তোর শহরে ভালোবাসা পর্ব-১৬

0
132

#তোর_শহরে_ভালোবাসা 💜

পর্ব-১৬

ফাবিহা নওশীন

🍀🍀
সামুর খটকা লাগছে এই রাজের বাবা বলে গেলো রাজ কোমায় আছে এটা কি সত্যি না পুলিশের হাত থেকে রক্ষা পাবার জন্য এমন বলছে।
কাকে জিজ্ঞেস করবে বুঝতে পারছেনা।নিশিকে জিজ্ঞেস করবে,,কিন্তু নিশি কি জানে,,আদির সাথে কথা বলার সিদ্ধান্ত নিলো।
আদিকে মেসেজ করলো,

“হলুদ শেষে দেখা করবে কথা আছে”

অপর দিকে নিশি জয়কে বলছে,
–দেখো জয়,তুমি যদি ভেবে থাকো আমি রাজের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে নিবো তবে ভুল ভাবছো,,আমি রাজকে শাস্তি দিয়েই ছাড়বো।তুমি কিংবা তোমার ফ্যামিলি এ বিষয় নিয়ে আমাকে রিকুয়েষ্ট করোনা।লাভ হবেনা।কারণ আমি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি এখন আমি আমার সিদ্ধান্ত থেকে একচুল ও নড়বোনা।একটা মেয়ের কাছে তার সম্মানের চেয়ে বড় কিছু নেই।সো,,

–রিলেক্স,রিলেক্স,,,কাম ডাউন।আমি এসব কিছু বলবোনা।না আমি বলবো না আমার ফ্যামিলি।আমি যা বলার গতকাল রাতেই বাবাকে জানিয়ে দিয়েছি এটাও বলেছি রাজ আর আমার ভাই নয়,ওর সাথে আমার কোনো সম্পর্ক নেই।বাবাও সব কিছু শুনে আমাকে সাপোর্ট করেছে।তোমাকে সাপোর্ট করেছে।ওনারা এখানে তোমাকে রিকুয়েষ্ট করতে নয় ফ্যামিলি মেম্বার হিসেবে তোমার ভাইয়ের বিয়ে এটেন্ড করতে এসেছে।আর কিচ্ছু নয়।
আর তাছাড়া তুমি আমার বউ,,বিয়ে হয়নি তাতে কি,,আমি তোমাকে আমার বউ মানি।কেউ আমার বউয়ের দিকে,আমার প্রপার্টির দিকে হাত বাড়াবে আর আমি তাকে ক্ষমা করে দিবো?ইম্পসিবল। আমি কেন কোনো ছেলেই পারবেনা।সো রিলেক্স।তুমি যেখানে আই উইল বি দেয়ার।

নিশি মুচকি হেসে জয়কে জড়িয়ে ধরলো।
–লাভ ইউ।
–লাভ ইউ টু।এন্ড মোর দেন ইউ।

সামান্তা হলুদের শাড়ি পড়া অবস্থায় আদির জন্য অপেক্ষা করছে।মুখে,শরীরে,হাতে হালকা হলুদের আভা রয়ে গেছে।অনেকক্ষন পর আদি এলো।তা দেখে সামু চোখ কুচকে বললো,
–এতক্ষনে আপনার আসার সময় হলো?

আদি বাকা হেসে বললো,
— চোখে হারাচ্ছো দেখছি?একটু সবুর করো,,কালকে রাত থেকে পার্মানেন্ট আমি তোমার।

সামু চোখ বড়বড় করে নাক ফুলিয়ে বললো,
–জ্বি নো,,আমি না চোখে হারাচ্ছি আর না তোমার মতো বিয়ে নিয়ে এতোটা ডেস্পারেট হচ্ছি।আমার গুরুত্বপূর্ণ কথা আছে তাই ডেকেছি।

–আচ্ছা,আচ্ছা,,কি গুরুত্বপূর্ণ কথা? এই ওয়েট ওয়েট,,এখন আবার এটা বলো না যে বিয়ে করবে না,,

–উফফ,,এত বেশি কথা কেন বলো,,?আর আমি যদি বলি বিয়ে করবোনা তুমি শুনবে?শুনবে না সো এসব কেন বলবো?বলার প্রশ্নই আসেনা,,আগেরবার মজা করে বলে ফেসে গেছি।আর না,,

আদি সামুর কোমড় জরিয়ে নিজের সাথে মিশিয়ে সামুর গালে নিজের গাল মিশিয়ে বললো,
–তুমিও তো দেখছি আমার মতো বিয়ে নিয়ে ডেস্পারেট।বাট প্রকাশ করোনা।

সামু চোখ বন্ধ করে নিয়ে কাপা কাপা কন্ঠে বললো,
–আমাকে ছাড়ুন,, একটু দূরে সরুন।

আদি সামুর গালে স্লাইড করতে করতে বললো,
–কেন?

সামু আদির ছোয়ায় বারবার কেপে কেপে উঠছে।চোখ বন্ধ করে নিলো।তারপর বললো,
আমার কেমন জানি লাগছে,,

আদি মৃদু হেসে বললো,
–কেমন লাগছে?

–জানিনা,,

আদি সামুর গাল ছেড়ে দিয়ে ওর দিকে তাকাতেই দেখে সামু চোখ বন্ধ করে আছে।আর কেমন কাপছে।
–কি বলতে এসেছিলে?

সামু চোখ খোলে বললো,
–রাজের বাবা এসে বললো যে রাজ নাকি কোমায় চলে গেছে এটা কি সত্যি?

আদি সামুর কথা শুনে সামুকে ছেড়ে দিয়ে দূরে দাঁড়িয়ে বললো,
–দিলে তো মুডটা খারাপ করে,,

সামু বুঝতে পারলো না কি এমন বলেছে যে মুড খারাপ হয়ে গেলো।ও তো গুরুত্বপূর্ণ কিছু জিজ্ঞেস করেছে।
–কি এমন বললাম,, আমি তো জাস্ট জানতে চাইলাম সত্যি কিনা,,নাকি এসব ড্রামা,,

আদি কিছু না বলে চলে গেলো।
–যাক বাবা, কি এমন বললাম এমন রাগ দেখিয়ে চলে গেলো।সামু তোর কপালে অনেক দুঃখ আছে।বিয়ে করার জন্য দুনিয়ায় আর ছেলে পাসনি।কথায় কথায় রাগ করে,,।
এ রাগ না জানি কি ধ্বংস ডেকে আনে।

সামু ফ্রেশ হয়ে বিছানায় গা এলিয়ে দিলো।আগামীকাল ওর বিয়ে কেমন অদ্ভুৎ এক অনুভূতি কাজ করছে।কিন্তু আদি হুটহাট রাগ করে বসে।সুন্দর মুহুর্তগুলো হটাৎ করেই মিলিয়ে যায়।

সামু শুয়ে শুয়ে ভাবছে,
ভালোবাসো কতটুকু জানিনা।তার গভীরতাও আমি মাপতে পারিনা।হয়তো তুমিই মাপতে দেওনা।আমাকে কনফিউশনে রাখো।

সামুর ফোন বেজে উঠলো।আদির ফোন।রিসিভ করতেই আদি বললো,
সামু তুমি এমন কেন?আমি যে রাগ করেছি তুমি বুঝোনি?অবশ্যই বুঝেছ।কিন্তু তুমি আমার রাগ ভাংগানোর চেষ্টা করলে না।কেন?হুয়াই?

–আদি সরি,,আমি বুঝতে পারিনি।তুমি যে রাগ করেছো বুঝেছি কিন্তু কেন রাগ করেছো সেটা আমি এখনো মিলাতে পারছিনা তাহলে তোমার রাগ আমি কিভাবে ভাংগাবো?

–তুমি বুঝোনি,,আমি তোমাকে বলেছি রাজের নাম মুখে নিবেনা,,আর তুমি এমন সুন্দর একটা মুহুর্তে রাজের নাম নিয়ে আমার মুডটাই নষ্ট করে দিলে।

এবার সামুর আক্কেল এসেছে।
–উপপপ!!সরি।আমি ভুলে গিয়েছিলাম।প্লিজ সরি।আসলে আমি কোমায় যাওয়ার কথা শুনে কিছুটা সারপ্রাইজ হয়েছিলাম তাই,,

–ও সত্যিই কোমায়।পুলিশ চেক করেছে।সুস্থ হলেই ওকে এরেস্ট করা হবে।গুড নাইট বায়।
বলেই খট করে ফোন কেটে দিলো।

সামান্তা কানে ফোন গুজে কিছুক্ষণ বসে রইলো তারপর ফোন সরিয়ে বললো,
–এটা কি হলো ফোন রেখে দিলো। আমি কি ফোন করবো?নাকি আবার রাগ করবে?কি করবো?আমি যে ওই ছয় ফুটের জিরাফকে বুঝতে পারিনা।উফফ,,
শালার জামাই তুই এমন কেন?
তোর মন কেন বুঝিনা?
#তোর_শহরে_ভালোবাসা এমন কেন?

বিয়ের আমেজ শুরু হয়ে গেছে।চারদিকে সাজসজ্জা লোকজন।রিসিপশনে সামুর বাড়ির মানুষ, আদি,আদির ফ্যামিলি,বন্ধু-বান্ধব,আত্মীয় স্বজনরা অপেক্ষা করছে।কনেদের আসার পালা।একটা গাড়ি এসে থামলো।ভারী লেহেঙ্গা আর ভারী মেকাপে নিশি গাড়ি থেকে নেমে দাড়ালো।তারপর আদিকে ইশারা করলো।আদি এগিয়ে গিয়ে গাড়ির দরজার সামনে দাড়ালো।গাড়ির দরজা খোলতেই আদি সামুর দিকে হাত বাড়িয়ে দিলো।সামু আদির হাতে হাত রাখলো।
তারপর আস্তে আস্তে বাইরে পা রাখলো।আদি সামুকে নামানোর চেয়ে ওকে দেখায় ব্যস্ত বেশি।সামুকে একদম পুতুলের মতো লাগছে।ভারী লেহেঙ্গা,জুয়েলারি,মেকাপ একদম একটা পুতুল লাগছে।চোখ সরাতে পারছেনা।তা দেখে সামু কিছুটা বিব্রতবোধ করছে।

–ভাই আগে ওকে নিয়ে চল।পরে দেখিস,দেখার প্রচুর সময় আছে।
নিশির কথায় আদির ঘোর কাটলো।সামান্তার হাত ধরে বসার জায়গায় নিয়ে গেলো।
সামুর মা সামুর কপালে চুমু খেয়ে নজর উতরে দিলো।

সবার নজর এই কাপলের দিকে।কিন্তু হ্যান্ডসাম বয়ের নজর তার বউয়ের দিকে।সামান্তার মনে হচ্ছে আদি ওর দিকে চেয়ে আছে।তাই মাথা ঘুরাতেই দেখে আদি সত্যিই ওর দিকে চেয়ে আছে।সামান্তা সামনের দিকে চেয়ে হাসি হাসি মুখ করে আস্তে করে বললো,

–মাই হ্যান্ডসাম হাসব্যান্ড,,প্লিজ সামনের দিকে তাকান।সবাই আমাদের দেখছে।আপনি যে হ্যাবলার মতো আমাকে দেখছেন এটাও সবাই দেখছে।সো প্লিজ।

আদি সামনে তাকিয়ে সামুর মতোই হাসি হাসি মুখে বললো,
–কি করবো ইউ আর লুকিং হট।দেখতেই ইচ্ছে করছে।

সামুর আদির কথা শুনে রাগ হলো।বিরবির করে বলছে,
— লেহেঙ্গা পড়েছি তাও হট।লেহেঙ্গা পড়লে কাউকে হট লাগে,,বলতে পারতো ইউ আর লুকিং সো গর্জিয়াস।তা না হট।

–এইটা কোনো কমপ্লিমেন্ট হলো?ভালো কিছু বলতে পারতে না?

–পরে বলবো।

–কখন?

–বলবো কথা বাসর ঘরে,,,

–চুপ করে বসে থাকো আরেকটা কথা বললে তোমার খবর আছে।

–হাহা,,বউ আমার রেগে গেছে।বউকে আজ রাগানো ঠিক হবেনা।

.
.
.

সামু আয়নার সামনে দাড়িয়ে আছে।ভারী লেহেঙ্গা আর গয়নার ভার টানতে টানতে মনে হচ্ছে নিজের ওজন ৫কেজি কমে গেছে।পুরো গা ভর্তি গহনা।সামু বিরক্তি নিয়ে গহনা খোলছে।তখনই আদি পিছনে এসে দাড়ালো।
–তোমাকে যা লাগছেনা,ইচ্ছে করছে খেয়ে ফেলি।
সামু ভ্রু কুচকে বললো,
–এইগুলো কোন ধরনের কথা?আমি কি চকলেট আইসক্রিম যে খেয়ে ফেলবে?আমি জলজ্যান্ত একটা মানুষ।
–বউ বুঝি রেগে আছে।
সামু কাদো কাদো হয়ে বললো,
–একটু হেল্প করোনা।আমার অনেক বিরক্ত লাগছে।
–আগে বলবা তো,,
আদি সামুর গয়না খোলতে সাহায্য করছে।গয়নার পর চুল।দীর্ঘ সময় পর চুল খোলতে পারলো।চুলে লেহেঙ্গার ওড়নার এক কোনা লাগানো।সেটা খোলতেই ওড়না নিচে পড়ে গেলো।লেহেঙ্গার পিছনে সামুর পিঠের অর্ধেক অংশ উন্মুক্ত।
আদি সামুর দুবাহু চেপে ধরে পিঠে নাক ঘষছে।হটাৎ এমন কিছুতে সামু চমকে উঠে।শিহরণে চোখ বন্ধ করে নেয়।
আদি মাথা তুলে আয়নায় নিজেদের প্রতিবিম্ব দেখে।সামুর বন্ধ চোখের লজ্জা মাখা মুখ দেখে বাকা হেসে বললো,
–আমার দাজ্জাল বউ দেখি আবার লজ্জা পায়।

সামু হুট করে ঘুরে ভ্রু কুচকে বললো,
–আমি দাজ্জাল,,,ওকে।নো টাচ,,
বলেই একটা কুর্তি নিয়ে ওয়াশরুমে চলে যায়।

আদি হতবাক হয়ে সামুর পিছু পিছু গেলে সামু ঠাস করে মুখের উপর ওয়াশরুমের দরজা বন্ধ করে দেয়।
–যাক বাবা,,কি হলো এটা??

৩০মিনিট পর সামান্তা শাওয়ার নিয়ে বের হলো চুল মুছতে মুছতে।
আদি এগিয়ে গিয়ে বললো,
–সামু আমি তো মজা করেছি,,রাগ করোনা প্লিজ।

সামু বিছানায় গা এলিয়ে দিয়ে হাই তুলতে তুলতে বললো,
–ইটস ওকে,,গুড নাইট।

আদির মাথায় হাত।
–সামু আজকে আমাদের ফার্স্ট নাইট।তুমি আমার সাথে এটা করতে পারোনা।

–লাইট অফ করো।চোখে বিধছে।অনেক ঘুম পাচ্ছে বিরক্ত করোনা।আর হ্যা,আমাকে হেল্প করার জন্য ধন্যবাদ।নয়তো এতো শান্তির ঘুম দিতে পারতাম না।গুড নাই ডিয়ার।

–ডিয়ার মাই ফুট,,প্লিজ সরি,,প্লিজ।

সামুর সাড়া শব্দ নেই।
–তুমি কি ঘুমিয়ে পড়েছো?
–….(সামু চোখ বন্ধ করে মুখ টিপে হাসছে)
আদি একবার বসছে আরেকবার দাড়াচ্ছে।আবার সামুকে ডাকছে।
কিছুক্ষণ পর সামু ঘুমের দেশে তলিয়ে গেলো।

সকালে ঘুম ভেঙে গায়ের উপর কারো ভারী স্পর্শ পেলো।আদি ওর কোমড় জরিয়ে পিঠে মুখ গুজে ঘুমাচ্ছে।
সামু আদির থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে আদির চুলগুলো এলোমেলো করে দিয়ে গালে একটা কিস করে কানের কাছে ফিসফিস করে বললো,
–গুড মর্নিং মাই লাভ।

ফ্রেশ হতে ওয়াশরুমে গেলো।আয়নার সামনে মুখে পানি দিতেই কিছু একটা জ্বলজ্বল করছে।ভালোভাবে দেখলো নাকে সাদা পাথরের নাকফুল।ডায়মন্ডের হবে হয়তো।গলায় প্লাটিনামের চেইন।একটা ছোট লকেট।লকেটে ছোট ছোট পাথর।সেটাও ডায়মন্ডের হবে।হাতে একটা ডায়মন্ডের রিং।আদির বাসরঘরের গিফট।হয়তো ঘুমিয়ে যাওয়ার পর পড়িয়ে দিয়েছে।সামান্তার এখন খুব খারাপ লাগছে।গতরাতে আদির সাথে এমন মজা না করলেও পারতো।

তারপর ফ্রেশ হয়ে নিচে গেলো।নিচে নামতেই নিশি বললো,
–একা কেন,ভাইয়া কই?
–তুমি জানোনা তোমার ভাইয়ের ঘুম,,
–হুম তা অবশ্য ঠিক।আজ তো আরো উঠবে না।ফার্স্ট নাইট বলে কথা।তা কেমন হলো,,
–সরম করো বড় ভাবি হই,,
–আইছে বড় ভাবি,, তাড়াতাড়ি বল,,
–শুনতে চেওনা হার্ট এটাক হবে।
–তবুও শুনতে চাই।
–তবে শুনো,,সামু সব খোলে বলল।
নিশি ভ্রু কুচকে বললো,
আমার সত্যিই হার্ট এটাক হচ্ছে।তুই এতটা হার্টলেস,,
সামু টেডি স্মাইল দিলো।

চলবে….💑

(গল্প লিখে আমি আর রিভিশন দেইনা।তাই অনেক বানান ভুল হয়ে থাকে।ভুল ত্রুটি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here