তুমি_তাই অরিত্রিকা আহানা পর্বঃ২৬

0
118

#তুমি_তাই
অরিত্রিকা আহানা
পর্বঃ২৬

নিলি গিয়ে রেজোয়ানের বিছানার পাশে বসলো।
আলতো করে কপালে ঠোঁট ছোঁয়াতেই রেজোয়ান সচেতন হলো। ঘুমঘুম চোখে মুচকি হেসে জিজ্ঞাসা করলো,’এসেছো নিলি?’

নিলির চোখ ভিজে গেলো। দুগাল বেয়ে অঝোর ধারায় গড়িয়ে পড়ছে নোনা জল। এত ভালোবাসা তাঁর পাওয়া ছিলো কিনা সে জানে না। রেজোয়ান নির্ঘাত পাগল। নতুবা এমন একটা মেয়েকে কেউ ভালোবাসে?
রেজোয়ান আবার চোখ বন্ধ করলো। নিলি তাঁর জন্য কাঁদছে। স্বপ্নেই সম্ভব। কাঁদুক! বেশ করে কাঁদুক। রেজোয়ান তো চায় নিলি তাঁর জন্যে কাঁদে! ছটফট করে। নইলে তাঁর অহংকারী পুরুষসত্তাটা যে ভীষণভাবে আঘাত পায়।

নিলি নিজের মাথাটা রেজোয়ানের বুকে স্থাপন করলো। কানের কাছে মুখ নিয়ে ফিসফিস করে বললো,’অপরাধিনী হাজির। শাস্তি দেবে না?’

-‘শাস্তি তো দিচ্ছিই।’

-‘নিজেকে কষ্ট দিয়ে এ কেমন শাস্তি?’

-‘এই হলো উপযুক্ত শাস্তি। এমন শাস্তি সবাই দিতে পারে না।’

নিলি ফের ফুঁপিয়ে উঠলো। রেজোয়ানের গলা জড়িয়ে ধরে বললো,’রোজ এত মানুষ মরে আমি কেন মরি না বলতে পারো? কেন আমি বারবার বেঁচে যাই?’

রেজোয়ান তাঁর মাথার একগাছি চুল আঁকড়ে ধরলো। চোখ বন্ধ রেখেই মিটিমিটি হাসলো। এ-তো স্বপ্ন নয়! চোখের পানিতে তাঁর বুক ভিজে যাচ্ছে ! শান্তি! উত্তপ্ত বুকে জল ঢেলে দিয়েছে এই অনুতাপের অশ্রুবিন্দু। পুরুষসত্তা স্বার্থক। এবার হবে প্রতিঘাতের পালা।

নিলি মুখ তুলে চুমু খেলো রেজোয়ানের বন্ধ চোখের পাতায়। ফিসফিস করে বললো,’আমি তোমাকে ভালোবাসি!’

রেজোয়ান মুচকি হাসলো। বললো,’শুনতে পাই নি।’

-‘আমি তোমাকে ভালোবাসি।’

-‘হ্যাঁ? কি বললে?’

-‘আমি তোমাকে ভালোবাসি।’

-‘সাজা মওকুফ এর ফন্দি করছো? সে হবে না।’

-‘অপরাধী স্বেচ্ছায় সাজা নেওয়ার জন্য প্রস্তুত।’

-‘বেশ তবে আজ থেকেই শুরু হোক।’

-‘হোক তবে। কিন্তু শাস্তিটা কি?’

ঘুমটা ভেঙ্গে গেলো রেজোয়ানের। চোখ মেলে উদ্ভ্রান্তের মত এদিক ওদিক চাইলো সে। এতক্ষণ তাহলে স্বপ্ন দেখছিলো ! আশ্চর্য! এমন স্বপ্ন কেন দেখলো? এসব কি হচ্ছে তার? কেন বারবার নিলির চেহারাটাই চোখের সামনে ভেসে ওঠছে? নিলি ভালো নেই বলেই কি? তবে কি রেজোয়ান এখনো কাছে পেতে চায় নিলিকে?
দুহাতে মুখ ঢেকে বিছানায় বসে রইলো কিছুক্ষন। বুকের ভেতর তোলপাড় চলছে। এত কষ্ট নিয়ে বেঁচে থাকতে মন চাইছে না। খাটের পাশে ফটোফ্রেম টাতে মেয়েদুটোর ছবি। সেদিকে তাকিয়ে দীর্ঘশ্বাস ছাড়লো রেজোয়ান। তারপর উঠে ফ্রেশ হতে চলে গেলো।

জাহিদের সঙ্গে একটা ব্যবিসায়িক মিটিংয়ে অ্যাটেন্ড করতে হবে রেজোয়ানকে। বিদেশে যাওয়ার আগে যদিও পুরোনো কম্পানীটা সে বেচে দিয়েছিলো কিন্তু সেখানে গিয়ে নতুন করে আবার একটা ব্রাঞ্চ খুলেছে বাংলাদেশে। গত একবছর আগেই ইনোগ্যরেশন হয়েছে ব্রাঞ্চটার।
এটার দায়িত্ব অবশ্য পুরোপুরি জাহিদের ওপরেই। জাহিদই সবকিছু একা হাতে সামাল দেয়। রেজোয়ানকে এদিকটা নিয়ে এত ভাবতে হয় না। কিন্তু আজকে জাহিদ ভীষণ ভাবে জোর করলো অফিসটা দেখে আসার জন্য। তাই বাধ্য হয়ে মিটিং অ্যাটেন্ড করতে রাজি হয়েছে।

রেডি হচ্ছিলো, এমন সময় শায়লা মুরসালীন এসে ঘরে ঢুকলেন। খাটের ওপর বসতে বসতে বললেন,’কোথাও বেরোবি?’

-‘হ্যাঁ। বনানী যাবো। কেন তোমার কিছু লাগবে?’

-‘না। তুই ফিরবি কখন?’

-‘ফিরতে ফিরতে রাত হবে। তোমরা খেয়ে নিও।’

-‘তোর সঙ্গে আমার কিছু কথা ছিলো। খুব জরুরি।’

রেজোয়ান টাই বাঁধছিলো। বাঁধা শেষে ড্রেসিংটেবিলের ওপর থেকে ঘড়িটা নিলো। সেটা পরতে পরতে বললো,’বলো। কি বলবে?’

-‘এদিকে আয়। আমার কাছে এসে বস।’

মায়ের আবদার সুলভ কন্ঠস্বর শুনে রেজোয়ান সাবধান হয়ে গেলো। বললো,’তুমি আমার বিয়ে নিয়ে আবার ঝামেলা করতে এসেছো। তাই না?’

-‘মোটেই না। ঝামেলা তো তুই করছিস আমার সঙ্গে। মা হয়ে ছেলের বিয়ে দেওয়ার অধিকার কি আমার নেই? নাকি তোর মা হয়ে পাপ করেছি আমি? সেইজন্য শাস্তি দিচ্ছিস আমাকে?’

-‘এসব তুমি কি বলছো মা?’

-‘একদম ঠিক বলছি। তোর কাছে আগের মত আমার কথার এখন কোন দাম নেই।’

মা খেপে গেছেন বুঝতে পেরে রেজোয়ান খাটে এসে বসলো। হেসে উঠে বললো,’অনেক হয়েছে মা। এবার একটু থামো। কম মেয়ে দেখেছো এই পর্যন্ত? কোন লাভ হয়েছে কি? কোন লাভ হয় নি। প্রতিবারই একটা না একটা ভেজাল লেগেছে। তাই এসব বিয়ের চিন্তা বাদ দিয়ে তুমিও শান্তিতে থাকো আমাকেও শান্তিতে থাকতে দাও। বোঝার চেষ্টা করো, এখন আর আমার বিয়ে নিয়ে লাফালাফি করার বয়স নেই। পঁয়ত্রিশ পেরিয়ে অলরেডি ছত্রিশ পা দিয়েছি।’

-‘চুপ কর। এসব বলে তুই আর আমাকে ভুল বোঝাতে পারবি না। বিয়ে কেন হচ্ছে না, সেটা আমি ভালো করেই জানি। তুই সবাইকে গিয়ে বারণ করে দিস।’

-‘কি বলছো তুমি মা?’ রেজোয়ান হেসে ফেললো। বললো,’সেরকম হলেও বা সবাই আমার কথা শুনবে কেন?’

-‘কেন শুনবে তা আমি কি জানি? কিন্তু তুই যে ওদের বারণ করে দিস সেটা আমি ভালো করেই জানি। তাই এবার আর তোর কোন কথা শুনবো না। আমার পছন্দের পাত্রীর সঙ্গেই তোর বিয়ে দেবো।’

-‘কোন লাভ হবে না মা। আমি বিয়ে করবো না।’ অগত্যা সত্যিটা স্বীকার করে নিলো রেজোয়ান। বারবার বিয়ে নিয়ে শায়লা মুরসালীনের চাপাচাপি তাঁর আর ভালো লাগছে না। মায়ের অজান্তে পুরোনো বিয়েগুলো সে নিজেই ভেঙ্গেছিলো। কিন্তু এখন যখন মা সবটা জেনে গেছে তখন আর সত্যিটা লুকিয়ে কোন লাভ নেই। তারচেয়ে বরং তিনি সত্যিটা জানলে আরো বেশি উপকার হবে। একবারেই ঝামেলা মিটে যাবে। আর বিয়ে নিয়ে জোরাজুরি করবেন না।’

রেজোয়ানের জবাব শুনে চমকালেন না শায়লা মুরসালীন। তিনি আগেই জানতেন রেজোয়ান এমন উত্তর দেবে। সামান্য হেসে জিজ্ঞেস করলেন,’নিলিকেও না?’

নিলির নাম শুনতেই থমকে গেলো রেজোয়ান। কয়েকমুহূর্তের জন্য মস্তিষ্ক অনুভূতি শূন্য মনে হলো! তারপর ধীরে ধীরে একটু আগের স্বপ্নটার কথা মনে পড়লো। দীর্ঘশ্বাস ছাড়লো রেজোয়ান। নিজেকে সামলে নিয়ে বললো,’না। কাউকেই না।’

-‘তবে আমি যে ওকে রাজী করাবো বলে জাহিদকে ঠিকানা জোগাড় করতে বলেছিলাম তার কি হবে?’

-‘তোমার সঙ্গে দেখা হয়েছে ওর?’

-‘না। কি করে দেখা হবে? আমি ওর ঠিকানা জানি মাকি?’, মিথ্যে বললেন শায়লা মুরসালীন। রেজোয়ানের মুখ থেকে বিয়ের জন্য ‘হ্যাঁ’ না শোনা অব্দি তিনি মুখ খুলবেন না।

-‘তাহলে হঠাৎ ওর কথা উঠলো কেন?’

-‘তুই যখন ওকে ভুলতেই পারবি না তখন তো ওর কথা উঠবেই। ওর সঙ্গেই আমি তোর বিয়ে দেবো।’

-‘কি বলছো কি তুমি? আমি তোমাকে একবারও বলেছি আমি ওকে বিয়ে করবো?’

-‘তাহলে আমি অন্য মেয়ে দেখবো?

-‘বললাম তো আমি কাউকেই বিয়ে করবো না। তাছাড়া তোমার সঙ্গে অনেকবারই আমি মেয়ে দেখতে গিয়েছি। কাজের কাজ কিচ্ছু হয় নি। এখন এসব বাদ দাও।’

-‘মায়ের সঙ্গে চালাকি করার চেষ্টা করবি না রেজোয়ান। তুই এড়িয়ে গেলেও কোন লাভ হবে না। আমি তোর বিয়ে দিয়ে তবেই দেশ ছাড়বো।’

-‘এসব কেন করছো মা? নতুন করে আবার মেয়ে দেখতে যেতে হবে তোমার সঙ্গে? সেইজন্যই এত বাহানা করছো? ঠিক আছে যাবো। কিন্তু এখন আমার বেরোতে হবে।’

-‘মেয়ে আমি দেখেই এসেছি। তুই শুধু বিয়ের জন্য হ্যাঁ বলে দে।’

-‘পাত্রী কে?’

-‘নিলি।’

-‘তুমি না বললে ওর সঙ্গে তোমার দেখা হয় নি?’

-‘না হয় নি। তো কি হয়েছে? ওকে আমি আগে দেখেছি না?

-‘মা সত্যি করে বলো তো ওর সঙ্গে কি তোমার দেখা হয়েছে?’

-‘না। জাহিদকে বলেছি খুঁজে বের করতে।’

-‘কোন দরকার নেই। এসবের মধ্যে তোমার ঢোকার কোন দরকার নেই। আমি তোমাকে রিকোয়েস্ট করছি মা তুমি প্লিজ আমাদের দুজনের মধ্যে ঢুকো না। ওর সঙ্গে আমার সারা জীবনের মতন বোঝা পড়া চলছে। আমাকে আমার বোঝাপড়াটা করতে দাও।’

-‘তবে তুই তোর বোঝাপড়া নিয়েই থাক। আমি আর তোর সঙ্গে ফিরবো না। এখানেই থাকবো। ফুয়াদ যদি রাখতে রাজি না হয় তাহলে ওকে বলবো ওর পরিচিত কোন বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসতে। সংসার যখন করবি না তখন আর আমাকে ফিরিয়ে নিয়ে কি লাভ। নিজের নাতি নাতনী তো আর দেখবো না?’

রেজোয়ান রাগতে গিয়েও রাগলো না। এই একটা কাজই তাঁর মা খুব ভালো মত পারে। সেটা হচ্ছে ব্ল্যাকমেইলিং। ব্ল্যাকমেইল করে করেই একসময় নিলির সঙ্গে দূরত্ব টাও বাড়িয়েছিলেন। এখন আবার তাঁর সঙ্গেই বিয়ে দিতে চাইছেন। অদ্ভুত মহিলা তাঁর মা!
তবুও রেজোয়ান মাকে ভালোবাসে। খুব ভালোবাসে। মায়ের বয়সও হয়েছে। এই বয়সে ছেলের কাছ থেকে কোন কঠিন কথা তিনি সহ্য করতে পারবেন না। আর সবচেয়ে বড় কথা হলো, যার জন্য রেজোয়ান কঠিন কথা বলবে সে নিজেও তো রেজোয়ানের ভালোবাসার মূল্য দেয় নি। তবে দোষটা কাকে দেবে রেজোয়ান?

দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে উঠে দাঁড়ালো সে। গায়ে কোট জড়িয়ে নিয়ে বললো,’আমি রাতে এসে তোমার সঙ্গে এই ব্যাপারে আলাপ করবো। এখন আমার দেরী হয়ে যাচ্ছে। আসি!’

কথা শেষ করে শায়েলা মুরসালীনের কপালে চুমু খেলো সে। হাত দুটো ধরে তালুতেও চুমু খেলো। মুচকি হেসে বললো,’আসি মা।’

শায়লা মুরসালীলের ক্রমাগত ফোন পেয়ে একপ্রকার বাধ্য হয়েই কাজ ফেলে বেরিয়ে পড়লো রেজোয়ান। তথাপি ফিরতে ফিরতে রাত বারোটার মতন বেজে গেলো। কিন্তু বাসায় ঢুকেই হতবম্ভ!
ভেতরে এলাহি আয়োজন চলছে। রান্নাবান্না, সাজগোজ এর বাহার দেখা মনে হচ্ছে বড় কোন অনুষ্ঠান। রেজোয়ান কিছুতেই বুঝতে পারছলো না। তাকে দেখে হাসিমুখে এগিয়ে এলেন শায়লা মুরসালীন। অন্যদিকে ফুয়াদ আর তিন্নি কোন কারণ ছাড়াই মুখটিপে হাসছে। রেজোয়ান ইশারায় জিজ্ঞেস করলো কি হয়েছে। ওরা কেউ কোন জবাব দিলো না।

-‘মেহমান এসেছে নাকি মা? বাসায় এত ভীড় কেন?’

-তোর বিয়ে। তাই আত্মীয়স্বজন সবাইকে খবর দিয়েছি।’ কথা শেষ বেশ বড়সড় একখানা গর্বিত হাসি উপহার দিলেন শায়লা মুরসালীন। সেইসঙ্গে ফুয়াদও ফোঁড়ন কেটে বললো,’তোর মেয়েরা কিন্তু তাদের নতুন মাকে খুব পছন্দ করেছে। কোলের ওপর উঠে বসে আছে দুজনে।’

রেজোয়ান স্বপ্ন দেখছে নাকি সত্যি কিছুই বিশ্বাস করতে পারছে না। মা এত রকেটের গতিতে নিজের কার্যসিদ্ধির জন্য এগোবেন সে ভাবতেই পারে নি। ভেবেছিলো বাসায় এসে তাঁকে বুঝিয়ে শুনিয়ে ঠান্ডা করে ফেলবে। কিন্তু এখন তো দেখছে মা ই উল্টো ওকে ঠান্ডা করে দিয়েছে। এমন হবে জানলে রেজোয়ান আজকে বাসাতেই ফিরতো না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here