি পোকা!

অনেকদিন পর এই ডাক শুনে ফট করে চোখ খুলে তার দিকে তাকালাম। নাভান হওয়ার পর থেকে আমরা একে অপরকে নাভানের আম্মু,আব্বু বলে সম্বোধন করি। আমাকে অবাক চোখে তাকিয়ে থাকতে দেখে বললো,

— এভাবে তাকিয়ে আছো কেন?

— অনেক দিন পর পুরনো ডাক শুনলাম।

— নাবা ঘুমিয়ে গেছে। ওকে শুইয়ে দাও।

— এত তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে গেছে 😮? আমি গত আধাঘন্টাও পারিনি। আর তুমি দশ মিনিটে ওকে ঘুম পারিয়ে ফেললে।

— জ্বি মিসেস এনাজ আহমেদ।

— আমি বুঝতে পারছি তোমার ছেলে-মেয়েগুলো আমাকে ইচ্ছে করে জ্বালায়।

এনাজ মুচকি হেসে বললো,
— কে জানে হতেও পারে।

— হতেও পারে নয়, সত্যি কথা।

— তা আমার ছেলে-মেয়ে তোমার না?

— আমার হলে তো এতো জ্বালাতো না।

এনাজ এক গালে হেসে প্রসঙ্গ পাল্টিয়ে বললো,
— নাবাকে বালিশে শুইয়ে দাও।

আমি নাবাকে তার কোলের থেকে নিয়ে বালিশে শুইয়ে দিলাম। ওর জন্য এক ফিডার দুধ বানাতে হবে। তাই উঠে টেবিলের সামনে গেলাম। ফ্লাক্স থেকে ফিডারে গরম পানি নিয়ে ল্যাক্টোজেনের ডিব্বা থেকে দুধ নিয়ে ফিডারে দেওয়ার আগে দুই চামচ নিজের মুখে পুরে নিলাম। এনাজ আমাকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে বললো,

— আমিও তো বলি আমার মেয়ের দুধের ডিব্বার দুধ এত তাড়াতাড়ি শেষ হয় কি করে?

💖💖💖

আমি কিছুটা চমকে দ্রুত মুখ চেপে তার দিকে তাকালাম। সে যে রুমে ছিলো তা আমি ভুলে গেছি। নয়তো মুখে দিতাম না। মুখে গুঁড়ো দুধ থাকায় কথাও বলতে পারছি না। বাচ্চাদের দুধের ডিব্বা থেকে দুধ চুরি করে খাওয়া আমার পুরনো অভ্যাস। দুই বাচ্চার মা হয়েও এই অভ্যাস ত্যাগ করতে পারিনি। প্রায় প্রতিবার দুধ গুলতে এসে আগে নিজের মুখে গুঁড়ো দুধ পুরি।এনাজ আমার কাঁধে তার থুঁতনি রেখে বললো,

— বাচ্চাদের খাবার দেখছি তাদের মা সাবাড় করে ফেলে।

আমি ফিডার ঝাঁকাতে ঝাঁকাতে তার বুকে মৃদু করে এক কিল বসিয়ে দিয়ে বললাম,
— একটুও না।

— আমি তো আজ হাতেনাতে ধরে ফেললাম।

— ভালো করছো।

তাকে সরিয়ে নাবার মুখে ফিডার দিয়ে দিলাম। ঘুমের মধ্যে নাবা চুক চুক শব্দ করে দুধ খেতে লাগলো। এনাজ বিছানায় না শুয়ে আবার সোফায় গিয়ে বসেছে। নাবার খাওয়া শেষ হলে আমিও তার কাছে চলে গেলাম। এনাজের পাশে বসে জিজ্ঞেস করলাম,

— কাজ শেষ হয়নি।

— হুম শেষ। আরেকবার রি-চেইক দিলাম। তুমি গিয়ে ঘুমিয়ে থাকো। সারাদিন তো ধকল কম যায় না তোমার।

আমি তার কথার উত্তর না দিয়ে তাকে জড়িয়ে ধরে বুকে মাথা রাখলাম। হঠাৎ করে এমনটা হওয়ায় এনাজ কিছুটা চমকে গোল গোল চোখে আমার দিকে তাকালো। তারপর তার দুই হাত দিয়ে আমাকে আলতো করে জড়িয়ে ধরলো। তার বুকে মাথা রাখলে আমার সারাদিনের হয়রানি নিমিষেই শেষ হয়ে যায়। এনাজ নীরবতা ভেঙে বললো,

— সময় কত দ্রুত চলে যায় তাই না। আমার আজও মনে হয় সেদিন তোমায় বউ করে ঘরে তুললাম। আর আজ তুমি আমার দুই সন্তানের মা।

— আমারও তাই মনে হয়। সময় যেন চোখের পলকে বদলে যায়।

— এক শিশির ভেজা রোদ্দুরে তোমার পাশাপাশি হাঁটতে হাঁটতে নতুন জীবন গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলাম।তা বহু চড়াই উৎরাই পেরিয়ে পূরণ হয়েছে।এখন ছেলে-মেয়েদের মানুষের মতো মানুষ করতে পারলেই আমাদের লক্ষ্য পূরণ হবে।

— আমার এখনো মাঝে মাঝে মনে হয় এটা একটা স্বপ্ন। ভেঙে গেলেই সব হারিয়ে যাবে।

— জ্বি না মহাশয়া।

— জানি তো। তবুও কেন জানি মনে হয়।

এনাজ আমার কপালে আলতো করে ঠোঁট ছুঁয়ে আদুরে গলায় বললো,

— এই শুনোনা!

— বলো।

— ভালোবাসি।

— আমিও।

— আল্লাহর কাছে আমার একটাই প্রার্থনা তিনি যেন আমার বাকি জীবনটা তোমাদের সাথে কাটাতে দেয়। আমার মনের রাজ্যের রাণীর সাথে শেষ নিঃশ্বাস অব্দি থাকতে দেয়। তোমাকে ছাড়া আমার জীবন সত্যি অসম্পূর্ণ।

তার কথার মাঝে আমি বললাম,
— সরি!

এনাজ কপাল কুঁচকে আমার চোখের দিকে তাকিয়ে বললো,
— কেন?

আমি মুখ কুচোমুচো করে বললাম,
— সারাদিন ওদের সাথে চেচামেচি করতে করতে বেশিরভাগ সময় তোমার সাথে মেজাজ দেখাই। ঠিকমতো তোমাকে একটু সময়ও দেওয়া হয় না। এতে আমারি খারাপ লাগে।

এনাজ মুচকি হেসে আমার একটা হাত তার হাতের মুঠোয় নিয়ে গাঢ় করে চুমু খেয়ে বললো,
— কোন সমস্যা নেই। আমি তোমাকে বুঝি টিডি পোকা। আমি যেমন সারাদিন অফিসে কাজ করি।তেমনি তুমি সারাদিন সংসার সামলাও।আমার ছেলে-মেয়ে দুটো তোমায় অনেক জ্বালায়। এতে তোমার মেজাজ সবসময় চড়া ও খিটখিটে থাকে। এটা স্বাভাবিক। তোমাকে আমি বুঝতে পারি বলে আমার কোন অভিযোগ নেই। তুমি এত কষ্ট করো কার জন্য বলো তো? আমার সংসার, বাচ্চার জন্যই তো। আমি যদি তোমাকে না বুঝি তাহলে কে বুঝবে বলো?

আমি মুগ্ধ দৃষ্টিতে তার দিকে তাকিয়ে রইলাম। তারপর তাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে বললাম,

— অনেক ভালোবাসি তোমায় নাভানের আব্বু।সত্যি তোমাকে পেয়ে আমি ধন্য। তোমার মতো করে অন্য কেউ আমায় বুঝতে পারতো না।

— ভালোবাসি পাগলী।

আমি চুপ করে তার বুকে মাথা দিয়ে হৃৎপিণ্ডের ঢিপঢিপ শব্দ শুনতে লাগলাম। মানুষটা আমায় কত বুঝে! এমন স্বামী সবাই পায় না। এর একেকটা ভালোবাসার ধরণ দেখে আমি বারবার প্রেমে পরি। এক মানুষের ওপর বারবার প্রেমে পরার আনন্দই আলাদা। আমি এখন সেই আনন্দ উপলব্ধি করতে পারি। মাঝে মাঝে ভাবি রোশানের জন্য যদি নিজের জীবন বিসর্জন দিতাম তাহলে কি আজ এত সুন্দর জীবনের মুখোমুখি হতে পারতাম? একটুও না। নিশ্চয়ই আল্লাহ উত্তম পরিকল্পনাকারী। তিনি আমাদের জন্য মঙ্গলজনক জিনিসই রেখে দেন। কিন্তু আমরা বুঝতে না পেরে খামোখা মরীচিকার পেছনে ছুটি।

— টিডি পোকা!

তার নেশাক্ত কন্ঠ শুনে চোখ পিটপিট করে তাকালাম। দেখি সে ঘোর লাগানো দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। ধীরে ধীরে তার অধর যুগল আমার অধরের দিকে বাড়িয়ে দিচ্ছে। যেই মুহুর্তে মিলাবে সেই মুহুর্তে নাবা চিৎকার করে কেঁদে উঠলো। নাবার কান্না শুনে নাভানও উঠে গেছে। নাভান চেচিয়ে বললো,

— আম্মু, নাবা উঠে গেছে।

এনাজ আমার দিক থেকে সরে গেলো। তারপর একবার কাঁদো কাঁদো ফেস করে আমার দিকে তাকিয়ে তারপর ইশারায় যেতে বললো। আমি কপালে একটা চাপড় মেরে বললাম,

— আমার শান্তির দিন শেষ। দুই বিচ্ছু জ্বালিয়ে ভাজা ভাজা করার দিন শুরু হয়ে গেছে।

— ছেলে-মেয়ে দুটোকে কি এখুনি উঠতে হলো? আরেকটু পরে উঠলে কি হতো🥺?

— তা ওদের জিজ্ঞেস করো। আমি কি শুধুই বলি ওরা আমার জীবন তেজপাতা বানাচ্ছে।

— কতদিন পর একটু বউরে কাছে পেয়েছিলাম। তাও ওদের সহ্য হলো না। দুজনেই একসাথে উঠে গেছে। একেই বলে কপাল🤦‍♂️।

কি আর করার দ্রুত এনাজের সামনে থেকে সরে রুমের দিকে যেতে লাগলাম। একবার পেছন দিকে তাকিয়ে দেখি এনাজ অসহায় চোখে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। ওর তাকানো দেখে আমার ভীষণ হাসি পাচ্ছে। আপাতত হাসা যাবে না। মেয়ে আমার চিৎকার করে কেঁদে হয়রান হয়ে যাচ্ছে। সেদিকেই বরং ছুটে যাই।

~~~~~~~~~~~~(সমাপ্ত)~~~~~~~~~~~

আসসালামু আলাইকুম। অবশেষে গল্পটা শেষ হলো।প্রায় তিন মাস যাবত এই গল্পটা লিখছি। এখন অব্দি যত গল্প লিখছি তার মধ্যে এটাই আমার সবচেয়ে বড় গল্প। এভাবে ৭১ পর্বের গল্প হলেও এক্সট্রা, স্পেশাল, সারপ্রাইজ ইত্যাদি সব মিলিয়ে ৭৮ টা পর্ব হয়েছে। সত্যি বলতে এই গল্পে আমি আপনাদের এতো ভালোবাসা পাবো ভাবতেই পারিনি। গল্পটা শেষ হলে আমার একটু বেশি খারাপ লাগবে। এতদিন ধরে লিখতে লিখতে এর মায়ায় পরে গিয়েছি। আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি একটা মধ্যবিত্ত পরিবারের চিত্র তুলে ধরতে। জানিনা কতটা সফল হয়েছি। শেষটা ভালোভাবে উপস্থাপন করতে পেরেছি কিনা তাও জানা নেই। তবে আমি আমার সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করেছি। খারাপ হলে কিছু করার নেই। খুব শীঘ্রই নতুন গল্প নিয়ে হাজির হবো। ততদিন সবাই ভালো থাকবেন,সুস্থ থাকবেন এবং নিজের খেয়াল রাখবেন। আর কিছু লিখতে পারবো না। ভীষণ খারাপ লাগছে। আল্লাহ হাফেজ 💖।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here