কনফিউশন পর্ব ২৭

0
173

কনফিউশন পর্ব ২৭
লেখকঃ মৌরি মরিয়ম

কাব্য মৃদু হেসে বললো,
“কারণ তনিকা চায় আমি তাকে ফোন করি, সে কেন এসব করছে জিজ্ঞেস করি। কিন্তু আমি তা করবো না।”
কাব্যর হাসি দেখে আরশির খটকা লাগলো। প্রশ্ন করে বসলো,
“কিন্তু কেন করবে না?”
“কারণ আছে। আমি তনিকাকে ভালোবাসি না এ কথা জানার পর কিন্তু সে তার আত্মসম্মানের কারণেই আমাকে ছেড়ে চলে যায়। সে চলে যাওয়ার পর আমার সাথে আর একবারো যোগাযোগ করেনি। আমার সামনেও আসেনি। কখনো একটা ফোনও করেনি। এরপর শুনলাম সে বিয়ে করেছে। আমি তার এই আত্মসম্মানবোধকে শ্রদ্ধা করতাম। কিন্তু শ্রদ্ধাটা সেদিন চলে গেলো যেদিন সে বিবাহিত হওয়া স্বত্তেও আমার মাকে ফোন করে আমাদের কথা বলে দিলো। এখানেই তো সে তার আত্মসম্মান টা বিসর্জন দিলো। অথচ আত্মসম্মান টা যদি একটু অন্যভাবে বিসর্জন দিতো তাহলে হয়তো আরো সুন্দর সমাধান হতে পারতো। ধরো সেদিন যা ঘটেছিলো তার পরেও সে যদি সব ভুলে ফিরে আসতো, আমি যে তাকে গ্রহণ করতাম এটা সে জানতো। কিন্তু সে আসেনি। সে চাইলে পারতো আরেকটু সময় নিয়ে সবটা গোছাতে। আমি শুধুই নিজের অনুভূতিটুকু তার কাছে ক্লিয়ার করতে চেয়েছিলাম, তাকে ছাড়তে চাইনি। যেহেতু আমাদের সম্পর্ক অনেকদূর এগিয়ে গিয়েছিলো সেহেতু আমি তাকে বিয়েও করতাম। সব বিয়েতে ভালোবাসা জরুরি নয়। কিন্তু সে খুব বিশ্রীভাবে তার আত্মসম্মান টা বিসর্জন দিলো।”
আরশি চুপ। কাব্য একটু থেমে আবার বললো,
“তনিকার প্রেগন্যান্সি চলছে। মনমতো স্বামী পেয়েছে। সে তার মতো করে ভালো আছে, কিন্তু আমি ভালো নেই। কারণ আমার মায়ের মনে অনেক কষ্ট তার ছেলেটা খারাপ বলে। ছোটোবেলা থেকে মায়ের কাছে আমি খারাপই ছিলাম। ক্লাস সিক্স থেকে সিগারেট খাই, কথা শুনিনা, নিজের মতো চলি। একমাত্র মেয়েঘটিত কোনো কেলেঙ্কারি আমার ছিলো না। এবার সেটাও যোগ হয়ে গেলো।”
আরশি চুপ। কাব্য একটু থেমে আবার বললো,
“তনিকা যদি বিয়ের আগে মাকে বলতো তাহলে আমি তার সাথে যোগাযোগ করে জানতে চাইতাম কেন এমন করলো। কিন্তু বিয়ের পরে যখন বলেছে তখন আর জিজ্ঞেস করার প্রয়োজন পড়েনি। উত্তরটা আমার জানা।”
“উত্তরটা কী?”
কাব্য আরশির চোখের দিকে তাকিয়ে বললো,
“বলো তো কী হতে পারে?”
আরশি চোখ ফিরিয়ে নিলো। ছাদের কোনায় রাখা ফুলের টবের দিকে তাকিয়ে কিছুক্ষণ ভাবলো। তারপর বললো,
“ঠিক বুঝতে পারছি না।”
“আমাকে শাস্তি দেয়ার জন্য এসব করেছে। ভুল যেহেতু আমার শাস্তিটা আমি মেনেই নিয়েছি।”
এ কথার পর আরশি আর কোনো কথা বললো না। কিছুক্ষণ দুজনেই চুপ। একসময় আরশি নীরবতা ভাঙলো,
“তোমার এসব কথা কে কে জানে?”
“মা আর তুমি।”
“আন্টিকে তো আর তুমি বলোনি?”
“না তনিকা যতটুকু বলেছে মা শুধু ততটুকুই জানে।”
“দোষ তো তোমার একার ছিলো না কাব্য। আন্টি তো সবটা না জেনে তোমাকে ভুল বুঝছে, তার ভুলটা ভেঙে দিচ্ছো না কেন?”
“জীবনে খুব গুরুত্বপূর্ণ কেউ ভুল বুঝলে ভুলটা ভাঙাতে ইচ্ছে করে না আমার।”

আরশি খানিক অবাক হয়ে চেয়ে রইলো। কাব্য জোৎস্নাভরা আকাশের দিকে তাকিয়ে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললো যার অর্থ আরশি অনেক ভেবেও বুঝতে পারলো না। এই দীর্ঘশ্বাসের কারণ জিজ্ঞেস করবে করবে করেও করলো না আরশি। জিজ্ঞেস করলো অন্য কথা,
“তার মানে তুমি এসব গোপন কথা শুধু আমাকেই বলেছো?”
“হ্যাঁ।”
“হঠাৎ আমাকে কেন বললে?”
কাব্য এই প্রশ্ন শুনে আবারো আরশির চোখের দিকে তাকালো। আরশি চোখ নামিয়ে অন্যদিকে তাকালো। কাব্য বললো,
“যার কন্ঠ শুনে আমার ঘুম ভাঙে, যার সাথে দিনের অনেকটা সময় কাটে, যার কথা শুনতে শুনতে ঘুমাই, তাকে আমার জীবনের অন্ধকার দিকটা জানানোর প্রয়োজন মনে করেছি।”
“তোমার কথায় মনে হচ্ছে আমি তোমার গুরুত্বপূর্ণ কেউ?”
“সন্দেহ আছে?”
“স্পষ্ট উত্তর দাও কাব্য। হ্যাঁ বা না।”
“হ্যাঁ অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ কেউ। নাহলে এতোকিছু তোমাকে বলতে যাবো কেন?”
“তাহলে যদি কখনো আমি তোমাকে ভুল বুঝি, আমার ভুলটাও ভাঙাবে না?”
কাব্য খুব স্বাভাবিকভাবেই মাথা নেড়ে বললো,
“নাহ।”
আরশি কিছুক্ষণ চেয়ে থেকে বললো,
“তুমি তো সাংঘাতিক মানুষ!”
“সেটাও তোমার জানা প্রয়োজন আরশি।”

চলবে..

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here