শিশির_ভেজা_রোদ্দুর Part_27

0
231

শিশির_ভেজা_রোদ্দুর
Part_27
#Writer_NOVA

—ইফাতরে এএএএএএএএএএ! তোরে আজকে নুন, তেল, মরিচ ছাড়া ভর্তা বানামু।

সকালবেলা ঘুম থেকে উঠেই দিলাম বিশাল বড় এক চিৎকার। নেংটি ইদুরটা একটু আগে আমার কপালে চুমু খেয়ে পালিয়েছে। আমার চিৎকারের আগেই নেংটি তার লেজ গুটিয়ে পালিয়েছে।আমার চিৎকারে খালামণি ছুটে এসে জিজ্ঞেস করলো,

— এই নোভা কি হয়েছে?

— কি হয়নি তাই বলো?

— দেখ তো মেয়ের কাণ্ড আমি একটা কথা জিজ্ঞেস করলাম ও তার উত্তর না দিয়ে উল্টো আমাকে প্রশ্ন করে।

— ঐ বিচ্ছু আমার রুমে ঢুকলো কি করে?

— কার কথা বলছিস তুই?

— ঐ ইফাত পুঁচকে।

—কেন কি করেছে?

— কি করে বলি তোমায়?

— আমাকে বলতে কি সমস্যা?

— কিছু না যাও। এখন শান্তিতে একটু ঘুমাতেও পারবো না।

— তুই কপাল ডলছিস কেন?

— আমার এই কপালটা যে অনেক ভালো। তাই খুশিতে ডলতেছি। একটু পর থাপড়াইয়া ফাটামু এই ভালো কপালটারে।

— না বাবা এই মেয়ের আবার কি হলো?

কপাল ডলতে ডলতে ওয়াসরুমে চলে গেলাম। ইচ্ছে মতো ফেসওয়াশ দিয়ে ডলে মুখ ধুয়ে বাইরে এলাম। ঐ পুঁচকেটা আজ ঘুমের মধ্যে আমার কপালে চুমু খেয়েছে। কপালে ছোট ঠোঁটের পরশ পেতেই ধড়ফড় করে উঠলাম। দেখি বিচ্ছুটা দৌড়ে রুম থেকে বের হয়ে গেলো। প্রথমে মাথায় কিছু খেলে নি। যখন পুরো ব্যাপারটা ক্লিয়ার হলো তখন গগনবিদারী এক চিৎকার দিলাম। খালামণিকে কি করে এসব কথা বলি। আমার নিজের কাছেই তো কেমন জানি লাগছে। তাই কথাটা এড়িয়ে গেলাম। আমি ওয়াশরুম থেকে বের হয়ে শুনতে পেলাম খালামণি তায়াং ভাইয়াকে বলছে,

— এই তায়াং দেখ তো তোর বোনের কি হলো? আমি তো বাবা তোদের হাব-ভাব কিছুই বুঝি না। চিৎকার দিয়ে সারা বাড়ি এক করে ফেললো। আর জিজ্ঞেস করায় বলে কিছু হয়নি। তুই গিয়ে একটু দেখ।

খালামণি জোরে জোরে কথা বলায় আমার রুম থেকেও কথাগুলো শোনা গেলো। আমি তোয়ালে দিয়ে মুখ মুছে, মাথায় হালকা করে চিরুনি চালালাম।তারপর মাথায় ওড়না দিয়ে ঘোমটা টেনে রওনা দিলাম ইফাতদের ফ্ল্যাটের উদ্দেশ্য। আজ একটা হেস্তনেস্ত করেই ছাড়বো। দুই বার কোলিং বেল বাজানোর পর সিফাত দরজা খুললো। আমাকে দেখে চোখ দুটো বড় বড় করে মুখে হাত দিয়ে বললো,

— আরে ভাবীজী তুমি?

— এত ঢং করতে হইবো না। সামনের থেকে সর।

— আমারে একটা চিমটি মারো। আমার তো বিশ্বাস হচ্ছে না তুমি এখানে?

— ত্যারি তো…

— এই একদম সামনে আসবা না। আমি কোন দুষ্টুমি করিনি। তোমায় ভালো করে জিজ্ঞেস করছি।

— তোর আম্মু কই রে?

— কিচেনে।

— এই অবস্থায় কিচেনে কি করে?

— রান্না করতাছে

— কাজের বুয়া কই?

— সে আজকে আসবে না। তাই আম্মু রান্না করতাছে।

— তোর দাদী কই? সে থাকতে তোর আম্মু এই অবস্থায় রান্না করে কেন?

— ঐ বুড়ির কথা বইলো না। সেই তো আম্মুরে রান্না করতে বললো।

— তোর বিচ্ছু ভাই কোথায়?

— একটু আগে কই থিকা আইসা দরজা আটকাইয়া বইসা রইছে।

— ওর ব্যবস্থা পরে করতাছি। আগে তোর আম্মুর কাছে যেয়ে নেই। সামনের থেকে কি সরবি? নাকি এমনি দাঁড়ায় থাকবি?

— হুম আসো, আসো। কতদিন পর আমার ভাবীর আগমন ঘটলো আমাদের বাসায়।

— আবার পাকনা পাকনা কথা।

ঠোঁট কামড়ে রাগী ভঙ্গিতে সিফাতের দিকে তেড়ে যেতেই সিফাত ওর দাদার রুমে দৌড় দিলো।আমি দরজা আটকে কিচেনে চলে গেলাম। গিয়ে দেখি ইফাতের আম্মু ভাতের মাড় ঝড়ানোর জন্য সবেমাত্র পাতিলে হাত দিবে। আমি দৌড়ে গিয়ে চেচিয়ে বললাম,

— আরে আরে আন্টি করছেন কি? পাগল হয়ে গেছেন? এই শরীর নিয়ে আপনি ভাতের মাড় ঝড়াতে যাচ্ছেন। সরেন আমি করতেছি।

— নোভা, আমি পারবো।

— কোন কথা বলেন না তো। গিয়ে ঐ টুলে বসেন।

তার কোন কথা না শুনে তাকে জোর করে টুলে বসিয়ে দিলাম। বিশাল বড় একটা পাতিল। প্রেগন্যান্ট অবস্থায় উনি এটাকে উঠাবেন আমি তো চিন্তা করতে গিয়েই মাথা হ্যাং হয়ে যাচ্ছে। উনার শাশুড়ীটা কিরকম জানি। এই অবস্থায় কেউ কি এসব কাজ করে? তাকে এখন ফুল বেড রেস্টে থাকতে হবে। তা না করে বেচারীকে দিয়ে রান্না করাচ্ছে। আল্লাহ না করুক কোন দূর্ঘটনা যদি ঘটে যায়।আমি ভাতের মাড় ঝড়াতে দিয়ে তাকে জিজ্ঞেস করলাম,

— আন্টি কি রান্না করবেন আজ?

— এই তো দুইবেলার রান্না একসাথে করে রাখছি। আলু দিয়ে করলা ভাজি, ডাল, ভাত আর চিংড়ি মাছ ভুনা। রাতের জন্য রুটি বানিয়ে নিবো।

— ইয়াম্মি, খুব মজাদার খাবার।

— তা তুমি কি মনে করে আজ আমাদের বাসায়?

— কেন আসতে পারি না?

— না না আমি তা বলিনি।

— দেখতে এলাম আমার শাশুড়ী আম্মা কেমন আছে? পড়াশোনার চাপে তো একটু আসাও হয় না। তার মধ্যে যে অসুস্থ হয়েছিলাম।

— আর শাশুড়ী আম্মা। শরীরটা ভালো যাচ্ছে না গো। রাতে বাজে স্বপ্ন দেখি। দোয়া করো আমার জন্য। আমার মনে হয় এবার বোধহয় আমি বাঁচবো না।

কথাগুলো বলতে বলতে উনি আঁচলে মুখ গুঁজে কান্না করতে লাগলেন। আমি সামনে গিয়ে তার চোখের পানি মুছিয়ে দিয়ে হাত দুটোকে শক্ত করে ধরে সাহস জুগানোর জন্য বললাম,

— কি বাচ্চা মানুষের মতো কান্না করছেন বলেন তো? আপনার কিচ্ছু হবে না। আল্লাহ আছে তো আপনার সাথে। একদম কান্না করবেন না। তাহলে কিন্তু আমাদের বোনও রাগ করবে। সব ঠিক হয়ে যাবে।

— তাই যেন হয়।

— ভাজির কড়াই কোথায়?

— কেন কি করবে?

— কোন কথা বলবেন না তো। চুপ করে এখানে বসে থাকেন। বাকি যা রান্না আছে তা আমি করবো।

— আরে না না তোমার কিছু করতে হবে না। আমি করতে পারবো।

— একদম চুপ করে থাকুন। আমি কি আপনাকে জিজ্ঞেস করেছি কে রান্না করবে? এত চিন্তা করার কিছু নেই। আমার রান্না এতটা খারাপ নয় যে মুখে দিতে পারবেন না। বেশ ভালো রান্না করি আমি। শুধু পোলাও,বিরিয়ানি ছাড়া বাকি সবকিছু পারি।

— বাহ্ বউতো কাজের আছে।

— হুম দেখতে হবে। কড়াই ঐ মিটসেফের কোণায়।

কড়াই নিয়ে চুলায় বসিয়ে দিলাম। এক সাইডে ভাজি বসিয়ে দিয়ে আরেক চুলোয় ডাল ঘুঁটনি দিয়ে ডাল ঘুঁটে দিলাম। আন্টি ছলছল চোখে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। তবে তার মুখে ছিলো তৃপ্তির হাসি। ডাল বাগার দিয়ে নামিয়ে নিলাম। আন্টিকে জিজ্ঞেস করে হলুদ,মরিচের পরিমাণ করে চিংড়ি মাছের জন্য মশলা কষাতে লাগলাম। মাঝে মাঝে ভাজি নেড়ে দিচ্ছি। যাতে নিচে পোড়া না লেগে যায়। মশলা কষানো শেষ হতেই মাছগুলো দিয়ে আরেকটু কষিয়ে নিলাম। এক হাতে খুন্তি নাড়তে নাড়তে আন্টিকে বললাম,

— চিংড়ি মাছ ভুনা আমার বেস্টফ্রেন্ড সাদ্দামের অনেক পছন্দ। ওকে যদি বলি আজ চিংড়ি মাছ ভুনা করবো তাহলেই ও বলবে আমার জন্য পাঠিয়ে দিস। ডিম ভাজা, চিংড়ি মাছ ভুনা, মিষ্টি ওর ভিষণ পছন্দ। এগুলো থাকলে আমার মনে হয় না আর কিছু লাগবে।

— ইফাত,সিফাত দুজনেই পছন্দ করে। তুমি পছন্দ করো না?

— পছন্দ করলেও লাভ নেই। আমার এলার্জী। এগুলো খেয়েও শান্তি নেই। চোখ চুলকাতে চুলকাতে সাদা অংশ ফুলে যায়। এই কষ্টে খেতেও ইচ্ছে হয় না।

— তুমি হঠাৎ করে কেন এলে তাতো বললে না?

— ইফাতের নামে বিচার দিতে এসেছিলাম।

— ছেলেটা ভীষণ দুষ্ট হয়ে গেছে। গতকাল রাতে তোমার চাচ্চু মানে ইফাতের আব্বু ইফাতকে অনেক মেরেছে।

— সেকি! কেন?

— পড়াশোনা ঠিকমতো করে না। আর মাথা খেয়ে ফেলছে। তোমাকে বিয়ে করবে বলে। ওর একটাই কথা নোভার সাথে আমাকে বিয়ে না দিলে আমি কোন কিছু করবো না।

— ওরে বাটপার! জল এতদূর গড়িয়েছে!

— ছেলে তো এখন তুমি বলতে পাগল। এখন বলো আমার ছেলেকে কি তাবিজ করেছো?

— ওকে তাবিজ কি করবো আমি? আর মানুষ পান না খুজে? ওর জ্বালায় তো আমি অতিষ্ঠ। ও যা শুরু করছে আন্টি। তা সহ্য করার মতো নয়।

— ছেলে দুটো যে এতো দুষ্ট কি করে হলো আল্লাহ মালুম। আমার শরীর ভালো নেই। ওদের দিকে ভালো করে নজরই দিতে পারি না। সেই সুযোগে আরো বিটকেল হচ্ছে।

— ধূর, টেনশন করেন না তো। এই অবস্থায় অতিরিক্ত টেনশন একদম করবেন না। এতে শরীর খারাপ হবে। রাতে আমি রুটি বানিয়ে দিয়ে যাবো।আপনার কিছু করতে হবে না। তা আপনাদের বাসার বুয়ার কি হয়েছে?

— এই বুয়া যে কি জ্বালাচ্ছে মা। তা আর কি বলবো? ইফাত বড় থাকলে এখন তোমাকেই ঘরের বউ করে নিয়ে আসতাম। তাতে আমিও একটু স্বস্তি পেতাম। আমার ছেলের পাগলামিও কমতো।

তার কথা শুনে আমি মুচকি হাসলাম। মাছের তরকারিতে পরিমাণ মতো গরম পানি ঢেলে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে সেটাকে মাঝারি আঁচে রেখে দিলাম। যেই কাজে এসেছিলাম তা আর হলো না। তবে একজনের মুখে হাসি ফুটাতে পেরেছি তাও বা কম কিসের? তার কাজে সাহায্য করতে পেরে এখন নিজেরি ভালো লাগছে। কোন ভালো কাজ করলে আপনি নিজের মনের মধ্যে অন্য রকম একটা ভালো লাগার অনুভূতি খুঁজে পাবেন। যা অন্য কিছুতে নেই।

💖💖💖

রাতে…..

ইফাতের আম্মুকে রাতের জন্য রুটি বানিয়ে দিয়ে বাসায় ঢুকলাম। সারাদিনে ইফাত ভুলেও আমার সামনে আসেনি। আস্তে করে সদর দরজা দিয়ে ভেতরে ঢুকে পা টিপে টিপে রুমের দিকে যেতেই কিচেন থেকে ঠুকঠুক শব্দ কানে এলো। খালামণির প্রেসার উঠেছে। তাই সে খাবার, ঔষধ খেয়ে শুয়ে আছে। তন্বী পরীক্ষা দিয়ে আসার পর থেকে মাথাব্যথায় ভুগছে। তাই রুম অন্ধকার করে ঘুমিয়ে গেছে। দুজনের একজনের ওঠার কোন চান্স নেই। তায়াং ভাইয়া বাসায় নেই। আমি দরজা বাইরে দিয়ে আটকে রেখে গিয়েছিলাম। কিন্তু আসার সময় দরজা আবজানো ছিলো। তাহলে কি ফ্ল্যাটে চোর ঢুকলো নাকি? টি-টেবিল থেকে মাটির ফুলদানিটা নিয়ে ধীর পায়ে কিচেনে উঁকি দিলাম। তারপর যা দেখলাম তাতে আমি হাসতে হাসতে শেষ। তায়াং ভাইয়া রুটি বেলছে। সারা শরীর ওর আটায় মাখামাখি। রুটি যে একেকটা কোন দেশি মানচিত্র হচ্ছে তা একমাত্র ও জানে। আমার হাসির শব্দ শুনে তায়াং ভাইয়া একটা রাগী লুক নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে বললো,

— হাসিস না। তোর থেকে ভালো বানাচ্ছি।

— তাতো দেখতেই পাচ্ছি।

— খুদা লাগছে। ঘরে কোন কিছু নেই। বাইরে থেকে খেয়ে আসতে মন চাইলো না। তাই রুটি বানাতে বসলাম। কিন্তু দেখ এগুলো কি হচ্ছে?

— একেক দেশের মানচিত্র🤭।

— মুখ টিপে হাসা হচ্ছে?

— এখুনি তো তোকে ফুলদানি দিয়ে মাথা ফাটাতাম। আমি ভাবলাম কিচেনে বোধহয় চোর ঢুকেছে।

— খুদা লাগছে কথা বলিস না। রাগ উঠে যাবে।

— ভাইয়া কোন দেশের মানচিত্র আঁকছিস? একটু লিখে দিলে ভালো হতো না।

— মজা নিস না।

— আরে আস্তে ধর রুটি ব্যাথা পাচ্ছে তো।

ভাইয়া চোখ পাকিয়ে আমার দিকে তাকালো। আমি হো হো করে হাসতে লাগলাম। তাওয়ার ওপর এতো যত্ন সহকারে আলতো হাতে রুটি সেঁকতে দিচ্ছে যে আমার মনে হচ্ছে জোরে ধরলে রুটি ব্যাথা পাবে। আটার ডো পানি দিয়ে একদম লেক লেকে করে ফেলছে। তার মধ্যে ইচ্ছে মতো আটা দিয়ে আবার মতছে। সেটাকে বেলতে গিয়ে এদিক সেদিক দিয়ে ছিঁড়ে একটা বাজে অবস্থা করে ফেলছে। রুটির মান-ইজ্জত কিছু নেই। রুটি যদি কথা বলতে পারতো তাহলে বলতো, “তায়াং আমারে ছাড়। আমি আর তোর কাছে অপমানিত হতে চাই না। আমি তো বাকি রুটিদের কাছে আমার মুখ দেখাতে পারবো না। ” ময়লা সরাতে ফুঁ দিতেই পাশের থেকে শুকনো, ঝরেঝরে আটা এসে ওর মুখে ভরে গেলো। আমি তা দেখে হাসতে হাসতে বসে পরেছি।

— এই সর তো সামনে থেকে। তোকে দেখে আমার রুটি গোল হতে চাচ্ছে না।

— তোর রুটি তো ঘুরেই না গোল হবে কি করে? আর এগুলোকে রুটি বলে রুটির মান-সম্মান খাস না।

— আমি যা পারছি তাই করছি। কারো জন্য বসে তো রইনি।

— সর আমি বানিয়ে দেই।

— একটুও না। যা ভাগ। আমি পারি।

— হুম কোন ঘোড়ার আণ্ডা পারো তাতো দেখতেই পাচ্ছি। এর জন্য বলে কারো উপকার করতে নেই।

— আমিও রুটি বানিয়ে দেখিয়ে দিবো। আমি কোন কাজে কম নয়।

— হুম ঠনঠনাঠন ঘন্টা।

ভাইয়া আরেকবার চোখ পাকিয়ে তাকিয়ে নিজের কাজে মনোযোগ দিলো। আমি মিটমিট করে হেসে তা জহুরির চোখ পর্যবেক্ষণ করছি। একটা রুটিও ভালো নেই। প্রত্যেকটা পুড়ে ফেলেছে। একদিকে কাঁচা, আরেকদিকে পোড়া। ডিম পোচ করতে গিয়ে উল্টাতে পারে না। আমি বলেছিলাম উল্টে দেই। কিন্তু সে খুন্তি দেয়নি। পাকনামি করে উল্টাতে গিয়ে ডিম ছুটিয়ে, কুসুম ফাটিয়ে তেরটা বাজিয়ে ফেলছে। তেলর ছিটাও হাতে লাগছে। আমি সামনে এগিয়ে যায়নি। বুঝুক মজা। বেশি পাকনাদের এমনি হওয়া উচিত।অবশেষে আধা ঘণ্টা যুদ্ধ করে তায়াং ভাইয়া সফল হলো।

— যাক বাবা শেষ হলো।

— তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ।

— দেখছিস আমিও পারি😎।

— হুম দেখলামই তো।

— এখন এসবের সাথে একটা সেলফি হয়ে যাক।

— যেই রান্না তার সাথে আবার সেলফি😏।

— মুখ বাঁকাস না। আমি যে বানিয়েছি সেটাই তো বেশি।

— হ্যাঁ একদম। আমারে উদ্ধার করে ফেলছিস। সাথে রুটি, ডিমের মান-মর্যাদা খেয়েছিস।

ভাইয়া আমার কথায় কান না দিয়ে পকেট থেকে মোবাইল বের করে সেলফি তুলতে লাগলো। নিশ্চয়ই একটু পর ফেসবুকে ছাড়বে। আমি দৌড়ে ওর পাশে দাঁড়িয়ে বললাম,

— ভাইয়া আমাকেও একটু নে। আমিও তুলি সেলফি।

— যা ভাগ।

— এমন করিস কেন? তোর রুটি, ডিম ভাজা খেতে চেয়েছি। একটা সেলফিই তো তুলতে চেয়েছি। আল্লাহ কেমন করে?

আমি কোন কথা না বলে ভাইয়ার পাশে গিয়ে দাঁড়ালাম। ও অনেকটা নিচু হয়ে আছে। আমি ওর কাধের ওপর থুতনি রেখে আঙুল দুটোকে V আকৃতি করে মোবাইলের দিকে তাকালাম। দেখি ভাইয়া সেলফি টাইম ঠিক করে, চোখ দুটো ছোট ছোট করে আমার দিকে তাকিয়ে আছে। হুট করে তার হাতের দুই আঙুল দিয়ে শক্ত করে আমার মুখ চেপে ধরলো। তখুনি একটা ছবি ক্লিক হয়ে গেলো। ফাজিলটায় আমার পোজটাই নষ্ট করে দিলো।

#চলবে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here