নাইওরি পর্ব ১৩

0
34

নাইওরি পর্ব ১৩
মৌরি মরিয়ম

পুকুরে জাল ফেলে বড় বড় মাছ ধরা হয়েছে। বড় কাতল ও বোয়াল ধরা পড়েছে জালে। খাসিও জবাই করা হয়েছে। এতদিন বাদে জামাই আসছে বলে কথা। লোক পাঠিয়ে গৌরনদীর রসমালাই ও দই আনালেন জয়নাল মির্জা। আয়োজনের কোনো কমতি রাখলেন না।
জেসমিনও আজ ভীষণ খুশি। এতদিন বাদে রঞ্জু আসছে। গতকাল সূর্যমনি এসেছে। আজ কেশবপুর আসবে জেসমিনকে নিতে। কিছুদিন আগে সে ঢাকা থেকে একটা ঢাকাই জামদানি পাঠিয়েছিল। সেটা আজ পরেছে জেসমিন। শাড়িটা পরে রঞ্জুর দেয়া শেষ চিঠি টা ভাঁজ করে আঁচলে বেঁধে নিল সে। প্রতিদিন গোসল করতে যাওয়ার আগে চিঠিটা আঁচল থেকে খুলে ঘরে রেখে যায়। আবার গোসল করে ধোয়া শাড়ি পরে সেই আঁচলে বেঁধে নেয়। এই চিঠির কবিতাটা তার এত বেশি পছন্দের যে যখন তখন আঁচল থেকে খুলে চিঠিটা পড়ে সে! এ পর্যন্ত কবিতাটা যে কতশত বার পড়েছে তার হিসাব নেই।
জেসমিন ঘর থেকে বের হলো। কাচারি ঘরের পেছনে একটা জবা ফুলের গাছ আছে। সেখান থেকে কিছু ফুল এনে রাখলে হয়। রঞ্জু খুশি হবে। ফুল খুব পছন্দ করে মানুষটা।
জেসমিন ফুল ছিড়ে ছিড়ে আচলে রাখছে। এরই মাঝে শুনতে পেল কাচারি ঘরে তার বাবা এবং ভাইয়েরা রঞ্জুর নাম নিয়ে কিছু বলাবলি করছে। যেহেতু রঞ্জুর নামটা আসছে তাই কৌতূহলবশত সে কাচারি ঘরের পেছনের বারান্দায় জানালার কপাটের আড়ালে গিয়ে দাঁড়ালো। এরপর সে যা শুনলো তাতে তার শিরদাঁড়া বেয়ে একটা শীতল স্রোত নেমে গেল। তার বাবা এবং ভাইয়েরা মিলে আজ রাতে রঞ্জুকে খুন করার পরিকল্পনা করছে! তাও সামান্য একটা জমি হারিয়েছে বলে ছেলেকে মেরে বাবার উপর প্রতিশোধ নিতে চাচ্ছে! তার বাপ ভাইয়েরা ভয়ংকর তা সে জানতো, তাই বলে এতটা হিংস্র! পালাতে হবে, এই মুহূর্তে এখান থেকে পালাতে হবে। রঞ্জু রওনা দেয়ার আগে শ্বশুরবাড়ি পৌঁছে রঞ্জুর আসা আটকাতে হবে। জেসমিন দৌড় দিল। দূর্ভাগ্যবশত তাড়াহুড়োয় তার হাতের সাথে জানালার কপাট একটা ধাক্কা খেল। শব্দ শুনে জালাল জব্বার পেছনের বারান্দায় তাকাতেই দেখতে পেল জেসমিনকে। কিছু বুঝতে আর বাকি রইলো না তাদের। জব্বার লাফিয়ে পড়ে দৌড় দিল জেসমিনের পেছন পেছন। কয়েকটা বাড়ি পার হয়েই জেসমিনকে ধরে ফেলল। জেসমিন ক্রোধে গর্জন করতে লাগলো,
“খুনীর বাচ্চা খুনী ছাড় আমারে, ছাড় কইতাছি।”
জব্বার জেসমিনের মুখ চেপে ধরে বাড়ি নিয়ে যেতে চাইলো। জেসমিন কিছুতেই যাবেনা। সে আপ্রাণ চেষ্টা করছে নিজেকে ছাড়ানোর। জব্বার তাকে টেনে হিঁচড়ে বাড়ি নিয়ে যেতে লাগলো। কাচারি ঘরে নিয়ে তবেই মুখটা ছাড়লো। সেখানে জয়নাল মির্জা এবং জালাল বসে ছিল। জব্বার যখন গেছে ধরে আনতে পারবে বলেই তাদের বিশ্বাস ছিল। জেসমিনের মুখটা ছাড়তেই সে চেঁচিয়ে উঠলো,
“আব্বা আমনে নিজের মাইয়ার স্বামীরে খুন করার কথা ক্যামনে চিন্তা করলেন? এতবড় কষাই আমনে?”
জয়নাল মির্জা ঠান্ডা মাথার মানুষ। সহজে বিচলিত হন না। সে শান্ত স্বরে মেয়েকে বললেন,
“অরা আমাগো শত্রু মা। তোমার শ্বশুর অনেক বড় পরিকল্পনা কইরা পোলারে তোমার পিছনে লাগাইছিল। কালিসুরির জমিখান যৌতুক নিতে চাইছিল। আমি তো তহন বুঝতে পারি নাই মা। অগো ফাঁদে পা দিয়া ফালাইছি। আমারে মাফ কইরা দেও।”
“মিথ্যা কতা কইবেন না আব্বা। আমি এগুলান বিশ্বাস করি না।”
“বিশ্বাস করো আর না করো, সত্য বলছি। তুমি তারে ভুইলা যাও। তোমারে আরও ভালো পোলা দেইখা বিয়া দিমু।”
জেসমিনের ক্রোধ পরায়ন চোখ দুটো এবার ভিজে এলো। কাঁদতে কাঁদতেই সে চিৎকার করল,
“আল্লাহর গজব পড়ুক। আমারে ছাড়েন, জমি আমনের নামে লেইখ্যা দেতে কমু রঞ্জুরে।”
জয়নাল মির্জা হুক্কায় টান দিতে দিতে বলল,
“জমি দিয়া কী করমু এহন আর? যে সম্মান আমার গেছে তা কি ফেরত পামু?”
“ওরে জল্লাদ রে!”
জেসমিন এবার উপর দিকে চেয়ে দ্বিগুণ স্বরে চিৎকার করে কাঁদতে কাঁদতে বলল,
“আল্লাহ তোমার দুনিয়ায় কোনো বাপ কি এমন অয়?”
জয়নাল মির্জা জালাল জব্বারকে বলল,
“অরে এখন আর বাড়ির ভিতর নেওন যাইবো না। চিল্লাইয়া বাড়ির সবাইরে জানান দেবে। কাচারি ঘরেই আটকাইয়া রাখ। আর হাত-মুখ বাইন্দা রাখ। তেজ বেশি মাইয়ার।”
“আব্বা!”
জেসমিন আর কিছু বলার সুযোগ পেল না৷ জব্বার হাত ধরে রেখেছে, জালাল মুখ বেঁধে ফেলল। তারপর চেয়ারে বসিয়ে দুই হাতলের সাথে দুই হাত বাঁধলো। জেসমিন নুন পড়া জোঁকের মত ছটফট করছে। কিছুতেই নিজেকে ছাড়াতে পারলো না। জয়নাল মির্জা বেরিয়ে গেলেন আগে। জালাল ও জব্বার শেষে দরজায় তালা মেরে বের হলেন। ভারী কাঠের চেয়ারের সাথে এমন শক্ত করে বেঁধেছে যে জেসমিন আর নড়তেও পারলো না। অসহায়ের মত কেঁদে চললো শুধু।

রঞ্জু এলো সন্ধ্যার পর। শ্বশুরের সাথে বসে গল্প করছে। জেসমিনকে কোথাও দেখতে পাচ্ছে না। জিজ্ঞেস করতেও একটু লজ্জা লাগছে। এরই মাঝে জেসমিনের মা খেতে ডাকলো। খেতে বসেও জেসমিনকে দেখতে না পেয়ে অবশেষে জিজ্ঞেস করেই ফেলল,
“আম্মা জেসমিনকে দেখছি না। ও কোথায়?”
কোহিনূর বানু স্বামীর কাছ থেকে যা জেনেছেন তাই বললেন,
“মিনুর বাচ্চা অইবে তো। কি সমেস্যা জানি অইছে। আমাগো এদিকের হাসপাতালে আনছে। খবর পাইয়া জব্বার গেছে, লগে জেসমিনও গেছে। আইয়া পড়বে, তুমি খাও বাবা।”
রঞ্জুর একটু মন খারাপ হয়েছিল, ৩ মাস পর বাড়ি এলো অথচ জেসমিনকে দেখতে পাচ্ছে না! এখন অবশ্য মন খারাপ লাগাটা আর নেই। শাশুড়ির হাতের রান্না বরাবরই রঞ্জুর খুব প্রিয়। সে খুব তৃপ্তি করে কব্জি ডুবিয়ে খেল। খাওয়া বেশি হওয়াতে সে একটু উঠোনে হাঁটতে নামলো। কাচারিঘরের সামনেই হাঁটছিল সে। জালাল পেছন থেকে বলল,
“রঞ্জু ময়নার বিলে মাছ কোপাইতে যাবা নাকি?”
জেসমিন একথা শুনে চমকে উঠলো। রঞ্জু এসে পড়েছে? তখনই রঞ্জুর গলা শোনা গেল,
“আরে ভাইজান দারুণ আইডিয়া! কতদিন মাছ কোপাই না! চলেন যাই। জেসমিন বাড়িতে নাই ভালোও লাগছে না।”
জেসমিনের হৃদয়টা হুঁ হুঁ করে উঠলো। কতদিন পর রঞ্জুর গলার স্বর শুনতে পেল। রঞ্জু তার এত কাছে!
জালাল হাঁক ছেড়ে বলল,
“এ কুদ্দুস ফুলকুচি আর কোচ গুলান লইয়া আয়। জামাইরে নিয়া মাছ ধরতে যামু।”
জেসমিন মরিয়া হয়ে উঠলো রঞ্জুকে বাঁচানোর জন্য। কিন্তু কীভাবে বাঁচাবে তাকে? চেয়ারটা এত ভারী যে সে একটুও নড়াতে পারলো না। মাটির মেঝেতে ঠেসে আছে চেয়ারের পায়াগুলো। আশেপাশে তাকিয়ে জয়নাল মির্জার রেখে যাওয়া হুক্কা টা দেখতে পেল। সেটাকেই পা বাড়িয়ে ছোঁয়ার চেষ্টা করলো। অনেক কষ্টে যখন ছুঁতে পারলো তখন সেটা উলটে দিল যাতে শব্দ হয়। আর শব্দটা রঞ্জুর কানে যায়। যদিও এটা সন্দেহ হওয়ার মত কিছু নয় তবুও একটা চেষ্টা।
শব্দটা শুনে রঞ্জু বলল,
“কাচারি ঘরে তো তালা মারা। তাহলে ভেতরে কীসের শব্দ ভাইজান?”
জালাল বলল,
“বিলোই হানছে মনে হয়। বাদ দেও। চলো মাছ ধরতে যাই।”
হুক্কাটা ধাক্কা খেয়ে দূরে গিয়ে পড়েছে আরেকটা শব্দ করার মত কোন উপায় জেসমিনের রইলো না। পায়ের আওয়াজ দূরে থেকে আরও দূরে যেতে থাকলো। জেসমিন বুঝতে পারলো জালাল ও রঞ্জু চলে যাচ্ছে। শেষ, সব আশা শেষ! জেসমিন অঝোরে কাঁদতে লাগলো। পেটের দিকে তাকিয়ে মনে মনে বলল,
“তোর আসার খবরটা তোর বাপরে দেয়ার জন্য এত উতলা হইয়া বাড়ি আসতে কইছিলাম, তারপরেও কত অপেক্ষা! অথচ তোর বাপ জানতেও পারলো না তোর আসার কথা!”

চলবে…

আগের পর্ব,
https://facebook.com/100044423166701/posts/552814196209348/

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here