বাতাসী বউ- পর্ব ৪ +৬

0
153

#বাতাসী_বউ
পর্ব ৪
__ অন্না
আবিরের পয়েন্ট,,,,,,,,,,,,,,
,
(যাক অবশেষে আমার বাতাসী রে খুজে পাইলাম। তুমি যানো না নয়না কত কষ্ট করছি তোমায় খুজে পেতে। আমার কষ্ট সার্থক। প্রথম দেখাতেই আমার মন টা তোমার মাঝে হারিয়ে গেছে। আমি তোমায় হারাতে পারবো না। খুব জলদি তোমাকে আমার মনের কথা জানিয়ে দিবো।)
,
সুপ্তির পয়েন্ট,,,,,,,,,,,,,,,,,
,
বাসায় এসে দেখলাম মা রান্না করছে, যাই মা কে একটু বিরক্ত করে আসি,,,,,
,
আমি,,,,, মা কি করো????
,
মা :::: ডান্স করছি দেখতে পাচ্ছিস না??
,
আমি ::::: এই রে মা মনে হয় কারো ওপর ক্ষেপে আছে। চুপচাপ কেটে পরি নয়তো আমার ওপর দিয়ে যাবে সব।।
,
মা :::: কই যাচ্ছিস? আমাকে কি তোদের কাজের মানুষ মনে হয়। সবার সব কাজ করে দিবো। আমায় সময় দেবার মতো কারো হাতে সময় নাই।আমার মতো মেয়ে জন্য সংসার করে গেলাম অন্য কেউ হলে দু দিন এ পালিয়ে যেতো। কতো করে তোর বাবাকে বললাম চলো না মিমি র ( আমার খালা) ঘুরে আসি। কে শোনে কার কথা। আমার কথার কনো দাম নাই আমি থাকবো না এ সংসারে,,,,
,
বাবা ::::: কি
হইছে। কে কোথায় যাবে???
,
মা ::::: আমি যাবো আমি। থাকবো না আর তোমার সংসারে।
,
বাবা :::::: গত ২১ বছর ধরে তোমার এই কথা শুনছি। কিন্তুু একবার ও দেখলাম না যে দরজার ওপার হইছো
,
মা ::::: জানি তো তুমি মনে মনে এইটাই চাও আমি চলে যাই,,,,,
,
বাবা :::: আহা সুমি ( মা এর নাম) তোমায় ছারা আমি একটা মুহুর্ত থাকতে পারবো না
,
মা :::: হচ্ছে টা কি চোখের মাথাটা কি খেয়েছো নাকি। বুড়ো বয়সে ভিমরতি ধরছে?? এত্ত বড় মেয়ের সামনে এসব বলছো লজ্জা করে না।।
,
বাবা:::: না গো করছে না। তুমি তো সবসময় আমায় ভুল বোঝো। দেখোনা তোমায় সারপ্রাইজ দিব বলে স্কুল থেকে ৩ দিন এর ছুটি নিয়ে আসলাম।আর তুমি কি না আমার মেয়েদের বকছো,,,,,
,
মা:::: সত্তি আমরা মিমির বিবাহ বার্ষিকী তে যাচ্ছি,,,,
,
বাবা ::::: হ্যা গো হ্যা
,
আমি :::::
অনেক হইছে আমি যে এখানে আছি কারো তো মনেই নাই।
,
বাবা :::: আমার প্রিন্সেস কে ভুলি কি করে, যা মা রেডি হয়ে নে
,
আমি ::: না বাবা তোমরা যাও আমার ইম্পো্টান্ট ক্লাস আছে যাইতে পারবো না,
,
বাবা:::: কিন্তুু তোকে একা রেখে
,
আমি ::::: বাবা আমি আর ছোট নাই,
,
বাবা:::: হা হা হা হা তুই তো আমার বুড়ি।
,
মা ::::: হয়েছে এখন সবাই খেয়ে আমার উদ্ধার করেন।
,
আমি :::: চলো বাবা নয়তো মা আবার কির্তন শুরু করে দিবে।
( বিকাল এ মা,বাবা,স্বস্তি ( আমার বোন) চলে গেলো
। রাতে শুয়ে শুয়ে পরছিলাম তখন একটা unknown নাম্বার থেকে ফেন আসলো। রিসিভ করলাম না। বার বার ফোন সাইলেন্ট করে রাখলাম। কিন্তুু হঠাৎ আবিরের কথা মনে পরলো। যাই হোক ছেলেটা কিন্তুু বেশিই কিউট। একবার দেখাতে যে কেউই প্রেমে পরে যাবে। কিন্তুু মেয়েটা কে ছিলো ওর বাইকে। ওর জি এফ। হইতেই পারে। কিন্তুু আমি এত্ত ভাবছি কেনো। কোথায় ও আর কোথায় আমি। শুনেছি ওর বাবা US থাকে। অনেক কোম্পানি ওদের দেশে, দেশের বাহিরে। আমি কি আর,,,,,,,, সুপ্তি স্টপ আর ভাবিস না। সামনে তোর exam পর ভালো করে।)
,
কলেজ এ গিয়ে দেখি কালকের মেয়েটি আবিরের পুরা হাত জরিয়ে ধরে দারিয়ে আছে। কেন যানি আমার আজকে একটু বেশিই কষ্ট লাগলো। আমি না দেখার ভান করে ক্যাম্পাসে ফ্রেন্ডস দের সাথে গল্পকরতে লাগলাম।কিন্তুু এখানেও ওই টপিক। আবির,,,,,
স্নেহা ::::: দেখ না ছেলেটা কত্ত কিউট। আমি তো ভাবছি আজকেই প্রপোজ করে দিবো।
,
সোমা :::: আরে থাম।দেখনা হাসি টা কত্ত মিষ্টি,
,
আমি :::: তোরা থামবি কি সব বলছিস হ্যা।
স্নেহা :::::: সুপ্তি সোনা আমি তো ওর প্রেমে মরছি। কিন্তুু ওই শাকচুন্নিটা কে রে ওইভাবে ওরে জরায় রাখছে?????
,
আমি ::::: ( সত্তি তো কে মেয়েটা) গার্ল ফ্রেন্ড হবে হয়তো।
,
স্নেহা ::::: আমি ওই মেয়েটাকে মেরে দিবো আর ওকে ও
,
আমি ”’::::: ধুর থাক তোরা আমি গেলাম।
,
( চলে আসলাম। কেনো যানি ওদের কথা আমার সহ্য হচ্ছে না। আর মেয়েটা ওমন করে কেন উনার হাত।ধরে আছে। উনি কিছু বলছে না। মনে হচ্ছে কানের নিচে মেরে দেই….কে যেনো আমার নাম ধরে ডাকলো পিছে ফিরেই দেখি আবির)
,
আবির ::::: এই মেয়ে কখন থেকে ডাকছি কানেও কি কম শোনো????
,
আমি ::::: হ্যা আপনার কি????
,
আবির :’:::::
শোনো কাল থেকে বোরকা পরে কলেজে আসবা।
,
আমি :::::: কেনো বোরকা পরবো কেনো?
,
আবির:::::: আমি বলছি তাই। আমি চাইনা তোমায় কেউ দেখুক। আর হ্যা কাল রাতে আমি ফোন দিছিলাম রিসিভ করো না কেনো???
,
আমি ::::: আমি জানতাম না তো আপনার নাম্বার
,
আবির ::::: ওকে আর কোনো unknown নাম্বার রিসিভ করবা না, আর অবশ্যই বোরকা ছারা বের হবা না।আর এই নাও এটা তোমার জন্য (একটা বক্স এগিয়ে দিলাম)
,
আমি ::::: আমি নিতে পারবো না।
,
আবির :::::: আহা দেখই না
,
আমি ::::::: বক্স টা নিয়ে খুললাম খুলে দেখি complain এর ৫ টা প্যাকেট।
অগ্নিমুর্তি দৃষ্টিতে তাকালাম উনার দিকে
,
আবির :::::: ওইভাবে তাকিও না গো মরে যাবো,,,,,আমি চাই না ফিউচার এ তুমি কারো ওপর পরো। তাই আগে থেকে তৈরি হও।।।।
,আমি :::::: আপনার সাথে কোনো কথা নাই। একদম কথা বলবেন না আমার সাথে। তুলে একটা আছার মেরে দেবো।
,
আবির :::: হা হা হা হা যে মেয়ে কথায় কথায় যেখানে সেখানে আছার খায় সে নাকি আমায়,,,,,,,,, হা হা হা হা
,
আমি ::::: অসহ্য লোক ( বলে চলে আসলাম।)
,
আকাশ ::::’:: সুপ্তি বাসায় যাচ্ছো।।
,
আমি ::::: হুম
,
আকাশ :::: চলো তোমায় ড্রপ করে দেই
,
আমি ::::: না,,,,,,,( বলতেই দেখি আবির আমার দিকে এগিয়ে আসছে। কথা না বলেই আকাশ এর বাইকে উঠে চলে আসলাম)))
আবির ;:::::: এত্ত বড়ো সাহস ওর। সাহস কি করে হয় ওর। কাল তোমার খবর আছে সুপ্তি,,,,,,,,
,
বাসায় এসে রুমে সুয়ে পরলাম।
আর ভাবছি (আচ্ছা আবির কি চায় আমার কাছে। সাহস কি করে হয় আমায় complain গিফ্ট করে। তুমি চিনোনা আমায় আবির সাহেব কি হাল করি দেখো।)
,
এমন সময় আমার বান্ধবি সুমা ফোন দিল
সুমা: কিরে দোস্তো কেমন আছিস??
,
আমি: আমার শরির ভালো না রে তাই। তুই???
,
সুমা : হ্যা ভালো। আচ্ছা কাল আসিস প্যক্টিকেল ক্লাস আছে।
,
আমি: ওকে।
,
সুমা: আর হে আবির ভাইয়া তোর খোজ করছিল।আমি তোর নাম্বার দিছি।
,
আমি: নাম্বার কেন দিছিস কুত্তা।
,
সুমা: চাইলো যে।
,
আমি: ভালো করছিস রাখ।
( আবির ফোন দিচ্ছে দিক ফোন ধরবোনা। তার কি মেয়ের কম পরছে।আমি তাকে কি ভালোবেসে ফেলছি। অন্য মেয়ের সাথে দেখে আমার কেনো খারাপ লাগছে। ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে পরলাম।)
,
,,,,
(সকাল থেকে আবির সুপ্তির জন্য কলেজে ওয়েট করছে। কিন্তুু ও আসছে না। আজ আবির সুপ্তিকে প্রপোজ করবে।
একটু পর সুপ্তি আসলো ওর এক ছেলে বন্ধুর সাথে। ২ জনে খুব হাসছিলো। আবির দুর থেকে সব দেখছিল। আবির সহ্য করতে না পেরে ওদেে সামনে গিয়ে দারায়))
,
আবির :::রাতে ফোন দিলাম ধরলানা কেনো??
,
সুপ্তি- ::: দেখিনি।আমার কাছে বাই
,
আবির ::: যেতে বলছি তোমায় আমি???
বোরখা পরনি কেনো???? ( চিল্লিয়ে)
,
আকাশ :::: চলো সুপ্তি তোমার সাথে কথা আছে।
( বলেই সুপ্তির হাত ধরে।আবির সাথে সাথে আবিরের গালে থাপ্পর মারে। সুপ্তি আকাশকে ধরাতে আবিরের রাগ আরো বেরে গেলো সাথে সাথে সুপ্তির গালেও আচমকা থাপ্পর মারে,,,,)
,
সুপ্তি গালে হাত দিয়ে ক্যাম্পাসে বসে কাদতে থাকে,,,,,,,,
,
আবির আবার আচমকা সুপ্তির হাত ধরে টানতে টানতে ফাকা রুমে নিয়ে গিয়ে রুম লক করে দেয়,,,,,,,,,,
,
চলবে,,,,,,,,#বাতাসী_বউ
পর্ব ৫
__ অন্না
আমি :::::: আ,,,,,,,আপনি দ,,,র,,,জা কেনো আটকাচ্ছেন। আমি কিন্তুু চিল্লাবো।
.
( সুপ্তির কথা শোনার সাথে সাথে আর একটা থাপ্পর মেরে দেওয়ালের সাথে আটকে ধরে।)
,
আবির :::: ওর সাহস কি করে হয় তোমার হাত ধরে। চিনো তুমি আমায় চিনো??? সাহস কি করে হয় তোমার আমার কথার বিরুদ্ধে যাও তুমি??? হাত পা ভেঙে ঘরে বসিয়ে রাখবো
,
আমি :::: (ধাক্কা দিয়ে উনারে সরিয়ে দিয়ে,,)… আপনি কে আমার পারসোনাল বিষয়ে মাথা ঘামানোর??? আমার লাইফ আমি যা ইচ্ছা করতে পারি।আকাশ আমার হাত কেনো ও আমার সাথে ডা ইচ্ছা করবে আপনি কে বলার,,,,,,
,
সুপ্তির কথা শুনে আবির রুম এর একটা চেয়ার তুলে সজোরে মেঝেতে বারি মারলো,সুপ্তির দুহাত জোরে দেয়ালের সাথে চেপে ধরে বললো,,,,
,
আবির :::::: তুই চিনিস আমায়??? আকাশ কি করবে বললি??? শোন কেউ তোর হাত ধরা তো দূরে থাক আঙুলের টোকাও যদি তোর শরিরে দেয় না তার চিন্হও দুনিয়াতে পাওয়া যাবে না। তোর সাথে যা ইচ্ছা করার অধিকার শুধু আমার। তুই চাইলেও তুই আমার না চাইলেও আমার।। শুনেছি মেয়েরা নাকি সব বুঝতে পারে তুই বুঝতে পারিস না কেনো i love you damet i love you…..
,
এদিকে আবির সুপ্তির হাত এমন করে ধরছে সুপ্তির ব্যাথায় আহ্ করে ওঠে। আবির সুপ্তির হাত এর দিকে তাকিয়ে সুপ্তিকে ছেরে দেয়, সুপ্তি জোরে জোরে কাদতে থাকে। সুপ্তির কান্না দেখে আবিরের বুকের ভেতর মোচোর দিয়ে ওঠে ও ধপ করে সুপ্তির পায়ের কাছে বসে পরে,,,,,,
,
আবির ::::: আমি খুব খারাপ মানুষ সুপ্তি খুব খারাপ মানুষ। প্রথম দেখাতেই আমি তোমাকে আমার নিজের চাইতেও বেশি ভালোবেসে ফেলেছি। সেদিন বিয়ে বাড়ি থেকে আসার পর তোমায় আমি ওনেক খুজেছি। তোমায় পাবার পর আমি পৃথিবী খুজে পেয়েছি। কিন্তুু কলেজ এর সব ছেলে তোমার দিকে তাকিয়ে থাকে আমার সহ্য হয় না। তাই তোমায় বোরকা পরে আসতে বলছি কিন্তুু তুমি আসোনি,, কাল আকাশ এর বাইকে চরে বাসায় গেছো, আজ ওর সাথে ক্লোজ ভাবে হাসছো,আর যখন ও তোমার হাত ধরছে আমি আর নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারি নি ওকে মারছি।।। কিন্তুু তুমি ওকে টাচ্ করছো তাই তোমাকে মারছি। আমি তোমার গায়ে হাত তুলতে চাইনি বিশ্বাস করো। কিন্তুু আমি নিজের রাগ কন্ট্রোল করতে পারি নি,,,,প্লিজ মাফ করে দাও ামায় প্লিজ। আমি তোমায় অনেক ভালোবাসি অনেক,,,,,,,,,
.
বলে আবির কাদতে থাকে। আবিরের কান্না ও সুপ্তি সহ্য করতে পারে না দুহাত দিয়ে শক্ত করে আবিরকে জরিয়ে ধরে,,,,,,,,,,,,
,,,
সুপ্তির ভাবনার ছেদ ঘটায় ওর মা,,,,,
,,
সুপ্তির মা :::: কিরে গোসল হলো তোর কখন থেকে গোসর করছিস। ঠান্ডা লেগে যাবে জলদি বের হো। আর তোর বাবা ডাকছে তোকে,,,,
,
সুপ্তি- যাও মা আমি আসছি,,,,
,
আবিরের point…….
এদিকে আবির ও বাসায় এসে স্থির হতে পারছে না। দেওয়ালে নিজের হাত বারি দিয়েই চলেছে। এমন তো হবার কথা ছিল না। হবার কথা ছিলো অন্য রকম। সুপ্তি কেন আমার সাথে বেইমানি করলো কেন। আমার ভালোবাসার তো কোনো কমতি ছিলো না। প্রথম দেখার পরই তোমায় আমি ভালোবেসে ফেলছিলাম। কিন্তুু তুমি আমার সাথে অনেক বড় চিট করছ। আমার হৃদয়ের আনাচে কানাচে শুধু তুমি আছো শুধু তুমি। তুমি আমার সাথে চিট না করলে তোমায় আমার বুকের ভেতর রাখতাম।আমি তোমায় কোনোদিন ও ক্ষমা করবো না। তোমার ওপর প্রতিশোধ নেওয়া আমার আসল উদ্দেশ্য। আজ আমার কলিজা টা ছিরে যাচ্ছিল তোমার চোখের পানি দেখে। কিন্তুু সব কিছুর জন্্য তুমি দায়ি।।।
তুমি কেন এমন করলা সুপ্তি কেন এমন করলা,,,,,,,
,
এর মধ্যে মা আসল,,,,
মা,,,, কিরে বাবা আবির আজ এত্ত জলদি চলে আসলি। শরির খারাপ????
,
আমি:………
মা,,,,,,হায় আল্লাহ্ হাতে কি হয়ছে এত্ত রক্ত?
আমি:…….
মা,,, তুই কি ঠিক করছিস আমায় বাচতে দিবি না। লিজা,,,, লিজা,,,, জলদি আয়
.
লিজা,,,, হ্যা খালা বলো,,,,, একি আবির তোমার হাতের কি অবস্তা করছ?
.
মা,,,, পরে শুনিস আগে ওষুদের বাক্স নিয়ে আায়,,,,,,
,
লিজা,,,,, আমি ব্যান্ডেজ করে দেই।
আবিরের হাত ধরতেই আবির হাত ছারিয়ে নিলো ,,,,,
,
আমি,,,,,,, আমাকে আমার মতো থাকতে দাও। প্লিজ তোমরা যাও,,,
,
মা,,,,, তুই কার জন্য এত্ত কষ্ট পাচ্ছিস একবার বলবি আমায়। যে মেয়েটা তোর সাথে এমন ধোকা দিলো তাও বিয়ের রাতে তার জন্ন্য? যে মেয়ে তোর বাবা, মা এর মান সম্মান নষ্ট করছে তার জন্য? যে মেয়ে বিয়ের রাতে,,,,,,,,
,
আমি,,,,,,,আর একটা কথাও শুনতে চাই না তুমি যাবে না কি আমি বাসা থেকে বের হইয়ে যাব???
,
মা,,,,, আল্লাহ আমার মরন দেয় না কেন তোর যা ইচ্ছা কর
,
মা চলে গেলো।লিজা এসে আমায় জরিয়ে ধরলো,,,,,, আমি ঠাস করে একটা থাপ্পর মেরে দিলাম,,,,
,
আমি,,,, আমায় জরিয়ে ধরার সাহস তোকে কে দিছে??? বের হইয়ে যা আমার সামনে থেকে,,,,
,
লিজা,,,, যাকে অধিকার দিছিলা সে তো রাখতে পারে নি। আমায় একটা বার সুযোগ দাও আমি আমার ভালোবাসা দিয়ে তোমায় সব ভুলিয়ে দিব।তুমি সুপ্তির জায়গা টা আমায় দাও। আমি তেমায় ঠকাবো না
,
আমি,,,, তোর সাহস কি করে হয় সুপ্তিকে নিয়ে কথা বলার। ওমার সাথে যাই করুক তুই কে কথা বলার?আমার ওপর অধিকার শুধু ওর। আমার সাথে ও যা ইচ্ছে করবে। তুই কে? বের ইয়ে যা এখান থেকে,,
,
লিজা,,,, আবির,,,,,
,
আমি,,, তোর যেতে হবে না
আমি ওরে বের করে দিলাম।নানা রকমের ড্রিংকস নিয়ে বসে পরলাম সুপ্তির ভাবনায়।।।।
,,
সুপ্তির point…………….
সন্ধার পর বাবার কাছে গেলাম
আমি :: বাবা আসবো?
,
বাবা:: আয় মা
,
আমি :: মা বললো তুমি নাকি ডাকছো আমায়?
,
বাবা:: হ্যাঁ মা। তোর সাথে কথা আছে আমার। আশা করি আমার কথা টা রাখবি আমার,
,
আমি ::: এমন কিছু বলো না বাবা যা আমি রাখতে পারবো না।
,
বাবা’ :: মরার আগে আমায় এই কাজটা করতে দিবি না মা। তোকে কাল বিকালে দেখতে আসবে। আমার বন্ধুর ছেলে। প্রাইভেট কোম্পানিতে জব করে ছেলে তোকে সুখে রাখবে।
,
আমি ::: বাবা অন্য কাউকে বিয়ে করা আমার পক্ষে সম্ভব না
,
বাবা ::: সেদিন যা হয়েছিলো তা কেউ ভুলে যায়নি। তোর জন্য আমি এলাকা, শহর, চাকরি সব ছারছি। তুই কি চাস আমার বাকি মান সম্মান টুকু ও নষ্ট হয়ে যাক???
,
আমি,,, বাবা সেদিন কি আমার কোনো দোষ ছিলো?
,
বাবা::: আমি কিছু জানতে চাই না। আমার বাসায় থাকতে হলে আমার কথামতো চলতে হবে
,
আমি কিছু বললাম না চলে আসলাম। সত্যিই তো আমার জন্য অনেক কিছু সহ্য করতে হয়েছে বাবা,মা কে। কি বা করতাম আমি ভাবছিলাম আবির নিজের ভুল টা বুঝতে পারবে একদিন। ওর সুপ্তির কাছে ঠিক ফিরে আসবে। কিন্তুু,,,,,,
,,,
সকালে অফিস যাবার জন্য রেডি হচ্ছিলাম।
,
মা:: কিরে আজ অফিস না গেলে হয় না
,
আমি ::: না যেতে হবে কাজ আছে । টাইম মতো চলে আসবো,,,
,
,
বলে বের হইয়ে আসলাম
আবিরের point ,,,,,,,,,,
আমি অফিসের জন্য রেডি হয়ে বের যাচ্ছিলাম মা পিছে থেকে ডাকলো,,
মা :::: কিরে খেয়ে যা,,,
,
আমি::: খাবনা তোমরা খাও
মা:: তুই নাখেলে আজ আমিও খাবো না।
,
আমি : ঠিক আছে াসছি,,,,
,
বাবা::: কিরে সব কাজ ঠিকঠাক করতে পারবি তো।
,
আমি ::: লাইফের অনেক কাজ ই করার কথা ছিলো না তাও করছি,
,
বাবা::: তোর হাতে কি হয়েছে????
,
আমি ::: কিছু না।
,
মা::” আমি বলি কি তুই এবার বিয়ে কর। অনেকদিন তো হলো,,, এবার তো নাতির মুখ দেখতে দিবি,,,,
,
আমি কিছু বললাম না। না খেয়ে চলে আসলাম।,,,,,,,,,
মা:::: না খে যাচ্ছিস কেনো?? খেয়ে যা,,,
দেখেছো তোমার ছেলেকে???
,
বাবা: তুমি যা চেয়েছিলে তাই হচ্ছে। কি তুমি খুশি তো?? আবির না জানলেও আমি কিন্তুু সব জানি।
,
মা:::: কিহ্ কি,,,কি,,,কি,, জানো তুমি???
,
আবিরের বাবা ::: তুমি ভালো করেই জান কি জানি? আর আবির যদি জানতে পারে তো লজ্জায় মরে যাবে। আমি চাই না ও ওর মা কে মা’ বলতে লজ্জা পাক।কিন্তুু আমি চাই ওর রাগের হাত থেকে সুপ্তি বেচে যাক। মনে রেখো আল্লাহ্ আছেন।
বলে আবিরের বাবা চলে আসলো,,,,,,
অফিসে,,,,,,
অলি::: আপু তুমি আজ কলেজে যাবে না???
সুপ্তি- না গো আপু আজ আমায় দেখতে আসবে । স্যার কে বলে ছুটি নিতে হবে।
অলি:::: আপু,,,,,,,,, দেখতে আসবে???? ওয়াও,,,,,,,,,, বিয়ে টা কবে গো??? ইনভাইট করবা তো???
আমি :::: না গো যদি তোয় পছন্দ কে তো আমার কি হবে,,,,
,
অলি :::: মোটেও না তোমার কাছে আমি আর কি। তোমায় যে দেখবে সেই প্রেমে পরে যাবে।।।
চলবে…….#বাতাসী_বউ
পর্ব ৬
__ অন্না
এর মধ্যে সুপ্তির ক্লাস ফ্রেড ফোন দেয়,,,,,
স্নেহা:::: কিরে কই তুই আজ কলেজে আসলিনা কেনো?? জানিস আজ কি হইছে,,,,
,
আমি:::::: কেনো কি হইছে????
,
স্নেহা :::: আবির স্যার বলছে একদিন কলেজে না গেলে আর সব ক্লাস না করলে বোর্ড পরিক্ষাতে বসতে দিবে না। আর কাল লাস্ট ৩ অধ্যায় এর সব ম্যাথ করে নিঢে যেতে বলছে। যে পারবে না তাকে মাঠ এর মধ্যে দার করিয়ে রাখবে। এইটাই নতুন নিয়োম।,,,,,
,
আমি :::: লাস্ট চ্যাপটার কেনো। ওইগুলা তো করাই হয় নাই।।।
,
স্নেহা ::::::: স্যার আজ কিছু করায়,দিছে ,,,,
,
আমি ::::: ওহ্ আচ্ছা রাখি বাই,,,,,( তুমি কি মনে করো আমি বুঝিনা। সব বুঝি তুমি কেনো করছো এইসব))))
,
অলি :: ওহ্ ও আপু কাজের কথাই তো বলিনি স্যার তোমাকে ষ্টোর রুম থেকে এই লিষ্টের ফাইল গুলো আনতে বলছে।
আমি :: ঠিক আছে।
লিষ্ট টা নিয়ে রুমের ভেতর ঢুকতেই কেউ বাহিরে থেকে দরজা লক করে দিল। আমি অ নেক চেষ্টা করেও দরজা খুলতে পারলাম না। আমি সব থেকে ভয় পাই এই ইদুর দেখে যার কোন কমতি এখানে নাই।
আমি ::: কেউ আছেন প্লিজ হেল্প মি,,,,
( সুপ্তিকে আবির বাহিরে থেকে লক করে দেয়। ও ভালো করেই যানে সুপ্তি ইঁদুর দেখে ভয় পায়। এদিকে সুপ্তি ভয়ে সেন্স হারিয়ে ফেলে। আবির বুঝতে পারে নি অমন টা হবে।)
আবিরের পয়েন্ট,,,,,,,,
আমি বুঝতে পারি নি এমন টা হবে। আমি ওরে একটু ভয় দেখাতে চাইছিলাম। দরজা খুলে দেখি ও ফ্লোরে পরে আছে। দৌরে গিয়ে ওরে কোলে তুলে নিয়ে আমার কেবিন এর সোফায় শুইয়ে দিলাম। অফিসের সব স্টাফ দৌরে এলো,
অলি : আপু…… কি হইছে আপুর
আমি ::: জানিনা ফ্লোরে পরে ছিলো
অলি ::: কিন্তুু আপু তো,,,,,
আমি ::: ডাক্তার কে ফোন করো কুইক
অলি : জি স্যার,,,,
(ডাক্তার এসে দেখে বললো সুপ্তির শরির অনেক দু্বল।ঠিক মতো খাওয়া দাওয়া করে না তাই বিপি একদম লো হইছে। উনার খেয়াল রাখবেন। কিছু মেডিসিন দিয়ে তিনি চলে গেলেন।)
সুপ্তির পয়েন্ট………..
চোখ খুলে দেখলাম আমি আবিরের কেবিন এ। উঠতে গেলাম কিন্তুু পারলাম না উঠতে। শরির এ কোনো শক্তি পাচ্ছি না।
যানি আজ যা হলো সব আবিরের কাজ। কিন্তুু ওকে কিছু বললাম না। আমি কোনো রকম উঠে চলে আসছিলাম, তখন,,,
আবির::::: তো ড্রামা শেষ???
নাকি আর কিছু বাকি আছে???
,
আমি::: জি স্যার
শেষ
,
আবির::::এই ফাইল গুলো এখনি কমপ্লিট করে দাও,,,,
,
আমি::::( ওর হাত টা দেখে চমকে উঠলাম,রক্ত জমাট বেধে কালো রং ধারন করছে) দৌরে গিয়ে হাত ধরে বললাম, কি হয়েছে তোমার হাত এ?
,
আবির::::: হাহাহাহা এইটা দেখে এমন করছো, যেটা আমার বুকের মধ্যে হয়ে আছে সেটা কি করে দেখবে তুমি। আর তুমি যেটা চেয়েছো সেটাই হচ্ছে। ছাড়ো আমায়,,,,
,
আমি ::::: (হাত ছেরে ওষুধের বাক্স নিয়ে ওর হাতে লাগিয়ে দিতে গেলাম ও আবার ও হাত সরিয়ে নিলো।) রাগের মাথায় ঠাস করে দিলাম থাপ্পর মেরে। কি চাও তুমি? আর একটা কথা বললে একদম মেরে ফেলবো।
,
হাত ব্যান্ডেজ করে দিলাম ওমাথা নিচু করে বসে আছে। তাকিয়ে দেখি ওর চোখ দিয়ে পরছে। ওকান্না করছে। বুকের ভেতরটা মোচোর দিয়ে উঠলো।
,
আমি :::: এই তুমি কাদছো কেনো? কি হইছে? বলো না বলো আমায়, ওই আবির,,,,
,
আবির :::: (অনেক দিন পর ও আমায় শাষন করলো। চোখের পানি আটকে রাখতে পারলাম না। আর নিজেকে ও।) সমস্ত শক্তি দিয়ে ওরে জরিয়ে ধরলাম।
,
আমি :::: আজ অনেক দিন পর আমি আমার আবির কে এতো কাছে পেলাম আমিও আবির কে জরিয়ে ধরলাম।
কিন্তুু আবির আমায় ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিলো আবিরের বাবার আমায় ধরে ফেললো।
,
আবিরের বাবা :::: অমানুষ হয়ে গেছিস?
তোর সাথে কথা বলাই বেকার। মা তোর কোথাও লাগে নি তো??
,
আমি :::: না আঙ্কেল আমি ঠিক আছি।
আসলে আমার আজকে ছুটি লাগবে।
,
আবিরের বাবা:::: কেনো মা কোথাও যাবি???
,
আমি ::: না তেমন কিছু না আসলে আমায় দেখতে পাত্রপক্ষ আসবে তাই
,,,,,
,

আবিরের বাবা::: ( অবাক দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকিয়ে বললো) যা করছিস ভেবে করছিস তো???
,
আমি::::,,,,,,,,, বাবা চায়। আমার জন্য ওরা অনেক কিছু সহ্য করছে এইটুকু আমার করতেই হবে।
,
(সুপ্তির কথা শুনে আবিরের হাত থেকে পানির গ্লাস টা মেঝেতে পরে টুকরো টুকরো হয়ে গেলো।)
,
আবিরের বাবা:::: ঠিক আছে তোদের যা ইচ্ছা কর।
,
আমি বের হয়ে চলে আসলাম
,
আবিরের পয়েন্ট ::::
কি বলে গেলো ও। যে সাজে আমার ঘরে থাকার কথা ওর সে সাজে অন্য কারো সামনে বসবে।আমার লাইফ টা শেষ করে নিজের সংসার করবে ও। আমি বেচে থাকতে কোনোদিন ও সেটা পারবে না তুমি। ভেবেছিলে আমার থেকে পালিয়ে তুমি বেচে যাবে। খুজে যখন বের করছি একবার তো তোমায় আমি ছারবো না।
,
বাবা::::: আবির এখন ও সময় আছে। সব কিছু হাতের বাহিরে যেতে দিস না।

,,,,,,,তুমি কি যানো না বাবা সেদিন রাত এ কি হয়ে ছিলো?????
,
বাবা ::::::: আমি সব জানি।।।।। তোকে যা বোঝানো হইছে তাই বুঝছিস তুই। একবার ভেবে দেখ সবটা সব পানির মতো পরিস্কার হবে।।।
,

,
আবির:::::: আমি আমার নিজের চোখকে কি করে অবিশ্বাস করবে বলো। আমার জরুরি কাজ আছে।
রাতে কথা বলবো,,,, আমার যেতে হবে,,,,
,
বাবা:: কি কাজ আমি বুঝি না ভাবছিস???
,
আবির:::: তোমার যা ইচ্ছা ভাবো। বাই,,,,,
,
বাবা:::: শোন বাবা জাসনে,,,,
,
( আবির কিছু না বলে বেরিয়ে গেলো)
,
সুপ্তির পয়েন্ট………………….
,
(বাসায় এসে তারাতারি গোসল করে তৈরি হচ্ছিলাম। মা এলো,,)
,
মা:::: শোন মা মনের মধ্যে কোন অতীত নিয়ে চিন্তা রাখিস না। ছেলে তার পরিবার খুব ভালো। তোর সাথে যা হইছে তা হবার ছিলো না। আল্লাহ্ আমাদের কপালে যা লিখে রাখছে তাই হচ্ছে। তোর বাবার কথায় কিছু মনে করিস না। তুই তো সব ই জানিস। আমরাই কি করবো। তোর বাবার শরির ও ভালো যাচ্ছে না।ওদের তোকে আজ পছন্দ হইলে আংটি পরিয়ে যাবে। যার জন্য এতোদিন অপেক্ষা করলি সে তো আর ফিরে আসবে না। যেটা হচ্ছে সেটা মেনে নিয়ে আমাদের সম্মান টুকু রাখিস মা। জলদি তৈরি হ। ওরা চলে আসছে।)
,
মা চলে গেলো। আমি কিছু বলতে
পারলাম না। কি বা বলবো আমি। যার আশায় ছিলাম সে তো আমার কি ভাবে কষ্ট দিবে তার চেষ্টা করে যাচ্ছে।আবিরের কথা খুব মনে পরছে আজ। তুমি তোমার সুপ্তিকে বিস্বাস করতে পারলে না আবির।
সেদিন যা ঘটেছিলো তাতে আমার কোন হাত ছিলো না। একটি বার যদি ফিরে আসতে আমার কাছে। যে সম্পর্কে কোন বিস্বাস নাই। তা ভাঙবারই।
,
আমাকে বাহিরে নিয়ে যাওয়া হলো।সাজবার মতো নীল শারি, আর কপালে কালো টিপ। টিপ আমার খুব পছন্দের আবির আমায় প্রাই গিফ্ট করতো। যাই হোক আমি ড্রয়িংরুম এ যাইতেই এক মহিলা আমায় তার কাছে নিয়ে বসালো
,
মহিলা::: আসো মা আমার কাছে বসো।
( বুঝলাম ইনিই ছেলের মা)
,
আমি ::: চুপচাপ গিয়ে বসলাম
,
মহিলা::: মাশাল্লাহ্ আপা আপনার মেয়ে সত্তি খুব সুন্দর। মেয়ে আমার খুব পছন্দ হইছে।
,
মা :::: আপা আপনার ছেলের ও তো একটা পছন্দের ব্যাপার আছে।
,
মহিলা:::: কিযে বলেন। ওর জন্যই তো এতো জলদি মেয়ে দেখতে আসা। ওরে এত্ত মেয়ে দেখাইলাম কোনো মেয়েই নাকি ওর পছন্দ না। আপনার মেয়েকে ছারা অন্য কোনো মেয়েকে তো ওবিয়েই করবে না তার জন্যই তো। বোঝেন তো একমাত্র ছেলে আমার কোনো চাওয়াই অপূর্ণ রাখি নি। আপনার মেয়েকে মাথায় তুলে রাখবো আপা।
,

মহিলা :::: বাবা রাজ এই আংটি টা সুপ্তির হাত এ পরিয়ে দাও,,,,,

আমি :::: মহিলার কথা শুনতেই ছেলের দিকে তাকালাম। মনে হইলো কেউ আমারে পানিতে চুবাইয়া আনলো। এযে অন্য কেউ নয় রাজ।। হায় আল্লাহ্ এইটা তুমি কি করলা। শেষ পর্যন্ত এই গাধা , হ্যাংলার মতো তাকিয়ে আছে। আল্লাহ্ এইটাই বাকি ছিলো।।
,
এর মধ্যে হঠাৎই আবির আসলো। আচমকা আমায় টানতে টানতে আমার রুমে নিয়ে গিয়ে দরজা লক করে আমায় পাগলের মতো জরিয়ে ধরে kiss করতে লাগলো। আমার ব্লাউজের হাতা ছিরে দিলো। আমি ওর কাছ থেকে বাচার চেষ্টা করতে থাকলাম। কিন্তুু ওর হাত থেকে নিজেকে বাচাতে পারছিলাম না। জোর করে ছারিয়ে ঠাসসসস করে ওর গালে থাপ্পর মেরে দিলাম।,,,,,, ও আমাকে দেওয়ালের সাথে জোরে চেপে ধরলো।
এক হাত দিয়ে আমায় সজোরে ওর বুকের সাথে চেপে ধরলো আর এক হাত আমার ঠোঁটের ওপর দিয়ে বললো
,
আবির ::::এএখানে আজ পর্যন্ত কতো জন এর ঠোঁটের ছোয়া পরছে???
,
আমি :::: ছিঃ আবির ছিঃ
ঘেন্না হচ্ছে আমার তোমার ওপর,,,, ছারো আমায়
,
আবির :::: কেনো আমার ছোয়াতে ফিলিংস পাচ্ছ না। নাকি অন্য কেউ অনেক বেশি,,,,,,,
,
আমি :::::: হ্যা অনেক বেশি ফিলিংস পেয়েছি তাই তোমার কাছ থেকে কোনো ফিলিংস পাচ্ছি না

,
সুপ্তির কথায় আবিরের মাথায় রক্ত চোরে যায় সুপ্তিকে জোর করে শাড়ি খুলে বিছানায় ফেলে ঠোটে কামর দিয়ে রক্ত বের করে দেয়। তারপর ধাক্কা মেরে ফ্লেরে ফেলে দেয়।
,
আবির ::::: এই ফিলিংসের কথা তোমার সারা জিবন মনে থাকবে সুপ্তি।কি ভাবছিলা আমায় ঠকিয়ে অন্য কাউকে নিয়ে শান্তিতে সংসার করবা,,,,,,, হা হা হা হা দেখি এখন কে করে তেমায় বিয়ে।
,
আমি ::::: আবিরের কথার কোনো উত্তর দিতে পারলাম না।
,

,(বাহিরে থেকে শোনা যাচ্ছে রাজ এর মা অনেক বাজে কথা বলে চলে গেল।)

মা, বাবা বাহিরে থেকে আবির কে অনুরোধ করে যাচ্ছে আমার যেনো কোনো ক্ষতি না করে। আবির আমায় আবার তার কাছে নিয়ে আমার ঠোট দুটি স্পর্শ করে বিছানায় ফেলে দিলো
,
আবির :::: আমার প্ল্যান সাকসেস। বাই ডিয়ার গুড ডে,,,,,,
,
আবির চলে গেলো।
,
মা আমায় দেখে দরজায় পরে বসে কাদতে লগলো। বাবা ঘরে চলে গেলো।।
আমি কি করবো ভেবে পাচ্ছিনা।
উঠে দরজা লক করে দিলাম।
,
(এইদিকে আবির বাসায় ফিরে নিজের রুমে যাইতেই তার মা বাবার কথাগুলো শুতে পায়)
আবিরের পয়েন্ট………….
,
আমি আজ এসব কিছু করতে চাইনি। সব তোমার ফল্স। তোমার প্রাপ্য ছিল।সাহস কি করে হয় অন্য কাউকে বিয়ে করার। আমি যেমন জলছি তোমাকেও ঠিক তেমনি জলাবো,,,,,,

,
কিনতু মা এ কি বলছে বাবাকে। আমার দুনিয়া উল্টে গেলো আমি নিজেকে সামলাতে পারলাম না মা,বাবার রুমের দরজার সামনে ধুপ করে বসে পরলাম।।
,
চলবে,,,,

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here