গল্পঃ- পিচ্চি বউ পর্বঃ-৯

0
149

গল্পঃ- পিচ্চি বউ
পর্বঃ-৯
.
অনেকটা সময় একত্রে পাড় করেছি পাগলীটার সাথে, তাই জীবনটা রুটিন মাফিক হয়ে এসেছে।
সকালে মিথুর মিষ্টি কন্ঠে ঘুম ভাঙ্গে, নাস্তা করে অফিসে যাই, লাঞ্চ টাইমে সময় পেলে বাসায় আসি, নাহলে মিথু নিজে খাবার নিয়ে অফিসে চলে যায়। সারাদিন যুদ্ধ শেষে ক্লান্ত পরিশ্রান্ত দেহ নিয়ে বাড়িতে ফিরতে হয়। কখনো ভাবতে পারি নি, মিথুর মত একটা মেয়ে, এত সংসারি হয়ে উঠবে, আম্মু তার হাতে সব কিছু বুঝিয়ে দিয়ে বিশ্রাম করছে। আর সেও একহাতে আম্মুর দেখাশুনো দেখে শুরু করে আমার খেয়াল রাখা, সকল কিছু একহাতে সামলাচ্ছে।আজকাল রান্না-বান্নার কাজটাও নিজে করতে শুরু করেছে। তাতে আমার অবস্থা কিছুটা বিপন্ন, কারণ আম্মাজান আমাকে ভুলে তার বউকে নিয়ে সব কিছু করছেন। যাক ভালোই হল, নিজের উপর এখন এতটা চাপ আসে না।
.
কিন্তু আব্বু বিশেষ একটা কাজে দেশের বাইরে যাওয়ায় একা সকল দিক দেখতে হচ্ছে। অফিসের বাইরে ফ্যাক্টরিগুলোতে বেশি সময় দিতে হচ্ছে, আজকে হুট করে অফিস থেকে বেড়িয়ে গেছি, আমার খেয়াল নেই মিথুকে ফোন দিয়ে বলে দিব আজকে আর বাসায় আসা হচ্ছে না, একদম মনে নেই। হাতে ফোন সব নিয়েছি এর মধ্যে মিথুর ফোন,
-হ্যালো
-হ্যাঁ বলো…
বলতে ভুলে গেছি, আজকাল বউ আমার, তুই বাদ দিয়ে তুমি ডাকতে শুরু করেছে। আমাকেও বাধ্য করে তাই করতে হচ্ছে।
-কোথায় আছ তুমি?
-একটু বাইরে এসেছি।
-লাঞ্চ করতে আসবে না?
-মনে হচ্ছে না। ফ্যাক্টরিতে এসেছি, তোমাকে ফোন দিব একদম খেয়াল ছিল না।
-ঠিক আছে
বলে রেখে দিল। রাগ করেছে পাগলীটা। আমি বাসায় না ফিরলে না খেয়ে বসে থাকবে। তাই শশব্যস্ত হয়ে সব কিছু শেষ করে বাসার উদ্দেশ্যে বের হলাম। রাস্তা থেকে একটা গোলাপ ফুল নিয়ে নিলাম। অনেকটা সময় পর বাসায় গিয়ে পৌঁছলাম। কলিং বেল দিতেই আম্মু দরজা খুলে দিল,
-কি রে বাবা, আজকে এত দেড়ি করলি কেন? মেয়েটা না খেয়ে বসে আছে।
-আসলে আম্মু, আমার একদম মনে ছিল না, আব্বু বাইরে যাওয়ায় অনেক বেশি চাপ পরছে আমার উপর।
-তাই বলে, আপন মানুষ গুলোর কথাও বেমালুম ভুলে যাবি?
-তুমি খেয়েছ?
-হ্যাঁ, মিথু আমাকে খাইয়ে দিয়ে রুমে গিয়ে বসে আছে।
-আচ্ছা আমি দেখছি।
.
ফুলটা পিছনে রেছে, রুমে গিয়ে দেখি মিথু শুয়ে আছে,
-মিথু
-এসছেন জনাব? না আসলে হত না?
কিছুটা অপরাধী ভঙ্গিতে বললাম,
-আসলে, জানই তো, কত দিক একা মানুষ সামাল দিতে হয়।
ফুলটা বের করে তার কাছে দিলাম,
-বাব্বাহ, ঘুষ দেওয়া শিখেছ?
-হা হা, শোন তাড়াতাড়ি টেবিলে খাবার দাও, আমি আসছি।
ফ্রেস হতে চলে গেলাম। রুম থেকে বেড়িয়ে সোজা ডাইনিং রুমে চললাম, মিথু টেবিলে অপেক্ষা করছে। চেয়ার টেনে বসে পরার সাথে সাথে খাবার তুলে দিল, খাওয়া শুরু করেছি,
-আচ্ছা, প্রতিদিন আমার জন্য বসে থাকতে হয়? আম্মুর সাথে খেয়ে নিলেই তো পার।
-কখনো কি এমনটা হয়েছে?
-হয়নি তবে, ব্যস্ততা বাড়ছে। আর অনিয়ম করলে তো অসুস্থ হয়ে পরবে।
-কিছু হবে না। শোন, তোমাকে আর আজকে অফিসে যেতে হবে না।
-সে কি? কেন? কত কাজ বাকি পরে আছে।
-আমি শ্বশুড় মশাইয়ের সাথে কথা বলেছি, সে তোমাকে আর আম্মু কে নিয়ে আমাদের বাড়িতে যেতে বলেছে। আর অনেকদিন তো আমাদের বাড়িতে যাওয়া হয় না, তাই একটু খারাপ লাগছে।
-আম্মুর সাথে কথা বলেছ?
-হ্যাঁ। সে রাজি। আর আব্বুও দেশের বাইরে থেকে সোজা আমাদের বাড়িতে চলে আসবে।
ভালোই হল, অনেকদিন মিথুকে সময় দিতে পারছি না। আর যান্ত্রিকতার ভিতর থাকতে থাকতে হাপিয়ে উঠেছি।
.
সেদিন রাতেই আম্মু আর মিথুকে নিয়ে মামা বাড়ি দুঃখিত শ্বশুড় বাড়িতে রওনা দিলাম। অনেকটা পথ, আর সারাদিনের ক্লান্তি, সব মিলিয়ে যদিও কিছুটা শোচনীয় অবস্থা। তারপরেও কিছু করার নেই। সারা রাতের গাড়ি জার্নির পর ভোরে পৌঁছে গেছি। কিন্তু গিয়ে মোটামুটি সাইজের ছ্যাকা খেলাম। পুরো বাড়ি সেই আমাদের বিয়ের দিনের মত সাজানো। মনে মনে ভাবতে লাগলাম, মিথুর কোনো বোন নেই। সেও আমার মত একা। তাই কারো বিয়ে হওয়ার প্রশ্নই আসে না। কিন্তু এভাবে সাজানোর মানে কি?
.
কলিং বেল টিপতেই শ্বশুড় শ্বাশুড়ি একত্রে দরজা খুলে দিল। তাদের হাসি মুখ দেখে কিছুটা সন্দেহ হচ্ছে,
-কেমন আছিস তোরা?
আমি কিছু বললাম না, মিথু জবাব দিল,
-ভালো। তোমরা?
-হ্যাঁ ভালো।
বলেই ভিতরে ঢুকে গেল। আমি সোজা মিথুর রুমে চলে গেলাম। কিছুক্ষণ পর সে ও রুমে চলে আসল।
-এই শোন
-হুম বল
-তোমার বাবা কি আবার বিয়ে শাদী করবে নাকি?
-যাহ্ শয়তান, কি বলছ এইসব?
-তাহলে বাড়ি সাজিয়েছে কেন?
-আমাদের বিয়ের পরে আগামী পরশু আমার প্রথম জন্মদিন। তাই সবাই একসাথে সেলিব্রেট করবে তাই।
-ওহ
.
সেড়েছে, আমি ভুলেই গিয়েছিলাম, মিথুর বার্থডে সামনে। কোনো এক অজানা কারণে আমি কারো জন্মদিন মনে রাখতে পারি না। এমন কি, নিজের ক্ষেত্রেও, কেউ যদি উইশ না করে তাহলে বলতে পারি না আজকে আমার জন্মদিন। পরলাম আরেক বিপদে। বিয়ের পরে তার প্রথম জন্মদিন, কিছু একটা না দিলে কেমন লাগে? হয়ত সে মুখ ফুটে কিছু চাইবে না, কিন্তু নিজের কাছে খারাপ লাগছে। আব্বুকে ফোন দিলাম,
-হ্যালো, আব্বু
-জ্বি বাবা, বল
-আপনি কি আজকেই ফিরবেন?
-হ্যাঁ, এইত কিছুক্ষণ পরেই ফ্লাইট। হোটেল থেকে বের হব।
-আসলে আব্বু, একটা সমস্যা পরেছে।
-কি হয়েছে বাবা, তোমার শরীর ঠিক আছে তো?
-আসলে সবই ঠিক আছে, কিন্তু আপনি তো মিথুদের বাড়িতে চলে আসতে বললেন, আমরা আম্মুকে নিয়ে চলেও এসেছি।আমি ভুলেই গিয়েছিলাম, মিথুর জন্মদিন। কিছু একটা না দিলে কেমন দেখায়?
-ঠিক আছে বাবা, তোমাকে চিন্তা করতে হবে না। আমি ব্যবস্থা করছি।
-TanQ আব্বু
-Always welcome
বলে ফোন রেখে দিলাম। যাক, নিশ্চিন্ত হলাম। আসলে দুনিয়াতে বাবাগুলো কেন জানি না অনেক বেশি ভালো হয়। তারা জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত সন্তানের মাথার উপর বট বৃক্ষের মত ছায়া দিয়ে যায় নিঃসার্থ ভাবে। দুনিয়াতে হয়ত খারাপ পুরুষ থাকতে পারে। কিন্তু খারাপ একজন বাবা নেই..
.
সারা রাত গাড়ির জার্নি করে এসেছি, ভাবলাম একটু বিশ্রাম নিব, তা আর হচ্ছে কোথায়? বাড়ি ভর্তি মানুষজন, হৈ চৈ লেগেই আছে। তবে সব থেকে মজার ব্যাপার হচ্ছে, এদের মধ্যে বেশির ভাগ মানুষকে আমি চিনি না। আম্মু ধরে ধরে একেক জনের সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে, আর আমি সুবোধ বালকের মত দেখে যাচ্ছি। মিথু এসেই তার দুঃসম্পর্কের এক বোনের বাবু নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পরেছে। ব্যক্তিগত ভাবে বাচ্চাদের আমার খুবই ভালো লাগে। কিন্তু এই বাচ্চাটাকে কেন জানি না একটু বেশি ভালো লাগছে। তাই আমিও মিথুর সাথে বাবুটাকে নিয়ে ছাঁদে চলে গেলাম। হঠাৎ আকাশটা মেঘাচ্ছন্ন হতে শুরু করেছে। আমার কোল থেকে বাবুটাকে মিথুর কাছে দিয়ে ওর মায়ের কাছে রেখে আসতে বললাম। বৃষ্টির পানি গায়ে পরলে হয়ত ঠাণ্ডা লেগে যেতে পারে। মিথুও তাই করল। সে নিচে চলে গেল। আমি ছাঁদের কর্নারে রাখা দোলনায় একা বসে থাকলাম। মুষল্ধারে বৃষ্টি শুরু হল। তারপরেও বসে থাকলাম, মিথুও চলে আসল প্রায় সাথে সাথেই,
-এই, নিচে যাবে না? বৃষ্টিতে ভিজলে জ্বর আসবে তোমার!
-আসুক। অনেক দিন একসাথে ভেজা হয় না।
সে মৃদু হেসে আমার পাশে এসে বসে পরল,
-হয়ত উপরওয়ালা আজ খুব খুশি, তাই এত সুন্দর বৃষ্টি উপহার দিচ্ছেন
-হ্যাঁ। ঠিকই বলেছ
-হয়ত আরো কিছু উপহারও রয়ে গেছে।
-যেমন?
-সেটা না হয় কালকে জানতে পারবে।
জন্মদিন তার, অথচ উপহার আমার জন্য অদ্ভুত।
.
সকাল সকাল উঠে পরেছি আজ, চারিদিকে ব্যস্ততা। এক কাপ চা পর্যন্ত খাওয়া হয় নি, রুম থেকে বাইরে যাওয়ার জন্য পা বাড়িয়েছি, এর মধ্যে আব্বুর সাথে দেখ,
-এই যে অভ্র, তোমাকেই খুঁজছিলাম
-কেন আব্বু?
-এই নাও, যেটার কথা বলেছিলে।
আমার হাতে প্যাকেটে মোড়ানো কি যেন একটা হাতে দিয়ে আব্বু চলে গেল। আবার রুমে ঢুকলাম। খুলে দেখি, মিথুর জন্য ডায়মন্ড রিং। বাহ, অসম্ভব রকম সুন্দর, বলতে দ্বিধা নেই, আমার থেকে আমার বাবার পছন্দ অনেক বেশি ভালো। মিথুর আজ সারাদিন দেখা নেই। আমিও খুব একটা চিন্তা করলাম না। অনেক দিন পর এসেছে বাবার বাড়িতে হয়ত সকলের সাথে আড্ডা দিচ্ছে। রুমে এসে আমিও রেডি হয়ে বের হলাম, তার দেখা মিলল সন্ধায় কিছুটা আগে, একেবারে পরীর মত লাগছে তাকে। নীল রঙ এর শাড়িতে তাকে অসম্ভব রকমের সুন্দর মনে হচ্ছে।দু’চোখের পাশের কাজল দেওয়াতে চোখের গভীরতা কয়েক হাজার গুণ বেড়ে গেছে। মনে হয় সে গভীরতা মাপতে গেলে আমি অতলে হারিয়ে যাব।
.
ডাক পড়ল তাই দুইজন একত্রে গেলাম, কেক কাটলাম, ফর্মালিটি শেষ করে, তার হাত ধরে, রিং টা পরিয়ে দিলাম। অনেক বেশি অবাক হয়েছে পাগলীটা। অবিশ্বাসের ভঙ্গিতে তাকিয়ে আছে আমার দিকে।মৃদু একটু হাসি দিলাম। হুট করে সে কানের কাছে মুখ এনে বলল,
-তোমার উপহার’টির শুনবে না?
– কি?
-তুমি বাবা হতে যাচ্ছ…

চলবে…..

পর্ব – ১০
https://www.facebook.com/934291790106385/posts/1300774470124780/?substory_index=0&app=fbl

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here