যেখানে_দিগন্ত_হারায় #পার্ট_৪০ জাওয়াদ জামী জামী

2
351

#যেখানে_দিগন্ত_হারায়
#পার্ট_৪০
জাওয়াদ জামী জামী

” তোমার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে ঠিকই, কিন্তু পুরোটা হয়নি। তাই তোমার এতবড় সাফল্যেও আমি খুশি হতে পারছিনা, ভাইয়া। ” সুধা গোমড়ামুখে বলল। ওর পাশে শশীও মুখ গোমড়া করে বসে আছে।

সুধার এহেন কথায় কপাল কুঁচকে তাকায় আরমান। ওষ্ঠদ্বয় সামান্য প্রসারিত হয়। সুধার কথা ওর বোধগম্য হলোনা।

” কি বলছিস এসব! পাগল হয়েছিস নাকি! ”

” তুমি তো পররাষ্ট্র ক্যাডার হতে চেয়েছিলে। তবে শিক্ষা ক্যাডারে গেলে কেন? আমার ভাইয়া বিসিএসে টিকেছে। এটা আমার জন্য আমাদের জন্য গর্বের। কিন্তু সে তার স্বপ্নের পেশা ছেড়ে শিক্ষকতা কেন বেছে নিল, এই হিসাব মেলাতে পারছিনা। সিদ্ধান্ত পরিবর্তন কেন করেছে, ভাইয়া? আর আমাদের সেটা জানতেও দাওনি। কেন? ”

” আম্মার মৃত্যু আমাকে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে। আজ আমি যদি পররাষ্ট্র ক্যাডার হতাম, তবে তোদের রেখেই অন্য কোথাও চলে যেতে হত। কার কাছে রেখে যেতাম তোদের? আম্মা থাকলে সেই চিন্তা আমার করতে হতোনা। আর কিছু কিছু স্বপ্ন পুরোপুরি পূরণ না হলেও ক্ষতি নেই। আমার কাছে আমার স্বপ্নের থেকেও তোদের প্রায়োরিটি অধিক। ”

” চাচা, মামা, ফুফুরা ছিল ভাইয়া আমাদের জন্য। তারা আমাদের খোঁজ খবর রাখত। আর আমরাও যথেষ্ট বড় হয়েছি। আমরা নিজেদের রক্ষা করতে শিখে গেছি। তুমি আমাদের জন্য নিজের স্বপ্ন বিসর্জন দিলে এটা আমাকে পোড়াচ্ছে, আজীবন পোড়াবে। ” সুধার চোখে পানি।

” এই যে তোদের ভাইয়া প্রথম শ্রেণির একজন কর্মকর্তা হয়েছে এতে তোদের একটুও আনন্দ হচ্ছেনা! দিনশেষে কিছু একটা অর্জন করেছি, এটা ভেবেই খুশি থাকনা। সামনে তোরও পরীক্ষা আমাকে নিয়ে এত না ভেবে মনযোগ দিয়ে পড়াশোনা কর। তোকেও মেডিকেলে চান্স পেতে হবে। আব্বা-আম্মার স্বপ্ন পূরণ করতে হবে। আর মনে রাখিস, মামা, চাচা, ফুফু, খালারা যতই ভালোবাসুক না কেন বাবা-মা’ র ভালোবাসা তারা দিতে পারবেনা। তারা তোদের খোঁজ খবর রাখবে, বিপদে এগিয়ে আসবে কিন্তু সব সময় তোদের আগলে রাখতে পারবেনা। তাদেরও সংসার, সন্তান, ক্যারিয়ার আছে। আম্মা তোদের যেভাবে রাখত, সেভাবে হয়তো আমিও তোদের রাখতে পারবনা। কিন্তু চেষ্টা ঠিকই করব। এবার বুঝেছিস তোদের নিয়ে আমার চিন্তা কোথায়? ”

” তোমার পোস্টিং কোথায় দেবে, ভাইয়া? শশীও কি তোমার সাথে যাবে? তুমি করছ আমাদের নিয়ে চিন্তা। আর আমাদের হচ্ছে তোমাকে নিয়ে চিন্তা। শশী একটা নির্ভেজাল অপদার্থ একটা বোন। ভাইয়াকে রেঁধে খাওয়ানোর কোন ক্ষমতাই ওর নেই। শুধু টাকা খরচের বেলায় পারদর্শী। ” সুধার মুখে চিন্তার ছাপ। এদিকে নিজের নামে সুধার এমন কমপ্লিমেন্ট শুনে শশী নড়েচড়ে বসল। মনে মনে তৈরী হচ্ছে কঠিন একটা জবাব দিতে। কিন্তু সেই সুযোগ ওর হয়না। তার আগেই আরমান কথা বলে।

” আপাতত শশী তোর কাছেই থাকুক। আগে পোস্টিং হোক, সেখানে গিয়ে সব ঠিকঠাক করি। তারপর ওকে নিয়ে যাব। তার আগে ঢাকা গিয়ে তোদের নতুন ফ্ল্যাটে তুলে দিয়ে আসব। এবার থেকে মামার বাসার পাশেই থাকবি তোরা। আমার চিন্তা কমবে। ”

” বাসা বদলানো কি খুবই জরুরী? আগের বাসাও নিরাপদ ছিল। তাছাড়া সবাই পরিচিতও হয়ে গিয়েছিল। ”

” প্রথমত, বাসাটা ছোট। দ্বিতীয়ত, নতুন বাসার ঠিকানা মামা ছাড়া কেউ জানবেনা। আমাদের গ্রামের কোন আত্মীয় জানবেনা তোরা কোথায় থাকিস। এবং বর্তমান বিল্ডিংয়েরও কেউ জানবেনা। ”

আরমানের কথা শুনে সুধা, শশী বুঝতে পারছে ওদের ভাইয়া কেন সবার থেকে ওদের ঠিকানা গোপন করতে চাইছে। কিন্তু সুধা এটা ঘটতে দিতে চায়না। তাই ও সকল ভয় একপাশে রেখে বলল,

” ভাবিকে ফিরিয়ে নিয়ে এস, ভাইয়া। দেখবে তুমি ভাবির সামনে গিয়ে দাঁড়ালেই সে সব রাগ ছুঁড়ে ফেলে তোমার সাথে চলে আসবে। তখন আর আমাদের নিয়ে তোমার এত লুকোচুরি করার প্রয়োজন পরবেনা। ”

” ঐ বিষয়ে কোন কথা আমি শুনতে চাইনা। একবার ছুঁড়ে ফেললে সেই জিনিস আমি কখনোই কুড়িয়ে নেইনা। আর কালো অতীত নিয়ে কথা বলতে আমি পছন্দ করিনা, এটা তুই ভালো করেই জানিস। এবার গিয়ে গোছগাছ করে নে। কাল রাতের গাড়িতে আমরা ঢাকা যাব। ” আরমানের কঠোর গলা শুনে সুধার ভয় হচ্ছে। তবুও ও হাল ছাড়লনা।

” আম্মাও চেয়েছিল ভাবি ফিরে আসুক। আম্মার চাওয়া তুমি পূরণ করবেনা, ভাইয়া! ”

এবার আরমান কড়া চোখে তাকায় সুধার দিকে। রাগে ওর কপালের একপাশের শিরা দপদপ করছে।

” আম্মার মৃত্যুর জন্য দায়ী ঐ মেয়ে। জানি একদিন সবাইকেই যেতে হবে। মৃত্যু সকল জীবের জন্যই অবধারিত। তারপরও আমি বলব, আম্মা আজ আমাদের সাথে নেই শুধু ঐ মেয়েটার জন্যই। ওর জন্য আম্মা দিনের পর দিন কষ্ট পেয়েছে। ওর দেয়া আঘাত সইতে পারেনি আমার আম্মা। তাই ঐ মেয়েকে ফিরিয়ে আনার প্রশ্নই ওঠেনা। আমি তাকে আম্মার খু নি ছাড়া অন্য কিছুই মনে করিনা। আর কোন খু নি র জন্য কোন জায়গা আমার হৃদয়ে নেই। আজকে তোকে ওয়ার্ন করছি, এরপর কখনোই আমার সামনে ওর কথা ভুলেও বলবিনা। ” আরমান রেগে ফ্ল্যাটের বাহিরে চলে যায়।

ড্রয়িংরুমে হতাশ হয়ে বসে থাকে সুধা আর শশী। ওরা ভাবতেও পারছেনা আরমান মাশিয়াকে এতটা ঘৃণা করে।

নতুন ফ্ল্যাটে এসে মাশিয়া যেন আরও বেশি চুপচাপ হয়ে গেছে। কল্পনা মোর্তাজা দিনে নিজের বাসায় কাটালেও সন্ধ্যায় তিনি মাশিয়ার কাছে চলে আসেন। রাতটুকু মেয়ের সাথে কাটিয়ে সকালে ফিরে যান নিজের বাসায়। মিরাজ মোর্তাজাও প্রতিদিন মাশিয়াকে এসে দেখে যান। কল্পনা মোর্তাজা মাশিয়ার দেখভালের জন্য তিনজনকে রেখেছেন ওর বাসায়। মাশিয়া চলে যাওয়ার পর দোলন স্বাভাবিক আচরণ করছে ওর শ্বশুর-শ্বাশুড়ির সাথে। যেন মাশিয়া যাওয়ায় ও স্বস্তি পেয়েছে।

মাশিয়ার ফোর্থ সেমিস্টার শেষ হয়েছে। ফিফথ সেমিস্টারে ক্লাস করছে। তবে ওর শরীরটা দিন দিন খারাপের দিকেই যাচ্ছে। পাঁচমাসের প্রেগনেন্সিতেই ওর শরীর ফুলে গেছে অনেকটাই। আগের সেই হ্যাংলাপাতলা মেয়েটা পরিপূর্ণ নারীতে রুপান্তরিত হয়েছে। হাঁটতেও ওর বেশ কষ্ট হয়। চিকিৎসা চলছে পুরোদমে। তবে ডক্টর বলেছে, ডেলিভারির আগ পর্যন্ত ওকে ভুগতে হবে।

ক্লাসে বসে টুকটাক কথা বলছে মাশিয়া আর তৃষা। মিতুল জয়ের সাথে ক্যান্টিনে গেছে মাশিয়ার জন্য খাবার আনতে।

” তৃষা, আজ আমার সাথে এক জায়গায় যাবি? প্লিজ না করবিনা। ” মাশিয়া তৃষাকে অনুরোধ করল।

” কোথায় যাবি! তা-ও এই শরীরে? ভার্সিটিতে আসতেই যে কষ্ট পাস। আবার অন্য কোথাও যাওয়ার চিন্তা করিস কিভাবে! ” তৃষা একটু রেগেই গেছে।

” প্লিজ, দোস্ত। না করিসনা। তোরা সবাই আমার সাথে যাবিতো। আমি শুধু একজনের খোঁজ নিয়েই চলে আসব। প্লিজ, প্লিজ, প্লিজ। ”

” আগে বল কোথায় যাবি। তারপর সিদ্ধান্ত নেব তোকে নিয়ে যাব কি না। ”

” সুধার ফ্ল্যাটে যাব। না ভেতরে যাবোনা। বাহিরে থেকেই খোঁজ নিয়ে চলে আসব। ওর তো কয়দিন পর মেডিকেলে এডমিশন। মেয়েটা অনেকদিন যাবৎ ঢাকায় আছে। ওর খোঁজ নেয়া হয়নি একবারও। ” বেশ কিছুক্ষণ ইতস্তত করে বলল মাশিয়া।

মাশিয়ার কথা শুনে তৃষা আর আপত্তি করলনা। জয়, মিতুল খাবার নিয়ে আসলে মাশিয়াকে খাইয়ে মেডিসিন খাইয়ে দেয় তৃষা। এরপর ওরা সুধার ফ্ল্যাটের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।

সুধুার বিল্ডিংয়ের সিকিউরিটির কাছে জানতে পারল ওরা আরও পনের দিন আগেই বাসা ছেড়ে দিয়েছে। কোথায় গেছে বলে যায়নি। ভেজা চোখে মাশিয়া উঠে পরল গাড়িতে। সম্পর্কের শেষ সুতোটাও বোধহয় ছিঁড়ে গেছে।

নতুন ফ্ল্যাটে সুধাদের উঠিয়ে দিয়ে আরমান ওর কর্মস্থলে ফিরে যায়। ওর পোস্টিং হয়েছে কুড়িগ্রামের একটা কলেজে। সেখানে গিয়ে সব ঠিকঠাক করতে আরও সময় লাগবে। তাই এখন শশীকে সেখানে নিবেনা।

শশী, সুধা নতুন ফ্ল্যাটে বেশ আছে। তিন বিল্ডিং পরেই মামার বিল্ডিং। প্রতিদিন একবার করে মামা-মামী এসে খোঁজ নিয়ে যায়। মামাতো ভাইবোনেরাও আসে। ওরাও যায় তাদের বাসায়। সুধার এডমিশন আর পনের দিন পরই। ও কোমড় বেঁধে পড়াশোনা করছে।

মাশিয়া ক্লাসের দিকে যাচ্ছে। তৃষা আর মিতুল ওকে দুই পাশ থেকে ধরে রেখেছে। জয়ের হাতে ওদের সবার ব্যাগ।

” হেই বেইবি, তোমাকে কি সুইট লাগছে! তোমাকে দেখার জন্য প্রতিদিনই ভার্সিটির বাহিরে এসে দাঁড়াই। দূর থেকে দেখে আবারও ফিরে যাই। কিন্তু আজ তোমাকে কাছে থেকে দেখার লোভ সামলাতে পারলামনা। ” রিশাদকে দেখেই সবাই ফুঁসে উঠল। মাশিয়া তৃষা, মিতুলকে ইশারা করল এগিয়ে যেতে। কিন্তু রিশাদ নাছোড়বান্দার মত ওদের পিছুপিছু যেতেই থাকল। ওকে এভাবে আসতে দেখে বাধ্য হয়ে দাঁড়াতে হয় মাশিয়াকে।

” তোমাকে এর আগেও নিষেধ করেছি আমার সামনে না আসতে। কিন্তু তুমি শুনছনা। এবার দেখছি পাপাকে বলতেই হবে। আর পাপার কানে কথাটা একবার গেলে তোমার কি হবে ভেবে দেখেছ? ” মাশিয়া হাঁপাচ্ছে।

” কি হবে! আমি বলব, আমার সন্তানের মা’কে দেখতে আসি, তার সাথে কথা বলি। ” রিশাদের ঠোঁটে শয়তানির হাসি।

” হোয়াট! হাউ ডোয়ার ইউ, রাবিশ? এই ধরনের কথা বলতে তোমার লজ্জা হচ্ছেনা? ” মাশিয়া রাগে কাঁপছে।

” রিশাদ, ঝামেলা করোনা। এটা ভার্সিটি। তোমার মত বখাটে ছেলের সম্মান না থাকতে পারে, মাশিয়ার আছে। আর তুমি এই মুহুর্তে যে কথাটা বলেছ, সেটা উইথড্র কর। ওয়ার্নিং দিচ্ছি তোমাকে। ” জয় এগিয়ে এসে রিশাদের সামনে দাঁড়িয়ে বলল।

রিশাদ জয়ের কথা পাত্তা না দিয়ে মাথাটা একটু কাৎ করে মাশিয়ার দিকে তাকিয়ে বলল,

” সবাইকে যদি আমি বলি, আমার সাথে তোমার গোপন সম্পর্ক ছিল, সেটা জেনে যাওয়ায় তোমার সো কল্ড হাসবেন্ড তোমাকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে। আর এই সন্তান আমার। তবে কেমন হবে, বেইবি? ”

” কিছুই হবেনা। বিজ্ঞান এখন অনেক উন্নত এটাতো জানো? আমার বাচ্চার ডিএনএ তোমার ডিএনএ’র সাথে ম্যাচ করালেই তোমার জারিজুরি খতম। আর তখন তোমার কি হবে বুঝতে পারছ? পাপা তোমার এমন অবস্থা করবে, তোমার হাড্ডি তখন কুকুরও খাবেনা। আর যান সন্তান সে এই কথা জানতে পারলে, নির্ঘাত তোমাকে খু ন করবে। এমনিতেও সে তোমাকে অপছন্দই করত। অবশ্য ডিএনএ টেস্ট করানোর ঝামেলায় যেতেই হবেনা। চৌদ্দশিকের মধ্যে ঢুকিয়ে কয়েকটা ডিম থেরাপি দিলেই তুমি সোজা হয়ে যাবে। আমাকে ভয় দেখিয়ে কোন লাভ নেই। দূরে যাও। তোমাকে দেখেই আমার বমি পাচ্ছে। ”

” মাশিয়া কি বলল শুনতে পাচ্ছনা, রাস্কেল? নাকি তুমি চাইছ ডিম থেরাপি এখানেই হয়ে যাক? জয় ওকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে ভার্সিটি থেকে বের করে দে। ” তৃষার কথা শুনে জয় রিশাদের কলার ধরতে গেলেই রিশাদ সেখান থেকে সটকে পড়ে। তবে যাওয়ার আগে জয়কে শাসিয়ে যেতে ভুলেনা।

সুধার এডমিশন শেষ। ও রেজাল্ট নিয়ে চিন্তায় আছে। আরমান সেই যে গেছে আর ঢাকা আসেনি। কবে আসবে সেটাও বলতে পারেনা। আম্মার কথা মনে পরলে ওরা দুই বোন অঝোরে কাঁদে। সেদিন ওদের না খেয়েই কাটে। পরদিন আবারও স্বাভাবিক হয় দু’জন। ওদের এই নির্বাসিত জীবনে ওরা দুজনই দু’জনের সঙ্গী, সুখ-দুঃখের ভাগীদার ওরাই।

হুহু করে শীতল মলয় আছড়ে পড়ছে মাশিয়ার চোখেমুখে। ও বেলকনির গ্রীল ধরে দাঁড়িয়ে আছে। তাকিয়ে আছে সুদূরে। এত রাতেও শহরটা জেগে আছে। আলোয় আলোকিত প্রতিটি ভবন। মাশিয়ার মাঝেমধ্যে মনে হয় এই শহরে কখনো রাত নামেনা। সারাদিন ধরিত্রীকে নিজের আগুনে পুড়িয়ে প্রভাকর গগনের কোলে মুখ লুকালেও অন্ধকার নামেনা এই শহরে। কৃত্রিম আলোকচ্ছটায় ঝলমল করে এই নগরী। আচ্ছা, এই শহরের কি মন খারাপ হয় কভুও? কখনোসখনো মন খারাপ হলে এই শহরও কি রাতেই বুকেই মুখ লুকায়? কিন্তু এই শহরে রাত কই! সবখানেই যে আলো ঝলমলে! তবে কি এই শহরও মাশিয়ার মতই একাকী, নিঃসঙ্গ? মাশিয়ার মত এই শহরেরও কি দুঃখ লুকানোর মত কোন বুক নেই! ওর নিজের এই দূর্দশার জন্য ও নিজেই দায়ী। চরম ভুল সিদ্ধান্তের মূল্য আজ ওকে দিতে হচ্ছে। ডুকরে কেঁদে উঠল মাশিয়া। মাঝেমধ্যে মন চায় সবকিছু ভুলে তার কাছে ছুটে যেতে। কিন্তু পরক্ষণেই নিজের নিজের বিবেক আটকায় ওকে। ভেতর থেকে বারবার কেউ বলে উঠে ,’ আজ তার সন্তানের দোহাই দিয়ে তার কাছে ঠাঁই পেতে চাস? তুই ভালো করেই জানিস তোর ক্ষমা পাওয়ার হাতিয়ার এই সন্তান। ‘
আর তখনই সব ইচ্ছেকে জলাঞ্জলী দিয়ে ফিরে যাওয়ার ইচ্ছেকে মাটি চাপা দেয়। এখন ও শুধু অনুশোচনার আ’গু’নে জ্ব’লে’পু’ড়ে খাক হয়ে যায়। তাকে ছেড়ে না আসলে আজ রিশাদ এমন নিকৃষ্ট কথা বলতে পারতনা। এত অপমানিত হতে হতোনা ওকে। ছোট ছোট অপমান থেকে বাঁচতে ও সংসার ছেড়েছিল। কিন্তু সেই ওকেই প্রতিনিয়ত অপমানের সাগরে নিমজ্জিত থাকতে হচ্ছে। এখন মাশিয়া বুঝতে পারে, আরমান কখনোই ওকে অপমান করেছি। সেগুলো ভালোবাসা মিশ্রিত শাসন।

হাতে থাকা ফোনের গ্যালারিতে গিয়ে একটা ছবির দিকে অপলক নয়নে তাকিয়ে থাকল মেয়েটা। একদিন কল্পনা মোর্তাজার ফোন ঘাটতে গিয়ে চোখে পরেছিল আরমানের ছবিটা। ওদের বিয়ে ছবি। ড্রয়িংরুমে মাশিয়া বউ সেজে বসে আছে । ওর পাশে বসে আছে আরমান। তার পরনে ফর্মাল ড্রেস। এই প্রথম মাশিয়ার নজরে আসল আরমান বিয়ের দিন ফর্মাল ড্রেস পরেছিল। বিষয়টা খেয়াল করেই মাশিয়া মৃদু হাসল। মানুষটা সামনের দিকে তাকিয়ে আছে। ছোট ছোট দাড়িতে তাকে ভিষণই সুপুরুষ লাগছে। আর মাশিয়া মাথা নিচু করে নিজের আঙুল দেখছে।
আরমানের ছবিতে পরপর কয়েকটা চুমু দিয়ে বুকে জড়িয়ে ধরল। এই ছবিটাই এখন ওর তৃষ্ণা মেটায়। এই ছবিই ওকে বেঁচে থাকার প্রেরণা জোগায়। আরও বেশি করে ভালোবাসতে বাধ্য করে তাকে।

চলবে…

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here