Addicted_love Part:61

0
268

#Addicted_love
Part:61
Aarizona Ella
প্রায় সন্ধ্যা ঘনিয়ে এসেছে এলা চোখ খুলে এদিক ওদিক ইশফাক কে খুজছে হঠাৎ কারও উপস্থিতি অনুভব করতে পেলো সে,,,
ইশফাক মাটিতে বসা অবস্থায় খাটে এলার হাতের উপর মাথা রেখে ঘুমিয়ে আছে।
ইশফাক কে এমতাবস্থায় দেখে হাল্কা চমকে উঠলো এলা,,ইশফাক মাটিতে এভাবে ঘুমিয়ে গেছিলো কেন???মনে মনে ভাবছে সে।।
উঠে বসলো এলা,, মুচকি হেসে অন্য হাত দিয়ে ইশফাক এর মাথায় হাত বুলাতে লাগলো সে।।
ইশফাক,,,,,,,,,,ইশফাক,,খুবি শান্ত গলায় ইশফাক কে ডাকছে এলা।।
,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,চোখ মেলে তাকালো ইশফাক।।
কখন উঠেছো জান?????মাটি থেকে উঠে খাটে বসতে বসতে জিজ্ঞেস করলো ইশফাক।
এইতো যখন মেঝেতে আপনি ঘুমাচ্ছিলেন😊।।আচ্ছা তো মাটিতে ঘুমাচ্ছিলেন কেন আপনি???ভ্রু কুচকে জিজ্ঞেস করলো এলা।
ঘুমন্ত অবস্থায় তোমাকে খুব দেখতে ইচ্ছে করে আমার তাই তোমাতেই হারিয়ে যেতে যেতে ঘুমিয়ে গেছিলাম,,এলার কোলে মাথা রাখতে রাখতে বললো ইশফাক।।এলা মুচকি হেসে ইশফাক এর মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে আর ইশফাক উল্টো দিক থেকে আধীর নয়নে তাকিয়ে আছে এলার চেহারার দিকে।।
ইদানীং খুব বেশি চিন্তিত হয়ে যান আমাকে নিয়ে রহস্য কি হ্যাঁ?ভ্রু উপরে তুলে মুচকি হেসে জিজ্ঞেস করলো এলা।।
আমি বলেছিলাম না তোমাকে ভালবাসা টা আমার নেশায় পরিনত হয়েছে,,,আর এই নেশায় আমি সারাজীবন মাতাল থাকবো।,,,আমার পুরো পৃথিবী জুড়েই তুমি আছো,,আর তুমি আছো তো আমি আছি,,আমি আছি তো আমরা আছি,,,আর আমরা আছি তো সবকিছু,,নাহলে কিছুই নেই।।।এর বেশি কিছু বুঝানোর মতো ভাষা আমার কাছে নেই।।দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বললো ইশফাক।
এতো ভালবাসা কবে থেকে বাসতে শুরু করলেন ইশফাক?অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো এলা।
যখন থেকে এটা বুঝতে শুরু করেছি তুমি ছাড়া একটা প্রহরও থাকা আমার পক্ষে অসম্ভব।।। (ইশফাক)
আচ্ছা,,এতো ভালবাসা আমার কপালে সইবে তো?(এলা)
এটা কি বললে তুমি?রাগে ফুসতে ফুসতে বললো ইশফাক।
না আসলে এমনি বলছিলাম আর কি,,😣(এলা)
তোমার এইসব কেয়ারলেস টাইপ কথাবার্তা আমার একদম অপছন্দ।রাগে হন হন করতে করতে উঠে রুম থেকে বেরিয়ে দরজা লাগিয়ে চলে গেলো ইশফাক।
এলা দৌড়ে দরজা খুলতে চাইছে কিন্তু দরজা খুলছে না,,বাইরে থেকে লকড্,, এলা দরজা বারি দিয়েই চলেছে কিন্তু কেউই দরজা খুলছে না।।।
খুব কান্না পাচ্ছে এলার,,হুদাই রাগিয়ে দিয়েছি মনে মনে বলছে এলা।
প্রায় ৩ ঘন্টা এলা রুমের মধ্যে একা বসে কান্না করছিলো। কেউ বাইরে থেকে দরজা খুলার আওয়াজ পেয়ে দরজার দিকে তাকিয়ে সস্থির নিশ্বাস ফেললো সে।একজন সার্ভেন্ট কে রুমে ঢুকতে দেখে মুখ গম্ভীর করে ফেললো এলা,,ভেবলো হয়তো ইশফাক এসেছে।সার্ভেন্ট কে দেখে চাপা হাসলো সে।।
ma’am come with me,,,(সার্ভেন্ট)
To where?আতংকিত হয়ে জিজ্ঞেস করলো এলা।।
Ma’am sir,,,,,,,,,,,,,,,,,(সার্ভন্ট)
where is he???is he alright??? ঘাবড়ে গেছে এলা,,চেচিয়ে জিজ্ঞেস করলো।।
come with mee….হাত ধরে এলাকে নিয়ে যেতে লাগলো।।। এলাকে নিয়ে ছাদের দিকে এগুলো মহিলা।।।
এলা রীতিমতো চমকে উঠছে।
where is Ishfaque???? চেচিয়ে উঠলো এলা,,
ছাদে গিয়ে থামলো মহিলা।গোটা ছাদ অন্ধকার,এলা ভয় পেয়ে গেলো। এলা যেতেই গোটা ছাদে আলো জ্বলে উঠলো,রঙ বে-রঙের বাজি ফুটতে শুরু করেছে,গোটা ছাদ ক্রিস্টাল আর মুন লাইট দিয়ে সাজানো,, আকাশে অনেকগুলো ফানুশ উড়ছে,,চারিদিকে টেডীস্ আর অসংখ্য বারবি ডলস্ রাখা।।ছাদের দুপাশে সব সার্ভেন্টস রা লাইনে লাইনে দাঁড়িয়ে আছে।এলার চোখ বাহিরে বেরিয়ে যাওয়ার উপক্রম কি হচ্ছে কিছুই মাথায় আসছে না তার।
ইশফাক পিছন থেকে এলাকে জড়িয়ে ধরলো,, এলা চমকে উঠেলো।।।।
thanks sweetheart আমাকে এতো প্রাইজলেস একটা মুহুর্ত উপহার দেয়ার জন্য,,, মুচকি হেসে বললো ইশফাক।
এলা নিজেকে ইশফাকের থেকে ছাড়িয়ে জিজ্ঞসু দৃষ্টিতে তাকালো তার দিকে।
এলার চোখ মুখ ফুলে আছে সেটা খেয়াল করেছে ইশফাক।
সরি জান তখন অনেক কাঁদিয়েছি তোমাকে,,, কিন্তু বিলিভ মি তোমার তেমন কথাবার্তায় আমার রাগ উঠে গেছিলো নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে ধমক দিয়ে ফেলেছি,,আই এম সো সরি জান।।কিন্তু প্রমিস নিজের জানা মতে কখনো তোমাকে কান্না করতে দিব না,যতদিন বেঁচে থাকবো ততদিন তোমার চোখে একফোটা পানি ও আসতে দিবো না।আবেগ জড়িত কন্ঠে বললো ইশফাক।
আপনি ধমক দিয়েছেন তাই কাঁদি নি,,আমার জন্য কষ্ট পেয়েছেন তাই কেঁদেছি।।আর এগুলো কেন ইশফাক?কিসের কথা বলছিলেন আপনি?।।অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো এলা।
তুমি এসে আমার জীবন সম্পুর্নভাবে পাল্টে দিয়েছো রাঙ্গিয়ে দিয়েছো আমাকে নতুন সব রঙে,,তোমার সাথে আমার প্রতি টি মুহুর্ত যেনো মধুময় হয়ে থাকে যেটা বলে বুঝানোর মতো না।জানি না আমি আর কি করে তোমার প্রতি আমার ভালবাসার বহিঃপ্রকাশ করবো,তবে যতটুকু সম্ভব হয়েছে ততটার সবটি দিয়েই প্রকাশ করেছি।তুমি আরেকটি নতুন রঙ এনে দিয়েছো আমার জীবনে এই অনুভূতি টা যে কতটা মলিন তা আমি বলে বোঝাতে পারবো না।।বিশ্বের সব সম্পদও যদি আমার হয় তবে আমার এই সম্পদ তুলনায় সবকিছু পরিত্যয্য।এলার পেটে এক হাত দিয়ে হাল্কা ছুয়ে দিয়ে বললো ইশফাক।
এলার চোখে পানি টলমল করছে,সে নির্বাক হয়ে তাকিয়ে আছে ইশফাক এর দিকে।
তোমার মাঝে আমার অংশ ঠায় নিয়েছে জান,, যেনো আমি বিশ্ব জয় করেছি এমনটা অনুভুতি আমার আগে কখনো হয় নি।তুমি জানো না আজ আমাকে তুমি কি দিয়েছো,,আল্লাহ যেনো গোটা জাহানের সুখ সব আমার ঝুলিতে ঢেলে দিয়েছেন।প্রেগন্যান্সির রিপোর্ট এলার দিকে এগিয়ে দিয়ে আবেগপ্রবণ হয়ে বলছে ইশফাক।
তার মানে আমি??????এলা খুশিতে আত্মহারা হয়ে যাচ্ছে আনন্দের অশ্রু গড়িয়ে পড়ছে তাদের চোখ থেকে।
তুমি কি চাও জান?যা চাইবে সব তোমার কদমে এনে দিবো আমি।(ইশফাক)
আমার শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত যেনো আপনি আমার সাথে থাকেন আর এভাবে যেন আমাকে ভালবেসে যান এর বেশি কিছু চাই না আমি।।
অনেক বেশি ভালবাসি তোমাকে শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত আমি তোমার মাঝেই বিরাজ করবো জান।আমি তোমার থেকে শুরু তোমাকে দিয়েই শেষ। (ইশফাক)
এলা ইশফাক কে শক্ত করে জরিয়ে ধরেছে,, ইশফাকও এলাকে নিজের সবটুকু শক্তি দিয়ে আকড়ে ধরেছে যার কোন সমাপ্তি নেই😊😊😊-
সার্ভেন্টস্ রা সবাই খুশিতে একে অপরের সাথে কোলাকুলি করছে,আন্টি মুচকি হেসে চোখের জল মুচ্ছেন,হয়তো তাদের ভালবাসা দেখে আন্টিও সুখের কান্না বইয়ে দিয়েছেন।।
চলবে।।😒
প্রতিদিন গল্পের শেষে লেকচার দিতে দিতে আমি ক্লান্ত হয়ে গেছি,,হাজার বললেও এগুলা জীবনে শোধরাবে না।।।
ভুল ত্রুটি ক্ষমার চোখে দেখবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here