কহিনুর,পর্ব:১৯

0
459

#কহিনুর,পর্ব:১৯
কলমে: লাবণ্য ইয়াসমিন

পসরা ফারুকী হাসপাতালে কি হয়েছে সেটা বলা হচ্ছে না। জুবায়ের মুখটা থমথমে করে বসে আছে। ছোট থেকে যাকে বোন ভেবে এসেছে সে মোটেই ওর নিজের মায়ের পেটের বোন না বরং কাজিন। তাতে কি!কাজিন বলে কি বোন না? । বাড়িতে কেউ কিছু না বললেও জুবায়ের কিছুটা আচ করতে পেরেছে। কি বলবে কোনো ভাষা এখন আর মুখে আসছে না। অধরা ওর মুখের দিকে তাঁকিয়ে বোঝার চেষ্টা করছে ছেলেটার মাথায় কি ঘুরছে। পসরা ফারুকী হাসপাতালে সেট ও কিছুক্ষণ আগে জেনেছে। জানার পর থেকে জুবায়েরের জন্য চিন্তা হচ্ছে। লোকটা ওর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল তা ঠিক কিন্তু লোকটার সঙ্গে যে বাড়ির প্রতিটা লোক বিশ্বাসঘাতকতা করছে। অধরা মনে মনে বহুবার আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়েছে যেনো জুবায়েরের উপরে কোনো অভিশাপ না আসে। ও মন থেকে ছেলেটাকে ক্ষমা করেছে। ভাগ্য ওকে এই বাড়িতে টেনে এনেছে সেখানে জুবায়েরকে দোষ দেওয়া বোকামি। অধরার ধ‍্যান ভাঙলো জুবায়েরের কথা শুনে। জুবায়ের ঘনঘন চোখের পাতা নাড়িয়ে বলল,
> অধরা তোমার কি ব্লাক কালারের শাড়ি আছে? আজ ব্লাক পরবা একটু? না থাকলে বলো আমি অর্ডার করে দিব। বেশি পারফেক্ট ভাবে সাজতে হবে না মোটামুটি হলেও চলবে। মেকাপ তো করোনা ওটার দরকার নেই।
জুবায়েরের এলোমেলো কথা শুনে অধরা অবাক হলো। বিবাহিত জীবনে প্রথমবার জুবায়ের ওকে সাজতে বলেছে কিন্তু কে? অধরা বিস্মিত হয়ে বলল,
> হঠাৎ শাড়ি?
জুবায়ের ওর কথা এড়িয়ে গিয়ে চোখ বন্ধ করে বলল,
> এসো অনুষ্ঠান করে আমরা দুজন শোক পালন করি। বাবা মাকে ভীষণ মনে পড়ছে। আপনজনদের বিশ্বাসঘাতকতা আমাকে যন্ত্রণা দিচ্ছে। ইচ্ছে করছে খুব করে কাঁদতে। আমি তো বিশেষ তাই আমার কাজকর্মগুলোও বিশেষ। এসো দুজনে ব্লাক ড্রেস পরে দিনটাকে শোক দিবসে পরিণত করি। কিছু ভালো লাগছে না। আচ্ছা মৃ*ত্যু কি এর চাইতেও ভয়াবহ? তখন কি বুকের মধ্যে এমনভাবে যন্ত্রণা করে? মেয়ে হলে খুব চিৎকার করে কাঁদতে পারতাম ছেলে বলে হয়তো পারছি না। আচ্ছা তুমি কি আমাকে অভিশাপ দিয়েছিলে? তোমার পা ধরে ক্ষমা চাইলে কি তুমি আমাকে ক্ষমা করবে? কি করলে যন্ত্রণা কমে যাবে বলতে পারবে?
জুবায়ের একদমে কথাগুলো বলে থামলো। গতকাল রাতে স্টোর রুমের মুখোশধারী লোকটা পসরা ফারুকী ছিল কথাটা মানতে জুবায়েরের কষ্ট হচ্ছে। বোন এই জঘণ্য কাজের সঙ্গে জড়িত কিন্তু কেনো? হঠাৎ একটা কথা ভেবে অধরা লাফ দিয়ে উঠলো। বলল,
> এই আপনার বোননা বোবা ছিল কথা বলতে জানেনা? ওটা আপনার বোন হতেই পারে না। নিশ্চয়ই অন‍্য কেউ আপনার বোনের উপরে দোষ চাপিয়ে দিতে চেয়েছে। যখন লোকটা আমাকে আঘাত করতে এসেছিল ছিল তখন লোকটা কথা বলেছিল। জানি কিছুটা মেয়েলি কন্ঠ ছিল তবে ওটা মেয়ে ছিল না। পুরুষ ছিল আমি দেখেছি। মুখোশ পরে ছিল কিন্তু তবুও তো বোঝা যায় বলুন? লোকটার বয়স কত এটা ধারণা করতে পারলে মোটামুটি অনুমান করা যেতো। আচ্ছা আপনার ভাই কোথায় বলতে পারেন?

জুবায়েরের কপালে ভাজ পড়লো। অধরা ঠিকই বলেছে। পয়সা কথা বলতে পারেনা। এতক্ষণ খামাখা মন খারাপ করলো। বোনকে হাসপাতালে দেখতে যাবে। অভিমান ছিল সব চলে গিয়ে এখন চিন্তা হচ্ছে। না জানি কি হয়েছে। বাগান থেকে ফেরার সময় খবরটা শুনে কক্ষে এসে দরজা বন্ধ করেছে। গতকাল রাতে যে মেয়েটাকে আনা হয়েছিল তার সঙ্গেও দেখা করতে পারেনি। জুবায়ের হঠাৎ দাঁড়িয়ে পড়লো। অধরাকে বলল,
> চলো নিচে যায়। এখানে বসে থেকে কাজের চাইতে অকাজ বেশি হচ্ছে।
জুবায়ের ওকে সুযোগ দিলো না হাত ধরে হাঁটা ধরলো। একবারে ডাইনিং রুমে গিয়ে থামলো। কাজের মেয়েদের বলে দিলো গতকাল উদ্ধার করা মেয়েটাকে আনতে। আরও একটা অঘটন ঘটেছে। সকালবেলায় আসা জুহির বোন বলে পরিচয় দেওয়া মেয়েটার খোঁজ মিলছে না। জুবায়ের লোক পাঠিয়েছে ওরা বারবার ফোন করছে। এইটুকু সময়ের মধ্যে মেয়েটা গায়েব কিভাবে হলো মাথায় আসছে না। ওর ভাবনার মধ্যেই কাজের মেয়েরা মেয়েটাকে নিয়ে হাজির হলো। মেয়েটার বয়স কতই বা হবে,খুব বেশি হলেও ষোল সতেরো বা আঠারো। এর চাইতে বেশি না। একদম বাচ্চাদের মতোই ঠোঁট ফুলিয়ে কাঁদছে।। অধরা মেয়েটার পাশে বসে মাথায় হাত বুলিয়ে আদুরে কন্ঠে বলল,
>নাম কি তোমার? বাসার ঠিকানা বলো তোমাকে পৌঁছে দিব আমরা। একটুও ভয় পাবে না ঠিক আছে? পরিচয় বলো।

অধরার কথা শুনে মেয়েটার কান্না থামালো কিন্তু উত্তর দিলো না। সরল চোখে তাঁকিয়ে আছে। জুবায়ের এবার ধমক দিয়ে উঠলো,
> এই মেয়ে কথা বল‍তে পারো না? দ্রুত ঠিকানা বলো আমি তোমাকে পাঠিয়ে দিব। সময় নষ্ট করো না।

জুবায়েরের ধমক শুনে মেয়েটা পূর্বের ন‍্যায় আবারও ঠোঁট উল্টে কান্না শুরু করলো। অধরা বিরক্ত হয়ে বলল,
> আপনি ধমক মারামারি ছাড়া কি কিছু বুঝেন না? দেখছেন কথা বলছি তার মধ্যে ঝামেলা শুরু করেছেন। আমি দেখছি তো বিষয়টা।

> কি দেখছো তুমি? এভাবে কথা বলবে বলে তোমার মনে হয়? জীবনে বলবে না। এসব বোবার মুখে কিভাবে কথা ফোঁটাতে হয় সে আমার ভালো করে জানা আছে। চুপচাপ দেখো।
জুবায়ের অধরাকে থামিয়ে দিয়ে নিজেই মেয়েটাকে জেরা শুরু করলো। কিন্তু কোনো লাভ হলো না। এই মেয়ের কিছু মনে নেই। শুধু ফ‍্যাল ফ‍্যাল করে তাঁকিয়ে থাকলো। মেয়েটাকে কাজের মেয়েদের সঙ্গে পাঠিয়ে দিয়ে জুবায়ের অধরাকে রেডি হয়ে আসতে বলল। পসরাকে দেখতে হাসপাতালে যেতে হবে। অধরা কক্ষে ফিরে গিয়ে মিনিট দশেক পরে ফিরে আসলো। জুবায়েরের কথা অনুযায়ী ও সত্যি সত্যি ব্লাক কালারের শাড়ি পড়ে বেরিয়েছে। জুবায়ের ডাইনিং রুমে বসে ছিল হঠাৎ সিঁড়িতে ওকে দেখে থমকে গেলো। মুগ্ধ হয়ে দেখলো। ওষ্ঠে হাসি এসে আবার সেটা মিলিয়ে গেলো। লজ্জিত হলো পূর্বে নিজের ব‍্যবহারের কথাগুলো ভেবে। এই লজ্জার হাত থেকে হয়তো ওর জীবনে নিস্তার নেই। অধরা জুবায়ের সামনে হাত নাড়িয়ে বলল,
> আমি চলে এসেছি এবার যাওয়া হোক?
> নিশ্চয়ই কিন্তু আজ শোক দিবস পালন কিন্তু হচ্ছে না। এতো সুন্দরী বউকে নিয়ে শোক পালন করতে আমার বিবেকে বাঁধছে। কি করা যায় বলোতো?

> কিছু করতে হচ্ছে না। আপাতত চলুন সময় নষ্ট করবেন না।

জুবায়েরের উত্তর দিলো না উঠে আসলো। দাদু দোতলায় দাঁড়িয়ে ছিল এতক্ষণ। ওদের দুজনের কাজকর্ম দেখছে। রুশনারা আজকাল বেশি একটা কক্ষের বাইরে আসেনা। সব সময় চুপচাপ থাকে। আগেও আসতো না তেমন তবে এখন বেশি। অধরা সেটা লক্ষ্য করেছে। হয়তো মেয়েটা জানে যার সঙ্গে ওর বিয়ে হয়েছে সেটা কোনো মানুষ না বরং পি*শা*চ শ*য়*তা*ন। গাড়িতে বসে অধরা চিন্তিত হয়ে জুবায়েরকে বলল,
> একটা বিষয় চিন্তা করুন, মানব নিষিদ্ধ মানবি বলতে কি বুঝানো হয়েছে? এই মেয়েদেরকে কি পি*শা*চ শ*য়*তা*নের নামে উৎসর্গ করা হয়েছে?

জুবায়েরের থমথমে মুখ নিয়ে বলল,

> হতে পারে। তবে নিশ্চিত ডাইরীটা দিয়ে তোমাকে বোকা বানানোর চেষ্টা করা হয়েছে। তুমি ভাবছো ডাইরী পড়ে তুমি রহস্য জেনে গেছো তাই আর কোনো ঝামেলা করবে না। শুনো এসব যা হচ্ছে সব দাদু করছে আমি নিশ্চিত। ড‍্যাড ও জড়িত। সবাইকে চলো পুলিশে ধরিয়ে দিয়ে আমরা অন‍্য যায়গায় চলে যায়।

জুবায়ের একদমে কথাগুলো বলে থমলো। ওর ধুমধাম কাজকর্ম করতে পছন্দ।কিন্তু সেটা অধরার পছন্দ হলো না। বিরক্তি নিয়ে বলল,

>আপনার মাথা। যতসব বদ বুদ্ধি। আচ্ছা পসরা আপুর না বিয়ে ঠিক হয়েছিল?
> হুম, তুমি জানো ভদ্রলোক হঠাৎ উধাও হয়ে গিয়েছিল বিয়ের দুদিন আগে?অনেকেই ভেবেছে উনি মা*রা গেছেন অথচ লা*শ পাওয়া যায়নি। কি জানি কোন রহস্যের অন্তরালে হারিয়ে গেলেন উনি।

জুবায়ের দীর্ঘনিশ্বাস ফেলে হাসপাতালের সামনে গাড়ি থামিয়ে নেমে অধরাকে নিয়ে ভেতরে ঢুকলো। কেবিন খুঁজে পেতে বিশেষ অসুবিধা হলো না। বেডে মেয়েটাকে অক্সিজেন দিয়ে রাখা হয়েছে। জুবায়ের বোনের পাশে গিয়ে বসলো। ও বসতেই পসরা চোখ খুঁলে ছলছল দৃষ্টিতে তাঁকিয়ে থাকলো। জুবায়ের বোনের ডান হাতটা দেখে হতবাক হলো। হাতে ব‍্যান্ডেজ করা আছে। ওর মনে প্রশ্ন জাগলো বোন কি সু*ই*সা*ইড করতে চেয়েছিল? কিন্তু কেনো? জুবায়ের ভ্রু কুচকে বলল,
> আপু তোমার হাতে কি হয়েছে? আমি যেটা সন্দেহ করছি সেটা কি সত্যিই?
পসরা চোখ বন্ধ করলো। ওর চোখের কোনা দিয়ে দু’ফোটা পানি গড়িয়ে পড়লো। অধরা চুপচাপ ভাইবোনের ভাবমূর্তি দেখছে। পসরার সঙ্গে ওর তেমন কোনো ভালো খারাপ সম্পর্ক নেই। গত এক বছরে শুধু শাশুড়ির সঙ্গে মেলামেশা করেছে। বাকিরা ওকে এড়িয়ে যেতো। জুবায়ের নিজেইতো রাত ছাড়া ওর কক্ষে কখনও আসতো না। শাশুড়ি যেটুকু বলেছে ও সেটুকুই জানে । এর মধ্যেই হঠাৎ দরজা খুঁলে এক ভদ্রলোক ভেতরে প্রবেশ করলো। অধরা বুঝতে পারলো না ছেলেটিকে দেখে জুবায়ের চমকে উঠলো। ভ্রু কুচকে বলল,
> করণ ব্রো আপনি এখানে? এতদিন কোথায় ছিলেন?
জুবায়েরের প্রশ্ন শুনে ছেলেটার মুখখানাতে ভয়ের ছাপ ফুটে উঠলো তবে ভড়কে গেলো না। যথাসম্ভব নিজেকে স্বাভাবিক করে বলল,
> আমি সুইজারল্যান্ড গিয়েছিলাম হুটকরে ড‍্যাড পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। কেমন আছো তুমি? পাশের মেয়েটি কে?
জুবায়ের বোনের হাত ছেড়ে উঠে দাড়ালো। অধরা বুঝতে পারলো জুবায়েরের মুখের ভাব পরিবর্তন হচ্ছে। এখুনি লোকটার মুখের উপরে হামলা করে বসতে পারে। তাই দ্রুতগতিতে জুবায়ের হাতটা ধরে বলল,
> মাথা ঠান্ডা করুন। কোনো ঝামেলা করবেন না। লোকজন চলে আসবে। পুলিশের ঝামেলা হবে।
জুবায়ের বিরক্তি নিয়ে বলল,
> এই ভদ্রলোক আমার বোনকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে পালিয়ে গিয়েছিল। বিয়ে যখন করতেই পারবে না তাহলে অভিনয় করার কি দরকার ছিল। আমার বোন কথা বলতে পারেনা লোকটাকে বলা হয়েছে তবুও এরকম করলো। এখন দর‍দ দেখিয়ে দেখতে এসেছে। ওকে মে*রে* পু*তে দিতে মন চাইছে। তুমি না থাকলে সত্যি দেখতে কি হাল করতাম।

জুবায়ের বেশ ক্ষোভ নিয়ে কথাগুলো বললো। কিন্তু লোকটার ওষ্ঠে হাসি। মজা পাচ্ছে বলে মনে হলো। অধরা বিস্মিত হয়ে বলল,
> আমি অধরা, জুবায়ের ফারুকীর স্ত্রী। উনার হয়ে আমি ক্ষমা চাইছি। কিন্ত আপনি কাজটা ছিল করেননি। আগেই বলে দিতেন।
ভদ্রলোক সামান্য হেসে বলল,
> পালিয়ে গিয়ে ভূল করেছি সেটা অধিক ভালোবাসা দিয়ে সেটা পূরণ করে ফেলবো। আমি ক্ষমা ছেয়েছি কিন্তু।
> আপু যা বলবে যাই হবে। উনি ক্ষমা করলে আমাদের কিছু বলার নেই। তবে যে একবার ছেড়ে যায় সে যে বারবার যেতে পারে। নিশ্চয়তা নেই তাই ভয় করছে বিশ্বাস করতে।
> আমাকে যে আসতেই হতো। আমি থাকবো নিশ্চয়ই থাকবো।
অধরা কিছু বলতে চাইলো কিন্তু জুবায়ের ওকে থামিয়ে দিলো। চুপ থাকতে বলে বোনের পাশে গিয়ে বসলো। পশরাকে বলল,
> ওকে তুমি ডেকেছো?
পসরা মাথা নাড়িয়ে না বলল। ছটফট করছে। লোকটাকে ভয় পাচ্ছে। বোনের এমন কান্ড দেখে জুবায়ের ডাক্তারকে ডেকে নিলো। ভদ্রলোকের আচরণ অধরার সুবিধা লাগলো না। মোটা একটা সোয়েটার জড়িয়ে রেখেছে গায়ে। জুবায়ের ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলে বোনের থেকে বিদায় নিয়ে বের হলো। হাসপাতালে কঠোরভাবে বলে আসলো বাইরের লোকজনকে কেবিনে আসার অনুমতি না দিতে। পসরা ভাইয়ের হাত ছাড়ছিল না। অধরা বুঝে গেলো এই করণ নামের ভদ্রলোকের জন্য পসরা ভয় পাচ্ছে।আসার সময় হুট করে একটা অঘটন ঘটে গেলো। দরজা দিয়ে বাইরে আসর সময় ভদ্রলোকের সঙ্গে অধরার জোরে একটা ধাক্কা লেগে গেলো। যদিও সেটা সামান্য ছিল কিন্তু লোকটা চিৎকার করে বুকে হাত দিয়ে হামু হয়ে বসে পড়লো। জুবায়ের দৌড়ে এসে অধরাকে ধরে ফেলল। ভদ্রলোকের দিকে তাঁকিয়ে ওরা বোকা বনে গেলো। সামান্য ধাক্কায় লোকটার অবস্থা নাজেহাল। নিশ্বাস নিচ্ছে টেনে টেনে। একজন সিস্টার দৌড়ে এসে ভদ্রলোককে নিয়ে গেলেন। অধরা পিছু ছুঁটে গেলো। কেবিনে কাচের জানালা দিয়ে উঁকি দিয়ে দেখলো নার্স ভদ্রলোকের বুকের কাছের কাপড়টা সরিয়ে দিচ্ছে। অধরার পেছনে পেছনে জুবায়ের এসে দাঁড়িয়েছে। লোকটার বুকে ব‍্যান্ডেজ করা। ব‍্যান্ডেজ র*ক্তে ভিজে উঠেছে। অধরার চোখ কোটর থেকে বেরিয়ে আসলো। গতকাল স্টোর রুমে এই লোকটা ছিল। কিন্তু পসরা কেনো সুইসাইড করতে গেলো মাথায় ঢুকছে না। অধরা হতাশ হয়ে জুবায়েরের হাত টেনে বেরিয়ে আসলো। এক রহস্য উদ্ধার করতে গিয়ে আরও রহস্য সামনে আসছে। কহিনুর সম্পর্কে মোটামুটি ধারণা এসেছে কিন্তু এসব ছোটখাট বিষয়গুলোও এড়িয়ে যাওয়া যাচ্ছে না।
☆☆☆☆☆☆
স্টোর রুমে পাওয়া মেয়েটার লা*শ পাওয়া গেছে বাড়ির পেছনের জঙ্গলে। ছিন্ন*ভিন্ন ব*ডি দড়িতে ঝু*লি,য়ে রাখা হয়েছিল। হাসপাতাল থেকে বাড়িতে ফিরে এমন একটা দৃশ্য দেখে অবাক হয়েছে অধরা। দিন দুপুরে খু*ন হয়েছে মেয়েটা। পুলিশ এসে লা*শ নিয়ে গেছে। সু*ই*সা*ইড করেছে বলে মনে হচ্ছে। লা*শ পচতে শুরু করেছে। এতো ঠান্ডা আবহাওয়ায় সামান্য কয়েক ঘন্টার ব‍্যবধানে লা*শ কিভাবে পচে যাবে বিষয়টা নিয়ে জুবায়ের গভীর চিন্তাভাবনা করছে। বাড়ির পেছনে সিসি ক‍্যামেরাতে দেখা গেছে মেয়েটা নিজে থেকে গুটি গুটি পায়ে জঙ্গলের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তবে এটা আজকের দৃশ্য না দুদিন আগের চিত্র। পুলিশের ধারণা মেয়েটা দুদিন আগেই মা*রা গেছে। অধরা বাড়ির কাজের লোকদের সঙ্গে কথা বলতে গেলো কিন্তু অদ্ভুতভাবে সবাই অস্বীকার করলো। কেউ কিছুই জানেনা। যখন ও হতাশ হয়ে ফিরছিল তখন দাদুর সঙ্গে দেখা হলো। লোকটার মুখে সব সময় কেমন দুষ্ট দুষ্ট হাসির রেখা দেখা যায়। অধরা শপথ নিলো এই হাসি ও নিজ দ্বায়ীত্বে মুছে দিবে। অধরাকে ভাবতে দেখে উনি বললেন,
> আইনের ঝামেলায় জড়ানো ঠিক হবে না তাই কাজের মেয়েগুলো অস্বীকার করছে তুমিও চুপচাপ থাকো। এসব আমি দেখে নিচ্ছি। কার না কার মেয়ে তাঁর জন্য আমি কোনো ঝামেলা চাইনা বাড়িতে।।

দাদুর কথা শুনে অধরার রাগ হলো। ভেবেছিল কড়া করে দুটো কথা শুনিয়ে দিবে কিন্তু পারলো না। গালিব ওর দিকে বাঁকা দৃষ্টিতে তাঁকিয়ে আছে শকুনের মতো। অধরা দ্রুত নিচ থেকে উপরে উঠে আসলো। সারাদিন এসব ঝামেলায় পার হয়ে গেলো।
****
গভীর রাত জুবায়ের বাড়িতে নেই।একটা দরকারি কাজে অফিসে আছে। অধরা অপেক্ষা করেছিল কিন্তু ক্লান্তিতে ঘুমিয়ে গেলো। প্রচণ্ড টেনশন দুর্বল শরীরের জন্য মোটামুটি ভালো ক্লান্ত ছিল। তাছাড়া পেটের আকৃতি বৃদ্ধি পাচ্ছে। গভীর ঘুমের মধ্যে ও অনুভব করলো মুখের উপরে কারো গরম নিশ্বাস পড়ছে। কেউ এক দৃষ্টিতে ওর মুখের দিকে তাঁকিয়ে আছে। অধরা ফট করে চোখ খুঁলে ভ্রু কুচকে ফেলল। জুবায়ের ওর দিকে ঘোরলাগা দৃষ্টিতে তাঁকিয়ে আছে। অধরা তাঁকাতেই ছেলেটা নিজের হাতটা ওর মুখের উপরে রাখতে গেলো কিন্তু পারলো না অধরা দ্রুত ওর কব্জি ধরে উঠে বসলো। বিরক্ত নিয়ে বলল,
> ভাইয়ের অনুপস্থিতিতে তাঁর স্ত্রীর কক্ষে চুপিচুপি এসে কি প্রমাণ করতে চাইছেন? আপনি চরিত্রহীন নাকি সুযোগ সন্ধানী?

(চলবে )

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here