Surprise Lover -Part 23+24

0
203

😍Surprise Lover😍

#Arohi_Afrin

Part:23 +24

এবার আয়ান আরোর দিকে ফিরে বললো,,,

আয়ান:একলা যেতে পারবা তাই না???

আরো:একলা কখন বললাম,, আমি তো বলেছি সাজির সাথে যাবো,,,

আয়ান:সাজি তো চলে গেছে,,,,এবার তুমি রাস্তার কুকিরগুলার সাথে যেও কেমন?আমি যাচ্ছি,,,

কুকুরের কথা শুনে আরোর কলিজার পানি শুকায় গেল,,,,,,আরো বললো,,,,

আরো:আরে Attitude বিল্লু থুক্কু স্যার কি যে বলেননা,, আমি তো আপনার সাথেই যাবো,,তাই না??After All you are my,,

আয়ান:After All I am Your,,,,,,,,

আয়ান আরোর কাছে আসতো লাগলো,,,

আরো:স,,স্যার,,Yes you are my sir,,আরো দাত কেলিয়ে হাসলো,

আয়ান:কি??????শুধু স্যার???আর কিছু না?

আরো:আর কি হতে পারে????????ভেবে বলার ভান করে বললো,,,

আয়ান:ওও তাই তো আমি তো শুধু স্যার,

আরো:শুধু স্যার না আপনি আমার Attitude বিল্লু,,আরো কথাটা বলে আয়ানের গাল টেনে দিল,,,,

আয়ান:হয়েছে মিস কিউটিপাই চলো তোমাকে পৌঁছে দি,,,,

আরো:একটা কথা বলি??

আয়ান:কি কথা??

আরো:বলছিলাম কি গাড়িতে না করে হেটে গেলে কেমন হয়??আমার অনেক ইচ্ছা এভাবে রাতে প্রিয় মানুষটার সাথে হাত ধরে হাটবো,,,প্লিস,,,,আরো কিউট Face করে বললো,,,

আয়ান:আমার মিস কিউটিপাই,, বিল্লিরাণির ইচ্ছা পূরণ করবো না,,এমনটা কি হয়???নিশ্চয় হেটে যাবো,,

আরো:Thank you Thank you, Thank you Sooooo much,, আয়ানকে জড়িয়ে ধরে বললো,,,

আয়ান:পাগলি চলো,,,আয়ান ড্রাইভার কে কল করে গাড়ি ওদের পিছু পিছু নিয়ে আসতে বললো,,,,,,

আয়ান আর আরো হাত ধরে পাশাপাশি হাঠছে,,দুজনের মধ্যে অদ্ভুদ ভালো লাগা কাজ করছে,,,,আরো বকবক করছে,,আয়ান অবাক দৃষ্টিতে আরোর দিকে তাকিয়ে আছে,,আরো আয়ানের চোখের সামনে থুড়ি বাজিয়ে বললো,,,

আরো:কি হলো বলেন,,,

আয়ান:তোমাকে আজ অনেক সুন্দর লাগছে,,ঠিক যেন একটা বার্বি ডল,,,

আরো লজ্জায় লাল নীল হয়ে যাচ্ছে,,,,,তা দেখে আয়ান বললো,,

আয়ান:ওহ মিস কিউটিপাই এভাবে লজ্জায় লাল হলে তোমাকে একটা স্ট্রভেরির মতো লাগে,,,,যদি পরে উল্টা পাল্টা কিছু হয়ে যায় আমাকে কিছু বলতে পারবানা,,,,,,,,

আয়ান টেডি স্মাইল দিয়ে এদিক সেদিক তাকাচ্ছে,,,আরো তো আয়ানের কথায় আরও বেশি লজ্জা পাচ্ছে,,,,,,
,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,,

এদিকে সাজি গাড়িতে বসে দোয়া দরুদ পড়ছে,,,, আবির সাজির অবস্তা দেখে হাসছে,,,কিছুক্ষন পর আবির বললো,,,,,

আবির:মিস সাজি,,,

সাজি:জ,জ,জ্বী বলেন,,

আবির:তুমি যেন ড্রয়িংরুমে কি বললে?

সাজি:কই কি বললাম??(হায় আল্লাহ যেটার জন্য ভয় পাচ্ছিলাম সেটায় হয়েছে,,আল্লাহ গো বাচাঁও),,,

আবির:না না বলেছো,,,,আমি যেন কি?ফিডার খাওয়া বাবু তাই না????

সাজি:আ,,পনি ক,কেন ফিডার খেতে যাবেন,,ফিডার তো শিশুরা খায় ,,,,আপনি তো আর শিশু না তাইনা??,,,,সাজি জোর করে হাসার চেষ্টা করে বললো,,,

আবির গাড়ি স্টপ করে বললো,,,,,,,

আবির:ওওও হে তাই তো,,কিন্তু তুমি তো বললা আমি ফিডার খাওয়া বাবু,,,প্রমাণ করে দিব কি যে আমি ফিডার খাওয়া বাবু না??

সাজি:ম,মানে,,কি বলছেন আপনি,,,,,

আবির সাজির খুব কাছে চলে এলো,,,সাজি ভয়ে চোখ বন্ধ করে ফেললো,,সাজির দম বন্ধ হয়ে আসছে,শ্বাসটাও নিতে পারছেনা,,,আবিরের হার্ট বিট বেড়ে যাচ্ছে,,,আবির সাজির কাছে এসে সামনে আসা চুলগুলাকে ফু দিয়ে তার সিটে আগের মতো বসে পড়লো,,আর এমন ভাব করলো যেন কিছুই হয়নি,,,সাজি অনুভব করতে পারে আবির তার সামনে নেই এক চোখ মেলে দেখে আবির তার দিখে তাকিয়ে মুচকি মুচকি হাসছে,,, সাজির যেন প্রাণ এলো,,জোরে নিশ্বাস নিয়ে সাজি বললো,,,

সাজি:গাড়ি ধার করালেন যে?

আবির:তো কিরবো?আমার বাসায় যাবা নাকি??আবির কথাটা বলে সাজির দিকে চোখ মারলো,,

সাজি:মানে কি হ্যা আপনার বাসায় কোন দুঃখে যাবো,,

আবির:দুঃখে না সুখে যাবা আর কি,,

সাজি:উফফ আপনি একটা,,,

আবির:I know I am Good Boy,,তোমার বাসাশ এসে গেছি আশে পাশে একটু দেখ,,

সাজি আর কিছু বলতে পারলো না,আশে পাশে তাকিয়ে দেখতে লাগলো সত্যি বাসার সামনে চলে এসেছে,,,,সাজি মনে মনে বললো,,

সাজি:(বজ্জাত কোথাকার সোজা সোজি না বলে ঘুরিয়ে পেছিয়ে বলার কি দরকার)

আবির:কি নামবা নাকি আমার বাসায় যাবা,,

সাজি তেলে বেগুনে জ্বলে উঠলো,,,সিট বেল্ট খোলার,জন্য এক প্রকার যোদ্ধ চালাচ্ছে সাজি,,,আবির বললো,,

আবির:Oh my God আস্তে আস্তে করো,,,

সাজি:আস্তের গুষ্টি কিলায় নিজে তো বলছেন নামতে এখন আবার বলছেন আস্তে,,এহ ডং

আবির সাজির কাছে এসে সিট বেল্ট খোলে দিল সাজি চোখ বন্ধ করে আছে, ,,, সাজি কেন যেন আবিরের চোখের দিকে তাকাতে পারেনা,,

আবির:সামান্য সিট বেল্ট খোলার জন্য এতৌ যুদ্ধ করতে হয়,,,

সাজি:জ্বী দরকার পড়লে পুরো তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ করবো,,Any problem??আর আপনাকে কে বলছে সিট বেল্ট খোলে দেওয়ার জন্য?

আবির: আচ্ছা আসো আবার বেধে দি,,

সাজি:লাগবেনা আপনি বেধে থাকেন গেলাম আমি হাহ,,,সাজি গাড়িয়ে থেজে বেড়িয়ে গিয়ে গাড়ির দরজা লাগিয়ে দিল,,

আবির:বাব্বাহ একটা Thanks ও দিলানা,,,আসলেই উপকার করতে নেই,,

সাজি ডোন্ট কেয়ার ভাব নিয়ে চলে গেল,,,কিছুদূর যেতে বলে “Thanks ২ বার”,,

আবির:২বার কেন?

সাজি:ভেবে দেখেন বাইইইই,,

আবির:আরে,,যা বাবা চলে গেল,, ,,,, পাগলি মেয়ে,,,

আবির ও হেসে গাড়ি নিয়ে চলে গেল,,,আয়ানও আরোকে পৌঁছে দিল,,,,তারপর নিজে গাড়ি নিয়ে বাসায় চলে গেল,,,,,,

কিছুদিন এভাবে হাসি খুশির মাধ্যমে কাটায়,,আয়ান আরোর খুনসুটি বাড়তে থাকে,,,আবির মাঝেমাঝে তার বোনকে কলেজ থেকে নিয়ে আসার নাম করে সাজিকে দেখার জন্য যায়,,,,,,,,,,,,,,

কাল আরো Birhtday, আয়ান অনেক Excited,,আয়ান ভাবছে আরোকে কাল অনেক বড় Surprise দিতে হবে,,,,,

রাত ১২ টায় সবাই আরোকে Wish করেছে সাজি জান্নাত আর Fb তে অনেক ফ্রেন্ড,, কিন্তু আয়ান একটা কল বা মেসেজ ও দেয়নি,,,আরো মন খারাপ করে আছে,,আজ সে কলেজেও আসেনি,,,,সাজি আর জান্নাত শান্তনা দিচ্ছে হয়তো বিজি আছে,,কিন্তু আরোর মন মানছেনা,,,দুপুর গড়িয়ে বিকেল বাট আয়ানের No call No Text ,,,,,

সন্ধায় আয়ান একটা টেক্সট করে,,,আরো তাড়াহুড়া করে মেসেজ চেক করে,,মেসেজে একটা জায়গার নাম উল্লেখ করা ছিল,,,আর লিখা ছিল,,,,,

“মিস কিউটিপাই এই জায়গায় চলে এসো,ওও হ্যা আজ শাড়ি পরে আসবা,, Take care”

আরো যেন এখন প্রাণ ভরে শ্বাস নিলো আর বললো,,,
আরো:আমি জানি Attitude বিল্লু আমাকে Surprise দেওয়ার plan করছে,,,পাগল একটা,,

আরে নিচে গিয়ে তার মাম্মাম আর পাপ্পার থেকে পারমিশন নেয়,,তাও সাজি আর জান্নাতের বাহানা দিয়ে বাহিরে গেল,,,,আরোর মাম্মাম, পাপ্পা আর আরিফ মিলে প্লান করে রেখেছে আরো আসতেই তাকে Surprise দিবে,,যতোই হোক আরো #Surprise_Lover

আরো নীল শাড়ি পরলো,,আজ চুল গুলা খোপা করে নিলো,,দুই হাত ভর্তি নীল চুড়ি,,চোখে কাজল আর ঠোকে হালকা গোলাপি লিপিস্টিক,, ব্যাস এইটুকুতে আরোকে দেখতে অপরুপ লাগছে,,,,,

আরো একটা রিকশা করে সে জায়গায় আসলো,,,,আরো ভাড়া মিঠিয়ে যেয়না পিছন ফিরলো তখন আরোর যেন পৃথিবী থমকে গেল,,আরো নিজের চোখে যেন বিশ্বাস করতে পারছেনা,,,

চলবে😢!!!
😍Surprise Lover😍

#Arohi_Afrin

Part:24

আরো একটা রিকশা করে সে জায়গায় আসলো,,,,আরো ভাড়া মিঠিয়ে যেয়না পিছন ফিরলো তখন আরোর যেন পৃথিবী থমকে গেল,,আরো নিজের চোখে যেন বিশ্বাস করতে পারছেনা,,,

আরো দেখলো জায়গাটা খুব সুন্দর করে সাজানো,,আয়ান একটা ফুলের অর্কিড দিয়ে রায়াকে প্রপোজ করছে,,,,,আরোর চোখের পানি থামার কোনো নামই নেয়,,,,,আয়ান এটা করতে পারলো আরোর সাথে, আরো সেটাই ভাবছে,,আরো ধীর পায়ে আয়ানের সামনে গেল,,পা টাও যেন আটকে যাচ্ছে,,,আয়ান তো নিজেই আরোকে শাড়ি পরে আসতে বললো,,তাহলে কেন এমন করেছে,,ভাবতে ভাবতে আরো আয়ানের সামনে আসলো,,,,আয়ান আর রায়া চোখ তোলে তাকালো,,রায়ার মুখে বিশ্ব জয় করা হাসি,,,,আরো সেদিকে তাকালো না,,,,,,আরো আয়ানের মুখের দিকে তাকিয়ে রয়েছে,,, কথা বলার ভাষা যেন হারিয়ে ফেলেছে,,,আরো দেখলো আয়ানের হাতে
এখনো সেই ফুলের অর্কিড,,,,, আরো দুই পা পিছিয়ে যেয়ে হাত তালি দিয়ে বললো,,,

আরো:বাহ মিস্টার আয়ান চৌধুরি বাহ,,,,এতো নাটক করতে পারেন আপনি ভাবনার বাহিরে ছিল,,, (কান্না গলায় বললো,)

আয়ান বললো,,,,

আয়ান: এটাকে নাটক না প্রতিশোধ বলে প্রতিশোধ,,,

আরো অবাক হয়ে গেল আয়ানের কথায়,,আরো যেখানে কিছুই করেনি সেখানে প্রতিশোধের কথা কেন আসছে???আরো আয়ানের সামনে গিয়ে বললো,,,,

আরো:প্রতিশোধ মানে??

আয়ান:ওওও এখন তে ভুলেই যাবা,,মনে নেই কলেজের সবার সামনে বিনা কারণে তুমি আমায় থাপ্পড় মেরেছো,,,,কলেজের সবাই কতো হাসাহাসি করেছে এটা নিয়ে,,, তুমি হয়তো ভুলে যেতে পারো মিস আরো কিন্তু আমি ভুলিনি,,,এটার প্রতিশোধ নিলাম,,,,

আরোর মাথায় বাজ পরলো আয়ানের কথায়,,সামান্য এটার জন্য আয়ান আরোর সাথে ভালোবাসার নাটক করেছে,,,,আরো আয়ানকে গিয়ে আরেকটা থাপ্পড় মেরে তার শার্টের কলার ধরে কান্না করে দিল,,,কান্নার জন্য কথা আটকে আসছে,,,আরো বললো,,,,

আরো:কেন আয়ান??কেন এমন করেছো তুমি আমার সাথে??সামান্য একটা থাপ্পড়ের প্রতিশোধ তুমি এভাবে কেন নিলে?কেন আমার ভালোবাসা নিয়ে খেলা করলে তুমি,,যদি প্রতিশোধ নেওয়ার থাকতো তাহলে আমাকেই সবার সামনে থাপ্পড় মারতে,,কিন্তু কেন তুমি আমার ইমোশন নিয়ে খেলা করলে,কেন আয়ান কেন করলে তুমি এমন,,,,(আরো আয়ানের শার্টের কলার ঝাঁকাতে ঝাঁকাতে বললো),,

আরো কখনো আয়ানকে “আয়ান” বলে ডাকেনি আর না ডেকেছে তুমি করে কিন্তু আজ সে আয়ান বলে ডাকছে আর তুমি করেও বলছে,,আয়ানও অবাক হলো,,,

আয়ান একবার রায়ার দিকে তাকালো,,,রায়ার মুখে এখনো সেই রহস্যময় সেই হাসি,,,,আয়ান আবার আরোর দিকে তাকালো,, আরো কান্না করতে করতে হিচকি তুলে ফেলেছে,,চোখের কাজল লেপ্টে গিয়েছে,,,আয়ান এক ঝটকায় আরোর হাত ফেলে দিয়ে বললো,,,,

আয়ান:অনেক ন্যাকামো করেছো,,,,,

আরো:আয়ান প্লিস একবার আমার চোখের দিকে তাকিয়ে বলো সব মিথ্যা বিশ্বাস করো আমি সব ভুলে যাবো শুধু একবার আমার চোখের দিকে তাকিয়ে বলো আমাকে ভালোবাসো,,,,

আরো আর না পেরে আয়ানের পায়ের নিচে বসে পরলো,,,,আয়ান অবাক হয়ে আরোর দিকে তাকালো,, মূহুর্তেই যেন কি মনে করে আরোর সামনে থেকে দুই পা পিছিয়ে গেল,,,আয়ান অন্যদিক ফিরে বললো,,,

আয়ান:না আমি তোমায় কখনো ভা,, ভালোবাসিনি,,আর এখনো বাসিনা,,,

আয়ান এক হাত দিয়ে রায়াকে টেনে এনে বললো,,

আয়ান:আমি রায়াকে ভ,,ভালোবাসি,,,আর কিছুদিন পর আমরা বিয়ে করছি,,

আরোর অবাক হওয়া ছাড়া কিছুই করার নেই,,নিচ থেকে উঠে দাড়ালো চোখের পানি মুছে বলল,,,,

আরো:ওহ তাহলে কি সব মিথ্যা ছিল???(অবধ্য চোখের পানি গুলাও বাধা মানছেনা)

আয়ান:হ,হুম

আরো:কলেজ ফাঁকি দিয়ে ঘুরতে যাওয়া মিথ্যা ছিল??গভীর রাতে আমাকে এক নজর দেখতে আসা মিথ্যা ছিল??এক সাথে কাঠানো সব মূহুর্তই মিথ্যা ছিল??

আয়ান:(আয়ান ভাবছে গভীর রাতে যে সে আসতো আরো তা জানলো কিভাবে)হুম মিথ্যা ছিল সব মিথ্যা,,,,

আরো একটা হাসি দিয়ে বললো,,

আরো:Well mister Ayan,, প্রতিশোধ নেওয়া শেষ??আমাকে কষ্ট দিতে চেয়েছেন,, দিয়েছেন,,,,আর কি কিছু বাকি আছে,,নাকি আরও কষ্ট দিবেন??

আয়ান চুপ করে আছে,,,,,,

আরো:Thank you mister আয়ান চৌধুরি Thank you So much,, এত্তো বড়ো একটা Surprise দেওয়ার জন্য,,,,,আমার Birthday এর সবচেয়ে বড়ো Surprise আপনি দিয়েছেন,,,জীবনেও ভূলবো না জীবনেও না,,,

আরো কথাটা বলে সামনে হেটে যেতেই আবার পিছন ফিরে বললো,,,

আরো: By the Congress Both of you,,শুভ হোক তোমাদের আগামী পথ চলা,,,,আর আর কিছু বলতে পারলো না চোখের পানি অঝোর ধারায় ঝরছে,,,,,

আরো কান্না করতে করতে জায়গাটা ত্যাগ করলো,,,কিছুদর এসে রাস্তায় জোরে কান্না করে দিয়ে বসে পরলো,,,আরো কখনো এভাবে কান্না করেনি,,,,,,কাদঁতে কাদঁতে আরোর চোখ ফোলে গিয়েছে,,,,সন্ধা গনিয়ে রাত হয়ে যাচ্ছে বিদায় আরো উঠে দাড়িয়ে চোখ মুছে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিল,,,,,কিছুক্ষনের মধ্যে বাড়ি চলে আসলো,,

আরো তার বাসার বাজাতে চায়লো কিন্তু দেখলো দরজা খোলা,,,কিছুটা অবাক হলো,,আরো সেদিকে খেয়াল করলো না,, বাসার ভিতরে আসলো, পুরো ঘর অন্ধকার,,আরো একটু সামনে এগুলে বাসার সব লাউট জ্বলে ওঠে আর আরোর মাম্মাম পাপ্পা আর আরিফ বলে উঠলো,,

“Happy Birthday to you,,Happy Birthday To you,,Happy Birthday Dear Aro,,,Happy Birthday to you”

আরোর মুখে হাসি ফুটে উঠলো,,,আরো বললো,,

আরো:Thank you mamma pappa,

সবাই কিছুটা অবাক হয়,,কারণ আরো surprise বলতেই পাগল ছিল,,ছোট ছোট Surprise পেলেই সে খুশিতে লাফা লাফি শুরু করে দিতো,,কিন্তু আজ তার ব্যতিক্রম,,,

আফজাল রহমান:মামনি তুমি কি খুশি হওনি??

আরো:পাপ্পা কি বলো?আমি অনেক খুশি হয়েছি পাপ্পা,,

আরিফ:তুর জন্য আপু এই surprise plan করেছি,,

আরো আরিফ এর সামনে বসে বললো

আরো:Thanks ভাই,,অনেক সুন্দর surprise দিয়েছিস,,,,এত্তোগুলা ধন্যবাদ,, আরিফ আরোর গালে চুমু দেয়,,,আরো হেসে উঠে দাড়ায়,,

আরো:মাম্মাম আমি উপরে যাচ্ছি,খুব tried লাগছে,,,,,,

রেহানা রহমান:কি বলিস কেক কাটবিনা?

আফজাল রহমান:আহ রিহা ওর tired লাগছে বলছেনা,, কাটতে হবে না মামনি ওপরে গিয়ে রেস্ট নাও তুমি,,

আরো দেখলো আরিফ আর তার মাম্মাম মুখ কালো করে রয়েছে,,আরো হেসে তাদের সামনে গিয়ে বললো,,,

আরো:আমার Birthday আর আমি কেক কাটবোনা তা কি হয়?

আরিফ:সত্যিই?

আরো:জ্বী ১০০% সত্যি,,,,

আরো কেক কেটে সবাইকে খায়য়ে দিল,,তার মাম্না পাপ্পা ও খাইয়ে দিল,,আরিফ খাইয়ে দিতে গিয়ে আরোর মুখে কেক মাখিয়ে দিল,,আরো আজ কিছু বলছে না,,আরোর আগের Birthday এর সময় আরিফকে তো পুরো কেক দিয়ে গোসল করিয়ে দিয়েছিল,,কিন্তু আজ তার উল্টো,,আরো একটু হেসে বললো,,,

আরো:মাম্মাম আমি উপরে যায়?

আরিফ:আপু Gift নিবিনা?

আরো:পরে নিবো এমনিতেই আজ কম Surprise পায়নি,,জীবনের সবচেয়ে Best surprise টায় পেয়েছি আজ,,,

রেহানা রহমান:মানে?

আরো:কিছু না,,,

আরো নিজের রুমে চলে এলো,,,,রুমের দরজা বন্ধ করতেই সে কান্নায় ভেঙে পরে,,এতোক্ষণ অনেক জোর করে কান্না আটকিয়ে রাখছিল,, আর আটকিয়ে রাখা সম্ভব হচ্ছে না,,আরো শাওয়ার নিতে চলে গেল,,শাওয়ারের নিচে বসে কান্না করতে লাগলো,,চোখের ওানি গুলো নির্দ্বিধায় গড়িয়ে পড়ছে,,থামাবার সাধ্য আরোর নেই,,,,প্রায় এক ঘন্টা এভাবে বসে ছিল,,,এরপর কাপড় চেন্জ করে বারান্দার সেই রকিং চেয়ারে বসে টুনুমুনুকে কোলে নিলো,,আরো তাকেও জড়িয়ে ধরে কান্না করে দিল,,,,

কিছুক্ষন পর রেহানা রহমান ডিনারের জন্য ডাকতে আসে,,,,,,কিন্তু আরোর এক কথা সে খাবেনা,,রেহানা রহমান অনেক জোর করেও খাওয়াতে পারলো না,,,,,আরো রকিং চেয়ারে এভাবে কান্না করতে করতে কখন ঘুমিয়ে যায় নিজেও টের পায়নি,,

রাত ২:৫০,,আরোর ঘুম ভেঙে গেলে সে নিজেকে রকিং চেয়ারে আবিষ্কার করে,,,আরো উঠে দাড়িয়ে বিছানায় গা এলিয়ে দিলো,,মোবাইল ফোন হাতে নিয়ে দেখলো সাজি আর জান্নাতের অনেক গুলা মিসড কল আর Text,, আরো সাজি আর জান্নাতকে একটা মেসেজ দিলো,,

“Sorry year busy ছিলাম,খেয়াল করিনি”

আরো মেসেজটা দিয়ে মোবাইল টা আবার বিছানার পাশে রাখা টেবিলের উপর রেখে দিল,,,চোখ বন্ধ করতেই আয়ানের সেই মূহুর্তগুলা চোখে ভাসছে,, আয়ানের প্রত্যেকটা কথা কানে বাজছে,,,,,, মূহুর্তেই আরোর চোখ দিয়ে নোনা পানি গুলা ঝরতে থাকলো,,,,,,,,,পুরো রাতটায় গেলো কান্না করতে করতে,,, ফজরের সামন্য আগে তার চোখ লেগে আসে,,,,,

সকালে,,,,,,,

চলবে,!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here