Surprise Lover -Part 21+22

0
74

😍Surprise Lover😍

#Arohi_Afrin

Part:21+22

আরো রিকশায় বসে আয়ানের দেওয়া রুমালটা হাতে নিল,,আয়ানের সেই রুমাল থেকে মিস্টি একটা সুগন্ধ ভেসে আসছে,,,,আরো হেসে রুমালটা খুব যত্ন করে বেগে রাখলো,,,

দুপুরে আরো বারান্দার রকিং চেয়ারে বসে আছে কোলে তার কিউট টুনুমুনু,,,,,, আরোর কল আসতে সে তাড়াতাড়ি মোবাইল হাতে নিল,,মোবাইলের স্কিনে আয়ানের নাম “Attitude বিল্লু “ভেসে আসতেই আরো মুচকি হেসে কল রিসিভ করলো,,,তাদের দুজনের মধ্যে এভাবে কথা চলতে থাকে,,,,

আরোর সবসময় সব বিষয়ে আয়ান অনেক Careful,, আরো সামান্য আঘাত পেলে আয়ান এমন অবস্তা করে যেন আঘাতটা আরোর না আয়ানের লেগেছে,,,,আরোর এই বিষয়ে খুব ভালো লাগে,,,,,,আয়ান যখন হাসতো আরো মুগ্ধ নয়নে তাকিয়ে তাকতো,,,
মাঝে মাঝে আয়ান যদি দেখে আরো তার দিকে তাকিয়ে আছে তখন আরো লজ্জায় পরে যেত,,,,

এমনভাবে চলতে থাকলো তাদের সময়,,,,,,,একদিন প্রচুর বৃষ্টি হচ্ছে,,, আরো ছাদেঁ চলে গেল বৃষ্টিতে ভিজতে,,, কিছুক্ষন পর আরোর মনে হলো তার পেছনে কেউ আছে,,,পেছন ফিরতেই অবাক,,, আয়ান দুই হাত বুকের উপর ভাজ করে মুখে টেডি স্মাইল দিয়ে দাড়িয়ে আছে,,,আরো প্রথমে স্বপ্ন মনে মনে করলো,,,চোখ কচলিয়ে দেখলো,,আয়ান আরোর কান্ড দেখে হাসছে,,,আরো নিজের গাতে চিমটি দিয়ে দেখলো আসলোই কি স্বপ্ন?
চিমটি দেওয়ার সাথে সাথে আরো আহহ বলে আস্তে করে চিৎকার দিল,,,,আয়ান বললো,,

আয়ান:It’s not dream মিস কিউটিপাই,

আরো:আপনি এখানে কিভাবে এলেন??

আয়ান:অনেক কষ্টে এসেছি গো Dear,তোমার সাথে বৃষ্টি বিলাস করবো বলে,,,

আরোর নিজেরও ইচ্ছে ছিল আয়ানের সাথে বৃষ্টিতে ভিজার,,আয়ান আজ সেই ইচ্ছেটা পুরণ করেছে,,

আরো:কিন্তু,,

আয়ান:Shhh কোনো কথা না,, এই special moment টা feel করো,,ok,

আরো আর কিছু বলতে পারছেনা,,দুইজন পাশাপাশি বৃষ্টি বিলাস করছে,,,আয়ান আচমকা আরোকে টান দিয়ে নিজের সাথে মিশিয়ে ফেলল,,,,আরো অবাকের চরম পর্যায়ে,,, কপালে লেপ্টে থাকা ভেজা চুলগুলা আয়ান আলতো হাতে কানের পিছনে গুজে দিল,,,,আরোর Hear beat প্রচন্ড গতিতে দৌড়াচ্ছে,,,আরো আয়ানের বুকে মুখ লুকালো,,,কিছুক্ষন আয়ান আরোকে ছেড়ে দিয়ে আরোর সামনে এক হাটু গেড়ে বসে আরোর এক পা তার হাটুর ওপর রাখে,,আরো কিছুই বুঝতে পারছেনা,,,,,আয়ান তার পকেট থেকে একটা পায়েল আরোর পায়ে পরিয়ে দেই,,,,,,,আরো অবাক হয়ে যায় আয়ানের কাজে,,,,আয়ান উঠে দাড়ায়ে আরোর কপালে একটা চুমু দিয়ে বলে,,,

আয়ান:এই পায়েলটা কখনো পা থেকে খুলবে না মিস কিউটিপাই,,

আরো মাথা নেড়ে হ্যা বললো,,

আয়ান:আজ তাহলে যায়,,,নিজের খেয়াল রেখো,,,

আরো:আপনিও,,,আর সাবধানে যাবেন please,,

আয়ান:Ok byeeee

আরো:bye,,

যতক্ষণ না আয়ান নিচে গিয়ে গাড়িতে না উঠেছে আরো ততক্ষণ পর্যন্ত দাড়িয়ে ছিলো,,,

আরো নিচে গিয়ে বিছানায় শুয়ে আয়ানের কথা ভাবতে লাগলো আর লজ্জায় পেয়ে বালিশে মুখ লুকাচ্ছে,,,কিছুক্ষন পর আয়ান আরোকে কল দিল,,

আয়ান:কি মিস কিউটিপাই আমার কথা ভাবা হচ্ছে বুঝি??

আরো:একদম না,,,, Attitude বিল্লুর কথা ভাবছি,,,আরো কথাটা বলে খিলখিল করে হাসতে তাকে,,,

দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকে তাদের কথা,,এভাবে প্রায় ৫ মাস চলে যায়,,,আরোর প্রতি আয়ানের ভালোবাসা যেন আরও বেড়ে গিয়েছে,,সাথে পাগলামিও,,কখনো কখনো আয়ানে গভীর রাতে চলে আসতো আরোর ঘুমন্ত নিষ্পাপ চেহারাটা দেখার জন্য,,এক নজর দেখে চলে যেত,,আরো প্রথম প্রথম টের পায়নি,,,প্রায় যখন একি ঘটনা ঘটতে থাকে তখন আরো বুঝে যায় কিন্তু এমন ভাব করে যেন সে কিছুই যানেনা,,,,,আরো এখনো আয়ানকে আপনি করে সম্বোধন করে আর স্যার ডাকে,,আায়ান অনেক বার বলেছিল স্যার/আপনি না ডাকতে কিন্তু আরো চেষ্টা করেও পারেনি,,আয়ান ও তাই আর কিছু বলেনি,,,

এর মধ্যে জান্নাতের এনগেইজমেন্টের ডেট fixed হয়ে গেল,,,,,কাল জান্নাতের এনগেইজমেন্ট,,,,,,,,,,এই এনগেইজমেন্টের অনুষ্ঠানটি সন্ধ্যায় হবে,,জান্নাত বারবার বলে দিয়েছে সাজি আর আরোকে যেন তারা বিকালেই উপস্থিত হয়,,,

পরদিন বিকালে আরো ব্লু আর হুয়াইট মিশ্রিত একটি বার্বি গাউন পরেছে,,কানে নীল বড় বড় ঝুমকো,,,চোখে কাজল আর ঠোটে হালকা লিপিস্টিক,,, এক হাতে নীল আর সাদা চুড়ি অপর হাতে নীল বেল্টর ঘড়ি,,,,,,চুল এক পাশে ছেড়ে দিয়ে নিচে কার্ল করে দিয়ে দিয়েছে,,,আজ আরোকে সত্যি বার্বি ডলের মতো লাগছে,,

সাজিও একি শুধু কালার ভিন্ন,,,সাজির গাউন পিংক আর হুয়াইট মিশ্রিত,,, সাদা ঝুমকা,, এক হাতে সাদা চুড়ি অপর হাতে পিংক কালারের ঘড়ি,,সাজিকেও অপরুপ লাগছে,,,,

আরো আর সাজি জান্নাতের বাসার দিকে রওনা দিল,,,,,,জান্নাতদের বাসা খুব সুন্দর করে সাজানো হয়েছে,,সাজি আর আরো প্রবেশ করতেই জান্নাত জাপটে দুজনকে জড়িয়ে ধরে,,,আর বলে,,

জান্নাত:শাঁকচুন্নি ডায়নি তোদের আসতে এতোক্ষণ লাগে??

আরো:থাপ্পড় একটাও মাঠিতে পরবেনা,,আর কতে early আসবো বলতো,,,সাজি তুই বোঝা ওকে,,

জান্নাত :ওরে বুঝদার মেয়েরে,,

সাজি:জানতু তুই আজও ঝগরা করবি?আজ না তুর এনগেইজমেন্ট?

জান্নাত:তো???বিয়ে তো না,,,হিহিহি,,,,way the way Aro তুর টিংকু কই??

আরো:টিংকু বললে তোকে আমি উগান্ডায় পাঠাবো,,,কতো কিউট একটা নাম টুনুমুনু,, এটা না বলে এক জন একেকটা নামে ডাকিস,,

জান্নাত আর সাজি হাসতে লাগলো,,আরো বললো,,

আরো:এভাবে বাহিরে দাড় করায় রাখবি নাকি,,

জান্নাত:ওপস সরি বেব,,,, ভিতরে আয়,,,

আরো আর সাজি ভিতরে আসলো,,, জান্নাতের মা আর বাবার সাথে কিছুক্ষন কথা বলে জান্নাতকে সাজানোর জন্য ওপরে চলে গেল,,,,

আরো আর সাজি জান্নাতকে সাজাচ্ছে,,

জান্নাত :যদি ওল্টা পাল্টা সাজ দিয়েছিস তোদের কপালে শনি আছে দেখিস,,

আরো:আমি ভাবছি তো পেত্নিদের মতো করে সাজাবো,,,,

সাজি:আমি শাঁকচুন্নির মতো সাজাবো,কি বলিস?জোস হবে তাই না?

জান্নাত :তোদের সাথে কথায় পারা যাবেনা,,,

এভাবে দুষ্টুমি করতে করতে আর আর সাজি জান্নাতকে সুন্দর করে সাজিয়ে দেয়,,,,,জান্নাত রেড লেহেঙ্গা পরেছে,,,দুই হাত ভর্তি লাল আর গোল্ডেন চুড়ি,,, চুল গুলা সুন্দর করে খোপা করে রেখেছে,আর সিম্পল একটু সাজ দিয়েছে,,,

সাজি:মাশাল্লাহ বান্দুপি কে আজ খুব সুন্দর লাগছে,,,

আরো:দেখতে হবে না কে সাজিয়ে দিয়েছে,,জিজু আজ সত্যি পাগল হয়ে যাবে,,

জান্নাত :তোরা বেশি পকর পকর করিস(লজ্জা পেয়ে বললো)

আরো:থাক লজ্জা পেতে হবে না,,সাজি চল ওকে নিচে নিয়ে যায়,,

জান্নাত:শুন না আমার অনেক নার্ভাস লাগছে,,,

সাজি:ধুর জিজুই তো অন্য কেউ তো না

জান্নাত :তাও,,

আরো:এতো নার্ভাস feel করার কিছুই নেই,,সো প্যারা নিসনা,,,চল,,

জান্নাত :আরো তুই পারিসও বটে,,কি আর করবো চল,,,

আরো আর সাজি জান্নাতকে নিয়ে সিড়ি দিয়ে নামতে লাগলো,,আরো জান্নাতের ডান পাশে আর সাজি বাম পাশে,,,,,

জিদান বেচারা জান্নাতকে দেখে Heart attack হওয়ার অবস্তা,,,,জান্নাত লজ্জা পেয়ে মাথা নিচু করে রয়ছে,,,,,

আরো আর সাজি হাসাহাসি করতে করতে সামনে তাকাতেই আরোর চোখ ছানাবড়া,,

চলবে!!😁😁
😍Surprise Lover😍

#Arohi_Afrin

Part:22

আরো আর সাজি হাসাহাসি করতে করতে সামনে তাকাতেই আরোর চোখ ছানাবড়া,,আরো দেখলো জিদনের একপাশে আয়ান দাড়িয়ে আছে,,সাদা শার্ট কালো সুট পরা,,,,চুল এক পাশে জেল দিয়ে সেট করা,,মুখে গায়েল করা হাসি লেগে আছে,,আরো চোখ ফিরাতেই পারছেনা,,,

আয়ান আরোকে দেখে থমকে গেছে,,,,আয়ানের চোখে আরোকে এখন আকাশ থেকে নেমে আসা কোনো পরীর চেয়ে কম লাগছেনা,,,,,আয়ান শুধু তাকিয়ে আছে,,,,জিদানের ডাকে আয়ানের হুশ আসে,,

অন্যদিকে সাজির দিকে এক জোড়া চোখ অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে,,,,চোখ ফিরাবার উপায় নেই,,,,,সাজি লজ্জায় এদিক ওদিক তাকাচ্ছে,,

জিদান :তোদের কি হলো একটু বলবি,,,দুইজন কই হারায় গেলি,,,

আবির:পরীর ঘুরে,,(মেয়েটা এখানে কি করে এলো)

জিদান :পরী??কই পরী??

আবির:আব কিছু না (কি বলে ফেলেছি রে)

জিদান :বুঝেছি ভাই লাভ প্রবলেম

আবির:বুঝলে ভালো হিহিহি,,

জিদান:আয়ান তুরও একি প্রবলেম নাকি?

আয়ান :এই কথা গুলা বলার জন্য আনছিস?আর আরো, সাজি,,জান্নাত এখানে?তার মানে জান্নাতের সাথে তুর এনগেইজমেন্ট??

জিদান :অভিয়েসলি,,,,,ওপস ওরা তো তুর কলেজেই পরে,,

আবির:(আরো নাকি সাজি মেয়েটার নাম,)

আরো সাজি আর জান্নাত ফিসফাস করে কথা বলছে,,

আরো:জানতু স্যাররা এখানে কিভাবে??

জান্নাত:আমার একি প্রশ্ন,,জিদানের ফ্রেন্ড হয়তো,,আমাকে বলেছে তার দুজন বেস্ট ফ্রেন্ড আছে,,মনে হয় স্যার আর পাশের ছেলেটি,,

সাজি: আবির,,

আরো&জান্নাত:কি???তুই চিনিস??আমাদের বলিস নি!!

সাজি:ওয়েট তেমন ভাবে চিনি না,,,,

আরো:তো কিভাবে??

সাজি:আরো তুর মনে আছে?জানতুর বাসা থেকে আসার সময় স্যার তুকে কুকুরের ভয় দেখিয়ে ড্রপ করে দিয়েছিল??

আরো:শাঁকচুন্নি তো মনে থাকবে না,,তুই তাহলে মিথ্যা বলেছিস?

সাজি:আরে আগে ফুল কথা শুন,,,আমিও মনে করেছি ওইদিকে কুকুর নেই,,,কিন্তু যখন আমি যাচ্ছি,,,

#Flash_back

সাজি হাটছে এমন সময় সামনে তাকিয়ে দেখে ৩টা কুকুর তার দিকে জিব্বাহ বের করে দৌড়ে আসছে,,,সাজি ভয় পেয়ে দৌড় দিতে কেউ এক জনের সাথে ধাক্কা খায়,,,,সাজি তখন এতোটায় ভয় পেয়ে যায় যে সামনে থাকা ছেলেটিকে টাইট করে জড়িয়ে ধরে বলে,,

সাজি:প্লিস প্লিস আমাকে বাছান,,,,

ছেলেটি সামনের দিলে তাকিয়ে দেখে তিনটা কুকুর,,,,ছেলেটি আর কেউ না আবির,আবির হাসছে,,কিছুক্ষন পর আবির কুকুর গুলাকে তাড়িয়ে দেয়,,,আবির বললো,,

আবির:চলে গেছে কুকুরগুলা,

সাজির হুশ আসলেই ছিটকে সরে গিয়ে বলে,,

সাজি:I am so sorry আসলে আমি বুঝতে পারিনি,,সাজিকে বলতে না দিয়ে বললো,,

আবির:It’s ok but এভাবে একা একা বের হওয়া বিপদজনক,,তো একা যেতে পারবেন?

সাজি:জি এইতো কাছেই চলে এসেছি,,,

হঠাৎ আবিরকে কেউ ডাক দেয়,,তখন আবির চলে যায়,,সাজি thanks দেওয়ার সময় টুকু পর্যন্ত পায়নি,,

#present

সাজি:বুঝেছিস এবার??

আরো%জান্নাত:হুম বুঝলাম,,,,

জান্নাতের আব্বু বললো জান্নাতকে স্টেজে নিয়ে আসতে,,,আরো আর সাজি জান্নাতকে নিয়ে আসলো,,,আয়ান আর আবির জিদানকে নিয়ে আসলো,,,,,

জিদান প্রপোজ করার স্টাইলে জান্নাতকে রিং পরিয়ে দিল,,,,নিচে সবাই হাত তালি দিতে লাগলো,,আরো না বুঝে একটা সিটি মারলো,,আয়ান অবাক হয়ে তাকিয়ে আছে,,এরপর আরোর reaction দেখে আবার হেসে দিল,,,,,,,

এরপর এনগেইজমেন্টের অনুষ্ঠান শেষ হয়,,,অনুষ্ঠানটি তেমন বড় করে করা হয়নি শুধু কাছের আত্নীয় স্বজনরা এসেছে,,,কিছু কিছু আত্নীয়রা বাড়িতে প্রবলেম থাকায় চলে যাচ্ছে,,,,,আরো আর সাজি চলে যেতে চায়লো কিন্তু জান্নাতের কড়া নির্দেশ যদি তারা এখন চলে যায় জান্নাত তাদের সাথে কথা বলবে না,,,জান্নাতের বাবা অনেক জুর করে আয়ানদের ফ্যামিলিকে রাতের খাওয়া দাওয়া করার জন্য অনুরোধ করে,,,,তারাও নিরুপায়,,,,

খাবার টেবিলে আরোর সামনের চেয়ারে আয়ান বসেছে,,সাজির সামনের চেয়ারে আবির,,,আর জান্নাতের সামনের চেয়ারে জিদানকে বসানো হয়েছে,,,,

আবির সাজিকে দেখেই যাচ্ছে,,সাজির আবিরের দিকে তাকাতেই পারছেনা,,জান্নাত আর জিদান একজনের দিকে আরেকজন তাকিয়ে হাসছে,,,,আরো নিচের দিকে তাকিয়ে খাবার মুখে তুলতে যাবে তখনি তার পায়ে কেউ সুড়সুড়ি দেয়,,,,আরো আয়ানের দিকে তাকালে দেখে আয়ান হাসছে,,আরোর বুঝতে বাকি রইলো না কাজটা কে করেছে,,,,খাবারের মাঝখানে সাজির হাত থেকে একটা চামচ পরে যায়,,,,সাজি একটু ঝুকে নিচে তাকাতেই একটা টাসকি খেল,,,,জিদান পা দিয়ে জান্নাতকে সুড়সুড়ি দিচ্ছে আর আয়ান আরোকে,,,,,,,সাজি চামচ নিয়ে টেবিলে রাখলো,,,নিজের হাসি থামাতে পারছেনা সে,,,,,,আরো তো খেতে পারছেনা,,, আয়ান মুচকি মুচকি হাসছে আরোর অসহায় face দেখে,,,,,,

খাওয়া দাওয়ার পর আরো,সাজি আর জান্নাত ড্রয়িংরুমে এলো,,,,হঠাৎ সাজি জুরে হেসে দেয়,,তার হাসির আওয়াজ শুনে আয়ান আবির আর জিদান আসে,,,,,

জিদান:কি ব্যাপার শালিকা এতো হাসছো যে??

সাজি:ব্যাপরটা কি বলবো সবার সামনে???

আরো:কি ব্যাপর বলতো সাজি মাজি এভাবে হাসছিস কেন তুই??

আবির:(ওওও তার মানে মেয়েটার নাম সাজি,উম নাইস নেম)

সাজি:বলবো টেবিলের নিচে,,,,,সাজি আর বলতে পারলো না তার আগেই ,,,,,

জিদান আর আয়ানের কাশি উঠে গেল তারা ভাবতে লাগলো সাজি এই কান্ড টা দেখলো কীভাবে,জিদান আর আয়ানের এক সাথে কাশি উঠায় একজন অন্যজনের দিকে অবাক চাহনি দিয়ে তাকালো,,,সাজি গিয়ে দুজনকে পানি দিয়ে আবার হাসতে থাকে,,,,আরো আর জান্নাত রুবটের মতো দাড়িয়ে আছে,,,

সাজি:থাক থাক টাসকি খায়তে হবে না,,,,, বলবো না,,,সাজি আবারও অট্ট হাসিতে হাসতে লাগলো,,

আরো আর জান্নাত সাজির হাসি দেখে ফুলতে লাগলো,,যদি জিদান আবির আয়ান না থাকতো নিশ্চিত সাজির কপাল ফাটতো,,,

আবির:কি হয়েছে আমি বুঝতে পারছিনা,,

সাজি:আপনি বুঝবেননা কারণ আপনি ফিডার খাওয়া বাবু,,,,,,সাজি আবারও হাসতে লাগলো,,এবার তার কথা শুনে সবাই হাসতে লাগলো,,,,

আবির:কি বললা তুমি?আমি বাবু??(রেগে)

সাজি:না না আপনি বাবু কেন হতে যাবেন আপনি তো অত্যন্ত ভালো আর আমার চেয়ে দ্বিগুণ বড়,,,(হাসার চেষ্টা করে বললো)

সাজির কথা শুনে সবাই মুখ চেপে হাসতে লাগলো,,,,,,,,আবির ও না হেসে পারলো না সাজির মুখ দেখে আর ভাবতে লাগলো পরে বুঝাবে এর মঝা,,,,,,জান্নাত আর জিদানের ফ্যামিলি আসলো ড্রয়িংরুমে,,সবাই কিছুক্ষন গল্প করলো,,,,,,,

এবার সবার বিদায় নেওয়ার পালা,,,,জান্নাত আর জিদান কিছুক্ষন কথা বলে নেই,,,জান্নাত অনেকবার সাজি আর আরোকে রেখে দিতে চায়লো কিন্তু বেচারির চেষ্টা বৃথা গেল,,,,,,,,জিদানের ফ্যামিলি গাড়ি নিয়ে চলে গেল কারণ আয়ান আর আবির নিজেদের গাড়ি এনেছিল,,,আরো আর সাজি বের হতেই আয়ান বললো,,

আয়ান:চলো তোমাদের ড্রপ করে দেয়,,,,

সাজি:স্যার লাগবেনা আমি যেতে পারবো,,

আরো:আমারও লাগবেনা,,ভয়ে ভয়ে বললো,,

আয়ান রাগি ভাব নিয়ে আরোর দিকে তাকালো,,আয়ান বললো,,

আয়ান:আবির তুই সাজিকে ড্রপ করে দে,, তোদের বাসা তো একি রাস্তায়,,,,আর ওদের একা ছাড়া ঠিক হবে না,,,

আবির:আমিও সেটা বলতে চায়ছিলাম,,,

সাজি:(এইরে ওনার সাথে গেলে যদি বাবু বলার প্রতিশোধ টা নেয় কি করবো)

আবির:(এইবার সাজি বুঝবে আমি বাবু নাকি কি,)Devil smile দিয়ে আবির বললো”হুম আসো সাজি,,,

সাজি:বলছিলাম কি,,,

আয়ান:সাজি চুপচাপ যাও,,,

সাজি:(হায় আল্লাহ কেন যে ওনাদের আগে বের হতে গেলাম)জ্বী যাচ্ছি,,,,

সাজি আবিরের সাথে গেল,,,পিছনের সিটে বসতে গেলে বেচারি একটা ধমক খেয়ে সামনের সিটে বসে,,,,সাজি Already আবিরকে মনে মনে বকা দিয়ে আবিরের গুষ্টি উদ্ধার করছে,,,,,,,আবির তো Devil Smile দিচ্ছে,,,,আবির গাড়ি Start দিলো,,,,,

এবার আয়ান আরোর দিকে ফিরে বললো,,,

চলবে😁😁!!!!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here